নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

শব্দকবিতা : শব্দেই দৃশ্য, শব্দেই অনুভূতি \n\[email protected]

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই

দুঃখের কবিতাই শ্রেষ্ঠ কবিতা। ভালোবাসা হলো দুঃখ, এক ঘরে কবিতা ও নারী।

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই › বিস্তারিত পোস্টঃ

ব্লগে কাদের পোস্ট পড়ি, কাদের পোস্ট পড়ি না

১২ ই জুন, ২০২০ দুপুর ২:৩৫

হেডনোট

যাতে নিজের নাম খুঁজে দেখার জন্য অনেকেই ব্লগে ঢুকে না পড়েন, এজন্য শুরুতেই বলে রাখছি, একেবারে শেষের দিকে শুধু তিনজন ব্লগারের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। ব্লগারদের নাম উল্লেখ করা নিয়ে এ পোস্ট নয় বলে দুঃখ প্রকাশ করছি।

**

ব্লগে ঢুকেই যে-পোস্টটা সামনে পড়ে ওটাই পড়ি। একনজরে প্রথম পাতায় চোখ বুলিয়ে গেলে আকর্ষণীয় বিষয় বা আমার প্রিয় বিষয়ের কোনো পোস্ট দেখলে সেটাতে ক্লিক করি। এরপর, প্রথম পাতায় প্রিয় কোনো ব্লগারের পোস্ট চোখে পড়লে সেটাতে ক্লিক করি। একটা সময় ছিল, যখন আমি কদাচিৎ প্রথম পাতায় আসতাম; সরাসরি চলে যেতাম ‘অনুসারিত ব্লগে’; যাদেরকে অনুসরণে রেখেছি তাদের পোস্ট পড়তাম কোনো বাছ-বিচার না করেই। যারা অনুসরণে ছিলেন বা এখনো আছেন, তারা সবাই আমার প্রিয় ব্লগার; লেখা ও তাদের নিজস্ব গুণে বা ব্যক্তিত্বেই তারা আমার প্রিয় ও অনুসারিত ব্লগার হয়েছিলেন। কিন্তু, কোনো একসময়ে ব্লগের চাইতে ফেইসবুকে সময় দিতে থাকলাম বেশি। তখন ‘অনুসারিত’ ব্লগারের লিস্ট ছোটো করে নিয়ে এলাম; যাদের ব্লগ সবসময়ই দেখি, তাদের আর অনুসরণে রাখলাম না, কারণ, এমনিতেই তাদের ব্লগে যাওয়া হবে।


কিন্তু, তথাকথিত অনেক ব্রিলিয়ান্ট ও ট্যালেন্টেড ব্লগারদের ব্লগ আমি এড়িয়ে চলি। যারা জীবনে একবার আমার সাথে বেয়াদবি করেছেন, অযৌক্তিকভাবে ঘাড় তেড়ামি করেছেন, তারা যেই লেভেলের ব্লগারই হোন না কেন, ভুলেও কোনোদিন তাদের ব্লগে ঢুঁ মারি নি। যাদের কথা বা কমেন্টে, বা পোস্টের কন্টেন্টে অহংকারের উপাদান থাকে, আমি তাদের ঘৃণা করি ও তাদের পোস্টে যাই না। যারা অহেতুক অন্যকে ব্যক্তি-আক্রমণ করে বসেন, তাদেরকে ঘৃণা করি। যারা সকালে এক কথা, বিকেলে আরেক কথা বলেন, তাদের কোনো এথিক্স নাই। রাত্রে মনে হলো তিনি খুব ধার্মিক, সকালে এক পোস্ট বা কমেন্ট পড়ে মনে হলো তিনি নাস্তিক (আমি বলে রাখি, আমি আস্তিক। আমার বিশ্বাস থেকে আমাকে বিচ্যুত করতে পারবে, এমন কেউ নেই)। আমি এদের পোস্ট এড়িয়ে চলি।

কাউকে দেখেছি, কবিতা বা গল্প বোঝেন বলে মনে হয় না, কিন্তু সাধারণ মানের এক কবিতায় প্রশংসার বন্যা বইয়ে দিলেন। অথচ, অন্য কিছু উৎকৃষ্ট কবিতা বা গল্পে গিয়ে তাকে ‘এটা কোনো কবিতা হয় নাই’, ‘একে কবিতা বলে না’, ‘এটা কোন গল্প হইল?’ বলতে দেখা যায়। এদের মূল উদ্দেশ্য থাকে ব্যক্তি-আক্রমণ। এদেরকে যেমন এড়িয়ে চলি, আবার এদের দু-একটা প্রশংসাসূচক কমেন্টকে যারা সত্যি মনে করে লাফাতে থাকেন, ফেইসবুকে স্ক্রিনশটও শেয়ার করতে কসুর করেন না, তাদেরকে এড়িয়ে চলা সম্ভব না হলেও তাদের প্রতি সম্মান কমতে থাকে। আমার কাছে খারাপ লাগে এ জিনিসটা যে, অনেকেই আবার এই ব্যক্তি-আক্রমণকারীদের শুধু পছন্দই করেন না, প্রমোটও করে থাকেন। যারা এই ব্যক্তি-আক্রমণকারী ব্লগারদের নিয়ে ব্লগ বা ফেইসবুকে পোস্ট দিতে থাকেন, আমার কাছে মনে হয়েছে, তাদের একটা উদ্দেশ্য থাকে- সেটাও হীন- তা হলো ‘হিট’ পাওয়া। আমি এদেরকেও এড়িয়ে চলি। আমি কোনো ব্যক্তি-আক্রমণকারীর পোস্ট পড়ার জন্য ব্লগে আসি না। একটা গ্রাম্য প্রবাদ আছে- এক ডেকচি দুধে একফোঁটা গো-মূত্রই যথেষ্ট, দুধ নষ্ট হওয়ার জন্য। আপনার পোস্ট বা কমেন্টে যত মূল্যবান কন্টেন্টই থাকুক, আপনার নেগেটিভ অ্যাটিচুড আমি ঘৃণা করি।

যারা বিন্দুমাত্র নেগেটিভ কমেন্ট বা সমালোচনা সহ্য করার ক্ষমতা রাখেন না, বা যারা মনে করেন ব্লগে একটা যেন-তেন মানের পোস্ট দিলেই ‘অসাধারণ’, ‘অতুলনীয়’, ‘রবীন্দ্রনাথের পর এই প্রথম এমন লেখা পড়লাম’- এমন সব কমেন্টে তাদের পোস্ট ভরে ফেলবো, বাজারে তেলের দাম বাড়িয়ে তাদের পোস্টে এসে ঢেলে যাব, তাদের পোস্টে আমি পা মাড়াই না। একটা পোস্ট ধৈর্য নিয়ে পড়ে একটা গঠনমূলক কমেন্ট করা অনেক শ্রমের দরকার (মেধার কথা বাদই দিলাম)। যারা এই শ্রমের মূল্য বোঝেন না, তাদের পোস্টে গিয়ে নিজের মূল্যবান সময় ও মেধা ব্যয় করার অর্থ হলো এগুলোর অপচয় করা। আপনি একটা পোস্ট পাবলিশ করলে আপনি শুধু উৎসাহ পাবার জন্য ভূরি ভূরি প্রশংসাই আশা করতে থাকবেন, আপনার মানসিকতা এমন হলে এটা খুবই বাচ্চাসুলভ ভাবনা। আপনার ম্যাচিউরিটি উন্নত করার অনেক অনেক সুযোগ রয়েছে।

আপনি একযুগ পর এসে একটা পোস্ট লিখবেন, আপনার পোস্টে কমেন্টও করবো, কিন্তু আপনি উত্তর দিবেন বেছে বেছে, অন্য কারো পোস্টে যাবার ব্যাপারে আপনার আকাশচুম্বী অহংকার, নিজেরে ‘আমি কী হনুরে মনে করেন’ - ওহে চান্দু, তুমি এমন কোনো সেলিব্রেটি হও নাই, অত বড়ো পণ্ডিতও না, খালি মুখে পট পট করলেই বড়ো হওয়া যায় না, অন্যরে ছোটো বললেই মানুষ তোমারে বড়ো কইবো না, তোমার লেখায় সেই জিনিস থাকতে হবে। তোমার লেখায় একবার যদি আমার একটা কমেন্ট পাইয়া থাকো, ওটা তোমার সাত জনমের ভাগ্য, দ্বিতীয়বার আর পাবে না, যদ্দিন তুমি মানুষের কাতারে না নেমে আসছো।

যখন ব্লগে প্রচুর সময় দেয়ার মতো সুযোগ ছিল, তখন অনেক ব্লগারের গল্প, কবিতা, ছড়া অনেক সময় নিয়ে পড়তাম, যথাসাধ্য সাজেশন দেয়ার চেষ্টা করতাম। কোনো কোনো ব্লগার সেগুলো খুব সাদরে গ্রহণ করতেন, অনেকে আবার অনুরোধও করতেন তাদের লেখার ব্যাপারে কিছু গঠনমূলক পরামর্শ দেয়ার জন্য। দিতাম যথারীতি। একজন ব্লগার তার অনেক গল্প ও কবিতা আমার কিছু গঠনমূলক আলোচনার প্রেক্ষিতে ইম্প্রুভ করেছিলেন। একদিন একজন ব্লগারের কোনো এক পোস্টে ‘নেগেটিভ’ বা ‘সমালোচনামূলক’ কমেন্টের ব্যাপারে আলোচনা উঠতেই সেই ব্লগার ঠাস করে আমার অবদানকে নাকচ করে দিয়ে অন্য এক ব্লগারের ভূয়সী প্রশংসা করা শুরু করলেন! আমার চোখের সামনে তাও। আমি অবাক হয়ে গেলাম, একজন মানুষ কীভাবে এমন হিপোক্রেট ও লাইয়ার হতে পারেন! তো, সেই ব্লগার যদি কোনো মানবতা বা সততার ব্যাপারে লাফালাফি করতে থাকেন, তখন সেটা আমার কাছে খুব হাস্যকর ও বালখিল্যতা ছাড়া আর কী মনে হবে? এমন ব্লগারদের শুধু পোস্টই না, তাদের নিকনেইমটা আমার কাছে অসহ্য মনে হয়। হিপোক্রিসির একটা মাত্রা থাকে, তার সেটাও অতিক্রান্ত হয়ে গেছে।

কখনো অন্যের বুদ্ধিমত্তা নিয়ে প্রশ্ন তুলবেন না। আল্লাহ সবাইকে সমান মেধা দেন নি। আপনি যদি মনে করেন আপনার মেধা আমার চাইতে বেশি, তাহলে আপনি এটাও জানেন যে, আপনার চাইতেও বহুগুণ মেধাবী ব্লগারের অভাব নাই। আবার মেধাবী হলেও, স্থান-কাল ভেদে তার প্রকাশ বা প্রয়োগে হেরফের হতে পারে। কিংবা, কোনো বিষয়ে আপনার জ্ঞান হয়ত একটু বেশি, আমার সে বিষয়ে জ্ঞান কম, অথবা একেবারে নাও থাকতে পারে। কারো জ্ঞান নিয়ে খোটা দেয়া বা খোঁচা দেয়া হলো বর্ণবাদিতার শামিল। ওটা করা অন্যায়।

একবার একটা গল্প পড়ার পর আমার কাছে গল্পটার কিছু ত্রুটি ধরা পড়লো। কমেন্টে উল্লেখ করার পর রিপ্লাইতে ব্লগারকে বেশ উত্তেজিত মনে হলো। তার কমেন্টের সারাংশ ছিল- আমি গল্পটা বুঝি নাই, ওটা আমাকে আবার পড়তে বললেন। আমি মনে মনে অট্টহাসি দিলাম- ওহে চান্দু, তোমার এই গল্পটা নেহায়েতই ‘বালখিল্য’ টাইপের; এটা বোঝার জন্য দ্বিতীয়বার কেন, ক্লাস সিক্স-সেভেনের ছাত্র হলেই মোর দ্যান এনাফ। এরপর থেকে ঐ ব্লগারের পোস্টে আর যাওয়া হয় নাই।

আপনার সাথে কমেন্ট আদান-প্রদানে একটা সম্পর্ক গড়ে উঠবে। এ সম্পর্কের কিছু সুফলও আছে। সেই সুফলের কথা বলতে গেলে হয়ত আমার উপরের কন্টেন্টের সাথে কিছুটা সাংঘর্ষিক হতে পারে। যেমন, আপনি এমন বিষয়ে একটা পোস্ট লিখলেন, যে ব্যাপারে হয়ত আমার ‘একমত’ বা ‘সহমত’ হওয়ার চাইতে ‘দ্বিমত’ পোষণ করাটাই সঙ্গত হয়। এক্ষেত্রে প্রথমত আমি আপনার পোস্ট এড়িয়ে যাই। কোনো বিশেষ কারণে কমেন্ট যদি লিখতেই হয়, হয়ত লিখলাম- ‘সুন্দর পোস্ট’, ‘ভালো আলোচনা’, ইত্যাদি।

যার সাথে একটা সুন্দর ও নির্মল বন্ধুসুলভ সম্পর্ক গড়ে উঠেছে, তিনি হঠাৎ একটা কটু কথা বলে ফেললে সেটা মেনে নেয়া সম্ভব হয় না। এরকম ‘ভালো’ বন্ধুকে কীভাবে কটু কথা বলা যায়, সেটা জীবনেও আমার মাথায় ঢুকবে না (আমি গঠনমূলক সমালোচনার কথা বলছি না)। একজন ব্লগারের সাথে খুব ভালো সম্পর্ক ছিল। তার দীর্ঘ পোস্টগুলো পড়তাম, মন্তব্য করতাম। হঠাৎ একদিন সেই ব্লগার এমন ভাবে কমেন্টের উত্তর দেয়া শুরু করলেন, আমি হতবাক হয়ে গেলাম তার আচরণে। তাকে ফিরতি কমেন্টে জিজ্ঞাসাও করলাম, কোনো কারণে তার মন বিক্ষিপ্ত কিনা যে-কারণে এমন ভাবে রিপ্লাই দিচ্ছনে। তিনি নিশ্চিত করলেন, তিনি ঠিক আছেন এবং জেনেশুনেই এভাবে রিপ্লাই দিচ্ছেন। আমি রেগে যাই নি, অনেক শক্ত কিছু কথা বলতে যেয়েও নিজেকে সংযত রেখে নীরব থাকলাম। আমি এমন ব্লগারকেও চিরতরে পরিত্যাগ করেছি। তাদের ব্রিলিয়ান্ট পোস্ট বা কমেন্ট আমার কাছে পায়ের আলগা ধুলোর মতো, পা ঝাড়া দিলেই ওগুলো ঝরে পড়ে যায়।

আমার অনুভূতিগুলো খুব সূক্ষ্ম। অনুভূতিগুলো সূক্ষ্ম সবারই। অনুভূতি যত সূক্ষ্ম, অভিমান তত ব্যাপক। আমি প্রচণ্ড অভিমানী। ‘অভিমান আমার সম্পদ’- এটা আমি অহরহ বলে থাকি।

কাউকে তার ব্যক্তিগত বৈশিষ্ট্য নিয়ে (যেগুলো আল্লাহ প্রদত্ত) খোঁচা দেয়া বা খোঁটা দেয়া অন্যায় মনে করি। তুই কালো। তুই দেখতে পঁচা। তুই আনস্মার্ট। তোর কণ্ঠ হাঁসের মতো। তুই বেঁটে। তুই লুলা। তুই ন্যাংরা। তুই তোতলা। তোর উচ্চারণ ভালো না। তুই গরীব। তুই মূর্খ। এসব বলা আর তার বুকে ছুরি দেয়া আমার কাছে সমান মনে হয়। কাজেই, কাকে কী বলবেন, তা বলার আগে ভাবুন এ কথাগুলো তাকে কতখানি আহত করতে পারে।

খায়রুল আহসান, আহমেদ জী এস, ডঃ এম এ আলী ভাইয়ের মতো ব্লগাররা আমার আদর্শ। তারা বিনয়ী ও ভদ্র। দায়িত্বশীল। একটা বিষয়কে কীভাবে উপস্থাপন করতে হয়, এটা যেমন তারা জানেন, একটা তিক্ত বিষয়কে কীভাবে খুব পজিটিভলি গ্রহণযোগ্যভাবে কমেন্টে তুলে আনা যায়, এটা আমরা তাদের কাছ থেকেই শিখতে পারি।

ভালো ব্লগারদের অনুসরণ করতে হবে। প্রমোট করতে হবে তাদেরকেই।

আমাদের নেগেটিভ এটিচ্যুডকে ধীরে ধীরে পজিটিভনেসের দিকে নিয়ে আসি; জ্ঞানচর্চা, সাহিত্যচর্চা, তথ্য আদান-প্রদানসহ বিনোদনের একটা মুখরিত ও প্রাণবন্ত কেন্দ্রভূমি হিসাবে আমাদের এই ব্লগ জ্বলে উঠুক, এই কামনা করছি।

১২ জুন ২০২০

মন্তব্য ৯৮ টি রেটিং +২৩/-০

মন্তব্য (৯৮) মন্তব্য লিখুন

১| ১২ ই জুন, ২০২০ দুপুর ২:৪৮

ইব্‌রাহীম আই কে বলেছেন: আমি তো যখন আসি তখন যে লেখাটি সামনে আসে সেটাতেই ক্লিক করি, যদি সেটাতে শিক্ষনীয় কিছু থাকে বলে মনে করি...

