নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

শব্দকবিতা : শব্দেই দৃশ্য, শব্দেই অনুভূতি \n\[email protected]

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই

দুঃখের কবিতাই শ্রেষ্ঠ কবিতা। ভালোবাসা হলো দুঃখ, এক ঘরে কবিতা ও নারী।

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই › বিস্তারিত পোস্টঃ

করোনা নয়, গানের পোস্ট

২১ শে মার্চ, ২০২০ বিকাল ৫:০৩

অনেক দিন ধরেই গানের পোস্ট দেয়া হচ্ছিল না, তাই এবার এলাম গান নিয়ে। তবে, পৃথিবী এখন কোভিট-১৯ করোনা ভাইরাসের প্রকোপে দিশেহারা। তাই করোনা নিয়ে কয়েকটি কথা আগে বলে নিয়ে গানের লিস্টি নীচে দিচ্ছি।



বহুদিন পর্যন্ত আমাদের বাংলাদেশ এ ভাইরাস থেকে মুক্ত ছিল। একদিন শোনা গেল, বাংলাদেশও অনেকগুলো ঝুঁকিপূর্ণ দেশের মধ্যে একটি। এ খবর শোনার পর বুক কেঁপে উঠলো। তবে, অনেকে আবওহাওয়া ও ভৌগলিকগত বেশকিছু তথ্যউপাত্ত দিয়ে বোঝাতে চাইলেন যে, আমরা মোটেও ঝুঁকিপূর্ণ নই। তাদের এ কথায় আশ্বস্ত হয়ে যখন সুখেশান্তিতে দিন গুজরান করছিলাম, তখনই ৮ মার্চ ২০২০ তারিখে শোনা গেল, দেশে ৩ জন করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত। বিশ্ব স্বাস্থ্যসংস্থার ১৯৪টি সদস্য দেশের মধ্যে ১০২তম দেশ হিসাবে বাংলাদেশ করোনা আক্রান্ত দেশে পরিণত হলো। আজ ২১ মার্চ ২০২০ তারিখ পর্যন্ত দেশে মোট ২৪ জন করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছেন। এর মধ্যে ১৮ মার্চ ২০২০ তারিখে প্রথম ও ২১ মার্চ ২০২০ তারিখে ২য়, মোট দুই ব্যক্তি করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেলেন।


*******

করোনা ভাইরাসে কারা সবচাইতে বেশি ঝুঁকিপূর্ণ? এ অংশটি নেট থেকে সংগৃহীত। আমার কাছে গুরুত্বপূর্ণ মনে হওয়ায় নীচে তুলে দিলাম। যারা এ সব রোগে আক্রান্ত, বা ধূমপায়ী, তারা সাধারণের চাইতে অধিক সতর্ক থাকবেন, এই প্রত্যাশা করি।

ধূমপান: বিশেষজ্ঞরা বলছেন, অন্যদের তুলনায় ধূমপায়ীরা করোনাভাইরাসে আক্রান্তের ঝুঁকি ১৪ গুণ বেশি। সে কারণে এই দুঃসময়ে ধূমপান ছেড়ে দেওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন তারা।

ডায়াবেটিস: যাদের ডায়াবেটিস রয়েছে, অন্যদের তুলনায় তাদের করোনা আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বেশি। যুক্তরাজ্যের ডায়াবেটিস চিকিৎসক ডন হওয়ার্থ বলেন, করোনাভাইরাস বা কোভিড-১৯ ডায়াবেটিসে ভুগতে থাকা ব্যক্তিদের জন্য বিপজ্জনক। তিনি আরো বলেন, যদি কারো ডায়াবেটিস থাকে এবং কাশি হয়, শরীরের তাপমাত্রা বেড়ে যায়, শ্বাসকষ্ট হয়; তাহলে ব্লাড সুগার মাঝেমাঝেই পরীক্ষা করে দেখা দরকার।

হার্টের সমস্যা: করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হলে ঝুঁকিতে থাকা ব্যক্তিদের তালিকায় দুই নম্বরে রয়েছে হার্টের রোগীরা। কারণ, হার্টের সমস্যায় ভুগতে থাকা রোগীদের ইমিউন সিস্টেম এমনিতেই দুর্বল হয়ে থাকে। ভাইরাসে আক্রান্ত হলে তাদের শরীর শক্তিশালীভাবে তা প্রতিরোধ করতে পারে না।

অ্যাজমা: ফুসফুসের বাইরে ও ভেতরে বাতাস যাতায়াতে সাহায্য করে আস্ট্রা। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হলে শ্বাসনালী ক্ষতিগ্রস্ত হয়। যেহেতু অ্যাজমা রোগীরা এমনিতেই এ সমস্যার মধ্য দিয়ে যায়, করোনা ভাইরাস তাদের ঝামেলা আরো বাড়িয়ে দেয়। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হলে অ্যাজমা রোগীদের ইনহেলার ব্যবহার করা উচিত। সচেতন না হলে প্রাণহানি ঘটতে পারে।

