নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

আমি স্মৃতিকাতরতা নামক ভীষণ এক রোগগ্রস্ত, সেই সাথে বিষাদগ্রস্থ মানুষ। আমার চিকিৎসা প্রয়োজন।

স্বপ্নবাজ সৌরভ

ভীষণ রকম সাম্যবাদী , সাম্যের কথা বলে - তারায় আবার স্নান করে যায় , মগজ গলা জলে !

স্বপ্নবাজ সৌরভ › বিস্তারিত পোস্টঃ

দুঃখিত। মাথা আউলা হয়ে আছে ! মাইন্ড করবেন না।

১৬ ই মার্চ, ২০২০ সকাল ১০:৫০



এই দেশের থেকে ভালো থাকবেন বলে , বেশি টাকা ইনকাম করবেন বলে , দেশ ছেড়েছিলেন। আমরা কত কিছুর মাঝেও এই দেশে পড়ে আছি। এই যানজট , দূষিত আর অসহ্য নগরে ঝুলতে ঝুলতে অফিস করি। একহালি কলা আর একটা পাউরুটি কিনে বাড়ি ফিরি। আমি জানি আপনারা প্রবাসে অনেক কষ্ট করেন , অমানুষিক পরিশ্রম করে রেমিটেন্স পাঠান। পাউরুটি কলা কিনে পরিবারের কাছে ফিরতে পারেন না। আপনার বাচ্চা ছুটে এসে কোলে উঠে না , সহধর্মিনী মিষ্টি হাসি দেয় না - দিন শেষে বাড়ি ফিরেছেন দেখে। বিষয়টা অনেক কস্টকর কিন্তু এদেশের থাকার চেয়ে অনেক ভালো থাকবেন বলে, এই বিসর্জন টুকু আপনাকে দিতেই হবে। বাংলাদেশ দরিদ্র একটা দেশ। দেশের সাধারণ মানুষ গুলোও 'কেমন যেন' । এই দেশে যখন আপনারা ফেরেন তখন হয়তো এই দেশটাকে আরো 'যাচ্ছেতাই' মনে হয়। কিন্তু জানেন কি , এই যাচ্ছে তাই দেশে আমরা প্রতিনিয়ত লড়ে যাচ্ছি। বড়োলোকের দেশ থেকে আপনারা যখন এই নিকৃষ্ট দেশে ফেরেন তখন হয়তো নিজেকে বড়োলোকের দেশের প্রথম শ্রেণীর নাগরিক বলে মনে হয়। আমাদের উচিত ছিল আপনাদের জামাইয়ের মত বরণ করা। আমরা পারিনি। বড়লোকের দেশে আপনারা যথাযত নিয়ম মেনে চলেন , একপা ফেলার আগে চিন্তা করেন। আমাদের এই দরিদ্র দেশে ফিরে আবার কিসের নিয়ম ? রেমিটেন্সখোর এই দেশ!

মহামারীতে আপনারা দেশে ফিরলেন। হয়তো একদিন যখন আপনার বাবা মারা গিয়েছিল তখন দেশে আসতে পারেন নি , বোনের বিয়ে - দেশে আসতে পারেন নি। মা ফোন দিয়ে বলে - খুব অসুস্থ রে ! তুই কবে আসবি?
অনেক কাজ , টাকা ইনকাম। হিমশিম খাচ্ছেন। আসতে পারেননি।
বৌ অন্তঃসত্ত্বা , সেই সময় খুব প্রয়োজন আপনাকে । মেয়েদের অসহায় লাগে এই সময়।
আমি আসতে পারেন নি। তার পাশে থাকতে পারেননি। বাচ্চা হলো - আসতে পারেননি।
আপনার খুব কাজ ছিল। ছুটি পাননি।

করোনা ভাইরাস “সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে” আছে জেনে, এই মহামারীতে আপনারা দেশে ফিরলেন। কি ভেবেছিলেন ? সিঙ্গাপুরের মত ব্যবস্থা পাবেন ? তেমন হলে তো আপনারা এই অভাগা দেশ ছেড়ে বড়লোকের দেশে যেতেন না ইনকামের আশায়। দেশে ফিরে শুরু করলেন হট্টগোল। কেন ? রেমিটেন্স পাঠান বলে ? বড়লোকের দেশে এইগুলো কিন্তু করতে পারেননি।

আপনি রেমিটেন্স পাঠান আর যা-ই পাঠান , আপনি এইদেশে মহামারীর কারণ হতে পারেন না। রেমিটেন্স দিয়ে এই দেশের মানুষকে আপনি কিনে নেননি।
আমরা যথেষ্ট আতঙ্কগ্রস্ত। এই দেশে চিকিৎসা ব্যবস্থাও খুব খারাপ এই মহামারীর বিপরীতে। জানেন তো , তবুও এই দেশেই পড়ে আছি। আর আপনারা দেশের জন্য রেমিটেন্স পাঠান ঠিকই কিন্তু দেশের মানুষের কথা চিন্তা করেন না।

