নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

আমি একজন বাঙ্গালি। বাংলা আমার ভাষা, নিভৃত আবাস ও অহংকার। \n\n বিঃ দ্রঃ- ব্লগে ছন্দ নামে দ্বন্দ্ব নাই।

কবি হাফেজ আহমেদ

অসাধারণ মানুষগুলো সাধারণ হয়, অতিসাধারণ মানুষগুলো মানুষ হ্য়, মানুষ হতে হলে সাধারণ হতে হয়। হাফেজ আহমেদ

কবি হাফেজ আহমেদ › বিস্তারিত পোস্টঃ

"মাটি মা" (বাংলা সাহিত্যের ইতিহাসে এমন বই প্রথম।)

২২ শে মার্চ, ২০২১ সকাল ১০:৪৬




প্রকাশিত হলো বাংলা ভাষার প্রথম একক গবেষণাধর্মী বর্ণপ্যালিন্ড্রোম কাব্যগ্রন্থ "মাটি মা"। বইটিতে ৪৪ ধরণের ৫৫ টি কবিতা বাংলা ভাষায় প্যালিন্ড্রোম ভার্সনে প্রথম নিয়ে আসা হয়েছে। "মাটি মা" বইটির মূল আকর্ষণগুলোর মধ্যে রয়েছে ব্যাখ্যাসহ বাংলাদেশে বাংলায় লেখা প্রথম বর্ণপ্যালিন্ড্রোম কবিতাটি, প্যালিন্ড্রোম সনেট, এক্রোস্টিক, প্যানগ্রাম, হাইকু, তানকা, রুবাইয়াৎ, বহুবিধ প্যালিন্ড্রোম, গান, গজল, কীর্তন, ছড়া, পদ্য, গদ্য, স্বরবৃত্তে, মাত্রাবৃত্তে ও অক্ষরবৃত্তে প্যালিন্ড্রোম ইত্যাদি। যার সবগুলোই প্যালিন্ড্রোম ভার্সনে বাংলায় প্রথম নিয়ে আসা হয়েছে।

বইয়ের ধরণ:- প্যালিন্ড্রোম কাব্যগ্রন্থ
প্রচ্ছদ :- মোহাম্মদ মোরসালিন
উৎসর্গ:- ফরিদ উদ্দিন
প্রকাশনী:- বেহুলা বাংলা প্রকাশনী।
স্টল নং- ৫২১, ৫২২ এবং ৫২৩ নং স্টল।
বিনিময়:- ১৫০ টাকা (২৫% ছাড়ে)


"মাটি মা" কাব্যগ্রন্থ হতে নেওয়া নিচের কবিতাটি শুরু হতে শেষ পর্যন্ত এবং শেষ হতে উল্টো শুরু পর্যন্ত পড়ে পড়ে আসলে একই রকম হবে।



"মাটি মা" কাব্যগ্রন্থ হতে নেওয়া নিচের কবিতাটির প্রতিটি চরণ ডানদিক হতে বামদিকে এবং বামদিক হতে ডানদিকে পড়ে আসলে একই রকম হবে।



আপনাদের ভালোবাসা এবং উৎসাহ উদ্দীপনা পেলে বাংলা সাহিত্যে প্যালিন্ড্রোমকে নিয়ে যাবো এক অনন্য উচ্চতায়।

মন্তব্য ৪ টি রেটিং +২/-০

মন্তব্য (৪) মন্তব্য লিখুন

১| ২২ শে মার্চ, ২০২১ সকাল ১১:২৮

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: আপনার জন্য শুভকামনা

২৩ শে মার্চ, ২০২১ রাত ৮:১০

কবি হাফেজ আহমেদ বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ আপনাকে। হৃদয় নিংড়ানো সবুজ ভালোবাসা ও হার্দিক শুভ কামনা রইলো কবি।

২| ২২ শে মার্চ, ২০২১ সকাল ১১:৩৪

রাজীব নুর বলেছেন: উতসর্গ ফরিদউদ্দিন। উনি কে তার সম্পর্কে কিছু বলুন।

২৩ শে মার্চ, ২০২১ রাত ৮:১৫

কবি হাফেজ আহমেদ বলেছেন: উনি একজন প্যালিন্ড্রোম গবেষক। জনাব ফরিদ উদ্দিন ভাইয়ের কাছ থেকেই আমি সর্ব প্রথম জানতে পেরেছিলাম যে বাংলাদেশে আজ পর্যন্ত কেউ একটি বর্ণ প্যালিন্ড্রোম কবিতাও লিখতে পারেনি। তখনই শুরু করি প্যালিন্ড্রোম নিয়ে বাংলায় গবেষণা। উনার একটি পোস্ট ছিলো এমন যে "যারা নতুনের খোঁজ করে না, একদিন পৃথিবীও তাঁদের খুঁজবে না।" উক্তিটি যদিও অন্য একজন বিখ্যাত মনিষীর তবুও এই একটি উক্তির উপর বিশ্বাস রেখেই শুরু করি নতুন কিছু গবেষণা। তরাপর একে একে বাংলা ভাষার প্রথম প্যালিন্ড্রোম কবিতা, গান, গজল, কীর্তিন, সনেট, এক্রোস্টিক, প্যানগ্রাম, গল্প, হাইকু, তানখা, লতিফা, লিমোরিক, বহুবিধ প্যালিন্ড্রোমসহ ৪৪ ধরনের কবিতা নিয়ে "মাটি মা" বইটি সম্পন্ন করি। এ পথে চলতে ফরিদ উদ্দিন ভাই আমাকে সর্বদা অনুপ্রাণিত করেছেন। বর্তমানে প্যালিন্ড্রোম লেখার যে কৌশলগুলো আমি আবিষ্কার করেছি তা দিয়ে যে কেউ খুব সহজে প্যালিন্ড্রোম লিখতে সক্ষম হবে। অনেক ধন্যবাদ আপনাকে।  আন্তরিক ভালোবাসা গ্রহণ করুন প্রিয়জন।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.