ফুসফুসে সমস্যা কিংবা যক্ষ্মা হলে: ফুসফুসে সমস্যা থাকলে কিংবা যক্ষ্মা হলে করোনা ভাইরাসের সঙ্গে লড়াই করা অনেক বেশি কঠিন হয়ে যায়।

ক্যান্সার: ক্যান্সারের রোগীরা করোনাভাইরাসে সবচেয়ে ঝুঁকির মধ্যে। আর আক্রান্ত হলে সেরে ওঠা অনেক বেশি কঠিন। তাদের দুর্বল ইমিউন সিস্টেমকে সহজে কাবু করার সুযোগ হাতছাড়া করতে চাইবে না করোনাভাইরাস।

পাকস্থলীর সমস্যা: যাদের হজমে সমস্যা আছে এবং পাকস্থলী নিয়ে চরম বিপাকে রয়েছেন, করোনাভাইরাস তাদের কাছে যমদূতের মতো। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যারা এ ধরনের সমস্যায় ভুগছেন, এ সময় তাদের বাড়তি সচেতন থাকা দরকার। করোনাভাইরাসের সঙ্গে লড়াই করার মতো ইমিউন সিস্টেম এ ধরনের সমস্যায় ভুগতে থাকা ব্যক্তিদের নেই।

দুর্বল ইমিউন সিস্টেম: বিশেষজ্ঞরা বলছেন, করোনাভাইরাস মোকাবেলার মতো কোনো ভ্যাকসিন এখন পর্যন্ত আবিষ্কার হয়নি। একে প্রতিরোধ করার একমাত্র উপায় ইমিউন সিস্টেম। এজন্য প্যারাসিটামল না খাওয়ার পরামর্শও দিয়েছেন তারা। তবে যাদের ইমিউন সিস্টেম দুর্বল, তারা ঝুঁকিতে রয়েছেন।

****

করোনা প্রতিরোধে সরকার যেসব নির্দেশনা জারি করছে, তা মেনে চলা বাঞ্ছনীয়। সেই সাথে, আমার নিজেরও কিছু মতামত আছে, যেগুলো মেনে চলা আবশ্যক, অন্তত আমি মেনে চলছি।

করোনা প্রতিরোধে আপাতত নীচের নিষেধাজ্ঞা মেনে চলা এবং কিছু অভ্যাস পরিত্যাগ/স্থগিত করা জরুরি :

১। আমাদের নিজ নিজ বিবিগণ যেন শপিং মল, ফিশিং মল, পারলার, বাজার, আগোরা, আড়ং, বসুন্ধরা, যমুনা ফিউচার পার্ক, রমনা পার্ক, শাড়ির দোকান, গহনার দোকান, ইত্যাদি জায়গায় অতি প্রয়োজন না হলে গমনাগমন না করেন। বাসায় বসে থাকাই উত্তম, যদি না কাজের প্রয়োজনে বাইরে বেরোবার দরকার পড়ে।

২। আমরা আপাতত সোশালাইজেশন, আই মিন, একে অপরের বাসায় ভিজিট করা স্থগিত রাখি। এই প্রসঙ্গে এটাও বলে রাখি- পরবর্তী ঘোষণা না দেয়া পর্যন্ত আমার বাসায় আসা যে-কোনো আত্মীয়স্বজন, বন্ধুবান্ধব, সহকর্মী, শালা-শালী, ভাইগ্না-ভাইগ্নি, ভাতিজা-ভাতিজি, ছেলেমেয়েদের বন্ধুবান্ধব, ভাই-বোনের জন্য কঠোরভাবে নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

৩। বিদেশ ফেরত কোনো আত্মীয় যেন নিজ বাসায় না আসেন, আমরাও যেন তাদের বাসায় না যাই।

৪। হাসপাতালে বা বাসায় কোনো রোগী দেখতে না যাওয়াটাই শ্রেয় হবে।

৫। অতি প্রয়োজন না হলে বাইরে বা ঘনবসতিপূর্ণ, নোংরা এলাকায় যাতায়াত না করাই উত্তম।

৬। প্যানিক বায়িং থেকে বিরত থাকুন। এটা অত্যন্ত গর্হিত কাজ। দেশে যথেষ্ট পরিমাণ খাদ্যের মজুদ আছে। প্যানিক বায়িং করে পরে পস্তাবেন, কারণ, প্যানিক বায়িং-এর ফলে হঠাৎ দাম বেড়ে যাবে, আপনি সেই চড়া দামে জিনিস কিনবেন, অথচ কিছুদিন পর দেখবেন জিনিসের দাম একেবারেই কমে গেছে। নিজের টাকা এভাবে হারালেন বলে থাপড়াইয়া পাছা ফাটাইয় রক্ত ঝরানো ছাড়া আপনার আর কিছু করার থাকবে না।

