নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

ঢাবিয়ান

ঢাবিয়ান › বিস্তারিত পোস্টঃ

গায়ে হলুদের একাল সেকাল

২৫ শে আগস্ট, ২০২০ বিকাল ৫:২০



আমাদের সময়ে গায়েহলুদ অনুষ্ঠানটা ছিল আত্মীয় স্বজন, বন্ধু বান্ধব সবার অংশগ্রহনে দারুন আনন্দদায়ক এক অনুষ্ঠান। হলুদের স্টেজ সাজানো, বর কনের বাড়িতে পাঠানো হলুদের সামগ্রী কেনাকাটা প্যকিং, খাবার তৈরী সব কিছুতেই থাকতো সবার সমান অংশগ্রহন।চাচী, খালা, মামা থেকে শুরু করে কাজিনরা এবং বর কনের বন্ধু বান্ধবী সবাই সম্মিলিতভাবে হলুদের আনন্দে সামিল হত।

আমাদের সময়ে বর কনের হলুদ অনুষ্ঠান আলদাভাবে অনুষ্ঠিত হত। দুটো হলুদ অনুষ্ঠানই ছিল সে সময়ে যে কোন বিয়ের প্রধান আকর্ষন। সাধারনত বাসার ছাদে বা কারপার্কে প্যন্ডেল খাটিয়ে অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হত। সবাই একই রং এর শারী/ পাঞ্জাবী পড়ে হলুদের অনুষ্ঠানে আনন্দে মেতে উঠত। বর বা কনেকে হলুদ লাগানোর পর্ব শেষ হলে শুরু হত গান বাজনার অনুষ্ঠান। সেই অনুষ্ঠানের পারফর্মাররা ছিল নিজেদেরই লোকজন। হারমোনিয়াম, তবলা, ঢোল বাজিয়ে বসত গানের আসর। তখন হলুদের অনুষ্ঠানে আজকের মত এত খাবার দাবারের আয়োজনও থাকতো না। পরোটা মাংশ বা শুধুই বিরানি এবং মিষ্টি। কিন্ত সাদামাটা সেই হলুদ অনুষ্ঠানে ছিল প্রানের ছোয়া, ছিল নির্ভেজাল আনন্দ। গত বিশ বছরে আমুল বদলে গেছে হলুদ এর প্রোগ্রাম। এখন আর বাসা বাড়িতে হলুদ হয় না। বিয়ের মত হলুদও হয় কমিউনিটি সেন্টারে। বর কনের হলুদ প্রোগ্রামও হয় যৌথ।

দেশের বাইরে থাকায় এখন গায়ে হলুদ, বিয়ের অনুষ্ঠান ফেসবুকেই বেশী দেখতে হয়। দেশে বেড়াতে গিয়ে এক গায়ে হলুদের প্রোগ্রামে যাওয়ার সুযোগ হয়েছিল। সেই প্রোগ্রামে যেয়ে মোটামোটি ভিমরি খাবার দশা। নারী পুরুষ সবাই চোখ ধাধানো সাজগোজ করে অনুষ্ঠানে এসেছে। মনে হচ্ছিল চোখের সামনে শাহ্রুখ খান, ক্যট্রিনা কাইফরা ঘুরে বেড়াচ্ছে! বিয়ে বাড়ীর স্টাইলে বিপুল খাওয়া দাওয়ার আয়োজন । হলুদ লাগানোর পর্ব শেষ হলে শুরু হয় ডিজে পার্টি। অবাক হয়ে দেখলাম যে স্টেজে অল্প বয়সী ছেলেমেয়েরা হিন্দি সিনেমার স্টাইলে নাচগান করছে। আরো অবাক হয়ে দেখলাম যে বর কনেও তাঁদের সাথে যোগ দিয়ে একসাথে নাচগান করছে। হঠাৎ মনে হোল যেন সিনেমা হলে বসে হিন্দি মুভি দেখছি!!

ইদানিং কালে নাকি সবাই শুধু নতুনত্ব খোজে। কার অনুষ্ঠান কত ইউনিক তার নাকি এখন তীব্র প্রতিযোগিতা। আর তাইতো কোভিড সংক্রমনে যখন সারা বিশ্বে সকল প্রকার সামাজিক অনুষ্ঠান বর্জন করা হচ্ছে , তখন আমাদের দেশে এক কনে জাকজমকপুর্ন এক হলুদই শুধু আয়োজন করেনি, হলুদের দিনে তিনি তার বন্ধুদের নিয়ে বাইকের শোভাযাত্রা করেছেন!!

এই প্রজন্মে হলুদ অনুষ্ঠানের নামে নিল্লজ্জতা, বেলেল্লাপনা ও ভীনদেশী বিকৃত সংস্কৃতি অনুকরনের এক ট্রেন্ড চালু হয়েছে যা কোনভাবেই আমাদের দেশের সংস্কৃতির সাথে সামঞ্জষ্যপূর্ন নয়। এই ধারা অব্যহত থাকলে এক সময় হারিয়ে যাবে আমাদের নিজস্ব সংস্কৃতি, স্বকীয়তা ও কৃ্ষ্টি।আগের প্রজন্মের ব্লগারদের কাছে অনুরোধ রইল সেই সময়ের হলুদ অনুষ্ঠানের কিছু স্মৃতিচারনের যা হয়ত এই প্রজন্মের ছেলেমেয়েদের অনেকেরই অজানা।

মন্তব্য ৬৯ টি রেটিং +৬/-০

মন্তব্য (৬৯) মন্তব্য লিখুন

১| ২৫ শে আগস্ট, ২০২০ বিকাল ৫:২৮

চাঁদগাজী বলেছেন:


তালাকনামা হাতে পাবার পর আবারো পার্টি হবে।

২৫ শে আগস্ট, ২০২০ বিকাল ৫:৪০

ঢাবিয়ান বলেছেন: ঐ মেয়ের সামনে কি অপেক্ষা করছে কে জানে! তবে আপনি একটু আপনার সময়ের স্মৃতিচারন করুন। আপনার নিজেরটা করলে আরো ভাল হয়। :)