১২ ই জুন, ২০২০ দুপুর ২:৫৩

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: হ্যাঁ, এটাই নরমাল ট্রেন্ড। এই ট্রেন্ডের বাইরে আমার কিছু ব্যক্তিগত ভালো লাগা মন্দ লাগার কথা বলেছি।

ধন্যবাদ কমেন্টের জন্য।

২| ১২ ই জুন, ২০২০ দুপুর ২:৫৬

অগ্নি সারথি বলেছেন: ঠিক আছেন আপনি! একমত জানালাম আপনার সাথে।

১২ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৩:৩৭

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: আমি ঠিক আছি প্রিয় অগ্নি সারথি ভাই। একমত জানানোর জন্য ধন্যবাদ।

৩| ১২ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৩:১১

ডার্ক ম্যান বলেছেন: আমার বেশিরভাগ পোস্টে আপনি কেন কখনো মন্তব্য করেন না সেটা আমি কিছুটা হলেও বুঝতে পারি ।
আমি সাধারণত কমেন্টের রিপ্লাই দেবার চেষ্টা করি সবার । শুধুমাত্র একটা পোস্টে আমি কারো কমেন্টের রিপ্লাই দিই নি । যখন কেউ আমার কমেন্ট ডিলিট করে কিংবা রিপ্লাই দেই না, তার কোন পোস্টে আর যায় না ।
কিছু কিছু মাল্টি নিকধারীদের পোস্টে ফানি কমেন্ট করে চলে আসি ।
গল্প কবিতা উপন্যাস এইসব আমি কম বুঝি । সেইসব পোস্টে পদচারনাও কম থাকে । তবে আপনি ডি মুন কিংবা মাহমুদ বন্ড হলে বিষয়টা আলাদা ।
আর আমি ইদানীং সংযত থাকার চেষ্টা চালাচ্ছি । তাই অনেক পোস্ট দেখেও না দেখার ভান করি ।

১২ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৩:৪৮

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: আমার বেশিরভাগ পোস্টে আপনি কেন কখনো মন্তব্য করেন না সেটা আমি কিছুটা হলেও বুঝতে পারি । কিছু লিমিটেশনের কারণে সব পোস্টে যাওয়া হয় না। বিষয় আপনি বুঝতে পারছেন জেনে ভালো লাগলো।

আমি আগে খুঁজে খুঁজে বের করতাম রিপ্লাই দেয়া হয় নি এরকম কোনো পোস্ট বা কমেন্ট আছে কিনা। টেকনিক্যাল এররের কারণে এখন অনেক নোটিফিকেশন পাই না। বাই চান্স আন-রিপ্লাইড কমেন্ট চোখে পড়লে লজ্জাসহ সেগুলোর উত্তর দেয়ার চেষ্টা করি।

সাম্প্রতিক পোস্টে অনেক সময় ভুলবশত আন-রিপ্লাইড কমেন্ট থেকে যায়। চোখে পড়লে অবশ্য রিপ্লাই দিয়ে ফেলি।

সময় একটা বড়ো ফ্যাকটর। জীবিকা নির্বাহের জন্য সময় দেয়ার পর ব্লগিং বা ক্রিয়েটিভিটির জন্য সময় বের করা টাফ। আমার অসুখ এখন নানাবিধ- ব্লগ, ফেইসবুক, ইউটিউব, ভাইবার গ্রুপ, ওয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ- শেষ নাই :)

মতামত দেয়ার জন্য অনেক ধন্যবাদ সৈকত ভাই। সুস্থ ও নিরাপদ থাকুন। শুভেচ্ছা।

৪| ১২ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৩:১১

শায়মা বলেছেন: বাপরে!!! ভাইয়া তুমি দেখছি অসাধারণ মেমোরীর অধিকারী! একদম কিছুই ভুলোনা !!! #:-S

আমিও ভুলিনা! কিন্তু তুমি আগে যেমন অনেক অনেক পোস্ট পড়তে অনেক অনেক সাজেশনও দিতে সেটা আর দাও না কাউকে! বুঝলাম এসব কারণেই! যাইহোক কাকে কি করেছো কতখানি হেল্প জানিনা কিন্তু আমার লেখালিখিতে তোমার অবদানের শেষ নেই।
বানান থেকে শুরু করে কত কিছু যে বলে দিতে আমাকে। ভুলিনি আমি। আরও অনেককেই ভুলিনি। বিশেষ করে যারা আমার সেই প্রথম সময়ের সাথী ছিলো।

ভুলিনি নানা রকম বিশেষন, কলাবরিষ্ঠা মানেই জানতাম না তখন। আরও একটি বিশেষন মনে পড়ে মির্নাভা। নির্ঝর নৈশব্দ ভাইয়া বলতো মনে হয়। সবাই না হলেও অনেকেই হারিয়ে গেছে বা চুপ হয়ে গেছে আজকাল। এটা সময়ের সাথে সাথেই হয়েছে নানা তার কারণ নানা তার অকারণও হয়ত।

সবকিছুর পরেও আমি আশাবাদী মানুষ। ধুলোর মাঝেও আশার আলো দেখি আর যা পাই তাই নিয়েই আনন্দে থাকতে চাই। তুমি অসম্ভব একজন জেন্টেল মানুষ আর তাই আহমেদ জী এস ভাইয়া আর খায়রুল ভাইয়ার নাম করতে তুমি দ্বিধা করোনি। এই দুইজন ভাইয়া কোনোদিন ভুলেও কাউকে হার্ট করেছে ছোট করেছে বলে আমার মনে পড়ে না। তুমিও এমনই একজন।

তোমাকে যতটুকু জানি, ব্যাক্তিগত জীবনে এবং ব্লগ বা ফেসবুক জীবনেও তুমি একজন সফল মানুষ। আর অনেক অনেক খাঁটি মানুষও। তাই তোমাকে এত ভালোবাসি ভাইয়া!

আর কৃতজ্ঞতাও তোমার কাছে অনেক অনেক ...... সে কথা মনে হয় আমাকে যারা জানে এই ব্লগ আর ফেসবুক জীবনেও তারা সবাই জানে.... :)

অনেক ভালো থেকো সারাজীবন।

১২ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৪:০৪

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: কিছু অভিমান বা দুঃখ হলো গুঁটিবসন্তের দাগের মতো, ওগুলো মোছা যায় না। থেকে গেছে। আপনাকে 'কলাবরিষ্ঠা' নাম দিয়েছিলাম আমি। যিনি বিভিন্ন কলায় শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করেছেন। এটা বলার অপেক্ষা রাখে না যে, আপনি সম্ভাব্য সব কলায় তুখোড় পারদর্শিতা দেখিয়েছেন। মিনার্ভা সম্পর্কে জানা ছিল না। এখন জানলাম - Minerva was the Roman goddess of wisdom, medicine, commerce, handicrafts, poetry, the arts in general, and later, war. যুদ্ধবিদ্যা ও চিকিৎসাবিদ্যার উপর আপনার কোনো পোস্ট পড়েছি কিনা মনে পড়ে না। বাট, অ্যাজ এ হোল, মিনার্ভাও অ্যাপ্রোপ্রিয়েট আপনার জন্য

আপনি নিজগুণেই ব্লগারদের মনে জায়গা করে নিয়েছেন। আপনার মতো সদাহাস্য ও বন্ধুভাবাপন্ন মানসিকতার ব্লগারই আমাদের একান্ত কাম্য।

আপনার কাছে আমিও অনেক ভাবেই ঋণী। আপনার অনেক পোস্টের কমেন্টের ঘরে আমার অনেক কবিতা ও ছড়ার উন্মেষ ঘটেছে। সেগুলো আপনি জানেন

সুন্দর কমেন্টের জন্য অনেক অনেক ধন্যবাদ।

৫| ১২ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৩:১৯

রাজীব নুর বলেছেন: কোনো ভনিতা না করে সরাসরি বলে দিলেন। বিষয়টা ভালো লাগলো। এরকম, সত্য উচ্চারন আমি প্রায়ই করতে পারি না।

১২ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৪:১২

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: সবার আগে অভিনন্দন গ্রহণ করুন 'জেনারেল' থেকে 'সেইফ' হওয়ার জন্য। আশা করি আপনার আগামী দিনগুলো নিরাপদ ও নির্ঝঞ্ঝাট থাকবে।

কোনো ভনিতা না করে সরাসরি বলে দিলেন। প্রশংসা ভালো লাগে। আর এটা ভালো লাগে এ কারণে যে, আমি জানি আমি খুব সরল মানুষ, ভণিতা জানি না বলে ভণিতা করি না। আগেও আপনি এটা বলেছেন, আজও বললেন। ভালো লাগলো অনেক।

শুভেচ্ছা রইল রাজীব নুর ভাই।

৬| ১২ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৩:৩৬

ডার্ক ম্যান বলেছেন: হেডনোট প্রথমে খেয়াল করি নি । নিজের নাম কোথাও খুঁজে পেলাম না ।

১২ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৪:১৪

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: হাহাহাহাহাহাহাহাহা

যাক, আবার এসে এ কথাটা বলায় খুবই মজা পেলাম। মজা দেয়ার জন্য ধন্যবাদ নিন প্রিয় সৈকত ভাই

৭| ১২ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৩:৩৭

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: খুবই ভালো আলোচনা। সুন্দর হয়েছে।

১২ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৪:১৭

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: অনেক অনেক ধন্যবাদ প্রিয় সাজ্জাদ ভাই। শুভেচ্ছা।

৮| ১২ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৩:৫৫

চাঁদগাজী বলেছেন:



আপনি যা করেন, সব কয়টিই ঐতিহাসিক ঘটনা।

১২ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৪:২৬

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: হাহাহাহাহাহাহাহা


কমেন্টের জন্য ধন্যবাদ চাঁদগাজী ভাই

৯| ১২ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৪:১২

কৃষিজীবী বলেছেন: আমার পড়তে ভালো লাগে। পড়ার ক্ষেত্রে নাস্তিকতা কে প্রমোট করে এমন কিছু ছাড়া আর কোন বাছবিচার, লাভ লসের হিসাব আমি করি না। মুড়ির ঠোঙ্গা থেকে শুরু করে আল কোরআন পযন্ত সামনে যা পাই তাই পড়ি ।

১২ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৪:৩৭

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: ব্লগে নতুন অবস্থায় আমারও একই উদ্দেশ্য ছিল- পড়া, কমেন্ট করা এবং নিজের পোস্ট শেয়ার করা। কালক্রমে অনেক অভিজ্ঞতা ঘটে, তাতে ভালো ও সুখের স্মৃতির সাথে কিছু মান-অভিমান ও ক্ষোভেরও সঞ্চার হয়। তার ফলে কিছু পছন্দ-অপছন্দ চলে এসেছে।

সবার সাথে নিজেকে মানিয়ে নিতে পারা একটা বড়ো যোগ্যতা। তার জন্য থাকতে হবে নিজের ধৈর্য, একাগ্রতা, সততা ও বন্ধু-মনোভাবাপন্ন মনোভাব। আশা করি এসব নিয়েই সামনে এগিয়ে চলবেন এবং একজন নিষ্ঠাবান ব্লগার হিসাবে নিজেকে গড়ে তুলবেন। এ কথাগুলো যেচে বললাম যেহেতু আপনি আমাদের এলাকার মানুষ। ৭ নম্বর কমেন্টদাতা সাজ্জাদ ভাইও দোহারের মানুষ।

ভালো থাকবেন। শুভেচ্ছা।

১০| ১২ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৪:১৫

কাওসার চৌধুরী বলেছেন:



ব্লগে আপনার বিচরণ দীর্ঘদিনের। একজন গুণী ব্লগার হিসাবে এক যুগের অভিজ্ঞতা থেকে যা লিখেছেন তা সত্যি প্রশংসনীয়। রাখ-ঢাক না করে সরাসরিই নিজের ব্লগিং নিয়ে কথা বলেছেন। দীর্ঘ এই সময়ে আপনি অনেক বিখ্যাত ব্লগারকে দেখেছেন যাদের কেউ কেউ এখনো লিখছেন, ব্লগে লগইন করছেন। আবার কেউ কেউ হারিয়ে গেছেন কিংবা ব্যস্ততার জন্য ব্লগে আসছেন না। এখন যারা ভালো লিখছেন একটা সময় হয়তো তারা অনিয়মিত হয়ে যাবেন। আরো চার-পাঁচ বছর পর তাদের নিয়ে হয়তো একাধিক পোস্ট আসবে। পাঁচ বছর পরও ব্লগে ভালো লেখা আসবে, ভালো ব্লগার থাকবে।

এই কথাগুলো বললাম এজন্য যে, কয়দিন পর পর ব্লগে হৈহৈ রব উঠে, ব্লগের আগের মানের লেখা নেই, আগের মত বাঘা বাঘা ব্লগার নেই, পাঠক নেই, কমেন্টের পর কমেন্ট কিংবা লাইকের সেঞ্চুরি নেই। বাস্তবতা হচ্ছে- ব্লগে আগে যেমন ভালো ব্লগার ছিলেন, বর্তমানেও আছেন, ভবিষ্যতেও থাকবেন। এখন আপনি বর্তমান ব্লগারদের লেখা না পড়লে কে ভালো লিখেন সেটা কিভাবে নির্ধারণ করবেন!

