নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

শব্দকবিতা : শব্দেই দৃশ্য, শব্দেই অনুভূতি \n\[email protected]

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই

দুঃখের কবিতাই শ্রেষ্ঠ কবিতা। ভালোবাসা হলো দুঃখ, এক ঘরে কবিতা ও নারী।

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই › বিস্তারিত পোস্টঃ

অম্লবচন-২

২৫ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ৮:১৭

মানবভূষণ

লজ্জাই মানুষের শ্রেষ্ঠ ভূষণ। একজন লজ্জাশীল মানুষ
অন্যায় করেন না, যেহেতু কৃত কুকর্মের জন্য তাকে
চোখ খুলে অন্যের চোখে তাকাতে হবে, যে-চোখ
সমস্ত লজ্জার আখড়া।


সম্পদশালী

একজন নির্লোভ বা নির্মোহ মানুষই প্রকৃত সম্পদশালী,
কেননা, তার কোনো অভাব নেই, কেননা তার কোনো
কিছু চাওয়ার নেই।


ক্ষমা

ঔদ্ধত্ব্যের ক্ষমা নেই, ক্ষমা করতে নেই।
দাম্ভিকতা চূর্ণ হওয়ার পর যেদিন ভূতলে
লুটিয়ে ভুলের জন্য কেঁদে জাড় হবেন
সেদিনই তার প্রকৃত মানবিকতা প্রস্ফুটিত হবে-
কেবল সেদিনই তাকে এক শর্তে ক্ষমা করা যায়-
এ জন্মে আর কোনোদিন ‘ইতর’ হবেন না।


সুখ

সুখ একটা মানসিক পরিস্থিতি মাত্র, সম্পদের উপস্থিতি
বা অনুপস্থিতির উপর সুখের স্থিতিশীলতা নির্ভরশীল নয়।


ময়লা

‘কয়লা ধুইলে ময়লা যায় না’। আপনার মনটা
ধুয়ে ফেললেই খাসলত সাফ হয়ে যাবে।


প্রেম ও মানবিকতা

মানুষকে ভালোবাসার নামই মানবিকতা। এই
ভালোবাসা মুখে ‘তোমাকে ভালোবাসি’ বলা না;
মানুষের বিপদে পাশে দাঁড়ানো, বিপদ অতিক্রমণে
হাত বাড়ানোই মানবিকতা।

প্রেমও অনুরূপ। গদগদ স্বরে ‘তোমাকে ভালোবাসতে
বাসতে ফতুর হয়ে যাব’ বলে রাতভর পাশ ফিরে শুয়ে
থাকা, অতঃপর অসুস্থ স্ত্রীকে নির্জন গৃহে ফেলে রেখে
পরকীয়া রমণীর সম্ভোগে গমন ‘প্রেম’ নহে।


গো-চোনা

আরেকটা প্রবাদ আছে – এক বালতি দুধে একফোঁটা
গো-চোনা পড়লেই পুরোটা দুধ জমে নষ্ট হয়ে যায়।
আপনার মুখের কথা বন্দুকের গুলির মতো, একবার
বেরোলে আর ফেরানো যায় না। বলার আগে কথাগুলো
মনে মনে পর্যালোচনা করুন। আপনার ৫টা কথায়
মানুষ খুশি হোন, পরের ৩টা কথায় আপনাকে খুব
প্রজ্ঞাবান মনে হয়, সর্বশেষ ২টা কথায় আপনাকে
‘ইডিয়ট’ বা ‘ইতর’ মনে হয়- প্রতি ১০টা কথার
শেষ দুটো কথা পরিত্যাগ করুন। ‘স্যাডিস্টরা’
মানুষকে আঘাত করে আনন্দ পান। কেউ ‘স্যাডিস্টদের’
ভালোবাসে না। আমরা আপনার মাহাত্ম্যকেই দেখতে চাই।


সম্মান

আমাদের বাসার কাজের লোকটা, কিংবা অফিসের চতুর্থ
শ্রেণির কর্মচারিটাও একটা পরিবারের প্রধান ‘কর্মকর্তা’,
যেখানে তার একটা ‘রাজদরবার’ ও ‘সিংহাসন’ রয়েছে;
স্ত্রী-পুত্র-কন্যা, পুত্রবধূ-জামাতারা তার সম্মানিত সভাষদ;
এদেরকে ‘আপনি’ বলুন এবং সম্মানের সাথে ‘আদেশ’
করুন। সম্মান কেনা যায় না, এটা অর্জন করতে হয়।


