নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

স্রোতের অজানা টানে সমুদ্র বালিয়াড়ি বেয়ে বোহেমিয়ান- গৃহকোন, জীবন যাপন ফেলে চলে যায়। তুমি দুহাত বাড়িয়ে আলিঙ্গনে বাঁধতে চাও জোছনা গলে হারিয়ে যায় সুখ । আছড়ে পরা ঘূর্ণিজল মনে বাজায় অচেনা সবুজ দিগন্ত ..

রোকসানা লেইস

প্রকৃতি আমার হৃদয়

রোকসানা লেইস › বিস্তারিত পোস্টঃ

ওরা সব পারে

২৬ শে এপ্রিল, ২০১৯ রাত ৩:৪৭


জন্মের কিছুদিনের মধ্যেই বাবা মা বুঝতে পারলেন তাদের বাচ্চাটির মধ্যে কিছু অস্বাভাবিকতা রয়েছে। আর দশটা বাচ্চার মতন সে নয়। চিকিৎসকও জানালেন বাচ্চাটির সমস্যার বিষয়ে। বাচ্চাটি জন্ম নিয়েছে কিছুটা অস্বাভাবিকতা নিয়ে। চিকিৎসা বিজ্ঞানে একে অটিজম বলে।
অটিজম একটি মস্তিষ্কের ব্যাধি। শারীরিক সঠিক বিকাশে সমস্যা হয় যা স্নায়ু বা স্নায়ুতন্ত্রের গঠন ও পরিবর্ধন জনিত অস্বাভাবিকতার ফলে হয়। যোগাযোগের ক্ষমতা, নিজেকে প্রকাশ করতে তাদের অসুবিধা হয়। যোগাযোগের বিষয়টা অটিজম আক্রান্তরা বুঝতে পারে না। অটিজমে আক্রান্ত শিশুর স্বাভাবিক ভাবে বেড়ে উঠতে অসুবিধা হয়। অটিজমের কারণে কথাবার্তা, অঙ্গভঙ্গি ও আচরণ একটি নির্দিষ্ট সীমার মধ্যে আবদ্ধ থাকে। আবার অনেকক্ষেত্রে শিশুর মানসিক ও ভাষার উপর দক্ষতা কম থাকে।
একজন স্বাভাবিক মানুষের ভাবনার সংকেতগুলো মস্তিস্ক যে ভাবে পাঠায়। অটিজম আক্রান্ত মানুষটি, মস্তিস্কে সে ভাবে সংকেত পাঠাতে পারে না। তাদের সংকেতটি একটা জায়গায় আটকে যায় এবং ফিরে আসে। চক্রাকারে ঘুরতে থাকে। প্রকাশটা সঠিক ভাবে করতে পারে না।
এজন্য দেখা যায়। অটিজমরা, একই কথা বারবার বলছে। বা একই কাজ বারবার করছে। এবং তারা অনেক বেশি অস্থির হয়ে উঠে সঠিক ভাবে প্রকাশ করতে না পেরে। পুনরাবৃত্তি আচরণ করতে থাকে। সাধারণত অটিজম ব্যক্তির যোগাযোগ, অন্যদের সাথে সম্পর্ক গড়ে তোলার এবং সঠিক ভাবে সাড়া দেওয়ার ক্ষমতাকে প্রভাবিত করে। যোগাযোগের ক্ষমতাকে মূলত প্রভাবিত করে, নিজের প্রয়োজনগুলি প্রকাশ করার জন্য ভাষা ব্যবহার করার অক্ষমতা । এছাড়া শারীরিক বিকাশেও প্রভাব রাখে।
প্রত্যেক, অটিজম ব্যাক্তির, নিজের মতন সমস্যা থাকে। একই রকম সমস্যা সবার হবে এমন ভাবার কোন কারণ নাই। সাধারণত তিন বছর বয়সের শিশুদের মধ্যে লক্ষণ গুলো স্পষ্ট হয়ে ওঠে। সম্ভবত জেনেটিক এবং পরিবেশ উভয়ই ভূমিকা রাখে আর্টিজম হওয়ার জন্য।
অটিজম স্পেকট্রাম ডিসঅর্ডার নামে পরিচিত। এসপেরাগার সিন্ড্রোম, রেট্ সিন্ড্রোম, ডাউনসিন্ড্রম এমন কয়েকটি ভাগ করা হয়েছে বিশেষ লক্ষণ দেখে। কিন্তু সর্বপরি তাদের সমস্যা তারা সংযোগ করতে পারে না।
