নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

চার হাত থেকে আধ হাত কম..

সৈয়দ তাজুল ইসলাম

জীবনের পুত্র

সৈয়দ তাজুল ইসলাম › বিস্তারিত পোস্টঃ

সামু ব্লগারদের সহযোগিতায় সিলেটে বন্যায় আক্রান্তদের মাঝে জরুরী খাদ্যসামগ্রী বিতরণ (স্থির চিত্র সহ সর্বশেষ আপডেট)

১৯ শে জুন, ২০২২ সন্ধ্যা ৬:১০


সামু ব্লগারগণ বরাবরের মত এবারো দুর্যোগ মোকাবেলায় ব্যাপক ভুমিকা রেখেছেন। পাশে দাঁড়িয়েছেন সিলেটবাসীর। বৃহত্তর সিলেট বিভাগের বন্যার্তদের পাশে দাঁড়ানোর যে উদ্যোগটি কাল্পনিক ভালোবাসা ভাই নিয়েছিলেন তাতে ব্লগারদের অসম্ভব রকমের সহানুভূতি পূর্বক সহযোগিতা প্রদান ছিল প্রশংসার উর্ধ্বে। গতকাল বুধবার ব্লগারদের পক্ষ থেকে কাভা ভাই বন্যার্তদের কাছে ত্রাণ পোঁছে দিয়েছেন। সিলেট এবং জগন্নাথপুরে গতকাল একই সাথে ব্লগারদের পক্ষ থেকে ত্রাণ বিতরণ করা হয়েছে। (নিম্নে তার কিছু স্থির চিত্র তুলে ধরা হল।)
কাল্পনিক ভালোবাসাভাইয় সিলেট বিভাগের বন্যার্তদের পাশে দাঁড়ানোর ডাকে সারা দিয়ে আমি উনার সাথে যোগাযোগ করেছিলাম। কাভা ভাইয়ের অনুরোধে ব্লগার আমিনুর রহমান ভাই সহ ব্লগের আরো যারা পুরানো ব্লগার আছেন, তারা এই ব্যাপারে যুক্ত হয়েছিলেন। কাভা ভাই এবং আমি মাঠ পর্যায়ে কিছু এলাকার বন্যার্তদের অবস্থা পর্যবেক্ষণ করত সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম যত দ্রুত সম্ভব তাদের পাশে দাঁড়ানোর। বাংলাদেশ, ইন্ডিয়া, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, আরব আমিরাতের বিভিন্ন রাষ্ট্র, নর্ডিক ভুক্ত অঞ্চল থেকেও আমাদের সামু ব্লগের বাংলাভাষী ব্লগারদের অনেকেই সিলেটের বানবাসী নিপীড়িত মানুষের জন্য সহযোগিতা পাঠিয়েছেন। জাদিদ ভাই আমার গ্রামেও ত্রাণ পাঠাতে চেয়েছিলেন। বন্যার্তদের সাহায্যে ব্লগারদের এমন উপস্থিতি আমাকে অসম্ভব সাহস জোগানোয় ব্লগারদের নামে আমি সেখানে ৩৫টি পরিবারকে ত্রাণ পৌঁছে দিয়েছি। যদিও পরবর্তীতে আমার সাথে আমার একজন আত্মীয় যুক্ত হয়েছেন।

কাভা ভাই নিজ উদ্যোগে সব কিছু করার জন্য এগিয়ে আসলেও শত ব্যস্ততা উনাকে সময় বের করতে দিচ্ছিলো না। তারপরও উনার প্রচেষ্টা আমাকে বারবার অবাক করে দিয়েছে। কাভা ভাই ব্যক্তিগতভাবে চান নি উনার নাম পোস্টে যুক্ত হোক। কিন্তু এই পর্যন্ত উনি যে পরিশ্রম করেছেন তার বর্ণনা করা প্রকাশ শক্তির বাহিরে। যদিও কাভা ভাই অনুরোধ করেছিলেন, এখানে অন্য কেউ যুক্ত হওয়ার জন্য। কিন্তু কাউকে না পাওয়ায় কাভা ভাই একা একাই ঢাকার সকল কাজ সম্পাদন করে সিলেটের দিকে মঙ্গলবার রাতে যাত্রা করেছিলেন।

ব্লগার কাওসার চৌধুরী ভাইকে কাভা ভাই আগে থেকে জানিয়ে রাখায় কাওসার ভাই নিজের শত ব্যস্ততা উপেক্ষা করে কাভা ভাইয়ের জন্য অর্ধেকের বেশি রাত জেগে অপেক্ষা করেন। এদিকে রাতে প্রায় দু'টার দিকে কাভা ভাই সিলেট পৌঁছলে কাওসার ভাই আমাকে জানান, কাভা ভাই রাতে খাওয়ার সুযোগ পাননি! আমি যতটুকু জানি, কাভা ভাই ঐদিন লাঞ্চটাও ভালো ভাবে করতে পারেননি! যদিও উনি এটা কাওসার ভাইয়ের থেকে গোপন করেছেন মনে হয়। আমার দুর্ভাগ্য যে, আমার পরিবার গ্রামে থাকে। শহরে থাকা আমার আত্মীয়দের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলে তাদেরকে ঘুমে পাই। কেউ কল রিসিব না করায় আমি কাভা ভাইয়ের জন্য রাতের খাবারের ব্যবস্থা করতে পারিনি! এহেন কর্মের জন্য আমি কাভা ভাই সহ সকল ব্লগারদের নিকট আন্তরিকভাবে দুঃখিত!

আমরা ত্রাণ পৌঁছানোর জন্য যে এলাকা পর্যবেক্ষণ করেছিলাম সেটা ছিল সিলেট শহর সংলগ্ন।
এলাকার নামঃ মুক্তির চক।
সেখানে বন্যার পানিতে বন্দী আছে ৬৫টি পরিবার। পরবর্তীতে তা বৃদ্ধি পায়।
এলাকার জনপ্রতিনিধি (মেম্বার সাহেব)-র নামঃ দেলোয়ার হুসেন, মাঠ পর্যায়ে আমাদের পর্যবেক্ষকের দায়িত্বে ছিলেন মোঃ সিদ্দিকুর রহমান।
যাতায়াত ব্যবস্থাঃ সিলেটের বন্দর বাজার থেকে বোরহান উদ্দিন রোডে শাহপরান ব্রিজ সংলগ্ন। মুক্তির চক এলাকা। গাড়ি দিয়ে ২০ টাকার ভাড়া।

সাহায্যের সুবিধার্থে আমরা সেখানে পরিবার ভিত্তিক সাহায্য করেছি। একটি পরিবারের ১সাপ্তাহের খরচের একটা নমুনা আমরা তৈরি করেছিলাম। আপনাদের জানার সুবিধার্থে নিম্নে তা তুলে ধরছি। (এই তালিকা সকল ব্লগারদের মতামত ভিত্তিক গঠিত)

চাল ৫ কেজি দাম = ২২৫/-
তেল ১ লিটার = ১৮১/-
আলু – ৩ কেজি = ৭৫/-
ডাল – ১ কেজি = ১০৫/-
পেঁয়াজ ১ কেজি = ৩৫/-
চিড়া
মুড়ি
গুড়
বিস্কুট
মোমবাতি
ওরস্যালাইন (১বক্স করে)
পানি বিশুদ্ধ করনের টেবলেট
এছাড়াও বাচ্চাদের জন্য কিছু শুকনো খাবারও সাথে নেওয়া হয়েছিল।

মোটামুটি ৫ সদস্য ধরে নিয়ে একেকটা পরিবারের এক সপ্তাহের খাবার খরচ ধরেছিলাম ৮০০টাকা করে। (এসব বিষয়ে অনুরোধ থাকবে, সময় সুযোগ করে কাভা ভাই নিজে একটি পোস্ট দিবেন!)

আমরা যেই এলাকায় পর্যবেক্ষণ করেছি সেখানে ছিল সর্বমোট ৬৫টি পরিবার। উপরোক্ত হিসাবের আলোকে সম্মানিত ব্লগারদের অনেকেই এক বা একাধিক পরিবারের দায়িত্ব নিয়েছিলেন। আবার অনেকে নিজ খুশি মত টাকা দিয়েছিলেন। এমন মানব বিপর্যয়ের মুহূর্তে ব্লগারদের এমন পাশে দাঁড়ানো বিরল হয়ে থাকবে আজীবন। আমরা তাদের শান্তি কামনা করত কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

আমাদের পুরাতন ব্লগারদের অনেকেই বন্যার্তদের সাহায্যে এগিয়ে এসেছিলেন। উনাদের সাথে নবীনদের অংশগ্রহণ ছিল চোখে পড়ার মত। আমরা যেভাবে ইতিপূর্বে বাংলাদেশের সকল দূর্যোগ মোকাবেলায় এগিয়ে গিয়েছি একই ভাবে সিলেটের বন্যার্তদের সাহায্যে এগিয়ে এসে নিজেদের শ্রেষ্ঠত্বের আবারো শক্ত প্রমাণ দাঁড় করিয়েছি। আমাদের এই পরিশ্রমে শান্তি ফিরেছে প্রায় ১০০টি পরিবারে।

শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত কাভা ভাই অক্লান্ত পরিশ্রম করেছেন। আমি নিজে ব্লগারদের ত্রাণ পাঠানো এলাকায় যোগাযোগ করলে শুনতে পাই, কাভা ভাই ও কাওসার চৌধুরী ভাইয়ের প্রশংসা। এটা কেবলই ত্রাণ দেওয়ার জন্য নয়। সেখানেও উনারা সকল কাজে নিজেরা অংশগ্রহণ করে সবাইকে অবাক করে দিয়েছেন। সবাই উনাদের আন্তরিকতার প্রশংসায় পঞ্চমুখ।
উনারা ব্লগারদের নিকট অনেক অনেক কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন। আমার মাধ্যমে উনারা নিজেদের এলাকায় ব্লগারদের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। ব্লগাররা ঐদিকে ঘুরতে গেলে উনারা অনেক খুশি হবেন বলে জানিয়েছেন।

