নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

সম্পদহীনদের জন্য শিক্ষাই সম্পদ

চাঁদগাজী

শিক্ষা, টেকনোলোজী, সামাজিক অর্থনীতি ও রাজনীতি জাতিকে এগিয়ে নেবে।

চাঁদগাজী › বিস্তারিত পোস্টঃ

সরকারের লোকদের ভাবনাশক্তি আসলে খুবই সীমিত!

১০ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:১০



মগের বাচ্চারা আগে ছিলো দলদস্যু, বাংলার উপকুল ও নদী-তীরবর্তী গ্রামগুলোতে লুতরাজ চালাতো, গরীবদের গরু-ছাগল, ছেলেমেয়েদের ধরে নিয়ে যেতো; এখন তাদের হাতে আধুনিক অস্ত্র, তারা নিজেদের লোককে আক্রমণ করছে, রোহিংগাদের উপর গণহত্যা চালিয়েছে; বাংলাদেশ এখন ১২/১৩ লাখ রোহিংকে বস্তির বাংগালীদের চেয়ে ভালো অবস্হায় লালন পালন করছে। একমাত্র আফ্রিকান দেশ গাম্বিয়া ব্যতিত অন্য কেহ মগের মুল্লুকের বিপক্ষে আইনী ব্যবস্হা নেয়নি। আজকে শুনানী হচ্ছে হেগে, আরো ২ দিন হবে।

এই সপ্তাহে , আমি কোথায় যেন পড়েছিলাম, আমাদের সেনা-প্রধান নাকি মগের মুল্লুক যাচ্ছেন ২ দেশের সেনাবাহিনীর মাঝে সম্পর্ক উন্নয়ন করতে! এই জেনারেল কি জেনারেল জিয়ার সমাধানের কথা শোনেননি, উহা টিকেছিলো? এই যীশু-ষ্টাইল-ব্রাদারহুড তো আমার মথায় ঢুকছে না, আপনাদের কারো মাথায় ঢুকছে? মগের মুল্লুকের মিলিটারীর কাছে বাংলাদেশ মিলিটারীর শিখার কি আছে, ভ্রাতৃত্বের কি আছে? শিখার মাঝে হয়তো একটা বিষয় থাকতে পারে, পরে রোহিংগাদের বাংলাদেশ থেকে কি করে বের করতে হবে! নাকি শেখ হাসিনা পলিটিক্যাল সমাধানের ব্যাপারে হতাশ হয়ে গেছেন?

রোহিংগারা নিজেরাই মগের মুল্লুকের মানুষ, পেছনেপড়া এক নিষ্ঠুর ও সাংস্কৃতিকভাবে অপরাধ-প্রবণ জনগোষ্ঠী; এরা বিপদে পড়ে প্রান বাঁচাতে বাংলাদেশে এসেছে, কিন্তু ওদের চালচলনে কৃতজ্ঞতা নেই, বনাগগালীদের প্রতি সন্মান নেই। আমি ওদেরকে কয়েক যায়গায় কথা বলতে দেখেছি, এরা একবারও বাংগালীদের ধন্যবাদ দেয়নি।

হেগে, মগের মুল্লুকের প্রতিনিধি হিসেবে গেছেন, সুচি,না মুছি নামে কি একটা আছেন না, নোবেল পুরস্কার টুরস্কারও পেয়েছিলেন! মিলিটারীর বিপক্ষে কথা বলার কারণে, পচিম মনে করেছিলো যে, উহার বিবর্তন ঘটেছে; এখ দেখা যাচ্ছে, উনি মিলিটারীর পক্ষে, মগের বাচ্ছা বদলায় না। কিছু মানুষ জীবনেও পুরো মানুষ হয় না। আমাদের ব্লগেও বেশ কিছু পলিটিকো আছেন, উহারা মিলিটারী শাসনের প্রশংসা করে থাকেন; এগুলো আসলে ভাবনাশক্তিহীন পন্ডিত।

যেখানে গাম্বিয়া আমাদের ও রোহিংগাদের পক্ষে কথা বলছেন, আমাদের জেনারেলের এই অপ্রয়োজনীয় ভ্রমণ কিছুদিন পরে হলে কি চলতো না; কিংবা, ইহা কি বাতিল করা যায় না? অপেক্ষা করার দরকার আছে, পর্যবেক্ষণ করার দরকার আছে।

মন্তব্য ৬৯ টি রেটিং +৭/-০

মন্তব্য (৬৯) মন্তব্য লিখুন

১| ১০ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:২৯

হাবিব স্যার বলেছেন: আসলে সিমীত রাখতে বাধ্য করা হয়; মনে হয়। কারন কয়েকদিন আগে রাজশাহীতে রাষ্ট্রপতি মহোদয় তেমনটাই বলেছিলেন।