২| ২৫ শে আগস্ট, ২০২০ বিকাল ৫:৪১

মোহামমদ কামরুজজামান বলেছেন: সবাই একটা কিছু করার চেষ্টায় আছে ।

তা শোভন কিংবা অশোভন যাই হোক । সেই কাজ দেশের প্রচলিত কৃষ্টি,শিক্ষা,সংস্কৃতি বা লোকাচারের সাথে মানানসই কিনা এ বিষয়ে কোন মাথাব্যাথা নেই।

২৫ শে আগস্ট, ২০২০ বিকাল ৫:৪৬

ঢাবিয়ান বলেছেন: অশোভন, দৃষ্টিকটূ কর্মকান্ড এবং ভীন দেশী সংস্কৃতি অনুকরন কোন অবস্থাতেই গ্রহনযোগ্য নয় ।

৩| ২৫ শে আগস্ট, ২০২০ বিকাল ৫:৪৩

মুক্তা নীল বলেছেন:
ভাই,
এই খবরটা যখন প্রথম আলোতে পড়লাম,বিশ্বাস করবেন
কিনা জানিনা আমার নিজেরই লজ্জা হচ্ছিল যে আমরা
এতটা নির্লজ্জ কিভাবে হচ্ছি?এই মেয়ের যদি ড্রাইভ করার
এতোই ইচ্ছাহয় তাহলে প্রাইভেট কার ড্রাইভ করে আসতে
পারতো আসলে কিছুই না ঐ চেয়েছিল এই ভিডিওটা
ভাইরাল হোক । এই মেয়েটার বিচার হওয়া দরকার
মুখে মাস্ক পরে নাই, হেলমেট পড়ে নাই আইন ভঙ্গকারি
বেয়াদব মহিলা।

২৫ শে আগস্ট, ২০২০ বিকাল ৫:৪৭

ঢাবিয়ান বলেছেন: পুরোপুরি একমত আপনার সাথে। অসভ্যতা , বেলাল্লাপনা এখন আমাদের সংস্কৃতির অংশ হয়ে দাড়িয়েছে যা অত্যন্ত দুঃখজনক।

৪| ২৫ শে আগস্ট, ২০২০ বিকাল ৫:৫৬

পদ্মপুকুর বলেছেন: দুঃখজনকভাবে এটা আমার এলাকার ঘটনা এবং এদিক ওদিক শুনছি, সে নাকি আমাদের এলাকার 'ইজ্জত' বাড়িয়ে দিয়েছে....

২৫ শে আগস্ট, ২০২০ রাত ৮:০৫

ঢাবিয়ান বলেছেন: ইজ্জত বাড়াইলেতো ভয়ের কথা। অনেক মেয়েই অনুপ্রানিত হয়ে এরকম করতে যেয়ে শেষে একুল ওকুল দুই কুলই হারাবে।

৫| ২৫ শে আগস্ট, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:১৩

ভুয়া মফিজ বলেছেন: কনের ফুলন দেবীমার্কা হাস্যোজ্জল চেহারা দেখে খুব ভালো লাগলো।

আমার মতে সব মেয়েরই বাইক চালানো শেখা উচিত। কুংফু, কারাতেও শেখা উচিত। সবচেয়ে ভালো হয়, পিস্তল-বন্দুক চালানো শিখতে পারলে। নারীসুলভ কমনীয়তা অতীত যুগের ঘটনা। বর্তমান যুগে এসব অচল। এখন ড্যাশিং শব্দটা শুধু পুরুষদের জন্য বরাদ্দ থাকা উচিত না।

ঘরে ঘরে ফুলন দেবীদের জন্ম হলে ‘নারী নির্যাতন‘ শব্দটার মানে বোঝার জন্য ভবিষ্যতে ডিসকো-নারী.......থুক্কু, ডিকশ-নারী দেখতে হবে। :-B

২৫ শে আগস্ট, ২০২০ রাত ৮:০৯

ঢাবিয়ান বলেছেন: আমাগো ভাবী এই রুপে চলিলেতো মনে হয় না শামসুন্নাহার হলের সামনে ঘন্টার পর ঘন্টা দাড়ায়া থাকতেন :)

৬| ২৫ শে আগস্ট, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:১৩

আখেনাটেন বলেছেন: কবি ম্যাকবেল পাটোয়ারী লিখেছেন, 'দেশ এগিয়ে যাচ্ছে রে পাগলা'। :D


এ মেয়ে নিশ্চয় তামিল ছবির বিরাট ভক্ত। মজা পেলুম। :P

২৫ শে আগস্ট, ২০২০ রাত ৮:১২

ঢাবিয়ান বলেছেন: অনেকদিনপর ব্লগে আসলেন। ঠিকই কই্সেন যে আমাগো দেশে এখন হিন্দি তামিল স্টাইলের জয়জয়কার। মজার কথা যে ভারতীয় জনগন নাকি সিনেমা, টিভি দেখে না। দেখার টাইম নাই। ইন্ডিয়ান সিনেমা/ নাটকের মুল দর্শক নাকি বাংলাদেশে :)

৭| ২৫ শে আগস্ট, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:১৪

মোঃমোস্তাফিজুর রহমান তমাল বলেছেন: এখন তো অনুষ্ঠানগুলোতে গেলে বিভ্রান্ত হয়ে যেতে হয় আসলে বিয়েটা কার হচ্ছে!!! মানুষের চাইতে ক্যামেরা বেশি থাকে।মনে হয় যেন ছবি তুলে ফেইসবুক ইন্সটাগ্রামে দেয়ার জন্যই বিয়েটা করছে। মেয়ে বাইক চালিয়েছে এখানে দোষের কিছু দেখি না আমি। কিন্তু আমার আপত্তি অন্য জায়গায়।করোনার মধ্যে এই শো অফ না করলেও চলতো।এটা দেখে ব্রেইন বর্গা দেয়া বহু লোক এমনটা করবে। পুরো শোভাযাত্রায় কারও মাথায় হেলমেট,মুখে মাস্ক ছিলো না। আর সংস্কৃতির ব্যাপারটা বাদই দেই।ওটা বহু আগে থেকেই নেই।

