নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

যে কোনো ভূমিকায় সমানে লড়ে যাই, আপনি যেমন চান আমি ঠিক তাই।

নান্দনিক নন্দিনী

লেখালেখি হচ্ছে প্রেমে পড়ার মতন একটা ব্যাপার, কোনো ধরনের কর্তৃত্ব জাহির করা নয়।

নান্দনিক নন্দিনী › বিস্তারিত পোস্টঃ

প্রেমে পড়া একটি প্রয়োজনীয় পাপ…

২৮ শে জানুয়ারি, ২০১৯ রাত ৯:৩৯




'একদিন একটি লোক এসে বললো, 'পারো?'
বললাম 'কী?'
'একটি নারীর ছবি এঁকে দিতে'। সে বললো আরো,
'সে আকৃতি
অদ্ভুত সুন্দর, দৃপ্ত নিষ্ঠুর ভঙ্গিতে
পেতে চাই নিখুঁত ছবিতে।'
'কেন?' আমি বললাম শুনে।
সে বললো, 'আমি সেটা পোড়াব আগুনে।'

আমি যে ইরতেজাকে প্রেমিকের নজরে দেখি এতে ইরতেজার কোনো দোষ নেই। আবার ইরতেজা সাহেব যে আমাকে ভালোবাসেন না, সেখানে আমারইবা দোষ কোথায় বলুন। ইরতেজা আমায় জোর করেন নি, বরং বলা ভালো তিনি আমায় জয় করে নিয়েছেন। সম্বোধন বদলায় সম্পর্কের তাপমাত্রা অনুযায়ী। আপাতত তাকে আমি ইরতেজা বলেই ডাকি, কেমন? নতুন প্রেম পুরনো স্মৃতিকে সহনীয় করে তোলে। এই যেমন নিত্য আনন্দের হাটে শোক চিহ্ন বেশিদিন থাকে না। প্রেমে পড়াকে যন্ত্রণাদায়ক সময় খরচের একটা উপায় বলা যেতে পারে। জীবনের স্টেশন হয়তো বার বার আসে না তবে প্রেম আসে। সেকারণেই প্রেমিকের প্রতি লয়াল থাকতে হয়। এই যেমন ইরতেজা ছাড়া আমি আর কাউকে দেখছি না। আজকাল আমি চোখ মেলে অন্ধকার খুঁজি অথবা ইরতেজাকে। ভালো না বেসেও ভালোবাসার অভিনয় করে জীবন কাটানো যায়, কিন্তু ভালোবেসে ভালোবাসি না বলে থাকা যায় না!

আমরা সম্ভবত সেটাই ভাবতে চাই যা ভাবতে আমাদের ভাল লাগে। অথবা ভাল লাগে বলেই আনন্দ নিয়ে নিরবিচ্ছিন্নভাবে ভেবে যাই। আমি মানবিক বিভাগের শিক্ষার্থী ছিলাম। তবে বিজ্ঞানে আমার অগাধ বিশ্বাস। বিজ্ঞানের বিক্রিয়া টার্মটার থেকে জ্ঞান ধার করে বলি, আমরা জানি অনুপাত ঠিক রেখে হাইড্রোজেন ও অক্সিজেন মেশালেই পানি হয়। কিন্তু বিজ্ঞান তার পূর্বশর্তে বলে, পারিপার্শ্বিক পরিবেশ অনুকূলে থাকলেই কেবল গবেষণাগারে উক্ত বিক্রিয়াটি কাজ করতে পারে। এবার আসি মূল কথায়। দু'জন মানুষ একে অপরকে ভালোবাসলেই যে বিয়ে হবে এমনটা নাও হতে পারে। আর বিয়ে না হলেই যে একে অপরের শত্রু হয়ে যেতে হবে; বিষয়টা তেমনও নয়। বৈবাহিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে পারিপার্শ্বিক পরিস্থিতি বেশ বড় এবং গুরুত্বপূর্ন একটি ফ্যাক্টর। বিয়ের লক্ষ্য নিয়ে প্রেম করা, ব্যাগে টাকা নিয়ে শপিং করতে যাওয়ার মতো। প্রেম এনজয় করতে হলে সেই প্রেমটা হোক প্রেম। বিয়ে করলে সামাজিক স্বীকৃতি মিলে ঠিক আছে, তাই বলে প্রেমের পরিনতি বিয়ে হতেই হবে; কেন? যদিও আমাদের সমাজে বিয়ের জন্য প্রেমের উদাহরণ অসংখ্য। 'বিবাহ না করিয়া ঠকা ভাল, বিবাহ করিয়া ঠকিলেই মুশকিল'- চোখের বালি উপন্যাসটা পড়ে দেখতে পারেন।