১০ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:৫২

চাঁদগাজী বলেছেন:


রাজশাহীতে আবদুল হামিদ সাহেব দুষ্টদের অনুরোধ করেছেন খাবারে ভেজাল ও কেমিক্যাল না মিশাতে; কিন্তু কোন পদক্ষেপ নেয়ার কথা বলেননি।

২| ১০ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:৫১

আসোয়াদ লোদি বলেছেন: উপনিবেশিক আমলে শিক্ষা-দীক্ষার জন্য কেউ কেউ বিলাত যেত। দেশে ফিরে আসলে বলা হত বিলাত ফেরত। জেনারেল সাহেব বার্মা যাচ্ছেন, ফিরে আসলে তাকে বার্মা ফেরত বলা ছাড়া আর কী বলা যাবে।

১০ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ৯:৫৩

চাঁদগাজী বলেছেন:



ভাবনাশক্তিহীন জেনারেল।

৩| ১০ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:০০

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: +++++(

১০ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:৩৫

চাঁদগাজী বলেছেন:


কোন কিছুতে প্ল্যানিং নেই, মাথায় যা আসে, সেটা করে সরকারের লোকেরা

৪| ১০ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:০৪

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




বার্মা তথা মিয়ানমার সেনা শাসনের দেশ তাই বাংলাদেশের সেনাপ্রধান গেছেন তাদের সাথে মত বিনিময় করার জন্য। যদি নিজেরা নিজেরা এই সমস্যার সুরাহা করা যায়। চাঁদগাজী ভাই আমি আপনার বার্মা সম্পর্কিত পূর্বের পোষ্টে বলেছি বাংলাদেশ বার্মা দুই দেশের রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান করতে পারেন বিশ্বের একটি মাত্র দেশ আর সেই দেশের নাম বার্মা। তাই বাংলাদেশ সরকারের উচিত হবে বার্মার সাথেই কথা বলা। অযথা বিশ্বে ডাকঢোল পিটিয়ে লাভ হবে না। পুরাতন একটি কথা আছে “সমস্যা যেখানে সমাধান সেখানে”।

১০ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:৩৮

চাঁদগাজী বলেছেন:


সমাধান জেনরেল জিয়াও করেছিলো: জেনারেল জেনারেল ভাই ভাই ।

৫| ১০ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:৪০

জাতির বোঝা বলেছেন: সরকার জুলাই মাস থেকে যে নিয়মটি চালু করেছে সেই নিয়ম অনুযায়ী কেউ যদি বিদেশ থেকে 100 টাকা ব্যাংকিং চ্যানেল মারফত পাঠায় তাহলে দেশে কবে 102 টাকা। এই নিয়মটি শ্রমিকদের জন্য উপকারী হবে। তবে আমি মনে করি 2% না দিয়ে এটাকে 5% করা উচিত ।
অনেক মানুষই তো সরকারি টাকা লুটেপুটে খাচ্ছে। হলমার্ক কেলেঙ্কারি সহ নানান ভাবে সরকারের টাকা লুটেপুটে খাচ্ছে। সেখানে শ্রমিকদেরকে যদি একটু প্রণোদনা দেওয়া হয় তাহলে বৈদেশিক মুদ্রার ভান্ডার আরো মজবুত হবে। প্রণোদনা দেওয়া হয় সেটা জাতির জন্য ভালো।

১০ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:৪৯

চাঁদগাজী বলেছেন:



বাংলাদেশকে কি শ্রমিকদের দেশ মনে হয়? ৬০% শ্রমিক ভুমিহীন

৬| ১০ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:৪৫

রাজীব নুর বলেছেন: বাঘের বাচ্চা এলে কুকুরের বাচ্চাগুলির সাবধান হওয়ার কথা, কিন্তু এখানে কুকুরেরা বাঘও চেনে না। ফলে...

