নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

সম্পদহীনদের জন্য শিক্ষাই সম্পদ

চাঁদগাজী

শিক্ষা, টেকনোলোজী, সামাজিক অর্থনীতি ও রাজনীতি জাতিকে এগিয়ে নেবে।

চাঁদগাজী › বিস্তারিত পোস্টঃ

কলকাতায় কেন পদ্মার ইলিশ?

২৬ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ৯:৩১



যারা পদ্মাকে হত্যা করছে, তাদেরকে কেন পদ্মার ইলিশ খেতে দেয়া হবে?
তাদের জন্য শক্ত শেলের কাঁকড়া পাঠানোর দরকার ছিলো; কলকাতায় ৭ হাজার টন ইলিশ রপ্তানী করাটা বেশ বড় ধরণের অন্যায় কাজ হয়েছে; এমনিতেই বাংলাদেশে ইলিশের দাম নিয়ে ক্রিমিন্যাল কাজ করে চলেছে মাছ ব্যবসায়ীরা; সরকার সেটা না থামায়ে, অকারণে কলকাতায় ইলিশ রপ্তানীর সুযোগ করে দিয়ে আরো বড় অন্যায় করে যাচ্ছে রীতিমতো। বস্তীর গরীব মানুষদের ছেলেমেয়েরা টেলিভিশনে ইলিশ মাছ দেখে, নাটকে ইলিশ মাছ দেখে, কিন্তু নিজ ঘরে ইলিশ মাছ দেখতে পায় না। সেদিক থেকে টোকাইরা ভাগ্যবান, ওদের অনেকেই রেষ্টুরেন্টে একবেলা, একটুকরো ইলিশ মাছ কিনে খেতে পারে, এদের অনেকই আয় করতে শিখেছে।

কলকাতায় যারা ইলিশ মাছ রপ্তানীর সুযোগ পায়, এরা কি আসল রপ্তানীকারক, নাকি মাফিয়া ধরণের লোকজন সেটাও জানা মুশকিল; এরা কি ডলার আনছে, নাকি মাদক আনছে ভারত থেকে সেটা কে খেয়াল রাখছে! এমন কি ডলার আনলেও, ৭ হাজার টন ইলিশের ডলারের জন্য বাংলাদেশ বসে নেই; হয়তো শ্রীলংকার জন্য উহা একটি সংখ্যা।

বাংলাদেশে ডলার আয়ের কাজ করেন গার্মেন্টস'এর মেয়েরা; এরা কয়বেলা ইলিশ কিনতে পারবেন? আমি ২/৪ জন ব্লগারের অবস্হা দেখেছি, যাঁদের পক্ষে ইলিশ কেনা কঠিন ব্যাপার!

মাছ-মাংসে ও অন্যান্য খাবারে কেমিক্যাল মিশায়ে জাতিকে পংগু বানায়ে দিচ্ছে ব্যবসায়ীরা; পুকুরের মাছে চেয়ে সামুদ্রিক মাছ কিছুটা নিরাপদ আমিষ; সেজন্য প্রতিটা ইলিশকে হিসাবে রাখার দরকার। কলিকাতার মানুষ কি আমাদের এমন বন্ধু যে, যাদেরকে না খাওয়ালে আমাদের গলা দিয়ে ইলিশ নীচের দিকে নামছে না? একা মমতাদির ভালোবাসার কারণেই ইলিশ রপ্তানী বন্ধ করার দরকার। মমতাদির ভালোবাসার কারণে পদ্মায় কেছকি মাছে পাওয়া যাচ্ছে আজকাল; ভবিষ্যতে গুগলী ও কাঁকড়া পাওয়া যাবে।



মন্তব্য ৮১ টি রেটিং +৫/-০

মন্তব্য (৮১) মন্তব্য লিখুন

১| ২৬ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১০:২৪

সত্যপথিক শাইয়্যান বলেছেন:


ভারতে সব ইলিশ বাংলাদেশে চলে এসেছিলো।

সেগুলোই ফেরত দেওয়া হলো, একটু অন্য ভাবে। :)

২৬ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১০:২৫

চাঁদগাজী বলেছেন:



গংগা থেকে ভাটিতে নামছে ইলিশ? আপনি তো আজগুবি গল্পের মানুষ!

২| ২৬ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১০:২৪

আমার চিরকুট বলেছেন: আমার মনে হয় বাংলার কম আয়ের মানুষরা ঝাটকা সাইজের ইলিশ মাছ খেয়েই সন্তুষ্ট, বড় ইলিশ মাছ যেটার ঘ্রাণ সারা বাড়ি ছড়ায় ঐটা তাদের নাগালের বাইরে।

২৬ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১০:৩৫

চাঁদগাজী বলেছেন:



ইলিশ যাহা পাওয়া যাচ্ছে, তা বাংলাদেশেই আছে; খাচ্ছে চোর-ডাকাতেরা, সাধারণ মানুষ উহা কিনতে পারার কথা নয়; বিদেশে সামান্য রপ্তানী হয়। নিউইয়র্কে ও আরবদেশে যেগুলো বিক্রয় হয়, সেগুলোর বড় আংশ বার্মার।

৩| ২৬ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১০:৩৯

কামাল১৮ বলেছেন: প্রতি বছর রপ্তানি করা হয় না।যে বছর বেশি ধরা পরে সেই বছর রপ্তানি করা হয়।মজুতদাররা কারসাজি করে দাম বাড়িয়ে দেয়।ভারতের সাথে রপ্তানি ঘাটতি অনেক বেশি তাই ইলিশ দিয়ে কিছুটা কমিয়ে আনা।

২৬ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১০:৪২

চাঁদগাজী বলেছেন:


ভারতের সাথে কত বিলিয়ন ডলারের বাণিজ্য ঘাটতি কত ডলারের ইলিশ যায়? আপনারা সবকিছুতে ব্যাখ্যা খুঁজে পান। আমিষ দিয়ে মাদক কেনাটা বাণিজ্য নয়।

৪| ২৬ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১০:৫২

আগন্তুক৬৯ বলেছেন: নিউইয়র্কে বাংগালীরা নিয়মিত ইলিশ মাছ খেতে পারে না কালেভদ্রে খায়।

২৬ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১০:৫৮

চাঁদগাজী বলেছেন:



নিউইয়র্কের খুব কম মানুষই বাংলার ইলিশ কেনার ক্ষমতা রাখেন; বাংলাদেশী বড় ইলিশ "প্রতি পাউন্ড ২২ ডলার", কেজি ৪৪ ডলার।

৫| ২৬ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১১:০৬

শেরজা তপন বলেছেন: ২০০২-৩ সালে হুগলী নদীতে ইলিশ ধরা হয়েছিল-৬২,৬০০ টন। সেখানে বাংলাদেশে ছিল প্রায় দুই লাখ টন। ২০১৭/১৮ তে হুগ্লী নদীতে ইলিশ ধরা পরে ২৭ হাজার ৫৩৯ টন সেখানে বাংলাদেশে ৫১৭০০০ টন। ওপারে কমেছে ৫৬% এপারে বেড়েছে ১৬০

এর মুল কারন হচ্ছে ফারাক্কা বাধ! ওদের মোহনায় দ্রুত পলি জমে যাচ্ছে- মাছ নদীতে আসতে পারছে না(মোহনা নুন্যতম ৪০ ফুট গভীর না হলে ইলিশ মাছ সাচ্ছন্দ্যে চলাচল করতে পারে না)। তারপরে হুগ্লী নদীর চরম পানি দুষনের কারনে ইলিশ মাছ তাঁর গতিপথ পরিবর্তন করেছে।
ফারাক্কা শুধু আমাদের নয় ওদের ও সর্বনাশ ডেকে এনেছে!

২৬ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১১:১৫

চাঁদগাজী বলেছেন:



ফারাক্কার ফলে হুগলীতে স্রোত বাড়ছে, না কমছে?

৬| ২৬ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১১:৫১

হাবিব বলেছেন: বাজারে ইলিশ কিনতে গিয়ে বারবার ফিরে আসি। ইলিশের যে দাম! ১ কেজি ইলিশের টাকায় এক সপ্তাহ চলা যাবে

২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১:৫০

চাঁদগাজী বলেছেন:



এখন বাংলাদেশে কিলোগ্রাম কত টাকা? নিউইয়র্কে ৪৪ ডলার।

৭| ২৬ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১১:৫৪

রাজীব নুর বলেছেন: শেখ হাসিনা চান তাই আমাদের ইলিশ কলকাতায় যাচ্ছে। শুনেছি ঢাকার চেয়ে কলকাতায় ইলিশ সস্তা।
ভারতের সাথে সম্পর্ক ধরে রাখতে আদান প্রদানের প্রয়োজন আছে।
এবার আমাদের দেশে ইলিশ অনেক হয়েছে। তবে দাম বেশি। দেড় কেজি ওজনের একটা ইলিশ ১৭৫০ টাকা।

আজ দুপুরে ইলিশের ডিম দিয়ে হোটেলে ভাত খেয়েছি। এক পিস ডিমের দাম নিয়েছে ১৪০ টাকা।

২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১:৫২

চাঁদগাজী বলেছেন:



চীনের সাথে সম্পর্ক রাখতে রাস্তার কুকুর ধরে পাঠাতে হবে?


ইলিশের ডিম তো সস্তা মনে হচ্ছে!

৮| ২৬ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১১:৫৫

ঊণকৌটী বলেছেন: ত্রিপুরা থেকে বলছি 20% ইলিশ মাছ যদি সরকারি ভাবে আসে তবে 80% মাছ সেরা মাছ এমনিতেই আসে শুধুমাত্র ইলিশ নয় যে কোনও মাছ,সে আটকানোর ক্ষমতা বাংলাদেশের সরকারের নাই কারন এইখানে মাছ বিক্রি করে বাংলাদেশের মৎস্য ব্যবসায়ী রা বেশী লাভবান হয়ে থাকেন তো এই ব্যাপারে কান্না কাটি করে কোন লাভ নাই আরেকটা তথ্য জানিয়ে রাখি ইন্ডিয়া পৃথিবীর পঞ্চম রাষ্ট্র মাছ খোর আগে চীন ভিয়েতনাম বার্মা বাংলাদেশের অবস্থান আরো পেছনের দিকে ভারতের দিকে প্রথম দিকে আছে লা ক্ষ দ্বীপ ত্রিপুরা পঞ্চম স্থানে ওয়েস্ট বেঙ্গল এর আগে কিন্তু আপনি ভালো করেই জানেন যে এই রাজ্যে টি পাহাড়ী তো কারন আপনার জীবনের অনেকটা স্মরণীয় মুহূর্ত এই দুর্গম অঞ্চলে তো ত্রিপুরার ভারতের মধ্যে পঞ্চম স্থানে মাছ খাওয়ার রাজ্য হিসাবে স্থান পাওয়ার পেছনে যে গত বাংলাদেশের ভূমিকা আছে আছে সেটা অনস্বীকার্য আর আপনার ইলিশ মাছের কথা সেটা ওয়েস্ট বেঙ্গল এর জন্য প্রযোজ্য সারা দেশের জন্য না আপনার জানা দরকার ভারতের পঞ্চাশ শতাংশ মানুষ সম্পূর্ন নিরামিষ আহার গ্রহণ করে

২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১:৫৬

চাঁদগাজী বলেছেন:



হরিণা ও পংবাড়ীর জন্য, এবং '৭১ সালের সাহায্যের জন্য ত্রিপুরাকে ভালোবাসি; মাছ দেয়া হোক ত্রিপুরাকে, কলকাতাকে নয়।

৯| ২৬ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১১:৫৬

মরুভূমির জলদস্যু বলেছেন: দাদাদের বঞ্চিত করতে মানচায় না অনেকের। আমরা নাহয় একটি বেশী দামের খেলাম।

২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১:৫৯

চাঁদগাজী বলেছেন:


মমতা বাংলাদেশের মানুষের প্রতি যেই অবিচার করছেন, উনাকে লোনা শাক ও কাঁঠালের বিচি ছাড়া আর কিছু দেয়া সঠিক হবে না।

১০| ২৬ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১১:৫৮

রাজীব নুর বলেছেন: বাজার ভরতি ইলিশ। এত এত ইলিশ কিনছে কারা?
ইলিশের বাজারে গেলে দেখা যায় বহু লোক ১৫/২০ কেজি করে বড় বড় ইলিশ কিনছে।

২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ২:০১

চাঁদগাজী বলেছেন:



যারা কাজ করে না, ঋণের নামে ব্যাংক ডাকাতী করে, সেক্রেটারীয়েটে কাজ করে, টেন্ডার নিয়ে কাজ না করে বিল তোলে, ওরা ইলিশ খাচ্ছে।

১১| ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১:০৫

স্বামী বিশুদ্ধানন্দ বলেছেন: @ঊনকোটি:
আমার সহকর্মীদের সিংহভাগই ভারতীয়। এদের মধ্যে বাংলা, ত্রিপুরা ও উড়িষ্যা ছাড়া অন্য অঞ্চলের লোকজন তেমন মাছ খায় না। আমার অফিসে আমি (বাংলাদেশী) সহ চীনা, ফিলিপিনো ও ভিয়েতনামিজ ও কিছু ল্যাটিন আমেরিকার কলিগরা প্রচুর মাছ খায়।

ওয়ার্ল্ড এটলাস অনুসারে প্রথম ১০ টি মাছখেকো রাষ্ট্রের মধ্যে ভারতের নাম গন্ধও নেই। আপনি কথা থেকে "ভারত পৃথিবীর পঞ্চম রাষ্ট্র মাছ খোর" এই তথ্য দিলেন সেটার সূত্র দিলে ভালো হতো।

Rank Country Value (Tonnes)
1 China 2,035,262.17
2 Myanmar 1,501,415.06
3 Vietnam 1,148,447.43
4 Japan 730,783.86
5 India 486,967.03
6 Malaysia 324,789.28
7 Mexico 217,102.65
8 Cote d'Ivoire 162,782.48
9 Indonesia 135,624.28
10 Mozambique 124,861.2


সূত্র: ওয়ার্ল্ড এটলাস কম
ওয়ার্ল্ড এটলাস কম

১২| ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১:১৩

স্বামী বিশুদ্ধানন্দ বলেছেন: দুঃখিত ঊনকোটি - আমার মন্তব্যে টাইপোর জন্য।

আমার মন্তব্যের দ্বিতীয় প্যারায় "প্রথম ১০ টি মাছখেকো রাষ্ট্রের মধ্যে ভারতের নাম গন্ধও নেই" অংশটি ভুলক্রমে চলে এসেছে। সংশোধিত দ্বিতীয় প্যারাটি হবে :

আপনি কোথা থেকে "ভারত পৃথিবীর পঞ্চম রাষ্ট্র মাছ খোর" এই তথ্য দিলেন সেটার সূত্র দিলে ভালো হতো। ওয়ার্ল্ড এটলাস অনুসারে :

২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ২:০৭

চাঁদগাজী বলেছেন:



ভারতের সমুদ্র উপকুলের লোক সংখ্যা মনে হয়, বাংলাদেশ থেকে বেশী হবে!

১৩| ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১:৫৭

নেওয়াজ আলি বলেছেন: আমরা খুব ভালো মানুষ তাই কলকাতায় সস্তায় বিক্রি করে দেশে বেশী দামে বিক্রিও করি

২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ২:০৫

চাঁদগাজী বলেছেন:



সস্তার পেছনে কি ফাইন্যান্সিং কাজ করছে কে জানে! নিশ্চয় শেখ হাসিনা মাছের ব্যবসা করেন না। মনে হয়, মাছ রপ্তানীর টাকা/ডলারে লাভজনক কিছু আনে, অথবা মাদক আনে।

১৪| ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ২:৪৩

অধীতি বলেছেন: নিউ ইয়র্কে এক কেজি ইলিশের দামে চাঁদে জমি কেনা যাবে

২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ৩:৩৮

চাঁদগাজী বলেছেন:



চাঁদে যেজন জমি কিনছে, সে প্রমাণিত উন্মাদ।

১৫| ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ ভোর ৪:৪৮

স্বামী বিশুদ্ধানন্দ বলেছেন: দেখুন চাঁদগাজী, চাঁদ আপনার একক সম্পত্তি নয়। আমাদের সবারই চাঁদে জমি কেনার অধিকার আছে। আর আপনার মনোপলি খর্ব করার জন্য ইতিমধ্যেই সাঈদী সাহেব চাঁদের অন্ধকার অংশে দখল নেয়া শুরু করেছেন। =p~

২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ ভোর ৫:১৪

চাঁদগাজী বলেছেন:




আমার নিকের বদৌলতে আমি চাঁদের কিছুটা পেয়ে গেছি; যারা চাঁদকে ভালোবাসে, কিন্তু নিজকে বেকুব হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে চায়, তারা সেখানে যায়গা ক্রয় করছে।

১৬| ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ সকাল ৯:৩১

বিটপি বলেছেন: ইলিশ রপ্তানি না করলেই যে সস্তায় ইলিশ পেয়ে যেতেন - এ কথা কল্পনাতেও আনবেন না। ইলিশ যখন খুব সস্তা থাকে তখনো ইলিশ কেনার নিয়ত করলে পকেটে দুইটা এক হাজার টাকার নোট রাখা লাগে। এর কারণ বেশি দামে একটা ইলিশ কিনলে বিক্রেতা অফার করবে কম দামে আরেকটা কিনে নেবার জন্য - যাতে আপনার পুষিয়ে যায়!

