নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

আমি আমার নিরক্ষর কিন্তু বুদ্ধিমতী মায়ের কাছ থেকে এই শিক্ষাই পেয়েছিলাম,যথাযথ কর্তব্য পালন করেই উপযুক্ত অধিকার আদায় করা সম্ভব। - মহাত্মা গান্ধী

পদাতিক চৌধুরি

হাই,আমি পদাতিক চৌধুরী।পথেঘাটে ঘুরে বেড়াই।আগডুম বাগডুম লিখি। এমনই আগডুম বাগডুমের পরিচয় পেতে হলে আমার ব্লগে আপনাদেরকে স্বাগত।

পদাতিক চৌধুরি › বিস্তারিত পোস্টঃ

তমোময়ী(পর্ব-২)

০৩ রা আগস্ট, ২০২১ বিকাল ৩:৪৮



সকাল থেকে ক্যামেরার পেছনে ছুটতে ছুটতে পড়ন্ত বেলায় একটু অবসন্ন হয়ে পড়ি।যদিও এই অবসন্নতায় শরীরের তুলনায় মনেরই অবদান ছিল অনেকটাই বেশি। হাঁটতে হাঁটতে বারেবারে লক্ষ্য যাচ্ছিল নদীর পারে বসে থাকা কপোত-কপোতিদের দিকে।আহা! কতই না সুখি ওরা। যৌবনে একটা প্রেম না থাকলে জীবনটা বড্ড পানশে; একপ্রকার অর্থহীনও বটে। আপন মনে এসব ভাবতে ভাবতে শ্রেয়সীকে অনুসরণ করতে থাকি। স্বভাবতই এমন ভাবনা থেকেই লোভাতুর হৃদয়ে বারংবার অনুরণিত হচ্ছিল প্রেম নাই বা হোক,শ্রেয়সীর সঙ্গে একটু অবসর কাটানোর বাসনা। এমন দিবাস্বপ্নকে প্রশ্রয় দিতেই চলারও একটু ছন্দপতন ঘটে।শ্রেয়সীর সঙ্গে দূরত্বটা সেকারণে বেশ কিছুটা বেড়ে যায়।

এরই মধ্যে একবার দূরে দৃষ্টি চলে যায়।দেখি শ্রেয়সী রাস্তা থেকে নেমে তীর বরাবর হাঁটছে। সামনে একটা বিশালাকারের কচ্ছপ মরে পড়ে আছে।হয়তো কচ্ছপটাকে দেখেই সেদিকে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।নদী পাড়ে এতবড় কচ্ছপ পড়ে থাকতে দেখে বেশ অবাক হলাম।পরে স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জেনেছি, সমুদ্র বা নদী বন্দরে এমন ভাবে পড়ে থাকতে নাকি ওদেরকে প্রায়ই দেখা যায়। মৎস্যজীবীদের জালে জড়িয়ে যাওয়ার কারণে বা ট্রলারের পাখায় আঘাতপ্রাপ্তের কারণে কাসিমদের এমন দুর্গতি নাকি প্রায়ই ঘটে থাকে। যাইহোক শ্রেয়সী ইতিমধ্যে কাসিমের অনেকটা কাছে পৌঁছে যায়। দুই হাতে তাক করে ধরা প্রমাণ সাইজের ক্যামেরাটি নিয়ে ওকে মহা ব্যস্ত বলেই মনে হলো। পৃথিবীর কোনো শক্তিই ওকে নিবৃত করতে পারবে বলেও মনে হলো না। আশেপাশে বেশ কিছু সারমেয়কেও দেখা যাচ্ছে পাশে বসে বা দাঁড়িয়ে আছে। কি মজাটাই না ব্যাটাদের; যেন মহাভোজের আসর বসিয়েছে। দৃশ্যটা নিঃসন্দেহে দুর্লভ বৈকি।অন্তত আমার মতো আনাড়ির চোখকে কিছুটা হলেও যে নাড়িয়ে দিয়েছিল। সেখানে শ্রেয়সীর মতো ফটোগ্রাফারদের তো চাঁদ হাতে পাওয়ারই কথা। ওর আগ্রহ দেখে মনে হলো প্রভাতের সূর্যোদয় না দেখতে পাওয়ার যাতনা বেচারী যেন ষোল আনাই পুষিয়ে নিয়েছে।

ভাবতে না ভাবতেই হঠাৎ কানে আসে একটা অস্বাভাবিক চিৎকার। দূরে তাকিয়ে দেখি শ্রেয়সী হাউমাউ করতে করতে ছুটে আসছে। উল্লেখ্য শুরুতে কয়েক সেকেন্ডের জন্য আমিও একটু হতভম্ব হয়ে যাই। ওদিকে আশপাশের কয়েকজনকে ওর দিকে ছুটে যেতে দেখে চোখ যায় পিছনে বিরাট বপুর একটি কুকুরের দিকে। দেশি কুত্তা হলেও আকারে বিদেশীদের মত। বাঘের মত রে রে করে ছুটে আসছে কুকুরটি।আর এক মুহূর্তও সময় নষ্ট না করে আমিও প্রবল বিক্রমে এগিয়ে যাই ওদিকে।হাতের ব্যাগটা উঁচিয়ে ধরতেই ব্যাটা থমকে দাঁড়ায় ঠিকই। কিন্তু রাগে গজগজ করতে থাকে। আশেপাশের কয়েকজন লোকও ততক্ষণে চলে আসেন। সবারই মুখে একটাই কথা,
-ম্যাডাম কামড় দেয়নি তো কুকুরটি আপনাকে?
শ্রেয়সী তখন কথা বলার মতো অবস্থায় ছিল না। চোখ বন্ধ করে গাল হা করে জোরে জোরে শ্বাস নিতে থাকে।কারো কোনো কথা ওর কানে ঢুকছে বলে মনে হলো না। হাঁপাতে হাঁপাতে ঝপাং করে নীচে বালিতে হুমড়ি খেয়ে বসে পড়ে। কাছেই জলের বোতল ছিল। এগিয়ে ধরলাম ওর দিকে। কিন্তু নাহা! কোন সাড়া দিল না; চোখ বন্ধ করে রইলো। উপস্থিত কয়েকজন চোখে জলের ঝাপটা দিতে পরামর্শ দিতেই আর ওর অপেক্ষায় না থেকে সেটাই করে ফেলি। তিন-চার বার জলের ঝাপটা দিতেই এবার চোখ তুলে চেয়ে থাকে আমার দিকে।
-কি হচ্ছে তোর? ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাবো? জিজ্ঞেস করতেই হাত ইশারা করে ওসবের দরকার নেই বলে জানিয়ে দেয়। উপস্থিত কেউ কেউ ওর কাছে জানতে চাইলো চিকিৎসার ব্যবস্থা করবে কিনা...
ও আগাগোড়াই এসব প্রশ্নের উত্তরে নিরব থেকে গেলো।
একসময় অত্যুৎসাহী জনতার প্রশ্নবাণ বন্ধ হয়।তারা এখন নিরব দর্শকের ন্যায় সামনে দাঁড়িয়ে থাকলেন।
খানিক বাদে চোখে মুখে যন্ত্রণাক্লিষ্ট শ্রেয়সী অতিকষ্টে মুখে একঝলক শুকনো হাসি নিয়ে তাদেরকে ধন্যবাদ জানিয়ে বললো,
- আপনাদের সকলের কাছে আমি চিরঋণী ও ক্ষমাপ্রার্থী। আপনারা যেভাবে আমার সাহায্যার্থে এগিয়ে এসেছেন তাতে আমার কৃতজ্ঞতা জানানোর ভাষা নেই। কিন্তু শুরুতে আমি কথাবলার মতো অবস্থায় ছিলাম না। প্রচন্ড শ্বাসকষ্ট হচ্ছিল। দম নিতে পারছিলাম না। আপাতত অনেকটাই কাটিয়ে উঠেছি। সঠিক সময়ে আপনারা না এলে হয়তো বড় ধরনের বিপদ হয়ে যেতো। কুকুরটি আজ আমাকে খুবলে খেয়েই ফেলত। বিষয়টা ভেবে এখনো আমার গা শিউরে উঠছে। অসংখ্য ধন্যবাদ দাদা আপনাদেরকে,বলে জোড়হাতে আরও একবার প্রণাম করতেই উপস্থিত লোকজন একে একে প্রস্থান করতে থাকে।