দুঃখিত। মাথা আউলা হয়ে আছে ! মাইন্ড করবেন না। :(

মন্তব্য ৫২ টি রেটিং +৯/-০

মন্তব্য (৫২) মন্তব্য লিখুন

১| ১৬ ই মার্চ, ২০২০ সকাল ১১:০৭

কামরুননাহার কলি বলেছেন: খুব ভালো লিখেছেন এখন ওদের নিকট লেখাটি পৌছালেই ভালো। আর ওরা একথা মানলেই ভালো। তবে মেনে চলা উচিত।

১৬ ই মার্চ, ২০২০ সকাল ১১:১৩

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:
না পৌঁছানোরই ভালো। কি দরকার !
রেমিটেন্স পাঠানো নিয়ে খুব কথা শোনালো , রেমিটেন্স পাঠানোর আত্মীয়।
এমন অবস্থা , রেমিটেন্স না পাঠালে ব্লগিং করতে পারতাম না। :(
মেজাজ খুব খারাপ। দেশের জন্য রেমিটেন্স পাঠায় কিন্তু দেশের মানুষের কথা চিন্তা করে না।

২| ১৬ ই মার্চ, ২০২০ সকাল ১১:১৪

বিচার মানি তালগাছ আমার বলেছেন: পক্ষে-বিপক্ষে দুই দিকেই বলা যায়। আমি নিজেও দীর্ঘদিনের প্রবাসী। তবে প্রবাসীদের এই আলাদা 'ইজ্জত' চাওয়ার ব্যপারটা আমারও ভাল লাগে না। এই নিয়ে আমার একটা লেখাও আছে। আর এখানে যে বিষয় নিয়ে মনোমলিন্য হয়েছে তা কিন্তু যে কোন সরকারী অফিসের অনিয়ম হলেই হয়...

তাই বলি, প্রতিবাদ টা বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে ন্যায্য বা স্বাভাবিক ছিল। কিন্তু 'আমরা প্রবাসী' রা টাকা পাঠাই, আমরা দেশকে সচল রাখি - এসব বলা সমর্থন করি না...

১৬ ই মার্চ, ২০২০ সকাল ১১:১৯

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:

আমি সকল প্রবাসীদের উদ্দেশ্যই করে বলিনি। যারা এমন শুধু তাদের বলেছি।
জানেন রেমিটেন্স পাঠানো নিয়ে খুব কথা শোনালো , রেমিটেন্স পাঠানোর আত্মীয়।
খুব খারাপ লাগলো। মানলাম দেশকে সচল রাখে । তবে দেশের জন্য রেমিটেন্স পাঠায় কিন্তু দেশের মানুষের কথা চিন্তা করে না।:(

৩| ১৬ ই মার্চ, ২০২০ সকাল ১১:১৬

Sujon Mahmud বলেছেন: প্রবাসী ভাইদের প্রতি আমাদের একটি আবেদ।আপনার যারা করোনায় আক্রান্ত কেউ দেশে আইসেন না।একবার ভেবে দেখেন আপনার জন্য আপনার পরিবারে অন্য সদস্য গুলো কত বিপদে পড়বে।

১৬ ই মার্চ, ২০২০ সকাল ১১:২২

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:

তারা দেশেই আসবেই । বাবা মরলে আসেনি , বোনের বিয়েতে আসেনি , বৌ এর ডেলিভারিতে আসেনি, ডেঙ্গুর হবে বলে । এখন আসবেন। মহামারীতে আসবেন।
তারা দেশে না আসলে কিভাবে বুঝবো আমার রেমিটেন্স খোর দেশের জনগণ।

৪| ১৬ ই মার্চ, ২০২০ সকাল ১১:২০

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: Right

১৬ ই মার্চ, ২০২০ সকাল ১১:২৩

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:
দুঃখিত। মাথা আউলা হয়ে আছে ! মাইন্ড করবেন না। :(

৫| ১৬ ই মার্চ, ২০২০ সকাল ১১:৩৮

হাসান রাজু বলেছেন: না না ব্যাপারটা পুরোপুরি এমন না। ওইদেশ গুলতে অবস্থা বেশি খারাপ । নিজে আক্রান্ত হওয়ার আগে নিজের ভিটেমাঠিতে পৌছাতে পারলে হয়। অন্তত দেশে করোনা ছড়ায়নি এখনো, এই একটা আশা। এই ধারনা থেকে আগমন। উচিৎ ছিল এক্ষেত্রে প্রবাসিরা নিজেরাই উদ্যোগী হয়ে কোয়ারেন্টেনে ১৪ দিন কাটিয়ে ঘরে ফেরা। কে চায় না, একটু নিরাপদ আশ্রয়ে থাকতে ? সুযোগ আছে । এই দেশে তাদের একটা অধিকার আছে।