ব্লগে এক-একটি জেনারেশন গড়ে দুই-চার বছর ঠিকে। এতে পারস্পরিক মিথস্ক্রিয়া জন্মে, সম্পর্ক গড়ে উঠে। একটা সময় এদের একটা বড় অংশ ব্লগে অনিয়মিত হয়ে পড়েন, কেউ কেউ ব্লগে লেখা কিংবা কমেন্ট করা বন্ধ করে দেন। এতে যিনি ব্লগে বর্তমান থাকেন তিনি একটি শুন্যতা অনুভব করেন। মনে হয় কি যেন নেই! তখন ব্লগের প্রতি নিজের আগ্রহ হারিয়ে ফেলেন। তার পোস্টে আগের মত লাইক, কমেন্ট না পেয়ে হতাশ হন। কয়েক বছর পর তিনি স্মৃতিকাতর হয়ে তার ব্লগিং এর প্রথমদিকের সুখ স্মৃতি মনে করে আবেগতাড়িত হন। অথচ, তিনি নিয়মিত ব্লগে থাকলে এবং নতুন আসা ব্লগারদের পোস্টগুলো মনযোগ দিয়ে পড়লে ভালো মানের লেখাগুলো চোখে পড়তো। নতুনদের বিষয়ে মূল্যায়ন হতো ইতিবাচক। এতে নতুনরাও উৎসাহ পেতেন।

ব্লগে গঠনমূলক সমালোচনা ব্লগের সবচেয়ে ইতিবাচক দিক। এতে লেখক নিজের লিখনীকে আরো শানিত করার সুযোগ পান, লেখাটি নিয়ে আরো গভীর ভাবনার অবকাশ থাকে। আমি ব্লগে এসে লিখনীকে আরো ভালো করার প্রয়াস পেয়েছি গঠনমূলক সমালোচনা থেকে। তবে কখনো কখনো অযথা ব্যক্তি আক্রমণে আহত হয়েছি। অনেক পরিশ্রমে লেখা একটি পোস্টে যখন কমেন্ট আসে লেখা বহির্ভূত, যিনি একটি লাইনও না পড়ে লেখককে অসম্মান করতে আসলেন তার ন্যুনতম বিবেকবোধ আছে বলে মনে করি না। এটা ভালো ব্লগারদের আহত করে। কখনো কখনো তারা ব্লগ ছেড়ে চলে যেতে বাধ্য হন।

আরেক পক্ষ আছেন, যারা কখনো আপনার পোস্ট পড়েন না, কখনো কোন পোস্টে কমেন্ট করেন না। তারা হঠাৎ করে জ্ঞান বিতরণ করতে আপনার পোস্টে হাজির হবেন। এটাও এক ধরণের ব্যক্তি আক্রমণ। সোজা কথায় অভদ্রতা। এতে কমেন্টকারী নিজেকে এই বিষয়ে সীমাহীন পন্ডিত হিসাবে জাহির করার চেষ্টা করেন। অপ্রয়োজনীয়, মানহীন একাধিক পোস্ট যখন কোন ব্লগার একদিনেই ব্লগে পোস্ট করেন তখন এসব পোস্টের বিষয়ে আগ্রহ থাকে না। শুধু লেখার জন্য লেখা লিখতে চাইলে ফেইসবুক উপযুক্ত জায়গা। অযথা ব্লগের পাতা ভরিয়ে কোন ফায়দা নেই।

ভালো থাকুন।

১২ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৫:১৪

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: অনেক সুন্দর এবং গঠনমূলক কথা বলেছেন বিস্তৃত এই কমেন্টে। আপনার কমেন্টে আমার কথাগুলোই যেন বেরিয়ে এসেছে। ভালো লেখার অভাব, ভালো ব্লগারের অভাব- এসব কথা পড়তে পড়তে প্রায় ফেডাপ হওয়ার মতো অবস্থা, অথচ এসব আলোচনা দেখতে পাচ্ছি ব্লগের শুরু থেকেই। শের শায়রী ভাইয়ের শেষ পোস্টটাতে আমি যে কমেন্ট করলাম, সেটাতেও আপনার কথার প্রতিফলন আছে। একটা কথা আমি উল্লেখ করতে যেয়েও বার বার থেমে গেছি। ব্লগার শায়মা, রাজীব নুর, নুর মোহাম্মদ নুরু, চাঁদগাজী (বিতর্কিত হলেও), ঠাকুরমাহমুদ, আখেনাটেন, শের শায়রী, ভুয়া মফিজ, কাল্পনিক ভালোবাসা, প্রমুখ এখন যতখানি সুনাম উপভোগ করছেন, অতীতে একমাত্র ফিউশন ফাইভ, দুর্যোধন ও ম্যাভেরিক এই সুনামের অধিকারী হতে পেরেছিলেন। নামের প্রতি যথাযথ শ্রদ্ধা ও বিনয় রেখেই বলছি, জীবিত অবস্থায় আমরা ইমন জুবায়েরকে নিয়ে কোনো হৈচৈ করি নি, তার পোস্টে কখনো কমেন্টের বন্যাও বয়ে যেত না। ইমন জুবায়েরের কথাটা ইচ্ছে করেই মেনশন করলাম এ কারণে, আমরা জীবিত অবস্থায় যোগ্য মানুষকে চিনতে পারি খুব কমই। ব্লগের কোনো সাময়িকীতে ইমন জুবায়েরের কোনো লেখা পাবলিশ করা হয়েছিল বলে আমার জানা নেই, আমিই আমার সবুজ অঙ্গন ব্লগীয় কবিতা সংকলনে তার একটা লেখা নির্বাচন করে আমার নিজেকে সম্মানিত ও গৌরবান্বিত করার চেষ্টা করি।

আমাকে যদি গত ১ যুগের ২০ জন সেরা ব্লগারের নাম বের করতে বলেন, আমি নিশ্চিত, এর বড়ো সংখ্যাটাই এ কালের ব্লগাররা দখল করে নেবেন।

আমি তো চারদিকে বাঘা বাঘা ব্লগারকেই দেখতে পাচ্ছি। আপনাকে তুষ্ট করার জন্য বলছি না, আপনি নিজেও সেই সেরা ব্লগারদের একজন, যাদের লেখা ও কমেন্টে এই ব্লগ উর্বর হচ্ছে দিনকে দিন।

কাজেই, হতাশা নয়, বর্তমানকে ভালোভাবে দেখতে হবে, গভীরে ঢুকতে হবে। তাহলেই দেখা যাবে ফিউশন ফাইভ, ইমন জুবায়েরের মতো অজস্র মেধাবী ব্লগার এখনো ব্লগকে সরগরম করে রাখছে।

শুভেচ্ছা কাওসার ভাই।

১১| ১২ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৪:১৫

ভুয়া মফিজ বলেছেন: আপনের সত্য-কথন ভালো হইছে। ওয়ান্স ইন এ্য ব্লু মুন আপনে আমার পোষ্টে কমেন্ট করেন, এতেই আমি খুশী!! B-)

১২ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৫:২৫

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: মিস্টার মফিজ, আসলে একটূ কনফিউশনে আছি :) মফিজ নাম নিয়ে আরো এক বা একাধিক ব্লগার আছেন, যেটা বুঝতে পেরেছি কিছুদিন আগে :( এরপর, শের-এর ছবি নিয়া প্রো-পিক দিয়েছেন আরো একজন - শের শায়রী ভাই। কোনো পোস্টে কমেন্ট পড়ার সময় অনেক ক্ষেত্রেই নাম না দেখে প্রোপিক আগে চোখে পড়ে :) প্রো-পিকে ক্লিক করেও কোনো কোনো সময়ে কারো কারো ব্লগে যাই :)

আমি দুঃখিত এবং স্বীকার করছি, আপনার প্রাণবন্ত পোস্টগুলোতে আমি কম গিয়েছি। চেষ্টা করবো বেশি যাওয়ার জন্য।

ভালো থাকবেন। শুভেচ্ছা রইল।

১২| ১২ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৪:২৮

চাঁদগাজী বলেছেন:



আপনি ব্লগে যা করেন, সব কয়টিই ঐতিহাসিক ঘটনা: আপনার পোষ্ট দেয়া, পোষ্ট পড়া, মন্তব্য করা, সবকিছুই ঐতিহাসিক ঘটনা।

১২ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৫:৪৩

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: প্রিয় চাঁদগাজী ভাই, আমি ওটা বুঝতে পেরেছিলাম। হাওএভার, আবার এসে বোঝানোর চেষ্টা করার জন্য ধন্যবাদ।

১৩| ১২ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৪:৫৯

শায়মা বলেছেন: হা হা চাঁদগাজী ভাইয়া ঝগড়া লাগাতে এসেছে!!!

হা হা হা হা যতক্ষন না লাগবে ভাইয়া এটা নিয়ে বলতেই থাকবে!!! :P

ভাইয়া যুদ্ধবিদ্যা, বা চিকিৎসা বিদ্যা না লিখলেও সে সবের লেজ নিয়ে লিখেছি হা হা হা !! যেমন বাড়িতে এক মহা ডেঙ্গুরোগীকে হসপিটাল না পাঠিয়ে বাড়িতেই ভালো করে তুলে তাই নিয়ে মাতবরী লেখা বা হাপেশিয়ার ইতিহাস। কাজেই আমি মির্নাভাই হবো তাই না??? :P

আর আমার পোস্টে তোমার অনেক কবিতাদের আবির্ভাব দেখে আমাকে অনেকেই জিগাসা করেছিলো তুমিই সেই প্রতিফলন কিনা? হা হা হা হা হা ভাইয়ামনি! :P

১২ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৫:৪৬

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: যে বা যাহারা আপনাকে মিনার্ভা আখ্যা দিয়েছিলেন, তারা আপনার এসব গুণ জেনেবুঝেই দিয়েছিলেন। তারা সঠিক উপাধি দিয়েছিলেন। আমি এখন আপনার জন্য নতুন উপাধি খুঁজতে যাচ্ছি- যার কোনো গুণের কমতি বা অভাব নাই, তাকে এককথায় কী প্রকাশ করা যায়, সেটা

আর আমার পোস্টে তোমার অনেক কবিতাদের আবির্ভাব দেখে আমাকে অনেকেই জিগাসা করেছিলো তুমিই সেই প্রতিফলন কিনা? এটা আগে বলবেন না? তাহলে হয়ত প্রতিফলনের মগজে আমি নিজেই ঢুকে যেতাম :)

১৪| ১২ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৫:০৬

সাইন বোর্ড বলেছেন: সত্য কথা অকপটে সবাই বলতে পারেনা, স্বীকার করা তো দূরের কথা; আপনি পেরেছেন জেনে ভাল লাগল । আপনার চিন্তা ভাবনার সাথে আমার নিজেরও অনেক মিল খুঁজে পেলাম । ভনিতা আমিও একদম পছন্দ করিনা ।

১২ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৫:৪৯

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ প্রিয় সাইন বোর্ড। আমি আপনার লেখার ভক্ত, যদিও সব লেখায় কমেন্ট করা সম্ভব হয় না। বহুদিন হলো আপনার ব্লগে যাওয়া হয় না। যাব শীঘ্রই।

আমার চিন্তার সাথে আপনার চিন্তার মিল পেয়েছেন জেনে খুশি হলাম।

ভালো থাকবেন। শুভেচ্ছা।

১৫| ১২ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৫:১১

কৃষিজীবী বলেছেন: সুন্দর প্রতিমন্তব্যর জন্য ধন্যবাদ।মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসনে ভাই আমাদের এলাকার এটা জেনে ভালো লাগলো

১২ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৫:৫১

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: ধন্যবাদ কৃষিজীবী।

১৬| ১২ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৫:৩৪

শায়মা বলেছেন: যুগে যুগে স্মরণীয় ব্লগার বললে ২০১২ এর পরে অনেক বড় গ্যাপ হয়েছিলো। ২০১৫তে আবার কিছু ঝলকে ওঠে। বর্তমানের সেরাদের তালিকায় আখেনাটেন ভাইয়া, মলাসইলমুইনা ভাইয়া, করুনাধারা আপু, ভূয়ামফিজভাইয়া, বিপ্লবভাইয়াদের আরও কিছু মানুষ নিয়ে ব্লগ এখনও টিকে আছে। আহমেদ জি এস ভাইয়া, খায়রুলভাইয়ারা তো আছেনই।

আমাকে আবার লিখতে হবে যুগে যুগে স্মরণীয় ও বরণীয় ইন ব্লগ পোস্ট! :P

১২ ই জুন, ২০২০ রাত ১১:৪৫

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: আমি নিজেই কোনো একটা সময়ে পর পর ২/৩ বছর খুবই অনিয়মিত ছিলাম। সেটা ২০১২/১৩ হবে। আমার কারণ ছিল ভিন্ন - ব্যস্ততা এবং ফেইসবুক। সেই যে ব্লগের নেশায় একবার ভাটা পড়লো, এখন একবার যদি জোয়ার জোরেসোরে আসে, পরের বার মরা জোয়ার আসে :)

বর্তমানে সেরাদের তালিকা করতে গেলে আপনি নিজেই চমকে যাবেন, কারো চাইতে কেউ কম না, একমাত্র আমি ছাড়া (সত্যি বলছি, নো ফান)। কাজেই, ভালো ব্লগার নেই, ভালো লেখা আসে না, এ অপবাদ মেনে নেয়া কষ্টকর।

আমাকে আবার লিখতে হবে যুগে যুগে স্মরণীয় ও বরণীয় ইন ব্লগ পোস্ট! হাসির কথা না, সত্যি বলছি। যা লিখবেন সেটাই আপনার কীর্তি। আপনার কীর্তি এ ব্লগ বুকে বয়ে বেড়াবে যদ্দিন এ ব্লগ থাকবে।

১৭| ১২ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৫:৩৭

মোঃ মাইদুল সরকার বলেছেন: ১ম পাতার যে লেখাটি মনে ধরে সেটাই পড়ি তারপর নির্বাচিত ও অন্যান্য লেখা পড়ি।

১২ ই জুন, ২০২০ রাত ১১:৪৮

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: প্রত্যকেরই একটা নিজস্ব স্টাইল বা পছন্দ ও অপছন্দ আছে, তা কারো সাথে সম্পূর্ণ মিলে যেতে পারে, কারো সাথে বা আংশিক। আপনার পদ্ধতিটাও সুন্দর।

কমেন্টের জন্য ধন্যবাদ মাইদুল সরকার ভাই।

১৮| ১২ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৫:৪৮

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:
সোনাবীজ ভাই সোনার মতোই দামী ও খাটি কথা বলেছেন।
তবে আমি আগে শিরোনাম দেখি। যে লেখার শিরোনামটা
আমাকে টানে আমি আগে সেখানে মন্তব্য করি পরে দেখি তার
লেখক কে! এমনও হয়েছে যে আমাকে তুচ্ছ তাচ্ছিল্ল করে
ব্যক্তিআক্রমনমুলক মন্তব্য করেছে দেখা যায় আমি তার পোস্টে
মন্তব্য করে বসেছি। একটা ঘটনার কথা বলি, একব্লগারের অবাঞ্ছত
ও অশালীল মন্তব্যে অতিষ্ঠ হয়ে ওই ব্লগারকে আমি ব্লক করে রেখেছি
এখন পর্যন্ত। তো একদিন তার একটা লেখার শিরোনাম আকর্ষন করাতে
মন্তব্য করলাম। সে শেষ পর্যন্ত বাধ্য হয়ে লিখতে বাধ্য হয়েছে আমাকে ব্লক
করে আমার লেখায় মন্তব্য করায় আপনাকে ধন্যবাদ। যদিও তার পরেও তাকে
আমি অবমুক্ত করিনাই। ওই ব্লগারের অতিরিক্ত ভালগারিজমের জন্য সে এখন
চিরতরে ব্লাক লিষ্টেট সামু থেকে। পরে অন্য নিকে আবার সেই একই ধরনের মন্তব্য
করার কারনে সে নিকও ব্লাক লিষ্টট। আমি আপনার পোষ্টে কম মন্তব্য করার এটাও একটা
কারন হতে পারে। তবে আমি অহমিকা পরিহার করি। অর্হংকার করা মানুষের অনুচিত। কারন
অহংকার আল্লাহর চাদর। তা নিযে টানাটানি করার ধৃষ্টতা যেন কারো না হয়। আমি আস্তিক মানুষ
ধর্ম নিয়ে কেউ আজে বাজে কথা কললে আমি আমার পক্ষে যতটুকু লড়া সম্ভব তা করি। তাই
কেউ কেউ আমাকে শত্রু মনে করতে পারে তাতে আমার কিছু আসেযায়না। ভালো থাকবেন দাদা।

১৩ ই জুন, ২০২০ সকাল ১১:৩২

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন:




ড. এম এ আলী ভাইয়ের
একটা কমেন্টে দেখেছিলাম আপনার
মতো এরকম ডিজাইন করে কমেন্ট লেখা। আরেকজন
প্রিয় ব্লগার কানিজ রিমাকে দেখা যায় কবিতার মতো করে কমেন্ট লিখতে।
তাকে এর কারণ জিজ্ঞাসা করায় বলেছিলেন মোবাইল থেকে কমেন্ট করায় এরকম হয়ে যায়।
আপনার বা আলী ভাইয়ের ক্ষেত্রেও তা হয় কিনা জানি না। তবে, এ ডিজাইনে একটা ক্রিয়েটিভিটির
ছাপ পাওয়া যায়। আপনাদের কাছ থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে আমিও একটা ডিজাইন করলাম :)
এরপর, পোস্ট পড়ার ব্যাপারে, বিশেষ করে যাকে ব্লক করেছেন তার পোস্ট পড়ার
যে অভিজ্ঞতা শেয়ার করলেন, তাতে আপনার উদার মনের পরিচয়
পাওয়া যায়। সবার পক্ষে অবশ্য এতটা উদার হওয়া
সম্ভব না। তবে ভালো লাগছে, সেই ব্লগার
চিরতরে ব্ল্যাকলিস্টেড হয়েছেন এটা জেনে। কিন্তু, ওটা তো
সাময়িক :( নিশ্চয়ই এতদিনে ভিন্ন নামে স্ব-মূর্তিতে আবির্ভূত হয়েছেন। যাই হোক,
সবার মানসিক সুস্থতা কামনা করি। কমেন্ট করার জন্য অনেক ধন্যবাদ নূর মোহাম্মদ নূরু ভাই।

১৯| ১২ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৫:৫১

শায়মা বলেছেন: হা হা হা ভাইয়া। স্বপ্নজয় ভাইয়া সেটা পিডিএফ ইবুক বানাবার পরে তারা আবার স্বপ্নজয় ভাইয়াকেও প্রতিফলন ভাবছিলো!!