আমি এতক্ষণ একটু দূরেই দাঁড়িয়ে ছিলাম। লোকজন চলে যেতেই এবার ইশারায় কাছে ডাকে আমাকে।পাশে গিয়ে দাঁড়াতেই দুহাতে শক্ত করে আমার ডানবাহু ধরে ওঠার চেষ্টা করে।আমি সাধ্য মতো শালীনতা বজায় রেখে ওকে দাঁড়াতে সাহায্য করি। ওকে ধরে তুলতেই আমার হাতে যথেষ্ট বালি লেগে যায়। এতক্ষণ বালির উপর বসে থাকায় সারাগায়ে বালি মেখে একশেষ অবস্থা মেয়েটির। উল্লেখ্য ওর ক্যামেরাটা আগেই যথাস্থানে গুছিয়ে রেখেছিলাম।ভয় পেয়ে ক্যামেরা ফেলে ছুটেছিল। জানিনা বালির উপর ওভাবে পড়ে থাকা ক্যামেরাটি কতটা ভালো আছে। যাইহোক এক্ষণে ওর সারা গায়ে বালির কথা উল্লেখ করতেই ঝেড়ে দিতে বললো। আমি যতটা সম্ভব ওর শরীর স্পর্শ না করে বালি ঝাড়তে চেষ্টা করি। বিষয়টি ওর দৃষ্টি এড়ায় নি। অপ্রস্তুত করে জিজ্ঞেস করে,
-আমাকে তোর ভালো লাগেনা বকুল?
ওর মুখে এমন আদুরে কথায় আমি অপ্রস্তুত হয়ে যাই। নিজেকে সংযত রেখে বলি,
- এক কথায় এ উত্তর দেওয়া যাবে না। তবে এখন সেই পরিবেশ নেই।আগে সুস্থ হও।পরে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করা যাবে।

শ্রেয়সীর যন্ত্রণাক্লিষ্ট মুখচ্ছবি দেখে বুঝতে পারি সমস্যা ভয়াবহ। স্বভাবতই এমন আকস্মিক দুর্ঘটনায় গভীর দুর্ভাবনা আমাকে গ্রাস করে।গলা শুকিয়ে কাঠ হয়ে ওঠে।তাই ওর মুখে এমন প্রেমের কথায় যতটা পুলকিত হওয়ার কথা তা আমার হৃদয়কে ততটা আন্দোলিত করেনি। ইতিপূর্বে লক্ষ্য করেছিলাম বেশ কিছুটা দূরে পার্কের মধ্যে গাছের নীচে বেদি করা আছে। ওখানে বসার কথা বলতেই এককথায় রাজি হয়ে গেল।। কোনোক্রমে ধরলাম ঠিকই। কিন্তু পায়ের স্টেপিংয়ে ভয়ানক সমস্যা হচ্ছিল।যন্ত্রণায় চোখ মুখ বুজে কুচকিতে টান ধরেছে, বলতেই। অগত্যা দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে পায়ের নির্দিষ্ট স্থানটি একটু মেসেজ করতে লাগলাম। বেশ কিছুক্ষণ পর এবার একটু শক্তি পেলো।বলল,
- একটু ধর দেখি হাঁটতে পারি কিনা...
আমি হাত ধরতেই ধীরে ধীরে সন্তর্পনে পা ফেলতে লাগল। অনেকটা সময় নিয়ে এক সময় পৌঁছে যায় পার্কের ভেতরে।ভারী শরীরের ভরটি জায়গায় জায়গায় আমার উপর সম্পূর্ণ ছেড়ে দিয়েছিল। বাস্তবে বুঝতে পারলাম ওর মতো ডেভেলপ ফিগারের নারীকে এভাবে হাটিয়ে নিয়ে যাওয়া কতটা কষ্টকর। সম্ভবত আমার অসুবিধায় কয়েকজন উৎসুক ব্যক্তি ওর অন্য হাতটি ধরবে কিনা জানতে চাইলে ও বিনয়ের সঙ্গে প্রত্যাখ্যান করে। গাছের বেদীতে বসিয়ে দিতেই ও পা লম্বা করে সঙ্গে সঙ্গে সটান হয়ে শুয়ে পড়ে।ওর এমন আচরণে আমার চিন্তা আরও বেড়ে যায়। বুঝতে পারি বড় ধরনের কিছু একটা নিশ্চয়ই হয়েছে। নইলে ওর মত লৌহ কাঠিন্যের মেয়ে আজ এতটা ভেঙে পড়বে কেন।একটু আরাম পায় কিনা ভেবে জিজ্ঞেস করি,
- সোয়েটারগুলো দেবো?ওর উপর মাথাটা রাখবি? বেশ আরাম পাবি।
ও আগ্রহ দেখালো না।উল্টে পাশে বসার ইঙ্গিত করলে ওর গায়ে গা ঠেকিয়ে বসে পড়ি। উল্লেখ্য গায়ে গা লাগাতেই মনের সাহস যায় অনেকটাই বেড়ে। চক্ষুলজ্জার মাথা খেয়ে জিজ্ঞেস করি,
আমার কোলে মাথা রাখবি?
এবার ও একটা মিষ্টি হাসি দিয়ে তৎক্ষণাৎ মাথা নেড়ে সম্মতি দেয়। যেন এমনটির জন্যেই ও এতক্ষণ অপেক্ষা করছিল।ওর এই সম্মতি আমাকে ভিতরে ভিতরে আনন্দে আত্মহারা করে তোলে।মনে মনে ভাবি এতটা সাহসী আমি হলাম কি করে।সযত্নে মাথাটা কোলে তুলে ভিতরে ভিতরে কুকুরটিকে ধন্যবাদ দিতে থাকি। ভাগ্যিস কুকুরটি ওভাবে ওকে তাড়া করেছিল।নইলে এ যাত্রায় ওকে পাওয়ার স্বপ্ন আমার অধরাই থেকে যেতো।


