নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

সম্পদহীনদের জন্য শিক্ষাই সম্পদ

চাঁদগাজী

শিক্ষা, টেকনোলোজী, সামাজিক অর্থনীতি ও রাজনীতি জাতিকে এগিয়ে নেবে।

চাঁদগাজী › বিস্তারিত পোস্টঃ

ইরানী মিসাইলে আমেরিকান সৈন্য আহত হয়েছে, আমেরিকা সমস্যার দিকে যাচ্ছে।

১৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ বিকাল ৫:৩৬



গত ৭ তারিখ রাতে, ইরানের ছোঁড়া দেড় ডজন মিসাইলে, ইরাকের ২ লোকেশানে ১১ জন আমেরিকান সৈনিক আহত হয়েছে; তখন পেন্টাগণ জানিয়েছিল যে, আমেরিকানদের পক্ষ থেকে কোন হতাহত হয়নি; ট্রাম্পও সেটাই নিশ্চিত করেছিলো, ও সেটার উপর নির্ভর করে আমেরিকা ইরান আক্রমণ করেনি। এখন আমেরিকা জেনেছে যে, সেই রিপোর্ট সঠিক নয়; এই মিথ্যা কিংবা অদক্ষ রিপোর্ট আমেরিকার মানুষকে হতাশ করছে, আমেরিকানরা ইহার উপর বিভক্ত হবে; ইলেকশানের বছর হওয়াতে বিরোধীদল এটাকে কেন্দ্র করে প্রচারণা চালাবে।

ট্রাম্পের ইমপিচমেন্টের ২য় ধাপ, ট্রাম্পের চাকুরী থাকবে কিনা সেটার বিচার সিনেটে গিয়েছে; ১০০ জন সিনেটর সেই বিচারের জুরি এখন; আগামী সপ্তাহ থেকে সিনেটে শুনানী শুরু হবে। সিনেটের বিচারে দলীয় মনোভাব প্রভাব ফেলবে; এবং সেই কারণে, ট্রাম্পকে সিনেটের বিচার নিয়ে চিন্তিত মনে হচ্ছে না, সিনেটের ১০০ জনের মাঝে ৫৩ জন রিপাবলিকান।

আমেরিকার বড় অংশ খুশী ছিলো যে, ট্রাম্প ইরান আক্রমণ করেনি; এখন কিন্তু এই মনোভাব দ্রুত বদলাচ্ছে, অনেক আমেরিকান যুদ্ধ চাইবে; ফলে, ট্রাম্প বেশ চাপে থাকবে। ট্রাম্প যুদ্ধে না যাওয়ার পক্ষে এখনো; তবে, ইহা বদলাতেও পারে।

গতকাল চীনের সাথে আমেরিকার স্হগিত বাণিজ্যচুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে, এতে আপাতত আমেরিকার ট্রেইড ডেফিসিট কমে আসার কথা; কিন্তু বাস্তবে তা ঘটবে না, চীনের ক্রয় ক্ষমতা অনেক কমে এসেছে, চীনের জিডিপি ক্রমাগতভাবে কমে আসছে। এতে আমেরিকার এক্সপোর্ট কমে আসবে ও বাজারে উহার প্রভাব পড়বে।

ইলেকশান'এর বছরে যুদ্ধে যাওয়া হয়তো সম্ভব হবে না; ফলে মানুষের হতাশা থেকে যাবে, এদিকে অর্থনীতি রিসেশনে প্রবেশ করছে, ইলেকশানের পর জাতি বেশ কিছু সময় বিভক্ত থাকবে; সব মিলে, বেশ পরিমাণ সমস্যার সৃষ্টি হবে।

এদিকে ইরান সরকার অকারণে ইউরেনিয়াম প্রসেসিং নিয়ে মিথ্যা প্রচার চালাচ্ছে; এখানে তাদের উদ্দেশ্য পরিস্কার নয়, তাদের কাছে সর্বাধিক ৫% পিউরিফিকেশনের ক্ষমতা থাকার কথা; ইহা নিয়ে কারো চিন্তিত হওয়ার কথা নয়, বোমা তৈরি করতে ৯০% পিউরিফাইড ইউরেনিয়াম দরকার। কিন্তু তাদের প্রচারণা আমেরিকানদের রাগান্বিত করে তুলবে।