আমি এখন আপনার জন্য নতুন উপাধি খুঁজতে যাচ্ছি- যার কোনো গুণের কমতি বা অভাব নাই, তাকে এককথায় কী প্রকাশ করা যায়, সেটা


আমি পেয়েছি- অগুনিত ....:)

১৩ ই জুন, ২০২০ সকাল ১১:৩৭

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: হ্যাঁ, একটা পিডিএফ করা হয়েছিল, বেশ আর্টিস্টিক বর্ডার ডিজাইন করা ছিল। তবে, আমার ভাসা ভাসা মনে পড়ে, আমিও হয়ত স্বপ্নজয়কেই প্রতিফলন ভাবছিলাম :)

'অগুনিত' শব্দটা অগুনতির কাছাকাছি চলে যায়, অর্থটা পরিষ্কার হয় না, কিছুটা নেগেটিভ, যেমন যার কোনো গুণ নাই- এরকম হয়ে যায় :(

যাই হোক, সার্চ চলমান থাকিবেক

২০| ১২ ই জুন, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:২৬

মিরোরডডল বলেছেন: ধুলো , যে মানুষ আত্মঅহংকার করে, অন্যদের ছোট করে, মিথ্যা কথা বলে আর না জেনে অনুমান নির্ভর হয়ে মানুষ সম্পর্কে ফলস স্টেটমেন্ট দেয়, আই ক্যান্ট স্ট্যান্ড দিজ কাইন্ড অফ পারসন । আই’ভ গট অ্যালার্জি উইথ দা স্নোব ।

Apart from this, bunches of decent, friendly & loving people here I met who I do respect & admire. You know very well that you're one of them.

ধুলোর মাঝে মাটির ঘ্রাণ আছে এন্ড দেটস অল আই লাইক আবাউট হিম ।

১৩ ই জুন, ২০২০ দুপুর ১২:২৩

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন:
যে মানুষ আত্মঅহংকার করে, অন্যদের ছোট করে, মিথ্যা কথা বলে আর না জেনে অনুমান নির্ভর হয়ে মানুষ সম্পর্কে ফলস স্টেটমেন্ট দেয়, আই ক্যান্ট স্ট্যান্ড দিজ কাইন্ড অফ পারসন । আই’ভ গট অ্যালার্জি উইথ দা স্নোব । আমার কথাটাই ফুটে উঠেছে আপনার কথায়। ধন্যবাদ জানাচ্ছি সেজন্য।

Apart from this, bunches of decent, friendly & loving people here I met who I do respect & admire. ১২ বছর কম সময় না। এ সময়ে অনেক তুখোড় ব্লগার যেমন এসেছেন, এখনো স্বনামে সুনামের সাথে ব্লগিং করছেন, অনেকে চলেও গেছেন ব্লগ ছেড়ে। এ দীর্ঘ সময়ে ব্লগারদের সাথে একটা সুসম্পর্ক গড়ে তোলার সুযোগ পেয়েছি, হাতে গোনা কয়েকজন ব্লগার ছাড়া। আমার পোস্টটা মূলত সেই অল্প ক'জন ব্লগারকে নিয়েই। তবে, পোস্টটা লেখার আরো কিছু উদ্দেশ্য ছিল। ইনডাইরেক্টলি একটা মোটিভেশন প্রচার করা। এখানে একজন ব্লগারের নেগেটিভ কোয়ালিটির কথা বলা হয়েছে; প্রিয় ব্লগাররা যাতে সেই নেগেটিভ কোয়ালিটিগুলো সম্পর্কে সচেতন থাকেন, এবং কারো মধ্যে এগুলো উপস্থিত থাকলে সেগুলো যেন সযত্নে পরিহার করেন। আমিও মানুষ। আমার মধ্যেও কোনো দোষত্রুটি নেই, তা না। সেগুলো কেউ চিহ্নিত করে দিলে আমিও শোধরানোর চেষ্টা করবো ইনশাল্লাহ।

ধুলোর মাঝে মাটির ঘ্রাণ আছে এন্ড দেটস অল আই লাইক আবাউট হিম । অনেক অনেক ধন্যবাদ।

শুভেচ্ছা ডুলুর জন্য।

২১| ১২ ই জুন, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৫৬

আহমেদ জী এস বলেছেন: সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই,




হা.....হা..... হা .... এরকম খুঁজতে গেলে তো গাঁ উজার!

আসলে কি , আমরা কেউই সব্যসাচী পন্ডিত লিখিয়ে নই ! ব্লগের পাতা আমাদের দিনমানের খেড়োখাতা। হরেক কিসিমের আমরা অনেকেই একদম আনকোরা, আধোয়া। এই আনকোরা অবস্থাতেই আমাদের লেখার পথে নামা। এক একজন এক এক ঢংয়ে লিখি । ওটাই আমাদের ধরন । একজনের এসব লেখা বা মন্তব্যগুলো কারো জন্যে সুখকর , কারো জন্যে দুঃখজনক । কারো কাছে এগুলো উদ্দীপক , কারো কাছে হতাশা উদ্রেক কারী - নিপীড়নমূলক । কারো কাছে এসব প্রেরণার ও প্রশংসার, কারো কাছে অবদমনের ও অবমাননাকর । এর ভেতর দিয়েই আমরা আমাদের মুখখানা দেখিয়ে থাকি। সে মুখখানা কারো ভালো লাগে, কারো লাগেনা। এই মুখখানা থেকেই পরিচয় মেলে আমাদের মগজ-মনন-মনীষার। এখানে তাই দেখবেন, কেউ কেউ মনে-মগজে-মননে-মনীষায় সর্বসংস্কারমুক্ত, কেউ কেউ স্বল্প জ্ঞানে, রূচির দারিদ্রে, মন-মানসের বৈকল্যে মাখানো।
এই এতো ধরনের মানুষ মিলিয়েই কিন্তু সামু একটা পরিবার।

বিশ্বব্রহ্মান্ডের ভীষন সব অবোধ্য বিশৃংখলার মাঝেও ব্রহ্মান্ড কিন্তু খুবই শৃংখল । তেমনি এই ব্লগে আমি আমার মতো , আপনি আপনার মতো, সে তার মতো । আর এসব বিভিন্নতা নিয়েই কিন্তু ব্লগখানি তার মতোই শৃংখলাবদ্ধ ।

আমার ধারনা, সৃজনশীল মানুষ কিন্তু অবারিত হয় মানসিকতায়। বই পড়ায় উৎসাহিত করতে বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের একটি সুন্দর শ্লোগান আছে - “ আলোকিত মানুষ চাই”। আমার কিন্তু “ অবারিত মনের মানুষ চাই”। তাই মাঝে মাঝে সমালোচনার ধৃষ্টতা করি। সমাজে যতোই অবারিত মনের মানুষ তৈরী হবেন, সমাজটা ততোই অবারিত হবে, মধুর হবে। প্রসঙ্গত বলে রাখি - সমালোচনা মানেই কিন্তু শুধু নেগেটিভ দিকগুলো তুলে ধরে কাউকে তুলোধূনো করা নয়, বরং নেগেটিভ দিকগুলো কি করে পজেটিভ হয়ে উঠতে পারে তার পথনির্দেশ। তা থেকেই নিজেকে শুধরে নিতে হবে, অহরহ ভাঙতে হবে।
রবীন্দ্রনাথকেও কিন্তু “রবীন্দ্রনাথ” হতে নিজেকে অহরহ ভাঙতে-চুরতে হয়েছে অনেক।

প্রসাঙ্গন্তরে চলে গেছি মনে হয়!
আপনি নিঃসঙ্কোচে আপনার পছন্দ অপছন্দের কথা লিখেছেন। এ সৎসাহস সবার হয়না। যারা সৃষ্টির বেদনায় কম্পমান হন, তারা কিন্তু বেশ আবেগপ্রবনতা আর সুক্ষ অনুভূতির মিশেলেই কেঁপে ওঠেন। আপনার ব্লগ আপনাকে তেমন কেউ একজন হিসেবেই চিত্রিত করে। এটা ব্লগের প্রাপ্তি।
এইসব বড়-ছোট সব প্রাপ্তিকে নিজেদের করে নিতে পারলেই ব্লগ বাগানটিতে যেখানে আমরা এক একজন একেক রঙে, একেক ঢংয়ে কুঁড়ি হয়ে আছি তা থেকে পূর্ণাঙ্গ একেকটি ফুল ফোটাতে পারি মনে হয়!

আমাদের নাম নিয়ে যে ভরসার জায়গাটিতে আমাদের বসিয়ে গেলেন, তার মর্যাদা যেন সব সময় আমরা ধরে রাখতে পারি সে সহযোগিতা চাইছি আপনাদের কাছেই।

১৩ ই জুন, ২০২০ দুপুর ১২:৪২

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: প্রিয় আহমেদ জী এস ভাই, যথারীতি এই পোস্টেও চমৎকার একটা কমেন্ট করলেন। কমেন্টে যেমন আমার পোস্ট ও ব্লগারদের উপর একটা পর্যবেক্ষণমূলক পর্যালোচনা আছে, তেমনই প্রচুর শিক্ষণীয় উপাদানও আছে; সে শিক্ষাটা আমি গ্রহণ করতে চেষ্টা করবো ইনশাল্লাহ।

পোস্টে যাদের নাম উল্লেখ করেছি, তারা যে শুধু আমারই আদর্শ তা না। এ ব্লগের সব ব্লগারের কাছেই তারা আদৃত, গ্রহণীয় এবং আদর্শ হিসাবে বিবেচিত। তারা কাউকে কখনো একটা কটু কথা বলেছেন, কিংবা অন্য কেউ তাদের ব্যাপারে একটা কটু কথা বলার ধৃষ্ঠতা দেখিয়েছেন, এমনটা কখনো হয় নি। এটা আপনাদের অর্জন।

আপনাদের পদাঙ্ক অনুসরণ করে ব্লগাররা সামনে এগিয়ে যাবেন, এই ব্লগকে আরো সমোজ্জ্বল ও প্রাণবন্ত করবেন, এই প্রত্যাশা করি।

পরিশেষে, আবারও ধন্যবাদ জানাচ্ছি এই মূল্যবান কমেন্টের জন্য। শুভেচ্ছা।

২২| ১২ ই জুন, ২০২০ রাত ৮:৪৪

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




ব্লগে যে লেখাগুলো ভালো লাগে পড়ি - মন্তব্য করি। যা ভালো লাগে না পড়িও না মন্তব্যও করি না। আপনার লেখার পাশাপাশি আপনার এডিট করা ভিডিওগুলো দেখি। আহমেদ জি এস ভাই হচ্ছেন সুপার ব্লগার। তিনি সময় নিয়ে একটি লেখা লিখেন যা সুপারহিট করে। খায়রুল আহসান ভাই ভ্রমণ কাহিনী খুবই ভালো লিখেন। তিনি ভ্রমণ কাহিনী লিখলে নিসন্দেহে ভালো করবেন। আর আপনি ভিডিও গানের রিভিউ করে দেখতে পারেন। - আপনিও আমার পছন্দের একজন ব্লগার।

দুজনই আমার খুবই পছন্দের ব্লগার।

১৩ ই জুন, ২০২০ দুপুর ১:১০

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: আহমেদ জী এস ভাই একটা পোস্টের পেছনে অনেক শ্রম দিয়ে থাকেন। ফলে প্রোডাক্টটা খুব নিরেট এবং মূল্যবান হয়। তার লেখাগুলো এ ব্লগের সম্পদ। আমি কোথাও একবার উল্লেখ করেছিলাম, আহমেদ জী এস ভাইয়ের লেখা 'কষ্টে আছে আইজুদ্দিন' গল্পটা আমার পড়া সেরা ছোটোগল্পগুলোর মধ্যে একটা। রম্য স্বাদের ভেতর দিয়ে একটা দেশের রাজনৈতিক ও সামাজিক পরিস্থিতি এত চমৎকার ভাবে ফুটিয়ে তোলা কেবল একজন দক্ষ লেখকের পক্ষেই সম্ভব।

একজন লেখকের ব্যক্তিত্ব ও আদর্শ তার লেখালেখি, অপরাপর ব্লগারের সাথে মিথস্ক্রিয়া, ইত্যাদির ভেতর দিয়ে ফুটে ওঠে। ফলে, নিজেদের অজান্তেই তারা অন্যদের মনে স্থান করে নিয়ে থাকেন। পোস্টে যাদের কথা উল্লেখ করেছি, তাদের মধ্যে এ গুণগুলো লক্ষ করেছি। শুধু আমি একাই নই, ব্লগারগণ কথায় কথায়, নানা আলোচনায় তাদের উল্লেখ করে থাকেন। এটা তাদের অর্জন। আমরাও যেন তাদের দ্বারা ইন্সপায়ার্ড হই, এ উদ্দেশ্যে তাদের নামগুলো মেনশন করেছি। তাদের ব্যাপারে আপনিও হাইলাইট করাতে বিষয়টা সাবলীল হয়েছে।

আপনি হয়ত লজ্জা পাবেন বা বিব্রত হবেন, তবুও উল্লেখ করছি, আপনিও আলোচিত মেধাবী ব্লগারদের একজন, যাদের পদচারণায় এই ব্লগটি মুখরিত এবং ঋদ্ধ হচ্ছে প্রতিদিন।

শুভেচ্ছা রইল ঠাকুরমাহমুদ ভাই।

২৩| ১২ ই জুন, ২০২০ রাত ৯:২৬

মা.হাসান বলেছেন: আপনি আমার লেখায় কেন আসেন না তা বুঝলাম :(
আমি এতই খারাপ জানা ছিলো না।
এখন থেকে নিজের চরিত্র সংশোধনের চেষ্টা করবো।

আমি বিনোদনের জন্য আসি। শিক্ষা মূলক পোস্ট এড়িয়ে যাই । আগে ব্লগে এই সমস্যা দেখি নি, ইদানিঙ দেখছি- আঁতলামি মূলক পোস্ট। এরকম কিছু পোস্ট মাঝে মাঝে স্টিকিও করা হয়। আমি আঁতলামি পূর্ণ পোস্টে যাই না। কিছু নির্দিষ্ট ব্লগার আছেন, এদের পোস্টে কখনোই যাই না। কবিতা পোস্টে সাধারণত যাই না।

একাধিক পোস্টে দেখেছি -- পোস্ট দাতা সমালোচনা মূলক মন্তব্য মুছে দিয়েছেন। ওনাদের পোস্টে যাই না।

যাদের পোস্টে মন্তব্যে করলে জবাব দেন না তাদের পোস্টে যাওয়া আমি বন্ধ করি নি। একজন ব্লগার একাধিক কারণে মন্তব্যের জবাব না দিয়ে থাকতে পারেন। ব্লগের নোটিফিকেশন কাজ করে না। এটা একটা সমস্যা। সবাই সমান সময় ব্লগে দিতে পারেন না। আমার ''খুব ভালো লেগেছে'' জাতীয় মন্তব্যের জবাব না দিয়ে যদি সে সময়টা তিনি কোনো নতুন পোস্ট লেখায় ব্যয় করেন তবে সেটা বেশি যুক্তিযুক্ত মনে করি।

লেখার শিরোনাম এবং প্রথম পাতায় এর সাথে যে দু-তিন লাইন আসে তা থেকে ভাসা ভাসা বোঝা যায় কি ধরণের লেখা। ভালো না লাগলে সে লেখা আমি সাধারণত এড়িয়ে যাই।

যারা পোস্টে কিছু না লিখে শুধু লিংক দিয়ে যান তাদের লেখায় আমি যাই না।

যারা মাল্টি থেকে নিজের পোস্টে কমেন্ট-লাইক দেন বা পেজ রিলোড করে ভিউ বাড়ান, তাদের পোস্ট ভালো লাগলে আমি যাই, ভালো না লাগলে যাই না। শুধু রিলোড করা বা মাল্টি থেকে কমেন্ট /লাইক দেয়ার কারণে কারো পোস্টে যাওয়া বন্ধ করি নি।
অনেক সময় পোস্ট ভালো না লাগলেো শুধু গুনী ব্লগারদের কমেন্ট পড়ার জন্যেও কোনো কোনো পোস্টে যাই।