***

আমি যদি করোনায় আক্রান্ত হই বা মারা যাই

একদিন সন্ধ্যায় আমার ছোটো ছেলেকে আমি করোনায় আক্রান্ত হলে কী করতে হবে সেই সম্পর্কে নির্দেশনা দিচ্ছিলাম। বলছিলাম, আমার করোনা হলে আমি কালবিলম্ব না করে হাসপাতালে চলে যাব। হাসপাতাল আমাকে না রাখলে বা জায়গা দিতে না পারলে বাসায় ফিরে এসে একা বদ্ধ ঘরে বন্দি থাকবো। অন্তত ১৪ দিন এভাবেই থাকবো। যদি বেঁচে ফিরে আসি, তাহলে তো আসলামই, আর যদি আরো বেশি অসুস্থ হইয়া পড়ি, খবরদার, আমার জন্য কোনো দরদ দেখাইতে আমার কাছে আইসো না, তাইলে বাসার সবাইকেই আক্রান্ত হয়ে মরতে হবে। মোটামুটি এই হলো প্লান। ভালো মন্দ যাহাই আসুক, সত্যকে মেনে নিতে হবে সহজে। আল্লাহর রহমতে অনেক সতর্ক আছি, ইনশা'আল্লাহ করোনায় আক্রান্ত হবো না। তারপরও যদি আক্রান্ত হইয়া যাই, মৃত্যু যদি আসেই, আফসোস নাই, সত্যকে মেনে নিতে হবে। আল্লাহর কাছে হাসিমুখেই যাতে যেতে পারি, সেই মনোবল রাখতে হবে।

এ কয়দিনে যা বুঝলাম, করোনার কোনো চিকিৎসা নাই। কোয়ারেন্টাইন করার পর তসবিদানা হাতে নিয়া সময় গুনতে হবে আর আল্লাহর কাছে পানা চাইতে হবে। এটাও একটা সুখের কথা বা আনন্দের খবর যে, আমার সময় চলে আসছে ওপারে আমার মা আর বাবার কোলে ফিরে যাবার, অতি শীঘ্রই তাদের দেখা পাব। ... তসবিদানা গুনতে গুনতে নিয়মিত পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখতে হবে, পানি ও খাবার খেতে হবে, একেবারে ঘরের দরজা জানালা সিলগালা করে আটকাইয়া দিতে হবে, যাতে বাইরের বাতাস ভেতরে না ঢুকতে পারে, ভেতরের বাতাসও বাইরে না যেতে পারে। ঘরের ভেতরেই যাবতীয় খাবার দাবারের ব্যবস্থা করে ফেলতে হবে। এর মধ্যেই আল্লাহ যদি বলে বসেন, না, তোমাকে আরো থাকতে হবে পৃথিবীতে, তখন সেটাও খুশি মনে মেনে নিতে হবে।

আমার করোনায় মৃত্যু হলে প্রচলিত ইসলামি বিধান না মেনে তায়াম্মুম গোসল করিয়ে কবর দিতে হবে বিশেষ সতর্কতার সাথে। আমাকে আমার জন্মগ্রামে নিয়ে কবর দেয়া নিষিদ্ধ করলাম। আমার বাসার নিকটতম বনানী কবরস্থানে কোনোভাবে মাটির নীচে রেখে দিলেই হবে। এটা হবে আমার পরিবারসহ সবার জন্য মঙ্গলজনক। খবরদার, আমার মৃতদেহ দেখার জন্য দূরের বা কাছের কেউ আমার কাছে যেন না আসে। এমনকি আমার স্ত্রী ও পরিবারের কেউ যেন আমাকে স্পর্শ করতে না আসে।

আমার ডেডবডি কবর দিবে কে? এ ব্যাপারে সরকারের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ই ব্যবস্থা করবে বলে আশা করি। আমার ডেডবডি একটা এক্সপ্লোসিভের মতো হবে, এটা যত তাড়াতাড়ি ডিসপোস অফ করা যাবে, দেশের জন্য ততই স্বস্তিকর হবে।

ছেলের জন্য মোটামুটি এই ছিল নির্দেশনা।

***

এবার আপনারা যারা ঘরে বসে আছেন, কিছু করার নাই, তারা গান শোনেন আর ব্লগিং করেন। এই এপিসোডের প্রধান আকর্ষণ রাবা খানের ম্যাশ-আপ সংস। রাবা খান হলেন মাল্টি-ট্যালেন্টেড একজন রাইটার; ২০১৯ একুশে বইমেলায় তার 'বান্ধobi' বইটি অন্যতম বেস্ট সেলার বই ছিল। রাবা খানের নাম উহ্য রেখে ২০১৯-এ একটা পোস্ট দেয়া হয়েছিল। পড়তে চাইলে এখানে ক্লিক করুন।

গানের তালিকা

১।
শুরুতেই আমার মেয়ের একটা কভার সং। সে গান গায় না, গান শোনে। অনেক আগে তার বড়ো ভাইয়ের সাথে একটা রেকর্ড করেছিল, আর এবার তার ছোটোভাইয়ের সাথে রেকর্ড করলো এটা। আপনাদের মনের মতো হয় নি, তবে আমার আশার চাইতেও মেয়ে অনেক ভালো গেয়েছে।

নীলা - মাইলস। ঐশী (আমার হবু ডাক্তার মেয়ে)


