নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

সত্যের অন্বেষণে আছি, কিন্তু পথ খুঁজে পাচ্ছি না! আমি সেই অজ্ঞ মানব!

রাফিন জয়

সত্যের অন্বেষণে আছি, কিন্তু পথ খুঁজে পাচ্ছি না! আমি সেই অজ্ঞ মানব!

রাফিন জয় › বিস্তারিত পোস্টঃ

সমালোচনা নয়, আলোচন....

০১ লা জুন, ২০১৭ বিকাল ৫:১৭

বিষয়টা কার্ল মার্কসের সমালোচনা বিষয়ক হলেও আমার জন্য তা আলোচনা। ড. আনোয়ারউল্লাহ চৌধুরী এবং ড. মুহাম্মাদ হাবিবুর রহমানের লেখা Sociology গ্রন্থের প্রথম খণ্ডে ১৬৯ থেকে ১৭১ পৃষ্ঠার মাঝে মার্কসীয় তত্ত্ব বা দ্বন্দ্বমূলক তত্ত্বের আলোচনা এবং সমালোচনা উল্লেখ করা হয়েছে।

মার্কসের দ্বন্দ্বমূলক তত্ত্বের আলোচনা অনেক শুনেছি, অনেক কথা শুনেছি, যার প্রায় সবটাই গ্রন্থের আলোচনায় উল্লেখ করা হয়েছে। কিন্তু সমালোচনায় গিয়ে দেখা গেলো কিছু বিরূপ! আমি আলোচনাটা লিখে সময় নষ্ট না করে সমালোচনাটাই বলছি।
এভিডেন্স মতে মার্কস তার ত্রিমাত্রিক শ্রেণীবিভাগ তত্ত্বে তিনটি শ্রেণীর নাম উল্লেখ করেছেন। যথা;
১. পুঁজিপতি
২. ভূস্বামী এবং
৩. মজুর।
এবার প্রশ্ন ভূমি কি পুঁজি নয়? যদি হ্যা হয়, তবে ভূমি ও পুঁজির মধ্যে পার্থক্য কোথায় ও কি? ভূস্বামী এবং পুঁজিপতি শ্রেণীর মাঝে পার্থক্য কি এবং কোথায়?

আবার দেখা যায় শিল্পায়িত ধনতান্ত্রিক সমাজে মার্কসের কথিত ধারায় শ্রমিক শ্রেণী বিপ্লবের জন্য সংগঠিত হয় নি। তাছাড়া সেখানে পুঁজিপতি এবং সর্বহারা শ্রেণীদ্বয়ে সমাজ বিভক্ত হয়নি। অন্যদিকে ধনতান্ত্রিক সমাজে রূপায়িত না হয়েও রাশিয়া ও চীনে সমাজতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। (যদিও ১৯৯১ সাকে রাশিয়া অবশ্য সমাজতন্ত্রের বিলোপ ঘটেছে।

এছাড়াও ছোট ছোট আরও কিছু বিষয়ের সমালোচনা রয়েছে সেখানে। এর মাঝে উপরোক্ত দুটিই আমার কাছে খুব বেশি ধাক্কা লাগার মত মনে হয়েছে। তাছাড়া তাদের গ্রন্থে বলা হয়েছে মার্কস তার অসমাপ্ত Capital গ্রন্থের তৃতীয় খণ্ডে শ্রেণী সম্পর্কিত বিস্তারিত আলোচনা শুরু করেছিলেন, তবে তা আর শেষ করা হয়নি।

সেখানে আমি দাবি করি যদি তা শেষ করা হতো, তবে হয়তো এই সমালোচনার মুখোমুখি মার্কসবাদীদের হতে হতো না। আমার জ্ঞানের স্বল্পতা থাকতেই পারে, যদি কারো এই বিষয় বিস্তর কিছু জানা থাকে, তো অবশ্যই মন্তব্য আশা করছি।

[বিঃদ্রঃ মার্কসের পক্ষ বা বিপক্ষের ভূমিকা পালন করে আমার লেখা নয়, জানার জন্য জিজ্ঞাসা। সবাইকে ইতিবাচক দৃষ্টিতে দেখার জন্য কৃপাময় নিবেদন।]

মন্তব্য ২ টি রেটিং +০/-০

মন্তব্য (২) মন্তব্য লিখুন

১| ০১ লা জুন, ২০১৭ বিকাল ৫:২৪

চাঁদগাজী বলেছেন:


পুঁজি বলতে উনি "তরল ক্যাপিটেল", সংক্ষেপে মুদ্রাকে বুঝায়েছেন, যা কলকারখানা বা ব্যাংকে স হজে বিনিয়োগ ও ক্যাশ করা যায়।

ভুমিও পুঁজি, তবে উহার মুল্য আছে "তরল মুদ্রায়"; মার্কসের সময় ভুমি ও তরল পুঁজির প্রভাব আলাদা রকমের ছিলো।

২| ০১ লা জুন, ২০১৭ বিকাল ৫:৩১

দ্যা ফয়েজ ভাই বলেছেন: আপনি যদি আলোচনা টা না লিখেন তাহলে সমালোচনা টা অর্থহীন,যারা এ ব্যাপারটা জানেন নাহ। :(

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.