নদীর দিকে মুখ করে আমি আমার বাম উরুতে ওর মাথাটা ধরলেও ও আরো উপরে উঠে ডান উরু পর্যন্ত এগিয়ে আসে। ততক্ষণে ওর উন্নত ডান স্তনটি চেপে বসে আমার বাম উরুর উপরে। মূহুর্তে শরীরের ভেতর বিদ্যুৎ চমকিত হয়।নারী শরীরের চুম্বকত্ব এই প্রথম অনুভব করি। উফ! এক অনির্বচনীয় অনুভূতি। এক অসম্ভব ভালোলাগার আবেশে শরীর মন জুড়ে যায়। এবার ঘটলো ঠিক উল্টো ঘটনা।আমার একটি হাত ধরে ও মাথায় বিলি কাটতে বলে। কিন্তু আমার যে তখন পাথরের মূর্তির মত অবস্থা। কিন্তু কেমনে বলি ওকে সে কথা। ও চাইছিল আমি ওর সঙ্গে প্রাণ খুলে গল্প করি। কিন্তু ততক্ষনে আমার গলা শুকিয়ে যে কাঠ। বুঝতে পারি শরীরের তাপমাত্রা কয়েকগুণ বেড়ে গেছে। এদিকে ও সমানে চাপ দিতে থাকে, ওর সঙ্গে যেন কিছু গল্প করি। কিন্তু আমার পক্ষে তা অসম্ভব হয়ে উঠেছিল।ওর পীড়াপীড়ীতে আর সহ্য করতে না পেরে বলেই ফেলি সে কথা,
-আচ্ছা শ্রেয়সী আমারও তো তোর সঙ্গে গল্প করতে ভীষণ ইচ্ছা জাগে। কিন্তু এক্ষণে আমি তোর সঙ্গে গল্প করবো কেমনে? কেন বুঝতে পারছিস না যে আমি কাঠের পুতুল নই;একজন রক্ত মাংসের মানুষ। তোর স্পর্শে আমি নিজেকে স্বাভাবিক রাখতে পারছি না।
বুঝতেই পারি আমার অসহায়ত্ব যেন ওকে আনন্দিত করে। দুষ্টু একটা হাসি দিয়ে নাকটা টিপে দিয়ে,
- ও বুঝেছি,বলে আবার পাশ ফিরে রাস্তার দিকে মুখ করে শুয়ে পড়ে। এবার অন্য স্তনটি আমার ঊরুতে স্পর্শ করে। নিজেকে সংযত রেখে একহাতে মাথায় বিলি কাটতে থাকি অন্য হাতে ওর পিঠে বোলাতে থাকি। পিঠে হাত বুলিয়ে বুঝতে পারি ও অত্যন্ত আঁটোসাঁটো ব্রা পড়ে আছে।স্ট্রিপ দুটো যেন পিঠে পুঁতে বসে আছে। বিলি কাটতে কাটতে কিছুটা না জানার ছলে জিজ্ঞেস করি,
- আচ্ছা কুকুরটি তোকে তাড়া করলো কেনরে?
ভেবেছিলাম এতক্ষণে ও অনেকটাই স্বাভাবিক হয়ে গেছে। কিন্তু আমার ধারণা ঠিক ছিল না। হঠাৎ গম্ভীর হয়ে গেলো। একটু দম নিয়ে বলল,
-ওদের মধ্যে দুই-তিনটি কুকুর কচ্ছপটিকে ধরে টানাহেঁচড়া করছিল। আর এই কুকুরটি একটু দূরে শুয়ে ছিল। প্রথমদিকে সব ঠিকঠাক ছিল।ওরা ওদের মত কাজ করছিল আর আমিও বিভিন্ন অ্যাঙ্গেল থেকে ছবি তুলছিলাম। কিন্তু হঠাৎ করে এই কুকুরটি ঝাঁপিয়ে আসে আমার দিকে। আমি ভয়ে হাতের ক্যামেরা ফেলে পালিয়ে আসি।তার পরের ঘটনা তো তোরা দেখেছিস।
আমি পাল্টা বলি,
- ও হয়তো ভেবেছে তুই ওদের খাবারে বাধা দিচ্ছিস।
মুখে কিঞ্চিৎ শুকনো হাসি এনে জানালো,
-বলতে পারবোনা। আমি কুকুর বিশেষজ্ঞ নই।
বুঝতে পারি প্রসঙ্গটা তুলতেই ও হঠাৎ বদলে গেছে। পরিবেশটি থমথমে হয়ে গেল।আর সেটা হলো আমারই নির্বুদ্ধিতার জন্য।কেন যে ওকে কুকুরের প্রসঙ্গে জিজ্ঞেস করতে গেলাম ভেবে ধিক্কার দিতে লাগলাম নিজে নিজেকে। অপেক্ষায় রইলাম কত তাড়াতাড়ি ও আবার স্বাভাবিক হয়।

কথা বলার সময় ঘোমটা টানা এক মহিলাকে বার কয়েক সামনে ঘুরঘুর করতে দেখে বেশ অস্বস্তিতে পড়ি। ভদ্রমহিলা হাল্কা ঘোমটা টেনে আমাদের দিকে তাকাতে তাকাতে চলে গেলেন। ওনার অমন চাহনি আমাকে সন্দিগ্ধ করে তোলে। আবার একটা নতুন চিন্তায় পড়লাম। মনে মনে বললাম,
-কিরে বাবা! এতো লোক বসে আছে সেখানে না গিয়ে আমরা একদিন একটু বসার সুযোগ পেলাম আর সেই দিকেই ধাওয়া? কি জানি কি অভিসন্ধি।নাকি কোনো অশ্লীলতার দায়ে আবার নতুন করে কোনো ঝামেলায় পড়ি।
এসময়ে শ্রেয়সী বেশ কিছুক্ষণ চুপচাপ ছিলো।বকবক করছিলাম মূলত আমিই। কিন্তু হঠাৎ আমার নিরাবতা ওকে কৌতুহল করে তোলে। শুয়ে শুয়েই জিজ্ঞেস করে,
-কিরে এমন চুপসে গেলি কেন?
আমি ভদ্রমহিলার দিকে ইশারা করে বলি,
- এক ভদ্রমহিলা আমাদের লক্ষ্য করছেন। বারকয়েক সামনে দিয়ে গেলেন তাকাতে তাকাতে। ব্যাপারটা আমার ঠিক ভালো লাগছে না...
-হ্যাঁ আমাদের ফলো করছেন? বলে তেড়ে-ফুঁড়ে উঠে বসে।
ও উঠে বসতেই আবার দেখি ভদ্রমহিলা আবার আমাদের দিকেই আসছেন। এবার ঘোমটা অনেকটা কমিয়ে হাসি হাসি মুখে আমাদের সামনে চলে এলেন। বুঝতেই পারছি কিছু একটা বলতে চান। একদম সামনে এলে আমি জিজ্ঞেস করি,
-কিছু বলবেন?
- এ মনা তুই রণ না?
কি আশ্চর্য! এমন করে মনা বলে ডাক তো একমাত্র আমার বড় বুবুই ডাকে। হ্যাঁ আমার ডাকনাম রণ। ভায়ের নাম জয়। জমজ দুই ভাই জন্মেছিলাম কয়েক মিনিটের ব্যবধানে। মরণাপন্ন অবস্থায় থেকেও দুই ভাই বেঁচে গিয়েছিলাম। তাই বাবা-মা আমাদেরকে আদর করে রণজয় নাম দেয়। দুভাইয়ের চেহারায় মিল ছিল অদ্ভুত রকমের। ছোট থেকেই আত্মীয়-স্বজন থেকে শুরু করে পাড়াপড়শি বন্ধুমহলে সকলেই গুলিয়ে ফেলতো আমাদেরকে। আমাকে জয় ভাবতো বা জয়কে রণ মনে করত। শুধুমাত্র মা বাবা ও বড় বুবুই আমাদের সঠিকভাবে চিনতে পারতেন। স্কুলে স্যারেরা আগে থেকেই নাম জিজ্ঞেস করে পড়া ধরতেন।জয় একটু দুষ্টুমি করতে চাইতো। মাঝেমাঝে বলতো স্যারদেরকে ঘোল খাইয়ে নিজেদের পরিচয় একটু ঘুরিয়ে বলি। কিন্তু আমি রাজি হতাম না। দুই ভাইয়ের একই রকম দেখতে হওয়ায় বাস্তব জীবনে আমাদেরকে বেশ কয়েকবার খুবই সমস্যার মধ্যে পড়তে হয়েছিল। সে কথা না হয় বলবো আরেকদিন। যাইহোক এতদূরে ঘুরতে এসে নিজের পরিচয় এভাবে সঠিকভাবে উল্লেখ করায় ওনার পরিচয় নিয়ে আমিও বিস্ময়াভিভূত হয়ে পড়ি। তাই মনে পাহাড়সম জিজ্ঞাসা নিয়ে আমতা আমতা করে বলি,
- হ্যাঁ আপনি ঠিকই ধরেছেন আমি রণ। কিন্তু আপনাকে তো চিনলাম না?
-উমা! আমাকে চিনতে পারছিস না? আমি তোর রমিসা বুবু।
রামিসা বুবুর পরিচয়ে আমি আকাশ থেকে পড়ি। বুবু আবারো বলতে লাগলো,
-অন্যদিনের মত আজও সকালে মাছ সুখাচ্ছিলাম। হঠাৎ দেখলাম তুই মেয়েটির সঙ্গে নিয়ে ফটো তুলছিস। প্রথমে দেখে ভেবেছিলাম হয়তো অন্য কেউ হবে। মানুষের মত মানুষ হতেই পারে। বেশ কয়েকবার আড়চোখে দেখে মিল পেতেই সন্দেহ বেড়ে যায়। সকালে মাছ শুকানোর পর একটু বাজারে যেতে হয়। কিন্তু আজ আর বাজারে যেতে মন সায় দেয়নি।তাই কোনোক্রমে ঐসব কাজ সামলিয়ে খুঁজতে বেরিয়ে পড়ি তোদের সন্ধানে। তোরা যে পথে গেছিস সেই পথ বরাবর এগিয়ে আসি। আমার মন বলছিল যে করেই হোক তাদের খুঁজে বের করবোই। পার্কে এসে খুঁজতেই তোদের পেয়ে গেলাম। কিন্তু তোরা অন্তরঙ্গভাবে বসে থাকায় সামনে যেতে লজ্জা পাচ্ছিলাম। একটুখানি জানার জন্য মুখিয়ে ছিলাম যে তুই সত্যিই রণ কিনা। সেই সেদিনের ছোট্ট বাচ্চার সঙ্গে আজও মুখটা একদম একই রয়ে গেছে। একনাগাড়ে কথাগুলো বলেই বুবু আমার গায়ে মাথায় হাত বোলাতে থাকে। লক্ষ্য করি বুবুর মুখে যেন খই ফুটছে।তোরা দুইভাই আমার কি নেওটা ছিলি রে মনা।কি ভালোই না লাগতো ছোটবেলায় তোদেরকে।এ আল্লাহ! এ জীবনে যে আবার তোদের দেখা পাবো ভাবতে পারিনি।
আমি হাসিহাসি মুখে বুবুর মুখের দিকে তাকিয়ে থাকি। লক্ষ্য করলাম বুবু কথা বলার মাঝে বারবার শ্রেয়সীর দিকে তাকিয়ে মুচকি হাসছে। এবার ওকে জিজ্ঞেস করে,
- কি নাম ভাই তোমার?
-শ্রেয়সী গুপ্তা।
বুবু অতি সরল্যে আবার ওকে জিজ্ঞেস করে,
- আমার ভাইকে বিয়ে করবে তো?
শ্রেয়সী লজ্জায় মুখ নীচু করে হাসতে থাকে। আমিও খুব অস্বস্তিতে পড়ে যাই। এদিকে বুবুকে দেখে আমার মনে তখনো হাজার প্রশ্ন।
- আচ্ছা বুবু তোমার তো সেই ছোট্ট বেলার মুজাহিদের সঙ্গে বিয়ে হয়েছিল। কিন্তু এখন তুমি এখানে এলে কেমনে?
আমার কথা শেষ না হতেই,
- সে হাজারো কথা রে মনা,বলে একটা দীর্ঘশ্বাস ফেলে। আমরা সকলেই সাময়িক চুপ করে থাকি। বুবু আবারো বলতে লাগলো,
- আমার জীবনের কথা একদিনে বলে শেষ হবে না মনু।