কাভা ভাইয়ের আহবানে আপনাদের আন্তরিক সাহায্য প্রদান কখনো ভুলার নয়। আমরা সামান্য সময় বিকাশ নাম্বারটি এখানে প্রকাশ করেছিলাম। আর তার মধ্যেই আমাদের টার্গেটে রাখা পরিবারগুলোর ত্রাণের খরচ উঠে যায়। যার কারণে আমরা বিকাশ নাম্বারটি সরিয়ে নেই। কিন্তু তারপরও আপনারা বিকাশ ও ব্যাংকের মাধ্যমে টাকা দেওয়া বন্ধ করেননি। আপনাদের এই ভালোবাসার মূল্য দেওয়ার সামর্থ্য কারো নেই। আমাদের কাভা ভাই জানিয়েছিলেন, ঐ অঞ্চলে ত্রাণ দেওয়ার পর যদি অবশিষ্ট রয়ে যায় তবে তা পরামর্শ ক্রমেই কাজে লাগানো হবে। আশা করি, কাভা ভাই রেস্ট নেওয়ার পর সময় সুযোগ করে এ ব্যাপারে বিস্তারিত একটি পোস্ট দিবেন।

যে সকল ব্লগারদের সহযোগিতা আমাদের হাতে পৌঁছেছে:
ব্লগার সাড়ে চুয়াত্তর
ব্লগার গেঁয়ো ভুত
ব্লগার নিরক্ষর
ব্লগার নতুন
ব্লগার মিরোরডডল
ব্লগার সৈয়দ মশিউর রহমান
ব্লগার ইফতেখার ভুঁইয়্যা
ব্লগার আহমেদ জী এস
ব্লগার পদাতিক চৌধুরী ইন্ডিয়া থেকে
ব্লগার শাহ আজিজ ভাই
ব্লগার মিথি মারজান
ব্লগার ফয়সাল রকি
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন ব্লগার
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আরেকজন ব্লগার
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আরেকজন ব্লগার
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আরেকজন ব্লগার যুক্তরাজ্য থেকে
নর্ডিক দেশ ভুক্ত অঞ্চল থেকে একজন ব্লগার
ব্লগার জাফরুল মুবিন
ব্লগার অন্তরঅন্তর
ব্লগার জুবায়ের ভাই
ব্লগার কাজী ফাতেমা ছবি আপা
ব্লগার খায়রুল আহসান ভাই
ব্লগার ইফতেখার ভুঁইয়া ভাইয়ের এক বন্ধু
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন ব্লগার



ত্রাণ বিষয়ক বর্তমান আপডেটঃ
# ব্লগার কাভা ভাই বিনয়ের সাথে জানাচ্ছেন, অনেকেই টাকা পাঠাতে চাচ্ছেন। এই মুহুর্তে আর টাকা পাঠানোর প্রয়োজন নেই। সে কারণে আমরা নাম্বারটি আপাত সরিয়ে নিয়েছি। আমরা যে এলাকায় ত্রান বিতরন করব, সেখানে যে বাজেট আমরা নির্ধারন করেছি, সেই লক্ষ্য মাত্র আমাদের পূর্ন হয়ে গেছে। অনুগ্রহ করে আপনারা এখন আর টাকা পাঠাবেন না। যদি প্রয়োজন হয়, তাহলে আবার জানানো হবে। এই মুহুর্তে আমাদের প্রথম কাজ আপনাদের অর্পিত দায়িত্ব সঠিকভাবে আদায় করতে বন্যার্তদের কাছে ত্রাণ পৌঁছে দেওয়া।

# হাজারো ব্যস্ততা উপেক্ষা করে কাভা ভাই আগামীকাল সিলেট অভিমুখী যাত্রা করবেন। আগামীকাল সেখানে পৌঁছার পর প্রাথমিক কাজ শেষ করে পরদিন থেকে শুরু করবেন ত্রাণ বিতরণ। অর্থাৎ আগামী বুধবার আপনাদের পাঠানো ত্রাণ পৌঁছে যাবে সিলেটের দুর্যোগপূর্ণ এলাকার নিপীড়িত মানুষের হাতে।

# সম্মানিত ব্লগারগণ, আপনাদের পরামর্শ ক্রমে আমরা খাদ্যতালিকায় পরিবর্তন এনেছি। যা উপরে আপডেট করা হয়েছে।

#কাভা ভাই খোঁজ নিয়ে জানিয়েছেন, আমাদেরকে হয়ত ত্রাণের পরিমাণ ৬৫এর উপরেও করতে হতে পারে। আমরা টার্গেটে রাখবো এর চেয়ে কিছু অধিক পরিবারের ব্যবস্থা করা যায় কিনা।

# আপনাদের থেকে প্রাপ্ত টাকায় প্রত্যেক পরিবারকে এক সপ্তাহের খাবার দেওয়ার চেষ্টা করছি। যদি আমাদের টার্গেটে থাকা এলাকায় ত্রাণ পোঁছে দেওয়ার পর জমাকৃত টাকা থেকে কিছু টাকা রয়ে যায়। তবে আমরা সিলেটের বাইশঠিলায় ত্রাণ পৌছানোর চেষ্টা করবো। সেখানে আমাদের আরেকজন পর্যবেক্ষক মাঠপর্যায়ে কাজ করছেন। অথবা উপস্থিত অবস্থা পর্যবেক্ষণ পূর্বক অন্য কোন নিপীড়িত এলাকায়। এমনটা করতে হলে আপনাদেরকে জানানো হবে। এ বিষয়ে আপনাদের কোন পরামর্শ থাকলে মন্তব্যের মাধ্যমে প্রকাশ করতে পারেন।

# আমাদের পর্যবেক্ষণে রাখা সেই নিপীড়িত এলাকায় সিলেটের ব্লগার কাওসার চৌধুরী ভাই থাকবেন বলে কাভা ভাই নিশ্চিত করেছেন। এছাড়াও কাভা ভাই সম্ভবত সিলেটে থাকা উনার ভক্তকুল থেকে কয়েকজনকে সাথে রাখবেন। (আমি দেশে না থাকায় উনার সাথে থাকতে পারবো না। যদিও কাওসার ভাই ও অন্যান্যরা কাভা ভাইয়ের সাথে থাকবেন বলে কিছুটা সাহস পাচ্ছি তবু আমার মধ্যে একটা অপরাধবোধ কাজ করছে! )
কাভা ভাই, এই পর্যন্ত নিজে থেকে যা করছেন তা প্রশংসার উর্ধ্বে। উনি সহ সকল ব্লগারদের আন্তরিকতার প্রতি নতজানু কৃতজ্ঞতা। সিলেটবাসী ব্লগারদের এই প্রচেষ্টা কখনো ভুলবে না।

২২- জুন, রাত ১:৩৬
# এইমাত্র আমাদের কাভা ভাই সিলেট পৌঁছলেন। অনেক পরিশ্রম করলেন কাভা ভাই। উনার পরিশ্রম আমার আজীবন মনে থাকবে।
ব্লগার লেখক কাওসার চৌধুরী ততক্ষণ পর্যন্ত অপেক্ষায় ছিলেন। এই কাওসার ভাই মানুষটা অদ্ভুত। উনার লেখার মতই উনি এক ব্যতিক্রম মানুষ। রাত জেগে কাভা ভাইয়ের জন্য অপেক্ষা, ব্লগারদের প্রতি উনার অগাধ ভালোবাসা, মানুষের প্রতি প্রেম। উনার মধ্যে এই সবের উপস্থিতি দেখার কারণে সিলেটে গেলেই উনাকে বিরক্ত করতাম।

# আগামীকাল ভোর থেকেই শুরু হবে ব্লগারদের পক্ষ থেকে সিলেটের বন্যার্তদের কাছে ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রম।

# সম্ভবত আমরা আমাদের টার্গেটের বেশি পরিমাণ ত্রাণ বিতরণ করতে পারবো।
আমরা যেন সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করতে পারি, সেই জন্য সকলের শুভ কামনা প্রার্থনা করছি।

সিলেট থেকে কেউ যদি অংশগ্রহণ করতে চান, তাহলে এই মুহূর্তে জাদিদ ভাইয়ের সাথে যোগাযোগ করুন প্লিজ!

সকাল ৯.৫০
সিলেট থেকে জাদিদ ভাইঃ সকাল থেকে সিলেটে বেশ বৃষ্টি হচ্ছে। বৃষ্টি থামলেই আমরা বেরিয়ে পড়বো।

আলহামদুলিল্লাহ আমি সৈয়দ তাজুল গতকাল সকালে বাংলাদেশ টাইম ১১টার দিকে আমার পরিবারের সাথে কথা বলতে পেরেছি। আলহামদুলিল্লাহ আমার মা সহ আমার এলাকার মানুষ ভালো আছেন। যারা আমার জন্য উৎকন্ঠিত ছিলেন এবং আমার মায়ের খবর নিয়ে চিন্তিত ছিলেন তাদের নিকট কৃতজ্ঞ। আমি নিজে ব্যাক্তিগত ভাবে ৩০টি পরিবারে আপনাদের দেওয়া তালিকা অনুসরণ করে ত্রাণ বিতরণ করবো আগামীকাল। ব্লগারদের পরিচয়ে একই সাথে দু'টি যায়াগায় ত্রাণ পৌঁছে যাবে ইন শা আল্লাহ। অফিসের কাজ শেষে ত্রাণ নিয়ে খোঁজখবর নেওয়া সহ বিভিন্ন ব্যস্ততার কারণে যথাযথ সময়ে পোস্টটি আপডেট করতে না পারার জন্য আমি আন্তরিক ভাবে দুঃখিত।


সকাল ১১টা
কাভা ভাই ও কাওসার চৌধুরী ভাই মাঠপর্যায়ে নেমে পড়েছেন। তারা এখন আমাদের পর্যবেক্ষণে রাখা গ্রামেই আছেন। তারা সকল ব্লগারদের শুভকামনার প্রত্যাশি।




সম্মানিত ব্লগার, আপনি আজ আপনার অভ্যাস মত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর কারণে বেঁচে গেলো শতাধিক প্রাণ। 'ব্লগাররা সবসময় মানবতার জন্য এগিয়ে থাকে' এমন দাবী আবারো প্রমাণিত হল। ব্লগাররা জ্ঞান, বিজ্ঞান, সাহিত্য, দর্শন চর্চার পাশাপাশি নিপীড়ন মানুষের পাশে দাঁড়ানোর যে মহৎগুণটি হৃদয়ে লালন করত বাস্তবে মাঠপর্যায়ে কাজ করে, তা সর্বদাই সবার চেয়ে এগিয়ে।
সিলেট ও জগন্নাথপুরে ব্লগারদের মাধ্যমে পাঠানো ত্রাণগুলো যে কী পরিমাণ উপকার করেছে তা ভাষায় প্রকাশ করার মত নয়। আমাকে জানানো হয়েছে, ত্রাণ হাতে পেয়ে নিপীড়িতদের অনেকেই নাকি সুখে কেঁদে দিয়েছেন। নিপীড়িতদের এই শান্তিটুকুই আমাদের প্রাপ্তি।