মন্তব্য ৪৬ টি রেটিং +৩/-০

মন্তব্য (৪৬) মন্তব্য লিখুন

১| ১৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ বিকাল ৫:৪৪

মোহাম্মাদ আব্দুলহাক বলেছেন: মধ্যপ্রাচ্য ভয়ঙ্কর স্থান, আমি সত্যি ভয় পাই।

১৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ বিকাল ৫:৪৯

চাঁদগাজী বলেছেন:



মধ্যপ্রাচ্যের বেশীরভাগ দেশকে পংগু করে ফেলেছে 'শিয়া মিলিশিয়ারা', এরা প্রতিটি দেশের সৈন্য বাহিনী থেকে শক্তিশালী

২| ১৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ বিকাল ৫:৫২

মোহাম্মাদ আব্দুলহাক বলেছেন: ওখানে খালি মারামারি। মাথাগরমরা হয়তো ওখানেই থাকে।

১৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:০১

চাঁদগাজী বলেছেন:


মিডল ইষ্টে নগণ্য পরিমাণ বুদ্ধিমান (ইসরায়েল), বিপুল পরিমান মগজহীন সন্ত্রাসী ( বেশীর ভাগ আরবেরা) ও সামান্য পরিমাণ সাধারণ মানুষ বাস করে।

৩| ১৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:০৩

মোহাম্মাদ আব্দুলহাক বলেছেন: আমার ক্যাবে একবার ইরাকি একটা উঠেছিল। আমি ভয় পেয়েছিলাম। কথাকথায় বলেছিল তোমরা চিন্তা করো না, তোমাদেরকে মারামারি করতে হবেনা আমরাই করব এবং খুব সত্বর। আমি ভেবেছিলাম আমাকে মারধর করবে। আমি আল্লাহকে ডাকতে শুরু করেছিলাম।

১৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:০৯

চাঁদগাজী বলেছেন:



একা সিরিয়ানরা পুরো জার্মানীর মানুষের মনোবল ভেংগে দিয়েছে; আরব ও আফ্রিকানরা মিলে ইউরোপকে বাজার বানায়ে ফেলবে।

৪| ১৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:১২

মোহাম্মাদ আব্দুলহাক বলেছেন: আপানাকে আমি সত্যি পছন্দ করি। আমি অনেক সত্য তথ্য জানেন।

Westend যখন যাই তখন নিজেকে স্যতি মিসকিন মনে হয়।

১৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:২২

চাঁদগাজী বলেছেন:


আমি তেমন কিছু জানি না, ব্লগে আসি বাংলাদেশের শিক্ষিতদের অবস্হা বুঝার জন্য।

৫| ১৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:২৬

মোহাম্মাদ আব্দুলহাক বলেছেন: আমার উপরের মন্তব্যের আমি শব্দটা আপনি হবে।

যাক, দেশকে ঠিকঠাক করতে হলে কম হলেও ১০ বছর স্কুল কলেজ বন্ধ করতে হবে।
দেশে শিক্ষিতদের সংখ্যা বেশি।

১৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৩২

চাঁদগাজী বলেছেন:


দেশের মানুষকে ১৯৮০ সালের মাঝে শতকরা ১০০ ভাগ শিক্ষিত করার দরকার ছিলো; আমাদের শিকষার মান নীচু, শিক্ষিত ও অশিক্ষিতদের মাঝে পার্থক্য সামান্য; আবার মাদ্রাসা শিক্ষার মুলমন্ত্র হচ্ছে, শিক্ষা-বিরোধীতা।

আগামী ৫ বছরের মাঝে জনসংখ্যার ১০০ ভাগকে শিক্ষিত করা দরকার।

৬| ১৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৩৩

নতুন বলেছেন: শুধু শুধুই ব্যাটাগিরি দেখাতে ইরানের যুদ্ধ যুদ্ধ ভাব দেখিয়ে অশান্তি ডেকে আনছে।

নিজেদের প্লেন ধ্বংষ করে এখন উল্টা তারাই চাপে আছে।

জনগন মিথ্যা পছন্দ করেনা, এরা প্রচুর মিথ্যা বলছে জনগনকে।

যুদ্ধ হবেনা কিন্তু এই অশান্তি অনেক দেশের ব্যাবসাকে মন্দা করবে। জনগন কস্টে থাকবে আর কিছুই হবে না।

১৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৩৬

চাঁদগাজী বলেছেন:


বিশ্বের সব মোল্লা তথাকথিত শয়তান থেকেও ভয়ংকর মিথ্যুক।

ইরান যদি ইুরেনিয়ামকে আপার-গ্রেইডে নিতে চায়, যুদ্ধ হবে।

৭| ১৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:১৪

মোঃ ইকবাল ২৭ বলেছেন: যুদ্ধ হলে ইরানের তেল রিফাইনারী গুলো ধ্বংস হলে সারা বিশ্বে তেলের মূল্য দ্বিগুণ হবে।

১৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:২৫

চাঁদগাজী বলেছেন:

যুদ্ধ হলে, ইরান, সৌদী, কুয়েত, ইরাক ও দুবাই মাটিতে মিশে যাবে।

আমেরিকায় তেলের দাম খুব একটা বাড়বে না, রাশিয়া বাড়বে না, চীনের উৎপাদন কমে যাবে, বাংলাদেশ ও ৩য় বিশ্ব গাড়ী চলাচল কমে যাবে।

৮| ১৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:১৪

হাবিব স্যার বলেছেন: ইরান যা করছে তা কি ঠিক করছে? সেদিন দেখলাম এক উরোজাহাজ ভূপাতিত করে আবার ক্ষমা চাচ্ছে। এসব করে নিজেদেরকে কি প্রমান করতে চাচ্ছে ওরা? আবার এখন ইউরেনিয়াম নিয়ে প্রচারনা চালাচ্ছে। খালি হাঁড়ি বাজে বেশি।

১৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:২৬

চাঁদগাজী বলেছেন:


ইরান আরবদের নিয়ে আত্মহত্যার দিকে আগাচ্ছে।

৯| ১৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৪৪

জাহিদ হাসান বলেছেন: মিসাইলের শব্দে মানসিক ভাবে এসব সৈন্যরা আহত হয়েছে বলে শুনলাম। তারা তো সুরক্ষিত স্থানে ছিল। মিসাইল তাদের আঘাত করেনি।

এই নিয়ে আমেরিকার সাথে ইরানের কোন সমস্যা হবে না। কারণ মানসিক সমস্যার ট্রিটমেন্ট করে সহজেই আহত সৈন্যদের ঠিক করা যাবে।

মূল সমস্যাটা হবে ইউক্রেনের বিমান বিধ্ব্ংস করা নিয়ে। কানাডা, ব্রিটেন, আফগানিস্তান, ফ্রান্স সবাই এক হয়ে ইরানের বিচার চাইতেছে। এদিকে ইরানের ভিতরেও লাখ লাখ মানুষ বিদ্রোহ করছে ধর্মান্ধ ইরান সরকারের বিরুদ্ধে।

সব মিলিয়ে ঘরে-বাইরে বিরাট বিপদে পড়েছে ইরান সরকার।

১৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৫২

চাঁদগাজী বলেছেন:


ইরানী জনসংখ্যার বড় অংশ 'শিয়া প্রভুত্ব' ও রাষ্ট্র ক্ষমতায় ধর্মীয় সংবিধানে বিশ্বাস করে; ফলে, ইরানের সমস্যা স হসা সমাধান হবে না। মোল্লারা সরাসরি মিথা বলে, বিমানের ঘটনা সেটাই প্রমাণ করেছে।

তবে, ইরানকে বাদ দিলেও, আমেরিকা ইরানী ঘটনার পর সমস্যায় প্রবেশ করছে।

১০| ১৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৪৫

Sujon Mahmud বলেছেন: মধ্যেপ্রাচ্যর নাম শুনলেই আমার ভয় করে।

১৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৫৩

চাঁদগাজী বলেছেন:


নতুন নবী না এলে ইহার সমাধান হবে না।

১১| ১৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৫৬

রাজীব নুর বলেছেন: মধ্যপ্রাচ্যের দেশ গুলো ধর্মের কারনে আজ এই অবস্থা।
এদের মধ্যে দুবাই কিছুটা ভালো আছে কারন তারা ধর্মটাকে কিছুটা দূরে রেখেছে।

১৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ রাত ৮:০০

চাঁদগাজী বলেছেন:


ধর্ম হলো গড়ে ৩০০০ বছর আগের মানুষের লব্ধজ্ঞান, আমরা বাস করছি আধুনিক যুগে, ভয়ংকর দুরত্ব, ভয়ংকর সমস্যা

১২| ১৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ রাত ৮:৩৬

রূপক বিধৌত সাধু বলেছেন: ট্রাম্প দাওয়াত দিয়ে সমস্যা তৈরি করেছে। ইরানও ভুগবে দীর্ঘমেয়াদে।

১৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ রাত ৯:১৫

চাঁদগাজী বলেছেন:


কোন দাওয়াত, সোলেমানী হত্যা? ইহার সাথে সুপ্রীম লিডার, বড় শয়তানকেও হত্যার দরকার ছিলো।

১৩| ১৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ রাত ৮:৩৯

আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন: ইরান বেশি জেদাজেদি করলে তার ক্ষতি ছাড়া আর কিছুই হবে না।

১৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ রাত ১০:১৮

চাঁদগাজী বলেছেন:


ওদের সাথে আরবেরাও ধ্বংস হয়ে যাওয়ার বড় সম্ভাবনা; ওরা অন্যের ক্ষতির জন্য বেশী সময় ও সম্পদ ব্যয় করছে, জাতীর বড় অংশ সন্ত্রাসে বিশ্বাসী।

ওদের সাথে লাগলে, আমেরিকাও বিশালভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে; ৫/১০ মিলিয়ন মানুষ চাকুরী হারাবে

১৪| ১৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ রাত ১১:১৬

হাসান কালবৈশাখী বলেছেন:

কিছুই হয় নি।
'হাওয়াই বাজির' শব্দে কয়েকজন মানসিক আঘাতপ্রাপ্ত হয়েছিল। একটা বাহিনীতে দুএকটা ফাঁকিবাজ থাকেই।
দু-চারদিন পর ডাক্তারের কাছে গেছিল ১১ জন সৈনিক। এসব মামুলি রুটিন ব্যাপার।

রয়টার্স/সিএনএন এর এই সংবাদটিকে আবেগি বাংগালীদের জন্য প্রথমআলো হেডলাইন করলো -
ইরানের ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় ১১ মার্কিন সেনা ‘আহত’ হন

খবরটি একটু ভাল করে পড়লেই বুঝবেন।

১৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ রাত ১১:২৯

চাঁদগাজী বলেছেন:


আপনি তো ইউএস মিলিটারীতে জেনারেল, যথাসম্ভব!

১৫| ১৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ রাত ১১:৪৩

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:
এটা ট্রাম্পের ভাওতা বাজী।
বিশ্বকে ভুল ম্যাসেজ দিচ্ছে
যেন তারা ইরাণের কাছে মার খাচ্ছে।
ইরাকেও তারা এমন বিভ্রান্তি ছড়িয়ে বিশ্বকে
বোকা বানিয়েছিলো। তারা এমনভাবে সংবাদ
পরিবেশন করতো যেন ইরাক আমেরিকাকে
কোন ঠাসা করে ফেলেছে। এটা একটু যুদ্ধ
কৌশল আমেরিকার। চালও বলতে পারেন।
বর্বর যুদ্ধবাজ আমেরিকা অমানবিক যুদ্ধ
চাপিয়ে দিয়ে ইরাকের মতো ইরাণকেও
ধ্বংশ করার পায়তারা করছে।
নিপাত যাক আমেরিকা।

১৭ ই জানুয়ারি, ২০২০ রাত ১১:৪৯

চাঁদগাজী বলেছেন:


আমেরিকা কঠিন দেশ, এখানকার মানুষের সাথে সরকার এসব ব্যাপারে ভাওতাবাজি করে না।

১৬| ১৮ ই জানুয়ারি, ২০২০ রাত ২:৫৫

অনল চৌধুরী বলেছেন: মিডল ইষ্টে নগণ্য পরিমাণ বুদ্ধিমান (ইসরায়েল), বিপুল পরিমান মগজহীন সন্ত্রাসী ( বেশীর ভাগ আরবেরা) ও সামান্য পরিমাণ সাধারণ মানুষ বাস করে। -ইসরাইলের মতো অঅরব ভূমি দখলকারী শিশু হত্যাকারীদের প্রতি অন্ধ সমর্থন দেখেই আপনার মানসিকতার পরিচয় পাওয়া যায়।

ট্রাম্পসহ এ্যামেরিকার সব রাষ্ট্রপতি যে অন্য দেশে হামলা,দখল আর মানুষ হত্যার জন্য আন্তর্জাতিক আইন অনুযাযী যুদ্ধপরাধী-সেটা জানেন?