সম্ভবত আমরা তখন ক্লাস ওয়ানে পড়ি তখন বুবুর বিয়ে হয়ে যায়।রমিসা বুবু ছিল আমার বড় বুবুর বান্ধবী। সারাক্ষণ আমাদের বাড়িতেই পড়ে থাকত। আমরা জমজ দুই ভাই ছিলাম বড়বুবুর নেওটা।সেই সূত্রে রমিসা বুবুও ছিল আমাদের অত্যন্ত প্রিয়। তারপরে হঠাৎ একদিন শুনি বুবুর বিয়ে। আমাদের নেমন্তন্ন করেছিল বুবুর আব্বা। কিন্তু আমার আব্বা আমাদেরকে ওখানে খেতে যেতে দেয়নি। খুব রাগ হয়েছিল আব্বার উপর। শুনেছিলাম দুলাভাইয়ের বাড়ি নাকি বাংলাদেশের কালীগঞ্জে। উনি ছিলেন একজন মুজাহিদ। মুজাহিদের চাকরিতে নাকি প্রচুর পয়সা। সাথে নাকি দেশ-বিদেশে ঘোরার ব্যাপক সুবিধা। যেমন পয়সাকড়ি ছিল দুলাভাইয়েরও। খুব ধুমধাম করে বুবুর বিয়ে হয়েছিল। বিয়ের যাবতীয় খরচ পাতি নাকি দুলাভাই বহন করেছিলেন। এমন জামাই ভাগ্য গ্রামের অন্যকারো ছিল না। গোটা গ্রামের লোক বুবুর বিয়েতে কব্জি ডুবিয়ে খেয়েছিলেন। খুব সুনাম হয়েছিল দুলাভাইয়ের। এমন একজন মুজাহিদের সঙ্গে বিয়ে দেওয়ায় রমিসা বুবুর আব্বা ছিলেন খুবই গর্বিত। প্রচুর গয়নাগাটিও দিয়েছিলেন বুবুকে। বহুদিন গ্রামবাসীদের মুখে লেগে ছিল সে কথা। গ্রামের মধ্যে একমাত্র আমার আব্বাই ছিলেন এই বিয়ের ঘোরতর বিরোধী। অচেনা অজানা মুজাহিদের হাতে মেয়ে তোলা ঠিক হয়নি বলায় বুবুর আব্বা লোকমান চাচা আমার আব্বাকে দুকথা শুনিয়েছিলেন। আরো বলেছিলেন, আমার আব্বা ঈর্ষাবশত এইবিয়ের বিরোধিতা করছেন।তারপর থেকে বুবুদের বাড়ির সঙ্গে আমাদের কথাবার্তাও বন্ধ হয়ে যায়। আজ এত বছর পর চোখের সামনে সেই বুবুকে দেখে যেন বিশ্বাসই হচ্ছিল না। ঘোমটার মধ্যে থেকে ফর্সা সুমুখশ্রী টিকালো নাক তার যৌবনের লাস্যময়ীতা তুলে ধরেছিল ঠিকই কিন্তু পরিহিত বেশভূষা বুবুর দারিদ্রতার পরিচয় বহন করছিল।
কথা বলতে বলতে কত সময় যে চলে গেছে তার খেয়াল ছিল না।শ্রেয়সী একটু তাড়া দিতেই পশ্চিম দিগন্তে তাকিয়ে দেখি রক্তিম দেব ততক্ষণে অনেকটাই দিগন্তরেখার দিকে ঢলে পড়েছে। আসার সময় বুবুকে কথা দিতে হল দু-একদিনের মধ্যে আবার যাব ওনার সঙ্গে দেখা করতে।



বিশেষ দ্রষ্টব্য:-কিছু টাইপো থাকতে পারে সময় নিয়ে ঠিক করব।

মন্তব্য ৫৪ টি রেটিং +১৫/-০

মন্তব্য (৫৪) মন্তব্য লিখুন

১| ০৩ রা আগস্ট, ২০২১ বিকাল ৩:৫৪

হাবিব বলেছেন: পোস্ট সম্পর্কে পরে বলবো

০৩ রা আগস্ট, ২০২১ বিকাল ৪:০৪

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: অপেক্ষায় রইলাম।সময় নিয়ে আসবেন এই আশায় আছি।

২| ০৩ রা আগস্ট, ২০২১ বিকাল ৪:১০

খোলা জানালা। বলেছেন: পড়ে মন্তব্য করবো !