২৫ শে আগস্ট, ২০২০ রাত ৮:২০

ঢাবিয়ান বলেছেন: আমাদের দেশে গ্রামাঞ্চলে এমজিও নারী কর্মীরা বাইক চালায়। নারীর বাইক চালানো সে দৃষ্য তার স্বাবলম্বী স্বাধীন রুপের বহিঃপ্রকাশ ঘটায় । আর উপড়ের মেয়েটি স্রেফ তার উদ্ধতপনার বহিঃপ্রকাশ ঘটিয়েছে যেটা কোন অবস্থাতেই গ্রহনযোগ্য নয়।

৮| ২৫ শে আগস্ট, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:২২

আহমেদ জী এস বলেছেন: ঢাবিয়ান,




মোহামমদ কামরুজজামান বলেছেন: সবাই একটা কিছু করার চেষ্টায় আছে ।
সেই কিছু করার চেষ্টাতেই ঐ "ইসমাট" কনেটি পদ্ম পুকুর এর নাকি এলাকার 'ইজ্জত' বাড়িয়ে দিয়েছে.... :(

না এখন এই জমানায় পিছনের দিনের সমাজ-সংস্কৃতির কথা কেউই শুনতে চায়না। ওসব এই নব্য আধুনিকদের কাছে ওল্ড ফ্যাসান। এখন হলো ডিসকো-সাম্বার যুগ, যতো বেশী ঝাকানাকা ততোবেশী আধুনিক - তাদের বুদ্ধিতে এটাই তারা বোঝে। কিন্তু এই অসুস্থ্যতা যে একদিন তাদের ঘরে বাইরে করোনার মতো তাড়িয়ে বেড়াবে, সেটাই শুধু বোঝেনা।

২৫ শে আগস্ট, ২০২০ রাত ৮:২৩

ঢাবিয়ান বলেছেন: সময়ের সাথে পরিবর্তন হতেই পারে। কিন্ত সেই পরিবর্তন যদি হয় নিজ দেশের সংস্কৃতিকে ছুড়ে ফেলে ভীন দেশি সংস্কৃতির অন্ধ অনুকরন তবে আপনি যেটা বললেন যে এই অসুস্থ্যতা একদিন তাদের ঘরে বাইরে করোনার মতো তাড়িয়ে বেড়াবে।

৯| ২৫ শে আগস্ট, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৩৮

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন:
খবরটি দৈনিক প্রথম আলোতে পড়েছি।
ভালোই লেগেছে।

স্মার্ট মেয়ে।

২৫ শে আগস্ট, ২০২০ রাত ৮:২৫

ঢাবিয়ান বলেছেন: অসভ্যতা , উদ্ধতপনার নাম স্মার্টনেস নয়।

১০| ২৫ শে আগস্ট, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:০৬

অনল চৌধুরী বলেছেন: আরো অবাক হয়ে দেখলাম যে বর কনেও তাঁদের সাথে যোগ দিয়ে একসাথে নাচগান করছে। হঠাৎ মনে হোল যেন সিনেমা হলে বসে হিন্দি মুভি দেখছি[/sb এসব দেশে নতুন না।গত ২০ বছর ধরেই দেখছি। ভারতীয় বিভিন্ন জাতির বিয়ে হয় তাদের সংস্কৃতিতে নাচ-গান করে।নিজে দেখেছি।আর বাংলাদেশীদের বিয়ে হয় ভারতীয় বা এ্যামেরিকার সংস্কৃতির অনুকরণে।হীনমণ্য জাতি হলে এরকমই হবে।
ভুয়া মফিজ বলেছেন:ঘরে ঘরে ফুলন দেবীদের জন্ম হলে ‘নারী নির্যাতন‘ শব্দটার মানে বোঝার জন্য ভবিষ্যতে ডিসকো-নারী......., ডিকশ-নারী দেখতে হবে।- ফুলন দেবী চরমভাবে নির্যতিত হয়ে প্রতিবাদ করেছিলেন।
তার পরিবর্তে খালেদা জিয়া-পাপিয়া--কুড়িগ্রামের অত্যাচারী মহিলা ডিসির নাম দিল ভালো হতো।

চাঁদগাজী বলেছেন:তালাকনামা হাতে পাবার পর আবারো পার্টি হবে। - একবারে ঠিক।বেশী হৈচৈ-এর প্রতিটা বিয়ে দ্রুত ভাঙ্গে।

২৫ শে আগস্ট, ২০২০ রাত ৮:৩২

ঢাবিয়ান বলেছেন: মানুষ যে দিনদিন নীতি নৈতিকতা হারিয়ে বিবেকহীন হয়ে যাচ্ছে তার জন্য অনেকাংশেই দায়ী এই ভীনদেশী সংস্কৃতির অন্ধ অনুকরন। দেশাত্মবোধ না থাকলে নীতি নৈতিকতাও থাকে না।

১১| ২৫ শে আগস্ট, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:০৭

নুরুলইসলা০৬০৪ বলেছেন: প্রতিনিয়ত মানুষ নতুনের দিকে ছুটছে।নতুন কিছু করে দেখাতে চায়।যদি কারো কোন ক্ষতি না করে থাকে তাহলে দোষের কিছু দেখছি।

সমাজ চলমান ,এক যায়গায় স্থির না।আজকে যা আছে অতিতে তা ছিল না,ভবিষ্যতে তা থাকবে না।যখনই নতুন কিছু আসবে একদল বিরোধিতা করবে, একদল মেনে নিবে,আরেক দল আরো নতুন কিছুর খোঁজ করবে।

২৫ শে আগস্ট, ২০২০ রাত ৮:৩৮

ঢাবিয়ান বলেছেন: নতুন যা কিছু সুন্দর তা গ্রহনযোগ্য আর যা অসুন্দর তা পরিতাজ্য। এই কথাটা যে কোন সময়ের জন্যই প্রযোজ্য । হোক তা সেকাল বা একাল।

১২| ২৫ শে আগস্ট, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:২৭

শাহ আজিজ বলেছেন: আমার কিন্তু ভালই লাগছে কারন দেশ সামনে এগিয়ে চলেছে , জনগণকেও এগুতে হবে ডিজিটাল পদ্ধতিতে । আফটার অল নারীর ক্ষমতায়ন বলে একটা ব্যাপার আছেনা ?