কেউ কেউ আছেন, আমার পছন্দের ব্লগার, কিন্তু পোস্ট লিখেছেন ইংরেজিতে বা প্রচুর ইংরেজি বাক্য ব্যবহার করেছেন। এরকম পোস্টে আমি যাই না।

ব্লগে আমার জানা মতে একাধিক ব্লগার আছে যারা যে সব লেখক এখনো ফ্রন্ট পেজ একসেস পান নি এমন কি এমন ব্লগারদের লেখাও খুঁজে তাতে কমেন্ট করেন। নাম উল্লেখ করলাম না। ওনাদের জন্য অনেক ভালোবাসা ও শ্রদ্ধা।

১২ ই জুন, ২০২০ রাত ১০:৪১

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: আপনাকে আশ্বস্ত করার জন্য আপনাকে আগে রিপ্লাই দিচ্ছি। নিশ্চিন্ত থাকুন। আপনার সাথে আমার সম্পর্ক হৃদ্যতাপূর্ণ। মনে পড়ে, সর্বশেষ এক পোস্টে গিয়ে করোনাকালে আলিঙ্গন না করতে বলে এসেছিলাম :) পরে আপনার অন্য কোনো পোস্ট চোখে পড়ে নি বলে পড়া হয় নাই :( আর, ব্লগের চাইতে গানে/ ইউটিউবে সময় বেশি চলে যায় বলে ব্লগের অনেক কিছু এমনিতেই মিস হয়ে যায় :(

আরেকবার আশ্বস্ত করছি- আপনি আমার প্রিয় তালিকায় আরেকজন মেধাবী ব্লগার, ক্ষুরধার ও ঝাঁঝালো, একই সাথে হিউমেরাস এবং গঠনমূলক মন্তব্যে যিনি সেরা।

আমার পোস্টে আমার আরো অনেক কিছু যে বলার ছিল তা আপনার কমেন্ট পড়ে বুঝতে পারলাম। আমার না-বলা সেই কথার অনেক কথাই আপনি যুক্ত করেছেন। সেগুলোর সাথে সহমত জানাচ্ছি।

অনেক ধন্যবাদ প্রিয় মা.হাসান ভাই। ভালো থাকবেন।

২৪| ১২ ই জুন, ২০২০ রাত ১০:০৫

নেওয়াজ আলি বলেছেন: একজন বাজে লোক আমার প্রথম পোষ্টে আমাকে তুচ্ছ করে মন্তব্য করে নার্ভাস করে দেয়। কিন্তু শ্রদ্ধেয় খায়রুল আহসান ভাই তার জবাব দিয়েছেন । এবং উনার মন্তব্যে বুঝি গিয়েছি খায়রুল আহসান ভাই উচু মনের মানুষ।

১৩ ই জুন, ২০২০ দুপুর ১:৫০

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: একজন ভালো মানুষকে সহজেই চেনা যায়, আপনার কমেন্টে সেটা প্রমাণিত। আমার ভালো লাগছে যে, আমি ক'জন ভালো মানুষকে আদর্শ ব্লগার হিসাবে উল্লেখ করতে পেরেছি।

ধন্যবাদ নেওয়াজ আলি ভাই।

২৫| ১২ ই জুন, ২০২০ রাত ১১:০৩

রাকু হাসান বলেছেন:


অনেকে ব্যক্তিগত আক্রমণকারীকে পছন্দিই করেন না ,প্রমোটও করেন । --লাইনটি ভালো লাগছে। :)
চাঁদগাজী স্যার,শায়মা আপুর মন্তব্য পড়ে হাসতে হাসতে শেষ । =p~ =p~ =p~ B-))
আমার জন্য পোস্টটি খুব শিক্ষণীয় মনে হল। কিছু ভাবনা আমার সাথে মিলেছে ।
অকৃতজ্ঞ হওয়া ব্লগারের ব্যাপারটা ভালো লাগলো না। এমন ব্লগারদের উপকার না করাই ভালো। তবে আশ্বাস দিচ্ছি ভাইয়া আমার ক্ষেত্রে এমনই নিশ্চয় হবে না। যে ভুল ধরিয়ে দেয় সেই তো প্রকৃত বন্ধু ব্লগার।
শ্রদ্ধেয় আহমেদ জিএস স্যারের মত আমিও একই কথা বলবো ..এভাবে বলার অনেকের সাহস হবে না । তবে আপনার অর্জন,
স্বীকৃতি ,ব্লগে জনপ্রিয়তা সব কিছু বলে এগুলো বলার অবশ্যই এখনই সময় । আপনি বলার যোগ্যতা রাখেন। অনেকটা অধিকারের মত।

কাওসার চৌধুরি ভাই,.আহমেদ জী এস স্যারের মন্তব্যে লাইকড । আমার পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা ।
কাওসার ভাইয়ের মন্তব্যের প্রতি মন্তব্যে একটি বিষয় ঊঠে আসলো । প্রতি মন্তব্য আপনি যা বললেন। ইমন জুবায়ের সাহেব কে নিয়ে যে, আগে এতটা নাচন ছিলোনা ,সেটা জানতাম । এটা্ও জানলাম কমেন্টও এত হত না । মনে হয় পাঠক হত ,কমেন্ট না হলেও ।

একটু তথ্য নিশ্চিত হতে চাই
২০১১ সালে ডয়সে ভ্যালে’র আন্তর্জাতিক ব্লগ প্রতিযোগিতায় বেস্ট বাংলা ব্লগ ক্যাটাগরিতে তিনি মনোনয়ন পেয়েছিলেন।
একই বছর সামহোয়্যার ইন ব্লগের বর্ষসেরা ব্লগার নির্বাচিত হন তিনি।


এ বিষয়ে আপনার মন্তব্য আশা করব। শ্রদ্ধাঞ্জলি ইমন জুবায়ের সাহেবের প্রতি।

১৩ ই জুন, ২০২০ দুপুর ২:৫৯

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন:
ইমন ভাইয়ের লেখাগুলো ছিল বিষয়বৈচিত্রে ভরপুর। একেকটা বিষয় অন্যটা থেকে ভিন্ন এবং সাধারণ পাঠকের জন্য আনকমন। কিছু কিছু বিষয় এমন ছিল, যা আমরা হয়ত ভাবতেও পারতাম না। লেখার মান ছিল খুব উন্নত, প্রাঞ্জল। পোস্টগুলো খুব বড়ো ছিল না। বৈচিত্রসন্ধানী পাঠকেরা তা এক বসায় অল্প সময়ে পড়ে শেষ করতে পারতেন।

ইমন জুবায়ের খুব নির্ঝঞ্ঝাট, ভদ্র, বিনয়ী ও অমায়িক স্বভাবের ছিলেন। তার কমেন্ট ও কমেন্টের উত্তর থেকে তা প্রমাণিত। নিজের লেখা নিয়ে খুব বেশি ব্যস্ত থাকতেন। ঐ সময়ে আমাদের অভ্যাস ছিল কিছুক্ষণ পর পরই পোস্ট পাবলিশ করা। টু-টু করে সবার পোস্টে ঘুরে বেড়ানো। দাপুটে ব্লগারদের পোস্টে কমেন্টের ছড়াছড়ি ছিল। কিন্তু, ইমন ভাই রয়ে-সয়ে পোস্ট পাবলিশ করতেন। ১ দিন ২দিন পর পর, যদ্দূর মনে পড়ে। তিনি, সম্ভবত নিজের লেখা নিয়ে বেশি ব্যস্ত থাকতেন বলে, অন্য ব্লগারদের পোস্টে তেমন যেতে পারতেন না।

ইমন ভাইয়ের সাথে আমার একটা হৃদ্যতাপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল। সেই ২০০৮ সালে ব্লগীয় সংকলনের ব্যাপারে কোনো এক স্টিকি পোস্টে ইমন ভাই প্রথম ব্যক্তি, যিনি আমার একটা লেখা সাজেস্ট করেছিলেন, যা আমার জন্য এখনো একটা সুমধুর স্মৃতি, যা নিয়ে আমি গর্ব বোধ করি। অবশ্য, আমিও বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন জায়গায় তার একাধিক পোস্ট সংকলনভুক্ত করার জন্য সাজেস্ট করেছিলাম। কিন্তু আমার জানামতে, ইমন ভাইয়ের কোনো লেখা কোথাও অন্তর্ভুক্ত হয় নি। অথচ, ইমন জুবায়েরের লেখাগুলো এমন, যেগুলো নিয়ে একটা বড়ো ভলিয়্যুমের বেশ কয়েকটা বই বের করা যায়। এটা আমার জন্য একটা আক্ষেপ ছিল। উপরে কাওসার ভাইয়ের মন্তব্যে উল্লেখ করেছি যে, আমার লিটল ম্যাগাজিনের একটা সংখ্যায় ইমন ভাইয়ের একটা লেখা আমি যুক্ত করেছিলাম।

সেরা ব্লগার নির্বাচিত হওয়া আর জনপ্রিয় ব্লগারের মধ্যে কিছুটা পার্থক্য আছে। আমাদের সাধারণ টেন্ডেন্সি হলো, পোস্টের হিটসংখ্যা, কমেন্টসংখ্যা, সব ব্লগারের সাথে ইন্ট্যার‍্যাক্টিভ হওয়া, ইত্যাদি বিবেচনা করে কাউকে জনপ্রিয় বলে থাকি। কিন্তু, একজনকে ব্লগসেরা হওয়ার জন্য তার লেখার গুণগত মান, তাঁর আচরণ বা ব্যক্তিত্ব, ইত্যাদিই বিবেচনায় নেয়া হয়ে থাকে বলে আমি মনে করি। আমাকে যদি একজন সেরা ব্লগারকে ভোট দিতে আহবান করা হয়, আমি এ বিষয়গুলোই বিবেচনা করে থাকি। যাদের আমি ভোট দিয়েছি, এসব বিবেচনা করেই ভোট দিয়েছি। কারো পোস্টে একশ-দেড়শ কমেন্ট পড়েছে, হিটসংখ্য্যা লাখ ছাড়িয়েছে, এগুলো আমি কখনো বিবেচনা করি নি। আমি বিশ্বাস করি, যারা ইমন জুবায়েরকে ভোট দিয়ে সেরা নির্বাচিত করেছিলেন, তারা নিশ্চয়ই তার কমেন্টসংখ্যা বা হিটসংখ্যা না, তার লেখার গুণগত মানই বিবেচনা করেছিলেন। তবে, তার পোস্টের হিটসংখ্যার ব্যাপারে যেটা বলেছেন, আমার ধারণা, তার মৃত্যুর পর তার পোস্টে ভিজিট হয় খুব বেশি, সেজন্য হিটসংখ্যা বেড়ে যায়।

আমাদের দেশের আরেকটা সাধারণ ট্রেন্ড আছে, তাহলো জীবদ্দশায় আমরা গুণিজনকে চিনি না। আমার পিওর কনফেশন, ইমন জুবায়েরকেও আমরা জীবদ্দশায় ভালো করে চিনতে পারি নি।

আপনার সাথে আমিও ইমন ভাইয়ের প্রতি শ্রদ্ধাঞ্জলি জানাচ্ছি। ইমন ভাইকে নিয়ে আমার একটুকরো কবিতা আছে।

---

সহজমৃত্যু

হে প্রিয় পাখি, তোমার যদি মরে যাবার সাধ হয়, কত সহজেই না মরে যেতে পারো! তোমার মরে যাবার সময়টুকু কত স্বল্প, অথচ তোমার স্বজনেরা কত দীর্ঘকাল ধরে তোমার জন্য কাঁদবেকাঁদতে কাঁদতে চোখ ক্ষয় করে ফেলবে। তাদের বুকের উপর মস্ত পাথর জমে যাবে। তারপর তোমার জন্য কাঁদতে কাঁদতে একদিন তারাও তোমার উদ্দেশ্যে আকাশে উড়াল দেবে।

২৬ মার্চ ২০১৪

ঋণ : ব্লগার মাহমুদ০০৭ (মাহমুদ রহমান)। ব্লগার ইমন জুবায়েরকে নিয়ে লেখা তাঁর একটি পোস্টে কমেন্ট করতে গিয়ে।

মাহমুদ ভাইয়ের এই পোস্ট থেকে, আমার কমেন্ট ৩৯ নম্বর, যা এখানেও পোস্ট করি

অনেক সুন্দর কমেন্ট করেছেন প্রিয় রাকু হাসান। শুভেচ্ছা।

২৬| ১২ ই জুন, ২০২০ রাত ১১:১৫

মা.হাসান বলেছেন: খলিল ভাই, আমি হরলিকস খাই (ইদানিং সাথে ক্লোরোকুইন) কাজে স্মৃতি ঝাপসা হয় নাই :D । আমার পোস্টের সংখ্যা অনেক কম , পড়ার মতো পোস্ট খুব একটা নেই, এবং এর মাঝেও আপনি আমার পোস্টে যে এসেছেন তা মনে আছে। আমি শুরুতে যা বলেছি মজা করেই বলেছি ভাই।
ক্ষুর, ধার এসব কথা বলবেন না প্লিজ, ভয় করে। /:)

১৩ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৫:৪৮

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: প্রিয় মা.হাসান ভাই, আমি জানতাম যে, এটা আপনি ফান করেই বলেছেন, কারণ, আপনার সাথে ওরকম কিছু হওয়ার কোনো কারণ ঘটে নি কোথাও। তদুপরি, আপনাকে খোঁচা দিয়া একটু নিশ্চিত হলাম আর কী :)

না না না, ক্ষুর টুর আমি সব জায়গায় ব্যবহার করি না :) ভয়ের কারণ নাই :)

আবার আসায় অনেক আশ্বস্ত হওয়া গেল। শুভেচ্ছা অনেক।

২৭| ১২ ই জুন, ২০২০ রাত ১১:৫২

রাজীব নুর বলেছেন: আজ একটা সত্য কথা আপনাকে বলে যাই- আমাকে ব্লগিং আপনিই শিখিয়েছেন। একসময় আমি মন্তব্যের উত্তর দিতাম না। একদিন আপনি আমাকে কঠিন ঝারি দিলেন। আমার শিক্ষা হলো। তারপর আমি মন্তব্যের উত্তর দেওয়া শুরু করলাম। ঠিকঠাক ব্লগিং করার চেষ্টা করতে থাকলাম।

১৩ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৫:৫৯

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: কমেন্টের উত্তর দেন না জেনেও যাদের পোস্টগুলো পড়তাম আপনি তাদের মধ্যে প্রধানতম একজন। রবীন্দ্রনাথের সিরিজিগুলো এ ব্লগের অনন্য সম্পদ। সময় পেলে এবং চোখে পড়লেই ওগুলো পড়তাম। এর বাইরে অন্যান্য বিষয় নিয়ে লেখা পোস্টগুলোও উৎকৃষ্ট মানের।

আপনাকে যে আমি ঝাড়িঝুড়ি কম দেই নাই, এটা আপনি আর কী বলবেন, আমিই তো বলে বেড়াচ্ছি যত্রতত্র :)

যাই হোক, কিছু মনে কইরেন না রাজীব ভাই, আপনাকে আমি খুব ভালোবাসি এটা বোধহয় জানেন, এজন্য বলছি। আপনিও এ ব্লগের স্মরণীয়দের একজন হয়ে থাকবেন। শুধু মাথা ঠান্ডা করে কথা বলবেন, এটুকু অনুরোধ রাখছি।

অনেক অনেক শুভ কামনা আপনার জন্য।

২৮| ১২ ই জুন, ২০২০ রাত ১১:৫৫

আখেনাটেন বলেছেন: সোনাবীজ ভাই, আপনার এই লেখা পড়ে আমি এখন ভাবছি, আমিও কি তাহলে হিটম্যানের নেগেটিভ হিটলিস্টে পড়লুম নাকি! |-)

কারণ হ্যালির ধুমকেতুর মতো সেই যে ৭৬ বছর আগে একবার মন্তব্য করেছিলেন আর দেখা নেই। ঘটনা সত্যি হলে...হামি মইচি। :((

যাহোক, আপনি পুরাতন গান ভক্ত, আমিও তাই। এই নয়া কাওয়ালীটা শুনুন ভালো লাগার কথা। :D



১৩ ই জুন, ২০২০ রাত ১২:১৫

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: মনে কোনো সন্দেহ বা দ্বিধা রাইখেন না :) ওরকম কিছু হলে আমার আগে আপনিই বুঝতেন, আমার ধারণা।

নানান কারণে ব্লগে বেশি সময় দেয়া হয় না। ব্লগে এলে তড়িঘড়ি করে উঠে যেতে হয়। এ সময়ে যাকে সামনে পাই, তার পোস্টেই যাই।

আরেকটা ব্যাপারটা আমার জন্য খুব লজ্জার, তবু কনফেস করে যাই- ঠাকুরমাহমুদ ভাই আর আপনাকে আমি প্রায়ই এক করে ফেলতাম :) :) :( আপনার পোস্ট পড়ার পর মনে করতাম ঠাকুর ভাইয়ের পোস্ট পড়েছি, আবার ঠাকুরের পোস্ট পড়ার পর মনে হতো আপনার পোস্ট পড়েছি :) :) :( এরকম আরো কয়েকজোড়া ব্লগার আছেন :)

মাঝে মাঝে আপনার কিছু গানের লিংক আমার কাছে খুব হিট হইয়া যায়। এ কাওয়ালিটাও ভালো। একটা জিনিস বুঝলাম না, এরা কি টাকা ছড়াইতেছে নাকি?