০৩ রা আগস্ট, ২০২১ বিকাল ৪:২১

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: ঠিক আছে ভাইয়া।সময় নিয়ে আসবেন অপেক্ষায় রইলাম।

৩| ০৩ রা আগস্ট, ২০২১ বিকাল ৪:৪৭

ইসিয়াক বলেছেন: খুব সুন্দর।

০৩ রা আগস্ট, ২০২১ সন্ধ্যা ৬:০৬

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: অসংখ্য ধন্যবাদ প্রিয় ইসিয়াক ভাই আপনাকে।
পোস্টে লাইক করাতে প্রেরণা পেলাম কৃতজ্ঞতা জানবেন।
শুভেচ্ছা নিয়েন।

৪| ০৩ রা আগস্ট, ২০২১ বিকাল ৪:৫১

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: আহা একেবারে কোলে প্রথম ডেটিংয়েই ;)
সাহসী বটে! (যদিও কুকুর বেটা না ক্ষেপলে সম্ভাবনা ক্ষীনই ছিল ;) হা হা হা

প্রেম প্রণয়ানুভবের চটুল দুষ্টুমি থেকে ধীরে ধীরে মূল গল্পে ঘুরে যাচ্ছে গল্প।
বুবুতো অর্ধেক কাজ এগিয়েই দিলেন!
দেখা যাক শেষটায় - কোথাকার জল কোথা গড়ায়?

০৩ রা আগস্ট, ২০২১ সন্ধ্যা ৬:১২

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: অনেক দিন পর প্রিয় কবিভাইকে পেয়ে আনন্দ পেলাম। অসংখ্য ধন্যবাদ আপনাকে।
: আহা একেবারে কোলে প্রথম ডেটিংয়েই ;)
সাহসী বটে! (যদিও কুকুর বেটা না ক্ষেপলে সম্ভাবনা ক্ষীনই ছিল ;) হা হা"-, হেহেহে..., ঠিকই বলেছেন এক্কেবারে প্রথম দিনেই ডেটিং। তবে সৌজন্যে কুকুরের অবদানকে অস্বীকার করি কেমনে। ঠিকই ধরেছেন কুকুর ব্যাটা না খেপলে তা সম্ভব ছিল না।

"প্রেম প্রণয়ানুভবের চটুল দুষ্টুমি থেকে ধীরে ধীরে মূল গল্পে ঘুরে যাচ্ছে গল্প।
বুবুতো অর্ধেক কাজ এগিয়েই দিলেন!
দেখা যাক শেষটায় - কোথাকার জল কোথা গড়ায়।"- এক্কেবারে যথার্থই বলেছেন। আশা করি পরবর্তী পর্বেও এভাবে পাশে পাব।
পোস্টে লাইক করাতে প্রেরণা পেলাম কৃতজ্ঞতা জানবেন।

শ্রদ্ধা ও শুভেচ্ছা প্রিয় কবিভাইকে।

৫| ০৩ রা আগস্ট, ২০২১ সন্ধ্যা ৬:৩০

মোঃমোস্তাফিজুর রহমান তমাল বলেছেন: প্রেমের গল্পের ধারাটি বুবুর আগমনে অপত্য স্নেহের আখ্যানে বাঁক নিলো। দেখা যাক পরে কী হয়!!

০৩ রা আগস্ট, ২০২১ রাত ৯:৫০

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: এতক্ষণ ধরে চেষ্টা করলাম সবুজ বাটন আসেনি। কিন্তু মে মূহুর্তে আপনাকে জানালাম ফিরেই দেখছি বাবু হাজির।

"প্রেমের গল্পের ধারাটি বুবুর আগমনে অপত্য স্নেহের আখ্যানে বাঁক নিলো। দেখা যাক পরে কী হয়!!"- পাঠ ও মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ আপনাকে। একপ্রকার ঠিকই বলেছেন। তৃতীয় পর্বে শেষ করার আপ্রাণ চেষ্টা করবো। আশাকরি সাথে পাবো আপনাকে।

শুভকামনা জানবেন।

৬| ০৩ রা আগস্ট, ২০২১ রাত ৮:৫৯

সোহানী বলেছেন: আপনার লিখাটা পড়তে পড়তে মনে হচ্ছিল, একি আমিতো এ নিয়ে আগেই লিখেছিলাম। তাই খুঁজতে খুঁজতে পেয়ে গেলাম পুরোনো লিখাটা ও শেয়ার করলাম :P

ডিজুস প্রেমের যুগে রবীন্দ্রীয় মার্কা প্রেমের গল্প..পর্ব-১....তোর সাথে ;););););)
ডিজুস প্রেমের যুগে রবীন্দ্রীয় মার্কা প্রেমের গল্প..পর্ব-২....তোর সাথে ;););););)

০৩ রা আগস্ট, ২০২১ রাত ১০:০৮

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: আপু তেরো বছর আগে আপনি ব্লগে যেটা লিখেছেন সেটা এই গল্পের কাহিনীও বটে। তবে সময়টা তারো দুদশকের আগের। তবুও ধন্যবাদ আপনাকে যে আগেই ব্লগে বিষয়টি উল্লেখ করেছেন। আধুনিক পোলাপাইনের টুকরো টুকরো ভালোবাসার মূহুর্তগুলোকে সুন্দরভাবে উপস্থাপন করেছেন।
আপনার পোস্টে সে কথা বলে এসেছি।
ভালো থাকবেন আপু সবসময়।

৭| ০৩ রা আগস্ট, ২০২১ রাত ৯:০৩

ইসিয়াক বলেছেন: রমিসা বুবুর দূর্ভাগ্যের কাহিনীর অপেক্ষায় রইলাম।
প্রেম তো বেশ জমে উঠেছিলো তবে নায়কের কারেন্ট একটু দেরিতে লোড হয়েছে। যা বর্ণনা! ;) কি বলবো অস্থির!
তবে এই বয়সে এই ঘনিষ্ঠতায় অবস্থায় মারাত্মক অবনতি হতে বাধ্য। উথাল পাতাল যাকে বলে। আশা করি বুঝতে পারছেন :-B

০৩ রা আগস্ট, ২০২১ রাত ১০:৩৯

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: পাঠ ও মন্তব্যের জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ প্রিয় ইসিয়াক ভাইকে।
তৃতীয় পর্বে গল্পটা শেষ করার আপ্রাণ চেষ্টা করবো।

"বেশ জমে উঠেছিলো তবে নায়কের কারেন্ট একটু দেরিতে লোড হয়েছে। যা বর্ণনা! ;) কি বলবো অস্থির!
তবে এই বয়সে এই ঘনিষ্ঠতায় অবস্থায় মারাত্মক অবনতি হতে বাধ্য। উথাল পাতাল যাকে বলে। আশা করি বুঝতে পারছেন :-B"-হছহেহে তা যা বলেছেন। সাথে থাকুন।
শুভকামনা জানবেন।

৮| ০৩ রা আগস্ট, ২০২১ রাত ১০:৪৯

করুণাধারা বলেছেন: এর আগেও একটা পর্ব আছে? সেটা পড়ে মন্তব্য করবো। এই পর্ব কিছু পড়ে +++

০৪ ঠা আগস্ট, ২০২১ বিকাল ৪:৫৫

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: আপনাকে ব্লগে দেখে খুশি হয়েছি আপু। সাম্প্রতিক কালে আপনাকে আর আগের মতো না দেখতে পাওয়ায় চিন্তায় ছিলাম। যদি সময় সংকুলান হয় তাহলে আগের পোস্টে ও এই পোস্টে আসবেন- সেই প্রতীক্ষায় থাকবো।
শুভেচ্ছা জানবেন আপু।

৯| ০৩ রা আগস্ট, ২০২১ রাত ১১:১৫

ইসিয়াক বলেছেন: ঘুম ঘুম চোখে প্রচন্ড ক্লান্তি নিয়ে আমার মন্তব্যের প্রতি মন্তব্যটি সরস হবে আশা করেছিলাম। তা না আমার মন্তব্য আমাকেই ফিরিয়ে দেওয়া!!!!
বোনাস শুধু হে হে..