১৬ ই মার্চ, ২০২০ সকাল ১১:৪৪

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:
চীনে আটকে পড়া ছাত্রদের জন্য আমরা কিন্তু খুব টেনশনে ছিলাম। তাদের দেশে ফেরানোর জন্য সোচ্চার ছিল জনগণ। প্রবাসীরা দেশে আসবে না কেন ? অবশ্য ই আসবে। কিন্তু এমন আচরণ কেন। ১৪ দিন বন্দী থাকলে কি খুব ক্ষতি হতো। মানলাম ইতালিতে তারা রাজার হালে ছিল।


এক্ষেত্রে প্রবাসিরা নিজেরাই উদ্যোগী হয়ে কোয়ারেন্টেনে ১৪ দিন কাটিয়ে ঘরে ফেরা। --
এটাই বলতে চেয়েছি। চমৎকার বলেছেন।

৬| ১৬ ই মার্চ, ২০২০ সকাল ১১:৫২

জুনায়েদ বি রাহমান বলেছেন: প্রবাসীরা এই সময়ে ফিরে অদূরদর্শী, বোকার পরিচয় দিয়েছেন। দেশের চিকিৎসা খাতের অবস্থা সবারই জানা।

যুদ্ধারা কোটিকোটি মানুষের জীবন রিস্কে পড়ে এমনকিছুই করতে পারেন না।

১৬ ই মার্চ, ২০২০ সকাল ১১:৫৮

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:
'ইতালি থেকে বাংলাদেশে নেমেই সরাসরি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) শহীদ আব্দুর রব হলে বন্ধুর রুমে চলে আসে এক যুবক। এ ঘটনার পর করোনাভাইরাসের (কভিড-১৯) সংক্রমণের আশঙ্কায় চার অতিথি ও দুই বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রকে উদ্ধার করেছে চবি'র প্রক্টরিয়াল বডির সদস্যরা। পরে তাদেরকে চট্টগ্রামের ফৌজদারহাট আইসোলেশন সেন্টারে কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়েছে৷''

কিছুই বলার নেই। এরাতো দেখছি নিজেরেই করোনা। ইতালিতে গেছিলো কোন যোগ্যতায় ?

৭| ১৬ ই মার্চ, ২০২০ দুপুর ১২:৩১

মোহাম্মাদ আব্দুলহাক বলেছেন: কয়েকজনের কারণে সকলকে বকলে হবে না গো ভাই। কিছুলোক সকলখানে আছে, ওদের কথা শুনলে থাপড়াইতে মন চায়। আমি যখন দেশে যাই তখন অসহায়ের মত তাকিয়ে থাকি। অফিসারদের হাবভাবে ভয়ত্রস্ত হই। যাক, সকলের মঙ্গল হোক।

১৬ ই মার্চ, ২০২০ দুপুর ১২:৪০

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:

আমি সকল প্রবাসীদের উদ্দেশ্যই করে বলিনি। যারা এমন শুধু তাদের বলেছি।
জানেন রেমিটেন্স পাঠানো নিয়ে খুব কথা শোনালো , রেমিটেন্স পাঠানোর আত্মীয়।
খুব খারাপ লাগলো। মানলাম দেশকে সচল রাখে । তবে দেশের জন্য রেমিটেন্স পাঠায় কিন্তু দেশের মানুষের কথা চিন্তা করে না।

৮| ১৬ ই মার্চ, ২০২০ দুপুর ১২:৪৫

মোহাম্মাদ আব্দুলহাক বলেছেন: আপনি যাদের কথা বলছেন ওদেরকে কেউ পছন্দ করে না, এক আনার দাম দেয় না। ওরা জঞ্জালের মত। একজনে যে বকা দিয়েছে সেই বকার জন্য তার জেল হওয়া উচিৎ, আপনি কী বলেন।

আর রেমিটেন্স কী? অন্য দেশে যেয়ে কাজ করেন। দেশ টাকা পাঠান, টেক্স দিতে হয় সকল দেশে, এখানে কী এমন আহা মরি হয়েছে?
টাকাতো আর দেশকে দিচ্ছে না!
যাক এসব নিয়ে আমি বকবক করতে চাই না।

আমাদেরকে সচেতন হতে হবে, প্রফেশনাল হতে হবে। মাথা মোটাদেরকে কেউ পছন্দ করে না।

১৬ ই মার্চ, ২০২০ দুপুর ১২:৪৭

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:

আমাদেরকে সচেতন হতে হবে, প্রফেশনাল হতে হবে। মাথা মোটাদেরকে কেউ পছন্দ করে না। ++

'ইতালি থেকে বাংলাদেশে নেমেই সরাসরি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) শহীদ আব্দুর রব হলে বন্ধুর রুমে চলে আসে এক যুবক। এ ঘটনার পর করোনাভাইরাসের (কভিড-১৯) সংক্রমণের আশঙ্কায় চার অতিথি ও দুই বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রকে উদ্ধার করেছে চবি'র প্রক্টরিয়াল বডির সদস্যরা। পরে তাদেরকে চট্টগ্রামের ফৌজদারহাট আইসোলেশন সেন্টারে কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়েছে৷''

৯| ১৬ ই মার্চ, ২০২০ দুপুর ১২:৫৪

মোহাম্মাদ আব্দুলহাক বলেছেন: রাশিয়াতে ৫ বছরের জেল। কোরিয়াতে গুলি করে হত্যা করে যদি কেউ করোনাভাইরাস নিয়ে বাড়াবাড়ি করে।

দেশে এই ভাইরাস ছড়ালে সর্বনাশ হবে!
আমার মাথায় আর কুলাচ্ছেনা।

ইতালি থেকে বাংলাদেশে নেমেই সরাসরি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে কেমনে গেলো? এই বিচার আগে করতে হবে। ১ পরে দুই শুরু করলে দেশ নিরাপদ হবে। যারা ওদেরকে বেরোতে সাহায্য করেছে তাদেরকে জরিমানা করে একসাথে এক কামরায় রাখলে কাজ হবে।

এখন সকলকে সচেতন হতে হবে নাইলে কী হবে কেউ জানে না। সত্যি ভয় হচ্ছে। এখানেও ভয়ে আছি, খবর লিক হয়েছে, সরকার নাকি চায় সকল আক্রন্ত হবে :( :|

১৬ ই মার্চ, ২০২০ দুপুর ১২:৫৮

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:


আমরা মাথায় কিছুই কুলাচ্ছে না আর। অনেকেই বলাবলি করছে ১৭ ই মার্চের পর নাকি করোনার ভয়াবহতা বোঝা যাবে ! জানি না কি আছে কপালে। :(

১০| ১৬ ই মার্চ, ২০২০ দুপুর ১:০১

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




প্রবাসে থাকা লোকজন সহ তাদের আত্মীয় পরিজন ও দেশের থার্ডক্লাস জনগণের ধারণা দেশটি রেমিটেন্সে চলে। আর সরকার এই লিকুইড মানির জন্য তাদেরকে এই ধরণের ফাঁকা বুলি শুনিয়ে তাদের উচ্চগ্রাম করেন আর দেশে থাকা মানুষদের নিচু। পিয় প্রবাসী বাংলাদেশী আপনি রেমিটেন্স পাঠান আর যা-ই পাঠান। আপনি এইদেশে মহামারীর কারণ হতে পারেন না। রেমিটেন্স দিয়ে এই দেশের মানুষকে আপনি কিনে নেননি। আমরা যথেষ্ট আতঙ্কগ্রস্ত। এই দেশে চিকিৎসা ব্যবস্থাও খুব খারাপ এই মহামারীর বিপরীতে। জানেন তো, আমরা তবুও এই দেশেই পড়ে আছি। আর আপনারা দেশের জন্য রেমিটেন্স পাঠান ঠিকই কিন্তু দেশের মানুষের কথা চিন্তা করে না। নিজের চিন্তা করে নিজের পরিবারের চিন্তা করে। দেশের মানুষের চিন্তা করে না।

দুঃখিত। মাথা আউলা হয়ে আছে ! মাইন্ড করবেন না।

১৬ ই মার্চ, ২০২০ দুপুর ১:২৯

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:

প্রবাসে থাকা লোকজন সহ তাদের আত্মীয় পরিজন ও দেশের থার্ডক্লাস জনগণের ধারণা দেশটি রেমিটেন্সে চলে। ++

১১| ১৬ ই মার্চ, ২০২০ দুপুর ১:০৪

মোহাম্মাদ আব্দুলহাক বলেছেন: আমি ক্যাবিং করি, মানে কখন আক্রান্ত হব আমি নিজেই জানিনা। আমি বুড়ো মানুষ এবং দুর্বল, আমার স্ত্রীও দুর্বল। এক ডাক্তারকে কোথাও নিয়ে যাচ্ছিলাম পৌছার পর জিজ্ঞেস করেছিলাম আক্রান্ত হলে কী হবে, আমিতো ভয়ে মরে যাচ্ছি। ডাক্তার বলেছিল, তেমন কিছু তবে দুই সপ্তা কষ্টভোগ করতে হবে, কিন্তু এই কষ্টভোগ উপভোগ্য নয়। জোয়ানরা এবং কর্মঠরা ঠিকে থাকবে, দূর্বলদের জন্য আশঙ্কা বেশি।
সকলরে মঙ্গল হোক।

