নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

মাঝে মাঝে মনে হয় জীবনটা অন্যরকম হবার কথা ছিল!

মাঝে মাঝে মনে হয় জীবনটা অন্যরকম হবার কথা ছিল!

শেরজা তপন

অনেক সুখের গল্প হল-এবার কিছু কষ্টের কথা শুনি...

শেরজা তপন › বিস্তারিত পোস্টঃ

Surrogate Mother –প্রতিনিধি বা ধার করা মা।

১০ ই নভেম্বর, ২০২০ বিকাল ৪:০৬


সারোগেসি বা সারোগ্যাসিএমন একটি ব্যবস্থা যা প্রায়শই আইনী চুক্তির দ্বারা সম্পন্ন হয়! যার মাধ্যমে কোনও মহিলা (সারোগেট মা) অন্য কোনও ব্যক্তি বা ব্যক্তিদের জন্য একটি সন্তানের জন্ম দিতে সম্মত হন,যারা জন্মের পরে সন্তানের পিতা-মাতা হন।
গর্ভধারণ অসম্ভব হলে, যখন গর্ভাবস্থা ঝুঁকিপূর্ণ মা এর জন্য খুব বিপজ্জনকবা যখন একটি অবিবাহিত পুরুষ বা পুরুষ দম্পতি সন্তান পেতে চান তখন লোকেরা সারোগেসির ব্যবস্থা নিতে পারে। সারোগেসিকে অনেকগুলি প্রজনন সহায়ক প্রযুক্তির মধ্যে একটি হিসাবে বিবেচনা করা হয়।
সরোগেসি ব্যবস্থায়,আর্থিক ক্ষতিপূরণ জড়িত থাকতে পারে বা নাও থাকতে পারে। ব্যবস্থাপনার জন্য অর্থ প্রাপ্তি বাণিজ্যিক সারোগেসি হিসাবে পরিচিত। আইনীকরণ ও সরগ্যাসির ব্যয় বিচার বিভাগের মধ্যে ব্যাপকভাবে পরিবর্তিত হয়। যে দেশে এটি নিষিদ্ধ করা হয়েছে এমন দেশে সারোগেসির ব্যবস্থা চাইছেন যে দম্পতিরা তারা কখনও কখনও এর অনুমতি দেয়। কিছু দেশে,অর্থের বিনিময় না হলেই সরোগেসি বৈধ।
যেখানে বাণিজ্যিক সারোগেসি বৈধ,সেখানে দম্পতিরা কোনও সার্গেট সন্ধান করে এবং তার সাথে সারোগেসি চুক্তির ব্যবস্থা করে তৃতীয় পক্ষের এজেন্সিগুলি সারোগেসি প্রক্রিয়ায় সহায়তা করতে পারেন। স্বাস্থ্যকর গর্ভধারণ ও প্রসবের সর্বোত্তম সুযোগ নিশ্চিত করতে এই সংস্থাগুলি প্রায়শই সারোগেটের মনস্তাত্ত্বিক এবং অন্যান্য চিকিৎসা পরীক্ষা করে থাতস। তারা সাধারণত অভিযুক্ত পিতা-মাতা এবং সারোগেট সম্পর্কিত সমস্ত আইনী বিষয়কে সহজ করে দেয়।
একটি traditional ঐতিহ্যবাহী সারোগেসি (আংশিক,প্রাকৃতিক বা স্ট্রেইট সারোগেসি নামে পরিচিত) হল সার্গেটের ডিমটি অভিজাত পিতা বা দাতার শুক্রাণু দ্বারা ভিভোতে নিষিক্ত হয়। প্রাকৃতিক বা কৃত্রিম গর্ভধারণের মাধ্যমে সারোগেটের জরায়ু নির্ধারণ করা যেতে পারে। দাতার শুক্রাণু ব্যবহারের ফলে এমন একটি শিশুর ফলাফল আসে যা জেনেটিকভাবে অভিভাবক (গুলি) এর সাথে সম্পর্কিত নয়। যদি উদ্দিষ্ট বাবার শুক্রাণু গর্ভাজনে ব্যবহার করা হয়, তবে ফলস্বরূপ শিশুটি জেনেটিকভাবে অভিযুক্ত পিতা এবং সারোগেট উভয়ের সাথেই সম্পর্কিত।
কিছু ক্ষেত্রে,কোনও ডাক্তার বা চিকিত্সকের হস্তক্ষেপ ছাড়াই তারা ব্যক্তিগতভাবে গর্ভধারণ করতে পারে।
নির্ধারিত সময়ের গর্ভকালীন সারোগেসি (হোস্ট বা সম্পূর্ণ সারোগেসি নামেও পরিচিত) প্রথম এপ্রিল
১৯৮৫-১৯৮৬ সালে একজন মহিলা প্রথম সফল সারোগেট গর্ভধারণ করেন।
১৯৮৬ সালে অর্জিত হয়েছিল যখন ভিট্রো ফার্টিলাইজেশন (আইভিএফ-নিষেক্তের একটি প্রক্রিয়া যেখানে একটি ডিম শরীরের বাইরে শুক্রাণুর সাথে মিলিত হয়, ভিট্রোতে ("কাঁচে") প্রযুক্তির দ্বারা তৈরি একটি ভ্রূণ একটি সারোগেটে বসানো হয়।
গর্ভকালীন সারোগেসির একাধিক রূপ রয়েছে এবং প্রতিটি ফর্মে ফলস্বরূপ শিশু জেনেটিকভাবে সারোগেটের সাথে সম্পর্কিত নয়:
ভ্রূণটি তৈরি করতে বাবার শুক্রাণু এবং মায়ের ডিম ব্যবহার করে তৈরি করা হয়;
ভ্রূণের উদ্দেশ্যে বাবার শুক্রাণু এবং দাতার ডিম ব্যবহার করে তৈরি করা হয়;
ভ্রূণটি তৈরি করতে মায়ের ডিম এবং দাতার শুক্রাণু ব্যবহার করে তৈরি করা হয়;
আইভিএফ সারোগেসির মাধ্যমে জন্ম নেওয়া শিশুদের প্রাকৃতিকভাবে জন্ম নেওয়া শিশুদের তুলনায় শারীরিক বা মানসিক অস্বাভাবিকতা নেই বলে প্রমাণিত হয়েছে। তবে সরোগেট মায়েদের একাধিক গর্ভধারণের মধ্য দিয়ে জন্ম নেওয়া বাচ্চাদের প্রায়ই অকাল প্রসবের ফলস্বরূপ অপরিণত এবং শারীরিক বা মানসিক অসঙ্গতি দেখা দেয়।
সারোগেসির মাধ্যমে সফল গরভধারনের হার ১৯-৩৪ ভাগ এবং জন্ম নেওয়া শিশুদেরও গড় গড় গর্ভকালীন বয়স হয়; প্রায় ৩৭ সপ্তাহ।
গর্ভকালীন সারোগেসিতে শিশুটি জৈবিকভাবে সারোগেট মায়ের সাথে সম্পর্কিত নয়,সে শুধু গর্ভের সন্তান বহনকারী বৈ আর কিছু নয়!