আড়ি! আড়ি!! আড়ি!!!

০৪ ঠা আগস্ট, ২০২১ বিকাল ৫:১০

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: "ঘুম ঘুম চোখে প্রচন্ড ক্লান্তি নিয়ে আমার মন্তব্যের প্রতি মন্তব্যটি সরস হবে আশা করেছিলাম। তা না আমার মন্তব্য আমাকেই ফিরিয়ে দেওয়া!!!!- আই মিয়া সরস কমেন্ট করতে না পারায় খুব দুঃখ পেয়েছেন? আসলে গতকাল আমিও খুব ক্লান্ত ছিলাম। দুই ঘন্টার একটা কাজে গিয়ে সারাদিন লেগে গেছিল। বাসায় এসে খেয়ে অবসন্ন হয়ে পড়ি। কাজেই এবারের মতো খমা করে দিয়েন।পরের বার সরস কমেন্ট করার চেষ্টা করবো। তবে তার আগে একটা স্যাম্পেল কপি পাঠালে ভালো হতো। হেহেহে

১০| ০৩ রা আগস্ট, ২০২১ রাত ১১:১৯

ইসিয়াক বলেছেন: যাহোক গল্পটি আপাতদৃষ্টিতে প্রেমের হলেও আসল চমক সামনে।
ধর্ম,মৌলবাদ জঙ্গি সমস্যা সম্পর্কিত বলে মনে হচ্ছে। পরের পর্বে শেষ না হোক সমস্যা নেই। তাড়াহুড়ো যেন না হয়। সময় নিন।সমাপ্তিটা যেন অসাধারণ হয়।এ পর্যন্ত গল্পটা কিন্তু সহজ এবং সুপাঠ্য।

শুভেচ্ছা রইলো।

০৪ ঠা আগস্ট, ২০২১ বিকাল ৫:২০

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: ভালো কমেন্ট করেছেন। পরের পর্বে আশাকরি নিজের প্রশ্নগুলোর কিছুটা হলেও উত্তর পাবেন। আর সমাপ্তিটা অসাধারণ আশা করেছেন।আই মিয়া এত বার খাওয়াচ্ছেন‌ কেন? অসাধারণ লেখা পড়তে হলে স্যার হুমায়ূন আআহমেদের যে কোন একটি গল্প নিয়ে বসে যান। আমি বস্তাপচা লেখি এবং সেটাই লিখব। কোনো উচ্চাশা করে আমাকে যতোই ফুলিয়ে ফাঁপিয়ে বলুন না কেন।আরেকটি ডাস্টবিনের লেখা তৃতীয় বা শেষ পর্বে পাবেন-এটা মেনে নিয়েই আসবেন প্লিজ।

ভালো থাকবেন সবসময়।

১১| ০৩ রা আগস্ট, ২০২১ রাত ১১:২৫

মরুভূমির জলদস্যু বলেছেন: মুজাহিদ বলে বাংলাদেশে কোনো চাকরি আছে শুনি নি।
যাইহোক, পরের পর্বের অপেক্ষায় রইলাম।

০৪ ঠা আগস্ট, ২০২১ বিকাল ৫:২৯

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: পাঠ ও মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ ভাই আপনাকে।
আমার শৈশবে সব কাজকে চাকরি মনে করতাম। আমার এক খুড়তুতো ভাই ছিল দর্জি। শৈশবে সেই ভাইকে একজন চাকরিজীবী বলে মনে করতাম। আসলে বাবা ছিলেন একজন স্কুল শিক্ষক।সেই ধারণা থেকেই মনে গেঁথে যায় যে যাই করুক না কেন সকলেই চাকরি করেন।আর এই কারনেই বুবুর স্বামী যিনি একজন ধর্মযোদ্ধা তাঁকেও চাকরিজীবী বলে মনে হয়েছিল।
পরবর্তী পর্বে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করবো। আমন্ত্রণ রইলো আপনাকে।
শুভেচ্ছা প্রিয় ভাইকে।

১২| ০৪ ঠা আগস্ট, ২০২১ সকাল ১১:৪০

সাড়ে চুয়াত্তর বলেছেন: প্রেয়সীর নাম শ্রেয়সী। এটা ভালো হয়েছে। তবে ওনাকে এক জায়গায় দেখলাম ম্যাডাম বলা হয়েছে। ব্লগে সকল পুরুষ ও নারীকে স্যার বলা উচিত ( ব্লগার হোক আর গল্পের চরিত্র হোক)। :)

আপনার আগের পর্বটাও পড়তে হবে।

০৪ ঠা আগস্ট, ২০২১ বিকাল ৫:৩২

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: প্রেয়সীর নাম শ্রেয়সী। এটা ভালো হয়েছে। তবে ওনাকে এক জায়গায় দেখলাম ম্যাডাম বলা হয়েছে। ব্লগে সকল পুরুষ ও নারীকে স্যার বলা উচিত ( ব্লগার হোক আর গল্পের চরিত্র হোক)। :)-জ্বী স্যার অতি উত্তম প্রস্তাব। এখন থাইক্যা তাহলে সকলকে স্যার কমু।হেহে হে....
শুভেচ্ছা প্রিয় ভাইকে।

১৩| ০৪ ঠা আগস্ট, ২০২১ সকাল ১১:৫০

রাজীব নুর বলেছেন: ছবিতে যে নদীটা দেখা যাচ্ছে তার নাম কি?

০৪ ঠা আগস্ট, ২০২১ বিকাল ৫:৪২

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: এটা শুধুমাত্র একটা নদী নয় একটা ড্যাম। আমরা করোনার আগে শেষ আউটিং ছিল ঝাড়খন্ডের হাজারীবাগ।পথে তিলাইয়া নদীর উপর বাঁধটি দেখে ভীষণ ভালো লেগেছিল।ছবিটি তিলাইয়া বাঁধের।

১৪| ০৪ ঠা আগস্ট, ২০২১ দুপুর ১:৫৮

হাবিব বলেছেন: @ সাড়ে চুয়াত্তর, ব্লগে সকল পুরুষ ও নারীকে স্যার বলা উচিত ( ব্লগার হোক আর গল্পের চরিত্র হোক):) স্যার আপনার সাথে আছি।

০৪ ঠা আগস্ট, ২০২১ রাত ৮:৩৮

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: ' @ সাড়ে চুয়াত্তর, ব্লগে সকল পুরুষ ও নারীকে স্যার বলা উচিত ( ব্লগার হোক আর গল্পের চরিত্র হোক)। :) স্যার আপনার সাথে আছি।"- আমিও স্যার আপনাদের যাত্রায় সাথী হলাম।হেহে হে....

