নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

আমার চিন্তা ভাবনার খোলা খাতা আপনাদের সবার ভালো লাগলে ভালো না লাগলে দুঃখিত

মুর্খদের সাথে তর্ক করতে ভাল্লাগেনা,মুর্খ দের এভয়েড করতে ভাল্লাগে

ধ্রুব অন্যকোথাও

আমাকে অমানুষ ডাকুন

ধ্রুব অন্যকোথাও › বিস্তারিত পোস্টঃ

১০ বছর

১৪ ই জানুয়ারি, ২০২১ সকাল ৭:০৬


১০ বছর হলো আমাদের ব্যাচের পোলাপান রা একেক জন একেক বিশ্ববিদ্যালয়ে ঢুকেছে। কেউ কেউ হয়তো জীবন আর সময়ের দুর্বিষিহ ধাক্কায় এখনো ঘুরপাক খাচ্ছে করিডোর থেকে করিডোরে। বাকিরা কেউ চাকরি করে, ব্যবসা করে কিংবা উচ্চ শিক্ষায় রত। আবার অনেকেই অকালেই হারায় গেছে অন্ধকারে কিংবা ওপারে।

সময়ে সময়ে এই বছরে এই ১০ বছরের মাইলফলক এ পা দিয়েছে তাদের মাঝে যারা বাংলাদেশের শিক্ষা কাঠামোর উপর তলার বাসিন্দার ছাত্র-ছাত্রী এরা সবাই বিভিন্ন হ্যাশট্যাগের খেলা খেলবে। নাম দিবে #10yearschallenge ।বাকিরা কোনোরকমে লুকিয়ে বাচবে আর নাহয় দেখেও দেখবেনা। এখন আর চোখের পানি বা এসবের অভাবে আবেগ আসেনা। আমরা বুঝে গেছি ইন্টারমিডিয়েটের সেই গালগপ্পো গুলো সব মিথ্যা। নিজের পরিশ্রম ছাড়া সবই ভুয়া। কালচারাল ভিন্নতা ছাড়া বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষা ব্যবস্থা সবই কাছাকাছি রকমের ভুয়া। আপনার আশেপাশে কারা আছে, আপনি কাদের সাথে থাকেন এটাই একমাত্র সত্য হয়ে দাঁড়ায়। দিনশেষে যে সঠিক ভাবে প্ল্যান করবে, প্ল্যান অনুযায়ী লেগে থাকবে সেই ভালো করবে।

কিন্তু তাইলে, আমাদের সস্তা ডিপ্রেশন গুলো কি ভুল,মিথ্যা? নাহ। কারন সমাজ উপরের সত্য গুলো জানলেও আপনাকে, আমাকে স্তরীভূত করবে। অন্ধকারে ঠেলে দিবে। শিক্ষা ব্যবস্থার উপরের তলার ছাত্র না হলে কথায়,ব্যবহারে,কাজে আপনাকে হাড়ে হাড়ে টের পাওয়ায় দিবে। চোখে আংগুল তুলে নর্দমা দেখায় বলবে "পচা মাল ওইদিকে যাও, ওটাই তোমার প্রাপ্য"।
পরিবার,সমাজ এঁর সব ভাড় পিঠে নিয়ে অন্ধকারে চুপচাপ নিজের একাগ্রতা অনুযায়ী কাজ করে যখন পরের স্টেপে আসি। তখন বুঝি একাডেমিক যে দক্ষতা গুলো দরকার ছিল তার ১০% ও আসলে শিখি নাই এই বাল চোদনা মার্কা ইন্সটিটিউশন গুলো থেকে। উপর তলার বাসিন্দাদের কথা আলাদা। তারা নিজের যোগ্যতায় এই অসুবিধা গুলো থেকে দূরে থেকেছে। বাকি দেশে ৮০% ছাগল ঘাস খেতে খেতে ঢুকেছিল, সার্টিফিকেট চিবুতে চিবুতে বের হয়েছে। মাঝখানে কিছু ট্যুর দিছে।এটাই পার্থক্য ৫ বছরে।