চেহারাঃ যদি সারোগেসির মাধ্যমে জন্ম নেওয়া একটি শিশু যদি কারও মতো দেখতে লাগে তবে সে ভ্রূণ তৈরির সময় ডিম এবং শুক্রাণুতে যে দু'জনকে অবদান রেখেছিল,সে তার মতো দেখাবে। সুতরাং,যদি সার্গেটটি একটি traditionalবা ঐতিহ্যবাহী সারোগেট হয় (যার অর্থ তিনি বাচ্চা বহন করার পাশাপাশি ডিমের অবদান রেখেছিলেন),তবে হ্যাঁ - বাচ্চা তার মতো দেখাবে।
যমজ সন্তানঃ যদি আপনার সারোগেট মা একাধিক ভ্রূণ স্থানান্তর করতে রাজি হন এবং যমজ সন্তান হয় তবে তিনি তার মুল চুক্তিকৃত টাকা ছাড়াও ৫০০০ ডলার পাবেন।
ইউরোপীয় সোসাইটি অফ হিউম্যান রিপ্রোডাকশন অ্যান্ড এমব্রোলজি এবং আমেরিকান সোসাইটি ফর রিপ্রোডাকটিভ মেডিসিনের দেওয়া সুপারিশ অনুসারে, গর্ভকালীন ক্যারিয়ারের বয়স সাধারণত ২১ থেকে ৪৫ বছর বয়সের মধ্যে হতে হবে,তার ইতিপূর্বে একটি পূর্ণ-মেয়াদী অনিয়ন্ত্রিত গর্ভাবস্থা ছিল যেখানে সফলতার সাথে তার কমপক্ষে একটি সন্তানের জন্ম হয়েছিল।
গর্ভকালীন সারোগেটস দ্বারা প্রদত্ত সর্বাধিক প্রচারিত প্রেরণা হল নিঃসন্তান দম্পতিকে সহায়তা করার এক পরোপকারের ইচ্ছা। অন্যান্য কারণগুলির মধ্যে রয়েছে গর্ভাবস্থার অভিজ্ঞতা উপভোগ করা এবং আর্থিক লাভ।
গর্ভপাত আপনার আবার গর্ভবতী হওয়ার ক্ষমতাকে প্রভাবিত করবে না। আপনার সারোগেসি চুক্তিতে বর্ণিত পিতা-মাতার জন্য আপনি কতবার আইভিএফ গর্ভে প্রতিস্থাপন করবেন তা উল্লেখ করবে, সুতরাং আপনি যখন শারীরিক এবং মানসিকভাবে প্রস্তুত থাকবেন তখনই আপনার আর একটি ভ্রূণ স্থানান্তরিত করা হবে।
সংক্ষিপ্ত ইতিহাসঃ
সাধারণত অন্য জেনেটিক পিতা হিসাবে অন্যের গর্ভে সন্তান নেবার ব্যাপারটি প্রাচীনকাল থেকেই বহাল ছিল। ব্যাবিলনীয় আইন এবং রীতিনীতি এই বিষয়টিকে অনুমোদন দিয়েছিল এবং কোনও মহিলার সন্তান জন্ম দিতে না পারার কারণে বিবাহবিচ্ছেদ এড়াতে তারা গর্ভ ধার করার অনুমতি দিয়েছিল।
বিশ্বজুড়ে চিকিৎসা বিজ্ঞানের উন্নতি,সামাজিক রীতিনীতি এবং আইনী ক্রিয়াকলাপের অনেকগুলি উন্নতি আধুনিক সারোগেসির পথ প্রশস্ত করেছে:
১৯৪৪ সালে- হার্ভার্ড মেডিকেল স্কুলের প্রফেসর জন রক প্রথম বার জরায়ুর বাইরে মানুষের ডিম্বাণু নিষিক্ত করেন
১৯৭৬ সালে - মিশিগানের আইনজীবী নোয়েল কেইন প্রথম যুক্তরাষ্ট্রে সরোগ্যাসির চুক্তি লিখেছিলেন।
১৯৭৮ সালে - লুই ব্রাউন, প্রথম "টেস্ট-টিউব বেবি" জন্মগ্রহণ করেছিলেন ইংল্যান্ডে, প্রথম সফল আইভিএফ পদ্ধতির পণ্য।
১৯৮৬ সালে - "বেবি এম" নামে পরিচিত মেলিসা স্টার্ন জন্মগ্রহণ করেছিলেন যুক্তরাষ্ট্রে! সারোগেট মা,মেরি বেথ হোয়াইটহেড- যে দম্পতির সাথে তিনি সারোগেসির চুক্তি করেছিলেন,তাকে মেলিসার হেফাজত দিতে অস্বীকার করেছিলেন। নিউ জার্সির আদালতগুলি খুঁজে পেয়েছিল যে হোয়াইটহেড সন্তানের আইনী মা এবং সরোগেট মাতৃত্বের জন্য চুক্তিগুলি অবৈধ বলে ঘোষণা করেছিল। তবে আদালত সারোগেট মায়ের থেকে শিশুটির জৈবিক বাবা উইলিয়াম স্টার্ন এবং তাঁর স্ত্রী এলিজাবেথ স্টার্নকে ‘মাইলিসা’র হেফাজতের জন্য অধিক উপযুক্ত মনে করেন।
নাগরিক অধিকারঃ
নাগরিকত্ব এবং সারোগেসির ব্যবস্থাপনার ফলে প্রাপ্ত শিশুদের আইনী অবস্থান সমস্যাযুক্ত হতে পারে। হেগ কনফারেন্স স্থায়ী ব্যুরো এই শিশুদের নাগরিকত্বের প্রশ্নকে স্থায়ী ব্যুরো ২০১৪ স্টাডিতে একটি "প্রেসারিং সমস্যা" হিসাবে চিহ্নিত করেছে। যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দফতরের মতে,বিদেশে জন্ম নেওয়া শিশুকে মার্কিন নাগরিক হওয়ার জন্য বাচ্চার জেনেটিক পিতা-মাতার উভয়কেই মার্কিন নাগরিক হতে হবে। অন্য কথায়, বিদেশী জন্ম নেওয়া সরোগেট সন্তানের জন্মের সময় স্বয়ংক্রিয়ভাবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকত্ব অর্জনের একমাত্র উপায় হল যদি তিনি কোনও মার্কিন নাগরিকের জৈবিক পুত্র বা কন্যা হন। তদুপরি, কিছু কিছু দেশে,শিশু তার / সে যে দেশের জন্মগ্রহণ করেছে সে দেশের নাগরিক হবে না কারণ সরোগেট মা আইনত সন্তানের পিতা বা মাতা নন। এর ফলে সেসব দেশে কোনও শিশু নাগরিকত্ব ছাড়াই জন্মগ্রহণ করতে পারে!