১০ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:৫১

চাঁদগাজী বলেছেন:


সরকারের লোকেরা কিছু একটা করে ফলাফল দেখে, ওরা অগ্রিম ফলাফল জানে না।

৭| ১০ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ১১:০৩

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: সুচি মুচি কে আমার কাছে কখনোই বড় কোন নেতা মনে হয়নি। বাপ নেতা ছিল । পয়সাওয়ালা ছিল । সেই সুবাদে অক্সফোর্ডে পড়েছেন।
আর তাকে যে নোবেল শান্তি পুরস্কার দেয়া হয়েছে সেটাও কোন যোগ্যতার উপর ভিত্তি করে দেওয়া হয়নি । সামরিক শাসন ছিল বিধায় শান্তি পুরস্কার এর ভোটাভুটিতে আমেরিকার সমর্থনের কারণে একটু বেশি বেড়ে গেছে।

সুচিকে আমার কাছের ডাইনি বুড়ি মনে হয়।

১০ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ১১:১৩

চাঁদগাজী বলেছেন:


মগের মুল্লুকে মানুষ জন্মায়নি কোনদিন

৮| ১০ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ১১:৫৫

ডঃ এম এ আলী বলেছেন:
শুভেচ্ছা সফরে যাওয়ার সময় এটি নয় ।
প্রশ্ন ফাাঁশ জেনারেশন কবে থেকে শুরু হয়েছে
তা ভাবনার বিষয় ।

১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ১২:০২

চাঁদগাজী বলেছেন:


হবু রাজ্যে গবু মন্ত্রী

৯| ১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ১২:০১

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:
শৈশবে ব্রহ্মদৈত্য, শাঁকচুন্নি, গেছোভূত, মেছোভূতের সমস্ত গল্প যখন শেষ হয়ে যায়, তখন মাঝে মাঝেই ‘মগরাজা’, ‘মগ জলদস্যু’, আর মগ গুপ্তধনের রোমহর্ষক গল্পের অবতারণা হয়। এসব গল্পের কেন্দ্রীয় চরিত্রে থাকে কিছু লাল জোব্বা পরা পাগড়িওয়ালা ডাকাবুকো মানুষ। এদেরই বলা হতো মগ।
মগদস্যুদের চরম নৃশংসতা কবির ভাষায়ঃ
‘ফিরিঙ্গির দেশখান বাহে কর্ণধারে
রাত্রিতে বহিয়া যায় হার্মাদের ডরে।’
রাখাইনরা সুদীর্ঘকাল ধরে তাদের আবাসভূমিকে ‘রাখাইন প্রে’ নামে ডাকত। পরে ইংরেজরা দখল করে এ রাষ্ট্রকে ‘রাকান’ নামে সম্বোধন শুরু করে। এভাবে ‘রাকান’ শব্দের আগে ‘আ’ যুক্ত হয়ে তা হয়ে যায় ‘আরাকান’। রাখাইন দেশের জনগণ ‘আরাকানিজ’ নামে অভিহিত হয়। আরাকানই বর্তমান মায়ানমার।

বিভিন্ন ঐতিহাসিক সূত্রমতে, খ্রিস্টপূর্ব ৫ থেকে ৬ হাজার বছর আগে এই অঞ্চলে নিগ্রিতা ও দ্রাবিড়িয়ান জনগোষ্ঠী বাস করত। পরে আর্য ও মঙ্গোলীয়রা এখানে বসবাস শুরু করে। এক সময় দ্রাবিড়িয়ানরা নিগ্রিতাদের এ অঞ্চল থেকে বিতাড়িত করে। দ্রাবিড়িয়ানরা আবার সভ্য আর্য ও মঙ্গোলীয়দের দ্বারা বিতাড়িত হয়। ফলে এ অঞ্চলে টিকে থাকা সভ্য আর্য জনগোষ্ঠী ও মঙ্গোলীয়দের সংমিশ্রণে এক সময় সৃষ্টি হয় রাখাইন জাতির।

সময়টি অষ্টাদশ শতাব্দীর চতুর্থ থেকে শেষ দশক পর্যন্ত। সে সময় আরাকান অঞ্চলটি ছিল ব্যাপক বিদ্রোহ, হত্যা ও ক্ষমতা দখলের দ্বন্দ্বমুখর এক বিপর্যস্ত রাজ্য। অষ্টাদশ শতকের শেষ দিকে নিজ আমলাদের চক্রান্তে আরাকানের তৎকালীন স্বাধীন রাজা বার্মার রাজা বোদোফায়ার কাছে যুদ্ধে পরাজিত হন। ফলে বর্মীরা আরাকান দখলে নেয়। বর্মী সেনারা সে সময় অসংখ্য আরাকানি নারী-পুরুষ গ্রেপ্তার করে স্ত্রীলোকদের বার্মায় পাঠিয়ে দেয় এবং পুরুষদের হত্যা করতে থাকে।
বর্মীরা আরাকানের মহামুনি বুদ্ধমূর্তি তাদের রাজধানী মান্দালয়ে নিয়ে যায়। এতে ক্ষোভে ফেটে পড়ে আরাকানবাসী। তারা বর্মী দখলদারদের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করে। বিদ্রোহ দমনে বর্মী বাহিনী নির্মম অত্যাচার চালায়। ফলে জীবন বাঁচাতে দেশ ছাড়ে ।
রাখাইনদের অনেকেই ‘মগ’ বলে থাকে। কিন্তু রাখাইনরা নিজেদের ‘মগ’ বলতে রাজি নয়। ফারসি শব্দ ‘মুগ’ থেকে ‘মগ’ নামের উৎপত্তি। মুগ অর্থ অগ্নি উপাসক। ধারণা করা হয় আরাকানের আদিবাসীরা জড় উপাসক ছিল। এ বিষয়ে গবেষক সতেন্দ্রনাথ ঘোষাল মনে করেন সংস্কৃত শব্দ ‘মগদু’ থেকে ‘মগ’ শব্দের উৎপত্তি। মগদু অর্থ জলদস্যু। তার মতে, আরাকানে কতিপয় লোক পর্তুগিজদের সঙ্গে একত্রিত হয়ে পূর্ব বাংলার উপকূলীয় অঞ্চলে লুটতরাজ চালাত। তাই তাদের ডাকা হতো ‘মগদু’ নামে। কালক্রমে এই মগদু বিকৃত হয়ে ‘মগ’ রূপ ধারণ করে।