এরপর বিয়া শাদী সেলিব্রেশন পুরো বিয়েবাড়ির আমন্ত্রিতদের মোটর বাইকে করলে রাস্তার লোকজন জানতে পারবে কে বা কার বিয়ে হল ।

খালি ছ্যাক খাওয়া লোকাল বাসের সামনে না পড়লে হইল ।

২৫ শে আগস্ট, ২০২০ রাত ৮:৪০

ঢাবিয়ান বলেছেন: তা ঠিকই কইসেন। ডিজিটাল হলুদ বইলা কথা :)


১৩| ২৫ শে আগস্ট, ২০২০ রাত ৮:০৪

মা.হাসান বলেছেন: হলুদ মাখুক, মরিচ মাখুক, ধনিয়া মাখুক - অসুবিধা নাই
বাইকে চড়ুক বা হাতিতে চড়ুক আপত্তি নাই
তবে বাবার পেনশন বা প্রভিডেন্ড ফান্ডের টাকায় না করিয়া নিজের টাকায় করুক
তবে বাবার যদি টাকার খনি থাকে তবে বাপের টাকায় করিলেও সমস্যা নাই।

২৫ শে আগস্ট, ২০২০ রাত ৮:৪৫

ঢাবিয়ান বলেছেন: আজকাল অনেক বাবার টাকার খনি আছে। তারাই এই বিজাতীয় সংস্কৃতি চালু করেছে দেশে।

১৪| ২৫ শে আগস্ট, ২০২০ রাত ৮:১৯

ভুয়া মফিজ বলেছেন: লেখক বলেছেন: আমাগো ভাবী এই রুপে চলিলেতো মনে হয় না শামসুন্নাহার হলের সামনে ঘন্টার পর ঘন্টা দাড়ায়া থাকতেন এইটা একটা কথা কইলেন! সেই যুগ আর এই যুগ এক হইলো? যুগের দাবী বইলা তো একটা কথা আছে, নাকি মিছা কইলাম? :P

২৫ শে আগস্ট, ২০২০ রাত ৮:৫২

ঢাবিয়ান বলেছেন: আরে এই যুগেও ঢাবি সেই আগের মতই আছে দেইখা আসছি। আমাদের বয়স বাড়ছে কিন্ত সেই জায়গার একটা ইট পাথরো বদলায় নাই। তাই সেইখানে যাওয়া ছাত্র ছাত্রীদেরও তেমন পরিবর্তন চোখে পড়ে নাই।

১৫| ২৫ শে আগস্ট, ২০২০ রাত ৮:৪৯

মুজিব রহমান বলেছেন: অভিনন্দন জানাই ফারহানা আফরোজকে।

সমাজে যে বদলের হাওয়া লেগেছে তারই প্রমাণ। মৌলবাদীরা চুল ছিড়তে থাকুক। আমরা তাদের জন্য শুভ কামনা জানাই।

২৫ শে আগস্ট, ২০২০ রাত ৯:০৭

ঢাবিয়ান বলেছেন: নিজ দেশের সংস্কৃতিকে কাচকলা দেখিয়ে ভীনদেশি সংস্কৃতির অন্ধ অনুকরন যদি আপনার কাছে মনে হয় সমাজ বদলের হাওয়া তবে ধরা নিতে হবে মূল্যবোধের সংজ্ঞা আপনার জানা নাই। আর অপসংস্কৃতি বরং মৌ্লবাদের হাত আরো শক্তিশালী করে।

১৬| ২৫ শে আগস্ট, ২০২০ রাত ৮:৫৮

নেওয়াজ আলি বলেছেন: মেয়েটা একটু ওভারস্মার্ট । আমাদের জন্য সম্পূর্ণ নতুন । সময় বলে দিবে এই কাজের প্রতিদান

২৫ শে আগস্ট, ২০২০ রাত ৯:০৮

ঢাবিয়ান বলেছেন: অসভ্যতা , উদ্ধতপনার নাম স্মার্টনেস নয়।

১৭| ২৫ শে আগস্ট, ২০২০ রাত ১০:৩০

রাজীব নুর বলেছেন: আপনাদের সময় দিয়ে বর্তমান সময়টাকে কেন বিচার করছেন?

২৬ শে আগস্ট, ২০২০ বিকাল ৪:০৮

ঢাবিয়ান বলেছেন: বিষয়টা সময় নয় । রুচিশীল বনাম কুরুচিপুর্ন।

১৮| ২৫ শে আগস্ট, ২০২০ রাত ১০:৪৩

রাজীব নুর বলেছেন: আপনি সমালোচনা করেন এ দেশের রাজনীবিদদের অন্যায় নিয়ে, সরকারি কর্মকর্তাদের দুর্নীতি নিয়ে, পুলিশের অন্যায় নিয়ে, সড়কে করোনার দোহাই দিয়ে বাড়তি ভাড়া নিয়ে, ব্যবসায়ীদের কর ফাঁকি নিয়ে, যারা জনগনের রক্ত চুষে ভদ্রলোক হচ্ছেন রাষ্ট্রের সাথে বেইমানি করছেন, এখনো যারা একাত্তরের হায়নাদের মত এ দেশের মানুষের অধিকার নিয়ে ছিনিমিনি খেলছেন, যারা টেন্ডারবাজি চাঁদাবাজি করছেন, অনুভূতির দোহাই দিয়ে মানুষকে দমন করে রাখছেন, আশ্রম খুলে যারা ধান্দাবাজি করছেন, নানা উপায়ে মানুষকে বিকশিত হতে দিচ্ছেন না, যারা আপনার সাথে আপনার দেশের সাথে আপনার অধিকার নিয়ে ভাওতাবাজি করছেন তাদের নিয়ে আপনি সমালোচনা করেন।