সৎ মা বা ধার মাতা সামাজিক সমস্যা হিসাবে সারোগেসি যারা দেখে তারা যুক্তি দেয় যে, এটি উন্নয়নশীল দেশগুলিতে নারীদের শোষণ করার জন্য তাদের গর্ভকে পণ্য হিসেবে ব্যাবহন্যকরা হয়! এই অবস্থানের বিরোধীরা যুক্তি দেখান যে সারোগেসি উন্নয়নশীল দেশগুলিতে দারিদ্র্যের মুখোমুখি মহিলাদের জন্য উপার্জনের একটি অতি প্রয়োজনীয় উৎস সরবরাহ করে, অন্যরা মনে করেন যে এই জাতীয় দেশে আইন না থাকার কারণে প্রায়শই মধ্যস্বত্বভোগী এবং বাণিজ্যিক সংস্থাগুলির চেয়ে লাভ বেশি হয় সার্গেট মায়েরা নিজেরাই। এ ব্যাপারে,যুক্তি দেওয়া হয়েছে, যে দেশগুলিতে সারোগেসি দত্তক নেওয়ার ছত্রছায়ায় পড়ে সেখানে বাণিজ্যিক সারোগেসি সমস্যাযুক্ত হিসাবে বিবেচিত হতে পারে কারণ দত্তক নেওয়ার জন্য অর্থ প্রদান করা অনৈতিক, তবে তার সার্ভিসের জন্য সরোগেট মাকে প্রদান না করা এক ধরনের শোষণের বিষয়। সারোগেসির বিরোধী এবং সমর্থক উভয়ই একমত হয়েছেন যে সারোগেসি সম্পর্কিত আন্তর্জাতিক আইন প্রয়োগ করা মায়েদের ট্রান্সন্যাশনাল সারোগেসির মুখোমুখি হওয়া সামাজিক ন্যায়বিচারের বিষয়গুলিকে সীমাবদ্ধ করতে পারে।
অন্যান্য মানবাধিকারকর্মীরা ‘সারোগেসি’ ক্লিনিকগুলির দ্বারা সারোগেট মায়েদের যে পরিস্থিতিতে রাখা হয়েছে, সেগুলি নিয়ে উদ্বিগ্নতা প্রকাশ করেছেন যা সারোগেট গর্ভাবস্থার প্রক্রিয়াতে অনেক বেশি শক্তি প্রয়োগ এবং অনেক বিধিনিষেধের বা নিয়ন্ত্রনের বেড়াজালে আটকে রাখে। তাদেরকে বন্ধুবান্ধব এবং পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন এবং নিয়মিত প্রসবকালীন যত্ন নিশ্চিত করার অজুহাতে পৃথক সারোগেসি হোস্টেলগুলিতে বসবাস করতে বাধ্য করে। যুক্তি দেওয়া হয় যে সারোগেট মায়েরা মানসিক চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে পারেন যার ফলে অর্থনৈতিক ভাবে তারা ক্ষতির সম্মুখীন হতে পারে। অন্যান্য মনস্তাত্ত্বিক বিষয়গুলি লক্ষ্য করা যায়,যেমন জন্মের পর-ই সার্গেট মায়েদের নির্মমভাবে তাদের বাচ্চাদের কাছ থেকে নিজেকে বিচ্ছিন্ন করা হয়। যদিও তারা আগে থেকেই মানসিক ভাবে প্রস্তুত থাকে তবুও এটা নিশ্চিতভাবে অমানবিক!
সারোগেসি’র নৈতিক গ্রহণযোগ্যতা বিচারের ক্ষেত্রে কোনও মহিলার সম্মতির প্রাসঙ্গিকতা মানবাধিকারের মধ্যে বিবাদের আরও একটি বিষয় ;যদিও কেউ কেউ মনে করেন যে, সম্মতিযুক্ত কোনও প্রক্রিয়া মানবাধিকার লঙ্ঘন নয়,অন্য মানবাধিকারকর্মীরা যুক্তি দেখিয়েছেন যে মানবাধিকার কেবল বেঁচে থাকার জন্য নয়, মানবিক মর্যাদা ও সম্মানের বিষয়ে। সুতরাং,চরম দারিদ্র্যর কারনে কিংবা কারো দ্বারা প্ররোচিত হয়ে বা ভয়ে খানিকটা ইচ্ছার বিরুদ্ধেও যদি সম্মতি দেয় তবুও সেটা মানবাধিকার লঙ্ঘন!
কেননা এটি বানিজ্যিকভাবে গর্ভ ভাড়া মুলত উন্নয়নশীল দেশগুলির মহিলাদের ক্ষেত্রে ঘটে থাকে যারা অর্থনৈতিক প্রয়োজন বা স্বামীর কাছ থেকে চাপ, ভয় আক্রমণাত্মক প্ররোচনার কারণে সারোগেসি করতে বাধ্য হয়।
নারীবাদীরা আরও যুক্তি দেখিয়েছেন যে সারোগেসি একটি মহিলার মর্যাদা এবং তার শরীরের উপর স্বায়ত্তশাসনের অধিকার হিসাবে আক্রমণ! দরিদ্র মহিলাদেরকে কেবলমাত্র "শিশু উৎপাদক" হিসাবে অসম্মানিত করা হয়। নারীগণ কর্তৃক পতিতাবৃত্তির অনুরূপ নারীদের দেহকে পণ্য সরবরাহ করার অভিযোগ এনে সারোগেসির বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হয়েছে। নারীবাদীরাও সারোগেসি ও আধিপত্যবাদের পিতৃতান্ত্রিক অভিব্যক্তির মধ্যে সংযোগ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন; কারণ উন্নয়নশীল দেশগুলিতে নারীরা তাদের স্বামীদের দ্বারা "তাদের স্ত্রীর দেহ থেকে অর্থোপার্জন" কামনা করে সারোগেসি’তে জোর করে বলে উল্লেখ করা হয়েছে।
সারোগেসি নিয়ে ধর্ম কি বলেঃ-
ক্যাথলিসিজমঃ ক্যাথলিক চার্চ সাধারণত সারোগেসির বিরোধিতা করে যা এটি জন্ম,বিবাহ এবং জীবনের বিষয়গুলি সম্পর্কিত বাইবেলের গ্রন্থগুলির সাথে অনৈতিক এবং বেমানান বলে বিবেচিত [ স্বামী এবং স্ত্রীর দম্পতি ব্যতীত অন্য কোনও ব্যক্তির অনুপ্রবেশের মাধ্যমে (শুক্রাণু বা ডিম্বাশয়ের অনুদান,সারোগেট জরায়ু) মারাত্মক অনৈতিক! বিবাহ চুক্তিতে তৃতীয় পক্ষের শারিরিক উপস্থিতিকে অনৈতিক বিবেচনা করে।) গর্ভকালীন সারোগেসির সাথে জড়িত ইনট্রো ফার্টিলাইজেশন অনুশীলনকে যৌন মিলনের পবিত্র প্রক্রিয়া থেকে মানুষের ধারণাকে সরিয়ে দেবার কারণে এটাকে চরম নৈতিক অবক্ষয় হিসাবে দেখা হয়। এমনকি তারা ভিট্রো ফারটিলাইজেশনকেও তারা অনুমোদন দেয়নি।