উন্নতদেশগুলোতে শিশু বয়স থেকে এই বাচ্চাদের প্রবল অনুভুতি সম্পন্ন ত্বক, সংবেদনশীল, স্পর্ষকাতর শারীরিক অবস্থা এবং মানসিক শক্তি যোগানোর দিকে শুরু থেকেই নানা রকম চিকিৎসা নেয়া হয়। মস্তিস্কের সঠিক ব্যবহার না করতে পারার জন্য তাদের শারীরিক গঠনেও প্রভাব পরে। অনেকে হাঁটতে পারে না। খেতে পারে না। শিশু বয়স থেকে সঠিক সাহায্য ব্যয়াম ইত্যাদি করিয়ে স্পর্শকাতর ভাব কমিয়ে আনা হয়। এবং মস্তিস্ক ব্যবহারে অভ্যস্থ করা হয়। এটা অবশ্যই দীর্ঘ মেয়াদি প্রক্রিয়া। কিন্তু শুরু থেকে অভ্যস্ত হওয়ার জন্য। অনেকটা সঠিক ভাবে ব্যবহারে অভ্যস্থ হয়ে উঠে অভ্যাসের দ্বারা। অনুউন্নত, উন্নয়নশীল দেশে বাচ্চাটি যে অটিজম আক্রান্ত, সঠিক ভাবে বুঝতে পারে না অনেকেই। এই বিষয়ে অভিভাবকও বুঝতে পারে না। বরং সঠিক ভাবে চলতে ফিরতে ব্যবহার করতে না পারার জন্, তাকে বিশেষ যত্ন চিকিৎসা না দিয়ে অবহেলা এবং অত্যাচারও করা হয়।
একটু বিকৃত আকৃতির চেহারা, শারীরিক বৈশিষ্ট দেখলে মানুষ তাকে অপদস্থ, বুলি করতেই পছন্দ করে। সে মানুষটির অপরাগতাকে বুঝতে পারে না।
এখন মানুষের মধ্যে কিছুটা সচেতনতা আসছে। তবু সঠিক শিক্ষা চিকিৎসা যত্ন সবাই পাচ্ছে না।
কিছুদিন আগে একটা ডকুমেন্টারিতে দেখেছিলাম। বাংলাদেশের একজন মহিলা যখন বুঝতে পারলেন তার তিন বছরের বাচ্চাটি নর্মাল না, আটিজম আক্রান্ত। তখন তিনি সিদ্ধান্ত নেন। বাচ্চার জন্যই বিদেশে যেতে হবে। নিজের ক্যারিয়ারের কথা চিন্তা না করে তিনি আমেরিকায় পড়ালেখার জন্য আসার এ্যাপ্লাই করেন। সৌভাগ্য বসত আসতে পারেন।
আমেরিকা আসাটা উনার নিজের পড়ালেখার চেয়েও অনেক বেশি সহায়ক হয় উনার বাচ্চার জন্য। যে বাচ্চাটি উঠে দাঁড়াতে পারত না তিন বছর পর্যন্ত । আমেরিকায় আসার পর তার যথেষ্ট উন্নতি হয়, শারিরীক এবং মানসিক ভাবে। ফিজিও, ব্যায়াম, মানসিক শক্তির নানা রকম অনুশীলনের মাধ্যমে। বাচ্চাটি কথা বলতে পারে না কিন্তু সে আগের মতন অস্থির এবং রাগী না। অনেক মনের ভাব সে প্রকাশ করতে পারে। এমন কি লিখেও। আর্টিজম বাচ্চাদের কোন বিশেষ কিছু করার প্রতি ঝোঁক থাকে। এই বাচ্চাটির ঝোক বাজনায়। সে এখন পিয়ানো শিখছে। এবং এই বাজনার মাঝে খুঁজে পাচ্ছে সে নিজের বহি প্রকাশ, শান্তি।
বাচ্চাটি একদিন ম্যানহাটনের ভীড়ের মধ্যে মায়ের হাত ছেড়ে হারিয়ে গিয়েছিল। মা অস্থির হয়ে খুঁজে এক সময় শুনতে পান কোথাও বাজনা বাজছে। এবং সেই বাজনার জায়গায় গিয়ে দেখেন বাচ্চাটি দলের মাঝখানে ঢুকে নাচছে বাজনার সাথে। মায়ের এই উলব্ধির পর মা ওকে নিয়ে যান একটি মিউজিক ইন্সট্রুমেন্টের দোকানে এবং নিজের পছন্দে সে একটি পিয়ানো দেখে সেখানে বাজাতে বসে যায়। মা তাকে সেই পিয়ানটি কিনে দেন।