একাডেমিকাল জিনিস টা বাদ দিলে উপরের তলার বাসিন্দারা ছাড়া আমরা তলানির কেউ কেউ শিখেছি নিজেকে বিলিয়ে দেওয়া, একাগ্রতা, ইস্পাত শক্ত চিন্তাধারা। আর বাকিরা হয়েছে আরো রিজেক্টেড, অলস এবং গিয়েছে হারিয়ে জীবনের গোলকধাধায়। প্রতিদিনই খবর পাই জীবনে হারিয়ে যাওয়ার গল্পের। অন্ধকার সময়ের ভিতরে পড়ে যাওয়ার। কেউ কেউ যে স্বপ্ন নিয়ে ১০ বছর আগে বিশ্ববিদ্যালয়ের আংগিনায় পা দিয়েছিল তার ১০০ ভাগের ১ ভাগ নিয়েই খুশি হতে শিখেছে কিংবা শিখছে।
বাস্তবতার আগুন আমাদের পুড়িয়ে যাচ্ছে ক্রমাগত।

এখন,আয়নায় দাঁড়িয়ে দেখার সময় আমরা কি পুড়ে ছাই হয়েছি আদৌ নাকি পুড়ে আরো শক্ত হয়েছি? এই সাফারিং গুলো কি আমাদের জীবনের কোনো প্রশ্নের উত্তর দিতে পেরেছে? নাকি একগাদা হাই ফাংশনিং ডিপ্রেসড জেনারেশন তৈরি করেছে?

মন্তব্য ৬ টি রেটিং +১/-০

মন্তব্য (৬) মন্তব্য লিখুন

১| ১৪ ই জানুয়ারি, ২০২১ সকাল ১১:০৪

মোঃ মাইদুল সরকার বলেছেন:
আগুনে পুড়ে খাটি সোনা হয়। এখন বাস্তবে কি সেটার ফলন হয়েছে বলে মনে হয় ?

১৮ ই জানুয়ারি, ২০২১ সন্ধ্যা ৬:৪১

ধ্রুব অন্যকোথাও বলেছেন: ্কেউ কেউ হইছে। অনেকেই হয় নাই

২| ১৪ ই জানুয়ারি, ২০২১ দুপুর ১২:২৮

পদ্ম পুকুর বলেছেন: ঠিক জানিনা, হয়তো একটু ডিপ্রেসড হয়ে আছেন বলে লেখা এবং বক্তব্য খানিকটা এলোমেলো মনে হচ্ছে। কিন্তু শেষ প্যারার লেখা আপনার মানসিক শক্তি সম্পর্কে যে ধারণা দিচ্ছে, তাতে করে মনে হয় না যে আপনি মাথা নুয়াবার মত মানুষ। তারপরও যদি বর্তমান অবস্থান আপনাকে বিপর্যস্ত করে থাকে, নিশ্চিত থাকুন, সেটা সাময়িক। এ দুর্যোগ থাকবে না। বিশ্ববিদ্যালয়পর্ব শুরুর পর ১০ বছর পার হয়ে যাওয়াটা নতুন শুরুর জন্য কোনো বড় বাধা নয়।

আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়গুলে আমাদেরকে কি শেখাচ্ছে আর কি শেখাচ্ছে না, তার চেয়ে বড় হয়ে দাঁড়িয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর কি শেখানোর কথা ছিলো.... বিবিধ কারণে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো জব-ওরিয়েন্টেড পড়াশুনাকেই মোক্ষ বানিয়ে ফেলেছে, অথচ এটা হওয়ার কথা ছিলো না। বরং এখান থেকে বের হওয়ার কথা ছিলো গবেষক, বিজ্ঞানী, সমাজচিন্তক এবং রাষ্ট্রনেতা। কিন্তু এখন শুধুই বের হচ্ছে আমলা-কামলা, ব্যবসায়ী; দাস মনোবৃত্তির কারণে যাদের দৃষ্টিশক্তি বেশি দূর যেতে পারে না।

১৮ ই জানুয়ারি, ২০২১ সন্ধ্যা ৬:৪২

ধ্রুব অন্যকোথাও বলেছেন: ডিপ্রেশন শক্ত ওয়ার্ড। ফ্রাস্ট্রেশন এবং রিয়ালাইজেশন। বিশ্ববিদ্যালয় গুলোর কাজকর্ম জব ভিত্তিক হলেও ভালো হতো। শুধু এক রকমের জব হয়ে যাওয়াটাই একটা সমস্যা হয়ে গেছে

৩| ১৪ ই জানুয়ারি, ২০২১ বিকাল ৫:৪৮

রাজীব নুর বলেছেন: আমাদের আশাবাদী হতে হবে।
দেরী হোক যায়নি সময়।

১৮ ই জানুয়ারি, ২০২১ সন্ধ্যা ৬:৪৩

ধ্রুব অন্যকোথাও বলেছেন: ভালো বলেছেন

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.