১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ভোর ৪:৪১

চাঁদগাজী বলেছেন:



পর্তুগীজ জলদস্যউরা ছিলো ভয়ংকর, ইউরোপের অমানুষদের গার্বেজ।
মগ'রা আসলে মানুষের ভেতরে পড়ে না; সেইজন্য চট্টগ্রামের ছেলেরা আরাকান গিয়ে মাথাপিছু ১০/১৫টা মেয়েকে বিয়ে করতো; মেয়েরা বাংগালীদেরকে স্বামী হিসেবে পছন্দ করতো

১০| ১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ১২:০৭

অপর্ণা মম্ময় বলেছেন: এই জীবদ্দশায় অনেক পরিবর্তনই হয়ত দেখে যেতে পারব না যা দেশের জাতীয় সমস্যা হিসেবে রিমার্ক করা।

১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ভোর ৪:৪২

চাঁদগাজী বলেছেন:


দুষ্টরা ক্ষমতা, সুযোগ, ও সম্পদ দখল করে নিয়েছে, ইহা অনেকটা শান্ত আফগানিস্তান।

১১| ১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ২:৩২

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




মগ জাতি
মগ আরাকান নিবাসী জাতি বিশেষ। জাতিতত্ববিদেরা এদের ইন্দো-চীন নিবাসী বলে মনে করেন। এদের মধ্যে মারমগরি, ভূঁইয়া মগ, বড়ুয়া মগ, রাজবংশী মগ, মারমা মগ, রোয়াং মগ, ভ্যুমিয়া মগ ইত্যাদি নামে জাত বিভাগ আছে।

শ্রেণী ভাগ: ভ্যুমিয়া, রাজবংশী, মারমা মগ

মগ দস্যু: মোগল সাম্রাজ্যের সঙ্গে শত্রুতার কারণে আরাকানের মগ দস্যুরা পর্তুগিজ জলদস্যুদের সঙ্গে যোগ দিয়ে তৎকালীন মোগল-শাসনাধীন বাংলায় অবাধ লুণ্ঠন, অপহরণ ও নির্বিচারে নারীদের উপর অত্যাচার চালাত।

মগের মুল্লুক: বাংলায় অতীতে বিভিন্ন দেশের জলদস্যুরা আসতো চুরি ডাকাতি বা সম্পদ লুট করতে। তাদের নিয়ে অনেক গল্প কবিতা ছড়া লেখা হয়েছে। একটি ভয়ানক দস্যু আসতো মগ রাজার দেশ থেকে। এরা ছিল মূলত পর্তুগীজ নৌ-দস্যুদের রাজাকার বাহিনী। মগরা আমাদের অঞ্চলে এসে যে অরাজকতার সৃষ্টি করতো তার মাত্রা বোঝানোর জন্য বলা হতো মগের মুল্লুক অর্থাৎ যা খুশি তাই করার দেশ। অনেকের মতে মগ মানেই আরাকানী আর মগের মুল্লুক মানে আরকান রাজ্য।