আমি ব্যক্তিগত ভাবে কাভা ভাই, কাওসার চৌধুরী ভাই ও সকল ব্লগারদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। অজস্র ভালোবাসা সবার জন্য। ভালো থাকুন সকলে। পরিবারকে নিয়ে থাকুন পরম শান্তিতে।
শুভ ব্লগিং




সিলেটঃ

ব্লগারদের দেওয়া তালিকা অনুসারে দ্রব্যাদি প্যাকেট করণঃ












কাওসার চৌধুরী ভাইকে দেখা যাচ্ছে টিস্যু প্যাকেট করণে স্বয়ং নিজে কাজ করছেন।


পাইকারি দোকানে কাজের ফাঁকে কাভা ভাইয়ের দাঁড়ানোর চিত্র।



প্যাকেট গাড়িতে উঠানোর পর নিপীড়িত এলাকার দিকে এগিয়ে চলা





সম্ভবত কাভা ভাই এরকম পাহারা দিয়েই নিয়ে গেছিলেন মালামালগুলো অথবা চ্যাক করছেন।



ত্রাণ নিয়ে নিপীড়িত এলাকায় পৌঁছলেন আমাদের কাভা ভাই ও কাওসার চৌধুরী ভাই



অত:পর শুরু হল, ব্লগারদের পক্ষ থেকে কাভা ভাই ও কাওসার ভাইয়ের মাধ্যমে ত্রাণ বিতরণ।


























জগন্নাথপুরঃ (এখানে কারেন্ট ও নেটওয়ার্ক না থাকায় এই দু'টি ছবি ছাড়া আর কোন ছবি পাইনি)




## আমি আমার উপকারীদের সুন্দর প্রশংসা করতে পারি না। দয়া করে, আমার এই অযোগ্যতা সহ এই পোস্টের সকল ভুলোগুলো আপনারা নিজ গুণে ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন। আপনাদের এই সহযোগিতা আমি সৈয়দ কোন দিন ভুলব না। আপনারা আমাদের সিলেটের পাশে দাঁড়ানোর এই ইতিহাস সিলেটের মাটি ও মানুষের হৃদয়ে আজীবনের জন্য গেঁথে থাকবে।


কাভা ভাই, বন্যা সংক্রান্ত কিছু প্রয়োজনীয় তথ্য নিয়ে জরুরী আলোচনা করেছেন। লিংকে ক্লিক করলেই তা জানতে পারবেন।

মন্তব্য ৯৩ টি রেটিং +৩৫/-০

মন্তব্য (৯৩) মন্তব্য লিখুন

১| ১৯ শে জুন, ২০২২ সন্ধ্যা ৬:১৬

নতুন বলেছেন: আমি ৩ পরিবারের জন্য ২৪০০ টাকা পাঠাবো।

১৯ শে জুন, ২০২২ রাত ৮:৫৬

সৈয়দ তাজুল ইসলাম বলেছেন: নতুন ভাই, আছেন কেমন? এই প্রশ্নটা আপনাকে আমি সবসময় করি! তা যাই হোক। আপনার স্বদিচ্ছার প্রতি সম্মান ও ভালোবাসা জানবেন।

২| ১৯ শে জুন, ২০২২ সন্ধ্যা ৬:৪৯

গেঁয়ো ভূত বলেছেন:



যোগাযোগের জন্য একটি মোবাইল নাম্বার যুক্ত করুন এবং বিকাশ / নগদ একাউন্ট নাম্বার যুক্ত করুন।

বন্যা উপদ্রুত এলাকায় জ্বালানি এবং রান্নার গ্যাস এর সংকট অবশ্যই হবে বিধায় চিড়া-মুড়ি ও শুকনো খাবার লিস্ট এ যোগ করুন।

এই মহৎ উদ্যোগ গ্রহণ করার জন্য সংশ্লিষ্ট সবাইকে আন্তরিক মোবারকবাদ জানাচ্ছি।

১৯ শে জুন, ২০২২ রাত ৯:০০

সৈয়দ তাজুল ইসলাম বলেছেন: যোগাযোগের জন্য মোবাইল নাম্বার যুক্ত করে নিয়েছি ভাই। সাথে বিকাশ ও নগদ। এবং আপনার নামও যুক্ত করে নিয়েছি পোস্টে। অনেক অনেক কৃতজ্ঞতা ও ভালোবাসা জানবেন। আএ হ্যাঁ, আপনার সুন্দর মতামতটা নিয়ে আমরা ভাবছি। খুব গুরুত্বপূর্ণ কিছু বলে দিয়েছেন ছোট্ট মন্তব্যে। আপনাকে জানাচ্ছি। আপডেট জানতে পোস্টে চোখ রাখুন। আবারো ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানবেন।

৩| ১৯ শে জুন, ২০২২ সন্ধ্যা ৭:১২

শাহ আজিজ বলেছেন: আমি জাদিদের নাম্বারে পাঠাবো এবং তাকে জানিয়ে দেব ।

১৯ শে জুন, ২০২২ রাত ৯:০১

সৈয়দ তাজুল ইসলাম বলেছেন: ধন্যবাদ ভাই। এসব কাজে আপনাকে সবসময় পাওয়া যায়। কৃতজ্ঞতা ও ভালোবাসা জানবেন।

৪| ১৯ শে জুন, ২০২২ সন্ধ্যা ৭:১৬

আমিনুর রহমান বলেছেন: খুবই মহতী উদ্যোগ। আমার সাধ্যের মধ্যে থেকে এবং পরিচিত জন থেকে যতখানি পারি তা নিয়ে অবশ্যই এগিয়ে আসবো।


পোষ্টটি স্টিকি করলে ভালো হতো আমার মনে হয়। কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করছি।

১৯ শে জুন, ২০২২ রাত ৯:০৮

সৈয়দ তাজুল ইসলাম বলেছেন: আমিনুর ভাই,
আমি আপনার প্রতি মন্তব্যের করিতে গিয়ে ভাবছিলাম অনেক কিছুই জিজ্ঞেস করবো। কাভা ভাই সহজ করে দিলেন।
কাল্পনিক_ভালোবাসা বলেছেন: আমি আমিনুর ভাইয়ের কাছে প্রস্তবনা চাইছি - ত্রান সামগ্রীর বিষয়ে
জ্বি হ্যাঁ আমিনুর ভাই, আপনি দয়া করে একটি প্রস্তাবনা প্রকাশ করুন। এতোটুকুই চাওয়া। আসলে এতটুকুই নয়, এই পর্যন্ত আমি ফিল করেছি মাথার উপর হাত রাখার শান্তি। সে যাই হোক, অনেক কিছুই তো চাওয়ার ছিল, আপনাদের মত পুরাতন ব্লগারদের কাছে কোন কিছু চাইতে জিজ্ঞেস করতে সাহস পাই ভাই।

৫| ১৯ শে জুন, ২০২২ সন্ধ্যা ৭:৩৯

সাড়ে চুয়াত্তর বলেছেন: আমি কিছু টাকা জাদিদ ভাইয়ের বিকাশ নাম্বারে পাঠিয়েছি। transaction id;

9FJ6WWT9IG

১৯ শে জুন, ২০২২ রাত ৯:১১

সৈয়দ তাজুল ইসলাম বলেছেন: ভাইজান,
আপনার টাকাটি আমাদের ফান্ডে এসে পৌঁছে গেছে। আপনাকে অনেক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা। প্রাপ্তির প্রমাণ স্বরুপ আপনার ব্লগ নামটি আমরা পোস্টে এড করে নিয়েছি। ভালোবাসা জানবেন ভাই অনেক।

৬| ১৯ শে জুন, ২০২২ সন্ধ্যা ৭:৪১

নিরীক্ষক৩২৭ বলেছেন: পাঠিয়েছি।

১৯ শে জুন, ২০২২ রাত ৯:৩০

সৈয়দ তাজুল ইসলাম বলেছেন: জি আপনার টাকা আমাদের ফান্ডে এসে জমা হয়েছে। ফান্ড কেন্দ্রিক আপডেট জানতে কাভা ভাইর মন্তব্যের দিকে দৃষ্টি রাখুন।

৭| ১৯ শে জুন, ২০২২ সন্ধ্যা ৭:৪৩

নিরীক্ষক৩২৭ বলেছেন: পাঠিয়েছি।
TrxID - 9FJ9WX0OHX

১৯ শে জুন, ২০২২ রাত ৯:৩১

সৈয়দ তাজুল ইসলাম বলেছেন: কৃতজ্ঞতা জানবেন

৮| ১৯ শে জুন, ২০২২ রাত ৮:০০

কাল্পনিক_ভালোবাসা বলেছেন: প্রথমেই সিলেট বিভাগের সকল বন্যাকবলিত মানুষের প্রতি আমাদের সহমর্মিতা এবং সহনাভুতি প্রকাশ করছি। আমাদের সাধ অনেক কিন্তু সাধ্য সীমিত। আপনারা অনেকেই ইতিমধ্যে আমাকে সাহায্যের জন্য যোগাযোগ করেছেন। আমি ব্যক্তিগতভাবে অনেককেই ফিরিয়ে দিয়েছি। কারন কোন সুনির্দিষ্ট তথ্য ছাড়া আমরা কোন ধরনের ত্রান কার্যক্রমের ব্যাপারে উদ্যোগ গ্রহন করতে পারি না।

তাজুল ভাই আপনাকে ধন্যবাদ, এখানে সুনির্দিষ্ট তথ্য প্রদান করার জন্য। আমি আশা করি, আমাদের ব্লগাররা তাদের সাধ্যমত এখানে যুক্ত হবেন। আমি আন্তরিকভাবে এবং বিনয়ের সাথে অনুরোধ করছি, যদি আর্থিক লেনদেনে আরো দুই একজন ব্লগারকে যুক্ত করা যায়। এককভাবে যে কোন আর্থিক বিষয়ে দায়িত্ব যথেষ্ট মানসিক চাপের বিষয়। যতক্ষন পর্যন্ত না অন্য কেউ যুক্ত হচ্ছে, তক্ষন পর্যন্ত যদি কেউ কোন আর্থিক সাহায্য পাঠান, তাহলে তা অবশ্যই আমাকে জানাবেন এবং পোস্টে উল্লেখ্য করে দিবেন। এতে অন্তত আমার কাজটি সহজ হবে।

