নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

সম্পদহীনদের জন্য শিক্ষাই সম্পদ

চাঁদগাজী

শিক্ষা, টেকনোলোজী, সামাজিক অর্থনীতি ও রাজনীতি জাতিকে এগিয়ে নেবে।

চাঁদগাজী › বিস্তারিত পোস্টঃ

লিখলেই সাহিত্যক হয়ে যায় না, ছন্দ মিলাতে পারলেই কবি হয় না

২০ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ সকাল ৮:৩৭



আজকাল, কবি নজরুল ইসলাম কিংবা রবী ঠাকুরের জন্মদিন ও মৃত্যু-বার্ষিকীতে খুব একটা পোষ্ট আসে না; ব্লগার নুরু সাহেব অবশ্য অনেকটা রাষ্ট্রীয় দায়িত্ব পালনের মতো 'ফুলেল শুচেচ্ছা জানান'। অনেকের পোষ্ট পড়ে সহজে বুঝা যায় না, কবি নজরুলের কথা লিখছেন, নাকি রবী ঠাকুরের কাহিনী বলছেন; অনেকে বুদ্ধি করে ছবি দেন, তাতে মোটামুটি কুল রক্ষা হয়।

এই সপ্তাহে এক কবির মৃত্যুতে হঠাৎ করে, অনেক অনেক পোষ্ট আসার শুরু করেছিলো, এবং যাঁরা মৃত কবিকে নিয়ে এত পোষ্ট ছাড়ছিলেন, তাঁরা কবি নজরুল ইসলাম, বা রবী ঠাকুরকে নিয়ে কোনদিন লিখতে আমি দেখিনি; ফলে, আমার কৌতুহল বেড়ে গেলো; যেই কবিকে নিয়ে এরা এত লিখছেন, আমার কাছে সেই কবির নামই ছিলো পুরোপুরি অজানা। আমার পঠিত কবিতার সংখ্যা খুব একটা বেশী নয়; আমি আসলে, ব্লগে আসার পর, বেশী বেশী কবিতা পড়েছি। আমি কবি নজরুল ইসলাম, কিংবা রবী ঠাকুরের কবিতা খুব একটা বেশী পড়িনি; তবে, উনাদের উপর অনেক বক্তৃতা শুনেছি, এবং ধরে নিয়েছি যে, উনারা পন্ডিত ব্যক্তি, আসলেই বিশাল বিশাল কবি।

আমার চোখের সমস্যার কারণে, আমি আজীবন সাহিত্য, মাহিত্য কম পড়েছি; কবিতা আরো কম পড়েছি; আমি খুঁজে টুঁজের বের করলাম যে, মধুসুদন দ্ত্ত সবার চেয়ে কমই লিখেছেন, ও কম কথায় অনেক কথা বলতে পেরেছেন; তাই ফাঁকি জুকি দিয়ে উনারটাই পড়েছি মোটামুটিভাবে।

এই সপ্তাহে মৃত কবিকে নিয়ে যারা লিখেছেন, তারা কবি'র কাব্য টাব্য নিয়ে তেমন কিছু লিখেননি; বেশী জোর দিয়েছেন, মৃত কবিকে কেন শহীদ মিনারে নেয়া হয়নি, প্রেসিডেন্ট কেন বাণী দেয়নি, রাষ্ট্রীয় মর্যদায় কেন দাফন করা হয়নি, ইত্যাদি ইত্যাদি। আমি ধরে নিয়েছি যে, ইহা নিশ্চয় মুনতাসির মামুন বা ঐ ধরণের কেহ নন, হয়তো। তবে, এত বেশী পোষ্ট আসছিলো যে, আমি নিজেও একটা পোষ্ট দিয়ে দিলাম; ভাবলাম, যা হোক না হোক কিছু কমেন্ট তো পাবো; আসলে, ঘটলোও তাই; গোটা ৪০/৪৫টা কমেন্ট এসে গেলো সুর সুর করে।

