নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

সম্পদহীনদের জন্য শিক্ষাই সম্পদ

চাঁদগাজী

শিক্ষা, টেকনোলোজী, সামাজিক অর্থনীতি ও রাজনীতি জাতিকে এগিয়ে নেবে।

চাঁদগাজী › বিস্তারিত পোস্টঃ

বাংলাদেশীরা ভারতে ধর্মীয়করণ কম দেখতে চান

২১ শে মে, ২০১৯ ভোর ৬:০৪



আগামী বৃহস্পতিবার ভারতের পার্লামেন্ট (লোকসভা) ভোটের রেজাল্ট বের হবে; সারা দেশে একদিনেই ভোট গণনা করা হবে, ও ফলাফল প্রকাশ করা হবে; মনে হচ্ছে, বাংগালাদেশীরা মৌদীর পুর্নবিজয় চাচ্ছেন না; মুল কারণ, বিজেপি'র ধর্মীয়করণ। আবার, বাংলাদেশের যারা ভারতে মোদী ও তার দলের ধর্মীয়করণ চাহে না, এদের বড় অংশই বাংলাদেশে মদীনা সনদ ও শরিয়াহ আইনের পক্ষে!

পাকিস্তান ও বাংলাদেশের তরুণদের মাঝে ধর্মের প্রভাব বাড়ছে, ভারতেও তরুণদের মাঝে ধর্মের প্রভাব বাড়ছে; সেদিক থেকে দেখলে, পুরো ভারত উপমহাদেশের জন্য ইহা একটি নতুন বিষয়, ধর্মীয় পুর্ণ-জাগরণ। কিন্তু সামান্য সমস্যা আছে, ধর্মীয় হলেও, এরা পরস্পরের বিপক্ষে অবস্হান নেবে।

ভারতে এতদিন একটি সুবিধা ছিলো, সনাতন ধর্মের প্রচার নেই, নতুন করে অন্য ধর্মের লোকজনকে সনাতন ধর্মে নেয়ার জন্য ধর্মীয় নিয়ম নেই; কেহ যদি অন্য ধর্মের লোকজনকে সনাতন ধর্মে দীক্ষিত করে, ধর্ম তাকে পুরস্কৃত করবে না; কিন্তু ইসলামে কেহ যদি অন্য ধর্মের মানুষকে ইসলামে আনতে পারে, সে সৃষ্টিকর্তা কর্ত্তৃক পুরস্কৃত হবে। বিজেপি'র লোকেরা অন্যদের হিন্দুধর্মে আনতে উৎসাহী নয়; তবে, তারা বলছে, তাদের ধর্মীয় সমাজে অন্য ধর্মের লোকেরা শান্তির জন্য হুমকী।

বিজেপি'র লোকদের এই মনোভাব একদিন বড় সমস্যার সৃষ্টি করতে পারে; কারণ, ভারতে বর্তমানে ২২ কোটী মুসলমান, অনেক খৃষ্টান ও বৌদ্ধ ধর্মালম্বী আছেন। শিখেরা ঠিক হিন্দু নন, তবে বিজেপি তাদের ধর্মকে নিজেদের ধর্মের সম্পুরক হিসেবে ভাবে।

এবারের নির্বাচনে ভারতের কিছু মানুষ বিজেপি'র ধর্মীয়করণের বিপক্ষে ভোট দিয়েছেন; তবে, এরা গতবার বিজেপি'কে ভোট দিয়েছিলেন উন্নয়নের পক্ষে; এবার তাদের মোহ কেটে গেছে; বিজেপি উন্নয়ন করেছে, তবে, সাথে সাথে ধর্মের একটা স্বাক্ষরও রেখেছে।

ভারতে অতীতে ভোট গণনা নিয়ে কোনরূপ সমস্যা হয়নি; এবার ১ম বার, কংগ্রেসের কেহ কেহ ও মমতা ব্যানার্জী ভোটিং মেশিনের রেজাল্ট নিয়ে শংকা প্রকাশ করছে; এরা বলছে যে, সরকারে থাকা বিজেপি'র লোকেরা ভোটিং মেশিনে গন্ডগোল করে দিতে পারে।