১৬ ই মার্চ, ২০২০ দুপুর ১:৩০

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:
আমরা সবাই সবার জন্য দোয়া করবো। ভালো থাকবেন আপনি।

১২| ১৬ ই মার্চ, ২০২০ দুপুর ১:৫০

রাজীব নুর বলেছেন: আপনার লেখাটার মুল বিষয় আমাকে স্পর্শ করেছে।

১৬ ই মার্চ, ২০২০ দুপুর ১:৫২

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:
ধন্যবাদ রাজীব ভাই।
প্রবাসে থাকা কিছু লোকজন সহ তাদের আত্মীয় পরিজন ও দেশের থার্ডক্লাস জনগণের ধারণা দেশটি রেমিটেন্সে চলে।

১৩| ১৬ ই মার্চ, ২০২০ দুপুর ২:২৪

করুণাধারা বলেছেন: কিছুই বলার নাই...

নিজের জান বড় প্রিয়, তাই অন্যদের জানের ঝুঁকি বাড়াচ্ছি কিনা আমরা তার পরোয়া করিনা।

১৬ ই মার্চ, ২০২০ বিকাল ৩:১২

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:

হাজি ক্যাম্পের ব্যবস্থা আরো ভালো হতে পারতো। সেই মুহূর্তে প্রবাসীদের সংযত হওয়া দরকার ছিল। অন্তত দেশের মানুষের স্বার্থে।
প্রবাসীদের হোম কোয়ারেন্টাইনে দেয়া কোন ভাবেই সঠিক মনে হয়নি। হোম কোয়ারেন্টাইন কেউ মানবে না। মিষ্টি হাতে পাশের বাড়িতে দাওয়াত খেতে যাবে।


১৪| ১৬ ই মার্চ, ২০২০ দুপুর ২:৩০

নেওয়াজ আলি বলেছেন: এই মুহূর্তে প্রবাসীরা অত্যন্ত জরুরী কাজকর্ম ছাড়া দেশে না যাওয়াই উত্তম। প্রবাসীরা নবাবজাদা কারণ তারা বিদেশ হতে দেশে টাকা পাঠায়। মন্ত্রীর মত লোকেরা দেশ হতে বিদেশে টাকা পাচার করে। জনগণের সম্পদ ও ভোট চুরি করে বড় বড় কথা বলে। যে ইটালি প্রবাসী পুরা মাতৃভূমিকে গালি দিয়েছে সে চোখে কালো চশমা পরা পাপিয়া ,সাদিয়া ,ডি সি ,জিকে শামিম পর্যায়র লোক। দেশের আয়ের দুইটা বড় খাত হলো প্রবাসীদের আয় আর পোশাক খাত। আশকোনায় যেভাবে প্রবাসীদের গণ বিছানা করে ক্যাম্পে রাখে এমন করে ,কোন নেতার ঘরের চাকরও থাকে না । এখন প্রবাসীদের উচিত দেশের সম্পদ পাচারকারীদের বিদেশে কুত্তার মত আচারন করা। আর টাকা পাঠানো বন্ধ করা। তারপর দেখা যাবে রাষ্ট্রীয় সম্পদ পাচারকারী বড় বড় চোর হাতে কোটি টাকার ঘড়ি কি করে পরে।

১৬ ই মার্চ, ২০২০ দুপুর ২:৩৫

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:

যেই দেশে তারা রেমিটেন্স পাঠায় সেই দেশের কোয়ারেন্টিন কেমন হবে সেটা জানা দরকার ছিল। মহামারীতে এমনি হবে। দেশে তারা পিকনিক করতে আসেনি ভাই। :(

১৫| ১৬ ই মার্চ, ২০২০ দুপুর ২:৪০

নীল আকাশ বলেছেন: নেওয়াজ আলি বলেছেন: এই মুহূর্তে প্রবাসীরা অত্যন্ত জরুরী কাজকর্ম ছাড়া দেশে না যাওয়াই উত্তম। প্রবাসীরা নবাবজাদা কারণ তারা বিদেশ হতে দেশে টাকা পাঠায়। মন্ত্রীর মত লোকেরা দেশ হতে বিদেশে টাকা পাচার করে। জনগণের সম্পদ ও ভোট চুরি করে বড় বড় কথা বলে। একদম ঠিক কথা বলেছেন।
এইদেশে সবকিছু পচে গলে নষ্ট হয়ে গেছে।
এতবড় একটা ঘটনা অথচ সরকারের কোন প্রিপারেশন নেই। অথচ মহা সমারোহে চলছে মুজিব বর্ষের আয়োজন। এই অনুষ্ঠান যে এই ভাইরাস ছড়াবে না তার গ্যারান্টি কোথায়?
লেখাটা পড়ে মেজাজ খারাপ হয়ে গেল। দুঃখিত।