সবকিছু ভালোই চলছিলো, কিন্তু ১টা কমেন্টে একটা ভিডিও এলো, আমি উহার সামান্য অংশ দেখলাম; আমার গায়ে যেন আগুন লেগে গেলো; আমি গালি দেয়ার শুরু করলাম তথাকথিত কবি'কে; এই ছন্দ মিলানো লোক, আমাদের মুক্তিযুদ্ধকে, আমাদের জাতিকে অপমান করেছে তার বক্তব্যে; আমি দেখলাম, ইহা কবি নয়, ইহা বাংগালী নয়, ইহা মানুষও নয়।

যেই কবির নামে এত পোষ্ট এসেছিলো, উনার ২ লাইন কবিতা এক ব্লগার উনার নিজের পোষ্টে যোগ করেছিলেন, উহা পড়েছি; সোভাগ্য যে, গালি দিতে দিতে ঐ ২ লাইন ভুলেও গেছি।

মন্তব্য ৪৬ টি রেটিং +৪/-০

মন্তব্য (৪৬) মন্তব্য লিখুন

১| ২০ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ সকাল ৯:০৮

স্রাঞ্জি সে বলেছেন:


আপনি প্রায় পোস্টে চোখের সমস্যা বলেন_তো ব্লগে এসে এত ম্যাওপ্যাও করেন কোন চোখ দিয়ে_চোখ সমস্যা আপনার একটা ট্যাবু হয়ে দাঁড়িয়েছে_

বর্তমানে শুধু কবি নই_একটা কুকুর মরলেও লোকে আফসোস করে কিছু লিখার আপ্রাণ চেষ্টায় ব্রত হন ভার্চুয়ালের পর্দায়_

২০ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ দুপুর ২:১০

চাঁদগাজী বলেছেন:


আমার চোখের সমস্যা বরাবরই ছিলো; তবে, গত ২ বছর উহা এমনভাবে বেড়েছে যে, আপনি নিজের থেকেই টের পাবার কথা

২| ২০ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ সকাল ১০:৩৯

বিচার মানি তালগাছ আমার বলেছেন: এটা ঠিক যে, বেশীরভাগই কবির সাহিত্য চর্চার চেয়ে বেশী জোর দিয়েছেন রাষ্ট্রীয় মর্যাদা না পাওয়ার বিষয়ে। বেশীরভাগই আসলে কবির লেখা তেমন একটা পড়েনি। আসলে এটা আমাদের জাতিগত সমস্যা। সব কিছু নিয়েই আমরা ফেসবুক, ব্লগে বিপ্লব করি...

২০ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ দুপুর ২:১৪

চাঁদগাজী বলেছেন:


আমার সাহিত্য জগত ব্লগ ঘিরে, বাংলাদেশের অনেক লেখক, অনেক কবির কিছুই পড়ার সুযোগ হয়নি আমার; তবে, মৃত-কবি আমাদের জাতির জল্লাদদের গুণগান করে গেছে এই বাংলার বাতাসে নিশ্বাস নিয়ে।

৩| ২০ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ সকাল ১১:০৫

স্বপ্নীল ফিরোজ বলেছেন: হক কথা ব‌লে‌ছেন স্যার।

২০ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ দুপুর ২:১৫

চাঁদগাজী বলেছেন:


উনাকে কবি বলায় আমার গায়ে আগুন লেগে গিয়েছিল; ভালো যে, উনাকে জানতাম না, জানার দরকারও হয়নি

৪| ২০ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ সকাল ১১:৪২

ঢাবিয়ান বলেছেন: আল মাহমুদের কবিতা আমাদের পাঠ্য পুস্তকেও আছে।অথচ আপনি তার নামই শোনেন নাই,আবার সেইটা মাইক বাজিয়ে জানান দিচ্ছেন এবং একজন স্বনামধন্য কবিকে অপমান করে একের পর এক পোস্ট দিয়েই যাচ্ছেন !!!! সামুর আসলে কিছুটা হলেও মডারেশন করা উচিৎ পোস্ট।যে হারে আবর্জনাময় পোস্ট সর্বাধিক লাইক, সর্বাধিক পঠিত হয় এই ব্লগে সেটা কন্ট্রোল করা উচিৎ।

২০ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ দুপুর ২:৫৮

চাঁদগাজী বলেছেন:



আপনারও পাঠ্য পুস্তক ছিলো?