ধন্যবাদ আখেনাটেন ভাই উপস্থিতি জানান দেয়ার জন্য।

২৯| ১৩ ই জুন, ২০২০ রাত ১২:৪১

মাঈনউদ্দিন মইনুল বলেছেন:


আপনি তো এরকমই! তাছাড়া ব্লগ তো এরকমই হবার কথা ছিলো। এটি একটি পাবলিক প্লেস। লেখা দিলেন, বাজারি মন্তব্যের জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে। একই সাথে গঠনমূলক সমালোচনা, অপ্রত্যাশিত মূল্যায়নের জন্যও প্রস্তুত থাকতে হয়। আগেপিছের অনেক বিষয় তুলে এনেছেন। লেখায় লেখক ও পাঠক অথবা মন্তব্যকারী সবার জন্য বক্তব্য আছে।

ব্লগের এখন সাংঘাতিকভাবে একটিভ একজন আমার একটি লেখাকে নিজের নামে চালিয়ে দিলেন। বেশক'বছর আগের কথা। আমি সেটি মন্তব্যে জানালাম, কিন্তু তার কোন বিকার দেখতে পাই নি। মনে হলো, এটি স্বাভাবিক একটি বিচ্ছুতি। ব্লগে এসবের জন্য প্রস্তুত থাকতে হয়! হেহেহে!

১৩ ই জুন, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:২৭

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: প্রিয় মইনুল ভাই, কিছুদিন ধরে ব্লগে আপনার উপস্থিতি লক্ষ করা যাচ্ছে, যা খুবই আশাব্যঞ্জক এবং উৎসাহজাগানিয়া। আপনার মতো পুরোনো মেধাবী ও অ্যাক্টিভ ব্লগাররা ব্লগে ফিরে এলে নতুন-পুরাতনের মিথস্ক্রিয়ায় ব্লগ সত্যিই খুব জমজমাট ও প্রাণবন্ত হয়ে উঠবে।

আপনার লেখা নিজ নামে চালিয়ে দেওয়ার ঘটনাটা খুব দুঃখজনক। তবে, সম্ভব হলে আপনি আপনার নিজ লেখার লিংক ও যিনি কপি করেছেন তার লিংকটি শেয়ার করুন। এটার প্রতিবাদ করবো অবশ্যই এবং আশা করি প্রতিকার পাব সহজেই।


৩০| ১৩ ই জুন, ২০২০ রাত ১২:৪৬

মাঈনউদ্দিন মইনুল বলেছেন:


ড. এমএ আলীর সাথে খুব বেশি মতবিনিময় হয় নি। কিন্তু মি. খায়রুল আহসান এবং জীএস ভাই আমার প্রিয় দু'জন ব্যক্তি। যেমন আপনিও। আপনাদের লেখা ও মন্তব্য দুইই আমার আনন্দের বিষয়।

১৩ ই জুন, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৩৭

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: ডঃ এম এ আলী ভাইয়ের ব্লগ লাইফ ৪ বছরের উপরে। আলী ভাই যখন এলেন ততদিনে আপনি ব্লগ থেকে একটু অবকাশে চলে গেছেন আর কী, তাই তার সাথে ইন্টারেকশন হয় নি আপনার। আলী ভাইকে আপনার ভালো লাগবে এবং আপনাকেও আলী ভাইয়ের অনেক ভালো লাগবে, এটা নিশ্চিত।

বাকি কমপ্লিমেন্টের জন্য প্রতিদানে শুধু এটকুই বলতে পারি যে- আপনিও আমার অন্যতম প্রিয় ও পছন্দের ব্লগার, এটা বোধ হয় না বললেও আপনি বোঝেন।

ভালো থাকবেন, সুস্থ ও নিরাপদে থাকবেন।

৩১| ১৩ ই জুন, ২০২০ রাত ১:৫০

সাহাদাত উদরাজী বলেছেন: আমি মুলত যখন আসি, চোখের সামনে যাদের পাই তাদের সবারটাই পড়ি! কোন ভেদাভেদ করি না।
ভাল চিন্তা হলে সহ্মত জানাই। ভিন্ন হলেও কিছু বলে যাই।
এই জন্য অনেক ভাল লেখা আমার চোখে পড়ে না। খুঁজে বের করতে হয় বলে।

ব্লগারেরা হচ্ছে বিবেকবান, যারা ঝগড়া ঝাটি করে তারা ব্লগার নন!

১৩ ই জুন, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৫৩

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন:

ব্লগারেরা হচ্ছে বিবেকবান, যারা ঝগড়া ঝাটি করে তারা ব্লগার নন! সুন্দর বলেছেন। সহমত।

মতামত জানানোর জন্য ধন্যবাদ সাহাদাত উদরাজী ভাই।

৩২| ১৩ ই জুন, ২০২০ ভোর ৬:৫৬

বিজন রয় বলেছেন: আপনি কি যুদ্ধ করতে করতে ক্লান্ত?

১৩ ই জুন, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৫৯

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: এটা আমার একটা অনন্য গুণ, যাতে আমি নিজেই মুগ্ধ- তা হলো, আমি কখনো ক্লান্ত হই না। এজন্য আমি প্রায়ই বলে থাকি দিনটা কেন ৩৬ ঘণ্টা, ৪৮ ঘণ্টা, বা ৭২ ঘণ্টা হলো না? বা, পৃথিবীতে 'ঘুম' নামক বস্তুটা কেন তিরোহিত হচ্ছে না, যাতে আমি একনাগাড়ে ব্যস্ত থাকতে পারি :) যদিও আপনার কমেন্টের ইংগিত এ নিয়ে না, তবুও কথাটা বলার লোভ সংবরণ করতে পারলাম না :)

মাঝে মাঝে ডি-ব্রিফ করতে হয় নিজের ভুলভ্রান্তি খুঁজে শোধরানোর জন্য, তেমনি নিজের কিছু মান-অভিমানের কথাও প্রিয়জনকে জানানো খুব প্রয়োজন, যাতে তারা আমাকে বোঝেন।

জেন রসি ভাইয়ের পোস্টে আপনার কমেন্টটা আমার খুব ভালো লেগেছে। ওটা পড়ে মনে হয়েছে, আমি তো এ কথাটাই বলতে চেয়েছিলাম, কিন্তু ওভাবে গুছিয়ে বলতে পারি নি।

ধন্যবাদ প্রিয় ব্লগার বিজন রয়

৩৩| ১৩ ই জুন, ২০২০ সকাল ১১:০৫

পদ্ম পুকুর বলেছেন: স্কুলের এক বাচ্চা আরেকজনকে জিজ্ঞাসা করলো-
: মন্টু, তোর জন্মদিনে কি বার ছিলো জানিস?
: জানিতো, মা বলেছে শুক্রবার ছিলো
: গুল মারার আর যায়গা পাচ্ছিস না, তাই না? শুক্রবারে সব বন্ধ থাকে তুই জানিস না...


সে সূত্রে গতকাল ব্লগে ঢুকিনি, এই পোস্টটাও দেখা হয়নি।

ব্লগের বিষয়ে আসি। লেখা পড়ার ক্ষেত্রে আপনার দর্শনের সাথে আমার দর্শন পুরোপুরিই মিলে যাচ্ছে। শুধু একটা যায়গায় ব্যতিক্রম, আপনি বলেছেন- যারা জীবনে একবারও বেয়াদবি করেছে, ব্রিলিয়ান্ট হলেও তার ব্লগে যান না....।

আমি ২০০৬ থেকে এই ব্লগে আছি। কোনোদিনই কোনো ব্লগারের সাথে তর্কে যাইনি। কাউকে কটু কথা বলিনি। যখন মনে হয়েছে যে আলোচনা খারাপ দিকে মোড় নিচ্ছে, তখন ক্ষ্যান্ত দিয়েছি। তবুও মাস দেড়েক আগে আগে আমার অর্ধেক ব্লগবয়সী একজন ব্লগার তাঁর একটা লেখার প্রতিমন্তব্যে আমাকে বাজেভাবে বলেছেন। আমার খারাপ লেগেছে। তবুও আমি তাঁকে কিছুই বলিনি এবং তাঁর ব্লগ এখনও পড়ি, মন্তব্যও করি। তাঁকে আমি চিনিও না, জানিও না, কিন্তু তাঁর লেখনী চমৎকার।

এই ব্লগে এখন যারা ক্রীয়াশীল, তাঁদের মাত্র দুজনকে আমি মুখোমুখি চিনি, একজন জাদিদ ভাই, অন্যজন রাজীব নুর ভাই। এর বাইরে শের শায়রী (শোভন ভাই) এর সাথে ওভার ফোনে কথা হয় মাঝে মধ্যে। ব্লগেই পরিচয় হলেও শোভন ভাই আমার ক্যাম্পাসের সিনিয়র। তারপরও অনেকের লেখা পড়ে, মন্তব্য প্রতিমন্তব্যর মাধ্যমে প্রিয় মানুষের (ব্লগারের) তালিকা তৈরী হয়েছে। এই তালিকা তৈরীর ক্ষেত্রে ভালো লেখার বিষয়টা যেমন এসেছে, একই সাথে অন্য ব্লগারের সাথে তাঁর মিথস্ক্রিয়া কেমন, সে বিষয়টাও গুরুত্বপূর্ণভাবে এসেছে। এ সব উৎরিয়ে যাঁরা আমার পছন্দের তালিকায় আছেন, তাঁদের লেখা প্রথম পাতায় না থাকলেও খুঁজে খুঁজে নিয়ে পড়ি।

তবে একটা বিষয় সত্যি যে এখন পারিবারিক, দাপ্তরিক কাজে বেশি ব্যস্ত হওয়ায় আগের মত ব্লগ পড়ার সময় পাওয়া যায় কম, এতে করে কার/কোন লেখা পড়বো, সে ক্ষেত্রে বেশি পছন্দক্রম তৈরী হয়েছে। এতে করে দেখা যায় শিরোনাম আকর্ষণীয় না হলে নতুন ব্লগারের লেখা পড়া হয় না অথবা প্রথমবার পড়ে ভালো না লাগলে সেই নতুনের লেখা আর দৃষ্টি কাঁড়ে না।

এই ব্লগে লম্বা সময় থেকে এবং সক্রিয়ভাবে অবদান রেখে এ রকম একটা পোস্ট দেয়ার হক আপনার আছে এবং সেটা আপনি যথার্থভাবেই প্রয়োগ করেছেন। তবে বিজন রয় এর সাথে সুর মিলিয়ে আমারও মনে হচেছ- এ পোস্টের সুর কিছুটা ক্লান্ত সেনাপতির সুর.... সেটা যেনো না হয়, সেটাই আশা করবো।

ভালো থাকবেন সবসময়, শুভ ব্লগিং।

১৩ ই জুন, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:২৭

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: চমৎকার একটা কমেন্ট করার জন্য শুরুতেই ধন্যবাদ প্রিয় পদ্ম পুকুর।

নিজের অবস্থান ও ব্যক্তিত্ব ধরে রাখার জন্য আপনি যেভাবে ব্লগিং করে যাচ্ছেন, তা আপনার ঔদার্য্য ও মাহাত্ম্যের পরিচায়ক। যখনই একটা যুদ্ধংদেহী পরিস্থিতির উপক্রম হয়, একজন শান্ত থাকলেই পরিস্থিতি আর উত্তপ্ত না হয়ে একটা ঠান্ডা আবওহাওয়ার মধ্য দিয়ে তা শান্ত হয়ে আসে। এরকম ভারসাম্য সৃষ্টির জন্য কাউকে না কাউকে ভূমিকা নিতে হয়, আপনি সেই মহৎ কাজটি করে থাকেন। এটা আপনার বিজ্ঞতা ও প্রজ্ঞাকে প্রস্ফুটিত করে, ব্যক্তিত্বকে আরো শাণিত করে।

ব্লগের শুরুতে আমাকেও অনেক ঘাত-প্রতিঘাতের মধ্য দিয়ে আসতে হয়েছে। আপনি আমার চাইতে পুরোনো। নিশ্চয়ই মনে আছে, শুরুর দিকে অরিজিন্যাল নিক বা মাল্টি নিক থেকে গালিগালাজ, আক্রমণ ইত্যাদির পরিমাণ কত ব্যাপক ও ভয়াবহ ছিল। ফট করে মুখের উপর একটা কটু কথা বলে দিতে অনেকেরই বাঁধতো না। আমি নিজে কতভাবে কত আক্রমণের শিকার হয়েছি, তার হিসাব নাই। সেই তুলনায় ব্লগে এখন সৌহার্দ্য, সম্প্রীতি ও বন্ধত্বপূর্ণ আবহ অনেক বেশি পরিমাণে বিদ্যমান।

আমি বরাবরই একজন নিরীহ ব্লগার। তবে, ব্লগের শুরুর দিকে অনেকে গায়ে পড়ে ঝগড়া বাঁধানোর চেষ্টা করতো, উলটাপালটা কথা বলতো। তখন আমি ছেড়ে দেবার কেউ থাকতাম না।

আগের চাইতে অনেক ভার হয়ে গেছি। ব্যস্ততা এবং গান-বাজনা-ইউটিউব ও ফেইসবুকের কারণে এমনিতেই ব্লগে কম আসা হয়, কেউ একটা কটু কথা বলতে পারে, এমনটা আঁচ করতে পারলে ওসব ব্লগের ধারে কাছে যাওয়া থেকেই বাদ দিয়ে দিই।

এটা জেনে ভালো লাগলো যে, কয়েকজন প্রিয় ব্লগারের সাথে আপনার যোগাযোগ আছে। নানান কারণে ব্লগারদের সাথে আমার সরাসরি যোগাযোগের ক্ষেত্র তৈরি হয় না, যদিও ইচ্ছে করে।

বিজন রায়ের কমেন্টের ব্যাপারে তো উপরে বললামই :) না, আমি ক্লান্ত হতে জানি না। তবে, আগে সম্মুখ সমরে যুদ্ধ করতে বীরদর্পে সামনে এগিয়ে যেতাম, এখন কৌশল অবলম্বন করি, যাতে রক্তপাত না ঘটিয়ে যুদ্ধে জয় করা যায়

আবারো ধন্যবাদ প্রিয় ব্লগার

ভালো থাকুন। সুস্থ থাকুন।

৩৪| ১৩ ই জুন, ২০২০ দুপুর ১২:১৬

মনিরা সুলতানা বলেছেন: চমৎকার পোষ্ট ভাইয়া ! অনেক কিছুই মিলে গেলো; আর কিছু ব্যাপার শিখলাম।

১৫ ই জুন, ২০২০ রাত ১১:৩৩

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: অনেক কিছুই মিলে গেল বলে শান্তি পেলাম আপু। আর কিছু ব্যাপার শিখলেন জেনে নিজেকে সার্থক মনে হচ্ছে। ধন্যবাদ আপু পোস্টটি পড়ার জন্য।