মগের মুল্লুকের অবসান: আরাকান-রাজের সৈন্যদলের মধ্যে অনেক মগ ও অবৈতনিক পর্তুগিজ সৈন্য ছিল। এরা বছরে বারোমাস লুণ্ঠন, অপহরণ ও অত্যাচার চালাত। ১৬৬৩ খ্রিষ্টাব্দে নবাব শায়েস্তা খাঁ সেনাপতি হুসেনবেগের সহায়তায় আরাকান-রাজকে সম্পূর্ণ পরাজিত করে মোগলদের হৃত-ক্ষমতা পুনরুদ্ধার করেন; ১৬৬৬ খ্রিষ্টাব্দে তাঁর সেনাপতি ওমেদ খাঁ ও হুসেনবেগ চট্টগ্রাম ও সন্দ্বীপ দখল করে। শায়েস্তা খাঁর এই দুর্ধর্ষ অভিযানে চট্টগ্রাম থেকে পর্তুগিজ ও মগেরা অতি ক্ষিপ্রকারিতায় পালানোর (স্থানীয়ভাবে এই ঘটনা 'মগ-ধাওনি' নামে খ্যাত ছিল) সময় ১,২২৩টি কামান ফেলে যায়, কিন্তু অধিকাংশ ধনসম্পদ ঘড়ায় করে মাটিতে পুঁতে রেখে যায় (পরবর্তীকালে, মগ-পুরোহিতরা সাঙ্কেতিক মানচিত্রের সাহায্যে গোপনে এইসব স্থানে এসে ঘড়াগুলি উঠিয়ে নিয়ে যেতেন)। এইভাবে গোটা বাংলায় "মগের মুল্লুক"-এর অবসান ঘটে।

১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ভোর ৪:৪৫

চাঁদগাজী বলেছেন:


এখন ইডিয়টরা নিজ জাতিকে ছাগল গরুতে পরিণত করেছে।

১২| ১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ সকাল ৯:২০

রাজীব নুর বলেছেন: লেখক বলেছেন:
সরকারের লোকেরা কিছু একটা করে ফলাফল দেখে, ওরা অগ্রিম ফলাফল জানে না।

আসলে অদক্ষ এবং যোগ্য লোক বড় বড় পদে বসে আছেন।
যোগ্য এবং পরিশ্রমী লোকদের কাজে লাগাতে হবে।

১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৩:৪১

চাঁদগাজী বলেছেন:


শেখ হাসিনা লিলিপুটিয়ানদের দিয়ে দেশ চালান

১৩| ১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ সকাল ৯:২৭

জাহিদ হাসান বলেছেন: সহমত

১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৩:৪২

চাঁদগাজী বলেছেন:


আফগাীিরাও এসব ছোটখাট বিষয় নিশ্চয় বুঝে।

১৪| ১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ সকাল ১০:৩১

মোঃ ইকবাল ২৭ বলেছেন: বার্মিজদের প্রধান শক্তি চীন।চীনাদের বলে বলীয়ান বার্মিজরা। চীনারা এদের জাতি ভাই। চোখ আর নাক দেখলেই বুঝতে পারবেন।বার্মিজদের বংশ বিস্তার চীন হতে হয়েছিল নাকি ? রোহিঙ্গারা ও কম জালায়নি বার্মিজদের। বর্তমানে বাংলাদেশে রোহিঙ্গাদের আচরণ দেখে তা বুঝতে অসুবিধা হওয়ার কথা নয়।

১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৩:৪৩

চাঁদগাজী বলেছেন:


মগের মুল্লুকে ভালো মানুষ ৫ বছর থাকলে অমানুষ হয়ে যায়; চীনাদের সাথে ২ বছর ব্যবসা করলে উহা ডাকাতে পরিণত হয়

১৫| ১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ সকাল ১১:৪১

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




যে কারণেই হোক বাংলাদেশ মিয়ানমার তথা বার্মার বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা নিতে পারেনি। অভিনন্দন গাম্বিয়া কে। ঢাকা টু বানজুল ভূমির দুরত্ব ১১,০৬৪ কি: মি: এতোদুরে থেকে গাম্বিয়া আমাদের মর্মপীড়া, মর্মব্যথা বুঝতে পেরেছেন তাদের প্রতি আমরা কৃতজ্ঞ। গাম্বিয়ার প্রতি আমরা চিরো ঋণী।



১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৩:৪৫

চাঁদগাজী বলেছেন:


গাম্বিয়ার মানুষ অন্য ৪৬টি মুসলমান দেশের মানুষ থেকে ভালো মনে হচ্ছে।

১৬| ১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৩:৫২

বিজন রয় বলেছেন: শুধু সরকার বললে হবে কেন?
এদেশের সাধারণ মানুষের মগজ কি খুব উর্বর??

১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৪:০২

চাঁদগাজী বলেছেন:


সরকারকে অনুসরণ করে জনতা

১৭| ১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৪:০৫

বিজন রয় বলেছেন: যে দেশের মানুষ খারাপ সেদেশের সরকারও খারাপ!