এবার সুকির মতো ট্রাম্পকে অল সন্ত্রাসী এ্যামেরিকার সেনাবাহিনীকেও আন্তর্জাতিক আদালতে উঠতে হবে।

১৮ ই জানুয়ারি, ২০২০ রাত ৩:২৯

চাঁদগাজী বলেছেন:


ইসরায়েল সম্পর্কে আপনার কোন সঠিক ধারণা আছে বলে মনে হয় না। আপনি নিশ্চয় বুঝেন না, কি করে ভারতে মোঘল ও অন্যান্য শাসনকর্তাদের দেশ থেকে বৃটিশ ২ টি দেশ জন্ম দিয়েছিলো!

১৭| ১৮ ই জানুয়ারি, ২০২০ সকাল ৯:০৮

খাঁজা বাবা বলেছেন: বোমা বানানোর জন্য সম্ভবত ১৮-২৩% সমৃদ্ধ ইউরেনিয়াম প্রয়োজন
চুক্তির আগে ৭.৫% ছিল
চুক্তির পরে ৩.৭৫ করা হয়েছে।

১৮ ই জানুয়ারি, ২০২০ বিকাল ৫:৩৯

চাঁদগাজী বলেছেন:


আমার ধারণা, ১৮-২৩% দিয়ে বোমা বানালে উহাকে "ডার্টি বোমা" বলা হয়।

১৮| ১৮ ই জানুয়ারি, ২০২০ সকাল ৯:২৪

রাজীব নুর বলেছেন: লেখক বলেছেন:
ধর্ম হলো গড়ে ৩০০০ বছর আগের মানুষের লব্ধজ্ঞান, আমরা বাস করছি আধুনিক যুগে, ভয়ংকর দুরত্ব, ভয়ংকর সমস্যা

তবু একদল মানুষ ধর্মকে আকড়ে রেখেছে। যা দুঃখজনক।

১৮ ই জানুয়ারি, ২০২০ বিকাল ৫:৪১

চাঁদগাজী বলেছেন:


যারা আধুনিক বিশ্বের কোনকিছু শিখতে পারে না, তারা অদক্ষ হিসেবে জীবন যাপন করে, অদক্ষ জীবনকে ওরা ধর্মীয় জীবন ভাবে।

১৯| ১৮ ই জানুয়ারি, ২০২০ সকাল ১০:৫২

হাসান রাজু বলেছেন: যুদ্ধ হবে না। হবে না .......
খামাখা আতংক ছড়াচ্ছেন ।

বানিজ্য যুদ্ধে চীন - আমেরিকা কেউ খুব একটা ছাড় দেয় নি। যদিও দেখতে শুনতে মনে হচ্ছে, আমেরিকা বড় ধরনের বিনিয়োগ পাবে, কৃষি পন্য রপ্তানি ও ২৫% শুল্কারোপে একটা সুবিধা (!) আছে। মুলত মূল লাভ হচ্ছে চীনের। চীনের বড় বাজার হল আমেরিকা। চীনের অর্থনীতির চাকা গতিময় করবে আমেরিকার নির্ঝঞ্ঝাট বাজার। চীনের মূল লক্ষ্য প্রযুক্তির বাজার পর্যন্ত নির্ঝঞ্ঝাট রাখা সেখানে এই চুক্তি কোন কাজের না প্রত্যক্ষ ভাবে। কিন্তু পরোক্ষ ভাবে চীন সে লক্ষ্যে একদাপ এগিয়েছে মাত্র।

১৮ ই জানুয়ারি, ২০২০ বিকাল ৫:৪৩

চাঁদগাজী বলেছেন:


আমি বলেছি যে, আমেরিকানরা লাভবান হবে না; কারণ, চীনারা কম কিনে ও ওদের ক্রয় ক্ষমতা কমছে।

২০| ১৮ ই জানুয়ারি, ২০২০ দুপুর ১:৫৩

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:

রাজীব নুর বলেছেন: লেখক বলেছেন:
ধর্ম হলো গড়ে ৩০০০ বছর আগের মানুষের লব্ধজ্ঞান, আমরা বাস করছি আধুনিক যুগে, ভয়ংকর দুরত্ব, ভয়ংকর সমস্যা
তবু একদল মানুষ ধর্মকে আকড়ে রেখেছে। যা দুঃখজনক।

আপনার ধারণা অথবা বিশ্বাসও কি তাই?