এই মহিলার বাচ্চাটি যখন ছোট তখন আর কেউ কিছু বলার আগে বাড়ির কাজের মহিলাটি বলে ছিল। আপনার বাচ্চাটা স্বাভাবিক না।
উনি বিদেশে আসার আগে, কাজের মহিলাটি উনাকে বাড়িতে নিয়ে গিয়ে দেখায় ওর একটি ভাই আছে। আঠার উনিশ বছরের ছেলেটিকে, সারা জীবন একটি ঘরে শিকল দিয়ে বেঁধে রাখা হয়েছে। ঐ ঘরে ওকে খেতে দেয়া হয়। ছেলেটি বেশির ভাগ সময় চুপচাপ থাকে। ছোট একটা জানলা দিয়ে বাইরে তাকিয়ে দেখে। কিন্তু মাঝে মাঝে খুব রেগে যায়। তখন ঘরের দেয়ালে, দরজায় মাথা ঠুকে। ওকে থামাতে ওরা তখন ওকে অনেক মারে।
গত বছর থেকে ফলো করছিলাম, কানাডার আটিজম অস্টিন, রিলির জীবনের বেড়ে উঠা। অস্টিন রিলি অটিজম স্পেকট্রাম ডিসঅর্ডার লক্ষণ ধরা পড়েছিল, শিশু বয়সে।
অস্টিন রিলে গাড়ি পছন্দ করত। গাড়ির গতির মধ্যে থাকলে সে ভালো অনুভব করত। যত গতি তত আনন্দ। গাড়ি দ্রুত বেগে চালাতে তার কোন অসুবিধা হয় না। বরং এই সময়ই সে যেন সব চেয়ে স্বাভাবিক এবং ভালো থাকে।
গাড়ির সবগুলো লাইসেন্স নেয়। এবং লাইসেন্স নিয়েই শুধু ক্ষ্যান্ত নয় সে রেসিং কার চালায়, বারো বছর বয়স থেকে। সে ২০০৭ সাল থেকে মাইক্রো অ্যান্টিঅক্সি অটিজম কার রেসিং শুরু করে।
অনেকগুলো রেসিংয়ে পুরস্কার পেয়েছে অস্টিন রিলি। টরন্টো থেকে উইনিপেগ পর্যন্ত গাড়ির রেস করছিল অস্টিন রিলি। রাস্তায় গাড়ি নষ্ট হয়ে যায়। তার সে অসহায় এবং অস্থিরতার মুখ দেখেছিলাম।
গত বছর আঠারো সালে আঠার বছর বয়সী অস্টিন রিলি, অ্যান্টিঅক্সির প্রথম ব্যক্তি যে রেসিং লাইসেন্স পেয়ে কানাডার পেশাদার মোটর স্পোর্ট সিরিজের প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার সুযোগ পায়।
বিভিন্ন প্রতিযোগীতায় অংশ গ্রহণ করা, সেই উত্তেজনায় সে ভালো থাকে। বাবা জেসন রিলি, ছেলের গাড়ির প্রতি ঝোঁক দেখে অনেকটা নিজের দায়িত্বে ছেলেকে গাড়ি চালানো শিখতে দেন। এবং আবিস্কার করেন। গতির ভিতরই অস্টিন ভালো থাকে বেশি।
পিতা জেসন রিলির নির্দেশনায়, অস্টিন কানাডা এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বেশ কয়েকটি প্রতিযোগীতায় অংশ নিয়ে পুরস্কার অর্জন করেছে। জেসন রিলে, অস্টিজমের রেসিং উইথ অটিজম প্রতিষ্ঠা করেন। এটি অটিজম সম্পর্কিত সচেতনতা বাড়ানোর জন্য উত্সর্গিত সংস্থা, যা অস্টিনের অফিসিয়াল কার রেসিং দল।
অস্টিন এবং রেসিং উইথ অটিজম সম্পর্কে জানার পর, নিসান মাইক্রা কাপের, প্রতিদ্বন্দ্বী মেটড টপোলনিক এবং তার স্ত্রী মারি ক্রিসাইন বিদার্ড, অটিজম সচেতনতা সমর্থন করে,অস্টিন রিলিকে কাপে প্রতিযোগীতায় অংশ গ্রহণের জন্য নিয়ে আসে।
