নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

প্রসেনজিৎ হালদার

প্রসেনজিৎ হালদার › বিস্তারিত পোস্টঃ

কার কী এলো গেলো !

০৬ ই ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ৮:৫২

সত্যি কারো কিছু আসে যায় না। যিনি আমজনতার একজন তারও না। দিন শেষে দিব্যি ঘুম ভালো হয় তার। আয় রোজগার যেহেতু হচ্ছেই, তবে আর চিন্তা কি? অথচ, তাদেরই বাড়তি হওয়া বা থাকার সুযোগ নেই। কোন রকমে খেয়ে-পড়ে বেচে থাকা আর কি। তবে, দিন শেষে হিসেবের খাতা খুলে তাতে জের টেনে লাভ হলেও মূলত তা আসলে লাভ নয়। কারণ, ওই যে হিসেব, তা যে শুধু খাতা কলমেই। কারণ সেখানে কখনো পরোক্ষ বাড়তি খরচের হিসেব উল্লেখ থাকে। আমাদের মতো আমজনতার ভাগ্যে টাকার পরিমানে আর লাভ হয় না।

দুই টাকার একটি পণ্য চার টাকায় কিনতে হয়। কিনলেন, সঙ্গে দুই টাকা গচ্চা বা জরিমানা যাই বলুন না কেন, দিলেন। কি হলো? দুই টাকা লোকসানে আপনি, আর যিনি বিক্রি করলে, তিনি লাভ করলেন আড়াই টাকা। এতো একটি দিয়াশলাই প্যাকেটের মূল্য ধরলাম। যদি তা, দুই শত, হাজার, লক্ষ, কোটি পেড়িয়ে যায়? ভাবতে পারছেন, তাতে যে কিনলেন তার ক্ষতি কতো, আর যিনি বিক্রি করলেন তার লাভ কতো। এভাবেই, আপনার আমার টাকার ঘাটতি। নাকি নেই, যদি না থাকে তাহলে দয়া করে আর এগিয়ে যাবেন না। অনুরোধ রাখছি। যদি, সে দলের হয়ে থাকে, তাহলে দূরে থাকুন। যা করছেন, মনোযোগ দিয়ে তাই করুন।

শুনেছি, নাক আর লজ্জা প্রায় সমার্থক। কিন্তু, ক’জন মানবে জানি না। কিন্তু একবার ভেবে দেখুন, দুই লাফে কোটিপতি। মাথা নষ্ট, বিশ টাকার টিকিটে মটরসাইকেল প্রাপ্তির মতো ঘটনা। নিশ্চয়ই, আসন্ন নির্বাচনের খবর টুকটাক নিচ্ছেন। যদিও, বেশিরভাগ লোকই ভালোই খবর রাখার চেষ্টা করছেন। রাজনীতিতে খুব বেশি আগ্রহ না থাকলেও কিছুই করার নেই, জানা উচিত বলে মনে করছি।

হলফনামা সম্পর্কে নিশ্চয়ই কম বেশি জানেন, সেখানে অনেকের শরীরের অধের্কের (স্ত্রী) আয় কোটি টাকা, যারা মূলত একটি কাথাও সেলাই করেন না। অথচ, কোটিপতি হয়ে বসে আছেন। কাজ নেই, আয়ের অভাব নেই। অথচ, খেটে খাওয়া অনেক মানুষ ঠিক মতো বেতন না পাওয়ায় প্রায়ই খালি পেটে রাস্তা দিয়ে হাটে। সারাদিন পরিশ্রম করে তার জীবন ওষ্ঠাগত হয়, কিন্তু কিছুই করার থাকে না। তার রক্তের (টাকা) বিনিময়েই অনেকেই হন কোটিপতি, তিনি থাকেন না খেয়ে।

বলছি এ কারণে, সম্পদ হয়েছে ভালো কথা, ভোগ করুন। কিন্তু, আরো প্রাপ্তির লোভ যে গ্রাস করে, তা ভুলে গেলেই বিপদ। যদিও, বিপদ কখনোই পথ ছাড়ে না। কোন না কোনভাবেই সে আপনাকে আমাকে তার লাইনে দাড় করাবেই। ঠিক এই ভাবেই, আবার একদিন কোন একসময় জানা যাবে, ‘অমুকে খেয়েছে টাকা, হয়েছে ধনী’। এবার তাকে জেলে ভরো।

শাক দিয়ে মাছ যে ঢাকা যায় না, এ কথা ভুলে গেছে অনেকেই। যদি মনে থাকতো কারো, সে দেশে না থেকে বরং কানাডায় একটা সুন্দর বাড়ি বানাতে পারতো। অথচ দেখুন, তারা কি চালাক! মানুষকে বোকা বানাতে বানাতে সে যে ওই (বোকার) অন্ধকারেরই ডুববে, তা সে ভুলে যায়। কিন্তু, গর্ত খুঁড়লে যে সে গর্তে নিজেকেই পড়তে হয়, তাও নিশ্চয়ই আপনারা যানেন। তাই, অপেক্ষা করুন, সময় সঠিক জবাব দেবে বেশি বুদ্ধিওয়ালা লোকদের। এতে কারো কিছুই আসবে না, যাবেও না।

মন্তব্য ২ টি রেটিং +০/-০

মন্তব্য (২) মন্তব্য লিখুন

১| ০৬ ই ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ১০:০৮

রাজীব নুর বলেছেন: আপনার পোষ্টের মূল বক্তব্য কি?

২| ০৭ ই ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ৮:২৬

প্রসেনজিৎ হালদার বলেছেন: বাহ্, তাও ভালো আপনি জানতে চাইছেন। এই-ই আমার মূল কথা। জানতে চান। আসছে।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.