জুডাইজম বা ইহুদীধর্মমত সারোগেসির বিষয়ে ইহুদি সম্প্রদায়ের মধ্যে মতৈক্যের অভাব রয়েছে। ইহুদি পন্ডিত এবং রাব্বীরা বিতর্কে উভয় পক্ষের বিরোধী মতামত প্রকাশ করে এবং এই বিষয়টি নিয়ে তারা দীর্ঘকাল বিতর্ক করেছেন। ইহুদি ধর্মের মধ্যে যারা সারোগেসির সমর্থক তারা সাধারণত ইহুদি মহিলারা যারা প্রাকৃতিক ভাবে গর্ভধারণ করতে পারে না তাদের জন্য নৈতিকভাবে অনুমোদন দেয়। রাব্বি’রা যারা এই অবস্থানটির পক্ষে আছেন তারা প্রায়শই ধর্মগ্রন্থের একটা অংশের উদ্ধৃত দেন যা সমস্ত ইহুদিদের "ফলবান ও গুণবান হওয়ার" আদেশ দেয়। ১৯৮৮ সালে, ইহুদি আইন ও মানদণ্ড সম্পর্কিত কমিটি সরোগেসির জন্য আনুষ্ঠানিক অনুমোদন জারি করে,এই সিদ্ধান্তে পৌঁছে যে,"পিতৃত্বের গৌরব এতটাই বিশাল যে, অন্যের ডিম্বাশয় সারোগেসির অনুমোদিত?’’
হিন্দু ধর্মঃ ভারত এবং বৃহত্তর হিন্দু জনগোষ্ঠী সহ বিভিন্ন জোন ‘ গর্ভ ধারের’ পর্যটন কেন্দ্র হিসাবে পরিণত হয়েছে, তাই হিন্দু ধর্মের সাথে সারোগেসি দ্বন্দ্ব রয়েছে কিনা তা নিয়ে অসংখ্য প্রশ্ন উত্থাপিত হয়েছে! যদিও হিন্দু পণ্ডিতরা বিষয়টি নিয়ে ব্যাপক বিতর্ক করেন নি , প্রখ্যাত ভারতীয় প্রজনন জীববিজ্ঞানী টি সি আনন্দ কুমার যুক্তি দিয়েছিলেন যে হিন্দু ধর্ম এবং সহায়ক প্রজননের মধ্যে কোনও বিরোধ নেই। আবার কেউ কেউ হিন্দু পুরাণের প্রসঙ্গে এই অবস্থানকে সমর্থন করেছেন, ভাগবত পুরাণের একটি গল্প যা সারোগেট মাতৃত্বের অনুশীলনকে বোঝায়: মথুরার দুষ্ট রাজা তার বোন দেবাকি এবং তার স্বামী বাসুদেবকে বন্দী করেছিলেন কারণ দৈববাণীর মাধ্যমে তিনি জানতে পেরেছিলেন যে, তার সন্তানই তার হত্যাকারী হবে। প্রতিবার যখন সে একটি শিশু প্রসব করল,তখন সে তার মাথাটি মেঝেতে ছিঁড়ে ফেলে। তিনি ছয় শিশুকে হত্যা করেছিলেন। সপ্তম সন্তানের গর্ভধারণের সময় দেবতারা হস্তক্ষেপ করলেন। তারা যোগমায়া দেবীকে ডেকে পাঠিয়েছিলেন এবং তাঁর ভ্রূণটি দেবকীর গর্ভ থেকে রোহিনীর গর্ভে স্থানান্তরিত করেছিলেন (গোকুলের গরুপুলের গ্রামে যমুনা নদীর ওপরে তাঁর বোন যশোদার সাথে থাকতেন বাসুদেবের অন্য স্ত্রী)) এভাবে এক গর্ভের শিশুটি অন্য গর্ভে প্রবাহিত হয় এবং প্রসব হয়।
ইসলামঃ ইসলামী সম্প্রদায় সারোগেসির প্রচলনকে বহুলাংশে নিষিদ্ধ করেছে,তবে মুসলমানদের অল্পসংখ্যক জনগোষ্ঠী এখনও রয়েছে যে দাবি করে যে সরোগেসির চর্চা ইসলামী আইনের সাথে সাংঘর্ষিক নয়।
মুসলমানরা সারোগেসি নিয়ে যে প্রধান উদ্বেগ উত্থাপন করেছে তা ব্যভিচার এবং পিতামাতার বংশের বিষয়গুলির সাথে সম্পর্কিত!
অনেক মুসলিম দল দাবি করেছে যে, ইসলামী আইন অনুসারে সারোগেট মাতৃত্বের অনুমতি নেই কারণ এটি জিনা (ব্যভিচার) এর অনুরূপ,যা মুসলিম ধর্মে কঠোরভাবে নিষিদ্ধ। এটি গর্ভকালীন সারোগেসির উপর ভিত্তি করে তৈরি করা হয়েছে যে, সারোগেট এমন কোনও ব্যক্তির নিষিক্ত ডিম বহন করে যা তার আইনী স্বামী নয়!
এভাবে কুরআনে বলা আছে যে, আল্লাহর সীমানা লঙ্ঘন করে: "যারা নিজেদের যৌনাংঙ্গকে সংযত রাখে এবং নিজের জীবনসাথি বা স্ত্রী যাদের উপরে বৈধ অধিকার প্রতিষ্ঠিত হয়েছে তাদের ক্ষেত্রে অন্যথা করলে তা নিন্দনীয় নয়, তবে এদের ছাড়া অন্য কাউকে কামনা করলে তা হবে সীমালঙ্ঘন , কিন্তু করে ... "(আল-মুমিনুন ২৩: ৫)" অতিরিক্তভাবে, যুক্তি উত্থাপিত হয়েছে যে সারোগেসি বংশ সংরক্ষণ (হিফজ আল-নাসল) যা শরিয়া আইনের পাঁচটি সার্বজনীন এবং লক্ষ্যগুলির মধ্যে একটির মধ্যে হস্তক্ষেপ করে। মুসলমানদের জন্য কুরআনের হুকুম যে “তাদের মায়েরা কেবল তারাই, যারা গর্ভধারণ করেছিলেন এবং তাদের জন্ম দিয়েছেন (ওয়ালাদনা হাম)” জেনেটিক এবং গর্ভকালীন মায়েদের মধ্যে পার্থক্যকে অস্বীকার করে।
তাই সারোগেসির প্রেক্ষাপটে জটিল ধারনাগুলিকে জটিল করে তোলে। বিপরীতে,সারোগেসির সমর্থক সংখ্যালঘু মুসলিম যুক্তি দেখান যে ইসলামী আইন মানব প্রজাতির সংরক্ষণকে তার অন্যতম প্রধান লক্ষ্য হিসাবে (মাকাসিড) স্বীকৃতি দেয় এবং বিবাহিত দম্পতিদের গর্ভে সন্তান গ্রহণের সুযোগ দেওয়া এই প্রাথমিক উদ্দেশ্যটির একটি অংশ। তারা আরও দাবি করে যে সারোগেট মাকে জিনার জন্য অভিযুক্ত করা যায় না কারণ তার গর্ভাবস্থার জন্য কোনও বৈধ আইনী স্বামীর সাথে কোনও দৈহিক সম্পর্কের প্রয়োজন নেই। অবশকে তারা যুক্তি দেখান যে সন্তানের বংশ পরিচয় বায়োলজিকাল পিতামাতার মাধ্যমে সনাক্ত করা যায় এবং সুতরাং বংশের প্রশ্নগুলি সহজেই সমাধান করা যায়। তারা সরোগেট মাকে নিয়োগ এবং একজন মহিলাকে তার শিশুকে বুকের দুধ খাওয়ানোর জন্য নিয়োগের মধ্যে তুলনা করে এটি সমর্থন করে যা ইসলামী আইনের অধীনে গ্রহণযোগ্য একটি অনুশীলন।