১৫| ০৪ ঠা আগস্ট, ২০২১ বিকাল ৪:২৬

শেরজা তপন বলেছেন: মুজাহিদ' বিষয়টা বুঝলাম না( মৌলবাদী কোন সংগঠন)!
বুবুর সাথে পরের পর্বে দেখা হবার অপেক্ষায় রইলাম।

ভাগ্যিস ওইখানে এত্তবড় একটা কুকুর ছিল- নাহলে পৃথিবী এমন একটা রোমান্টিক দৃশ্য আর ভরপুর রোমান্স থেকে বঞ্চিত হোত
:) :)

০৪ ঠা আগস্ট, ২০২১ রাত ১০:০২

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: মুজাহিদ' বিষয়টা বুঝলাম না( মৌলবাদী কোন সংগঠন)!
বুবুর সাথে পরের পর্বে দেখা হবার অপেক্ষায় রইলাম।"- জ্বী ভাই পরের পর্বে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করবো। আশাকরি সঙ্গে থাকবেন। আর এই বুবুই হবে মুজাহিদদের রহস্য উন্মোচন কারী।

"ভাগ্যিস ওইখানে এত্তবড় একটা কুকুর ছিল- নাহলে পৃথিবী এমন একটা রোমান্টিক দৃশ্য আর ভরপুর রোমান্স থেকে বঞ্চিত হোত
:) :)"-হেহেহে তা যা বলেছেন। যৌবনে নায়ক হওয়ার জন্য প্রয়োজনে সামান্য ভিলেন গিরি বা অনুদার হওয়া মন্দ নয়। উপন্যাসের নায়কের সঙ্গে বাস্তবের নায়কের তো একটু অমিল থাকবেই।
সুন্দর রসাক্মক কমেন্টের জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ আপনাকে।
নিরন্তর শুভেচ্ছা প্রিয় ভাইকে।

১৬| ০৪ ঠা আগস্ট, ২০২১ বিকাল ৫:৩৯

মরুভূমির জলদস্যু বলেছেন: আসলে বাবা ছিলেন একজন স্কুল শিক্ষক।সেই ধারণা থেকেই মনে গেঁথে যায় যে যাই করুক না কেন সকলেই চাকরি করেন।
ছোট বেলার একটা কথা মনে করিয় দিলেন।
আমার আব্বার নাম ওমর আলী, তিনি ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার ছিলেন। আমার বুঝ হওয়ার পর থেকই শুনে আসছি সকলে আব্বাকে মেম্বর (মেম্বার) বলে ডাকে। আমি তখন শুধু ভাবতাম আমার দাদা-দাদী কি ভাবে আব্বার নাম আগে থেকেই মেম্বর রাখলো!!!

০৪ ঠা আগস্ট, ২০২১ রাত ১০:০৮

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: ""ছোট বেলার একটা কথা মনে করিয় দিলেন।
আমার আব্বার নাম ওমর আলী, তিনি ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার ছিলেন। আমার বুঝ হওয়ার পর থেকই শুনে আসছি সকলে আব্বাকে মেম্বর (মেম্বার) বলে ডাকে। আমি তখন শুধু ভাবতাম আমার দাদা-দাদী কি ভাবে আব্বার নাম আগে থেকেই মেম্বর রাখলো!!!"- হেহেহে.....সাধে কি আর বাচ্চা বলে।কি সুন্দর নির্মল ভাবনা,"আমার দাদা-দাদী কি ভাবে আব্বার নাম আগে থেকেই মেম্বর রাখলো!!!"। এমন স্মৃতিচারণ নিঃসন্দেহে সুখস্মৃতির পরিচায়ক। শৈশবের সুন্দর একটা স্মৃতি শেয়ার করার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ ভাই আপনাকে।‌
শুভকামনা জানবেন।

১৭| ০৭ ই আগস্ট, ২০২১ রাত ১১:০৮

দেয়ালিকা বিপাশা বলেছেন: পদাতিক চৌধুরী,



গল্পের পরের অংশের অপেক্ষায় রইলাম। অনেক শুভকামনা জানবেন।


- দেয়ালিকা বিপাশা।

০৮ ই আগস্ট, ২০২১ রাত ১২:০০

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: প্রিয় ব্লগার,

পরপর দুটি পর্ব পাঠ করে কমেন্ট করায় অসংখ্য ধন্যবাদ আপনাকে। আগামী দুএকদিনের মধ্যেই পরবর্তী পর্ব পোস্ট করার ইচ্ছা আছে। আমন্ত্রণ রইলো আপনাকে।
আপনার শুভেচ্ছা গ্রহণ করলাম। আবারো ধন্যবাদ আপনাকে।
নিরন্তর শুভেচ্ছা আপনাকেও।

১৮| ০৯ ই আগস্ট, ২০২১ দুপুর ২:১৮

ভুয়া মফিজ বলেছেন: আপাততঃ লাইক দিয়া গেলাম। বাকী সবকয়টা পর্ব একসাথে পড়বো। :)

০৯ ই আগস্ট, ২০২১ রাত ৯:৫৯

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: যাক অবশেষে আপনার ইইট দেখিয়া চমকিত হইলাম।আশায় রইলাম অবশিষ্ট পর্ব পাঠ করিয়া কমেন্ট করিবার নিমিত্তে।ব্যস্ত মানুষের লগে এটাই যে মহৎ পাওনা।

১৯| ০৯ ই আগস্ট, ২০২১ রাত ১০:০৫

ভুয়া মফিজ বলেছেন: আসলেই সময় পাই না। দুঃখ প্রকাশ করা ছাড়া আর কি-ই বা করতে পারি বলেন! আমারও ইচ্ছা করে ব্লগে প্রচুর সময় দেই; কিন্তু পুরা বৃটেন চালাইতে গিয়া.....................!!!! B-))

০৯ ই আগস্ট, ২০২১ রাত ১০:৩০

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: আবার আপনাকে দেখিয়া ডাবল ভালোলাগায় প্লাবিত হইলাম।গোটা বিরিটেন সামলিয়ে যা সামান্য সময় আমাদের জন্য বার করেছেন এটাই অনেক। আপনার আরেক ব্লগার তুতো ভাই মা. হাসান আপাতত দেশের বিরাট কর্মযজ্ঞে নিমজ্জিত।কবে উনি উড্ডিন হতে পারবেন এ লাখ টাকার প্রশ্ন। কাজেই আমরা শুধু দর্শনেই খুশি। উল্লেখ্য আপনার পোস্ট পড়ে নিজেকে সুবিধাবাদীর কোন শ্রেণিতে এখনো স্থির করতে পারলাম না। ওখানে বিরাট বিরাট কমেন্টের পাশে আপনার সম্ভ্রম বাঁচাতে কি যে কমেন্ট করমু মাথায় আসছেনা।দেখি কখন মাথাটা খোলে....
ভালো থাকবেন সবসময়।

২০| ২২ শে আগস্ট, ২০২১ সকাল ১০:৪৩

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: দারুন লাগলো।

২২ শে আগস্ট, ২০২১ সকাল ১০:৫৬

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: পাঠ ও মন্তব্যের জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ আপনাকে। পোস্টটিতে like'করাতে প্রেরণা পেলাম কৃতজ্ঞতা জানবেন
নিরন্তর শুভেচ্ছা আপনাকে।

২১| ২২ শে আগস্ট, ২০২১ বিকাল ৩:০৭

ফয়সাল রকি বলেছেন: বুবু না এলে গল্প যে কোথায় গিয়ে ঠেকতো কে জানে! ১৮+ ট্যাগ দেয়া দরকার ছিল বোধহয়!
আর মুজাহিদ বিষয়টা পরিস্কার না, যদিও মন্তব্য-প্রতিমন্তব্যে অনেক কথা বার্তাই হয়েছে। তবুও গল্পের মধ্যেই পরিস্কার করা দরকার ছিল।
লেখায় +++

২২ শে আগস্ট, ২০২১ সন্ধ্যা ৬:৩৭

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: পাঠ ও মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ আপনাকে। হ্যাঁ ঠিকই ধরেছেন বুবু না হলে হয়তো গল্পটি অন্যদিকে প্রবাহিত হতো। ১৮+টাকা নিয়ে একটা চিন্তা কাজ করেছিল, হয়তো অহেতুক ভীড় বাড়তো।
আর মুজাহিদ বিষয়টা নিয়ে আপনার প্রশ্নটা আমার কাছেও ঠিক প্রশ্নই থেকে গেছে। চলমান সিরিজ; আশা করি পরবর্তী দুটো পর্বে মনের অস্বচ্ছতা পরিষ্কার হবে।