যে নাম্বারে আপনারা চাইলে বিকাশ বা নগদ করতে পারেন তার হচ্ছে
০১৭০৭০০৮২১৭

আমি আবারও অনুরোধ করছি, যিনি টাকা পাঠাবেন, তিনি যেন অবশ্যই আমাকে জানান।

আমি সম্মানিত ব্লগারদের কাছে অনুরোধ করছি, কি কি আইটেম পাঠানো যায়, তা পুনরায় নির্ধারন করা। প্রাথমিক এই নির্বাচন আমরা পরিবার প্রতি গড়ে ৫ জন সদস্য হিসাবে নিয়ে বিবেচনা করেছি।

আমি ব্যক্তিগতভাবে চেষ্টা করব, উক্ত স্থানে গিয়ে সরাসরি ত্রান পৌঁছে দিতে। এই ক্ষেত্রে আমাদের ব্লগার আমিনুর রহমান ভাই সহ আমাদের সিলেটের আরো যেসকল সম্মানিত ব্লগার আছেন তারাও যুক্ত থাকবেন।

১৯ শে জুন, ২০২২ রাত ৮:৫৪

সৈয়দ তাজুল ইসলাম বলেছেন:
কাভা ভাই,


আপনি চোখের জলের মূল্য বুঝেন। এই দোষটা কেবল আপনার না। আমাদের ব্লগারদেরও এই একই সমস্যা। আমরা যেমন চোখের জলের মূল্য বুঝি তেমনি বুঝি চোখ বহনকারী ও চোখহীন প্রতিটি বস্তুর মূল্যায়ন। আর সেটাই আমাদেরকে বাধ্য করে জীবনের শত ব্যস্ততাকে উপেক্ষা করে মানুষের পাশে দাঁড়ানোর। আজ যখন আমি এই প্রতিমন্তব্য করছি তখন আমার চোখ পানিতে টলমল করছে মানবতার প্রতি সামসুল ভাইয়ের আন্তরিকতা দেখে। আসলে মানুষই কেবল মানুষের মূল্য বুঝতে পারে।

যাই হোক, আপনার প্রচেষ্টার জন্য আমি ঋণি। আমাদের ব্লগারদের নিকট আমি কৃতজ্ঞতা আদায় করে শেষ করতে পারবো না। আমি সহ আমাদের সিলেটের মানুষগুলো ব্লগারদের নিকট কৃতজ্ঞ থাকবে।

৯| ১৯ শে জুন, ২০২২ রাত ৮:০১

গেঁয়ো ভূত বলেছেন:



২৪০০ পাঠিয়েছি ট্রান্সেকশন আইডি 9FJ3WXTYH3

মহৎ উদ্যোগ গ্রহণ করার জন্য সংশ্লিষ্ট সবাইকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

১৯ শে জুন, ২০২২ রাত ৯:৩৩

সৈয়দ তাজুল ইসলাম বলেছেন: এমন মহৎ উদ্যোগগুলো আপনাদের মাধ্যমেই সফলতার মুখ দেখে ভাই। অনেক অনেক কৃতজ্ঞতা জানবেন। আপনার টাকাটি এসে পৌঁছে গেছে। ভালোবাসা জানবেন। আপডেট জানতে কাভা ভাইয়ের মন্তব্যে দৃষ্টি রাখুন। ধন্যবাদ।

১০| ১৯ শে জুন, ২০২২ রাত ৮:০৯

সামছুল মালয়েশিয়া প্রবাসী বলেছেন: আমি দশটা পরিবারকে দিতে চাচ্ছি ইনশাল্লাহ।

১৯ শে জুন, ২০২২ রাত ৮:৩৪

সৈয়দ তাজুল ইসলাম বলেছেন: সামছুল মালয়েশিয়া প্রবাসীঃ আপনাকে ধন্যবাদ এগিয়ে আসার জন্য। তবে আপনি এখনই এত অস্থির হবে না। আপনি পরিকল্পনা রাখুন। আশা করি সবাই অংশগ্রহন করলে আপনাকে একাই এত চাপ নিতে হবে না। আমাদের সাথে যোগাযোগ রাখুন। যদি কখনও প্রয়োজন হয়, তখন আপনি এতগুলো পরিবারের জন্য পাঠাবেন।

আপনাদের কস্টের প্রতিটি টাকার হিসাবের দায়ভার অনেক কঠিন। অনুগ্রহ করে, এত বড় চাপ এখনই আমাদেরকে দেবেন না। আপনি টাকা পাঠানোর পূর্বে এই নাম্বারে জাদিদ ভাইয়ের সাথে যোগাযোগ করুন প্লিজ! +880 1707-008217

১১| ১৯ শে জুন, ২০২২ রাত ৮:১৩

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: অত্যন্ত দরকারি পদক্ষেপ। অসংখ্য ধন্যবাদ তাজুল ভাই আপনাকে এমন একটি স্বচ্ছ লিংক বের করার জন্য। ব্যক্তিগত কাজে বাইরে থাকায় চোখে পড়েনি, এইমাত্র দেখলাম পোস্টটি। আমি আগামীকালই জাদিদ ভাইয়ের বিকাশ নাম্বারে হুন্ডি করে টাকা পাঠাচ্ছি।

১৯ শে জুন, ২০২২ রাত ৯:৩৯

সৈয়দ তাজুল ইসলাম বলেছেন: পদাতিক দা,
আপনি আমাকে সরাসরি কল দেওয়ায় আমি কাভা ভাইকে কল দিলাম। না হলে আমি অন্য দিকে ব্যস্ত থাকতাম। আলহামদুলিল্লাহ আমরা আমাদের গ্রামে ত্রাণ পৌঁছে দিয়েছি। আপনি আপাত আমাকে নিয়ে চিন্তা করবেন না। খবর পেয়েছি আমাদের এলাকার পানি নাকি কমতে শুরু করেছে, যদিও বৃষ্টি চলমান। কিন্তু এখন পর্যন্ত বাড়িতে যোগাযোগ হয়নি! আজ চারদিন যাবত কারেন্ট নেই। বাড়ি থেকে বেরুনোর সুযোগও নেই! বড় অসহ্য রকমের কষ্টে আছে তারা। প্রার্থনায় স্বরণ রাখবেন। আবারো কৃতজ্ঞতা জানবেন।

১২| ১৯ শে জুন, ২০২২ রাত ৮:১৬

লেখার খাতা বলেছেন: পোষ্ট ইস্টিকী হউক।

১৩| ১৯ শে জুন, ২০২২ রাত ৮:১৭

কাল্পনিক_ভালোবাসা বলেছেন: অনেকেই ইতিমধ্যে টাকা পাঠিয়েছেন। আবার অনেকেই পাঠাতে চাইছেন কিন্তু অনুরোধ করেছেন তাদের নাম বা এমাউন্ট প্রকাশ না করার জন্য। আসলে এই ধরনের সম্মিলিত সাহায্য কার্যক্রমে হিসাবের সুবিধার্থে সকল তথ্য সকলের জানা উচিত।

আমরা ইতিমধ্যে ব্লগার ব্লগার সাড়ে চুয়াত্তর, ব্লগার গেঁয়ো ভুত, ব্লগার নিরক্ষক থেকে এই বিষয়ে আর্থিক অনুদান পেয়েছি। মোট আর্থিক অনুদান এখন পর্যন্ত ৯,০০০/- টাকা।

১৪| ১৯ শে জুন, ২০২২ রাত ৮:৫৮

গেঁয়ো ভূত বলেছেন:


পোস্ট টি নিচে চলে যাচ্ছে, স্টিকি করুন প্লিজ।

১৫| ১৯ শে জুন, ২০২২ রাত ৯:০২

কাল্পনিক_ভালোবাসা বলেছেন: আমি আমিনুর ভাইয়ের কাছে প্রস্তবনা চাইছি - ত্রান সামগ্রীর বিষয়ে!

১৬| ১৯ শে জুন, ২০২২ রাত ৯:০৬

কাল্পনিক_ভালোবাসা বলেছেন: পোস্টটি অল্প কিছু সময় পর স্টিকি হবে।

১৭| ১৯ শে জুন, ২০২২ রাত ৯:১৬

আরইউ বলেছেন:




@কাল্পনিক_ভালোবাসা,
— জানিনা বিশুদ্ধ খাবার পানির অবস্থা কী। খাবার পানি খুবই জরুরী।
— চিরা, মুড়ি, আখের গুড় আপদকালীন অবস্থায় খাবার হিসেবে মন্দ নয়। রান্না করার ঝক্কি নেই, তেল-পিয়াজের এক্সট্রা খরচও বাঁচবে।
— বাদাম; খুবই স্বাস্থ্যসম্মত খাবার।
— আপনাদের সাথে শিশুদের উপযোগী কিছু খাদ্য রাখবেন সম্ভব হলে। যদি কোন পরিবারের প্রয়োজন হয়।
— মা-বোনদের জন্য সেনিটারি প্যাড। খুবই দরকারী জিনিস, বিশেষ করে বন্যার মত সময়ে ব্যক্তিগত হাইজিন একটা টপ প্রায়োরিটি। কেউ কেউ লজ্জায় নাও চাইতে পারে, তাই এটা নিয়ে একটু সেনসেটিভ হতে হবে। আগে জেনে নিতে হবে তাদের প্রয়োজন আছে কিনা।

১৯ শে জুন, ২০২২ রাত ১১:৩৬

সৈয়দ তাজুল ইসলাম বলেছেন: কাল্পনিক_ভালোবাসা বলেছেন: ব্লগার আর ইউ, আহমেদ জি এস ভাই এবং আমিনুর ভাই - আপনাদেরকে ধন্যবাদ।

আপনাদের যৌক্তিক আলোচনায় আমার মনে হচ্ছে - শুকনো খাবারের দিকেই আমাদের বেশি মনযোগী হওয়া প্রয়োজন।

সেই ক্ষেত্রে পানি বিশুদ্ধ করার ট্যাবলেট, চিড়া, গুড়, মুড়ি, দিয়াশলাই, মোমবাতি, ওরস্যালাইন ইত্যাদিকে মাথায় রেখে একটা তালিকা যদি আপনারা কেউ প্রস্তাব করতে পারেন, তাহলে খুব ভালো হয়।