ইসলাম ধর্ম ও সারোগসি নিয়ে আরেকটু বিস্তারিত ভাবে যারা জানতে চানঃ
(অনেক পরিবারের সমন্বয়ে সমাজ গঠিত হয়। তাই সমাজের অন্তর্গত পারিবারিক বলয় যত সুদৃঢ় হবে, সমাজও তত সুদৃঢ় হবে। সন্তান নারী-পুরুষের দৈহিক ফসল। এর একমাত্র বৈধ পথ হলও বিয়ে। ইসলাম সন্তানের পিতৃ-পরিচয়ের বিষয়ে সবিশেষ গুরুত্বারোপ করেছে। তাই বিয়ে-বিহীন যৌনমিলনকে অত্যন্ত ঘৃণার চোখে দেখে। তাই যারা বিয়ে-বিহীন যৌনমিলনে লিপ্ত হয়, তাদের জন্য ইসলাম কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা করেছে। ইরশাদ হয়েছে,‘তোমরা ব্যভিচারের কাছেও যেয়ো না, নিশ্চয়ই তা অশ্লীল কাজ ও মন্দ পথ।’ (সুরা আল ঈশরা, আয়াত : ৩২)
ইসলামের দৃষ্টিতে সন্তান বৈধ হওয়ার জন্য শর্ত হলও, বৈধ বিয়ের মাধ্যমে যৌনমিলন থেকে সন্তানের জন্মগ্রহণ। এ প্রসঙ্গে নবী করিম (সা.) বলেন,‘সন্তান তারই, যার সঙ্গে (বৈবাহিক সম্পর্কের ভিত্তিতে) ফিরাশ বা শয্যা-যাপন হয়। আর ব্যভিচারকারীর জন্য রয়েছে পাথর।’ (বুখারি, হাদিস : ২০৫৩)
তাই সন্তানের বৈধ পিতৃত্বের স্বীকৃতির জন্য তার মা-বাবার বৈধ বিয়ে অপরিহার্য। এই বৈধ বিয়ের মাধ্যমে সংঘটিত মিলনের ফসল হিসেবে যে সন্তান জন্ম নেবে, তা হবে ওই পুরুষের সন্তান। কারণ যৌনমিলনের মাধ্যমে সাধারণত পুরুষের বীর্য স্ত্রীর জরায়ুতে প্রবিষ্ট হয়। আর তা থেকেই জন্ম নেয় সন্তান। এটাই প্রাচীনকাল থেকে সন্তান জন্ম দানের রীতি। আধুনিককালে অবশ্য যৌনমিলন ছাড়াও স্বামীর বীর্য স্ত্রীর জরায়ুতে স্থাপনের কৃত্রিম ব্যবস্থা মানুষ অবিষ্কার করেছে। বর্তমান যুগে এ কারণে যৌনমিলন ছাড়াও সন্তান জন্ম নিচ্ছে। কৃত্রিম গর্ভ সঞ্চারের নব-আবিষ্কৃত এ পদ্ধতির নাম টেস্টটিউব। এখানে টেস্টটিউব সন্তান সম্পর্কে ইসলামের দৃষ্টিভঙ্গি পাঠকদের সামনে পেশ করছি।
টেস্টটিউবে গর্ভ সঞ্চার করে তা মানব জরায়ুতে স্থাপন করা ইসলাম অবৈধ মনে করে না। তবে ইসলাম এ ক্ষেত্রে সে সন্তানকে বৈধ সন্তান বলে স্বীকৃতি দানের জন্য নিম্নোক্ত শর্তগুলো আরোপ করে।
১. বীর্য ও ডিম্বাণু অবশ্যই স্বামী ও স্ত্রীর কাছ থেকে সংগ্রহ করতে হবে, অন্য কোনও পুরুষ ও নারীর কাছ থেকে বীর্য ও ডিম্বাণু সংগ্রহ করে তা দ্বারা গর্ভ সঞ্চার করা যাবে না।
২. টেস্টটিউবে সঞ্চারিত ভ্রূণ অবশ্যই স্ত্রীর জরায়ুতে স্থাপন করতে হবে, অন্য কোনও মহিলার জরায়ুতে তা স্থাপন করা যাবে না।
৩. স্বামীর বীর্য ও স্ত্রীর ডিম্বাণু নিয়ে টেস্টটিউবে গর্ভ সঞ্চারের বিষয়টি অবশ্যই স্বামীর জীবদ্দশায় হতে হবে। স্বামীর মৃত্যুর পর বীর্য ব্যাংকে রক্ষিত তার বীর্য দ্বারা কিছুতেই গর্ভ সঞ্চার করা যাবে না।
এ প্রসঙ্গে বিগত ৮-১৩ সফর, ১৪০৭ হিজরি মোতাবেক ১১-১৬ অক্টোবর ১৯৮৬ খ্রিস্টাব্দে জর্ডনের রাজধানী আম্মানে অনুষ্ঠিত ওআইসির ফিকাহ একাডেমীর অধিবেশনে গৃহীত সিদ্ধান্তে বলা হয়েছে—
কৃত্রিম গর্ভ সঞ্চার (টেস্টটিউব) প্রসঙ্গে পঠিত প্রবন্ধ এবং এ বিষয়ক বিশেষজ্ঞ ও চিকিৎসকদের বক্তব্য শোনা এবং সামগ্রিকভাবে এ বিষয়ে জানার পর অধিবেশনের কাছে প্রতীয়মান হয়েছে যে বর্তমান যুগে কৃত্রিম গর্ভ সঞ্চারের সাতটি পদ্ধতি রয়েছে। অধিবেশন এ প্রসঙ্গে নিম্নোক্ত সিদ্ধান্তাবলি গ্রহণ করছে—টেস্টটিউবের অবৈধ পদ্ধতি
নিম্নোক্ত পাঁচটি পদ্ধতি শরিয়তের দৃষ্টিতে হারাম ও সম্পূর্ণভাবে নিষিদ্ধ। কারণ এর ফলে পিতৃ পরিচয় ও মাতৃ পরিচয় উভয়টি ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার মতো ইসলামী শরিয়ত-বিরোধী বিষয় রয়েছে।
এক. স্বামীর কাছ থেকে সংগৃহীত বীর্য ও অন্যের স্ত্রীর কাছ থেকে সংগৃহীত ডিম্বাণুর মাধ্যমে ভ্রূণ সৃষ্টি করে পরে তা স্ত্রীর জরায়ুতে স্থাপন করা।
দুই. কোনও পরপুরুষের বীর্য এবং স্ত্রীর ডিম্বাণু নিয়ে ভ্রূণ সৃষ্টি করে পরে তা স্ত্রীর জরায়ুতে স্থাপন করা।