রেসকার চালানো তার শৈশবের স্বপ্ন যেন বাস্তবে ধরা পরে আন্তরিক সহযোগী অভিভাবকের সহযোগীতায়। গাড়ির স্টিয়ারিংয়ের পিছনে তার দক্ষতা, চেষ্টর মাধ্যমেই প্রতিষ্ঠা পায়। গত বছর রেসিংয়ের জন্য ড্রাইভিং, মিক্রার কাপে অস্টিন রিলে ৫৯ পয়েন্ট অর্জন করেছিল। এবং চূড়ান্ত ড্রাইভারের অবস্থানের মধ্যে ১৭ তম স্থান পেয়েছিলেন। অস্টিন এই মৌসুমে, নিসান সমর্থিত সিরিজ প্রতিযোগিতায় ফিরে আসবে আবার।
গাড়ি চালানোর গতি ছাড়াও সঙ্গীতের বিটও আস্টিনকে আচ্ছন্ন করে। নিজেকে দ্রুত বিট তালের সাথে প্রকাশ করতে পছন্দ করে।
সঙ্গীতও সবসময় অস্টিনের জীবনের একটি বিশাল অংশ হয়ে আছে। এবং সঙ্গীত তার চারপাশের বিষয় মোকাবেলা করতে সহায়তা করে।
এপ্রিল জাতীয় অটিজম সচেতনতা মাস । তার মানে এই নয় এপ্রিল শেষ হয়ে গেলে আমরা আর এ বিষয় নিয়ে ভাবব না। আমাদের সারা বছর ধরেই সচেতন থাকতে হবে। যে শিশুটি বা মানুষটি বুঝতে পারে না সহজে। তাকে অত্যাচার না করে ভালোবাসা দিয়ে বোঝার চেষ্টা করা উচিত সাবারই, কেন সে বুঝতে পারছে না। তারা বুঝতে পারে না সঠিক ভাবে তাদের শারীরিক বিন্যাস হয়নি বলে। অথচ অনেকে তাদের না বুঝে অত্যাচার করে তাদের কি সুস্থ বলব।
অসহায় মানুষগুলোকে সাহায্য না করে আমরা হাসাহাসি করতে পারি। খুব সহজ। কিন্তু নিজেদের মানবিক গুণের কাছে আমরা হেরে যাই নিজেদের ব্যবহারে।
সুযোগ পেলে এবং সঠিক ভাবে জানতে পারলে শিখাতে পারলে তারা সব কাজই করতে পারে। তাদের একটু সময় বেশি লাগে।
কিছু বিষয় তারা দ্রুত ধরতে পারে না। মাথার ভিতর সিগন্যালটা অনেক সময় ঠিক জায়গায় পৌঁছায় না। তখন তারা অস্থির হয়ে যায়। তাদের সাহায্য না করে বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই সুস্থ মানুষরা রাগ দিয়ে তাদের কন্ট্রোল করতে চান। যা ভালোর চেয়ে মন্দই করে বেশি। তারা না থেমে আঁচড়ে কামড়ে দিতে পারে। তখন তাদের পাগল বলতে কোন অসুবিধা হয় না সুস্থ মানুষের। চিকিৎসার নামে ঘুমের ওষুধ দিয়ে নিস্তেজ করে দেয়া হয়।
এখানে একটি বিজ্ঞাপন দেখায় টিভিতে, আগে জানতাম শহরে একজন আটিজম আছে। তারপর দেখলাম পাড়ায় এখন আমার ঘরেও একজন আছে। আটিজম বাড়ছে অথচ সচেতনতা সে তুলনায় শূন্যের কোঠায় আছে। কিছু উন্নত দেশের আটিজম মানুষ শিক্ষা চিকিৎসা। সমর্থন সহযোগিতা পায়। বাকি সব অবহেলায় থাকে। অটিজম নিয়ে রেসিং অস্টিন রিলির গল্প আমাদের সফলতার কথা বলে। ওরা সব পারে ওদের একটু অন্য ভাবে শিখাতে হয় আদরে যত্নে ভালোবাসায়।