৫| ২০ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ দুপুর ১২:৪১

হাসান কালবৈশাখী বলেছেন:
আল মাহমুদকে নিয়ে যারা লাফাচ্ছে
তাদের বড় একটি অংশ সরাসরি জামাত-শিবিরের সমর্থক বা অনুসারী।
কারনটা স্পষ্ট।
একমাত্র কবি আল মাহমুদই প্রকাশ্যে গোলামআজম বন্দনা সরাসরি করত, লিখতো।

আর সবচেয়ে বড় দলটা হচ্ছে যাদের কম বয়সে জামাত/শিবির কর্তৃক মগজধোলাই (ব্রেনওয়াশ) হয়েছিল।
এরা ছোটকালে অন্ধভাবে পাকিস্তান ক্রিকেট দল সমর্থক ছিল। এখন প্রকাস্যে পারে না। আছে, মনে মনে।
একটু বড় হয়ে ৩০ লাখ কে অন্ধভাবে ৩ লাখ বলে চিল্লাচিল্লি করে গেছে।
বর্তমানে এদের কয়েকজন সোসাল মিডিয়ায় দুএক লাইন কবিতা লিখে কথিত সেলিব্রেটি হয়ে গেছে।
এখন সাহিত্যে আল মাহমুদকে নিয়ে পাতার পর পাতা লিখছে। লিখে যাচ্ছে।

২০ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ দুপুর ২:২৫

চাঁদগাজী বলেছেন:


পাকিস্তান, আফগানিস্তান, সিরিয়ায় মানুষ থেকে অমানুষ বেশী জন্মেছে, বাংলাদেশে ওদের বীজ আছে।

৬| ২০ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ দুপুর ১:০৪

রাফা বলেছেন: সৈয়দ বংশের আল মাহমুদের দালালদের জন্য লিখেছিলাম।

২০ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ দুপুর ২:২১

চাঁদগাজী বলেছেন:


ওসব কীট পতংগ গরুর গোবর নিজের থেকেই খুঁজে নেয়।

৭| ২০ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ দুপুর ১:১৪

রাজীব নুর বলেছেন: এসএলআর ক্যামেরা থাকলেই ফোটোগ্রাফার হয়ে যায় না।

২০ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ দুপুর ২:২৪

চাঁদগাজী বলেছেন:


বিশ্বে এখন ছবির থেকে পর্ণ বেশী; তারপরও ক্যামেরা সভ্যতাকে ধারণ করে রাখছে সব প্রজন্মের জন্য

৮| ২০ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ দুপুর ১:১৭

রাজীব নুর বলেছেন: আপনাকে অনুরোধ করবো আল মাহমুদ এর কাবিলের বোন এবং উপমহাদেশ উপন্যাসটি দু'টি পড়ার জন্য।

দয়া করে আবার রেগে যাবেন না।

২০ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ দুপুর ২:২৮

চাঁদগাজী বলেছেন:


আমি বানরের চেঁচামেছি ইত্যাদি পছন্দ করি না, বানর প্রকৃতিতে আছে, সেটা প্রকৃতির ব্যাপার।

৯| ২০ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ দুপুর ১:১৯

রাজীব নুর বলেছেন: মানে এই দুইটা বই পড়লে হয়তো আপনার রাগ কিছুটা কমবে।

২০ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ দুপুর ২:২৯

চাঁদগাজী বলেছেন:


মানুষের লেখা পড়তে হয়, অমানুষের নামও মনে রাখতে হয় না

১০| ২০ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ দুপুর ১:৪৫

রানার ব্লগ বলেছেন: আল মাহামুদ কে নিয়ে জামাত শিবিরের বাচ্চারা গড়া গড়ি খাচ্ছেন, খান না কে মানা করছে, আল মাহমুদ লেখক হিসেবে শুদ্ধ ছিলেন। তাকে ধর্মিয় কবি বানানর অপচেষ্টা জামাত শিবির করে কারন তাদের কোন কবি নাই। তারা একজন কবি খুজতেছিল আল মাহমুদ কে তারা পেয়ে গেল। আল মাহমুদের দুইটা তিনটা কবিতা পরে তারা তাকে জামাতি তকমা দিয়ে দিল, আল মাহামুদের যৌন রসাত্মক অনেক বড় গল্প আছে। জামাত শিবিরের আল মাহমুদ কে নিয়ে নাচা নাচি মানে হল নাই মামার থেকে কানা মামা ভাল।

কবি সে কিন্তু প্রথমে মানুষ, কবিরা বিশুদ্ধ হন। বিদ্রহি কবিতা লিখে নজরুল কে কাফের নাস্তিক উপাদি পেতে হয়েছিল। এতে নজরুলের কোন কেশ গুচ্ছ ছেড়া যায় নাই। ঠিক তেমনি আল মাহমুদ এর একটা দুইটা কবিতা তাকে তকমাধারি বানিয়ে দিল এটা কেমন কথা। আর পতিতার শুরে শুর মেলালে সে যে পতিতার দালাল হয়ে যাবে এমন তো না।

২০ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ দুপুর ২:৩৩

চাঁদগাজী বলেছেন:


কে কি করছে, সেটা একটা ব্যাপার; বড় ব্যাপার হলো, উহা নিজ মুখে এই জাতির বিপক্ষে কথা বলেছে, এই জাতির গণ-হত্যাকারীদের সুনাম করেছে; সে কি করে এই বাংলায় বসে বালছাল লিখেছে, সেটাই বড় বিষয়।