তিন. স্বামীর বীর্য ও স্ত্রীর ডিম্বাণু নিয়ে ভ্রূণ সৃষ্টি করে পরে তা অন্য কোনও নারীর জরায়ুতে স্থাপন করা।
চার. পরপুরুষের বীর্য ও পরস্ত্রীর ডিম্বাণু নিয়ে বাইরে (টেস্টটিউবে) ভ্রূণ সৃষ্টি করে পরে তা স্ত্রীর জরায়ুতে স্থাপন করা।
পাঁচ. স্বামীর বীর্য ও স্ত্রীর ডিম্বাণু নিয়ে তা দ্বারা বাইরে (টেস্টটিউবে) ভ্রূণ সৃষ্টি করে পরে তা স্বামীর অন্য স্ত্রীর জরায়ুতে স্থাপন করা।
টেস্টটিউবের অবৈধ পদ্ধতি
ষষ্ঠ ও সপ্তম পদ্ধতি, এ দুটি পদ্ধতি প্রয়োজনে অবলম্বন করা যেতে পারে, অবশ্য এ পদ্ধতি-দ্বয় অবলম্বন করার সময় সব সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। পদ্ধতি দুটি হলও—
ছয়. স্বামীর বীর্য ও স্ত্রীর ডিম্বাণু সংগ্রহ করে বাইরে টেস্টটিউবে তা দ্বারা গর্ভ সঞ্চার করে অতঃপর তা স্ত্রীর জরায়ুতে স্থাপন করা।
সাত. স্বামীর বীর্য সংগ্রহ করে তা সিরিঞ্জ দ্বারা তার স্ত্রীর জরায়ু বা ডিম্ব-বাহী নালিতে প্রবিষ্ট করে জরায়ুর অভ্যন্তরে গর্ভ সঞ্চার করা। (মুজাল্লাতুল মাজমা, সংখ্যা-৩, খণ্ড-১, পৃষ্ঠা-৪২৩, সিদ্ধান্ত নম্বর-১৬ (৩/৪)
হাদিসে জিব্রিল,সারোগেট মাদার এবং কিয়ামতের আলামত।
আমরা মোটামুটি সবাই বিখ্যাত হাদিস, হাদিসে জিব্রিলের কথা জানি। সাহাবীদের ইসলামের মৌলিক বিষয়াবলী শিক্ষা দেয়ার জন্য জিব্রাইল (আ) একদিন মানুষের আকৃতিতে রসূল (স) এর নিকট এসে বিভিন্ন প্রশ্ন করেন? তার মাঝে একটি প্রশ্ন ছিল ‘কিয়ামত কবে হবে?’ উত্তরে তিনি (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) বললেন,‘‘এ বিষয়ে যাকে জিজ্ঞেস করা হচ্ছে তিনি প্রশ্নকারীর চাইতে অধিক কিছু জানেন না।’’ আগন্তুক ( জিব্রাইল (আ)) বললেন,‘‘তবে কিয়ামতের নিদর্শনসমূহ সম্পর্কে বলুন।’’ তিনি (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) বললেন,‘‘কিয়ামতের নিদর্শন হল,দাসী তাঁর আপন মুনিবকে প্রসব করবে,তুমি আরও দেখতে পাবে- নগ্ন-পায়ী বিবস্ত্র হত-দরিদ্র মেষ চালকেরা বড় বড় দালান-কোঠা নিয়ে গর্ব ও অহংকার করবে।’’
মা হবে দাসী আর যাকে প্রসব করা হবে সে হবে মালিক,আমি কখনোই হাদিসের এই অংশটি ভালোভাবে বুঝতে পারিনি। অনেকেই বিভিন্নভাবে এটি ব্যাখ্যা করার চেষ্টা করেছেন। সম্প্রতি আমি জানতে পারলাম, বিশ্বের নির্দিষ্ট কিছু অংশে - আমি তার নাম বলবো না - যেখানকার মানুষ অনেক টাকা পয়সার মালিক। আর তাদের চাকর-বাকরেরও কোনও অভাব নেই। সে অঞ্চলের কিছু কিছু মেয়েরা প্রসব যন্ত্রণার মধ্য দিয়ে যেতে চায় না। তাদের সৌন্দর্য নষ্ট হবে, শারীরিক কষ্টের মধ্য দিয়ে যেতে হবে সহ নানা কারণে তারা এটা করতে চায় না। তারা সন্তান চায় কিন্তু নিজের শরীরের কোন ক্ষতি চায় না।
তাই তারা বিশ্বের বিভিন্ন গরিব দেশ থেকে চাকর মেয়ে নিয়ে আসে এবং সারোগেট প্রেগন্যান্সি পদ্ধতিতে মেয়েটার গর্ভ ভাড়া করে। সারোগেট প্রেগন্যান্সি হল - মায়ের কাছ থেকে ডিম্বাণু এবং বাবার শুক্রাণু নিয়ে কৃত্রিম উপায়ে নিষিক্ত করা হয়। তারপর একটি বা আরও বেশি ভ্রূণ নিয়ে অন্য একজন ভাড়া করা মেয়ের গর্ভে স্থানান্তর করা হয় যাকে বলা হয় সারোগেট মাদার। তারপর সারোগেট মা এই সন্তানকে পেটে বহন করতে থাকে এবং একসময় এর জন্ম দিয়ে থাকে। সারোগেট মায়ের সাথে সন্তানের কোনও জেনেটিক সম্পর্ক থাকে না, কারণ ডিম্বাণু তার নিজের ছিল না। এককথায়, সারোগেট মা অন্য এক ব্যক্তি বা দম্পতির সন্তান প্রসব করে থাকে।
এখন দেখুন, চাকর মেয়েটি যাকে তারা অন্য দেশ থেকে ভিসা দিয়ে এনেছে সে তাদের সন্তানের জন্ম দিচ্ছে তারপর এই সারোগেট মা তার বাকি জীবন এই সন্তানের সেবা করেই কাটিয়ে দিবে। কারণ সে তো ঐ বাড়ির চাকর, আর যাকে সে জন্ম দিয়েছে সে ঐ বাড়ির মালিকের সন্তান। এই সন্তানের সাথে তার কোনও জেনেটিক সম্পর্ক নেই। তাহলে দেখুন, একেবারে আক্ষরিক অর্থেই দাসী তার মুনিবকে প্রসব করছে। একেবারে আক্ষরিক অর্থেই!!
আবার সেই একই হাদিসে রাসূলুল্লাহ (স) বলেছেন - "নগ্ন-পায়ী বিবস্ত্র হত-দরিদ্র মেষ চালকেরা বড় বড় দালান-কোঠা নিয়ে গর্ব ও অহংকার করবে।" হাদিসটি এমনকি ভৌগোলিকভাবেও সম্পর্কযুক্ত।
--- উস্তাদ নোমান আলী খান কর্তৃক আলোচিত সূরা আলে ইমরানের ৪২ তম পর্বের আলোচনা থেকে অনুপ্রাণিত।)