১৮| ১৯ শে জুন, ২০২২ রাত ৯:৩২

জোবাইর বলেছেন: @কাল্পনিক_ভালোবাসা, আমাদের অনেক ব্লগার ইউরোপ-আমেরিকায় থাকেন। আমি যতটুকু জানি ইউরোপ-আমেরিকা থেকে Forex, Ria, Small world ইত্যাদি বৈধ এজেন্সীর মাধ্যমে টাকা পাঠানো বিকাশ থেকে অনেক সহজ। এখানে শুধু প্রাপকের পুরো নাম (National identity card-এ যেরকম আছে হুবহু সেরকম) আর মোবাইল ফোন নম্বর প্রয়োজন হয়।

সুতরাং আমার মনে হয় আপনার নাম এবং মোবাইল নম্বর দিলে প্রবাসী ব্লগারদের বন্যার্থদের জন্য টাকা পাঠানো সহজ হবে।
"এই ধরনের সম্মিলিত সাহায্য কার্যক্রমে হিসাবের সুবিধার্থে সকল তথ্য সকলের জানা উচিত।" -সহমত। যেমন কে বা কারা কত টাকা পাঠালেন এবং কোন কোন খাতে কত টাকা খরচ হলো।

ব্লগারদের পক্ষ থেকে এ ধরনের মহতী উদ্যোগের জন্য মডারেটর ও অন্যান্য সবাইকে আন্তরিক ধন্যবাদ।

২০ শে জুন, ২০২২ রাত ১২:৩৩

সৈয়দ তাজুল ইসলাম বলেছেন: কাল্পনিক_ভালোবাসা বলেছেন: জোবাইর ভাই, আপনি যদি এই ধরনের কোন মাধ্যমে টাকা পাঠিয়ে এই ত্রান কার্যক্রমে অংশগ্রহন করতে চান, তাহলে আমাকে অনুগ্রহ করে জানান। যে নাম্বারটি দেয়া আছে, সেটা আমার হোয়াটসআপ নাম্বার। চাইলে সেখানে আমাকে নক দিতে পারেন।
পাশাপাশি, চাইলে আমাকে মেইল ও দিতে পারেন - [email protected]

সেখানে আমি বিস্তারিত তথ্য যুক্ত করতে পারব।

১৯| ১৯ শে জুন, ২০২২ রাত ১০:১০

আহমেদ জী এস বলেছেন: সৈয়দ তাজুল ইসলাম,




মানবিক একটি আহ্বান এবং উদ্যোগ। ব্লগাররা নিশ্চয়ই সাধ্যমতো তাদের সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেবেন বলে বিশ্বাস রাখি।

ব্যবস্থাপনা নিয়ে চমৎকার লিখেছেন। এর সাথে সহব্লগার আরইউ র মন্তব্যের সাথে মিলিয়ে বলি -
বিশুদ্ধ খাবার পানি।
চিড়া, মুড়ি, আখের গুড় ।
বিস্কুট ( টোষ্ট এবং গ্লুকোজ )
ইনষ্ট্যান্ট খাওয়ার ময়দা/আটার রুটি ( বাজারে বসুন্ধরা গ্রুপেরটা দেখেছি। )
খাবার স্যালাইন।
দেশলাই, মোমবাতি ( যেখানে বিদ্যুৎ নেই )

এসব বিবেচনায় নিতে পারেন। রান্নার ঝামেলা থেকে রেহাই দেয়া যাবে। আপনার ত্রান সামগ্রীর লিষ্টের সাথে এসব যোগ হতে পারে আর্থিক দিকটি ভারি হলে। তা অবশ্যই হবে ইনশআল্লাহ ................

১৯ শে জুন, ২০২২ রাত ১১:৩৭

সৈয়দ তাজুল ইসলাম বলেছেন: কাল্পনিক_ভালোবাসা বলেছেন: ব্লগার আর ইউ, আহমেদ জি এস ভাই এবং আমিনুর ভাই - আপনাদেরকে ধন্যবাদ।

আপনাদের যৌক্তিক আলোচনায় আমার মনে হচ্ছে - শুকনো খাবারের দিকেই আমাদের বেশি মনযোগী হওয়া প্রয়োজন।

সেই ক্ষেত্রে পানি বিশুদ্ধ করার ট্যাবলেট, চিড়া, গুড়, মুড়ি, দিয়াশলাই, মোমবাতি, ওরস্যালাইন ইত্যাদিকে মাথায় রেখে একটা তালিকা যদি আপনারা কেউ প্রস্তাব করতে পারেন, তাহলে খুব ভালো হয়।

২০| ১৯ শে জুন, ২০২২ রাত ১০:২৭

মরুভূমির জলদস্যু বলেছেন: ঐ এলাকায় যদি রান্না করার অবস্থা থকে তাহলে তালিকা মোটামোটি ঠিক আছে।
তালিকায় শুকনো খাবার যোগ করা যেতে পারে।
এবং আলুর পরিমান ৪ কেজি করতে পারেন।

২১| ১৯ শে জুন, ২০২২ রাত ১০:৩৭

আরইউ বলেছেন:



আহমেদ চমৎকার কিছু সাজেশন দিয়েছেন। ওনার খাবার স্যালাইনের সাথে সাথে আরো কিছু জরুরী ও প্রয়োজনীয় ওভার দা কাউন্টার ঔষধ রাখতে পারেন যেমন ব্যাথানাশক আইবুপ্রোফেন (বাংলাদেশে প্যারাসিটামল প্রেফারড হতে পারে)।

মশার উপদ্রব থাকলে এক বক্স মাশার কয়েল দেয়া ষেতে পারে।

দেশে পানি বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেট পাওয়া যায়। সস্তা কিন্তু কার্যকর।

১৯ শে জুন, ২০২২ রাত ১১:৩৭

সৈয়দ তাজুল ইসলাম বলেছেন: কাল্পনিক_ভালোবাসা বলেছেন: ব্লগার আর ইউ, আহমেদ জি এস ভাই এবং আমিনুর ভাই - আপনাদেরকে ধন্যবাদ।

আপনাদের যৌক্তিক আলোচনায় আমার মনে হচ্ছে - শুকনো খাবারের দিকেই আমাদের বেশি মনযোগী হওয়া প্রয়োজন।

সেই ক্ষেত্রে পানি বিশুদ্ধ করার ট্যাবলেট, চিড়া, গুড়, মুড়ি, দিয়াশলাই, মোমবাতি, ওরস্যালাইন ইত্যাদিকে মাথায় রেখে একটা তালিকা যদি আপনারা কেউ প্রস্তাব করতে পারেন, তাহলে খুব ভালো হয়।

২২| ১৯ শে জুন, ২০২২ রাত ১০:৫৬

আমিনুর রহমান বলেছেন: ব্লগার আর ইউ চমৎকার কিছু সাজেশন দিয়েছেন এবং জি এস ভাই সাথে কিছু যোগ করেছেন।

আসলে রান্না করার অবস্থা সবার নাও থাকতে পারে এই পরিস্থিতিতে; রান্না করার জন্য শুকনা কাঠ থাকার সম্ভবনা একেবারেই নেই এই মুহুর্তে। শুকনা খাবার আমরা প্রায়োরিটি দিতে পারি।

বিশুদ্ধ খাবার পানির খুবই প্রয়োজন এটা সত্য কিন্তু পানি নিয়ে যাওয়া কঠিন সেক্ষেত্রে আমরা পানি বিশুদ্ধকরন ট্যাবলেট নিতে পারি।
চিড়া, গুড়, খুরমা,বাতাসা, বাদাম (মুড়ি এয়ারটাইট ছাড়া ২/৩ পর আর খাওয়া যাবে না)
খাবার স্যালাইন।
দেশলাই, মোমবাতি ( যেখানে বিদ্যুৎ নেই )


আসলে বন্যার পর আরেকটা ঝক্কি আসবে সিলেট ও সুনামগঞ্জের নিম্নবিত্তদের মাঝে তখন ভারি খাবারের জন্য আমরা নিজেদের এখন থেকেই প্রস্তুত করা শুরু করতে পারি। ১/২ দিনের মধ্যে আমাদের শুকনো খাবারের ব্যবস্থা করে পাঠিয়ে দেয়া উচিত। যতটূকু সম্ভব হয় সেটা ২/৩ দিনের জন্য হলে কিছু মানুষ তো খেতে পারবে আপাতত

১৯ শে জুন, ২০২২ রাত ১১:৩৮

সৈয়দ তাজুল ইসলাম বলেছেন: কাল্পনিক_ভালোবাসা বলেছেন: ব্লগার আর ইউ, আহমেদ জি এস ভাই এবং আমিনুর ভাই - আপনাদেরকে ধন্যবাদ।

আপনাদের যৌক্তিক আলোচনায় আমার মনে হচ্ছে - শুকনো খাবারের দিকেই আমাদের বেশি মনযোগী হওয়া প্রয়োজন।

সেই ক্ষেত্রে পানি বিশুদ্ধ করার ট্যাবলেট, চিড়া, গুড়, মুড়ি, দিয়াশলাই, মোমবাতি, ওরস্যালাইন ইত্যাদিকে মাথায় রেখে একটা তালিকা যদি আপনারা কেউ প্রস্তাব করতে পারেন, তাহলে খুব ভালো হয়।

আমার মনে হয়, আমিনুর ভাই উত্তম প্রস্তাব দিয়েছেন। যা করার দুই এক দিনের মধ্যেই করতে হবে।

২৩| ১৯ শে জুন, ২০২২ রাত ১১:২৪

কাল্পনিক_ভালোবাসা বলেছেন: ব্লগার আর ইউ, আহমেদ জি এস ভাই এবং আমিনুর ভাই - আপনাদেরকে ধন্যবাদ।

আপনাদের যৌক্তিক আলোচনায় আমার মনে হচ্ছে - শুকনো খাবারের দিকেই আমাদের বেশি মনযোগী হওয়া প্রয়োজন।

সেই ক্ষেত্রে পানি বিশুদ্ধ করার ট্যাবলেট, চিড়া, গুড়, মুড়ি, দিয়াশলাই, মোমবাতি, ওরস্যালাইন ইত্যাদিকে মাথায় রেখে একটা তালিকা যদি আপনারা কেউ প্রস্তাব করতে পারেন, তাহলে খুব ভালো হয়।