মন্তব্য ৩৮ টি রেটিং +৩/-০

মন্তব্য (৩৮) মন্তব্য লিখুন

১| ২১ শে মে, ২০১৯ ভোর ৬:২৭

স্বামী বিশুদ্ধানন্দ বলেছেন: বাংলাদেশের ভোটারদের সঙ্গে ভারতীয় ভোটারদের মূল পার্থক্য হলো ভারতীয়রা ভোটাররা ক্ষমতায় বসানোর সময় কোন পার্টি দেশের এবং জনগণের সবচাইতে বেশি উন্নয়ন করবে তা নিয়ে চিন্তা করে | কোন পার্টি মৌলবাদী বা কোন পার্টি সমাজবাদি এসব তাদের সর্বোচ্চ প্রায়োরিটি নয় | মোদী ও তার দল ধর্মীয় মৌলবাদী এবং রেসিস্ট হয় সত্বেও দেশের লোকদের জন্য তুলনামূলকভাবে বেশি কাজ করেছে এবং নির্বাচনে তাই প্রায়োরিটি পেয়েছে | বাংলাদেশের জনগণ এখনো সেই মাচ্যুরিটি অর্জন করে নাই বা তাদেরকে সেই ম্যাচুইরিটি অর্জন করতে দেয়া হয় নাই |

২১ শে মে, ২০১৯ সকাল ৭:০১

চাঁদগাজী বলেছেন:


বাংলাদেশের মানুষের সমস্যাগুলো ভয়ংকর জটিল হয়ে গেছে, এগুলো সমাধান করতে হলে বৈপ্লবিক পদক্ষেপ নিতে হবে, সোজা কোন সমাধান নেই

২| ২১ শে মে, ২০১৯ সকাল ৭:০৭

পথিক প্রত্যয় বলেছেন: ভারতে কোন দল সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাবে না। ভারতের মানুষ অনেক বেশি সচেতন ।
আবেগ আর ঐতিহাসিক ধাপ্পাবাজির সুযোগ খুব একটা নাই

২১ শে মে, ২০১৯ সকাল ৮:৩৬

চাঁদগাজী বলেছেন:



ওদের ব্যুরোক্রেসী ও ইলেকশান কমিশন সরকার থেকেও শক্ত।

৩| ২১ শে মে, ২০১৯ সকাল ৭:০৯

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: ধর্মভিত্তিক রাজনীতি উপমহাদেশের বারোটা বাজাবে।

২১ শে মে, ২০১৯ সকাল ৮:৩৮

চাঁদগাজী বলেছেন:


এবার বিজিপি সরকার গঠ করবে, মনে হচ্ছে! মুসলমানরা চাকুরী ও ব্যবসায়ে কোণঠাসা হবে; কাশ্মীরের ভোগান্তি বাড়বে।

৪| ২১ শে মে, ২০১৯ সকাল ৮:১৩

দেশ প্রেমিক বাঙালী বলেছেন: ধর্মীয় উগ্রতা একদিন সবকিছুকেই তছনছ করে দেবে।

২১ শে মে, ২০১৯ সকাল ৮:৩৯

চাঁদগাজী বলেছেন:



বাংলাদেশে যেভাবে অপ্রয়োজনীয় ধর্মীয় বলয় গড়ে উঠছে, সেটা থেকে অনুমান করা সম্ভব।

৫| ২১ শে মে, ২০১৯ সকাল ১০:৫২

মোঃ ইকবাল ২৭ বলেছেন: কংগ্রেস যদি সরকার গঠন করতে পারে সেটিই হবে ভারতের জন্যে সঠিক সরকার। আবার কংগ্রেস সরকার গঠন করতে পারলে শুধু হবে না, বিজেপি কে দমন করতে হবে, কারণ আমরা বিগত দিনে দেখেছি বিজেপি বিরোধী দলে থেকে কিভাবে হিন্দু মুসলিম দাঙ্গা বাধিয়ে দেশে যে অরাজগতা সৃষ্টি করেছিল।গুজরাটের দাঙ্গার কথা নিশ্চয় ভারতবাসী কখনো ভূলবে না।

২১ শে মে, ২০১৯ বিকাল ৫:২৪

চাঁদগাজী বলেছেন:


কংগ্রেস এবার সরকার গঠনের সম্ভাবনা কম; কংগ্রেস সরকার গঠন করতে পারলে, অপেক্ষাকৃতভাবে ভালো হতো; তবে, ভারত চালায় ভারতের ব্যুরোক্রেটরা।