মন্তব্য ২২ টি রেটিং +৪/-০

মন্তব্য (২২) মন্তব্য লিখুন

১| ২৬ শে এপ্রিল, ২০১৯ ভোর ৫:০৯

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন:
আহা জীবন।

২৬ শে এপ্রিল, ২০১৯ সকাল ১১:২১

রোকসানা লেইস বলেছেন: জীবন খুব ভালো। ওরা খুব ভালো মনের মানুষ হয়। প্যাঁচ ঘোচ বুঝে না। সহজ সরল। কিন্তু ভালো মানুষরাওদের অবহেলা আর অত্যাচারই বেশি করে।
ধন্যবাদ পড়ার জন্য

২| ২৬ শে এপ্রিল, ২০১৯ ভোর ৫:২৫

চাঁদগাজী বলেছেন:


আপনি দরকারী একটি বিষয়কে সুন্দর করে লিখেছেন, ভালো!

২৬ শে এপ্রিল, ২০১৯ সকাল ১১:৪৫

রোকসানা লেইস বলেছেন: ধন্যবাদ। অনেক অটিজম বাচ্চারা বড় করুণ ব্যবহার পায় মানুষের কাছে।

৩| ২৬ শে এপ্রিল, ২০১৯ ভোর ৬:৩৯

ডঃ এম এ আলী বলেছেন: অটিজম বিষয়ে সামাজিক সচেতনতা সৃষ্টি ও তাদের অধিকার প্রতিষ্ঠায় বিশ্বের সকল দেশেই এপ্রিল মাসে পালিত হয় আটিজম দিবস । তাই অটিজম বিষয়ে এটি একটি মুল্যবান সময়োচিত পোষ্ট । অটিজমে আক্রান্ত শিশু ও বয়স্কদের জীবনযাত্রার মান উন্নয়নে সহায়তার প্রয়োজনীয়তাকে তুলে ধরেছেন দেখে ভাল লাগর । অটিজম মুলত শিশুদের বিকাশগত একটি সমস্যা। অটিজম বৈশিষ্ট্যসম্পন্ন শিশুরা সাধারণত অপরের সাথে ঠিকমতো যোগাযোগ করতে পারে না, তারা অতিরিক্ত জেদী হয়ে থাকে এবং নিজেকে বিচ্ছিন্ন ও গুটিয়ে রাখার মানসিকতাসম্পন্ন হয়ে থাকে। অটিজমের সুনির্দিষ্ট কোন কারণ নেই। তবে, গবেষকরা মনে করেন, জেনেটিক, নন-জেনেটিক ও পরিবেশগত প্রভাব সমন্বিতভাবে অটিজমের জন্য দায়ী। শিশুর বিকাশে প্রাথমিক পর্যায়ে এটি সৃষ্টি হয়। এদের জন্য পর্যাপ্ত পরিচর্যা প্রয়োজন । উল্লেখ্য, বাংলাদেশে বিপুলসংখ্যক শিশু অটিজম নামের এই নিউরো-ডেভেলমেন্ট ডিজঅর্ডারে আক্রান্ত। ইতোমধ্যে এ সম্পর্কে পিতা-মাতা, পরিবার-পরিজন ও সমাজে সচেতনতা সৃষ্টি করতে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। তাদের চিকিৎসা ও যথার্থ পরিচর্যার জন্য বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা প্রতিষ্ঠা করা একান্ত অপরিহার্য । আপনি ঠিকই বলেছেন এবং উদাহরণ সহ দেখিয়েছেন ওরা সব পারে