১৬ ই মার্চ, ২০২০ দুপুর ২:৫১

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:
আমার পোষ্টের মূল বক্তব্য :
করোনা ভাইরাস “সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে” আছে জেনে, এই মহামারীতে আপনারা দেশে ফিরলেন। কি ভেবেছিলেন ? সিঙ্গাপুরের মত ব্যবস্থা পাবেন ?
আপনারা দেশের জন্য রেমিটেন্স পাঠান ঠিকই কিন্তু দেশের মানুষের কথা চিন্তা করেন না।

:(

১৬| ১৬ ই মার্চ, ২০২০ দুপুর ২:৪৬

ভুয়া মফিজ বলেছেন: দোষ কার কম, কার বেশী বলা মুশকিল। দুই পক্ষেরই অনেক যুক্তি আছে। তবে গাধাদের (যারা দেশে নীতি নির্ধারন করে, আর যারা বিদেশ থেকে এসে ধরাকে সরা জ্ঞান করছে) কাছ থেকে দায়িত্বশীল আচরণ আপনি আশা করতে পারেন না। যেমন সরকার, তার জনগনও তেমনই হবে।

ভুয়া সরকারের জনগন তো আর জ্ঞানীর মতো আচরণ করবে না, ভুয়া'র মতোই করবে (নিজেরে বাদ দিয়া বললাম) কি বলেন? :)

১৬ ই মার্চ, ২০২০ দুপুর ২:৫৫

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:

যেমন সরকার, তার জনগনও তেমনই হবে।
ভুয়া সরকারের জনগন তো আর জ্ঞানীর মতো আচরণ করবে না, ভুয়া'র মতোই করবে । ++

১৭| ১৬ ই মার্চ, ২০২০ দুপুর ২:৫৯

নীল আকাশ বলেছেন: আমার পোষ্টের মূল বক্তব্য : করোনা ভাইরাস “সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে” আছে জেনে, এই মহামারীতে আপনারা দেশে ফিরলেন। কি ভেবেছিলেন ? সিঙ্গাপুরের মত ব্যবস্থা পাবেন ? আপনারা দেশের জন্য রেমিটেন্স পাঠান ঠিকই কিন্তু দেশের মানুষের কথা চিন্তা করেন না।
ভাইরে, এরা জীবনের ভয়ে পালিয়ে এসেছে। সবাই বেঁচে থাকতে চায়। এদের বেশিরভাগই অবৈধ ভাবে বিদেশে গেছে। ইতালীতে আমি দেখেছি কতটা কষ্ট করে এরা জীবন যাপন করে? একবার দেশে আসলে হয়তো ফিরে কখনই যেতে আপ্রবে না। তবূও শুধু প্রাণের ভয়ে ফিরে আসছে দেশে, নিজের দেশে। অথচ এদের সাথে কী নির্মম আচরণ করা হচ্ছে?
আমি স্যাটায়ার করে বলেছিলাম, কী হতে পারতো আর কী হচ্ছে।!!!!

১৬ ই মার্চ, ২০২০ বিকাল ৩:১০

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:
প্রিয় ভাই , আমরা কিন্তু নিজেরাও ভয়ে আছি। মৃত্যুর ভয় আমাদেরও আছে।
প্রবাসীদের হোম কোয়ারেন্টাইনে দেয়া কোন ভাবেই সঠিক মনে হয়নি। হোম কোয়ারেন্টাইন কেউ মানবে না। মিষ্টি হাতে পাশের বাড়িতে দাওয়াত খেতে যাবে।

তবে হাজি ক্যাম্পের ব্যবস্থা আরো ভালো হতে পারতো। সেই মুহূর্তে প্রবাসীদের সংযত হওয়া দরকার ছিল। অন্তত দেশের মানুষের স্বার্থে।

আজ তিনজন আক্রান্ত হয়েছে। ইতালি ও জার্মানি থেকে আসা আক্রান্ত দুজনের একজনের পরিবারের সদস্য তারা।

১৮| ১৬ ই মার্চ, ২০২০ বিকাল ৩:১৯

নীল আকাশ বলেছেন: বলুন তো এরা কোথায় যাবে?
ইতালী স্পেন এইসব দেশে এখন নিজের দেশের লোকজন কেই চিকিতসা দিতে পারছেনা।
কে এইসব অবৈধ লোকজনকে চিকিতসা দেবে? কার কাছে যাবে এরা একবার ভাবুন? কত অসহায় এরা?