বিজেপি'কে দমন করতে পারবে না কেহ, সনাতন ধর্ম হলো আনন্দের বিষয়, এই ধর্ম ৫০০০ বছর চলে আসছে, পৃথিবীর শেষ অবধি এই ধর্ম থাকবে।

৬| ২১ শে মে, ২০১৯ দুপুর ১২:২৫

অগ্নিবেশ বলেছেন: পার্শ্ববর্তী দেশগুলিতে ধার্মিকের সংখ্যা বাড়ছে, মুমিনদের তো উল্লাস করা উচিত।

২১ শে মে, ২০১৯ বিকাল ৫:২৬

চাঁদগাজী বলেছেন:


বিজেপি যদি দাংগা না বাধায়, ভারতের জন্য ধর্ম খারাপ নয়, হিন্দু ধর্ম আনন্দের ধর্ম, মানুষের ইচ্ছানুসারে বদলাতে পারে, সময়ের সাথে বদলে যায়।

৭| ২১ শে মে, ২০১৯ দুপুর ১২:৫০

আপেক্ষিক মানুষ বলেছেন: আপনি কি ধর্মকে সমর্থন করেন?

২১ শে মে, ২০১৯ বিকাল ৫:২৮

চাঁদগাজী বলেছেন:


না, ধর্ম আদি মানুষের আবিস্কার; রাজতন্ত্রের পতনের পর, ইহার ভুমিকা আর নেই।

৮| ২১ শে মে, ২০১৯ দুপুর ১২:৫৫

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: ভারতের বর্তমান প্রেক্ষাপটে নরেন্দ্র মোদির সমতুল্য নেতামনে হয় এখনো হয়নি। উনার বিরোধীদের আরো পরিপক্ক হতে হবে। তবে এক্সিট পোল অনেক সময় সত্য হয় না। ফলাফল আগে প্রকাশিত হোক।

২১ শে মে, ২০১৯ বিকাল ৫:২৯

চাঁদগাজী বলেছেন:


মোদীর দলের সীট কমে আসবে, কোয়ালিশন সরকার হবে।

৯| ২১ শে মে, ২০১৯ দুপুর ১:২৮

রাজীব নুর বলেছেন: মোদী হলো একজন ধর্মীয়উন্মাদ।

২১ শে মে, ২০১৯ বিকাল ৫:৩০

চাঁদগাজী বলেছেন:



হিন্দু ধর্ম হলো আনন্দের ধর্ম; বিজেপি উহাকে রাজনীতিতে এনে নিরানন্দ করে ফেলেছে।

১০| ২১ শে মে, ২০১৯ দুপুর ১:৩৮

মেঘ প্রিয় বালক বলেছেন: ভারতে মোদী সরকার পুনরায় আসলে ধর্মীয় ফ্যাসাদ ঝগড়া বাড়বে।

২১ শে মে, ২০১৯ বিকাল ৫:৩২

চাঁদগাজী বলেছেন:


বিজেপি অন্য ধর্মীয়দের ভোট পায় না; ফলে, তারা অন্যদের উপর ক্ষেপছে ক্রমেই

১১| ২১ শে মে, ২০১৯ দুপুর ২:৩৯

ঢাবিয়ান বলেছেন: বাংলাদেশী্দের ভারতে কে আসল কে গেল তাতে কিছুই যায় আসে না । তবে বাংলাদেশ সরকারের মনে হয় কিছুটা যায় আসে। আপনার এই সং্ক্রান্ত ঘন ঘন পোস্ট দেখে সেটা মনে হচ্ছে।

২১ শে মে, ২০১৯ বিকাল ৫:৩৪

চাঁদগাজী বলেছেন:


ঘনঘন পোষ্ট দিচ্ছি, যাতে বুঝতে পারেন যে, আপনার প্রতিবেশী দেশে বিশ্বের সবচেয়ে বড় ভোট হয়; আপনি তো ফেসবুক নিয়ে ব্যস্ত থাকেন, দুনিয়ার খবর নেই।

১২| ২১ শে মে, ২০১৯ বিকাল ৩:২৪

বিচার মানি তালগাছ আমার বলেছেন: বাংলাদেশীরা মননে অগণতান্ত্রিক। তাই একই লোককে ৩০/৩৫ বছর ধরে নির্বাচিত করে...