১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৪:১৬

চাঁদগাজী বলেছেন:


সঠিক, সরকার তো দেশের মানুষ থেকেই।

তবে, কোন এক পয়েন্টে, সরকারই মানুষকে বিপথে নিয়ে গেছে। ১৯৭২ সালে তাজুদ্দিন সাহেব ও শেখ সাহেব আমাদেরকে সঠিক নেতৃত্ব দেননি; ১৯৭৫ সালে, মিলিটারী আমাদেরকে খারাপ পথে নিয়ে গেছে; এখন, মানুষ থেকে সরকার, সরকার থেকে মানুষ চক্র চলছে

১৮| ১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৪:৩৩

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




বিজন রয় বলেছেন: শুধু সরকার বললে হবে কেন? এদেশের সাধারণ মানুষের মগজ কি খুব উর্বর??

চাঁদগাজী ভাই,
এই দেশের সাধারণ মানুষের মাথা খুবই উর্বর, সবুজ সারে ভরপুর মাথা। এই সবুজ সারে সমৃদ্ধ মাথা নিয়ে এরা ইঁদুর বিড়াল তেলাপোকা ছারপোকা এমিবা জীবন চক্র মানব জীবন চক্রের সাথে একাকার করে দিয়েছেন। কোনোভাবে এই পশুপাখি কীট পতঙ্গের জীবন থেকে মানব জীবনে টেনে আনা সম্ভব হয়নি আর তাই সেই পোষ্টে লিখিত বিদায় নিয়েছি।

মগদের সাথে সমস্যা মগদের সাথে বসেই নিরসন করতে হবে। জাতিসংঘ ছাতিসংঘকে বার্মা দুই আনার মূল্যও দেয় না।


১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৪:৫৯

চাঁদগাজী বলেছেন:


বাংগালীরা মাত্র ৫০ বছর আগে এই রকম ছিলো না; এই বাংগালীরাই যু্ধ করেছেন, যুদ্ধের যোগান দিয়েছেন।

মগদের সাথে সরাসরি বসার চেষ্টা সরকার নিশ্চয় করছে; তবে, সেটা হেগে শুনানীর সময়ে হতে হবে, এই রকম হওয়া ঠিক নয়।

১৯| ১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৪:৩৯

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: ব্লগার নতুন নকিবের পোষ্ট বাঙালি মেয়েরা না কি নোংরা, তাদের না কি মিয়ানমার সেনাবাহিনী এবং বৌদ্ধ জনগোষ্ঠীর কেউ ছোঁবেও না কথাটি বলেছেন উম্মদ মেথর পট্টির মদ খেয়ে পাড় মাতাল নোবেল লরিয়েট অং সান সুচি (সুচিগ্রস্থ রোগী)

উম্মাদ অং সান সুচি কে কেউ বলুক রোহিঙ্গা আর বাঙ্গালী এক নয়। অং সান সুচির নামে এই অপবাদের জন্য আরেকটি মামলা হওয়া উচিত। সে বাঙ্গালী বললো কোন সাহসে? রোহিঙ্গা বাংলা ভাষায় কথা বলে? রোহিঙ্গাদের ভাষা বাংলা না। আর তারা বাঙ্গালীও না। ইডিয়ট অং সান সুচি (সুচিগ্রস্থ রোগী)। অং সান সুচি নিজে নারী - তিনি পুরুষ নন তাই তিনি রোহিঙ্গা ধর্ষণে যোগ দিতে পারেন নি বলে হয়তো বা এ কথা বলে থাকতে পারেন!

১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৫:০১

চাঁদগাজী বলেছেন:


সুচি, কিংবা ওদের আইনবিদ কি বলছে, সেটার উপর খেয়াল রেখে লিখতে হবে; তবে, সুচি নিশ্চয় নতুন নকীবের পোষ্টের শিরোনাম লিখে দেয়নি; এসব ব্লগার ব্লগিংকে নীচের দিকে টানছে, অপ্রয়োজনীয় ব্লগার

২০| ১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৫:০৩

রাজীব নুর বলেছেন: লেখক বলেছেন:
শেখ হাসিনা লিলিপুটিয়ানদের দিয়ে দেশ চালান

আসলে একদম খাঁটি দক্ষ, যোগ্য পরিশ্রম লোক নেই বলেই লিলিপুটিয়ানদের নিতে হয়।

১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৫:২৮

চাঁদগাজী বলেছেন:


দেশে ঠিক জাপানীদের মতো দক্ষ, সুইডিশদের মতো সত্যবাদী, চীনাদের মতো কর্মঠ মানুষ কম আছে; তবে, দেশ চালানোর মতো লোকজন আছেন। শেখ হাসিনা তাদেরকে নেন না, তিনি বকোবাজদের পছন্দ করেন।