প্রেম থেকে সেকে নিতে হয় পুরনো হৃদয়। সম্রাটের মতো উদারতার সাথে সাথে প্রেমে থাকতে হয় আপোষহীন রাজকীয় রুচির পরিচয়। প্রেমে থাকে নিজের ইচ্ছার বিরুদ্ধে এগিয়ে যাওয়ার আনন্দ। যারা শ্রীকান্ত উপন্যাসটা পড়েছেন তারা হয়তো মনে করতে পারবেন উপন্যাসে একটা লাইন আছে এমন, পুরুষরা দুইজন নারীর সামনে স্বেচ্ছায় মাথা নত করেন একজন তার মা, অন্যজন তার ভালোবাসার নারী। প্রতিটি মানুষের হৃদয় স্বতন্ত্র, বিশ্বাস ভিন্ন। তবে নিরাশ্রয় প্রেমের প্রতি আমার রয়েছে প্রবল আপত্তি।

‘চলতি বসন্তে আমাদের বন্ধুত্ব দু’জনের
আসছে বসন্তে আমরা দ্বিগুন হবো
অতঃপর আবার’- প্রেমের অনুভূতি সবসময় ইতিবাচক দিকে বৃদ্ধিপ্রাপ্ত হয়। এবার তবে গাণিতিক একটা বিষয় বলি। বিয়োগ এবং ভাগ যেহেতু সংখ্যার মান কমায়, তাই আলোচনাটা হোক যোগফল এবং গুনফল নিয়ে।
২+২=৪
২*২=৪
২ এবং ২ কে কিছু না করে পাশাপাশি রেখে দিন। ২২ কত হয়? ঠিক ধরেছেন ২২। কিছু না করেও পাশাপাশি থাকুন, ভালোবাসা থাকবে আজীবন।

সুমন চট্টোপাধ্যায়ের একটা লেখা আছে এমন, ‘খোদার কসম আমি রবীন্দ্রনাথকে ঈর্ষা করিনা, ঈর্ষা করি রুদ্র মুহাম্মদ শহিদুল্লাহকে, তার লেখা দুটো চরণের জন্য। চরণ দুটো হল “ভাল আছি ভাল থেকো, আকাশের ঠিকানায় চিঠি লিখো”’। আমি ঈর্ষা করি আরণ্যক বসুকে, তার লেখা দুটো লাইন দিয়ে আজকের লেখার ইতি টানা যাক-
‘এ জন্ম কেটেই গেলো অসম্ভবের অসঙ্গতে
পরের জন্মে মানুষ হবো
তোমার ভালোবাসা পেলে
মানুষ হবোই- মিলিয়ে নিও!’







মন্তব্য ২০ টি রেটিং +৪/-০

মন্তব্য (২০) মন্তব্য লিখুন

১| ২৮ শে জানুয়ারি, ২০১৯ রাত ১১:৩৮

নষ্টজীবন® বলেছেন: ভালোবাসার দারুণ গানিতিক হিসাব দিয়েছেন ভাই, ভালো লাগলো

২৯ শে জানুয়ারি, ২০১৯ রাত ১২:০৪

নান্দনিক নন্দিনী বলেছেন: ধন্যবাদ!

২| ২৯ শে জানুয়ারি, ২০১৯ রাত ১২:০১

রাফা বলেছেন: সবই বুঝলাম , প্রেম প্রেমের মতই থাকুক।আর বিয়ে ,সংসার তার মহিমায়।
এই ইরতেজাটা আবার কে?

সবশেষে কেমন আছেন ? না.নন্দিনী ।ধন্যবাদ।

০১ লা ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ রাত ১১:১৪

নান্দনিক নন্দিনী বলেছেন: ইরতেজা ছবির ভদ্রলোক! বাকিটা ইতিহাস।
আছি ভালোই। আপনার কী খবর?