১৮ ই জানুয়ারি, ২০২০ বিকাল ৫:৪৪

চাঁদগাজী বলেছেন:



ধর্ম হলো আদি মানুষদের অপক্ক ধারণা ও সংস্কৃতি

২১| ১৮ ই জানুয়ারি, ২০২০ রাত ৮:২৮

পুলক ঢালী বলেছেন: আমার মনে হচ্ছে (যদিও আমার মনে হওয়ায় কিছুই আসে যায় না) যুদ্ধ করে মানুষ ও স্থাপনাগুলি ধ্বংস না করে যদি ইরানের সাধারন জনগনকে উদ্বুদ্ধ করে এমন গনবিরোধী কট্টর পন্থার সরকারকে হটিয়ে জনগনের স্বপ্ন পূরন করার মত সরকার গঠন করা যেতো তাহলে সারা বিশ্ব বোধহয় ক্ষয়ক্ষতি থেকে রক্ষা পেয়ে হাঁফ ছেড়ে বাঁচতো।

******************************************************************************************************************
কয়েকদিন আগে আমাদের সরকার বুক ফুলিয়ে ঘোষনা করল চীন এখন আমাদের ঘনিষ্ঠ বন্ধু ।
ভাবলাম তাহলে চীনের সহায়তায় আমাদের রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধানের সুযোগ তৈরী হচ্ছে।
আজ দেখলাম দীর্ঘ ১৯ বৎসর পর চীনের প্রেসিডেন্ট মায়ানমার গেছেন ১৫০ কোটি ডলারের প্রকল্প নিয়ে।
প্রকল্পটি হলো সহিংসতা প্রবন রাখাইন রাজ্যের কিয়াকপিউ দ্বীপে গভীর সমুদ্র বন্দর নির্মান।
আমার মনে হচ্ছে বুক সংকুচিত হয়ে যাচ্ছে।

একবার চীনের প্ররোচনায় দ্বিপাক্ষিক চুক্তি করে বাংলাদেশ ধরা খেয়েছে, তারপরও চীন প্রীতি বেশ গভীর শিকড়বাকড়ে জড়িয়ে আছে।

১৮ ই জানুয়ারি, ২০২০ রাত ৯:১৩

চাঁদগাজী বলেছেন:



চীনের সাথে বাংলাদেশ সরকার ও প্রশাসন কাজ করছে, প্রজেক্ট করছে, ওভার-বিল করে টাকা ডাকাতি করার জন্য; ওরা আপনার ও আমার মতো, কিংবা আরো ভালো করে জানে যে, চীন ও বার্মার সরকার খুবই ঘনিষ্ঠ ও ওরা ২ পক্ষ মিলে আরো বড় ডাকাতি করছে।

২২| ১৯ শে জানুয়ারি, ২০২০ রাত ৩:৩৩

অনল চৌধুরী বলেছেন: ইসরায়েল সম্পর্কে আপনার কোন সঠিক ধারণা আছে বলে মনে হয় না। আপনি নিশ্চয় বুঝেন না, কি করে ভারতে মোঘল ও অন্যান্য শাসনকর্তাদের দেশ থেকে বৃটিশ ২ টি দেশ জন্ম দিয়েছিলো! -বৃটিশ কোনো দেশের জন্ম দেয়নি।
উগ্র হিন্দুবাদীদের কারণেই দেশ দুইভাগ হয়েছে।
না হলে দেশ হতো ইউরোপের মতোই কয়েক ডজন।
দুই দেশই জোর করে বহু জাতির স্বাধীনতাকে দমন করে রেখেছে।
১৯৪৭-এর পর এক বাংলাদেশ ছাড়া আর কোনো দেশের সৃষ্টি হয়নি।

১৯ শে জানুয়ারি, ২০২০ ভোর ৪:৫৬

চাঁদগাজী বলেছেন:



বর্তমান বিশ্বে টোকাই দেশ দিয়ে কি হবে?

২৩| ২২ শে জানুয়ারি, ২০২০ রাত ৩:১৯

অনল চৌধুরী বলেছেন: এ্যামেরিকা বিশ্বের সবচেয়ে বড় খুনী টোকাইদের দেশ।
তারপর আছে ক্যানাডা,অষ্ট্রেলিয়া আর নিউজিল্যান্ড।
এসব দেশ খুনী সাদা টোকাইরা আদিবাসীদের কাছ থেকে দখল করে নিয়েছে।

২২ শে জানুয়ারি, ২০২০ ভোর ৬:৪১

চাঁদগাজী বলেছেন:



এইভাবে পড়লে ও কাজ না করলে, আমরাও বিশ্বের জন্য আদিবাসীতে পরিণত হতে পারি।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.