* সংগৃহীত- ভুল থাকলে পরিমার্জন করে দিলে বাধিত হব।
Fertility tourism’ বা উর্বরতা পর্যটনঃ
‘Fertility tourism’ কিছু দেশ, যেমন যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, গ্রীস, ইউক্রেন, জর্জিয়া এবং রাশিয়া বিদেশী অভিভাবকদের জন্য জনপ্রিয় সারোগেসি গন্তব্য। যোগ্যতা, প্রক্রিয়া এবং ব্যয় এক দেশ থেকে আরেক দেশে আলাদা। সরোগেসির জন্য ‘উর্বরতা পর্যটন'টি(Fertility tourism) দেশে দেশে ব্যাপকতা পায় সেই দেশের আইন বা অর্থ ব্যায়ের বিষয়ের উপর। পূর্বে জনপ্রিয় গন্তব্যগুলি, ভারত, নেপাল, থাইল্যান্ড এবং মেক্সিকো সবসময়েই বিদেশীদের জন্য বাণিজ্যিক সারোগেসির উপর নিষেধাজ্ঞা কার্যকর করেছে।
ব্যায়ঃ
বাণিজ্যিক সারোগেসি সরবরাহকারী কয়েকটি দেশগুলির মধ্যে ইউক্রেনে খরচ সবচাইতে কম।
ইউক্রেনের একটি সারোগেটের মাধ্যমে বাচ্চা হওয়ার জন্য বিদেশী পিতা-মাতার জন্য ৩০,০০০ থেকে ৪৫,০০০ ডলারের মধ্যে ব্যয় হয়। ইউক্রেনিয়ানদের জন্য কিছুটা কম। ১০,০০০ থেকে ১৫,০০০ ডলার সারোগেট মায়ের কাছে যায়।
ইউক্রেনের একটি সমৃদ্ধ সারোগেসি শিল্পের জন্ম হয়েছে এবং যেখানে বিদেশীরা ইচ্ছে করলেই সারোগেসি’র মাধ্যমে বাচ্চা নিতে পারে এমন কয়েকটি দেশগুলির মধ্যে একটি এটি। প্রায় ৫০ টি ক্লিনিক দেশে সারোগেটের জন্মের ব্যবস্থা করে, যেখানে চরম অর্থনৈতিক দুরবস্থার সাথে লড়াই অনেক ইউক্রেনীয় মহিলাকে সরগেট মা হতে বাধ্য বা প্ররোচিত করে!
... ২০০২ সাল থেকে ডিম / শুক্রাণু অনুদানের সাথে সারোগেসি এবং সারোগেসি ইউক্রেনে একেবারে আইনী। আইন অনুসারে জন্মদানকারী সন্তানের উপর দাতা বা সারোগেট মায়ের কোনও পিতামাতার অধিকার নেই এবং জন্মগ্রহণকারী সন্তানের আইনত আইনত আইনসম্মত পিতা-মাতার সন্তান। এমনকি সন্তানের জাতীয়তা নিয়েও তাদের কোন বাধ্যবাধকতা নেই।
ভারতীয় সারোগেসি আইনঃ বিদেশী অভিভাবকদের ভারতে কোনও সারোগেসি সম্পূর্ণ করা অবৈধ।
বর্তমানে ভারতে বাণিজ্যিক সরোগ্যাসি সম্পন্ন করতে পারবেন এমন একমাত্র ব্যক্তি হল কমপক্ষে পাঁচ বছর ধরে বিবাহিত ভারতীয় অভিভাবকরা।
ভারতে সাম্প্রতিক অতীতে শাহরুখ খান বা আমির খানের মতো বলিউড চিত্রতারকারা সারোগেসির সাহায্যে সন্তানের পিতা হয়েছেন – যদিও তারা আগে থেকেই স্বাভাবিক পদ্ধতিতে বাবা ছিলেন।
তুষার কাপুরের মতো চিত্রতারকাও সারোগেসির সাহায্যে বাবা হয়ে নিজেকে সিঙ্গল ফাদার হিসেবে ঘোষণা করেছেন। নতুন আইন পাস হলে এরা কেউই এভাবে তাদের স্বপ্ন পূরণ করতে পারবেন না।
মিস স্বরাজ কারও নাম না-নিয়েও এদিন বলেছেন, ‘‘সেলেব্রিটিরা অনেকেই সারোগেট বেবি নিচ্ছেন – যদিও তাদের আগে থেকেই হয়তো দুটো ছেলেমেয়ে আছে। তার পরেও তারা তৃতীয় সন্তান নিতে চাইছেন সারোগেসির মাধ্যমে – কারণ তাদের স্ত্রীরা গর্ভধারণের কষ্টটুকু করবেন না, সেই কাজটার জন্য তারা অন্য কাউকে ভাড়া করবেন!’’
ধর্ম ও সামাজিক প্রতিবন্ধকতার কারনে সারোগেসি নিয়ে বাংলাদেশে কেঊ উচ্চবাচ্য করতে চায় না। যারা করে তারা বেশ চুপিচুপিই করে। বাংলাদেশে সারোগেসি সম্ভবত বৈধ নয়! সম্ভবত বললাম এই কারনেই যে, এই সংক্রান্ত যুতসই কোন আইন আমি পাইনি।হয়তো আইনপ্রনেতারা এই সংক্রান্ত আইন প্রনয়ন করেননি,এড়িয়ে গেছেন কিংবা জানেনন অথবা অন্য আইনের সাথে মিলিয়ে রেখেছেন।
আইনে যাই থাকুকনা কেন, গোপনে যে, এই দেশে সারোগেসি হয় না একথা হলফ করে বলতে পারবে না- যেহেতু সবকিছু বেশ গোপনীয় সেহেতু, খরচের ব্যাপারটা উহ্য থাকুক।
‘চার বছর আগে ঢাকার এক দম্পতি ভারতে গিয়ে গর্ভ ভাড়া নিয়ে সন্তান পাওয়ার অভিজ্ঞতার কথা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান ডয়েচ ভেল’কে তিনি জানান,‘‘আমার স্ত্রী'র শারীরিক ঝুঁকির কারণে সন্তান নিতে ভয় পাচ্ছিলাম পরে ঢাকারই এক গাইনী চিকিৎসক আমাদের সারোগেসি সম্পর্কে ধারণা দেন৷ পরে আমরাও বিষয়টি সম্পর্কে জানি৷ নিশ্চিত হয়ে ওই চিৎিসকের মাধ্যমেই আমরা ভারতের চেন্নাইয়ে গিয়ে গর্ভ ভাড়া নিই, সব মিলিয়ে আমাদের ১০ লাখ টাকা খরচ হয়েছে৷ আমরা একটি কন্যা সন্তান পেয়েছি''
নারী ও শিশু বিষয়ক বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ডা. আব্দুল্লাহ শাহরিয়ার ডয়েচ ভেলকে জানান, ‘‘বাংলাদেশে এখন টেস্টটিউব বেবি'র বিষয়টি বৈধ এবং প্রকাশ্য এ নিয়ে এখনো কিছুটা সামাজিক রাখঢাক থাকলেও বিষয়টি এখন আর গোপন নয় নিঃসন্তান দম্পতিরা টেস্টটিউব বেবি নিচ্ছেন৷ আমরা এখানে গর্ভ ভাড়া দেয়া বা নেয়ার কথাও শুনছি৷ তবে তা সুনির্দিষ্টভাবে জানতে পারছি না৷ কারণ, সামাজিক বিষয় ছাড়াও এটি এখানে আইনগত বৈধতা এখনো পায়নি৷ কিন্তু দেশের বাইরে গিয়ে যে কেউ কেউ সারোগেসির মাধ্যমে সন্তান নিচ্ছেন তা অস্বীকার করা যাবে না৷''
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আরেকজন চিকিৎসক জানান, ‘‘ঢাকায় সারোগেট বেবি আছে৷ আমরা চিকিৎসকরা তাদের চিনিও৷ দম্পতিদেরও চিনি৷ তারা এখানেই করিয়েছেন৷ কিন্তু কেউ প্রকাশ করেন না৷''
হলি ফ্যামিলি হাসপাতালের গাইনি বিভাগের প্রধান ডা. বিলকিস বেগম চৌধুরী ডয়েচ ভেল’কে বলেন,‘‘বাংলাদেশে সারেগেসি হয় কিনা, এ বিষয়ে আমি নিশ্চিত নই৷ তবে আমি অনেক দম্পতিকেই চিনি, যারা এই পদ্ধতি সম্পর্কে জানেন এবং আগ্রহ আছে৷ আর এখানে সারোগেট মাদার পাওয়া তেমন কঠিন হওয়ার কথা নয়৷ কারণ, তরুণ এবং অল্প বয়সে তালাক প্রাপ্ত অনেকের মধ্যে আমি সারোগেট মাদার হওয়ার আগ্রহ লক্ষ্য করেছি৷''-ডয়েচ ভেল