২৬ শে আগস্ট, ২০২০ বিকাল ৪:০৯

ঢাবিয়ান বলেছেন: কোন বিষয়ের উপড় ক্রিটিসিজম হবে সেটা ঠিক করে দেয়ার আপনি কেউ নন।

১৯| ২৫ শে আগস্ট, ২০২০ রাত ১০:৪৪

রাজীব নুর বলেছেন: ফারহানা কোন সমালোচনার কাজ করেনি। সে সাহসী কাজ করছে সেটাও নয়। সে তার মত করে আনন্দ করেছে মাত্র। আপনি তার আনন্দকে সহ্য করতে পারছেন না কেন? আপনি তাকে অভিনন্দন না জানান তাতে কোন সমস্যা নেই কিন্তু আপনি তাকে নিয়ে বাজে মন্তব্য করার কোন অধিকার রাখেন না।

২৬ শে আগস্ট, ২০২০ বিকাল ৪:১৩

ঢাবিয়ান বলেছেন: ভাইরাল হওয়া যে কোন ভিডিও নিয়েই আলোচনা সমালোচনা হবেই। আপনার বক্তব্য দেশের কর্তাব্যক্তিদের মত মনে হচ্ছে যারা বাক স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ করতে চায়।

২০| ২৫ শে আগস্ট, ২০২০ রাত ১০:৪৮

রাজীব নুর বলেছেন: অনেকে বলছেন এটি নাকি আমাদের দেশীয় সংস্কৃতির সাথে যায় না। তাদের প্রতি প্রশ্ন- বাঙালি সংস্কৃতি বলতে আপনি কী বুঝেন? আপনি কী বাঙালি সংস্কৃতিকে ধারণ করেন? আপনার বাঙালি কালচার প্রীতি এখন কেন চাঙা হয়ে উঠল? নিজের সংস্কৃতি প্রীতি নাকি ফারহানার মত একটা অগ্রসর ও চঞ্চল নারীকে হেয় প্রতিপন্ন করা? নারীকে আর কতভাবে ছোট করবেন? তারা বিশেষ কেউ তাও নয়। কিন্তু আপনি তাকে ছোট করার জন্য নারী বলছেন। তাকে আপনি আপনার সমান ভাবেন না বলেই তাকে নিয়ে বাজে মন্তব্য করছেন।

২৬ শে আগস্ট, ২০২০ বিকাল ৪:১৬

ঢাবিয়ান বলেছেন: আপনার আক্রমনাত্মক মন্তব্যে খুব আশ্চর্য্যবোধ করছি। নারী হিসেবে আমি তাকে কোথাও আক্রমন করিনি।

২১| ২৫ শে আগস্ট, ২০২০ রাত ১১:০৯

সামু পাগলা০০৭ বলেছেন: পোস্টের বক্তব্যের সাথে একমত। বিয়ের কনের লাজুক হাসি তার সৌন্দর্য বাড়িয়ে দেয় কয়েক গুণ। সেটা থাকলে পারসোনায় গিয়ে ভূত সেজে নিজের আমিত্বকে বিসর্জন দিতে হতোনা।
শুধু দেশীয় নয় কোন ভদ্র সংস্কৃতির অংশ এসব হতে পারেনা। বিয়ে একটি ধর্মীয় ও সামাজিক বন্ধন। আনন্দ ফূর্তির মাঝেও বিয়েতে পবিত্রতা বজায় রাখা জরুরী। এসব লোক দেখানো বিয়েতে আধুনিকতা/প্রেম/বৈভব/আভিজাত্য কোনকিছুই প্রকাশ পায়না। এসব ছ্যাবলামী অশিক্ষিত এবং আঙুল ফুলে কলাগাছ হওয়া মানুষেরাই শুধু করতে পারে।

ধন্যবাদ বিষয়টি নিয়ে পোস্ট দেওয়ায়। ব্লগ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে এসব বিষয়ে সচেতনতা তৈরি করতে।
পোস্টে লাইক।

২৬ শে আগস্ট, ২০২০ বিকাল ৪:২১

ঢাবিয়ান বলেছেন: ধন্যবাদ সামু পাগলা০০৭ আপনার সুন্দর কমেন্টের জন্য। পরপর বেশ কয়েজটি আক্রমনাত্মক মন্তব্যের পর আপনার মন্তব্য পেয়ে ভাল লাগলো। অসভ্যতা, উশৃংখলতার সমালোচনাকে অনেকেই নারী স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপের বিষয় বলে মনে করছে। বিষয়টা দুঃখজনক । আসলে '' নারী স্বাধীনতা কি'' এর সংজ্ঞাই আমাদের অধিকাংশের জানা নেই।

২২| ২৫ শে আগস্ট, ২০২০ রাত ১১:৪৫

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: ইয়াং জেনারেশন যেদিকে দেরীতে হলেও সমাজ সেই দিকে হাঁটবে।আজ অশালীন লাগলেও সেদিন খুব দূরে নেই যেদিন বাকিদের ঢোক গিলতে হবে। আহমদ জী এস ভাইয়ের কমেন্ট ভালো লেগেছে।

২৬ শে আগস্ট, ২০২০ বিকাল ৪:২৪

ঢাবিয়ান বলেছেন: সেটাই ভয়ের ব্যপার। সমাজের সর্বস্তরে দুর্নিতী, চুরি ডাকাতি, অসভ্যতা, উশৃংখলতাকে যেভাবে প্রশয় দেয়া হচ্ছে তা রীতিমত উদ্বেগজনক।

২৩| ২৬ শে আগস্ট, ২০২০ রাত ১২:২২

ওমেরা বলেছেন: মেয়েরা এগিয়ে যাচ্ছে ভালো তো !