১৬ ই মার্চ, ২০২০ বিকাল ৩:২৭

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:

আমিতো বলছিনা তারা দেশে আসতে পারবে না।তারা দেশেই আসবে। কিন্তু হট্টগোল করে এভাবে কোয়ারেন্টাইন বর্জন করা ?
তারা বাঁচতে এসেছে , আমাদের মারতে নয়।

১৯| ১৬ ই মার্চ, ২০২০ বিকাল ৩:২৯

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: আল্লাহ আমাদের রক্ষা করবেন আল্লাহ ভরসা

১৬ ই মার্চ, ২০২০ বিকাল ৩:৩২

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:
আল্লাহ ভরসা ।

২০| ১৬ ই মার্চ, ২০২০ বিকাল ৩:৫৩

এম এ হানিফ বলেছেন:


সঠিক সময়ে সঠিক সিদ্ধান্ত সকলে নিতে পারে না। আর সব মানুষই এক রকম নয়। কখন কি করতে হবে, কি করা উচিত এসব ভাবে না। প্রবাসী ভাইরা দেশে এসে যদি অন্যায় করে থাকে তবে আমরাও যে অন্যায় করছি না তা কিন্তু নয়। তাই এ ক্রান্তি কালে একে অন্যকে দোষারোপ না করে সংকট মোকাবেলার চেষ্টা করি।


করোনা কোন দেশীয় সংকট নয়, বৈশ্বিক সংকট।

১৬ ই মার্চ, ২০২০ বিকাল ৩:৫৬

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:
আমার পোষ্টের মূল বক্তব্য :
করোনা ভাইরাস “সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে” আছে জেনে, এই মহামারীতে আপনারা দেশে ফিরলেন। কি ভেবেছিলেন ? সিঙ্গাপুরের মত ব্যবস্থা পাবেন ?
আপনারা দেশের জন্য রেমিটেন্স পাঠান ঠিকই কিন্তু দেশের মানুষের কথা চিন্তা করেন না।

তবে হাজি ক্যাম্পের ব্যবস্থা আরো ভালো হতে পারতো। সেই মুহূর্তে প্রবাসীদের সংযত হওয়া দরকার ছিল। অন্তত দেশের মানুষের স্বার্থে।

২১| ১৬ ই মার্চ, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:০৫

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: আমার মাথাওতো আউলা করে দিলেন !! =p~

১৯ শে মার্চ, ২০২০ দুপুর ২:২৮

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:
আজ প্রবাসীর দ্বারা পরিবারের তিনজন আক্রান্ত।
কোয়ারেন্টাইন ভেঙে পরিবারের সংস্পর্শে আশা এতটাই জরুরি ছিল।

২২| ১৬ ই মার্চ, ২০২০ রাত ১০:৩০

রাজীব নুর বলেছেন: কে কী মন্তব্য করেছে সেটা জানতে আবার এলাম আপনার পোষ্টে।

১৯ শে মার্চ, ২০২০ দুপুর ২:২৮

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:
দেখুন। প্রয়োজনে আবার মন্তব্য করুন।
আজ প্রবাসীর দ্বারা পরিবারের তিনজন আক্রান্ত।
কোয়ারেন্টাইন ভেঙে পরিবারের সংস্পর্শে আশা এতটাই জরুরি ছিল।

২৩| ১৬ ই মার্চ, ২০২০ রাত ১১:২০

আহমেদ জী এস বলেছেন: স্বপ্নবাজ সৌরভ,





না বলা বাস্তব এবং নিঠুর !

১৯ শে মার্চ, ২০২০ দুপুর ২:২৬

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:
:( না বলা বাস্তব এবং নিঠুর !

২৪| ১৬ ই মার্চ, ২০২০ রাত ১১:৪৩

পদ্ম পুকুর বলেছেন: কিন্তু সরকার চাইলে কি তাাঁদের জন্য আরও একটু ভালো ব্যবস্থা করতে পারতো না? কত টাকাই তো কতদিকে খরচ হচ্ছে...
আর যে পরিমাণ টাকা আমরা অপচয় করি, পাচার করি, সেখানে কেবল এই ব্যবস্থাটাই কেনো অনেক মূল্যবান হিসেবে বিবেচিত হবে?

১৯ শে মার্চ, ২০২০ দুপুর ২:২৫

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:

সরকার চাইলে আরো একটু ভালো ব্যবস্থা করতে পারতো। ভালো হওয়া উচিত ছিল।
আজ প্রবাসীর দ্বারা পরিবারের তিনজন আক্রান্ত।
কোয়ারেন্টাইন ভেঙে পরিবারের সংস্পর্শে আশা এতটাই জরুরি ছিল।

২৫| ১৭ ই মার্চ, ২০২০ রাত ১২:৫১

হাসান কালবৈশাখী বলেছেন:
ইটালিতে দুই দিন হাসপাতালের বারান্দায় বসেও চিকিৎসা পায় না, কারন রুগির চাপ অনেক। অনেকে সিট না পেয়ে মারা যাচ্ছে। আর দেশ সম্পুর্ন লকডাউন। মানে ১ মাস ছুটি।
এখন ৩ গুন ভাড়া দিয়ে স্পেশাল ফ্লাইট ভাড়া করে দেশে এসেছে ফুর্তি করতে।