আমার মনে হয়, আমিনুর ভাই উত্তম প্রস্তাব দিয়েছেন। যা করার দুই এক দিনের মধ্যেই করতে হবে।

বিঃদ্রঃ কিছুক্ষন আগে আরো একজন ব্লগার টাকা পাঠিয়েছেন। তিনি নাম উল্লেখ করেন নি।
তাঁর পাঠানো টাকা সহ মোট ৪ জন ব্লগার থেকে সংগ্রহ ১১,৪০০ টাকা।

২৪| ১৯ শে জুন, ২০২২ রাত ১১:২৮

কাল্পনিক_ভালোবাসা বলেছেন: যিনি নাম না জানিয়ে টাকা পাঠিয়েছিলেন, তার পরিচয় পাওয়া গেছে।
তিনি ব্লগার নতুন।

২৫| ১৯ শে জুন, ২০২২ রাত ১১:৪৫

কাল্পনিক_ভালোবাসা বলেছেন: জোবাইর ভাই, আপনি যদি এই ধরনের কোন মাধ্যমে টাকা পাঠিয়ে এই ত্রান কার্যক্রমে অংশগ্রহন করতে চান, তাহলে আমাকে অনুগ্রহ করে জানান। যে নাম্বারটি দেয়া আছে, সেটা আমার হোয়াটসআপ নাম্বার। চাইলে সেখানে আমাকে নক দিতে পারেন।
পাশাপাশি, চাইলে আমাকে মেইল ও দিতে পারেন - [email protected]

সেখানে আমি বিস্তারিত তথ্য যুক্ত করতে পারব।

২৬| ১৯ শে জুন, ২০২২ রাত ১১:৫২

কালো যাদুকর বলেছেন: anonymously কিভাবে সাহায্য করা যাবে?

২০ শে জুন, ২০২২ রাত ১২:৪৮

সৈয়দ তাজুল ইসলাম বলেছেন: আপনি পোস্টে প্রকাশিত নাম্বারে যোগাযোগ করতে পারেন। অথবা ২৫ নং মন্তব্যে কাভা ভাইয়ের দেওয়া মেইলে ( [email protected] ) যোগাযোগ করতে পারেন।

২৭| ২০ শে জুন, ২০২২ রাত ১২:০২

সত্যপথিক শাইয়্যান বলেছেন:



বন্যার্তদের থাকার জন্যে তাঁবুর দরকার হলে, আমি কিছু তাঁবু দিতে পারবো, ভাই।

পানিতে অনেকের বাড়ি ভেসে গিয়েছে। তাঁদের জন্যে তাঁবু দরকার।

২০ শে জুন, ২০২২ রাত ১২:৫০

সৈয়দ তাজুল ইসলাম বলেছেন: শ্যাইয়্যান ভাই, এই ব্যাপারে আপনি পোস্টে প্রকাশিত নাম্বারে একটু নক করুন প্লিজ। অথবা কাভা ভাইয়ের পক্ষ থেকে আসা মন্তব্যের জন্য অপেক্ষা করুন। ভালই হয় যদি আপনি উনাকে নক করেন।

আপনার আন্তরিকতা সবসময় প্রশংসাযোগ্য। ভালোবাসা জানবেন।

২৮| ২০ শে জুন, ২০২২ ভোর ৪:১৬

সৈয়দ তাজুল ইসলাম বলেছেন: এই মাত্র খবর পেলাম আমাদের গ্রামগুলোর দিকে একাধিক ইঞ্চিন চালিত নৌকা নিয়ে ডাকাতেরা আক্রমণের চেষ্টা করছে! কয়েকটি বাড়িতে আক্রমণের সময় মসজিদের মাইকের সাহায্যে সবাইকে সতর্ক করে দেওয়া হয়। অথচ সকালে পুলিশ এসে বলবেন, সূর্য সুন্দরই উঠেছে। যদিও পুলিশ বাবুদের কথা সত্য।

২৯| ২০ শে জুন, ২০২২ সকাল ৮:৪৮

সৈয়দ মশিউর রহমান বলেছেন: সামান্য কিছু সাহায্য করলাম নগদে Transaction ID 71ANRN49

৩০| ২০ শে জুন, ২০২২ সকাল ৯:২৯

মনিরা সুলতানা বলেছেন: ভীষণ জরুরী এবং মানবিক এই কাজের সাথে একাত্মতা প্রকাশ করছি।

৩১| ২০ শে জুন, ২০২২ সকাল ৯:৪৯

মিরোরডডল বলেছেন:




ঝড় বৃষ্টিতে বিদ্যুৎ না থাকাই স্বাভাবিক । তাই মোম দেয়াশলাইয়ের পাশাপাশি ব্যাটারিচালিত চার্জার বা বড় টর্চ নিলে ভালো হয়। লিস্টে কিছু ফার্স্ট এইড কিট রাখা যায় ।

আমাদের বাংলার ছেলেরা কতো লক্ষ্মী । কি সুন্দর সবাই মিলেমিশে কাজ করছে ।
সকল ভলান্টিয়ারদের জন্য শুভকামনা ।

৩২| ২০ শে জুন, ২০২২ সকাল ৯:৫২

কাল্পনিক_ভালোবাসা বলেছেন: সর্বমোট এখন পর্যন্ত ২১৪০০ টাকা আমরা পেয়েছি।

ব্লগার মিরর এই ফান্ডে, ১০,০০০ টাকা পাঠিয়েছেন
ব্লগার সৈয়দ মশিউর রহমান পাঠিয়েছেন নগদে একটি পরিবারের খরচ পাঠিয়েছেন।
ব্লগার ইফতেফার ভুঁইয়া ৪,০০০ টাকা পাঠিয়েছেন। এই টাকাটির পরিমান ডলার রেটের উপর ভিত্তি করে কিছুটা বাড়তে পারে। টাকাটি ব্যাংকে যুক্ত হবার পর আমি ফান্ডে যুক্ত করে দিবো।

সবাইকে আন্তরিক ধন্যবাদ এবং কৃতজ্ঞতা।

৩৩| ২০ শে জুন, ২০২২ সকাল ১০:৩৪

আহমেদ জী এস বলেছেন: @ কাল্পনিক_ভালোবাসা ,




আপনার বিকাশ একাউন্টে কিছু টাকা এইমাত্র বিকাশ করে পাঠিয়েছি ....... ০৪৪৩ নম্বর থেকে ।
আপনার ফোন " এই মূহুর্তে সংযোগ দেয়া সম্ভব হচ্ছেনা " বলাতে বাধ্য হয়ে এখানে আপনাকে নক করতে হলো বলে দুঃখিত।

৩৪| ২০ শে জুন, ২০২২ সকাল ১০:৫৮

মোঃ মাইদুল সরকার বলেছেন: পোস্টটি ইস্টিকি করার জন্য সামু টিমকে ধন্যবাদ।

সবাই যার যার অবস্থান থেকে সাহায্যের হাত বাড়ান।

৩৫| ২০ শে জুন, ২০২২ সকাল ১১:২৮

কাল্পনিক_ভালোবাসা বলেছেন: @আহমেদ জী এস ভাই, আপনার পাঠানো ৫,০০০/-
@পদাতিক ভাই, আপনার পাঠানো ভারতীয় ১০,০০০ রুপী বাংলাদেশী টাকায় ১১,৩৮০/- টাকা
@শাহ আজিজ ভাই, আপনার পাঠানো ২,৫০০/- টাকা

আমি পেয়েছি।

সব মিলিয়ে এই মুহুর্তে আমাদের সংগ্রহে আছে ৪১,০৬০/- টাকা।

আমরা আগামীকালের মধ্যে আমাদের যে সংগ্রহ হবে, সেটার ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় ত্রান বিতরনে চলে যাবো ইনশাল্লাহ।
স্থানীয় পর্যায়ে আমাদের যোগাযোগ অব্যহত আছে।

৩৬| ২০ শে জুন, ২০২২ সকাল ১১:৪৭

সৈয়দ তাজুল ইসলাম বলেছেন: জাদিদ ভাই, নিপীড়িত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর উদ্দেশ্যে আমাদের এই সংগ্রহ আপাত চালু থাকুক। আগামীকাল পর্যন্ত যা উঠে তা নিয়ে আমরা আপাত আমাদের চিহ্নিত এলাকার বন্যার্তদের পাশে দাঁড়াই। পরবর্তীতে যা উঠে তা নিয়ে আমরা অন্য কোন এলাকার দিকে এগুলাম। এ মুহূর্তে অনেক এলাকায় ত্রাণ যেতে পারছে না। আশা করা যায় পানি নামলে আমরা সেদিকে যেতে পারবো।

৩৭| ২০ শে জুন, ২০২২ দুপুর ১২:৪৩

রাজীব নুর বলেছেন: ভালো উদ্যোগ। সফল হোক।

৩৮| ২০ শে জুন, ২০২২ দুপুর ২:০৬

নজসু বলেছেন:


এই মুহূর্তে আল্লাহর কাছে হাত পাতা ছাড়া আর কিছু করার নেই। আল্লাহ তায়ালা বন্যা কবলিত মানুষের প্রতি রহম করুন, সকলকে নিজ নিজ অবস্থান হতে এগিয়ে আসার তাওফিক দান করুন।

৩৯| ২০ শে জুন, ২০২২ দুপুর ২:৩৯

কাল্পনিক_ভালোবাসা বলেছেন: ব্লগার মিথি মারজান, ১০০০/-
ব্লগার ফয়সাল রকি - ২০০০/- টাকা পাঠিয়েছেন।

৪০| ২০ শে জুন, ২০২২ দুপুর ২:৪০

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: আলহামদুলিল্লাহ একাত্বতা প্রকাশ করছি

৪১| ২০ শে জুন, ২০২২ বিকাল ৩:৪৪

কাল্পনিক_ভালোবাসা বলেছেন: আরো একজন ব্লগার নাম প্রকাশ না করার শর্তে - ১০০০/- টাকা পাঠিয়েছেন।

৪২| ২০ শে জুন, ২০২২ বিকাল ৪:৪৭

কাল্পনিক_ভালোবাসা বলেছেন: একজন ব্লগার নাম প্রকাশ না করার শর্তে ১৬০০ টাকা পাঠিয়েছেন।

৪৩| ২০ শে জুন, ২০২২ বিকাল ৫:০৭

অন্তরন্তর বলেছেন: @ জাদীদ ভাই, আপনার WhatsApp এ আমি একটা মেসেজ করেছি, প্লিজ চেক করে জানাবেন।