২৬ শে আগস্ট, ২০২০ বিকাল ৪:২৫

ঢাবিয়ান বলেছেন: এর নাম কি এগিয়ে চলা আপু? এতো অধঃপতনের দিকে ধাবিত হওয়া

২৪| ২৬ শে আগস্ট, ২০২০ রাত ১২:৩৩

শায়মা বলেছেন: হাসতে হাসতে হাসতে আমি মরেই গেছি এই পোস্টের কমেন্টগুলোতে।

ঢাবিভাইয়া নিজের হলুদের গল্প শুনাও!!!!!!!

আমি যে কোনো চেইঞ্জকেই স্বাগত জানাতে ভালোবাসি! নিজে হই বা না হই।

তবে এই মেয়ের জন্য আমার এত এত ভালোবাসা!! ক্রিয়েটিভ বলে অনেকেই আমাকে ভালোবাসে কিন্তু
এই রকম বাইক চালানো হলুদের মত ক্রিয়েটিভ চিন্তা আমি সাতবার জন্মালেও আমার মাথায় আসতো না। তবে হ্যাঁ সে অন্য কারো ক্ষতি না করে ভাইরাল হবার জন্যই করুক আর শখেই করুক যা করেছে সিনেমাটিক স্টাইলে আই লাভ দ্যাট ভেরী মাচ!!!

:) :) :)

শাহ আজিজ ভাইয়া ভূয়াভাইয়ার সাথে সাথে তাই এই ফারহানা আপুনিমনিটার জন্যও আমার অনেক শুভকামনা থাকবে।
আমি চাই নতুন আইডিয়া নিয়ে এইবার কোনো কণে প্লেইন চালিয়ে বিয়ের অনুষ্ঠান করুক! :)

২৬ শে আগস্ট, ২০২০ বিকাল ৪:৩২

ঢাবিয়ান বলেছেন: বাঙ্গালীর পক্ষে অসাধ্য কিছু নাই। লাখ লাখ টাকায় হেলিকপ্টার ভাড়া করে বিয়ে আমরা দেখেছি, সামনে প্লেন নিয়ে গেলেও অবাক হবার কিছু নাই । লোক দেখানো যে কোন কর্মকান্ডে বাঙ্গালী বরাবরই এগিয়ে।

২৫| ২৬ শে আগস্ট, ২০২০ সকাল ৮:৩১

অজানা তীর্থ বলেছেন: ট্রেডিশন এর মোটিফ সবাই বুঝেনা। ধর্মীয় মূল্যবোধ জানা নেই অনেকের। ইভেন্ট অফ চেইন বলে একটা কথা আছে, শুরুটা এমন শেষটা কেমন হবে তা বুঝার বাকি নেই। গায়ে হলুদ দেয়া হয় যে অনুষ্ঠানে তা যদি গায়ে হলুদ হয় তাহলে বলতে হয় এটা একটা সো ডাউন ব্যাতিত কিছুই না। আমি লাস্ট ২০১১ সালে গায়ে হলুদে গিয়েছিলাম এর পর আর যায়নি। "ইয়েলো টাচ, ইয়েলো ইভেনিং, হলুদ সন্ধ্যা..." ইত্যাদি আগে আমার চোখে পড়ে তার পর ঐ যে বললাম না, ট্রেডিশন এর মোটিফ সবাই বুঝেনা তাই আর এটেন্ড করতেও ভালোলাগেনি। কেউ যদি রবীন্দ্র সংগীত এই জামানার মত করে গাই আর শিক্ষিত সমাজ যদি বলে "রবীন্দ্রনাথ অনেকে আগে গেয়েছে, তিনি যদি এখন থাকতেন তবে এমনি করে গাইতেন" তাহলে আমার মুখে প্রতিউত্তরের ভাষা নেই। যাই হোক মেয়েটার দাম্পত্য জীবন এর মোটিফ যেন এমন ভাবে পরিবর্তিত না হয়।

২৬ শে আগস্ট, ২০২০ বিকাল ৪:৪০

ঢাবিয়ান বলেছেন: মূল্যবোধ শব্দটাই ধীরে ধীরে মুছে যাচ্ছে এই দেশ থেকে। দুর্নিতি, চুরি চামারি, অসততা , উশৃংখলতার জয়জয়কার সর্বত্র।

২৬| ২৬ শে আগস্ট, ২০২০ সকাল ১০:৩৫

নতুন বলেছেন: এখানে যদি ছেলেটা ঠিক এই ভাবে বাইক চালিয়ে যাইতো তবে এতো সমালোচনা হইতো না।

হয়তো হেলমেট আর মাস্ক নিয়ে অল্পকিছু কথা হইতো।

তাহলে সমালোচক পুরুষদের সমস্যা হেলমেট আর মাস্ক নিয়া না। আইন ভাঙ্গানা।

সমস্যা মাইয়া হইয়া মটরসাইকেলে চড়া।

এটা লোক দেখানো ঠিক আছে কিন্তু এই কাজে সমাজে কি কি ক্ষতি হয়েছে?

২৬ শে আগস্ট, ২০২০ বিকাল ৪:৪৬

ঢাবিয়ান বলেছেন: আমার পোস্টের কোথাও মেয়েদের বাইক চালানোর বিরুদ্ধে কোন বক্তব্য দেয়া হয়নি। উন্নত দেশে মেয়েরা মোটরবাইক চালিয়ে অফিসে যায় যেটা খুব স্বাভাবিক দৃষ্য। আমাদের দেশে শহড়ে এখনও এই ট্রেন্ড তেমন চালু হয়নি। তবে গ্রামাঞ্চলে নারী এঞ্জিও কর্মীরা বাইক চালান। ইদানিং পাঠাও বাইক সার্ভিসে শুনেছি বেশকিছু মেয়ে বাইকার জয়েন করছে। বিষয়টা যথেষ্ঠ ইতিবাচক।

দয়া করে পোস্ট পড়ে মন্তব্য করবেন।

২৭| ২৬ শে আগস্ট, ২০২০ দুপুর ১২:৪৮

শায়মা বলেছেন: নতুন ভাইয়া জবাবে এ স্টার!! :)

২৮| ২৬ শে আগস্ট, ২০২০ দুপুর ২:৩৫

আমি সাজিদ বলেছেন: জীবনটা সিনেমাটিক হয়ে গেছে!