হাবিবের ৬টি গানের ম্যাশ-আপ - রাবা খান


তোমাকে চাই এবং তেরা ঘাটা - রাবা খান


চোখে আমার প্রেমের কাজল - উমা খান ও রুলিয়া রহমান


একটি দুষ্টু ছেলে আর একটি মিষ্টি মেয়ে - লাকী আখন্দ ও রোকেয়া সিদ্দিকা


খোলা জানালায় চেয়ে দেখি তুমি আসছো - শাহনাজ রহমতউল্লাহ


তুমি যদি বলে দিতে - ফেরদৌসী রহমান


যেমন নদীর জলে নাও ভাইসা চলে - শিমুল ইউসুফ ও লীনু বিল্লাহ


মন শুধু মন ছুঁয়েছে - তপন চৌধুরী

১০
সব তোমারি জন্য - মান্না দে

১১
সুখ তুমি কী - রুনা লায়লা

১২
পরাণে দোলা দিল - ফেরদৌসী রহমান

১৩
আমার ঘরখানায় কে বিরাজ করে - টিনা ঘোষাল

১৪
হায়রে আমার মন মাতানো দেশ - রুমানা ইসলাম

১৫
বাড়ির কাছে আরশিনগর - ফরিদা পারভীন

১৬
ওরে আমার নিঠুর বন্ধুরে - শ্রীরাধা ব্যানার্জী

১৭
ওরে আমার নিঠুর বন্ধুরে - শাহনাজ রহমতউল্লাহ

১৮
যার ছায়া পড়েছে - ফেরদৌসী রহমান

১৯
কথা বলো না বলো ওগো বন্ধু - ফেরদৌসী রহমান

২০
এই পৃথিবীর পান্থশালায় - সৈয়দ আব্দুল হাদী

২১
ও মেয়ের নাম দেব কী ভাবি শুধু তাই আমি - মাহমুদুন্নবী

২২
মানুষ ভজলে সোনার মানুষ পাবি - সাহানা বাজপেয়ী

২৩
বৈঠা - ভবনদীর কূল পাইলাম না - সিঁথি সাহা

২৪
সারাদিন ভেবে তোমার কথা - শুভমিতা ব্যানার্জি

২৫
কার হাতে যে খুন হইলাম - সাবিনা ইয়াসমিন


আতঙ্ক নয়, সচেতনতা ও সতর্কতাই পারে করোনা থেকে আমাদের নিরাপদ রাখতে। সচেতন হোন! সতর্ক থাকুন।
শুভ কামনা।




মন্তব্য ৩০ টি রেটিং +১/-০

মন্তব্য (৩০) মন্তব্য লিখুন

১| ২১ শে মার্চ, ২০২০ বিকাল ৫:৩৭

রাজীব নুর বলেছেন: গান গুলো রাতে শুনবো।

২১ শে মার্চ, ২০২০ বিকাল ৫:৫৯

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: আপনি ঘোরাঘুরি কম কইরেন।

এইমাত্র একটা খবর পেলাম :

১। Mirpur 1 ডেল্টা মেডিকেল কলেজ এবং হাসপাতালের আইসিইউ "তে করোনা ভাইরাস আক্রান্ত রোগীর মৃত্যু। ৪ চিকিৎসক আর ২ ইন্টার্ন কোয়ারেন্টিনে। যথাযথ পারসোনাল প্রটেক্টিভ ইকুইপমেন্ট সরবরাহ না থাকায় ইন্টার্ন চিকিৎসকগণ কর্মবিরতিতে।

২। এই পেশেন্টটি তার এক্সপোজার হিস্ট্রি গোপন করে তিন হাসপাতাল ঘুরে, ঢাকার একটি ফ্ল্যাটে অবস্থান করে, পরিচিত কোন সাস্পেক্টেট কেইসের মাধ্যমে আক্রান্ত হয়ে ডেল্টা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউতে মারা গেলেন। তিন হাসপাতালের যেই ডাক্তাররা দেখেছেন সবাই কোয়ারেন্টাইনে।

৩। মিরপুর ১ টোলারবাগে একটা বিল্ডিং ফুল লকডাউনে। ৩০ পরিবারসহ। ধারণা করা হচ্ছে ঐ বিল্ডিং এর ২৫-৩০ জন করোনা এ্যাফেক্টট হতে পারে।

৪। ডেল্টার ICU শাটডাউন করা হয়েছে।

৫। IEDCER রোগী স্যাম্পল নিতেই চাচ্ছিল না। পরে গতকাল সকালে অনেক অনুনয় বিনয়ের পরে ওরা নেয়। নেয়ার পরে দুপুরে টেস্ট করে দেখে Covid-19 positive. আর রোগী রাতেই মারা যায়।

৬। রোগী মারা যাওয়ার পর তার আত্মীয়স্বজন সব পালিয়ে যায়।

৭। ম্যানেজারের সাথে যোগাযোগ করা হলে, সে কোন তথ্য দিচ্ছে না, বলছে IEDCER এর থেকে তথ্য নেওয়ার জন্য। IEDCER-এ যোগাযোগের চেস্টা চলছে।