২১ শে মে, ২০১৯ বিকাল ৫:৩৭

চাঁদগাজী বলেছেন:


শেখ হাসিনা, বেগম জিয়া, এরশাদ মিলে বাংগালীদের ভেঁড়া বানিয়ে ফেলেছে।

১৩| ২১ শে মে, ২০১৯ বিকাল ৩:৪৮

হাসান রাজু বলেছেন: ভারতীয়রা যতদিন ননহিন্দুদের বিশেষ করে মুসলমানদের সাথে ঝামেলায় থাকবে তত দিন তারা নিজেরা ভাল থাকবে। যেদিন মুসলমানরা ক্ষেমা দিবে বা রণভঙ্গ দিবে সেদিন থেকে ভারতীয়রা নিজেরা নিজেরা ধর্ম, জাতি, গোত্র, বর্ণ নিয়ে যুদ্ধে লিপ্ত হবে।

২১ শে মে, ২০১৯ বিকাল ৫:৪০

চাঁদগাজী বলেছেন:


ভারত নিজেদের মাঝে বর্ণবাদী; তাদের এই সমস্যা স্বয়ং তাদের ঈশ্বরের সৃষ্টি

১৪| ২১ শে মে, ২০১৯ বিকাল ৫:০০

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: ভারতের জাতিয় নির্বাচন নিয়ে এবার বাংলাদেশিদের তেমন কৌতূহল ছিল না।

২১ শে মে, ২০১৯ বিকাল ৫:৩৬

চাঁদগাজী বলেছেন:



বাংগালীরা রাজনৈতিক দিক থেকে অনেকটা হতাশ ও নিস্ক্রিয় হয়ে যাচ্ছে; এরা এখন শ্রমিক মৌমাছিতে পরিণত হয়েছে।

১৫| ২১ শে মে, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:১৬

শান্তির দেবদূত বলেছেন: সারা বিশ্বেই উগ্রপন্থা বৃদ্ধি পাচ্ছে, সেটি ধর্মের নামেই হোক আর জাতীয়তাবাদের নামেই হোক। সে হিসাবে ভারতে মোদি সরকারই ক্ষমতায় আসার কথা। মানুষ এখন স্বস্তা আবেগ দ্বারাই বেশি প্রভাবিত হয়।

মজা লাগছে, আমাদের মিডিয়ার লম্ফজম্ফ দেখে। নিজের দেশের ইলেকশনের তেরটা বাইজা গেছে সেদিকে খবর নাই, মাসের পর মাস পইড়া আছে ভারতের ইলেকশন নিয়া। যাক, তাও কিছু করে খেতে তো হবে!

আগামীর পৃথিবীতে মনে হচ্ছে বড় সমস্যা হয়ে দেখা দিবে উগ্রবাদ। দুঃশ্চিন্তার বিষয়।

২১ শে মে, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:৪২

চাঁদগাজী বলেছেন:


ধর্ম থেকে জা্তীয়তাবাদ বড় সমস্যা হতে পারে; ধর্ম ক্রমেই বিজ্ঞানের প্রভাবে স্তিমিত হয়ে যাবে; কিন্তু জাতীয়তাবাদ জাতিগুলোগুলো আলাদা আলাদা দ্বীপে পরিণত করবে। তবে, জাতীয়তাবাদের ফলে, যদি জাতিগুলোর উন্নয়ন হয়, তখন পরস্পরের সাথে প্রতিযোগীতা কমে আসবে।

আমাদের মিডিয়ায় প্রফেশানেল লোকজন নেই।

১৬| ২১ শে মে, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:৫৯

শান্তির দেবদূত বলেছেন: ধর্ম ক্রমেই বিজ্ঞানের প্রভাবে স্তিমিত হয়ে যাবে - মনে হয় না এমনটা হবে। ৫/৬ শ বছর আগে ইউরোপের রেনেসার সময় বিজ্ঞানের যে যাত্রা শুরু হয়েছিল তখনই ভাবা হয়েছিলো ধর্মের দিন শেষ। প্রায় দেড়শ বছর আগে ডারইউনিজমের আবির্ভাবের কারণে মনে হয়েছিলো এইবার ধর্মের কফিনে শেষ পেরেক ঠুকা হয়ে গেছে। কিন্তু বাস্তবে তাকালে দেখা যাবে ধর্মের প্রভাব আরও বেড়েছে। আমার মনে হয় বিজ্ঞানের অগ্রগতির ফলে ধর্মের প্রভাব কমবে না। বরং ধর্মগুলোই যুগের সাথে তাল মিলিয়ে আপডেট হয়ে অভিযোজিত হতে থাকবে। আর ধর্ম/জাতীয়তাবাদ যেহেতু আবেগের বিষয় এখানে যুক্তি, বিজ্ঞান দিয়ে বিচার করা অবান্তর।