প্রতি বছর এই সময়ে কলকাতায় দূর্গোতসব হয়। সেই উৎসবে ইলিশ বলতে পারেন বাংলাদেশের একরকম পার্টিসিপেশন। ইলিশ রপ্তানি বন্ধের মত ক্ষুদ্র ইস্যু নিয়েও অনেক বড় কোন সমস্যা হতে পারে। নিজেরা যখন খেতে পারছিই না, প্রতিবেশীর সাথে সম্পর্ক নষ্ট করে লাভটা কি?

২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ বিকাল ৪:২১

চাঁদগাজী বলেছেন:



প্রতিবেশী পদ্মা হত্যা করছে, এটা তাকে স্মরণ করে দেয়ার দরকার।

১৭| ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ সকাল ৯:৩৯

শূন্য সারমর্ম বলেছেন:

মাদক নিয়ে আসে?

২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ বিকাল ৪:২২

চাঁদগাজী বলেছেন:


পেনসিডিল, বিয়ার ও মদ আসে ভারত থেকে

১৮| ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ সকাল ৯:৫৮

কালো যাদুকর বলেছেন: আপনি একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রসম্গে কথা বলেছেন। ফারাক্কাতে বাঁধ দিয়ে রাখা হল, উত্তরাঞ্চল মরুকরন করা হল, অথচ খাতির করে ইলিশ পাঠান হচ্ছে। এটি অবশ্যই একটি অযৈক্তিক পলিসি। এটি মানতে পারছি না। যেন গলাতে ইলিশের কাঁটা বিধল।
আমরা অন্যান্য ক্ষেত্রেও একই রকম চেহারা দেখি , একই বিপরীত নীতি অবস্থা দেখতে পাই।

এখানে মন্তব্যগুলো পড়ে একটু আশাহতই হলাম। মিনমিনে নরম নরম কথার মন্তব্য।

@শেরজা তপন একটি গুরুত্বপূর্ণ কথা বলেছেন। ফারাক্কা শুধু যে উত্তরাঞ্চল মরুকরন করেছে তা নয়, "up stream" ও ব্যাপক ক্ষতি করেছে। ফারাক্কার মত বাঁধ অন্যান্য দেশেও আছে। তবে সবার সার্থেই পানি বন্টন করা হয় আর্ন্তজাতিক নিয়ম মেনে বেশির ভাগ ক্ষেত্রে। এগুলো যখন মানা হয় না, তখন "মরুকরন" হয়, নদীর "flow path" পরিবর্তন হয়, নদী দুষিত হয়, যেটা ফারাক্কার ভারত সাইডেও দেখা যাচ্ছে।

আমার মতে ভারতে ইলিশের কাঁটা পাঠান উচিত ছিল। ইলিশ নয়। দরকার হলে ইলিশ গারমেন্টসের কর্মিদের নামমাত্র মূল্যে খাওয়ানো যেতে পারে। তবুও ভারতে ইলিশ রপ্তানীর প্রোয়জন দেখছি না।

২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ বিকাল ৪:২৫

চাঁদগাজী বলেছেন:


ফারাক্কার প্রতিবাদ হিসেবে প: বাংলায় ইলিশ পা ঠানো বন্ধ করার দরকার; রপ্তানী যারা করছে, তারা এসব মনে রাখে না

১৯| ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ সকাল ১০:১২

মহাজাগতিক চিন্তা বলেছেন:



পরের কারণে স্বার্থ দিয়া বলি এ জীবন মন সকলি দাও
তার মত সুখ কোথাও কি আছে? আপনার কথা ভুলিয়া যাও।

২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ বিকাল ৪:২৬

চাঁদগাজী বলেছেন:



পশ্চিম বাংলার লোকজন তো ফারাক্কার ফাঁদের বিপক্ষে কথা বলে না।

২০| ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ সকাল ১০:১৭

গফুর মিয়া১৯১ বলেছেন: কলকাতার বাজারে স্লোগান, কোনও অভাব পড়তে দেবে না হাসিনা সরকার

২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ বিকাল ৪:২৮

চাঁদগাজী বলেছেন:


কলকাতার লোকজন পদ্মার খবর রাখে?

২১| ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ সকাল ১০:১৮

গফুর মিয়া১৯১ বলেছেন: ধানত তিন কারণে ইলিশের দাম বেড়ে গেছে। ভারতে ইলিশ রপ্তানির চাপ, জো না থাকায় মাছ কিছুটা কম ধরা পড়ছে আর ৪ অক্টোবর থেকে ইলিশ ধরায় নিষেধাজ্ঞা।

২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ বিকাল ৪:২৯

চাঁদগাজী বলেছেন:



ইলিশ মাছ নিয়ে বাংলাদেশে হাইপের সৃষ্টি করে দাম বাড়ায়েছে আড়তধারেরা।

২২| ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ সকাল ১০:১৯

গফুর মিয়া১৯১ বলেছেন: আমাদের দেশের উৎপাদিত ইলিশের স্বাদ নেবে ভারত কিংবা ভিনদেশিরা এটা কি মেনে নেয়া যায়? আমাদের জাতীয় মাছ ইলিশ আগে আমরা খাব পরে রপ্তানি হবে। দেশের মানুষকে ইলিশ খাওয়ার সুযোগ থেকে বঞ্চিত করে রপ্তানিকারক আর বিদেশি আমদানিকারকদের পকেট ভারী করতে দেবেন না প্লিজ। বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, ইলিশ রপ্তানির ওপর থাকা নিষেধাজ্ঞা তুলে নিলে দেশের বাজারে ইলিশের দাম আকাশছোঁয়া হয়ে যাবে। এমনিতেই চোরাপথে পাচারসহ নানাভাবে পার্শ্ববর্তী দেশে যাচ্ছে বাংলার ইলিশ। মনে রাখতে হবে, সরকারের দায়িত্ব সাশ্রয়ী মূল্যে জনগণকে অন্তত মৌসুমে ইলিশ খাওয়ার সুযোগ করে দেয়া। পুষ্টি চাহিদার জন্যও ইলিশ খাওয়া প্রয়োজন

২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ বিকাল ৪:৩১

চাঁদগাজী বলেছেন:


বাংলাদেশে যারা চুরি ডাকাতী করে কোটী কোটী টাকা আয় করছে, তাদের কারণে ইলিশ হাইপে পরিণত হয়েছে।

২৩| ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ সকাল ১০:২০

গফুর মিয়া১৯১ বলেছেন: রপ্তানির ক্ষেত্রে নানা অসাধু উপায়ের আশ্রয় নিতেন দুই দেশের আমদানি ও রপ্তানিকারকরা যা প্রথম ধরা পড়ে ২০০৭ সালে ওয়ান-ইলেভেনের সময়। দেশের বাজারের চেয়ে কম দামে কলকাতায় ইলিশ বিক্রির খবর প্রকাশিত হয় একটি জাতীয় দৈনিকে। এ নিয়ে তোলপাড় সারাদেশ। বিষয়টি প্রমাণ হলে বিদেশে ইলিশ রপ্তানি বন্ধ করে দেয় তৎকালীন সরকার। তখন এ সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে ভারত-বাংলাদেশের আমদানি ও রপ্তানিকারকরা অনেকটা যৌথভাবে আন্দোলনে নামেন! ভারতীয় আন্দোলন করবে তাদের স্বার্থে, কিন্তু আমাদের দেশের রপ্তানিকারকরা কার স্বার্থে আন্দোলন করেন? দেশের মানুষের প্রতি, দেশের সম্পদের প্রতি, দেশের কৃষ্টি-সভ্যতার প্রতি তাদের কি কোনো দায় নেই! যদিও রপ্তানি বন্ধ থাকলেও স্থল আর নৌ-রুটের চোরাইপথে প্রতিদিন শত শত মণ ইলিশ যাচ্ছে পশ্চিমবঙ্গে। দেশের কিছু অসাধু ব্যবসায়ী জড়িত এর সঙ্গে। সমুদ্রপথেও পাচার হচ্ছে ইলিশ। আমরা জানি, ১৯৮৬ সাল থেকে শুরু হয় ইলিশ হ্রাসের কারণ নির্ণয়ের গবেষণা। তখন জানা যায়, ইলিশের পোনা জাটকা অবাধে নিধনের কারণেই ইলিশ কমে যাচ্ছে। জাটকা নিধন বন্ধ হলেই ইলিশের উৎপাদন বাড়বে। শুরু হয় জাটকা নিধন বন্ধের সামাজিক আন্দোলন। ফলে ইলিশের উৎপাদন বৃদ্ধি পায়। তবে অভিযোগ আছে, সরকারি লোকদের সঙ্গে জাটকা ধরার জেলেদের চোর-পুলিশ খেলার মধ্য দিয়ে প্রতিবছর শত শত টন পূর্ণাঙ্গ ইলিশ পাচার হচ্ছে। এক পরিসংখ্যানে দেখা যায়, ১৯৮৬-৮৭ সালে দেশে ইলিশ উৎপাদন হতো ১৯৪.৯৮১ মেট্রিক টন। ২০১১-১২ সালে উৎপাদন বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩ লাখ ৪০ হাজার মেট্রিক টন। এমন সাফল্য অর্জন সম্ভব হয়েছে মৎস্য গবেষণা ইন্সটিটিউটের বিজ্ঞানীদের গবেষণা আর সরকারের নানামুখী পদক্ষেপের কারণে। কিন্তু ইলিশ গেল কই। মৎস্য কর্মকর্তারা বলছেন, প্রজননের জন্য যেসব ইলিশ মেঘনা, তেঁতুলিয়া নদীসহ মিঠা পানিতে আসে, এসব ইলিশের জন্য চাই গভীর পানি। মেঘনায় অসংখ্য ডুবোচর সৃষ্টি হওয়ার ফলে ইলিশ অবাধে বিচরণ করতে পারছে না ফলে ভরা মৌসুমেও ইলিশ পাওয়া যাচ্ছে না। আবার নদীগুলোর গভীরতা কমে যাওয়ায় ডিম পাড়তে ইলিশ আসছে না। এ কারণে নদীতে এখন ইলিশ নেই। ইলিশ মাছের উৎপাদন কমে যাওয়ার অনেক কারণ রয়েছে_ ইলিশের উৎস হিসেবে পরিচিত মেঘনার শাহবাজপুর চ্যানেলে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ ধরা পড়ে। এখন সেখানে ট্রলার চলাচল করায় ইঞ্জিনের বিকট শব্দে ইলিশ আসে না। নদীতে ডুবোচর রয়েছে। এটাও ইলিশ না আসার আরেকটি কারণ

২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ বিকাল ৪:৩৩

চাঁদগাজী বলেছেন:



বাংলাদেশ, চীন, ভারতে পরিবেশ রক্ষার ব্যাপারে কারো দায়িত্ব নেই।

২৪| ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ সকাল ১০:২১

গফুর মিয়া১৯১ বলেছেন: ‘কোভিড-টিকা পাঠায়নি দিল্লি­, ইলিশও আসছে না ঢাকা থেকে’ ভারতের পশ্চিমবঙ্গের আনন্দবাজার পত্রিকার অনলাইনে এমন খবরে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন বলেছেন, আমরা এত নীচু মানসিকতার নই।

২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ বিকাল ৪:৩৬

চাঁদগাজী বলেছেন:




আপনি চোরাপথের কথা বলেছেন; রপ্তানীর তো দরকার হচ্ছে না। চোরাপথ বন্ধ হবে না।

২৫| ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ সকাল ১০:২২

গফুর মিয়া১৯১ বলেছেন: ভারত-বাংলাদেশ সম্পর্কে ইলিশ এক কূটনৈতিক প্রতীকও বটে। এর আগে স্থলসীমান্ত চুক্তি সই করতে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যখন ঢাকায় গিয়েছিলেন, ইলিশ নিয়ে কিছুটা রসিকতার ঢংয়ে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে কথা হয়েছিল তার। ভোজের তালিকায় ইলিশের পঞ্চপদ দেখে মমতা হাসিনাকে প্রশ্ন করেছিলেন, কেন তারা ইলিশ আটকে রেখেছেন? শেখ হাসিনার জবাব ছিল, তিস্তার পানি এলেই মাছ সাঁতার কেটে চলে যাবে ওপারে!

২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ বিকাল ৪:৩৭

চাঁদগাজী বলেছেন:



আমাদের মাঝে ও ভারতের মাঝে ভালো সম্পর্ক কোনদিনও হবে না, ২ দেশের মানুষের মনোভাব ভালো নয়।

২৬| ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ সকাল ১০:২২

জুল ভার্ন বলেছেন: স্ত্রীর বাড়ি থেকে স্বামী বাড়ি ইলিশ উপডৌকন!

২৮ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ সকাল ৯:৫৯

চাঁদগাজী বলেছেন:



বাংলাদেশের কেহ বারতকে পছন্দ করে না; তারপরও এগুলো কেন হচ্ছে?

২৭| ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ সকাল ১০:৫২

আলমগীর সরকার লিটন বলেছেন: ইলিশ মাছ খেলে এলার্জি হয় তাই ইলিশ মাছ খায় না হাইস্কুল কলেজে পড়তাম তখন খুব খাইতাম দমও কমছিল

২৮ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ সকাল ১০:০০

চাঁদগাজী বলেছেন:


মাছে এলার্জি? আপনি বাংগালী কিনা?

২৮| ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ সকাল ১০:৫৩

হাসান কালবৈশাখী বলেছেন:
শেরজা তপন যে পরিসংখান দিয়েছেন ২০০২-৩ সালে বাংলাদেশে ছিল প্রায় দুই লাখ টন। বর্তমানে ৫ লাখ টন।
সরকারের বছরে দুই দফা জেলেদের ভাতা দিয়ে ৩ সপ্তাহ মাছধরা বন্ধ করা ইত্যাদি পদক্ষেপে ইলিশের সাইজ ও উৎপাদন অনেক বেড়েছে। অন্যান্ন মিঠা পানির মাছের উৎপাদনও বহুগুন বেড়েছে। চাষের মাছও বহুগুন বেড়েছে।

৫ লাখ টন ইলিশের মাত্র ৬,৫০০টন রফতানি অনুমতি দেয়া হয়েছে। ১% বলা যায়। এত কম কেন?
যেখানে সারা পৃথিবী রফতানিযোগ্য মাল খুজে পায় না, কাচামাল আমদানি করে হাড়ভাংগা খাটুনি, বিদ্যুৎ খরচ দিয়ে উৎপাদন, বাজার খুজে এরপর রফতানি করে, সেখানে জেলেদের ধরা ৫ লাখ টন আটকে রাখার কোন মানে হয় না।
মানুষকে সস্তায় খাইয়ে দরিদ্র জেলেদের ক্ষতি করে কারো লাভ হবে না।
ইলিশ কোন জীবন রক্ষাকারি খাদ্য নয়। চিংড়ির মত ১০০% অবাধ রফতানি সুযোগ দিযয়ে দরিদ্র জেলেদের সর্বচ্চ মুল্য প্রাপ্তির ব্যাবস্থা করা রাষ্ট্রের দায়িত্ব।



২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ বিকাল ৪:১৭

চাঁদগাজী বলেছেন:



ইলিশের দাম বাড়লে তা জেলেরা পায়? জেলেরা ডলার পায়? আপনি বছরে কতবার কিনেছেন ইলিশ?

২৯| ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ সকাল ১১:১৪

নতুন বলেছেন: অভিমানে বিশ্ব চলেনা। ইলিশ রপ্তানির সুযোগ থাকলে সবখানেই রপ্তানি করা উচিত।

কিন্তু ভারতে দাম একটু বাড়িয়ে দেওয়া উচিত কারন এবং সেটার নাম ৫% ফারাক্কা ট্যাক্স করা উচিত। B-))

তাতে ইলিশও পাবে কিন্তু দাম বেশি কেন দেবে সেটাও তারা মনে রাখবে।

২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ বিকাল ৪:৩৯

চাঁদগাজী বলেছেন:


খাবার, বিশেষ করে আমিষ রপ্তানীর ব্যাপারে বাংলাদেশকে ভাবতে হবে, মানুষ অপুষ্টিতে ভুগছে শত শত বছর।