২| ২১ শে মার্চ, ২০২০ বিকাল ৫:৪৪

ইসিয়াক বলেছেন: ঐশী মা মণি ও লাবিব বাবুর জন্য শুভকামনা ।
সতর্ক থাকুন ভালো থাকুন।
নিরাপদে থাকুন আপনজন নিয়ে।
দোয়া রইলো।

২১ শে মার্চ, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:২১

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: অনেক অনেক ধন্যবাদ ইসিয়াক ভাই। আপনারাও নিরাপদে থাকুন, সতর্ক থাকুন। শুভ কামনা।

৩| ২১ শে মার্চ, ২০২০ রাত ৮:০৭

রিফাত হোসেন বলেছেন: অনটপিক - গানের গলা ভাল লাগল। :)
অফটপিক - রাবা খান এর কিমভুত বই এর জন্য আমরা দায়ী, সমাজ দায়ী।
আমার বক্তব্যের কারণ আছে। আমি একাধিক ভাষায় পারদর্শী বলব না তবে যোগাযোগ করে থাকি। অন্য সমাজের সাথে উঠা বসার অভিজ্ঞতায় বলছে, কেউ মাতৃভাষাকে বিকৃতের পর্যায়ে নিয়ে যায় না। অন্তত বলকান অঞ্চল ও প্রতেবেশী ভাষাভাষীরা নয়। উন্নত জাতি স্বত্তার মানুষ একাধিক ভাষায় পারদর্শী তাই বলে তারা হযবরল তৈরী করে না। বাংলাদেশের আধুনিক ছেলেমেয়েরা মাত্র ২টি ভাষা শিখেছে, হিন্দী চলচ্চিত্র দেখে আর ইংরেজী বিদ্যালয় ও কার্টুন/ছায়াছবি থেকে রপ্ত করেছে। এতেই এই অবস্থা।
বাংলা একাডেমি দায় এড়াতে পারবে না, দেশের সরকারও এড়িয়ে যেতে পারবে না। বাংলা একাডেমি নামটাই তো দৃষ্টকটু মনে হয় আমার কাছে। এর থেকে বাংলা ভাষা গবেষনা কেন্দ্র সুন্দর হত। এক দিক দিয়ে গণমাধ্যমও দায়ী। তারা ইংরেজিকেই আপন করে নিচ্ছে। quarantine ও isolation শব্দগুলির বাংলা আছে। কিন্তু তবুও ইংরেজি উচ্চারণকেই বাংলা শব্দে প্রকাশ করলেতো মানুষ ইংরেজিতেই অভ্যস্ত হয়ে পরবে। আমিও হচ্ছি, সবাই হচ্ছে। কারণ আমি বাংলা বাক্যের মাঝে এই শব্দগুলি শুনছি ও পড়ছি। সুতরাং, এরকম রাবা খান আমাদের ভিতর তৈরী হয়ে যাচ্ছে। বেশি বলে ফেলেছি হয়তো। মাফ করবেন।

দোয়া করবেন। :( পরিবার নিয়ে চিন্তিত। বাংলাদেশে এর থেকে বেশি কিছু চাইতে পারছি না। হাজার হাজার কোটি টাকা দিয়ে হেনতেন বানানো হয় কিন্তু চিকিৎসার প্রয়োজনীয় উপকরণ নাই। আফসোস...

২১ শে মার্চ, ২০২০ রাত ৯:৫০

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: গানের গলা ভালো জেনে ভালো লাগলো। আমি তো ভালো গলাওয়ালা গায়কদের গানই শেয়ার করে থাকি :) যদিও এখানে আমার মেয়ের একটা গান দেয়া হয়েছে।

অফ টপিকে যা বলেছেন, তা অনেক গুরুত্বপূর্ণ কথা। দ্বিমত পোষণ করার কোনো সুযোগ নেই। অনেক সুন্দর বলেছেন।

আপনার পরিবার ও আপনার জন্য অনেক অনেক দোয়া থাকলো। আপনারা ভালো ও নিরাপদ, নিরোগ থাকুন। শুভ কামনা।

৪| ২১ শে মার্চ, ২০২০ রাত ৯:০২

মিরোরডডল বলেছেন: ধুলো
সেরকম হলে দরজা জানালা সিল করতে হবেনা । ২ মিটার দূরত্ব মেইনটেইন করলেই হবে ।
জানালা খোলা থাকবে । আকাশের সাথে মিতালী হবে । গান শুনতে শুনতে ধুলো চলে যাবে । মন্দ না আইডিয়াটা : -)

গানগুলো মোটামুটি সবই আগে ধুলোর সাইটে দেখেছি ।
ঐশীরটা কাল দেখেছিলাম । এ বয়সটারই একটা নিজস্ব সুইটনেস আছে ।
এতো গান দেয়া হোল ধুলোর নিজের গানই দেয়া হয়নি !

২১ শে মার্চ, ২০২০ রাত ১০:০১

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: ডুলু, জানা থাকলে নীচের প্রশ্নগুলো ক্লিয়ার করুন :

১। একই ব্যক্তির একাধিকবার আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা আছে কিনা। থাকলে তা কতখানি?