শুভেচ্ছা রইল

২৭ শে এপ্রিল, ২০১৯ সকাল ৮:৪০

রোকসানা লেইস বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ ডঃ এম এ আলী । চেষ্টা করলাম কিছুটা লেখার । অনেক সময় একটু অন্যরকম দেখতে মানুষ নিয়ে হাসি ঠাট্টা এবং তাদেরকে নিয়ে মজা করা খেপানোর একটা প্রবনতা মানুষের মজ্জাগত। অনেকেই উপলব্ধি করেন না মানুষটি কত অসহায়। অথচ ওরা অনেক বেশি মানবিক গুণ সম্পন্ন। কিন্তু জন্মগত একটু দ্রুটির জন্য তারা কষ্ট পায় সারা জীবন। বিদেশে আসার পরই বেশি করে উপলব্ধি এবং জানতে পেরেছি ওদের সম্পর্কে। তাদের অনেককে কাছে থেকেও দেখেছি তারা কত কাজে পারদর্শি আসলে।
আমাদের দেশে উপলব্ধিটা আসা দরকার। প্রতিটি পরিবারে। শিক্ষা ক্ষেত্রে আটিজমের ব্যাপারে, শিক্ষা বিষয়ে তেমন কোন আয়োজন নেই মনে হয় স্কুল পর্যায়ে। তাহলে ছোট বেলা থেকেই ত্রুটি সম্পন্ন মানুষ, জন্মগত সমস্যাক্রান্ত মানুষ নিয়ে হাসা হাসি না করে বরঞ্চ তাদের সাহায্য সহযোগীতার মানবিক মূল্যবোধ নিয়ে বাচ্চারা বড় হত । যা সমাজে ভালো প্রভাব রাখত।
আসলে আমাদের দেশে অনেক বেশি অবহেলিত আটিজনের বাচ্চারা।
শুভেচ্ছা রইল

৪| ২৬ শে এপ্রিল, ২০১৯ সকাল ৭:৪০

কালো যাদুকর বলেছেন: এতকিছু জানতাম না। লেখিকাকে অনেক ধন্যবাদ।

২৭ শে এপ্রিল, ২০১৯ সকাল ৮:৪১

রোকসানা লেইস বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ কালো যাদুকর। চেষ্টা কললাম নিজের জানাটুকু জানানোর।
শুভেচ্ছা রইল

৫| ২৬ শে এপ্রিল, ২০১৯ সকাল ১০:৩৬

মাহমুদুর রহমান বলেছেন: বাস্তবসম্মত লেখা।

২৭ শে এপ্রিল, ২০১৯ সকাল ৮:৪৩

রোকসানা লেইস বলেছেন: বাস্তব বড় কঠিন। এই কঠিন সবাই উপলব্ধি করুন। সহানুভুতি সম্পন্ন হন, যত্নবান হন এই ইচ্ছা প্রকাশ করি।
শুভেচ্ছা রইল

৬| ২৬ শে এপ্রিল, ২০১৯ সকাল ১০:৩৯

রাজীব নুর বলেছেন: এই রোগের সাথে হালাল হারামের কোনো সম্পর্ক আছে?
যেমন ধরুন একজন পুলিশ প্রচুর ঘুষ খায়। এখন তার সন্তান কি এই রোগ হওয়ার সম্ভবা আছে?