২১| ১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৫:৩৩

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




চাঁদগাজী ভাই প্লিজ আমি আপনার কাছে স্যরি বলছি। আর নতুন নকিব ভাই প্লিজ আপনার কাছেও আমি স্যরি বলছি প্লিজ। প্লিজ বাদ দিন। ভুলে যান সব।


বাংলাদেশে সরকারের হাতে এখন সবচেয়ে ভালো সুযোগ, বার্মার সাথে আইনি লড়াই লড়তে চাইলে পি আই এল দাখিল করুণ। ডঃ কামাল হোসেন সাহেব কে বলুন দেশের জন্য কিছু কাজ করুক।


১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:২৩

চাঁদগাজী বলেছেন:


দেশ যেভাবে চলছে, সরকার মানুষের ভাবনাচিন্তাকে কাজে লাগানোর মতো অবস্হানে নেই; আজ হোক, কাল হোক,তারা কোন একটা সমাধান বের করবেন; তবে, মানুষ জানে না, সেটা কি হবে, কিভাবে হবে।

২২| ১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৫:৪৫

বিএম বরকতউল্লাহ বলেছেন: লেখাটি ছোট। পড়ে আনন্দ পেলাম। ধন্যবাদ নিন।

১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:২০

চাঁদগাজী বলেছেন:


সরকার এটা সেটা করছে; তবে, জনতার মনোভাব ও ভাবনা এতে নেই

২৩| ১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:০১

স্বপ্নময় স্বপ্নের পথচারী বলেছেন: আপনার মতো পিগমি লোকদের দিয়ে দেশ চালানো উচিত

১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:২৪

চাঁদগাজী বলেছেন:



চৌকিদারের চাকুরী পেয়েছেন? মনে হচ্ছে, ভয়ানক সুখে আছেন!

২৪| ১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:৩৭

একজন অশিক্ষিত মানুষ বলেছেন: মন্তব্য এবং পোস্ট দুটো পড়েই বেশ লাগলো চাচাজান ।আমার কিছু বলার নাই ।

১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ৮:০৩

চাঁদগাজী বলেছেন:


আমরা, বাংগালীরা এখন এক সমাধানহীন সমস্যার মাঝে পড়ে গেছি

২৫| ১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:৩৯

ching বলেছেন: মগ টেস্টে ফেল আর পাহাড় টেস্ট, প্রিয়া সাহা টেস্টে পাশ।

১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ৮:০১

চাঁদগাজী বলেছেন:


রোহিংগা সমস্যাটা হচ্ছে, একটি বড় ধরণের কমপ্লেক্স সমস্যা; কারণ, অন্য দিকে আছে মগদের সামরিক শাসকরা

২৬| ১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:৪০

বিষাদ সময় বলেছেন: নো কমেন্ট............... :(

১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:৫৯

চাঁদগাজী বলেছেন:


জে: জিয়া এর সমাধান করেছিলেন, মিলিটারী টু মিলিটারী, টিকেনি

২৭| ১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:৩১

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন:
বার্মার অমানুষরা পিটিয়েছে ভালো কথা। তাই বলে আমরা আমাদের সীমান্ত খুলে দেবো ? বার্মার ভিতরে কি আর কোন জায়গা ছিল না তাদের চলে যাওয়ার? আমাদের সীমান্ত খুলে দিতে হবে?
যেখানে অবৈধ অনুপ্রবেশের দায়ে মানুষের জেল ফাঁসি হয়ে যায় সেখানে কয়েক লাখ মানুষকে একদিনে ঢুকিয়ে দেওয়া হল।

১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:৪৫

চাঁদগাজী বলেছেন:


শুধু বার্মার নাগরিক নয়, সরকারই ওদেরক্বে বের করে দিয়েছে। পালাতে না পারলে, এদের বড় অংশই প্রাণ হারাতো

২৮| ১১ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:৫৭

নতুন নকিব বলেছেন:



ভালো লিখেছেন। এই সফর অবশ্যই দ্য হেগ শহরে চলমান বিচার কাজ সম্পন্ন হওয়ার আগে কিংবা পরে হতে পারতো এবং সেটাই হতো বিচক্ষণতা প্রসূত। আমাদের জ্ঞানের বহর সত্যিই বিচিত্র!

১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ১:২৮

চাঁদগাজী বলেছেন:


ভালো কমেন্ট করে আমাকে তো বিপদে ফেলে দিলেন!