-মুল প্রবন্ধঃ শেরজা তপন, সময়কালঃ ১২ জুন,২০২০। কৃতজ্ঞতাঃ উইকুপিডিয়া সহ অন্যান্য মিডিয়া

মন্তব্য ১০ টি রেটিং +২/-০

মন্তব্য (১০) মন্তব্য লিখুন

১| ১০ ই নভেম্বর, ২০২০ বিকাল ৪:৪৬

রাজীব নুর বলেছেন: ভালো একটা বিষয় উপস্থাপন করেছেন।
আমি পরে ফিরে আসছি পোষ্টে। কারন এই পোস্ট মন দিয়ে পড়তে হবে।

১০ ই নভেম্বর, ২০২০ বিকাল ৫:২৫

শেরজা তপন বলেছেন: ধন্যবাদ আপনাকে-অপেক্ষায় রইলাম...

২| ১১ ই নভেম্বর, ২০২০ দুপুর ১২:২৯

মোঃমোস্তাফিজুর রহমান তমাল বলেছেন: গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ের আলোচনা করা হয়েছে। বাংলাদেশে সরোগেসির আনুষ্ঠানিক অনুমোদন বাঁধাপ্রাপ্ত হবে ধর্মীয় সেন্টিমেন্ট ও সঠিক আইন না থাকার কারণে।এই ব্যাপারটাকে আসলে মানবিক দৃষ্টিকোণ থেকে দেখা উচিৎ।
অনেক দিন পরে আপনার লেখা পেলাম।

২৪ শে নভেম্বর, ২০২০ সকাল ৯:৪৫

শেরজা তপন বলেছেন: দুঃখিত তমাল ভাই দেরিতে মন্তব্যের উত্তর দেবার জন্য।
সামুর সমস্যা আর আমার ব্যস্ততার জন্য নিয়মিত ব্লগিং করা আর হয়ে উঠছে না।
বরাবরার মত অনুপ্রণিত করার জন্য আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা। ভাল থাকুন সর্বক্ষন

৩| ১১ ই নভেম্বর, ২০২০ দুপুর ১:৩৫

নিয়াজ সুমন বলেছেন: অনেক অজানা বিষয় জানা হলো।

২৪ শে নভেম্বর, ২০২০ সকাল ৯:৪৬

শেরজা তপন বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ আপনাকে।দেরিতে মন্তব্যের উত্তর দেনার জন্য দুঃখিত

ভাল থাকুন নিরন্তর!

৪| ০৭ ই ডিসেম্বর, ২০২০ সকাল ৮:৫৩

কল্পদ্রুম বলেছেন: পড়াশোনার স্বার্থে সারোগেসির বায়োলজিক্যাল কনসেপ্ট কিছুটা জানতাম।বিভিন্ন ধর্মের মনোভাব এবং আইনী দিকগুলো আগ্রহ নিয়ে পড়লাম।চমৎকার লেখা।

০৯ ই এপ্রিল, ২০২১ সকাল ১০:৫৯

শেরজা তপন বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ প্রিয় কল্পদ্রুম আপনাকে দারুন মন্তব্যের জন্য।
উত্তরটা দিতে একটু দেরি হয়ে গেল।
ভাল থাকুন নিরন্তর।

৫| ০৮ ই এপ্রিল, ২০২১ ভোর ৪:৫৭

ডঃ এম এ আলী বলেছেন:

সারোগেসির খুটি নাটি ও বিভিন্ন দৃষ্টিকোণ থেকে
সারোগেসির বিস্তারিত বিবরণ লেখাটিতে উঠে এসেছে ।
একটি আসাধারণ পোষ্ট , প্রিয়তে তুলে রাখলাম ।

শুভেচ্ছা রইল

০৯ ই এপ্রিল, ২০২১ সকাল ১০:৫৮

শেরজা তপন বলেছেন: ডাঃ এম এ আলী ভাই, আপনার মত গুনী একজন ব্লগারের মন্তব্য পেয়ে যার পর নাই আনন্দিত হলাম!
কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি লেখাটা প্রিয়েতে তুলে রাখার জন্য।
ভাল থাকুন, সুন্দর থাকুন সুস্থ্য থাকুন!

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.