শুভেচ্ছা আপনাকে।

২২| ২৩ শে আগস্ট, ২০২১ সন্ধ্যা ৬:০৬

আহমেদ জী এস বলেছেন: পদাতিক চৌধুরি,




প্রথম পর্বের মন্তব্যে বলেছিলুম - দেখি উপরওয়ালা ছাপ্পড় ফেড়ে কি দেয় !
এই পর্বে ছাপ্পড় ফেড়ে অনেক কিছু দেয়ার ঘটনা ঘটলো।
তবে এমন রোমান্টিকতার মাঝে রমিসা বুবুর আখ্যান ঢুকিয়ে বাকী রোমান্স থেকে আমাদের বঞ্ছিত করলেন।

২৩ শে আগস্ট, ২০২১ রাত ৯:৪৮

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: শ্রদ্ধেয় ভাই,

আপনার আগমনে আনন্দ পেলাম। হ্যাঁ আগের পর্বে আপনি বলেছিলেন," দেখি উপরওয়ালা ছাপ্পড় ফেড়ে কি দেয় !" আর "এই পর্বে ছাপ্পড় ফেড়ে অনেক কিছু দেয়ার ঘটনা ঘটলো।"-হেহেহে.। একপ্রকার ঠিকই বলেছেন। তবে রোমান্টিতাকে বেশি দূর টেনে নিয়ে যাওয়ার মধ্যে একটা একঘেয়েমি আসে। তাই শুরুতে একভাবে করলেও এই সিরিজের আসল উদ্দেশ্য তমোময়ী বা অন্ধকারে ব্যাপ্তকে ফোকাস করা। এক্ষেত্রে হয়তো মিষ্টি প্রেমের উপাখ্যান থেকে আমরা সাময়িক দূরে সরে গেছি। কিন্তু রমিসা বুবুর নিদারুণ জীবনালেখ্যা আশাকরি খারাপ লাগবে না।

নিরন্তর শুভেচ্ছা শ্রদ্ধেয় ভাইকে।

২৩| ২৪ শে আগস্ট, ২০২১ রাত ১২:১০

ডঃ এম এ আলী বলেছেন:



রমিছা বুবু হঠাত করে দৃশ্য পটে উদয় হয়ে
রোমান্ন্সে বিঘ্ন ঘটিয়েছে দারুনভাবে । তবে
রমিসা বুবুর কাহিণীতেও হয়ত থাকবে অনেক
শিহরণ জাগানিয়া কাহিনী । রমিসা বুবুর কাহিনী
পরের পর্বে কিছু থাকবে কিনা দেখতে চললাম ।

শুভেচ্ছা রইল

২৬ শে আগস্ট, ২০২১ রাত ৯:০০

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: শ্রদ্ধেয় ভাইজান,

আপনার কমেন্টের জন্য আমার একটু সময় নিতে হয়।এটা অবশ্যই আপনার কমেন্টের গুণগত উৎকর্ষতার কারণে। ইতিমধ্যে আপনার সবকয়টি কমেন্টের উত্তর দিয়েছি। আশাকরি কিছুটা দেখেছেন বা বাকিগুলোও সময় নিয়ে দেখবেন।
জ্বী রমিসা বুবুর আগমনে গল্পের অভিমুখ সম্পূর্ণ বদলে গেছে। মানবেতর জীবনে যে রোমান্স সাংঘর্ষিক। পরিস্থিতি বদলে গেলে আবার শ্রেয়সী আসতেই পারে।আর ততদিনে রমিসা বুবুর কাহিনীই গল্পের উপজীব্য বিষয়। কতোটা শিহরণ জাগানিয়া তা অবশ্য আপনারাই বলবেন। বরাবরই সুন্দর বিচক্ষণ কমেন্টের জন্য মুগ্ধতা।
পোস্টটিতে like'করাতে প্রেরণা পেলাম কৃতজ্ঞতা জানবেন।
শ্রদ্ধা ও শুভেচ্ছা আপনাকে।

২৪| ০৩ রা সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১০:৩৯

শায়মা বলেছেন: কুকুরের কাহিনী পড়ে আমার এক কাজিনের কুকুরভীতি মনে পড়ে গেলো ভাইয়া। :)

০৩ রা সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১১:৩৯

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: কমেন্টের জন্য ধন্যবাদ আপনাকে। কুকুরের কাহিনী পড়ে কাজিনের কথা মনে পড়েছে যখন বলেই ‌ফেলুন আপু ঘটনাটি। কাহিনীটি জানার অপেক্ষায় রইলাম।

২৫| ০৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ৯:৫৭

খায়রুল আহসান বলেছেন: শ্রেয়সীর সঙ্গে জ্ঞল্পের নায়ক অন্তরঙ্গ হচ্ছে, এটা গল্পের প্রতি পাঠকের আকর্ষণ নিশ্চয়ই অনেক বাড়িয়ে দেবে।
রমিসা বুবুর জীবন কাহিনী কিছুটা হলেও আগামী পর্বগুলোতে শোনা যেতে পারে, এ আশায় রইলাম।
পোস্টে ত্রয়োদশ ভাললাগা। + +

০৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১১:৪৭

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: আশাকরি ভাল আছেন স্যার।তমোময়ী সিরিজের পরবর্তী পর্বের জন্য আজ সারাদিন ব্যস্ত ছিলাম। আগামীকাল সকালে পোস্ট দিবো। আপনার আগমন মানে বাড়তি উৎসাহ পাওয়া। সুন্দর কমেন্টে ভাল লাগা রইলো। কমেন্টে ও ত্রয়োদশ লাইকে অনুপ্রাণিত বোধ করছি; কৃতজ্ঞতা জানাই।
শ্রদ্ধা ও শুভেচ্ছা আপনাকে।

২৬| ০৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১১:০৩

অপু তানভীর বলেছেন: গল্পে যে অভিজ্ঞতার কথা লিখলেন কেন, একদম বাস্তব মনে হল যেন । আসলেই এই স্পর্শের কোন তূলনা নেই । এমন ভাবে লিখেছেন যে অভিজ্ঞতা বেশ ভালই আছে । আমারও টুকটাক হয়েছিলো কোন এক কালে !

যাই হোক দ্বিতীয় পর্বও চমৎকার ভাবে এগিয়ে চলেছে । দেখা যাক সামনে কি হয় !

০৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১১:৩৫

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: হেহে হে.....গল্প তো গল্পোই।আপনি নিজে যেহেতু লেখেন তাই উল্লেখ না করলেও চলে যে লেখকের উদ্দেশ্য লেখনীকে বাস্তব সম্মত করা।সেই প্রচেষ্টায় হয়তো আপনাকে লেখকের ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগানোর কথা বলেছেন।।

২৭| ১৬ ই অক্টোবর, ২০২১ রাত ৯:১১

মুক্তা নীল বলেছেন:

দাদা
হঠাৎ করেই কুকুরের অনাকাঙ্ক্ষিত আগমনে দুজনের আরো রোমান্স বেড়ে গেলো কিন্তু রমিসা বুবুর সম্পর্কে জানার
জন্য আগ্রহ টা সেদিকেই বেড়ে গেলো ।
সুন্দর হয়েছে দাদার লেখা ।

১৬ ই অক্টোবর, ২০২১ রাত ৯:১৬

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: প্রিয় ছোট বোনের দীর্ঘদিন অজ্ঞাতবাসে থাকায় দুশ্চিন্তায় ছিলাম। ভীষণ খুশি হয়েছি আজকে ব্লগে আগমন দেখে।
আশাকরি এখন থেকে নিয়মিত হবেন।
সুন্দর কমেন্টে আনন্দ পেয়েছি। অসংখ্য ধন্যবাদ বোনকে।
যেহেতু অনেকটাই পুরানো পোস্ট কাজেই পরবর্তী ঘটনা সময় সম্ভব হলে পড়ে ফেলা যাবে।
পোস্টে লাইক করাতে প্রেরণা পেলাম কৃতজ্ঞতা জানবেন।
নিরন্তর শুভেচ্ছা প্রিয় ছোট বোনকে।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.