৩০| ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ দুপুর ২:০৮

রানার ব্লগ বলেছেন: নিজেদের দেশের মাছ নিজেরাই খেতে পাই নাই উর্ধ্মুখী দামের কারনে, এক সময় ঢাকায় ইলিস বিক্রি হতো পিস হিসেবে এখন বদমাইশ বিক্রেতারা কেজী দরে দাম রাখে যা মুল দামের দ্বিগুণ। সেই ইলিশ কি আনন্দে সরকার হাজার টন কোলকাতায় পাঠায় এটাই বুঝে উঠতে পারি না। আবার শুনছি ইলিশ রপ্তানী করার পারমিশান দিচ্ছে সরকার, এ যেনো গোঁদের উপর বিষ ফোড়া। আমার দাবি বাংলার প্রতিটি ঘড়ে ইলিশের স্বাদ পর্যাপ্ত পরিমানে পৌছে দিয়ে তারপর যদি থাকে তা ভারত বা অন্যদেশে রপ্তানী করা যেতে পারে।

বদমাইশ, খচ্চর, বেয়াদব, ধান্দাবাজ, মুনাফাখোর বিক্রেতারা ইলিশ কে সাধারন মানুষের ধরা ছোয়ার বাহিরে নিজে যাচ্ছে শ্রেফ তাদের নিজেদের অতি মুনাফার জন্য এটা এখনি বন্ধ হওয়া জরুরী।

২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ বিকাল ৪:১৯

চাঁদগাজী বলেছেন:



কলকাতার বাজারে প্রতি কেজি ইলিশের দাম কত, ঢাকায় কত?

৩১| ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ বিকাল ৪:৪৩

জুন বলেছেন: আমি একজনের কাছে শুনেছি এগুলো গত বছর কোল্ড স্টোরেজে রাখা। এই বছরেও প্রচুর ইলিশ পাওয়ার আশায় এগুলো পুজার উপহার । এরমাঝে অনেকগুলোর চেহারা দেখে মনে হলো ইরাবতীর। সুতরাং চিন্তা করবেন না আমরা টাটকা ইলিশই খাবো :)
মাঝখান থেকে হয়তো টিকা প্রাপ্তি বেগবান হবে ;)

২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ বিকাল ৫:৫৮

চাঁদগাজী বলেছেন:



বাংগালীরা কি ভারতীয় টিকা চেয়েছিলো? টিকা সকেনার সময় চলে গেছে, ২.৫ বিলিয়ন রিলিফের টিকার দিকে তাকিয়ে আছে সরকার।

৩২| ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ বিকাল ৫:০০

নীল আকাশ বলেছেন: ফারাক্কা জাহান্নামে যাক!
উত্তরাঞ্চল মরুকরন না হয়ে পুরো মরুভূমি হয়ে যাক!
তাতে কী?
কিন্তু কলিকাতার মানূষ ইলিশ খাবে না তাই হয় নাকি?
হেড কোয়ার্টার সব সময় ঠান্ডা রাখতে হয়, ভুলে গেছেন নাকি?

২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ সন্ধ্যা ৬:০০

চাঁদগাজী বলেছেন:


শেখ হাসিনা (হেডকোয়ার্টার ) কি ভাবছে, তা জাতিকে জানানো হচ্ছে না, ব্যবসায়ী ও প্রশাসনে ডাকাত

৩৩| ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ সন্ধ্যা ৭:৩৭

Dr.Ruhul Amin Chowdhury বলেছেন: পদ্মার ইলিশ কোলকাতাতে পাঠাতে আপত্তি নেই - ব্যবসায়ে যে কোনো দেশে রপ্তানি হোতে পারে - কিন্তু তা কেনো গারমেন্টস শ্রমিকদের ন্যায় শোষণ করে বেড়ে ওঠার মতো নিতিতে - পাইকারি বাজার দরের চেয়ে কম দামে কেনো ? নিজের ভালো পাগলেও বোঝে - বোঝেনা কেবল আমার দেশের নিতিনির্ধারক আমলারা - অযোগ্যরা সব উচ্চাসনে - নিতি নির্ধারণে -

২৮ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ২:০৯

চাঁদগাজী বলেছেন:



রপ্তানীকারকেরা কোথা থেকে কিনে যে, উহা দেশের থেকেও কম দামে দিতে পারে?

৩৪| ২৮ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১২:০০

আহমেদ জী এস বলেছেন: চাঁদগাজী,




শিরোনামের প্রশ্নটি শুধু আপনারই নয়, প্রশ্নটি সব বাংলাদেশীদের!

যে প্রতিবেশী তিস্তার পানি আটকে রেখে আমাদের শুকিয়ে মারে, নিত্য আমাদের গুলি করে মেরে বর্ডারের কাঁটাতারে ঝুলিয়ে রাখে সে প্রতিবেশীর দিকে থুথু ফেলা তো দূর, তাকানোও উচিৎ নয়। কান যাদের দু'টোই কাটা থাকে তারাই এমন করে সব উজার করে, সব খুলে দিয়ে নিজে ন্যাংটো থাকলেও লজ্জা পায়না.........
..

২৮ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ২:১১

চাঁদগাজী বলেছেন:



যারা পদ্মাকে হত্যা করছে, পদ্মার ইলিশ ওদের দেশে রপ্তানী করা বেকুবের কাজ।

৩৫| ২৮ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১২:০৬

ইমরান আশফাক বলেছেন: চীনের সাহায্যে তিস্তাার প্রস্তাবিত বিশাল প্রকল্পটি যদি সফল হয়, আমরা তাহলে ফারাক্কা বাধের বিপরিতেও অনুরুপ প্রকল্পের কথা চিন্তা-ভাবনা করতে পারি।

২৮ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ২:১২

চাঁদগাজী বলেছেন:




চীন কেন তিস্তা প্রকল্প করবে, বাংগালী ইন্জিনিয়ারেরা কি মরে গেছে?

