নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

সবার জন্য ভালোবাসা রইলো ।

গেছো দাদা

গেছো দাদা › বিস্তারিত পোস্টঃ

রম্য : চ্যাপ্টা !!

৩১ শে জুলাই, ২০২০ রাত ১২:৩৬

"বাবু বাজার থেকে আলু আর একটু আনাজ নিয়ে আয়।"
.
পৃথিবীতে একমাত্র মা আমাকে বাবু বলে। বাকি সবাই ডাকে চ্যাপ্টা বলে। তার কারণ আছে। আমার নাক বলে কোনও বস্তুই নেই। তাই নাক চ্যাপ্টা থেকে 'চ্যাপ্টা'। নাক প্রায় না থাকায় আমাকে বীভৎস দেখায়। যদি কোনও প্রতিযোগিতা থাকত "সবচেয়ে বদখত পুরুষ" আমি হেসেখেলে জিতে যেতাম। স্কুল থেকে কলেজ, কোনও মেয়ে আমার দিকে নরম চোখে চায়নি। একবার তাকিয়েই শক্ খাওয়ার মতো ঝটাকসে মুখ ঘুরিয়ে নিয়েছে।
.
এবং আমি এসবে অভ্যস্ত হয়ে গেছি। এখন যেটা দরকার সেটা হলো একটা চাকরি-বাকরি কিছু। মা আর আমি। আমাদের দুজনের সংসার। কিন্তু রোজগার প্রায় নেই বলতে গেলে। কিছু টাকা 'এম আই এস' করা আছে তার সুদ আর আমি তিনটে টিউশ্যানি করি তাতেই কোনরকমে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে টাল খেতে খেতে চলে যায়।
আমি মাকে বললাম, "টাকা দাও।"
মা আলমারি খুলে একটা একশো টাকার নোট আমার হাতে দিল।
.
বাইরে বেরোতেই দেখি তিন্নি দাঁড়িয়ে আছে।
তিন্নি আমার সঙ্গে কলেজে পড়ত। আমাদের ক্লাসের সবচেয়ে সুন্দরী মেয়ে। আমাকে পাত্তা দেওয়া তো দূরের কথা, কটা কথা বলেছে সন্দেহ। আমি ওর পাশ কাটিয়ে বাজারের দিকে এগোলাম।
ও আমার কাছে এগিয়ে এসে বলল, "চ্যাপ্টা শোন, তোর কাছেই এসেছি।"
আমার কাছে তিন্নি এসেছে? এর চেয়ে কলকাতায় বরফ পড়ার খবরও অনেক বিশ্বাসযোগ্য ছিল!
আমি চুপ করে ওর দিকে তাকিয়ে থাকলাম।
তিন্নি বলল, "চ, আমার গাড়িতে ওঠ। অনেক খুঁজে তোর বাড়ি বের করেছি। তোর সঙ্গে আমার জরুরি কথা আছে।"
.
আজ এসব কী উল্টোপাল্টা হচ্ছে! আমার সঙ্গে তিন্নির জরুরি কথা আছে? গাড়িতে উঠতে বলছে!!
নাহ্ সূর্যতো আকাশে ঠিক জায়গাতেই আছে!
আমি বললাম, "বাজার যেতে হবে। কী বলবি ঝটপট বল।"
--"চ্যাপ্টা তোকে আমায় একটু হেল্প করতে হবে।"
আমি অসহায় ভাবে বললাম, "আমি তোকে কী হেল্প করব? আমার চাকরি বাকরি নেই। আমাকেই কে হেল্প করে তার নেই ঠিক।"
--"তুই ভ্যাবলাই আছিস। শোন আমার টাকা পয়সার দরকার নেই। উল্টে তুই যদি হেল্প করিস বাবাকে বলে বাবার পাঁউরুটি কারখানায় ঢুকিয়ে দেব।"
এইবার আমাকে সিরিয়াস হতেই হলো। আমাদের বাড়ির সামনের মাঠে রাখা ঝাঁ চকচকে লাল ইনোভাতে উঠে পড়লাম।
.