হজ ক্যাম্পে থাকবে না। বলে - ৫ স্টার হোটেল + পা টিপার জন্য সুন্দরি নার্স বাদে কোয়ারেন্টেইনে থাকবো না।

১৯ শে মার্চ, ২০২০ দুপুর ২:২১

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:
আজ প্রবাসীর দ্বারা পরিবারের তিনজন আক্রান্ত।
কোয়ারেন্টাইন ভেঙে পরিবারের সংস্পর্শে আশা এতটাই জরুরি ছিল।
হায়রে রেমিটেন্স যোদ্ধারা। :(

২৬| ১৭ ই মার্চ, ২০২০ দুপুর ১২:২৭

টারজান০০০০৭ বলেছেন: আমার অনেক আত্মীয় স্বজন, বন্ধু-বান্ধবই বৈদেশে থাকেন ! একটা বিষয় নিয়া প্রায়ই ক্যাচাল লাগিয়া যায় ! উনারা দেশে আসিয়া দেশের চৌদ্দগুষ্ঠি উদ্ধার করিয়া ফ্যালান ! দেশে এই খারাপ , ওই খ্রাফ , এই ভালোনা , ওই ভালোনা ! কুনু সিস্টেম নাই ! বলা বাহুল্য দেশের নিন্দা-আচ্চা করিতে শিক্ষিতরাই অগ্রগামী ! দেশের জন্য ইয়ে ফালাইয়া ইহারা দেশের নিন্দা করিয়া থাকে ! দেশ যেমনই হউক দেশের প্রতি মমতা নাই , শ্রদ্ধা নাই এমন বৈদেশি আমাদের দরকার নাই ! তাছাড়া তাহারা দেশে টাকা পাঠান সরকাররে নহে, তাহাদের স্বজনদের ! সরকার ঐখান হইতে ট্যাক্স কাটিয়া রাখেন ! তা তাহারা যেদেশে বাস করেন , ইনকাম করেন সেখানেও ট্যাক্স দেন , সেখানেও অনিয়ম আছে। সেদেশ নিয়াও এমন অবমাননাকর মন্তব্য করুক দেখি ! পশ্চাৎদেশে লাথি দিয়া তাড়াইয়া দিবে !

দেশে রেমিটেন্স পাঠাইয়া তাহারা ঢোল পিটান ! টাকা পাঠাইয়া , ট্যাক্স দিয়া অর্থনীতিতে তাহারা বিরাট অবদান রাখিতেছেন ! ইহা অনস্বীকার্য ! কিন্তু দেশে থাকিয়া পরিশ্রম করিয়া যাহারা অর্থনীতিতে অবদান রাখিতেছেন, ট্যাক্স দিতাছেন তাহাদের কথাতো কেহ বলেন না , তাহারা ঢোলও পিটান না। এমন অবমাননাকর মন্তব্যও তাহাদের মুখে শুনি নাই !

সব প্রবাসী এমন নহে। আমি এমন প্রবাসীকেও জানি , যিনি নামকরা বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক। তিনি ওখান থেকেই দেশে ল্যাব চালান , ল্যাবে এদেশের শিক্ষার্থীদের প্রশিক্ষণ দেন ! দেশের অনেক পশ্চাদপদতা আছে সন্দেহ নাই , তবে দেশকে এগিয়ে নেওয়ার জন্য , পশ্চাৎপদতা দূর করার জন্য রেমিটেন্স পাঠানো ছাড়া আর কি করা যায় , বিদেশে থেকেও দেশের উন্নয়নে টাকা পাঠানো ছাড়া আর কি করা যায় ইহা নিয়েও তাহারা ভাবিয়াছেন কি ?

বাচ্চা কোলে না থাকিলে আমি বলিতাম , নিরাপত্তাকর্মীর উচিত ছিল ওই বলদের কানের গোড়ায় ঠ্যাটাইয়া দুইখানা চটকান লাগাইয়া ইতালি ফেরত পাঠানো ! দেশকে নিয়ে অবমানননাকর মন্তব্য কোনমতেই সহ্য করা উচিত নহে !

দুঃখিত। আমার মাথাও আউলাইয়া গিয়াছে !!

১৯ শে মার্চ, ২০২০ দুপুর ২:২৩

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:
আজ প্রবাসীর দ্বারা পরিবারের তিনজন আক্রান্ত।
কোয়ারেন্টাইন ভেঙে পরিবারের সংস্পর্শে আশা এতটাই জরুরি ছিল।
হায়রে রেমিটেন্স যোদ্ধারা।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.