মত-বিরোধ ও সদাচরণ

জ্ঞানের ঘাটতির জন্য কাউকে তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করবেন
না। আপনার চাইতেও অধিক জ্ঞানবান পণ্ডিত রয়েছেন,
তাদের কথা ভেবে মাথা নত করুন।
এই ব্লগে কয়েকজন বিশ্ববিদ্যালয়-শিক্ষক আছেন,
অধ্যক্ষ ও কলেজশিক্ষক আছেন। অনেক জ্ঞানী
পণ্ডিত ও গবেষক আছেন। তাদের নিভৃত বিচরণ,
বিনয় ও নমনীয়তাই হলো তাদের শক্তিমত্তা।
তারা ‘সদাচরণ’ কাকে বলে জানেন। চেষ্টা করলে
আপনিও সেটা শিখতে পারেন।
আমার মতের সাথে আপনার মতের মিল হবেই –
এমনটা ভাবি না। তবে, আপনার মত ও দর্শনকে
সম্মান করি এবং তা সমুন্নত রাখতে আমার আন্তরিক
সহযোগিতা পাবেন সর্বদাই। এ সহযোগিতা পাওয়ার
জন্য আপনার একটাই ‘যোগ্যতা’ থাকা চাই, তা হলো
অন্যের মতামতের প্রতি আপনার ‘শ্রদ্ধাবোধ’।


কথা

কথায় মানুষ হাসে এবং
কথায় মানুষ কাঁদে
কথায় ঘর ভাঙে, আবার
কথায়ই ঘর বাঁধে।

এ ছোট্ট কবিতাটা ২০০৪ সালে লেখা এবং ২০০৫ সালে
প্রকাশিত আমার ‘অন্বেষা’ কবিতাগ্রন্থের অন্তর্গত। কথার
শক্তি একটা পারমাণবিক বোমার চাইতেও অনেক বেশি,
কারণ, ঐ বোমাটা ‘কথা’র বলেই চালিত হয়। আপনার
কথা যেন কারো বুকে ক্ষতের সৃষ্টি না করে; আপনার কথা
দগদগে ঘায়ে মলমের মতো যেন হয়। আপনার কথা
আপনাকে ‘মাহাত্ম্যের’ মুকুট পরাবে।


পরিবেশ

আতা গাছে তোতা পাখি
ডালিম গাছে মৌ
এত ডাকি তবু কেন
কও না কথা বউ

উপরের প্রচলিত ছড়াকে এভাবে লিখলাম :

আতা গাছে টিয়া পাখি
ডালিম গাছে তোতা
এত ডাকি, আমার বউয়ের
কান কি তবে ভোঁতা?

পরিবেশ গম্ভীর হয়ে উঠলে চটুল রসের কিছু
গল্প বললে পরিবেশ চাঙ্গা হয়ে ওঠে।

২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০

মন্তব্য ২৮ টি রেটিং +৫/-০

মন্তব্য (২৮) মন্তব্য লিখুন

১| ২৫ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ৮:৩৮

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: কোলাজ ধর্মী অম্ল বচনে ভালোলাগা। আপনার 'অন্বেষা' কবিতা গ্রন্থের অন্তর্গত কথা অনু কবিতাটি সত্যি পরমাণু বোমার মতো লাগলো। আর শেষ পাতে চাটনি আকারে পরিবেশিত ছড়াটা উপভোগ্য হয়েছে।
সবমিলিয়ে দারুণ। ++
শুভেচ্ছা প্রিয় সোনাবীজ ভাইকে।

২৫ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ১০:৪৬

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: শুরুতে সুন্দর একটা মন্তব্যে মন ভরে গেলো প্রিয় পদাতিক চৌধুরী ভাই। অনেক অনেক ধন্যবাদ আপনাকে এবং শুভেচ্ছাও সেই সাথে। ভালো থাকুন।

২| ২৫ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ৯:৩৩

সাড়ে চুয়াত্তর বলেছেন: ভাবলাম কিছু দ্বিমত করবো। কিন্তু কোনটার সাথেই দ্বিমত করতে পারলাম না। এগুলি চিরন্তন সত্য কথা। ভিন্ন জনে ভিন্নভাবে বলেছেন এই যা।