এখন আমি তিন্নির সাজানো প্রেমিক। ওর পরিচিতের মধ্যে আমিই সবচেয়ে কুচ্ছিত তাই আমিই সিলেক্ট হয়েছি। ওকে অনীক নামের কোনও এক রূপবান যুবক ল্যাং মেরে অন্য একজন মেয়ের সঙ্গে প্রেম করছে তাই ও বদলা নেওয়ার জন্য অনীককে দেখিয়ে আমার মতো কদাকারের সঙ্গে প্রেম করছে।
খুড়োর কলের মতো আমার সামনে পাঁউরুটি কারখানার চাকরিটা ঝুলে আছে। আমি মিছিমিছি প্রেম-প্রেম খেলছি তিন্নির সঙ্গে। ভাগ্যিস আমি কদর্য -কুৎসিত তাই তো তিন্নির আমার কথা মনে পড়েছে।
আজ রেস্টুরেন্ট কাল মুভি পরশু পার্ক তরশু শপিং মল করতে করতে কাটছে আমার। তিন্নির মতো ঝিংচাক সুন্দরীর পাশে আমার মতো এক পিস ওরাংওটাং দেখে সবাই সাংঘাতিক রেগে যাচ্ছে, আওয়াজ দিচ্ছে...
.
মাস খানেক এইভাবে চলার পরে একদিন তিন্নি এসে এমন ভাবে হাত ছুঁড়ল অলিম্পিকে সোনা জেতার পর খেলোয়াড়েরা ঠিক এভাবেই হাত ছোঁড়ে।
বলল, "আমি জিতেছি। কাল থেকে অনীক বারবার ফোন করে যাচ্ছে। প্রথমে ধরিনি একান্নটা কল কেটে তারপর ধরেছি। বলল, আমি থাকতে মুক্তোর মালা কোনও বাঁদরের গলায় কেন ঝুলবে? "
.
আমি ভাবলাম যাক বাঁচা গেল। বললাম, "তোর কাজ তো হয়ে গেল এবার আমারটা করে দে।"
--"চ্যাপ্টা তোর কী মন বলে কিছু নেই? তোর একটুও মনে হচ্ছে না যে আর আমাদের দেখা হবে না। তোর খারাপ লাগছে না? কষ্ট হচ্ছে না?"
আমি কী করে বলি, তিন্নি তুই ব্যাপক ইমোশনাল তাই এখন এসব বলছিস। আসলে কী জানিস? তুই হলি আমার কাছে কোনও বলিউডি নায়িকার মতো অন্য গ্রহের জীব, যাকে দূর থেকে দেখে ফিদা হওয়া যায়, যার ছবি ঘরের দেয়ালে চিপকানো যায়...ব্যাস ওই পর্যন্ত। তুই পূর্ণিমার চাঁদ আর আমি পারভেজের সাইকেল সারাইয়ের দোকানের মিটমিটে বাল্ব।
.
একটু চুপ করে থেকে তিন্নি বলল, "আমি অনীককে কী উত্তর দিয়েছি জানিস? বলেছি বাঁদরের গলাতেই মালাটা এতদিন ছিল এখন বরঞ্চ মানুষের গলায়। জানিস প্রথম প্রথম তোকে আমার ঘেন্না লাগত। আমি তোর মুখের দিকে তাকাতে পারতাম না। তারপর তোর সঙ্গে কিছুদিন সময় কাটানোর পর কী যে হল! এখন আর তোর মুখটা খারাপ লাগে না। বিশ্বাস কর তোকে দেখার জন্য মনটা এখন হেবি ছটফট করে।"
.
হঠাৎ আমি দমকলের ঘন্টা শুনতে পেলাম। চ্যাপ্টাদের স্বপ্ন দেখতে নেই...নেই!
ড্রাইভারকে গাড়ি থামাতে বললাম। তারপর তিন্নিকে হতভম্ব করে দিয়ে গাড়ি থেকে নামতে গেলাম।
কিন্তু পারলাম না... তিন্নি আমার হাতটা ধরে আছে।
গাড়ি আবার চলতে শুরু করল। আমি ভাগ্যের হাতে নিজেকে সঁপে দিয়ে সিটে গা এলিয়ে দিলাম। তিন্নির মাথা নেমে এল আমার কাঁধে।
গাড়িটা হঠাৎ একটা ইউটার্ন নিল... আমার জীবনটার মতোই...
(পুরোনো লেখা। আগে এই ব্লগে দিয়েছি কিনা মনে পরছে না।)