২। করোনা আক্রান্ত ব্যক্তি একই বাসায় পরিবারের সাথে কোয়ারেন্টিন করলে তা কি ইফেক্টিভ হবে? অর্থাৎ, আমি আমার রুমে ১৪ দিন থাকলাম, কারো সাথে দেখাসাক্ষাৎ করলাম না, একা একা রান্নাবান্না করে খাইলাম, অন্যদের সেইফ থাকার সম্ভাবনা কতখানি? ২ মিটার দূরত্ব রক্ষা করে চললেই কি হবে? আমার থালাবাসন, কাপড় যদি ওদের কাপড়চোপড়ের সাথে মিশে যায়, পরিণতি কী হবে?

৩। ধুলোর গানগুলো আসলে গান নয়, শুধু সুরটাকে ধরে রাখা। কত সুর মুহূর্তে সৃষ্টি হয়, মুহূর্তেই হাওয়া হয়ে যায়, কিছু সুর ধরে রাখার চেষ্টা করি আর কি। তোমার জন্য এই বসন্ত রেখে গেলাম

৫| ২১ শে মার্চ, ২০২০ রাত ৯:২৮

রাজীব নুর বলেছেন: বাইরে যাওয়া কমিয়ে দিয়েছ।

২১ শে মার্চ, ২০২০ রাত ১০:০৩

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: হ্যাঁ, সেটাই আপনার জন্য ও পরিবারের জন্য নিরাপদ হবে।

৬| ২১ শে মার্চ, ২০২০ রাত ১০:১৬

সোহানী বলেছেন: শুকামনা ঐশীর জন্য।

যেখানেই থাকুন সাবধানে থাকুন। কিছু অথর্ব লোকবলের জন্য আজ পুরো দেশ রিস্কে আছে। কিন্তু কিছু করার নেই, আমাদের জীবনই যেন এমন.................

২১ শে মার্চ, ২০২০ রাত ১০:২৯

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: আমার মানসিক শক্তি খুব দৃঢ়। কিন্তু গতকাল সন্ধ্যার পর নানান ঘটনায় মন খুব অশান্ত ও বিক্ষিপ্ত। এতকাল শুধু আমার কথাই ভাবতাম- মৃত্যু এলে হাসিমুখেই মৃত্যুকে বরণ করে নেব- কিন্তু আমার ভুল ছিল এই ভাবনা- মৃত্যু তো শুধু আমার একার জন্য আসবে না, আসবে সবার জন্যই। পরিবারের যে-কেউ আক্রান্ত হলে খুব ভয়ানক পরিস্থিতি হবে সবকিছু ম্যানেজ করা। উপরে মিরোরডডলকে বেশকিছু প্রশ্ন করেছি। স্বস্তি নির্ভর করছে ওগুলোর উত্তরের উপর।

আপনিও আপু বিপদসঙ্কুল দেশেই আছেন। আপনার জন্য ও পরিবারের সবার জন্য দোয়া থাকলো।

ঐশীকে শুভকামনা জানানোর জন্য ধন্যবাদ। দোয়া করবেন ওর জন্য।

৭| ২১ শে মার্চ, ২০২০ রাত ১১:৩০

নেওয়াজ আলি বলেছেন: সুশ্রী ও শ্রুতিমধুর  । 

২২ শে মার্চ, ২০২০ সকাল ১০:৩৩

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: ধন্যবাদ নেওয়াজ আলি।

৮| ২২ শে মার্চ, ২০২০ রাত ২:০৩

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:
আপনার ছেলে ও মেয়ের জন্য শুভকামনা
ভালো করেছে। গুণী ছেলে মেয়ের পিতা
হবার জন্য শুভেচ্ছা।

করোনায় আতংক নয়. সতর্কতা ও
দ্বায়িত্ববোধ কাম্য। সবাই নিরাপদ ও
সুস্থ্য থাকুক এই কামনা করছি।
আল্লাহ আমাদে হেফাজত করুন।
আমিন।

২২ শে মার্চ, ২০২০ সকাল ১০:৩৪

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: ধন্যবাদ নূর মোহাম্মদ নূরু ভাই। আপনিও পরিবারের সবাইকে নিয়ে সুস্থ ও নিরাপদ থাকুন, এই দোয়া করি।

৯| ২২ শে মার্চ, ২০২০ সকাল ৭:৩২

মিরোরডডল বলেছেন: সরি ধুলো আমিতো ফান করছিলাম : -(
আসলে এসময় ফান করাটা ঠিক হয়নি ।

ওকে নাও আই’ম সিরিয়াস । আমি আর কতটুকুই বা জানি । যতটুকু জানি সেটা হচ্ছে , সংক্রমিত যেন না হয় , ওয়ান এন্ড অনলি থিং উই ক্যান ডু ইজ মেইনটেইন । ক্লিনলিনেস এন্ড ডিসটেন্স ।
No touch in mouth nose or eyes without washing hands, so and so pre-cautions এটা নিয়ে না বলি কজ ইউ নো অলরেডি ।

১। একই ব্যক্তির একাধিকবার আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা আছে কিনা। থাকলে তা কতখানি?