৩৬| ২৮ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ সকাল ৮:৫৮

রানার ব্লগ বলেছেন: কোলকাতার বাজারে কেজি প্রতি ভালো সাইজের ইলিশ ১৮০০ থেকে ২০০০ টাকা

বাংলাদেশও প্রাই একই দর

২৮ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ সকাল ১০:০২

চাঁদগাজী বলেছেন:



ধন্যবাদ। এত দাম দিয়ে কলকাতার মানুষ ইলিশ খায়? ওখানে তো চুরি-ডাকাতী কম!

৩৭| ২৮ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ দুপুর ১২:০৭

নতুন বলেছেন: লেখক বলেছেন:খাবার, বিশেষ করে আমিষ রপ্তানীর ব্যাপারে বাংলাদেশকে ভাবতে হবে, মানুষ অপুষ্টিতে ভুগছে শত শত বছর।

ইলিশ রপ্তানী দেশের আমীষের অভাব বাড়াবেনা। আমীষের অভাব পুরুনের জন্য অন্য বড় চিন্তা শুরু করতে হবে।

ইলিশ আমাদের জন্য প্রস্টিজিয়াস প্রোডাক্ট। আমাদের ইলিশ আছে সেটা বিশ্বে ছড়িয়ে দিতে হবে। ইলিশের কাটা না থাকলে অবশ্যই স্যামনের চেয়ে বেশি জনপ্রিয় হতে পারতো স্বাদ এবং সুগ্রানের জন্য।

২৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ ভোর ৪:৪৩

চাঁদগাজী বলেছেন:



রপ্তানী হচ্ছে, কিন্তু গরীব দেশ থেকে খাদ্য রপ্তানী উচিত কাজ নয়।

৩৮| ২৮ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ দুপুর ১২:১৯

জুন বলেছেন: কাল কোন পেপারে পড়লাম বাংলাদেশের মানুষ নাকি এখন জাটকা খাচ্ছে, আর আমাদের পাঠানো বড় বড় ইলিশ প্রতিবেশীরা খাচ্ছে :(

২৮ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ সন্ধ্যা ৬:২৯

চাঁদগাজী বলেছেন:


মানুষ যদি জটকা বিক্রেতাদের প্রতিরোধ করতো, উহা খাওয়ার দরকার হতো না; আমি নিউইয়র্কে যত বড় ইলিশ দেখেছি, বাংলাদেশে সম-ওজনের ইলিশ দেখেছি; কলিকাতার কথা আমি জানি না। কলিকাতার বাজারে ২ মাসে ৭ হাজার টন মাছ যখন বিক্রয় হয়েছে, সেখানে হুগলীর মাছ কমপক্ষে ২০ হাজার টন বিক্রয় হয়েছে; ফলে, বাংলাদেশ থেকে কি ধরণের মাছ গেছে, ভেতরের লোক ছাড়া সাধারণ মানুষ জানার কথা নয়।

৩৯| ২৮ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ৮:০৭

নিমো বলেছেন: রপ্তানীর আগে কি দেশের সবার পাতে ইলিশ উঠত ? যদি না উঠত, তবে তার কারণ কী বলে মনে করেন ? দেশের সবাই কি চিংড়ি খেতে পারে ? সেক্ষেত্রে আপনার অবস্থান কী ? দেশের গরুতো রপ্তানী হয় না, তবে গরুর মাংস সবাই খেতে পায় না কেন ? তা বিপ্লব এত একমুখী হলে চলবে ?

২৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ ভোর ৪:৪০

চাঁদগাজী বলেছেন:


সব সময় কি আগেরো মতোই চলতে হবে?

৪০| ২৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ৮:১৪

নতুন বলেছেন: লেখক বলেছেন:
রপ্তানী হচ্ছে, কিন্তু গরীব দেশ থেকে খাদ্য রপ্তানী উচিত কাজ নয়।


ইলিশ রপ্তানীর আগে কি দরিদ্ররা কিনে খেতে পারতো? আমার মনে পড়ছেনা।

ইলিশ দিয়ে আমিষের ঘাড়তি পুরন করা যাবে না।

কিন্তু ইলিশকে জনপ্রিয় করে বিশ্বে পরিচিত করা সম্ভব, রপ্তানী করে টাকা আনা সম্ভব।

তাই ইলিশ রপ্তানীর কোন বিকল্প নাই।

বরং কিভাবে আরো উতপাদন বাড়ানো যায় এবং রপ্তানী বাড়ানো যায়। আর ভারতে রপ্তানীর সময় ফারাক্কা ট্যাক্স নামে ৫% একটা ট্যাক্স বসাতে হবে যাতে খাবার সময় মনে পড়ে যে বেশি দাম কেন পড়েছে।

৩০ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১২:০১

চাঁদগাজী বলেছেন:



বাংলাদেশের পরিচিত আছে বাহিরে, উহা বদলাবে যদি দেশের অর্থনীতি ও রাজনীতি ভালো দিকে যায়

৪১| ০১ লা অক্টোবর, ২০২১ দুপুর ১২:৫৯

নিমো বলেছেন: লেখক বলেছেন:সব সময় কি আগেরো মতোই চলতে হবে?
হা হা হা! আপনি প্রায়ই বলেন কোন বাঙালি উত্তর দিতে জানে না, প্রশ্নের বিপরীতে পাল্টা প্রশ্ন করে। এখন নিজেও সেঔ কাতারে সামিল হলেন। স্যাম কাকুর দেশে থকে খানিকটা উন্নতিতো হওয়া উচিত ছিল। যাই হোক আপনার প্রশ্নের উত্তর হল, না চলতে হবে না।

০১ লা অক্টোবর, ২০২১ সন্ধ্যা ৬:২৪

চাঁদগাজী বলেছেন:




স্যরি, ইহা একটু বেঠিক হয়েছে।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.