২৭ শে এপ্রিল, ২০১৯ দুপুর ১২:৫৫

রোকসানা লেইস বলেছেন: এটা নিয়ে রির্সাস করো তুমি পেয়ে যাবে। বিজ্ঞানে এখনো এই ্বিষয়ে রিসার্স হয়নি তাই আমি বলতে পারছি না।
ভালো থেকো

৭| ২৬ শে এপ্রিল, ২০১৯ দুপুর ১২:০১

করুণাধারা বলেছেন: অটিজম সম্পর্কে যত লেখা পড়েছি, এটা সবচাইতে ভালো। অটিজমের কারণ জানতাম না, আপনি বেশ ভালো করে ব্যাখ্যা করেছেন। আমার এক বান্ধবীর মেয়ের অটিজম আছে, সে একটা বাক্য 7-8 ঘন্টা অনবরত বলতে থাকে......... বুঝতে পারছি কেন এমন করে! তবে অটিস্টিক বাচ্চাদের মেধার প্রকাশ দেখা যায় কোনো না কোনো এক দিকে- আমার বান্ধবীর মেয়ে অতি চমৎকার ছবি আঁকে।

 একটা দীর্ঘশ্বাস, সাথে অশেষ শুভকামনা এই বাচ্চাদের এবং তাদের মা-বাবাদের জন্য।

  ছবিটি বোধহয় অস্টিনের? আপনি কিছু উল্লেখ করেননি।

২৭ শে এপ্রিল, ২০১৯ দুপুর ১:১০

রোকসানা লেইস বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ করুণাধারা।
মনটা খারাপ হলো আপনার বন্ধুর বাচ্চাটির কথা শুনে।
যদি বিদেশ থাকে হয়ত অনেক সহযোগিতা সেখানকার চিকিৎসা এবং স্কুল গুলো থেকে পাবেন। কিন্তু দেশে হলে কতটুকু সহযোগীতা পাওয়া যায় আমার জানা নেই। তবে এখন কিছুটা সচেতনতা বাড়ছে এটা আসার কথা।
শিশুটির বয়স এখন কত? ওদের শরীরও খুব সেনসেটিভ হয়। সেটাও সারানো যায় হালকা ম্যাসাজ, ব্যায়াম সহনীয় ভাবে শুরু করে, অভ্যস্ত করা যায় তাদের। তখন হাত, পা বা মাথা, দেহ ভাড় কিছুটা সঠিক ভাবে রাখতে শিখে যায়। আসলে আদরে অভ্যস্ত করতে হয় তাদের।
ছবি আঁকার মাধ্যমে সে পেয়ে যাবে হয়ত নিজস্বতা।
হ্যাঁ ছবিটা আস্টিন রিলির ।
শুভকামনা থাকল

৮| ২৬ শে এপ্রিল, ২০১৯ রাত ৯:৪৭

মাহমুদুর রহমান সুজন বলেছেন: জি ওরা সবই পারে যথাযথ বলেছেন। ওদের জন্য ওদের পিতা-মাতার সাথে সমাজের প্রতিটি মানুষ সাধ্যমতো সাহয্যে করা।

০১ লা মে, ২০১৯ দুপুর ১২:৩০

রোকসানা লেইস বলেছেন: এক্কেবারে বাবা মায়ের যন্ত্রনা বাড়িয়ে দেয় অজ্ঞ মানুষরা জ্ঞান দিয়ে। সাহায্য কিছু হয় না বরং মানসিক সেট্রস বাড়ে।

শুভেচ্ছা জানবেন মাহমুদুর রহমান সুজন

৯| ২৬ শে এপ্রিল, ২০১৯ রাত ১০:৩১

মুক্তা নীল বলেছেন:
দরকারী ও সচেতনতা মূলক পোস্ট। ভালোলাগা রইলো।

০১ লা মে, ২০১৯ দুপুর ১২:৩১

রোকসানা লেইস বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ মুক্তা নীলা

১০| ৩০ শে এপ্রিল, ২০১৯ রাত ৮:০০

করুণাধারা বলেছেন: ফিরতে কিছুটা দেরি হল, তবে ভালো লাগলো আমার বন্ধু সম্পর্কে আপনার আগ্রহ দেখে.....