I wish I can say chances are slim but no. It can happen again.
হ্যাঁ একই ব্যাক্তির একাধিকবার হতে পারে ইফ নট মেইনটেইন । যেহেতু কোন ভ্যাকসিন নেই , যেভাবে একবার হবে , সেই একইভাবে আবারও হতে পারে । সতর্কতা মাস্ট ।

২/ ‘করোনা আক্রান্ত ব্যক্তি একই বাসায় পরিবারের সাথে কোয়ারেন্টিন করলে তা কি ইফেক্টিভ হবে’

অবশ্যই একই বাসায় থাকতে পারে প্রপার আইসোলেশন নিয়ম মেইনটেইন করে ।
আক্রান্ত মানেই নট সিভিয়ার অর হসপিটালে যেতে হবে । নো ।
As soon as identify confirmed case must need 14 days complete isolation.
Everything needs to be separated. No person to person contact and no surface sharing.
This virus not spread through the air but touch the surface.

দরজা জানালা বন্ধ করে রাখার প্রয়োজন নেই এজ লং এজ মেইনটেইন সেপারেশন প্রপারলি ।
২ মিটার দূরত্ব এটা আক্রান্ত হবার আগেই মেনে চলা ভালো ।
আক্রান্ত ব্যাক্তির ক্ষেত্রে এটা না । But if need to supply anything , must be given from outside the door in a proper distance, with full cover and not to touch.

আমার থালাবাসন, কাপড় যদি ওদের কাপড়চোপড়ের সাথে মিশে যায়, পরিণতি কী হবে?

নো ওয়ে । নো শেয়ারিং অর মিক্সিং ।
আক্রান্ত ব্যাক্তির সবকিছু আলাদা হবে । স্পর্শ থেকেই যেহেতু এটা ছড়ায় এবং খুব দ্রুতগতিতে ছড়ায় সেইকারনেই আইসোলেশন ইজ দেট ইম্পরট্যান্ট ।

Don’t worry too much Dhulo. I know you are very strong. Panicking is not solution.
We can keep maintain as much as we can. Everything will be okay.

গলায় যথেষ্ট সুরের অভাব থাকলেও কিন্তু ধুলো ভালো গায় :- )
থ্যাংকস ফর দিজ । I appreciate your effort.
ধুলো কোথাও যাচ্ছেনা । হি উইল বি হিয়ার ।

২২ শে মার্চ, ২০২০ সকাল ৯:১৫

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: আপনার উত্তরের জন্য অনেক উতলা হয়ে অপেক্ষা করছিলাম। রাতে ঘুম ভাঙলে মোবাইলে ব্লগ ওপেন করে দেখি তখনো আপনার রিপ্লাই নেই, আমি ভাবছিলাম আপনি হয়ত উত্তরগুলো খুঁজছেন।

যাই হোক, আপনার রিপ্লাই খুবই স্বস্তিদায়ক এবং ইন্সপায়ারিং। সকালে অফিসে এসে এক কলিগের সাথে এটা নিয়ে আলোচনা করে আরো ক্লিয়ার হলাম। সতর্কতা, পারসন টু পারসন মিনিমাম দুই মিটার গ্যাপ মেইন্টেইন করা, অন্যের স্পর্শ করা বস্তুতে হাত না দেয়া, স্যানিটাইজার ইউজ করা, ইত্যাদি মেনে চললে ইনশা' আল্লাহ নিরাপদে থাকবো বলে মনে করছি।

এতকিছুর পরও আক্রান্ত হলে কী করবো তার একটা মানসিক সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছি। পরিবারের সব সদস্যকে আলাদা করে ফেলবো। আমি নিজে অনেক কর্মঠ ও পরিশ্রমী। সব ধরনের প্রিকশন নিয়ে সবার সেবাযত্ন করবো আমি নিজেই। সবাই সুস্থ হয়ে ওঠার পর আমি নিজে আক্রান্ত হয়ে যদি মারাও যাই, মনে একটা শান্তি নিয়ে মারা যেতে পারবো।

অনেক ধন্যবাদ বিস্তারিত জবাবের জন্য।

গানের ব্যাপারে ধুলো যেটা মনে করে তা হলো, তার দম খুব খাটো, ফলে গানগুলো পূর্ণাঙ্গতা পায় না। এত দুর্বলতার পর ধুলোর গানের ব্যাপারে যা বললেন, তাতে সে খুশিতে লাফাচ্ছে।

১০| ২২ শে মার্চ, ২০২০ সকাল ৯:৪৫

মিরোরডডল বলেছেন: হা হা হা । আরে নাহ ।
সরি ধুলো ফর লেইট রিপ্লাই । উইক্যান্ড লেইট নাইট ঘুমাই লেইট করে উঠেছি ।
হম সেটাই , মেইনটেইন করতে হবে ।
এইতো কি সুন্দর প্ল্যান করা হচ্ছে । স্টিল আই’ড সে নেগেটিভ চিন্তা করার দরকার নেই ।
We should think positive and act positive. Remaining time will say what to do.