মন্তব্য ১২ টি রেটিং +০/-০

মন্তব্য (১২) মন্তব্য লিখুন

১| ৩১ শে জুলাই, ২০২০ রাত ১২:৪৯

রাজীব নুর বলেছেন: না এটা আগে ব্লগে দেন নি।

০১ লা আগস্ট, ২০২০ রাত ১:২৫

গেছো দাদা বলেছেন: থ্যাঙ্ক ইউ।

২| ৩১ শে জুলাই, ২০২০ রাত ১:৩৮

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:

দাদা আজ কয় পেগ গিলেছো !!!
নাগি গাজায় দম নিয়েছো !!
গাজার নৌকা যায় পাহাড় দিয়া
তোমার নৌকাটা কোথা দিয়ে
যায় মালূম নেহি !!!

০১ লা আগস্ট, ২০২০ রাত ১:২৬

গেছো দাদা বলেছেন: আমাকে কেন আপনের নেশাখোর মনে হচ্ছে ??

৩| ৩১ শে জুলাই, ২০২০ সকাল ৯:১৩

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: যাচ্ছলে, দিলেন তো কেচে ;)

রম্য পড়তে এসে এক্কেবারে সিরিয়াস ইমোশন নিয়ে টানাটানি!
ইউটার্ন ফিলিংস নিয়ে লাইক :-B

হা হা হা

০১ লা আগস্ট, ২০২০ রাত ১:২৭

গেছো দাদা বলেছেন: ধন্যবাদ।

৪| ৩১ শে জুলাই, ২০২০ সকাল ১১:৫৩

মুজিব রহমান বলেছেন: শুভ কামনা।

০১ লা আগস্ট, ২০২০ রাত ১:২৮

গেছো দাদা বলেছেন: আপনিও ভালো থাকুন ।

৫| ৩১ শে জুলাই, ২০২০ দুপুর ১২:৩৯

সাড়ে চুয়াত্তর বলেছেন: আপনার তো মেঘ না চাইতেই বৃষ্টি মনে হচ্ছে। তবে দুই বাংলার সিনেমার সাথে মিল আছে। সিনেমা দেখা কমাতে হবে।

০১ লা আগস্ট, ২০২০ রাত ১:৩০

গেছো দাদা বলেছেন: আপনার এই নিক নামে একটা সুপারহিট বাংলা সিনেমা আছে। আমার খুব প্রিয় ।

৬| ৩১ শে জুলাই, ২০২০ দুপুর ১২:৪৬

শাহ আজিজ বলেছেন: মক্কায় খুতবা হচ্ছে , তার বাংলাও বর্ণনা করছে কেউ ।

শুনছি আর চ্যাপ্টার গল্পটা পড়ছি । যাক , পেয়ে গেছে নারী আর গাড়ি একসাথে । ঝাক্কাস ।

এরা কতদিন একসাথে থাকবে ??

৭| ০২ রা আগস্ট, ২০২০ রাত ১:০৯

মা.হাসান বলেছেন: আগে দিয়েছিলেন, তবে শেষটা আলাদা ছিলো, শেষটা মনে হয় এরকম ছিলো- চ্যাপ্টা গাড়ি থেকে নামার সময় ভাবছে- চ্যাপ্টাদের স্বপ্ন দেখতে নেই।
আগের ভার্সনটাই বাস্তব সম্মত।

যা হোক, বাংলাদেশে দাওয়াত রইলো, আসলে নূরু ভাই আর আপনি দুজনে বোতল নিয়ে বসেন, আমি রেফারি থাকবো। B-))

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.