২১ শে মে, ২০১৯ রাত ৮:২৪

চাঁদগাজী বলেছেন:


শুধু জুডাইজম ও সনাতন হিন্দু ধর্ম বিজ্ঞানের সাথে তাল মিলিয়ে জীবিত থাকবে; খৃষ্টান ধর্ম এখন সামাজিক ক্লাবে পরিণত হয়েছে। এখন ইসলাম বিজ্ঞানকে কোরানের অংশ হিসেবে প্রমাণ করার জন্য উঠে পড়ে লেগেছে; মানুষকে বাঁচার জন্য বিজ্ঞানকে কাজে লাগাতে হবে, আগের মানুষের ভাবনাকে তারা ধরে রাখতে পারবে না।

১৭| ২২ শে মে, ২০১৯ দুপুর ১:২৯

গড়ল বলেছেন: ধর্মই যত অধর্মের মূল।

২২ শে মে, ২০১৯ রাত ৮:৫৯

চাঁদগাজী বলেছেন:


ধর্ম যদি সভ্যতার সাথে তাল মিলাতে না পারে, এবং ইহার প্রভাব যদি মানুষের উপর থাকে, সেসব মানুষ পেছনে পড়ে যাবে সব সময়।

১৮| ২২ শে মে, ২০১৯ বিকাল ৫:৫৬

মাহমুদুর রহমান বলেছেন: ধর্ম থেকে জা্তীয়তাবাদ বড় সমস্যা হতে পারে; ধর্ম ক্রমেই বিজ্ঞানের প্রভাবে স্তিমিত হয়ে যাবে;

হে হে হে।দেখা যাবে।

আচ্ছা বলুন তো পৃথিবীর কোন ধর্মে বলা আছে তুমি নিরপরাধ মানুষ হত্যা করো, নির্যাতন করো?বলতে পারবেন।হ্যা আপনি বলবেন ঝড়্রবগে।এটা আপনার স্বভাব।তবে বাস্তবতা আপনার চিন্তাভাবনা অথবা ধারনা থেকে সম্পূর্ণ ভিন্ন।মোদী তার ধর্মের নাম দিয়ে যে সব অধর্মের কাজ করছে তাতে ভারতীয় লোকজনই বলছে ওকে জুতাপেটা করতে।

২২ শে মে, ২০১৯ রাত ৯:০১

চাঁদগাজী বলেছেন:


ধর্মে সুন্দর বাণী দেয়া হয়েছিল, কিন্তু সেসব বাণী সভ্যতার চাকা ঘুরায় না; সভ্যতাকে সামনে নিচ্ছেন মানুষ, যারা ধর্মকে সামনে নিচ্ছেন না সমান তালে।

১৯| ২২ শে মে, ২০১৯ রাত ১১:২৭

মাহমুদুর রহমান বলেছেন: ধর্মে সুন্দর বাণী দেয়া হয়েছিল, কিন্তু সেসব বাণী সভ্যতার চাকা ঘুরায় না
ধর্ম আছে বলেই এই সভ্যতা আজও টিকে আছে।খ্রিষ্টান ধর্মে কি বলা আছে মানুষ হত্যা করো?নাই কিন্তু পশ্চিমারা মানুষ হত্যা করছে, মিয়ানমারের বুদ্ধিস্ট্রা মানুষ হত্যা করছে তাঁদের ধর্মে কি বলা আছে ?নেই ।এই জন্যই তারা অসভ্য বর্বর জাত হিসেবে পরিচিতি লাভ করছে।তারা ধর্মের সাথে তাল মিলাতে পারছে না বলেই আজ তাঁদের এই দুর্দশা ।

২২ শে মে, ২০১৯ রাত ১১:৩৯

চাঁদগাজী বলেছেন:


পশ্চিমে মানুষ মরছে ক্যাপিটেলিজমের কারণে; সিরিয়া ও ইয়েমেনে মরছে ধর্মের কারনে।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.