৪৪| ২০ শে জুন, ২০২২ বিকাল ৫:২১

কাল্পনিক_ভালোবাসা বলেছেন: একজন ব্লগার নাম প্রকাশ না করার শর্তে ৩,০০০ টাকা পাঠিয়েছেন।
আরো একজন ব্লগার যুক্তরাজ্য থেকে ১২,০০০ টাকা পাঠিয়েছেন।
আরো একজন ব্লগার নর্ডিক দেশ ভুক্ত অঞ্চল থেকে, ১৬,০০০ টাকা পাঠিয়েছেন।
ব্লগার জাফরুল মবীন ভাই , ২০০০/- টাকা পাঠিয়েছেন।
ব্লগার অন্তরঅন্তত আরো কিছু অর্থ সাহায্য পাঠিয়েছেন।

অনেকেই টাকা পাঠাতে চাচ্ছেন। আমি বিনয়ের সাথে জানাচ্ছি, এই মুহুর্তে আর টাকা পাঠানোর প্রয়োজন নেই। আমরা যে এলাকায় ত্রান বিতরন করব, সেখানে যে বাজেট আমরা নির্ধারন করেছি, সেই লক্ষ্য মাত্র আমাদের পূর্ন হয়ে গেছে। অনুগ্রহ করে আপনারা এখন আর টাকা পাঠাবেন না। যদি প্রয়োজন হয়, তাহলে আবার জানানো হবে।

সবাইকে আন্তরিক ধন্যবাদ এবং কৃতজ্ঞতা।

৪৫| ২০ শে জুন, ২০২২ বিকাল ৫:৩৬

কাল্পনিক_ভালোবাসা বলেছেন: ব্লগার জুবায়ের ভাই - ১৬,০০০ টাকা পাঠিয়েছেন। উনার নামটি ভুলে আগের মন্তব্যে যুক্ত করতে পারি নি। তাই এখানে যুক্ত করে দিলাম।

৪৬| ২০ শে জুন, ২০২২ সন্ধ্যা ৬:৩৫

কাল্পনিক_ভালোবাসা বলেছেন: ব্লগার কাজী ফাতেমা ছবি আপা ১,০০০ টাকা পাঠিয়েছেন।

৪৭| ২০ শে জুন, ২০২২ সন্ধ্যা ৬:৫৯

শেরজা তপন বলেছেন: এত দেরীতে আসলাম :(

এমন একটা মহৎ উদ্যোগের জন্য সবাইকে আন্তরিক ধন্যবাদ!

৪৮| ২০ শে জুন, ২০২২ সন্ধ্যা ৭:২৭

খায়রুল আহসান বলেছেন: চমৎকার উদ্যোগ! মানুষ মানুষের জন্য!
ব্লগার সৈয়দ তাজুল ইসলাম এর পরিবারসহ অগণিত বন্যার্ত পরিবারের জন্য আন্তরিক সমবেদনা ও শুভকামনা!
ক্ষয়ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে অনেক সময় লাগবে, কিন্তু আপাততঃ সবার প্রাণটা আগে বাঁচুক! পানি নেমে যাবার পরেও যদি সম্ভব হয়, আরেক দফা ত্রাণ বিতরণের অনুরোধ জানাচ্ছি। আহবান পেলে সে সময়েও সাহায্যের হাত প্রসারিত করবো, ইন শা আল্লাহ!
অল্প সময়ের মধ্যে দেশ বিদেশ থেকে যারা সাহায্যের হাত বাড়িয়েছেন এবং যারা সশরীরে মাঠে নেমেছেন, তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানানোর কোন ভাষা আমার জানা নেই। তবে এটুকু জানা আছে, তাদের এ সহৃদয়তা বৃথা যাবে না।

৪৯| ২০ শে জুন, ২০২২ রাত ৯:৩৬

নীল আকাশ বলেছেন: মন খারাপ হয়ে গেল। আমার শারীরিক অসুস্থাতার কারনে বেশ কিছুদিন ধরে ব্লগে বা অন্য কোনো সোশাল মিডিয়ায় আসা হচ্ছে না। আজকে কিছুটা সুস্থ দেখে এখানে এসে দেখি এটা এসেছে।
যাই হোক আপনাকে ও জাদিদ ভাইকে অসংখ্য ধণ্যবাদ।
আমার নাম্বার আপনাদের দুইজনের কাছে আসে। এরপরের বার সোজা আমাকে কল দেবেন।
আল্লাহ আপনাদের এই মহতী কাজের জন্য উপযুক্ত পুরষ্কার দান করুন।
আমীন।

৫০| ২০ শে জুন, ২০২২ রাত ১০:২৪

কাওসার চৌধুরী বলেছেন:


একটি অতীব জরুরী মানবিক উদ্যোগের জন্য সুহৃদ ব্লগার, সম্মানিত মডারেটর সহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে ধন্যবাদ। স্মরণকালের ভয়াবহতম বন্যায় বিপর্যস্ত পুরো সিলেট বিভাগ। আমার গ্রামের বাড়িতে পানি উঠেছে; সর্বশেষ খবর হলো পানি প্রতিনিয়ত বাড়ছে। ভারতের আসাম, মনিপুর এবং নাগাল্যান্ডে একটানা বৃষ্টিপাত হওয়ায় নতুন করে সিলেটের উত্তরাঞ্চলে পানি বাড়ছে। গত শনিবারের আকষ্মিক অতিবৃষ্টি এবং বন্যায় সিলেট নগরী পানিতে ভেসে গেছে। এতে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন ব্যবসায়ীরা। মাত্র কয়েক মিনিটের ব্যাবধানে কোটি কোটি টাকার মালামাল নষ্ট হয়েছে। চোখের সামনেই আমার চা পাতার দু'টি গোডাউন বিলীন হয়ে গেছে।

সিলেট শহরের একটা বড় অংশে চার-পাঁচ দিন থেকে বিদ্যুৎ নেই, পানি নেই। আর গ্রামের অবস্থা তো কল্পনাতীত খারাপ। কত মানুষ মারা গেছে তার সঠিক কোন পরিসংখ্যান নেই। কত গবাদি পশু ভেসে গেছে সে হিসাব পাওয়া সম্ভব নয়। আমি মানসিকভাবে খুবই বিপর্যস্ত। অনেক পরিশ্রমের একটি উদ্যোগ মাত্র কয়েক মিনিটে ভেসে গেলো।

কাভা ভাইয়ের সাথে দেরীতে হলেও একটু আগে যোগাযোগ হয়েছে। তিনি আগামী কাল রাতে সিলেট পৌঁছাবেন। আমি উনাকে সব রকম সহযোগিতা করতে চেষ্টা করবো। যারা এই উদ্যোগে সামিল হয়েছেন, সহযোগিতার র হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন সবাইকে বৃহত্তর সিলেটের মানুষের পক্ষ থেকে কৃতজ্ঞতা এবং আশীর্বাদ রইলো।

প্রিয় তাজুল ভাইকে ধন্যবাদ এ বিষয়টি ব্লগে শেয়ার করার জন্য।

৫১| ২০ শে জুন, ২০২২ রাত ১১:০৮

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:
মহতী উদ্দ্যোগ,
স্বাগত জানাই।

৫২| ২১ শে জুন, ২০২২ রাত ১:৩০

রোকসানা লেইস বলেছেন: খুব ভালো উদ্যোগ ।
অনেক শুভকামনা ব্লাগারদের সবাইকে

৫৩| ২১ শে জুন, ২০২২ ভোর ৫:৩০

ইফতেখার ভূইয়া বলেছেন: গতকাল রাতেই এই লিখাটা পড়ার সাথে সাথেই সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম যতটুকুই পারি সাথে শরীক হবো। আমি হোয়াটসএ্যাপ ব্যবহার করিনা, ডাউনলোক করে জাদিদ ভাইকে মেসেজ দেয়া হলো। তখন বাংলাদেশে বেশ সকাল হওয়াতে স্বাভাবিভাবেই জাদিদ ভাই ঘুমাচ্ছিলেন, বিরক্ত হতে পারেন ভেবেও নিজে থেকেই কল করলাম। তার সাথে কথা বলার সময় তাকে ফোনে রেখেই এ্যাপ দিয়ে কিছু সাহায্য পাঠাতে চেষ্টা করলাম। হয় নি, ট্র্যান্সেকশান ফেইলড হলো। কিছুটা বিরক্ত বোধ করলেও আমার আসলে দেরী সহ্য হচ্ছিলোনা কারণ সাহায্যটা যত দ্রুত সম্ভব পাঠানো দরকার।

স্বাভাবিক পন্থায় পাঠাতে প্রায় ১৮/২০ ঘন্টা দেরী হবে তাই জাদিদ ভাই ব্যাপারটা বুঝতে পেরে নিজে থেকেই আমার হয়ে ব্যালেন্স যোগ করে আমার নাম (যদিও বানানে সমস্যা আছে=p~, তবুও মাজেজা বুঝতে পেরেছি B-) ) এই লিখায় যোগ করে দিলেন। তখনো তিনি আমার কাছ থেকে কোন টাকা পান নি। ব্যাপারটা আমার ভালো লেগেছে, পাশাপাশি কিছুটা দায়বদ্ধতার অনুভূতিও কাজ করেছে। যাইহোক, অফিস শেষে বের হয়েই সোজা ব্যাঙ্কে যাওয়ার পথে মনে হলো আমার এক বন্ধু কাছাকাছিই থাকে, ওকে বলে দেখি ও কিছু দিতে চায় কি না! ফোন করে জানাতেই, বন্ধু "সহদেব দাস" খুশি মনে রাজি হয়ে গেলো। হাতে ক্যাশ ছিলো না তাই ও আর আমি ব্যাংকে গিয়ে টাকা তুলেই আজ বিকেলে কিছু টাকা পাঠিয়ে দিয়েছি জাদিদ ভাইয়ের কাছে। আমি প্রথমে চার হাজার টাকা দেয়ার প্রতিশ্রুতি করলেও বন্ধুও কিছু পাঠাবে ভেবে দু'জনে সমান ভাবে ভাগ করে মোট ১০,০০০ টাকা পাঠালাম।