২৫ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ১০:৪৯

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: হ্যাঁ, কিছু প্রবাদ আছে এবং কিছু মহৎ লোকের বাণীও এখানে আছে, আমার মতো করে। আমার কথার সাথে আপনার তেমন দ্বিমত না থাকায় আশ্বস্ত হলাম বেশ। আপনার উপস্থিতি ভালো লাগে। ধন্যবাদ এবং শুভকামনা।

৩| ২৫ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ৯:৪১

বিএম বরকতউল্লাহ বলেছেন: অম্লবচন তো ভাল লেগে গেল!
শুভেচ্ছা।

২৫ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ১০:৫১

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: অম্লবচনগুলো ভালো লেগে যাওয়ায় আনন্দিত। ভালো লাগার কারণ, এগুলো আপনার মতের সাথে মিলে গেছে, আমি আর আপনি সমমনা। বিপরীত-মনাদের ভালো নাও লাগতে পারে।

অনেক ধন্যবাদ প্রিয় ছড়াকার। শুভেচ্ছা নিন।

৪| ২৫ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ১০:০৩

আমি সাজিদ বলেছেন: আটটা কথা বলার অভ্যেস করতে হবে। ধন্যবাদ সুন্দর লেখার জন্য ভাইয়া।

২৫ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ১০:৫৩

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: হাহাহাহাহাহাহা। আমরা আসলে জানি, কোন কথাটায় আপনি খুশি হবেন, কোনটায় আঘাত পেতে পারেন। আঘাত পাওয়ার কথাটা এড়িয়ে যেতে হবে। সেটা বলা অত্যাবশ্যক হলে স্থান ও কাল সেভাবে নির্বাচন করেই কথাটা বলতে হবে, যাতে ভুল বোঝাবুঝির সৃষ্টি না হয়।

ধন্যবাদ সাজিদ ভাই। শুভেচ্ছা রইল।

৫| ২৫ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ১১:৩১

পগলা জগাই বলেছেন: মানবভূষণটা ভালো হয়েছে।
গো-চোনা পরলে কি আসলেই দুধ জমে যায়?

২৫ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ১১:৪৩

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: গো-চোনা পরলে কি আসলেই দুধ জমে যায়? মূল জিনিসটা হলো টক। দুধের সাথে যে-কোনো টক মিশে গেলেই সেটা জমে যায়। গাভীর একটা বৈশিষ্ট্য আছে- দুধ দোহানের সময় কোনো এক পর্যায়ে এরা প্রস্রাব করে দেয়, ঐ সময়ে দুধের বালতি বা পাতিলটা সরিয়ে মুখ ঢেকে না দিলে গো-চনা চলে আসবে এবং দুধটা নষ্ট হয়ে যাবে (হাইজিনের কারণেও এ ব্যাপারে খুব সতর্ক থাকতে হয়)। দুধ জমার উদাহরণটা এজন্য গো-চনার সাথে তুলনা করা হয়।

মানবভূষণটা ভালো হয়েছে জেনে খুশি হলাম।

অনেক ধন্যবাদ পোস্ট পাঠ ও মন্তব্যের জন্য। শুভেচ্ছা।

৬| ২৫ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ১২:৫৪

নেওয়াজ আলি বলেছেন: সুনিপুণ লেখনশৈলী । ভালো থাকুন সবসময়।

২৫ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ১:১০

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: ধন্যবাদ নেওয়াজ আলি ভাই। শুভেচ্ছা।

৭| ২৫ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ১২:৫৮

রাজীব নুর বলেছেন: প্রতিটা লাইনে আবেগ আছে, ভালোবাসা আছে, আছে মানব জীবনের রহস্য।

২৫ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ১:১০

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: ধন্যবাদ রাজীব নুর ভাই। শুভেচ্ছা।

৮| ২৫ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ৯:৪৪

নুরুলইসলা০৬০৪ বলেছেন: ভাল লাগল সুখ,সবগুলোই ভাল তবে মত-বিরোধে কিছু মত-বিরোধ আছে।

২৫ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১০:০৭

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: সুখ ভালো লাগলো জেনে খুশি হলাম নুরুলইসলাম ভাই। তবে, মত-বিরোধে যে মত-বিরোধ থাকতেই পারে, মূলত লেখাটাই তো তা নিয়ে, মত সবার একরকম হবে না।

ধন্যবাদ, ভালো থাকবেন।

৯| ২৫ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১০:৩১

মিরোরডডল বলেছেন:



সবগুলোই ভালো কিন্তু সম্পদশালী, সুখ, কথা এই তিনটা বেশী ভালো লেগেছে ।

অনেক অম্ল হয়েছে ধুলো, আর না ।
তিনবার হয়ে গেছে , এবার নো মোর অম্ল ।
মধুর কিছু চাই ।

গান পোষ্ট হতে পারে অথবা সেই যে একটা ছোট গল্প লিখেছিলো ধুলো ‘প্রেম’, সেরকম নতুন কোনও গল্প হতে পারে ।
এই লেসন পোষ্ট আর না :|


২৫ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১১:০৮

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: একেকটা এক্সপেরিয়েন্স থেকে লেসনের জন্ম হয়। অম্লবচন-১-এ-ই এ যাত্রার লেসনমালা শেষ হয়ে গিয়েছিল, পরে আবার কিছু মাথায় ঢুকে পড়ে। যেটা মাথায় নিয়ে এ লেসন পোস্ট শুরু করেছিলাম, সেটাই ভুলে গেছি। এখনো এই মনে আসে, আবার ভুলে যাই।



মন ভাঙা

মন ভাঙা হলো মসজিদ ভাঙার সমান।
প্রতিদিন কতটা মসজিদ ভাঙছো, তার
কি হিসাবে রেখেছো?
তোমার মন ভাঙার মধ্য দিয়ে একদিন
এ হিসাব দিতে হবে, মনে রেখো।

১০| ২৫ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১১:১৯

শোভন শামস বলেছেন: উপভোগ্য হয়েছে।
সবমিলিয়ে দারুণ। ++

২৫ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ১১:২২

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: ধন্যবাদ শোভন শামস ভাই। শুভেচ্ছা।

১১| ২৬ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ৯:০৫

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন:
অম্লবচন অম্ল হলেও মানলে আখেরে মধুর মতোন-
আমলকি খেয়ে, পানি খেলে পরে লাগে যেমন :)

+++

২৬ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ১২:৫৮

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন:



অম্লবচন অম্ল হলেও মানলে আখেরে মধুর মতোন-
আমলকি খেয়ে, পানি খেলে পরে লাগে যেমন।
বাহ! চমৎকার লিখেছেন তো! খুব ভালো লেগেছে। ধন্যবাদ আপনাকে প্রিয় বিদ্রোহী ভৃগু ভাই। শুভেচ্ছা।

১২| ২৬ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ৯:৪১

মিরোরডডল বলেছেন:



what goes around comes around

যার যেটা প্রাপ্তি সে ঠিকই পাবে ।
কাউকে কষ্ট দিলে মন ভাঙ্গলে সেটা একসময় ঠিক নিজের কাছে আসবে,
হয়তো অন্য কারো কাছ থেকে । বুমেরাং!

আর লেসন না ধুলো !






২৬ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ১:০৭

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন:



১৩| ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ১১:৪১

মোঃমোস্তাফিজুর রহমান তমাল বলেছেন: আবারো অম্লবচনের বোতলে অমূল্য বচনের পানীয়। প্রত্যেকটি কথাই সত্যি।

২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ সকাল ১১:৫৭

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: আবারো অম্লবচনের বোতলে অমূল্য বচনের পানীয়। আপনাদের বদান্যতায় অম্লবচনগুলো 'অমূল্যবচন' হয়ে ওঠায় ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। শুভেচ্ছা তমাল ভাই।

আপনি গল্প লেখা ছেড়ে দিলেন কিনা, বুঝতে পারছি না। আশা করি শীঘ্রই গল্প পাব।

১৪| ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ১২:০৬

মোঃমোস্তাফিজুর রহমান তমাল বলেছেন: এই যে তাগাদা দিলেন,এতে যে আমি কি পরিমাণে অনুপ্রাণিত হলাম সেটা বলে বোঝাতে পারবো না।আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ।
ছেড়ে দিই নি ভাই। এখনো তো যথেষ্ট কাঁচা।তাই একটু পড়াশোনা করে নিচ্ছি আর কি!! শিঘ্রই আসবে গল্প।

২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ১২:২৩

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: এটা একটা ভালো আইডিয়া। ভিত শক্ত করার জন্য স্টাডি এবং এক্সপেরিয়েন্সের বিকল্প নেই। আপনার হাত এমনিতেই খুব সাবলীল। আরো সাবলীল গল্প নিয়ে ফিরবেন, এই প্রত্যাশা রইল।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.