১১| ২০ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ দুপুর ২:২৪

নিমচাঁদ বলেছেন: সেইদিন আর বেশী দূরে নয় যেদিন লাশ দাফনের আগে তার রাজণীতিক পরিচয় নির্ধারিত হবে , তারপর সিদ্ধান্ত হবে লাশ দাফন হবে না পানিতে ভাসানো হবে । এরা হলো গায়ে মানে না আপনি মোড়ল টাইপের আনপেইড চিহ্নিত দলাল ,আর কিছু কলমপেষী মুক্তিযোদ্ধা ----যারা গত ত্রিশ বছর যাবত , বংগবন্ধুর চাইতে ঢের বেশী আওয়ামী লীগ , আর খালেদ মোশাররফের চাইতে অনেক বড় মুক্তিযোদ্ধা । আল মাহমুদ জামায়াত ছিলো নাকি শিবির ছিলো , সেটা তার বই টই পড়েন , পড়ে দ্যাখেন ( অবশ্য যদি দলীয় বৃত্তি আপনাদের হাটুর জিনিশ মগজে না চলে গিয়ে থাকে , তবে অনুধাবন কিছুটা করতে পারবেন , নচেৎ ছাগলের জোড়া শীমের বিচি হয়েই সারাজীবন বাচিতে হইবে ) । আমার বাপের গায়ের সাথে গা লাগাইয়া ৭১ সালে যুদ্ধ করছে এমন কয়জন বীর মুক্তিযোদ্ধা ছিলো যারা খাইতে না পাইয়া , ৭২/৭৩ সালে চুরি ডাকাতি করছে , তাই বইলা কি তাদের যুদ্ধের অবদান তাদের মৃত্যুর সাথে সাথে কবরে চলে যাবে ? আর আল মাহমুদ যদি জামায়াত করেও থাকে , তাতে কি তার কবিত্ব কে অস্বীকার করা যাবে ? হ্যা অনেকেই করবে , যারা এই দেশের গনতন্ত্র এবং রাজণীতিকে কলুষিত করতেছে । সেটা গুটি কয়েক লোক। জাফর ইকবাল ৭১ সালে খাটের তলায় লুকাই ছিলো , বাট সে এখন মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের লোক আর আল মাহমুদ রাজাকার । নজরুল ' আমি ভগবানের বুকে একে দেই পদ চিহ্ন ' যেমন লিখছেন , তার চাইতে বেশী লিখছে্ন হামদ আর নাত । তিনি কালী পূজা করতেন এটা আমার দেখা না , তার সাথের অনেকেরই দেখা আর লেখা ইতিহাস এইটা । যে রোগে উনার বাক রুদ্ধ হয়ে যায় , শোনা যায় সেটা ছিলো যৌনরোগ সিফিলিস ।
কিন্ত বংগবন্ধু উনাকে জাতীয় কবি করার সময় শুধুমাত্র বিবেচনায় এনেছিলেন তার খাটি কবিত্ববোধকে । নেতার মতো ভাবতে শিখলে দলের অনেক উপকার হয় -- কীটসের সময়ে ইংল্যান্ডের রাজা কে ছিলো এটা এখন কেউ জানতে চায় না শিখতে আগ্রহ বোধ করেনা , কিন্ত ৪০০ বছর পরেও মানুষজন কীটস পড়ে এবং পড়বে ।
লোকজন ২০০ বছর পরে রবীন্দ্রনাথ , নজরুল , জীবনানন্দ পড়লে সেই সাথে সোনালী কাবিনের কবিকেও পড়বে ।

২০ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ দুপুর ২:৫৯

চাঁদগাজী বলেছেন:


গার্বেজ উৎপন্ন করাই কি পেশা?

১২| ২০ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ বিকাল ৩:০১

পাঠকের প্রতিক্রিয়া ! বলেছেন: সামু নাকি এখন কালো তালিকাভুক্ত? তা মেরিকান চটি লেখক আজ কি প্রসব করিয়াছে!
ও আল ম্যাহমুড!!! ওই হারামিকে নিয়ে এত কাঁসুন্দি ঘাঁটার কি আছে???


পুনশ্চঃ
যেই লোক 'কংকাবতী রাজকন্যাকে আজও চিনতে পারেনি, তাঁর ঘিলু আর কতটুকুই বা হবে!!!' :P

২০ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ বিকাল ৩:১৩

চাঁদগাজী বলেছেন:


কংকাবতী কন্যা নামে একটা নিক ছিলো? কিংবা কংকাবতী কন্যা নামে সিরিজ পোষ্ট কে দিয়েছিলেন?

১৩| ২০ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ বিকাল ৩:১৬

পাঠকের প্রতিক্রিয়া ! বলেছেন: কন্যা না মিয়া, রাজকন্যা। ওটা শায়মারই মাল্টি নিক। প্রোপিক দেখেই বোঝা যায়..:D এই জন্যই তো বলি, আপনার মগজ কম।


এসব বিতর্কিত গর্বেজ পোস্ট লিখে আলোচিত পেজে যাবার কোন মানে হয়?X(

২০ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ বিকাল ৫:২৪

চাঁদগাজী বলেছেন:


জাতিতে কি পরিমাণ গার্বেজ তৈরি হয়েছে, সেটা আপনি নিরুপণ করতে পারবেন না।

১৪| ২০ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ বিকাল ৩:৩২

নীলপরি বলেছেন: আমি ব্লগে অনিয়মিত ছিলাম । তাই এই বিষয়ে পোষ্ট পড়া হয়নি ।

২০ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ বিকাল ৫:২৬

চাঁদগাজী বলেছেন:


বাংলার বুকে অমানুষের সংখ্যা ইঁদুরের মত বাড়ছে।

১৫| ২০ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ বিকাল ৪:০২

টোনাল্ড ড্রাম্প বলেছেন: সংস্কৃত শব্দ থেকে উৎপন্ন "ভীমরতির" শব্দটার সঙ্গে বয়স কিংবা বয়স অনুযায়ী আচরণের সম্পর্ক প্রকাশ করা হয় । ভীমরতি শব্দের আভিধানিক ও প্রচলিত অর্থ কা-জ্ঞানহীনতা, অতি বার্ধক্যজনিত বুদ্ধিভ্রংশতা। ভীম মানে ‘ভীষণ’ আর রতি মানে ‘রাত্রি’ অর্থাৎ ‘ভীষণ রাত্রি’। ভীমরতি মূলত একটি বিশেষ্য পদ বা বয়স প্রকাশজনিত একটি শব্দ । যার অর্থ বৃদ্ধ বয়সে বুদ্ধি-ভ্রষ্ট দশা। অনুরূপ, চালশেও বয়স প্রকাশজনিত একটি শব্দ । মানুষের চোখের দৃষ্টি কমে আসার প্রমাণ স্পষ্ট থেকে স্পষ্টতর হয়ে উঠতে শুরু করে বয়স চল্লিশ পার হলে। এ সময় মানুষ দৃষ্টি শক্তি স্বাভাবিক রাখার জন্য চশমা পরতে শুরু করে। বয়স সত্তর পার হওয়াকে বলে ‘বাহাত্তুরে’। এই বয়সে অন্যান্য শারীরিক সমস্যার সাথে মস্তিস্কে গোলমাল শুরু হয়ে যায় । আস্তে আস্তে তার স্বাভাবিকতার বিঘ্ন ঘটে। বাহাত্তুরের কিছু পরে শুরু হয় ভীমরতি ।


নোটঃ আমাদের চাঁদ আঙ্কেলের বয়সের একটু আগেই ভীমরতি উঠেছে তো তাই উনি ব্লগে কিছু 'ছক্কা-পাঞ্জা' বা 'চামচিকের লাথি' মার্কা পোস্ট প্রসব করেন। উল্লেখ্য "ভীমরতি" একটি মানসিক সমস্যা যেটার শুরু হয় যখন কোন ব্যক্তির তার নিজের কাছ থেকে ক্ষমতা, অর্থ-বিত্ত, সন্মান, পুরুষত্ব ইত্যাদি হাতছাড়া হতে থাকে তখন অর্থাৎ মোটা কথায় সমাজের মধ্যে কারো গ্রহণযোগ্যতা কমতে থাকলেই মানুষের ভীমরতি পেয়ে বসে।

২০ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ বিকাল ৫:২৭

চাঁদগাজী বলেছেন:


ইডিয়টদের জন্যও ব্লগ খোলা আছে, আপনার কম্প্যুটার আপনাকে চেনে না, টাইপ করতে থাকেন।

১৬| ২০ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ বিকাল ৫:২৯

গড়ল বলেছেন: মন্তব্য করার মত কিছু পেলাম না কারণ আমিও আল মাহমুদকে চিনতাম না। না চিনে না জেনে মন্তব্য করা ঠিক না, ঐ ভিডিওর লিংক থাকলে দিবেন দয়া করে।

২০ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ বিকাল ৫:৩৭

চাঁদগাজী বলেছেন:


ঐ লেখক আমাদের জাতির '৭১ সালের গণতহ্যাকারীদের সুনাম করেছে তার বক্তৃতায়; আমার পোষ্টে কে একজন ঐ ইডিয়টের ছবি যোগ করাতে পোষটা মুছে দিয়েছি, লিংক রাখিনি।