আমার সেই বন্ধুটির একটি উন্নত দেশের নাগরিকত্ব ছিল, কিন্তু সে থাকতো আর একটি দেশে স্বামী আর সব সন্তানদের নিয়ে। কিন্তু একসময় এই অটিস্টিক বাচ্চাটিকে নিয়ে সে এতটাই দুশ্চিন্তায় পড়ে যায় যে, সংসার ছেড়ে সে ফিরে আসে উন্নত দেশটিতে, যেখানে নাকি তার মেয়ের বিকাশের অনেক সুযোগ আছে। মেয়েটির বয়স এখন ২০ বছর; এর দেখাশোনা করতে গিয়ে তার মা নিজের ক্যারিয়ার, সংসার এবং আরও অনেক কিছু পুরোপুরি বিসর্জন দেয়, এবং কোন অজ্ঞাত কারণে বন্ধু-বান্ধবের সাথেও অর্থাৎ আমার সাথে কোন সম্পর্ক রাখে না। সম্প্রতি অন্তর্জালে দেখলাম সন্তান নিয়ে এই দীর্ঘ সংগ্রামের মাঝে সে অনলাইনে বিভিন্ন ডিগ্রি নিয়ে এখন একটি সোশ্যাল বিজনেস খুব ভালোভাবে দাঁড় করিয়েছে, অর্থাৎ দীর্ঘ সংগ্রামের শেষে সে একটি ভালো জায়গায় পৌঁছেছে......

০১ লা মে, ২০১৯ রাত ৩:২০

রোকসানা লেইস বলেছেন: আমাদের দেশের মানুষের মানসিকতা খুব একটা উন্নত নয়। এবং মানসিক বা শারীরিক প্রতিবন্দি বাচ্চা নিয়ে মানুষ নিজের সমস্যার চেয়েও অনেক বেশি সমস্যায় পরে সামাজিক ভাবে নানা রকম অযাচিত পরামর্শ এবং কথার কারনে।
উন্নত দেশ গুলোতে। এই বিষয়গুলো বাচ্চারা শিশু বয়সে শিখে যায় স্কুলের শিক্ষায়। অনেক আগ্রহ এবং মায়া জন্মে শিশুদের মনে।
কিছু ব্যাতিক্রম ছাড়া।
হয় তো বাচ্চার কারণে তিনি দেশিয় মানসিকতায় আক্রমণের শিকার হয়ে সবার থেকে নিজেকে দূরে সরিয়ে নিয়েছেন। সবার মন বুঝতে পারা সম্ভব হয় না ভালো থাকুন।
এটাও অনেক সুবিধা উন্নতদেশে। বয়স কোন বিষয় না। অনেক কিছু গোড়া থেকে শুরু করা যায়। অনেক সুযোগ পাওয়া যায় ইচ্ছা থাকলেই।
শুভকামনা থাকল করুণাধারা

১১| ৩০ শে এপ্রিল, ২০১৯ রাত ৮:২৬

আহমেদ জী এস বলেছেন: রোকসানা লেইস,




চমৎকার উপস্থাপনা করেছেন অটিজম আক্রান্তদের নিয়ে। অটিষ্টিক শিশুরা কিন্তু প্রবল মেধার অধিকারী হয় এবং সঠিক সহায়তা পেলে সে মেধার প্রকাশ ঘটাতে পারে সহজেই। আসলে একটু যত্ন, একটু তদারকি, একটু সাহায্য পেলে ওরাও সব করতে পারে।

১২| ০১ লা মে, ২০১৯ দুপুর ১২:৩৬

রোকসানা লেইস বলেছেন: ধন্যবাদ আহমেদ জী এস

আমাদের শিক্ষাক্ষেত্রে স্কুল পর্যায়ে শিক্ষা দিয়ে, সচেতন করতে পারলে ভালো হয়। আমি জানতাম মিরপুরের দিকে একটি প্রতিবন্ধীদের স্কুল আছে কিন্তু সারা দেশে আর স্কুল কি হয়েছে ওদের জন্য।
কিছু মানুষের স্বেচ্ছা শ্রম ছাড়া আর কোন সহযোগীতা নেই হয় তো।
একটু বেশি যত্ন দিলে ওরা সব করতে পারে। খুব নিরিহ ভালো মনের মানুষ হয় ওরা।

শুভেচ্ছা রইল

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.