২৬ শে আগস্ট, ২০২০ বিকাল ৪:৫০

ঢাবিয়ান বলেছেন: হিন্দি সিনেমা

২৯| ২৬ শে আগস্ট, ২০২০ বিকাল ৩:০৭

জুন বলেছেন: জীবনে কত কিছু যে দেখতে হবে ঢাবিয়ান। বৈচিত্রের সন্ধানে মানুষ কত কিছু যে করে।

২৬ শে আগস্ট, ২০২০ বিকাল ৪:৫৯

ঢাবিয়ান বলেছেন: আসলেই আপু, আরো কত কি যে দেখার বাকি আছে! উন্নত দেশে মেয়েরা কোথায় পৌছে যাচ্ছে যোগ্যতার বলে আর আমাদের দেশে একদিকে ধর্মীয় বিধানের ভয় দেখিয়ে কাল বোরখা পড়িয়ে ঘরে বন্দী করে রাখা হচ্ছে অনেক মেয়েদের আর অন্যদিকে কিছু মেয়ে নারী স্বাধীনতার নামে উশৃংখলতার পথ বেছে নিচ্ছে!! আর মাঝখানের শিক্ষিত , মার্জিত , স্বাবলম্বী নারীদের বরং হাজারটা সমস্যার সম্মুখীন হতে হচ্ছে এই সমাজে।

৩০| ২৬ শে আগস্ট, ২০২০ বিকাল ৩:১৪

মোঃ মাইদুল সরকার বলেছেন:

দিন দিন সব কিছুতে পরিবর্তন।

মেয়েটা বিবাহিত অর্থাৎ তার বিয়ে আগেই হয়ে গেছে । গত বছর হয়েছে বিয়ে আর এবছর হচ্ছে অনুষ্টান।

যাই হোক কনে এভাবে শোভাযাত্রা আমাদের সমাজে গ্রহনীয় নয়।

২৬ শে আগস্ট, ২০২০ বিকাল ৫:০১

ঢাবিয়ান বলেছেন: পত্রিকায় তাই দেখলাম। বিবাহিতা একজন নারী যে কিনা এক সন্তানের মা, তার এই ধরনের কর্মকান্ড কেবল অগ্রহনযোগ্যই নয় চরম নিন্দনীয়।

৩১| ২৬ শে আগস্ট, ২০২০ বিকাল ৫:০২

অক্পটে বলেছেন: দেশ সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে নাকি দেশের সামনে দিয়ে বেলাল্লাপনা এগিয়ে যাচ্ছে। বোধহয় ডিজিটা ফিজিটাল হয়ে গেছে ওরা। একটি মেয়ের এতগুলো ছেলে বন্ধু তবে এর একটা বিয়েতেও পোষাবেনা। এই মেয়ের তালাক পাবার পরও বোধহয় এমনই পার্টি করবে। চাদঁগাজীর মস্তব্যটা একেবারে উড়িয়ে দেয়া যায়না।

২৭ শে আগস্ট, ২০২০ রাত ৯:০২

ঢাবিয়ান বলেছেন: :)

৩২| ২৬ শে আগস্ট, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৪৬

সামু পাগলা০০৭ বলেছেন: অসভ্যতা, উশৃংখলতার সমালোচনাকে অনেকেই নারী স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপের বিষয় বলে মনে করছে। বিষয়টা দুঃখজনক
ব্যাপারটা নারী ভার্সেস পুরুষ হয়ে গেল! আসলে নারীরা এত বেশি অসম্মানিত ও অত্যাচারিত হয়েছে এবং হচ্ছে, যেকোন কথার মধ্যেই নারী পুরুষ বৈষম্য চলে আসে। একটা মেয়েকে সিগারেট খেতে মানা করলে সে বলবে, ছেলেদের তো মানা করা হয়না এন্ড শি ইজ ড্যামমম রাইট। সমাজ যতদিন না পর্যন্ত ছেলেদের অপরাধ সমান চোখে দেখছে, ততদিন নারীদের কোন ভুল ধরতে গেলে ঝগড়া তো বাঁধবেই। মাঝখান দিয়ে ছেলেরা নিজেকে রাফ টাফ পুরুষ এবং মেয়েরা "সমাজের তোয়াক্কা" করিনা নারী দেখাতে গিয়ে সিগারেট খেয়ে স্বাস্থ্যের বারোটা বাজাবে।

আমি ব্যক্তিগত ভাবে বাইকে যদি কোন ছেলে থাকত তবুও বিরক্ত হতাম। মেয়েটি কোন সৃষ্টিশীলতা দেখায়নি। ও হয়ত ভারতীয় মুভিতে দেখেছিল, কনে সানগ্লাস পরে বাইকে চড়ে বিয়ে করতে যাচ্ছে এবং তার ব্যাকগ্রাউন্ডে নায়ক নায়িকা স্টাইলে ছেলেমেয়েরা বাইকে বসে আছে। ও সেটাই রিক্রিয়েট করতে চেয়েছে। মেয়েটি যদি সাজগোজ করে বাইকে পালার্র থেকে বাড়িতে আসত আমি অন্তত কিছু বলতাম না। ভাবতাম সে বাইকেই সবসময় যাতায়াত করে। যেভাবে বাসে মেয়েরা সেক্সুয়ালী হ্যারাসড হচ্ছে, তাতে করে দেশে নারীর বাইক কালচার শুরু হলে আমি খুশিখুশি সাপোর্ট করতাম। কিন্তু তাতো না, পুরো বিষয়টাই প্ল্যান করে করা হয়েছে। কেমন যেন গুন্ডা বাহিনী মনে হচ্ছে!