১৭| ২০ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ বিকাল ৫:৩১

পবন সরকার বলেছেন: চাঁদগাজী ভাই, কবি সাহিত্যিকদের সব লেখাই খারাপ নয় তাদের কিছু কিছু ভালো লেখাও আছে, আপনি রাজীব নুরের কথা অনুযায়ী বই দুটা সংগ্রহ করে পড়ে দেখেন ভালো লাগবে।

২০ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ বিকাল ৫:৪০

চাঁদগাজী বলেছেন:


আমার জাতির বিপক্ষে কথা বললে, আমি তাকে রাস্তার শুকরের চেয়ে অধম মনে করি; আমি রাজিব নুর নই, আমি শুকরের আওয়াজ শুনতে চাই না।

১৮| ২০ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ বিকাল ৫:৩৮

নজসু বলেছেন:




ভেড়ার পালের ভিতর নেকড়ের ছবিটা আমি (যখন পোষ্টে ছবিটা দেন) মনোযোগ দিয়ে ৩/৪ মিনিট দেখি।

২০ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ বিকাল ৫:৪১

চাঁদগাজী বলেছেন:


এটা বাংলাী সমাজের জাতীয় ছবি

১৯| ২০ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ রাত ১০:১৬

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:
না বুঝে,লেখা না পড়ে
গদবাধা তির্যক মন্তব্য করলে
যেমন আতেঁল হওয়া যায়না।

২১ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ভোর ৫:৩৬

চাঁদগাজী বলেছেন:


চেষ্টা করে দেখি

২০| ২০ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ রাত ১১:২৪

গুলশান কিবরীয়া বলেছেন: টাইটেল পড়ে মনে হয়েছে লেখক বেশ ভালো সাহিত্য বোদ্ধা, কিন্তু লেখা পড়ে জানলাম লেখক চোখের সমস্যার কারনে বাংলাসাহিত্যের মেজর অংশ পড়া থেকে বঞ্চিত। কাজেই নির্ভুল ভাবে বোঝা যাচ্ছে যে, লেখক কে সাহিত্যিক এবং কে নয় সেটা বোঝার মত ক্ষমতা রাখে না, তারপরও ঝোড় গলায় সাহিত্যিকদের নিয়ে প্রায়ই সমালোচনা করেন এবং কুরুচিপূর্ণ ভাষার ব্যবহার করে আলোচনার বিষয়বস্তু হতে চান। such a shame!!



২১ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ভোর ৫:৩৫

চাঁদগাজী বলেছেন:



আপনি ৩ চোখে বেশী করে পড়েন, একদিন ঠিকই প্রশ্নফাঁস করতে হবে আপনাকে।

২১| ২১ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ সকাল ৭:৩৭

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন: গুলশান কিবরীয়া বলেছেন: কুরুচিপূর্ণ ভাষার ব্যবহার করে আলোচনার বিষয়বস্তু হতে চান। such a shame!!

ভেড়ার পাল দিয়ে হাল চাষ করলে যা হয় !!

২১ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ সকাল ৮:৩৫

চাঁদগাজী বলেছেন:


উনি হয়তো প্রশ্নফাঁস জেনারেশনের একজন; উনি কি লেখেন, আমার মনে পড়ছে না; আপনি কি লেখেন আমার মনে থাকে।

২২| ২১ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ রাত ১০:১৭

এম এম করিম বলেছেন: এইটা পড়েন। চোখে আরাম পাবেন।

কবি আল মাহমুদের কতটা সম্মান প্রাপ্য?

২২ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ভোর ৬:৫৬

চাঁদগাজী বলেছেন:


আল মাহমুদ গার্বেজ ছিলো

২৩| ২২ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ সকাল ৮:০৪

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন:
সকলেই কবি নয়, কেউ কেউ কবি।

২২ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ বিকাল ৩:৩৮

চাঁদগাজী বলেছেন:



আল মাহমুদ ইডিয়ট ছিলো

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.