৩৫| ১৩ ই জুন, ২০২০ দুপুর ১:২৬

রাজীব নুর বলেছেন: ৩৩ নং মন্তব্যকারী পদ্ম পুকুরের মন্তব্যটা ভালো লাগলো।

১৫ ই জুন, ২০২০ রাত ১১:৩৪

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: তিনি ভালো লেখেন, ভালো মন্তব্য করেন। তাকে ধন্যবাদ, এটা মেনশন করার জন্য আপনাকেও ধন্যবাদ রাজীব ভাই।

৩৬| ১৩ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৩:১৮

নতুন নকিব বলেছেন:



পোস্টে আপনি যাদের নাম করেছেন শ্রদ্ধাভাজন খায়রুল আহসান এবং আহমেদ জী এস ভাই আমার অতি প্রিয় দু'জন ব্যক্তিত্ব। আপনার সাথে তেমন একটা কথাবার্তা হয়ে ওঠে না হয়তো। তবু ব্লগের প্রিয় গুণী লেখকদের তালিকায় কিন্তু রয়েছেন আপনি। শুভকামনা সবসময়। +

১৫ ই জুন, ২০২০ রাত ১১:৪১

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: নিজের মনে যেসব জিজ্ঞাসা জন্মে, তার অনেক উত্তর বা ব্যাখ্যা আপনার পোস্টে পাই। জানার ও শেখার অনেক কিছুই থাকে আপনার পোস্টে। সময় হয় না সব সময় যেতে, তাই অনেক লেখা পড়াও হয় না। এমনিতেই থাকি ব্যস্ত, সবদিকে সামাল দেয়া সত্যিই কষ্টকর।

আমার প্রিয় ব্যক্তিরা আপনারও প্রিয় ব্যক্তিত্ব, আসলে তারা আমাদের সবারই যে প্রিয় ব্যক্তিত্ব তা সবার কমেন্টেই প্রমাণিত।

পোস্ট পাঠ ও কমেন্টের জন্য অনেক ধন্যবাদ প্রিয় নতুন নকিব ভাই। শুভেচ্ছা।

৩৭| ১৩ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৩:২৫

হাসান রাজু বলেছেন: পোস্টে সব কমেন্টের রিপ্লাই দেয়া লেখক আমার খুব প্রিয়। এদের শ্রদ্ধা করি। আমি ও চেষ্টা করি।
কিছু ব্লগার নাক উচু স্বভাবের। এদের এড়িয়ে চলি। নিজের কমেন্ট ডিলিট করার ক্ষমতা থাকলে আমি অন্যের পোস্টে করা আমার অনেক কমেন্ট ডিলিট করতাম। কারন তারা কোন প্রতিউত্তর দেয় না।
আমার নিজের একটা দোষ আছে। সেটা হল, পোস্ট পড়ে আস্তে করে কেটে পড়ি কোন কমেন্ট না করে। কি বলবেন?

১৬ ই জুন, ২০২০ রাত ১২:২৫

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: বেছে বেছে কমেন্টের উত্তর দেয়া ব্লগারের সংখ্যা এখন একেবারেই কম। ব্লগের শুরুর দিকে এরকম নাক-উঁচু ব্লগারের উপস্থিতি অনেক বেশি ছিল। কমেন্টের উত্তর দেয়ার সময় নেই, ব্যাপারটা ওরকম না, নিজেরে অনেক বড়ো কিছু ভাবা এবং অন্যকে তুচ্ছ জ্ঞান করাই থাকে মূল উদ্দেশ্য।

ব্লগে কেউ কমেন্টের উত্তর না দিলে সেটা খুব অপমানজনক মনে হয়। একবার-দু বার হয়ত মেনে নেয়া যায়, এর পর আর ধৈর্যে কুলায় না। তখন তাদের ছেড়ে চলে আসাটাই উত্তম মনে করি। তবে, নির্মোহ ভাবে শুধু পাঠই যাদের উদ্দেশ্য, তারা হয়ত এতখানি অভিমানী হবেন না।

আপনার কমেন্টের নীচের কথাটা - ওটা কোনো দোষ না, কমবেশি অনেকেই সেটা করেন। কমেন্ট করার হয়র সময় থাকে না, ততক্ষণে আরেকটা পড়া যায়, কী লিখবেন তা নিয়ে সংশয়, নিজের অন্য কোনো লিমিটেশন থাকতে পারে (যেমন আমার আছে), ফলে কমেন্ট না করে নীরবে প্রস্তান।

সুন্দর কমেন্টে ভালো লাগা হাসান রাজু ভাই। শুভেচ্ছা।

৩৮| ১৩ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৪:০৭

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: এত এত জ্ঞানী গুনিদের ভীরে কি বলবো ভেবেই পাচ্ছি না। পড়লাম। অনুভব করলাম। শিখলাম অনেক কিছু।

শুধু এটুকু বলি নিজেকে শুধু পথের ধারে পরে থাকা বুনোফুলের মতো ভাবি।
কেউ যদি ফিরে তাকায় তাতে ভাল লাগে বৈকি!
মালা করে খোঁপায় কেউ তুলে নেয়না। নিয়তির এইটুকু বুঝে গিয়ে নিরব হয়ে গেছি।

ভাল লাগে যা সবই পড়ি। ভিন্নমতের হলে ইগনোর করি। তারপরো কেউ কেউ বেহায়ার মতো লাগতে এলেও
কৌশলে এড়িয়ে যাবার চেষ্টা করি।
যাদের নাম নিয়েছেন প্রত্যেকেই রত্ন বৈকি। দুজনকে সাক্ষাতে পেয়েছি -ব্যাতিক্রম নন। আসলেই রত্ন।
উনাদের ঔদার্যে আমাকেও বুকে নিয়েছেন তাতেই ধন্য।

আপনার সাথে দেখা করতে যাবার উদ্যেগ দুবার ভেস্তে যাওয়ায় আর দেখা হয়ে উঠলো না।
বাস্তবে না হলেও লেখনিতে বেঁচে আছেন, থাকবেনও।
শুভকামনা রইলো।

১৬ ই জুন, ২০২০ রাত ১২:৫৫

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: প্রিয় কবি বিদ্রোহী ভৃগু, কমেন্টটা পড়লাম, কিন্তু স্বাদ পেলাম কবিতার। দ্বিতীয় স্তবকে বুনোফুল ও মালার উপমায় যা বললেন, তা মনে দাগ কেটেছে খুব; সত্যি কথা, মনের ভেতর বেদনারও সঞ্চার করেছে। কোথায় যেন এমন কিছু পড়েছিলাম- পথের ধারে অনাদরে পড়ে থাকা ফুলটি- আমি সেই করুণ বিষাদের গভীরে যেন ধাবিত হলাম

উপরে হাসান রাজুর মতো বলি- আমিও অনেকের অনেক পোস্ট পড়ে নীরবে চলে আসি, বিশেষ কিছু কারণে সব পোস্টে কমেন্ট করি না। আশা করি বুঝেছেন।

ভিন্নমতের হলে ইগনোর করি। তারপরো কেউ কেউ বেহায়ার মতো লাগতে এলেও
কৌশলে এড়িয়ে যাবার চেষ্টা করি।
উত্তম পন্থা। এতখানি উদার ও কৌশলী হওয়া সবার পক্ষে সম্ভব না। আপনি সত্যিই মহৎ।

আপনার সাথে দেখা করতে যাবার উদ্যেগ দুবার ভেস্তে যাওয়ায় আর দেখা হয়ে উঠলো না। ইনশাল্লাহ, ভবিষ্যতে একদিন দেখা হবে আশা করি। কিন্তু, আমি খুব খুশি যে আপনি দেখা করতে আসতে চেয়েছিলেন।

কী কবিতা, কী সমসাময়িক বিষয়ে আর্টিকেল, কমেন্টে সাবলীল আলোচনা-সমালোচনা-পর্যালোচনা- ব্লগের সর্বত্র আপনার সক্রিয় উপস্থিতি আপনাকে সব্যসাচী ব্লগারে পরিণত করেছে। ভালো লাগে আপনার উপস্থিতি।

পোস্ট পড়া ও অসাধারণ কথা সমৃদ্ধ কমেন্টের জন্য অনেক ধন্যবাদ প্রিয় ব্লগার। শুভেচ্ছা।

৩৯| ১৩ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৪:০৯

মিরোরডডল বলেছেন: রাকু হাসানকে দেয়া লিংকটা পড়ে আসলাম

সবগুলো লেখাই ভালো কিন্তু বেশী ভালো লেগেছে
আমারও দিন ফিরে আসবে

১৬ ই জুন, ২০২০ রাত ১:০৩

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: আমিও ঐ লিংকটা দেখে আসলাম। পুরোনো দিনের গানের মতোই পুরোনো কমেন্টগুলো মজাদার হয় :)


কবিতাটা ভালো লেগেছে জেনে ধুলো খুব খুশি

এবং, অন্যের কমেন্টের লিংক ধরে আমার পুরোনো পোস্টে যেয়ে সেটা পড়ে একটা প্লিজ্যান্ট ফিডব্যাক দেয়ায় ধুলো খুব আপ্লুত

ধুলো ধন্যবাদ জানিয়েছে ডুলুকে

৪০| ১৩ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৫:৩৪

জুন বলেছেন: খুব ভালো লাগলো ছাইভাই অকপটে সুন্দর করে মনের কথাগুলো লিখেছেন।
ভালোলাগা রইলো।
+

১৬ ই জুন, ২০২০ রাত ১:০৭

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ দেশী আপু পোস্টটি পড়ার জন্য। কথাগুলো ভালো লেগেছে জেনে খুশি হলাম। শুভেচ্ছা নিন।

৪১| ১৩ ই জুন, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৫৫

ঢাবিয়ান বলেছেন: পোস্টে ++++++++++++++্

১৬ ই জুন, ২০২০ রাত ১:২৯

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: এত্তগুলো প্লাসের জন্য অনেক অনেক ধন্যবাদ প্রি ঢাবিয়ান

৪২| ১৪ ই জুন, ২০২০ দুপুর ১২:৪৩

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: আপনি ব্লগারদের দিয়ে যে রম্যটাইপ পোস্ট দিতেন সেগুলো ছিল আনপ্যারালাল। ব্লগের কবি সাহিত্যিকদিরে রেটিং করে আপনি যেভাবে লিখেছিলেন আর কেউ অমন করে লিখেনি । সবার মধ্যে লেখার দারুন উৎসাহ প্রকারান্তরে আপনি যুগিয়ে ছিলেন। আজকে দুলাইনের কবিতা পড়ে হতাশ হলাম। জাদিদের সমালোচনা করার ইচে্ছ খুব। ও পোস্টের মেরিট বিবেচনায় না দিয়ে পোস্ট দাতার প্রোফাইল নিয়ে ব্যস্ত বেশি। এ রকম হলে ব্লগের দৈন্যতা প্রচার পায়।

আপনার খোলামেলা বয়ানে অনেক কিছু বের হয়ে এল। আপনার সাম্প্রতিক অনেক গানের লিংক সম্বলিত পেস্টের অনেকগুলো পড়িনি। আপনি এমন একজন ব্লগার যার দীর্ঘ পোস্টগুলোও আমি মিস করিনা। কয়েকটিতে কমেন্টও করেছি যে আপনার পোস্ট বড় কেন। আপনি আবার অভিমান করে বসবেন না যেন আমার অনধিকার চর্চায় । সুদীর্ঘ পোস্ট আমি সচরাচর স্কিপ করি। আপনার টা স্কিপ করতে ইচে্ছ হয়না। গুণগত মান বিচার করে পোস্ট নির্বাচিত করা উচিৎ ।

১৬ ই জুন, ২০২০ রাত ১:৪৭

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: প্রিয় কবি সেলিম আনোয়ার ভাই, আপনাকে অশেষ ধন্যবাদ। আপনি তারকাজরিপ রম্যপোস্টের কথাই বলছিলেন। স্মৃতি চারণে ওটা নিয়ে আসায় খুশি হলাম। তারকাজরিপ-২ নামে আরেকটা রম্য ছিল। ওটা অবশ্য অন্য ধাঁচের। সময় পেলে ঘুরে আসতে পারেন।

দু লাইনের কবিতায় কী হয়েছে, সে ব্যাপারটা আমার জানা নাই, বা ধরতে পারি নাই। যাই হোক, সবকিছুর সুন্দর সমাধান হবে, এই আশা করি।

আমার নিজের পোস্ট পড়া না পড়া নিয়ে কোনো অভিমান নেই, এ প্রসঙ্গে কিছু লিখি নাই। অন্যের পোস্ট পড়া নিয়ে আমার যত অভিমান :) তবে, এ পোস্ট লিখে আমি অনেকটা হালকা। আগের অনেক অভিমানই এখন নেই, কিংবা কমে গেছে।

ভালো থাকুন প্রিয় কবি, এই কামনা রইল।

৪৩| ১৫ ই জুন, ২০২০ রাত ১১:৫৯

আখেনাটেন বলেছেন: ব্লগার ঠাকুর মাহমুদের লেখার সাথে আমার লেখা.....ক্যামনে কী? :P :(( :-P


একটা জিনিস বুঝলাম না, এরা কি টাকা ছড়াইতেছে নাকি? --- এটা ওদের কালচার মনে হয়। আপনি ওস্তাত নুসরাত ফতেহ আলী খানের পুরাতন লাইভ কাওয়ালী দেখলে দেখবেন টাকার ছড়াছড়ি।

এটা মনে হয় আরবদের থেকে পেয়েছে। বেদুইনরা মরুভূমিতে সুন্দরীদের মুজরা ড্যান্সের তালে তালে তারে টাকায় গোসল করাত...পাকিস্তানিরা সেখান থেকেই মনে কয়....... ;) :P

১৭ ই জুন, ২০২০ রাত ১২:৫৩

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: ব্লগার ঠাকুর মাহমুদের লেখার সাথে আমার লেখা.....ক্যামনে কী? ব্যাপারটা আমার কাছেও ক্লিয়ার না, কেন, কীভাবে আপনাদের দুজনকে মাঝে মাঝে এক করে ফেলি। বিষয়টা লেখা নিয়ে না, কনফিউশন শুরু হয় প্রোফাইল পিকচার থেকে, দুটোই ডার্ক, এজন্য মনের ভেতর জট পাকিয়ে যায়। বাট, এই যে এটা নিয়ে আলোচনা হলো, এখন থেকে আর এমনটা ঘটবে না বলে আশা করি।

ছোটো বেলায় বিভিন্ন বাউল গানের আসরে, নাটকে বা যাত্রাপালায় এভাবে দিতে দেখেছি।

তবে, এভাবে টাকা ছিটানো আমার কাছে শিল্পীদের জন্য অবমাননাকর মনে হয়েছে। আমরা এমনটা দেখে অভ্যস্ত নই বলেই হয়ত এমন অড লাগে। আপনি চিন্তা করুন, আইয়ুব বাচ্চু স্টেজে গান গাইছেন, আর তার গানে খুশি হয়ে লোকজন টাকা ছুঁড়ে মারছে, আইয়ুব বাচ্চু এটা কীভাবে নিতেন?