এত দ্রুত সময়ে আমার অনুরোধে সাড়া দেয়ার জন্য বন্ধু "সহদেব দাসে"-র প্রতি কৃতজ্ঞতা আর ধন্যবাদ জানাই। সেই সাথে জাদিদ ভাই তথ্য দিয়ে সহায়তার পাশাপাশি এই উদ্যোগে অগ্রণী ভূমিকা পালনের জন্য এবং অন্যান্য যারা প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে সহায়তা করেছেন বা করছেন তাদেরকেও আন্তরিক ধন্যবাদ ও সাধুবাদ জানাই। ধন্যবাদ।

৫৪| ২১ শে জুন, ২০২২ সকাল ৭:৩৪

খায়রুল আহসান বলেছেন: গতরাতে কা_ভা এর সাথে যোগাযোগ করে কিছু টাকা পাঠিয়ে দিয়েছি। Transaction ID: 9FK60OZI9U

৫৫| ২১ শে জুন, ২০২২ সকাল ৯:৪৬

জুন বলেছেন: অত্যন্ত দুঃখজনক এবং মর্মান্তিক এক পরিস্থিতি সিলেট সুনামগঞ্জ সহ অন্যান্য এলাকার। আমার জানা এক দুস্থ পরিবার ঋন করে দুটো ছাগল কিনেছে কোরবানির সময় বিক্রি করবে বলে। এখন বন্যায় ছাগল, মুরগী ধান সব হারিয়ে সামান্য একটু উচু জমিতে সাপের সাথে বসবাস৷ একটি মোমবাতির দাম একশ টাকা।
আগামীতে আপনার প্রচেষ্টার সাথে আছি তাজুল ইসলাম।

৫৬| ২১ শে জুন, ২০২২ সকাল ১০:১৬

নূর আলম হিরণ বলেছেন: ব্লগারদের আন্তরিকতা দেখে সত্যিই ভালো লাগছে। সবাইকে ধন্যবাদ।

৫৭| ২১ শে জুন, ২০২২ সকাল ১০:৩১

কাল্পনিক_ভালোবাসা বলেছেন: ব্লগার খায়রুল ভাই ৪,০০০/-, ব্লগার ইফতেখার ভূইয়া ভাইয়ের একজন বন্ধু ও তিনি সহ মোট ১০,০০০ (পুর্বের ৪,০০০ টাকা সহ) এবং জনৈক ব্লগার নাম প্রকাশ না করার শর্তে ১০,০০০ টাকা এই ফান্ডে যুক্ত করেছেন।

আমি ব্লগারদের অনুরোধ করেছি, অনুগ্রহ করে আপাতত ফান্ডে আর টাকা না পাঠানোর জন্য। আমাদের বাজেটের চেয়ে বেশি টাকা প্রাপ্তি হওয়ায়তে আমরা চেষ্টা করছি আরো কিছু পরিবারকে এখানে যুক্ত করতে।

আমি আজ বিকালে সিলেটের উদ্দেশ্যে রওনা দিচ্ছি। যদি ঢাকা থেকে কেউ আমার সাথে যুক্ত হতে চান, তাহলে অনুগ্রহ করে আমার সাথে দ্রুত যোগাযোগ করুন। সিলেট থেকে কেউ যুক্ত হতে চাইলে আমাকে নাম্বারে ফোন দিন।

আমরা যেন সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করতে পারি, সেই জন্য সকলের শুভ কামনা প্রার্থনা করছি।

৫৮| ২১ শে জুন, ২০২২ সকাল ১০:৩৮

কাল্পনিক_ভালোবাসা বলেছেন: @ ইফতেখার ভূইয়াঃ ভাইয়া সরি! নামের ভুল বানানের জন্য :((

৫৯| ২১ শে জুন, ২০২২ সকাল ১০:৪৬

কালো যাদুকর বলেছেন: কাভা ভাই , একটি দরকারী কাজে উদ্যোগ নেয়ার জন্য অনেক ধন্যবাদ।

৬০| ২১ শে জুন, ২০২২ দুপুর ২:০৮

মিরোরডডল বলেছেন:




কাভা, কাওসার চৌধুরী, আরও যারা বন্যার্ত এলাকায় যাচ্ছে, তাদের সবার জন্য শুভকামনা ।
You guys are champs!
Stay safe there.


৬১| ২১ শে জুন, ২০২২ দুপুর ২:৪২

রবিন.হুড বলেছেন: আগামীকাল ভোর ৪ টায় সিলেটের উদ্যেশ্যে রওনা হওয়ার সম্ভাবনা আছে। সরেজমিনে সিলেটের বানভাসীদের দূর্ভোগ পর্যবেক্ষন করে সাহায্যের চেষ্টা। ( প্রস্তুতি অপ্রতুল)

৬২| ২১ শে জুন, ২০২২ রাত ১০:৩৩

জ্যাকেল বলেছেন: যাক, সকলের অংশগ্রহণ দেখে আনন্দিত। অবশ্য আমি নিজেও বন্যাদুর্গত এলাকার অধীন। সকল শুভানুধ্যায়ী ব্লগারদের আন্তরিক ধন্যবাদ জানাইতেছি।

৬৩| ২২ শে জুন, ২০২২ সকাল ৭:৫২

ইফতেখার ভূইয়া বলেছেন: @কাল্পনিক_ভালোবাসা: সরি বলার মতো কিছুই হয় নি। আপনার সময় আর উদ্যোগের কারণে ক'জন মানুষ হয়তো ক'টা দিন কিছু খেতে পারবে এটা ভেবেই ভালো লাগছে। প্রয়োজনে দ্বিতীয় দফা সহায়তা পাঠানোর জন্য আমি প্রস্তুত আছি। ধন্যবাদ।

৬৪| ২২ শে জুন, ২০২২ সকাল ১১:১৪

ফারহানা শারমিন বলেছেন: ও! আমি তো মাত্র আজকে দেখলাম। আজকে কালকের মধ্যে পাঠাতে পারবো?

৬৫| ২২ শে জুন, ২০২২ দুপুর ১২:১৭

ভুয়া মফিজ বলেছেন: আপনার পরিবারের সবাইসহ এলাকার সবাই ভাল, সুস্থ আছে জেনে শান্তি পেলাম। আগামী দিনগুলোতেও মহান আল্লাহ সবাইকে এভাবেই রাখুন, এই দোয়া করছি।

৬৬| ২২ শে জুন, ২০২২ রাত ৯:১৮

মহিউদ্দিন হায়দার বলেছেন: কিভাবে সম্পৃক্ত হবো ত্রাণ কার্যক্রমে জানালে উপকৃত হবো। অশেষ ধন্যবাদ রইলো এই মহতি উদ্যেগের জন্য।

৬৭| ২৩ শে জুন, ২০২২ ভোর ৫:৪৬

সোহানী বলেছেন: অসম্ভব ভালো লাগছে সামহোয়ার ঠিক আগের মতো হাত বাড়িয়ে দিয়েছে। কৃতজ্ঞতা তাজুলকে সময়ের টানে সঠিক কাজটি করার জন্য। আর জাদিদ, কাওসার, আমিনুল ভাই সহ প্রত্যেককেই জানাই অশেষ ধন্যবাদ। এজন্যই আমরা একটি পরিবার, সামহোয়ার পরিবার।

৬৮| ২৩ শে জুন, ২০২২ সকাল ৯:৪১

আহমেদ জী এস বলেছেন: সৈয়দ তাজুল ইসলাম,




ইচ্ছে করলেই মানুষ যে অনেক কিছু পারি, এই ছবিগুলো তারই জ্বলন্ত প্রমান।

আপনাকে , জাদিদকে , কায়সার চৌধুরীকে অন্তরের ভেতর থেকে উঠে আসা শুভেচ্ছা জানাচ্ছি।

সামু এমনি করেই ভালো কিছুর জন্যে সবসময় প্রস্তুত থাকুক, সেই কামনা করছি।

৬৯| ২৩ শে জুন, ২০২২ সকাল ১০:৩৬

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: জাদিদ আর কাউসার ভাইয়ের জন্য এত্তগুলা ভালোবাসা

৭০| ২৩ শে জুন, ২০২২ দুপুর ১২:৪৫

হাসান কালবৈশাখী বলেছেন:
খুব ভালো উদ্যোগ।
কাউসার ভাই ও জাদিদ ভাইদের অংশগ্রহণ দেখে আনন্দিত।

৭১| ২৩ শে জুন, ২০২২ দুপুর ২:৫৫

স্বপ্নের শঙ্খচিল বলেছেন: এই প্রচেষ্টা ও উদ্যোগ এবং বাস্তবায়নের সহিত সংশ্লিষ্ট (কাভা ভাইসহ )
সকলকে আমার আন্তরিক শুভেচ্ছা , অভিনন্দন জানাই ।

..........................................................................................
আমি দেরীতে জানার কারনে ও স্বাস্হ্যগত সমস্যার কারনে
মনের ইচ্ছা পুরণ করতে পারলাম না ।

৭২| ২৪ শে জুন, ২০২২ দুপুর ১:৫০

রিফাত হোসেন বলেছেন: খুব ভালো উদ্যোগ।

৭৩| ২৬ শে জুন, ২০২২ সকাল ৯:০০

শামছুল ইসলাম বলেছেন: চমৎকার উদ্যোগ।

৭৪| ২৬ শে জুন, ২০২২ দুপুর ১:৩৬

আখেনাটেন বলেছেন: আপনাদের অসংখ্য ধন্যবাদ অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জন্য। যাঁরা কখনও স্বেচ্ছাসেবকের কাজ করেন নি তাঁরা কোনো দিনও বুঝবেন না যে কী পরিমাণ ত্যাগ, তিতিক্ষা, ইচ্ছাশক্তি লাগে এসব কাজে। আমরা হয়ত সামান্য অর্থ সহযোগিতা করতে পারি, কিন্তু রিয়াল হিরো হচ্ছে যাঁরা মাঠে থাকেন ও নানা প্রতিকূলতার মাঝে কাজ করতে হয় তাঁরা...স্যালুট।

৭৫| ২৬ শে জুন, ২০২২ বিকাল ৪:১৬

চিন্তক মাস্টারদা বলেছেন: এই মহৎকাজে যুক্ত প্রত্যেকের প্রতি ভালোবাসা।
ব্লগার জাদিদ ও কাওসার চৌধুরীকে ধন্যবাদ। দেরিতে আসার কারণে অনেক কিছু ছুটে গেলো। তারপরও আপনাদের কার্যক্রম দেখে ভালো লাগলো।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.