২৯| ১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ১:০৬

স্বপ্নময় স্বপ্নের পথচারী বলেছেন: আমরা মুজাহিদ| সারাবিশ্বে শান্তি ফিরিয়ে আনবোই |
হয় শরিয়া নয় শাহাদাহ

১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ১:২৮

চাঁদগাজী বলেছেন:


আপনি কিছু একটা অবশ্যই করবেন; সেটা ভালো না হওয়ার পুরোপুরি গ্যারান্টিও নিশ্চয় দিতে পারবেন।

৩০| ১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ১:৩১

স্বপ্নময় স্বপ্নের পথচারী বলেছেন: সবিই আপনার দোআ | আপনাকে আমাদের কমান্ডার হিসেবে নিয়োগ দিবো | রাজি আছেন নাকি কাকু

১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ভোর ৫:১৪

চাঁদগাজী বলেছেন:



কাকু, জীবনে বিশ্বাসী মানুষ

৩১| ১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ১:৫২

:):):)(:(:(:হাসু মামা বলেছেন: নাহ! ওস্তাদ কোনো কমেন্ট করতে চাইনা । পরে চাকুরি থাকবে না । ;)

১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ভোর ৫:১৭

চাঁদগাজী বলেছেন:



দেশের ভেতরে থাকলে, কিছু কিছু ব্যাপারে চুপ থাকাই ভালো, সরকারী বোয়ালদের মগজ ছোট মুখ বড়

৩২| ১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ভোর ৬:৩২

ডঃ এম এ আলী বলেছেন:



@ ঠাকুরমাহমুদ
আরাআনে রোহিঙ্গাদের কিছু ইতিহাস আমার এই
মিয়ানমারের হারানো রাজ্যের পুরাকির্তী রক্ষার স্বপ্ন এখন রোহিঙ্গা নির্মুলে রাস্ট্রিয় সহিংসতার চারণভুমি
পোষ্টে বলা হয়েছে । এ বিষয়ে প্রকাশের অপেক্ষাধীন আমার পুস্তকে আপনার মগ- ধাওনি কাহিনী তুলে দেয়ার প্রবল ইচ্ছা জাগছে । সন্মত হলে এ বিষয়ে বিস্তারিত তথ্যের জন্য আমার সংস্লিষ্ট পোষ্টে কথা বললে খুশি হব ।

১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ সকাল ১০:৩৯

চাঁদগাজী বলেছেন:



সবার আগে আপনি আম্রপালি প্রকাশ করেন।

৩৩| ১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৪:৩৮

বিচার মানি তালগাছ আমার বলেছেন: খারাপ ভাষায় বললে বলা যায়, সুকী প্রায় ২০ বছরের আর্মি দ্বারা .. হয়ে এখন তাদের পক্ষে সাফাই গাইছে। আমাদের মগজহীন সরকার এই ক্রাইসিস(২০১৭ সালে রোহিঙ্গা নিধন) শুরু হওয়ার পরও মগের বাচ্চাদের কাছ থেকে চাল আমদানী বন্ধ করেনি। বলে, পররাষ্ট্রনীতিতে কারো সাথে শত্রুতা নেই...

১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৫:২৫

চাঁদগাজী বলেছেন:


চাল, মাছ, পেঁয়াজ সবই আসছে বার্মা থেকে।

মরেছে রোহিংগা, রোহিংগা বাঁচিয়ে এনজিও ও সরকারী লোকেরা আয় করছে।

৩৪| ১২ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:৪৮

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




ডঃ এম এ আলী ভাই,
আমি খুবই সম্মানিত বোধ করবো যদি আপনি আমার এই লেখা আপনার বইয়ে সংযোজন করেন। আমি আপনাকে আরো কিছু তথ্য দিবো যা রোহিঙ্গা সংক্রান্ত, বার্মা ও বার্মিজ সংক্রান্ত আশা করি আপনার কাজে আসবে। আমার দাদাজান বার্মাতে বৃটিশ সরকারের অধিনে সাব রেজিস্ট্রার ছিলেন। আমাদের বাড়িতে পুরাতন পিতল ব্রোঞ্জের থালা বাসন পাতিল কলস সব বার্মা
থেকে দাদাজানের কেনা। যা এখনো স্মৃতি হিসেবে ধরে রেখেছি।


৩৫| ১৩ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ১২:৫১

বঙ্গদুলাল বলেছেন: গাম্বিয়া অকৃতজ্ঞ ভাববেন হয়তো আমাদের।আমাদের আরো ডিপ্লোমেটিক হওয়া উচিত ছিল।

১৩ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ২:২৪

চাঁদগাজী বলেছেন:



বাংলাদেশ সরকারের সিদ্ধান্তে কমনসেন্স'এর অভাব আছে।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.