আবার আসার জন্য অনেক অনেক ধন্যবাদ প্রিয় ব্লগার।

৪৪| ১৬ ই জুন, ২০২০ রাত ১:৫৮

জেন রসি বলেছেন: সোনাবীজ ভাই, এই পোস্ট কি কনফেশন নাকি থ্রেট ঠিক বুঝতে পারছিনা। :P অথবা লাইনে আসুন নাহয় তফাৎ যান টাইপ মেনিফেস্টোও হতে পারে। :P

তবে স্পষ্ট ভাষায় কিছু ব্যাপার বলে দিয়েছেন। ভালো লেগেছে। আমার নিজের ক্ষেত্রে এসব ব্যাপারে কোন ফিক্সড মনোভাব নেই। তবে কে বলছে তার চাইতেই কোন ইস্যুতে কি বলছে সেদিকে ফোকাস থাকে বেশী।

শুভ কামনা। :)

১৭ ই জুন, ২০২০ রাত ১:২৩

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: হাহাহাহাহাহাহাহা। ভালো বলেছেন জেন রসি ভাই।

ওসব কিছু না- ব্যক্তিগত ক্ষোভ ও অভিমানগুলো ঝেড়ে ছেড়ে দিলুম আর কী :) বুকের ভেতর থাকলে কামড়ায়। এখন হালকা হয়েছি।

নিজের মতামত শীয়ার করার জন্য অনেক ধন্যবাদ রইল প্রিয় জেন রসি ভাই।

৪৫| ১৬ ই জুন, ২০২০ সকাল ১০:৫৬

নতুন নকিব বলেছেন:



লেখক বলেছেন: নিজের মনে যেসব জিজ্ঞাসা জন্মে, তার অনেক উত্তর বা ব্যাখ্যা আপনার পোস্টে পাই। জানার ও শেখার অনেক কিছুই থাকে আপনার পোস্টে। সময় হয় না সব সময় যেতে, তাই অনেক লেখা পড়াও হয় না। এমনিতেই থাকি ব্যস্ত, সবদিকে সামাল দেয়া সত্যিই কষ্টকর।

-আমার পোস্ট আপনি পড়েন, এটা জেনে আনন্দিত হলাম। সুন্দর প্রত্যুত্তরে কৃতজ্ঞতা।

আপনার পার্শ্ববর্তী এলাকা শ্রীনগরে ছাত্রজীবনের অনেকটা সময়ে বেশ কিছু দিন ছিলাম। নিজের এলাকার মত লাগতো। মায়াময় মানুষ। কত যে আদর স্নেহ করতো আমাকে। ভুলতে পারিনি আজও। তাদের প্রতি আজীবনের ঋণ। আজীবনের কৃতজ্ঞতা।

১৭ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৪:৩৫

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন:
-আমার পোস্ট আপনি পড়েন, এটা জেনে আনন্দিত হলাম। সুন্দর প্রত্যুত্তরে কৃতজ্ঞতা।
ধন্যবাদ নতুন নকিব ভাই।

শ্রীনগর একটা বিখ্যাত জায়গা। ঢাকায় আসা-যাওয়ার রাস্তা আমাদের। আমাদের এই বেল্টের মানুষেরা খুব ভালো, অতিথিপরায়ন এবং আন্তরিক। ঐ এলাকায় ছিলেন বলে ভালো লাগলো। বেশি ভালো লাগলো আপনার প্রশংসা ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ, যাতে ঐ এলাকার মানুষের সদ্‌ব্যবহার ও আন্তরিকতার বিষয়টি উঠে এসেছে।

আপনার বিনয়ী কমেন্ট ভালো লাগলো।

ভালো থাকবেন নতুন নকিব ভাই।

৪৬| ১৭ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৪:০৮

শের শায়রী বলেছেন: সোনাবীজ ভাই, আপনার পোষ্ট টা গত পরশু পড়ছিলাম, সময়ের অভাবে উত্তর দেয়া হয় নি, বুক মার্ক করে রেখেছিলাম। পুরা পোষ্টে এক মত।

যে ব্যাপারটা আমি খুব অপছন্দ করি তা হল কোন পোষ্টে যদি কমেন্ট দেই আর তাতে যদি উত্তর না পাই। খুব অপমান বোধ হয়। আমার মান অপমান বোধ আমার নিরিখে খুব সুক্ষ্ম। সেক্ষেত্রে আর আমি তার পোষ্টে কমেন্ট করিনা তা সে যতই ভালো লিখুক না কেন। আবার কেউ যদি আমাকে ইচ্ছাকৃতভাবে উত্যাক্ত করার জন্য আমার পোষ্টে মন্তব্য দেয়, তবে আমি সেটা স্পোর্টসম্যান মেন্টালিটিতে নিয়ে তাকেও একই ভাবে জবাব দেই যতক্ষন না সেটা ব্যাক্তি আক্রমনে যায়।

আমি সাধারনতঃ এক নজরে সব পোষ্টের হেডিং এবং ভেতরের দুই চার লাইন পড়ি। পড়ার পর যদি দেখি সে পোষ্ট আমাকে ধরে রেখেছে, তবে সে পোষ্ট ভালোভাবে পড়ার চেষ্টা করি, এবং কমেন্ট দেই। আস্তিক নাস্তিক ইস্যু আমি সাধারনতঃ এড়িয়ে যাই, কারন আমি একজন বিশ্বাসী। তবে এক্ষেত্রে আমার তর্কে যেতে অসুবিধা নেই, কিন্তু কেউ যদি শুরুতেই আমার বিশ্বাসের গোড়ায় আঘাত করে (মানে আল্লাহ, রাসুল এবং ইসলামের ফান্ডামেন্টাল বিষয় নিয়ে নোংরামি মুলক মন্তব্য করে) তবে তাকে সজ্ঞানে এড়িয়ে যাই।

একজন ব্লগারের লেখা যদি মৌলিক লেখা হতে হয় সে ক্ষেত্রে আমি ব্লগার হিসাবে পড়ি না, কারন আমার প্রায় সব লেখাই বিভিন্ন বই, পত্র, নিবন্ধের অনুবাদ বা বিভিন্ন লেখা এক জায়গায় করে পোষ্ট দেয়া। তাই নিজে কিছুটা হীনমন্যতায় ভুগি।

আমার পোষ্টে কে কমেন্ট দিল না বা দিল সেটা আমি দেখি না, আমি দেখি ভালো লেখা যখন চোখে পড়ে তাকে উৎসাহিত করতে বিশেষ করে নতুন লেখকদের। মজার ব্যাপার দু একজন নতুন (এই নতুন বলতে আমি লেখালেখির একটা নির্দিষ্ট সময় বুজিয়েছি) মোটামুটি বিনা কারনে আমাকে অপমান জনক প্রতিউত্তর দিয়েছে।

বিনয় যে একজন ব্লগারের বড় গুন এটা এখনকার অনেক ব্লগারই জানে না, কারন দু একজন ব্লগারের তীর্যক মন্তব্য দেয়ার ষ্টাইলকেই তারা ধরে নেয় ব্লগিং এর ধারা।

পুরা পোষ্টে আপনি যে তিন জনের নাম উল্লেখ্য করেছেন তারা অসম্ভব বিনয়ী এবং ভালো লেখক। এদের আমিও শ্রদ্ধা করি। আর গানের বিষয়ে এই মুহুর্তে আপনি যে সব পোষ্ট দেন, আর কাউকে তা দেখি না।

পোষ্টে পূর্ন এক মত জানিয়ে গেলাম।

১৭ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৪:৫৬

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: শুরুতেই ধন্যবাদ জানাচ্ছি প্রিয় শের শায়রী ভাই এত সুন্দর একটা কমেন্ট করার জন্য।

বিস্তৃত এ কমেন্টে পোস্ট পড়া বা না পড়া, কমেন্ট করা বা না করার ব্যাপারে যা বললেন, তার সাথে আমার বৈশিষ্ট্যও প্রায় পুরোটাই মিলে গেছে। অনেকেই আমার পোস্টে আসেন না, কিন্তু আমি তাদের পোস্ট পড়ি। এটা তাদের লেখার গুণ।

আস্তিক-নাস্তিক ইস্যু- আমি আলোচনাগুলো পড়ি, কিন্তু কদাচিৎ অংশগ্রহণ করি। তবে, যখন কোনো আলোচক কোনো ব্যক্তি বা ধর্মকে ইচ্ছাকৃতভাবে হেয় বা অপমান করতে তৎপর হয়ে ওঠেন, তখন খুব বিরক্ত হই এবং মনের মধ্যে খুব ক্ষোভও জন্মে। স্বাভাবিকভাবেই তাদের পোস্ট আমার পড়া হয় না।

ব্লগের সেরাদের একজন আপনি। ব্লগে আপনার অবদান স্মরণীয়। আশা করি, আগামী দিনগুলোতে এভাবেই ব্লগকে ভালোবাসতে থাকবেন।

শুভেচ্ছা রইল শের শায়রী ভাই।

৪৭| ১৯ শে জুন, ২০২০ রাত ১১:১৪

নাসরীন খান বলেছেন: আমি শিরোনাম এর চেয়ে ভিতরটা বুঝতে পছন্দ করি।ব্্লগে আমার থাকা বা আসার উদ্দেশ্য শিখা।প্রতিদিন শিখতে চাই।
অনেক চমৎকার ব্যাখ্যা দিয়েছেন।

২২ শে জুন, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:২৫

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: শিরোনামটা আলোচ্য বিষয়টা বুঝতে সাহায্য করে। তবে, ভেতরের আলোচনাটাই হলো মুখ্য।

কমেন্টের জন্য ধন্যবাদ আপু।

৪৮| ২৩ শে জুন, ২০২০ দুপুর ২:৪৯

নীল আকাশ বলেছেন: শ্রদ্ধেয় বড় ভাই,
অনেক কিছু বলতে এসেছিলাম কিন্তু এসে দেখি কায়সার ভাই, জী এস ভাই, মা। হাসান ভাই এবং রাকু ভাই প্রায় সবটাই বলে দিয়েছেন। প্রতিমন্তব্যগুলিতে আপ্নিও সুন্দর লিখেছেন।

আপনার কাছে আমার দেনা অনেক। একটা চরম দুঃসময়ে লজ্জার মাথা খেয়ে আপনার কাছে সাহায্য চেয়ে ইমেইল করেছিলাম। আমি কল্পনাও করিনি আপনি এতটা অমায়িক বন্ধু পরায়ন মানুষ। কী উপকার আমি পেয়েছি সেটা বলে শেষ করা যাবে না। আমি 'শবনমে' আপনার নাম উল্লেখ করে দিয়েছি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে। ব্লগে আপনি আমাদের অনেকটা শিক্ষকের মতো। আপনাদের মতো সিনিয়র ব্লগারদের কাছে থেকে অনেক কিছু শেখা যায়।

আপনার পুরো লেখার সাথে আমি অনেকটাই একমত। তবে ব্লগে দুইএকজন খুব ইরিটেটিং ব্লগার আছে যাদের ব্লক করে রাখাই ভালো। আর আত্ম অহংকার নিয়ে কেউ কোনদিন বেশি উপরে উঠতে পারবে না।
যে কোন মানুষ শ্রদ্ধা পায় তার কাজে এবং আচরণে।

ধন্যবাদ এবং নিরন্তর কৃতজ্ঞতা আপনার জন্য।

২৪ শে জুন, ২০২০ বিকাল ৪:১৮

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: যুনাইদ ভাই, আর লজ্জা দিয়েন না। কৃতজ্ঞতা প্রকাশ অনেক হইছে, এতটুকুর জন্য একবারই যথেষ্ট। তবু, আপনার বিনয় ও শ্রদ্ধাবোধ ও কৃতজ্ঞতাবোধকে অনেক অনেক শ্রদ্ধা জানাই। এবং ধন্যবাদ।

আপনার পুরো লেখার সাথে আমি অনেকটাই একমত। তবে ব্লগে দুইএকজন খুব ইরিটেটিং ব্লগার আছে যাদের ব্লক করে রাখাই ভালো। আর আত্ম অহংকার নিয়ে কেউ কোনদিন বেশি উপরে উঠতে পারবে না।
যে কোন মানুষ শ্রদ্ধা পায় তার কাজে এবং আচরণে।
--- এই অংশে অনেকগুলো সুন্দর কথা বলেছেন। আমাদের আচরণের কথা ভুলে যাই। অন্যের সামান্য কটূ কথায় আমার অন্তরে রক্তক্ষরণ হতে পারে, তেমনি আমার কথায়ও অন্যের অন্তর পুড়ে যেতে পারে- আমাদের এ জিনিসটা বুঝতে হবে। এটা বোঝার জন্য খুব বেশি মানবিক হওয়ার প্রয়োজন নেই, নিজেকে দিয়ে বুঝতে চেষ্টা করলেও সবখানি বোঝা যায়।

এমন ব্লগারকে সবসময়ই এড়িয়ে চলতে হবে, যাদের মুখের উপর নিজের কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই। যিনি সকালে আপনাকে সুন্দর কিছু কথা বললেন, দুপুরে হুট করে একটা অপমানজনক কথা বললেন, তাদেরকে সবসময় এড়িয়ে চলার পক্ষে আমি।

অনেক ভালো থাকবেন প্রিয় যুনাইদ ভাই। শুভেচ্ছা।

৪৯| ২৯ শে জুন, ২০২০ রাত ১২:০২

খায়রুল আহসান বলেছেন: অত্যন্ত জোরালো এবং স্পষ্ট ভাষায় লিখিত আপনার এ পোস্টটাতে এর আগেও আমি একবার চোখ বুলিয়ে গিয়েছিলাম, কিন্তু তখন মন্তব্য করার মত যথেষ্ট সময় আমার হাতে ছিল না। একটা পোস্ট পড়তে আমার যতটা সময় লাগে, পোস্টের উপর মন্তব্য করতে অনেক ক্ষেত্রে তার চেয়েও বেশী সময় লেগে যায়। আর যে পোস্টে আমি মন্তব্য করি, সেটা আদ্যোপান্ত ভালভাবে না পড়ে আমি কখনোই মন্তব্য করি না। সে কারণে আপনার এ পোস্টে মন্তব্য করতে আমার একটু দেরীই হয়ে গেল।

ব্লগের শেষে এসে নিজের নামটাকে দেখতে পেয়ে, সত্যি বলছি, চমকিত হয়েছি। এখানে আমার ব্লগিং বয়স এখনও পাঁচ বছর সম্পূর্ণ হয়নি। তবে এখানে এসে অনেক অভিজ্ঞতা অর্জন করেছি, অনেকের কাছে অনেক কিছুই শিখেছি। যারা কখনো আমার লেখার কোন ভুল ধরিয়ে দিয়েছে, এমনকি কোথাও কোন বানান ভুলও, আমি তাদের প্রতি এ ভুল দেখিয়ে দেয়ার জন্য কৃতজ্ঞতা জানিয়ে প্রয়োজনীয় সম্পাদনা করেছি। আপনার হয়তো মনে আছে যে আপনিও একদিন আমার একটা কবিতাকে বেশ সমালোচনা করেই এর অনেকাংশের ব্যাপারে আপনার ভিন্ন মতামত জানিয়েছিলেন। আপনার মন্তব্য পড়ে আপনাকে ধন্যবাদ জানিয়ে আমি কবিতাটিকে অনেকটা পরিবর্তন করে পুনঃ লিখেছিলাম, এবং লেখার পরে দুটোর পার্থক্য দেখে নিজেই সবার আগে তুষ্ট হয়েছিলাম।

এ পর্যন্ত ৪৯৩টি পোস্ট লিখেছি এবং সেসব পোস্টে মোট ১৮৪৭৮ টি মন্তব্য পেয়েছি, এই ১৮৪৭৮টি মন্তব্যের মধ্যে হয়তো দুই একটি বাদে সবগুলোর উত্তর দিয়েছি। তবে এখানে স্বীকার করছি যে শুরুর দিকে আমি মন্তব্যের উত্তর দেয়ার সময় সবার মন্তব্যের উত্তর দিতাম ঠিকই, কিন্তু অনেক সময় সিরিয়াল ভঙ্গ করে উত্তর দিতাম। এ নিয়ে কয়েকজন ব্লগার উষ্মা প্রকাশ করে আমার ভুলটি ধরিয়ে দিয়েছিলেন। আমি তৎক্ষণাৎ নিজের ভুলকে সংশোধন করে নিয়েছিলাম। তাদের কাছে এজন্য আমি কৃতজ্ঞ।

রবীন্দ্রনাথকেও কিন্তু “রবীন্দ্রনাথ” হতে নিজেকে অহরহ ভাঙতে-চুরতে হয়েছে অনেক - আহমেদ জী এস এর এ কথাটা ভাল লেগেছে বেশ। কাওসার চৌধুরী, রাকু হাসা্‌ন, মাঈনউদ্দিন মইনুল, পদ্ম পুকুর, জেন রসি, শের শায়রী প্রমুখের মন্তব্যগুলোও।

নামোল্লেখ করে যে সম্মানটুকু জানালেন, সেটা যেন ধরে রাখতে পারি বাকি ব্লগজীবনে, সে দোয়া করবেন। অন্যান্য যেসব পাঠক আপনার কথার সাথে একাত্ম হয়ে আমাদের প্রতি আস্থা ও সৌজন্য প্রকাশ করেছেন, আপনার সাথে সাথে তাদেরকেও শ্রদ্ধা ও কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।

৫০| ১৮ ই জুলাই, ২০২০ রাত ২:১১

আবদুর রব শরীফ বলেছেন: টেন্ডেইসপেপারকস্ট ৷

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.