ছোটবেলায় আমার বোনের যখন গানের টিচার আসতো , মা চা বানিয়ে দিলে আমি সেটা নিয়ে যেতাম । পাশে বসে শুনতাম । সেই টিচার প্রিথিশ কাকু আমাকে অনেক রিকোয়েস্ট করতো আমি কেন একবার করিনা । আমি ভীষণ লাজুক ছিলাম । কোন অবস্থাতেই আমাকে দিয়ে একদিনও ট্রাই করাতে পারেনি । ইভেন বড় হবার পরেও ফ্রেন্ডসরা বলে মানুষ গুনগুণ করেওতো একটু গায় , কেন করিনা । আই লাভ মিউজিক দেন এনিথিং বাট আই নেভার ট্রাইড । সো হোয়েন আই সি আদার টু ট্রাই , আই লাইক ইট ।

২২ শে মার্চ, ২০২০ দুপুর ১:৪৩

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: যেটা আগে মেনশন করা হয় নি- ইউটিউবে আগেই কিছু গান শুনে/দেখে ফেলেছেন জেনে ভালো লেগেছে।

আমার ছেলেমেয়েদের মধ্যে একটা বৈশিষ্ট্য আছে- ওরা একবার যদি কোন একটা কথা বলবে না বলে বসে- দুনিয়ার সাধ্য নাই ওদের মুখ থেকে কেউ সেই কথা বের করে। অনেক মিস্টিরিয়াস কথা মনের মধ্যে চেপে রেখেছে ওরা অনেক অনেক দিন ধরে। আমি জানি না, ওরা কীভাবে পারে। আমি তো ছটফট করতে থাকি কতক্ষণে বলে ফেলবো :) তো, আপনিও সেই যে একবার 'না' বলে বসলেন, কোনোদিনই তা 'হ্যাঁ'-তে পরিণত হলো নাহ :( শেষ চেষ্টা হিসাবে ধুলোর মতো একটু ট্রাই করে দেখতে পারেন, কী হয়। আগেই সার্টিফাই করলাম- ধুলোর চাইতে আপনার গান বেটার হবে :)

১১| ২২ শে মার্চ, ২০২০ দুপুর ১:৪০

মোঃ মাইদুল সরকার বলেছেন:
করোনা নিয়ে লিখা কথাগুলো বাস্তব। আল্লাহ আমাদের রক্ষা করুন।

২২ শে মার্চ, ২০২০ দুপুর ১:৪৩

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: ধন্যবাদ মাইদুল ভাই। ভালো থাকবেন। শুভ কামনা।

১২| ২২ শে মার্চ, ২০২০ বিকাল ৪:৩২

রাজীব নুর বলেছেন: বাড়িতে পরিবারের সবাইকে নিয়ে থাকাটা আনন্দের, কিন্তু বাইরে বিপদজনক একটা অস্থির অবস্থা সেটা ভাবলেই স্ট্রেস বোধ করি ।

২৬ শে মার্চ, ২০২০ রাত ১০:০৭

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: আশা করি, সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে বাসার সবাইকে নিয়ে আনন্দেই দিন কাটাচ্ছেন। ভালো থাকুন। পৃথিবী রক্ষা পাক করোনা থেকে।

১৩| ২২ শে মার্চ, ২০২০ বিকাল ৫:৪১

মিরোরডডল বলেছেন: ধুলোর সন্তানরা তাহলে আমারই দলের মেম্বার :- )

নাহ সবাইকে দিয়ে সব হয়না ।
আমি গান শুনতে পছন্দ করি কিন্তু নিজে করিনা ।
একইভাবে লেখা পড়তে পছন্দ করি কিন্তু লিখিনা ।
পথের অলওয়েজ দুটো দিক থাকে ।
সবাই যদি একই পথে হাটে তাহলে উল্টো পথের পথিক হবে কারা !

২৬ শে মার্চ, ২০২০ রাত ১০:০৮

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: জি, ওরা আর আপনি তো দেখি একই দলের সদস্য :) কিন্তু ধুলো সব পথ গুলিয়ে ফেলেছে :(

১৪| ২৫ শে মার্চ, ২০২০ দুপুর ২:০৫

শায়মা বলেছেন: ভাইয়া ঐশীমনির গানটা অনেক সুন্দর হয়েছে।
রাবা খানও এক্সসেলেন্ট! :)

২৬ শে মার্চ, ২০২০ রাত ১০:৩৩

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: ঐশী চেষ্টা করলেই গাইতে পারে, কিন্তু গায় না। যাই হোক, শখ করে যা গেয়েছে তাতেই আমি অনেক খুশি। আপনার কাছে সুন্দর মনে হওয়ায় ভালো লাগলো।

রাবা খানের সফট ভয়েসে গাওয়া ম্যাশ-আপ আমার খুব ভালো লেগেছে। আমি বহুবার শুনেছি।

এটা তো দুর্দান্ত।

১৫| ২৫ শে মার্চ, ২০২০ দুপুর ২:০৮

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: সুন্দর।+

২৬ শে মার্চ, ২০২০ রাত ১০:৩৪

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: ধন্যবাদ+

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.