যখন খবরে দেখি কিছু মেয়ে বাস/ট্রেইন চালিয়ে সংসার চালাচ্ছে, সেটাতে নারী শক্তি প্রতিফলিত হয়। এসব মেকি ব্যাপারে শুধু সমাজের এক অংশের অন্ধ অনুকরণ দেখা যাচ্ছে। বিয়ের মাধ্যমে আপনি যেকোন সংস্কৃতি পোশাক, খাবার, গান নাচ, রীতিনীতি সম্পর্কে আইডিয়া পাবেন, মানে পুরো কালচারটাই দেখতে পাবেন। কিন্তু এক দেশের বিয়ের সর্বক্ষেত্রে যখন অন্যদেশের মুভি/সিরিয়ালের অনুকরণ দেখা যায় তখন সেই তর্ক নারী পুরুষে আটকে না থেকে সীমানা পেড়িয়ে বহুদূর চলে যায়।

আমি কোনভাবেই এই স্পেসিফিক মেয়েটিকে গালিগালাজ এর পক্ষপাতী নই। এই মেয়ে যে অন্ধ সমাজকে রিপ্রেজেন্ট করছে সেই অন্ধ অনুকরণ নিয়ে আমাদেরকে আলোচনা সমালোচনা করতে হবে। ধন্যবাদ।

২৭ শে আগস্ট, ২০২০ রাত ৯:১৪

ঢাবিয়ান বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ আপনার সুন্দর কমেন্টের জন্য। পুরোপুরি একমত আপনার সাথে

৩৩| ২৬ শে আগস্ট, ২০২০ রাত ৮:২২

কাজী আবু ইউসুফ (রিফাত) বলেছেন: আগামী পাবলিক পরীক্ষার প্রশ্নঃ

গায়ে হলুূদ অনুষ্ঠান কখন হয়?
ক) বিয়ের আগে;
খ) বিয়ের পরে;
গ) সন্তান জন্মের পর;
ঘ) যখন মন চায় তখন।

২৭ শে আগস্ট, ২০২০ রাত ৯:১৫

ঢাবিয়ান বলেছেন: হা হা হা

৩৪| ২৬ শে আগস্ট, ২০২০ রাত ৯:২৩

নতুন বলেছেন: ইদানিং কালে নাকি সবাই শুধু নতুনত্ব খোজে। কার অনুষ্ঠান কত ইউনিক তার নাকি এখন তীব্র প্রতিযোগিতা<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<<আগের প্রজন্মের ব্লগারদের কাছে অনুরোধ রইল সেই সময়ের হলুদ অনুষ্ঠানের কিছু স্মৃতিচারনের যা হয়ত এই প্রজন্মের ছেলেমেয়েদের অনেকেরই অজানা।

এই নতুন নতুন ভাবের পেছনে কিন্তু ব্যবসায়ী মোটিভও আছে যেটা অনেকেই অন্ধঅনুকরন করে।

বিয়েতে আগে স্পিকারে গান বাজানোর প্রচলন ছিলো না। ছবি তোলার প্রচলন ছিলো না<<<<<<<<<<<<<<<

এমন অনেক কিছুই ছিলো না।

এখন উয়েডিং ফোটগ্রাফীর প্রচলন হয়েছে এর পেছনে ব্যবসায়ীক বুদ্ধি কাজ করে।
হলুদের অনুস্ঠান, মরিচের অনুস্ঠানে টাকা খরচ করানোর জন্যই এই সবকিছুর প্রচারনা বেশী হয়।

এবং ভেড়ার পাল অন্ধ অনুসরন করে।

বাইরের দেশে বিয়ের ছবির জন্য কাপল অন্য দেশেও যায়।

পরিবর্তন আসবেই সময়ের সাথে ভালোটুকুই থেকে যাবে খারাপ জিনিস সবাই মেনে নেয় না।

৩০ শে আগস্ট, ২০২০ দুপুর ২:৫৪

ঢাবিয়ান বলেছেন: পরিবর্তন যদি আরেক দেশীয় কালচারের অন্ধ অনুকরন না হয় তবে তা মেনে নিতে কারোরই আপত্তি থাকার কথা নাই।

আপনি বলেছেন ''বিয়েতে আগে স্পিকারে গান বাজানোর প্রচলন ছিলো না। ছবি তোলার প্রচলন ছিলো না।''
সেটা কোন দশকের বুঝতে পারছি না। ৮০/ ৯০ দশকে এই সব কিছুর প্রচলনই ছিল।

৩৫| ২৭ শে আগস্ট, ২০২০ রাত ৯:১২

ঢাবিয়ান বলেছেন: অনেকেই মনে হচ্ছে পোস্ট না পড়ে কেবল পোস্টের টাইটেল এবং ছবি দেখে মন্তব্য করেছে। তাই পোস্টের টাইটেল বদল করে দিচ্ছি। আমার পোস্টের মুল বিষয় বস্ত ভাইরাল হওয়া বাইক চালানো হলুদের কনেকে নিয়ে নয়। পোস্টের মুল বিষয় হচ্ছে গায়ে হলুদ অনুষ্ঠানের একাল সেকাল। দুই প্রজন্মের গায়ে হলুদ অনুষ্ঠান আয়োজনে যে ব্যবধান তৈরী হয়েছে সেটাই তুলে ধরতে চেয়েছি।

৩৬| ২৭ শে নভেম্বর, ২০২০ রাত ৯:৩৪

খায়রুল আহসান বলেছেন: বিভিন্ন অপ্রয়োজনীয় এবং বিজাতীয় ট্রেন্ড অনুসরণ করে আজকাল যুবক-যুবতীদের বিবাহ অনুষ্ঠানকে তাদের পিতামাতার জন্য এক বিভীষিকায় পরিণত করা হয়েছে। যারা নিজ অর্থে বিবাহ করেন তাদের জন্যেও। আমাদের মত দেশে এক বিবাহের জন্য এতগুলো অনুষ্ঠান (৪/৫টা এখন কমন, ৯/১০টাও হয় কোন কোন ক্ষেত্রে) পালন করা বিত্তের নিদারুণ অপচয় বৈ কিছু নয়।
এ পোস্টের প্রথম মন্তব্যটাকেই আমার কাছে মনে হচ্ছে আলোচ্য শো-ডাউনের সম্ভাব্য পরিণতি।

৩২ নং মন্তব্যের জন্য সামু পাগলা০০৭কে ধন্যবাদ।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.