৩| ২৯ শে জানুয়ারি, ২০১৯ রাত ১২:১৭

রাফা বলেছেন: আমি জিবন যখন যেমন ,ঠিক তেমনি আছি।নিজেকেই নিজে খুজি।

২৯ শে জানুয়ারি, ২০১৯ রাত ১২:৩০

নান্দনিক নন্দিনী বলেছেন: দোয়া দিলাম, পেয়ে যাবেন

৪| ২৯ শে জানুয়ারি, ২০১৯ রাত ১২:৪৪

মুক্তা নীল বলেছেন: প্রেমের ব্যাখ্যা সমীকরন ভালো করেই লিখেছেন । আর আমার মনে হয় কারো জন্য মন থেকে প্রেমে পড়া হয় পাপ, না হয় পূণ্য।
লেখাটায় প্রান আছে। শুভকামনা জানবেন।

২৯ শে জানুয়ারি, ২০১৯ রাত ১২:৪৬

নান্দনিক নন্দিনী বলেছেন: ধন্যবাদ !!

৫| ২৯ শে জানুয়ারি, ২০১৯ সকাল ৭:৫৯

রাজীব নুর বলেছেন: প্রেম ভালোবাসা আর সংসার তিনটা তিন জগত।

২৯ শে জানুয়ারি, ২০১৯ রাত ১০:২২

নান্দনিক নন্দিনী বলেছেন: অতি অবশ্যই :)

৬| ২৯ শে জানুয়ারি, ২০১৯ রাত ৮:১০

কাজী মাসউদ বলেছেন: কেউ যদি এমন সমীকরণে আপনার প্রেমে পড়ে তবে কি করবেন?

২৯ শে জানুয়ারি, ২০১৯ রাত ১০:৪১

নান্দনিক নন্দিনী বলেছেন: Good question, very good question.
And the answer is এই জীবনে কেউ আমার প্রেমে পড়েছে বলে সংবাদপত্রে কোনো সংবাদ পড়েছি বলে মনে পড়ছে না।

ধন্যবাদ কাজী মাসউদ।

৭| ৩০ শে জানুয়ারি, ২০১৯ সকাল ১০:০৭

কাজী মাসউদ বলেছেন: কোন প্রেমিক তার প্রেমের সংবাদটা সংবাদপত্রে পাঠাইনা। কিছু আলামত দেখে বুঝে নিতে হয়।

৩০ শে জানুয়ারি, ২০১৯ রাত ৮:৫৫

নান্দনিক নন্দিনী বলেছেন: কাজী মাসউদ ভাই, একমাত্র কেয়ামতের আলামত ছাড়া আর কোনো আলামত তো আমি দেখি না!
হা হা হা

৮| ৩০ শে জানুয়ারি, ২০১৯ সকাল ১১:৩১

নীল আকাশ বলেছেন:

৩০ শে জানুয়ারি, ২০১৯ রাত ৮:৫৭

নান্দনিক নন্দিনী বলেছেন: নীল আকাশ, আমার হাত মাশ-আল্লাহ মাত্রাহীন বাজে!
অথবা হাতের বাজে তাস ফেলে দিতে আমি বদ্ধপরিকর।

৯| ০১ লা ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ দুপুর ২:১১

বোকা মানুষ বলতে চায় বলেছেন: লেখার চাইতে শিরোনামটা বেশী উচ্চমার্গের মনে হল।

ভাল থাকুন সবসময়, ভাল থাকুক সকল প্রেমের পাত্রপাত্রীরা।

০১ লা ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ রাত ১১:০৪

নান্দনিক নন্দিনী বলেছেন: ধন্যবাদ বোকা মানুষ!

১০| ০১ লা ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ রাত ৮:৫৬

কাজী মাসউদ বলেছেন: অফ সাইডের বল অন সাইডে খেললে আউট হওয়ার সম্ভাবনা আছে।

০১ লা ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ রাত ১১:০৭

নান্দনিক নন্দিনী বলেছেন: সুসময়ে স্পিন বলেও ছক্কা পেটানো যায়। তার জন্য অবশ্য শচীন তেন্ডুলকারের মতো ধীর এবং অবিচল হওয়া চাই!

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.