নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

মাঝে মাঝে মনে হয় জীবনটা অন্যরকম হবার কথা ছিল!

মাঝে মাঝে মনে হয় জীবনটা অন্যরকম হবার কথা ছিল!

শেরজা তপন

অনেক সুখের গল্প হল-এবার কিছু কষ্টের কথা শুনি...

শেরজা তপন › বিস্তারিত পোস্টঃ

আঁতেলদের আসরের একখানা জোকস

২২ শে মে, ২০২১ রাত ১১:৪৬


গত কয়েকদিন যাবত ব্লগের কাঁদা ছোড়াছুঁড়ির পরিবেশ দেখে আমি ভীষন মর্মাহত! হাতে সময় ছিল তাই দু-য়েকটা লেখা পোষ্ট করতে গিয়েও দেইনি, ভাল লাগছিল না। মন ভাল করার জন্য সামুর তথাকথিত সেই স্বর্ন যুগের ব্লগ মাতিয়ে রাখা বুদ্ধিমান রসিক কিছু ব্লগারের কৌতুক পড়ছিলাম। ( সেগুলো সম্ভবত ব্লগের আর্কাইভে আর নেই- আমি কিছু সংগ্রহ করে রেখেছিলাম) পরিবেশটা হালকা করার জন্য ব্লগারদের নিমিত্তে তার একখানা পেশ করলাম;
---------------------------------------------------------------------------------------------------------
প্রবাসী এক ভদ্রলোক বহুদিন বাদে দেশে এসে পুরোনো এক বন্ধুর আড্ডায় বসেছেন।
কিন্তু আড্ডার টপিক্স আর সটাইল দেখে বেচারা ভ্যাবাচ্যাকা খেয়ে গেল- তার পরিচিত আড্ডার সাথে কোনভাবেই এটাকে মেলাতে পারছেন না।
কথার থেকে ভাবনা বেশী, গল্প চলে সংক্ষিপ্ত কিংবা কোড শব্দে।দীর্ঘক্ষন বসে থেকেও তিনি তাদের ভাবনা আর গল্পের বিষয় কোনভাবেই বিন্দুমাত্র বুঝে উঠতে সক্ষম হলেননা।
তবে পরিবেশ অতিরিক্ত ভাবগম্ভীর হয়ে গেলে-আচমকা কেউ একজন বেশ সরস ভঙ্গীতে একটা নাম্বার উচ্চারন করেন-আর তখুনি সবাই দমফাটানো হাসিতে গড়াগড়ি খায়।
এর অন্তনিহিত তাৎপর্য তিনি উপলব্ধি করতে না পেরে অবশেষ পাশে বসা বন্ধুর কাছে চুপি চুপি জিজ্ঞেস করলেন, ব্যাপার কি একটা নম্বর শুনেই সবাই এমনি করে হাসে কেন?
প্রতিউত্তরে ওই বন্ধু বললেন। পৃথিবীর তাবৎ কৌতুক এ আড্ডার সবারই জানা।তাই এখন পুরো জোকস পুরোটা বলে কেউ আর পরিবেশ নষ্ট করতে চায়না। আমরা সবগুলো জোকস এর ই একটা কোড নম্বর দিয়েছি। সেই নম্বরটা কেউ বললেই বাকি সবাই বুঝে ফেলে কোন জোকস্-আর তখুনি ছোটে হাসির ফোয়ারা।
প্রবাসী ভদ্রলোক বহুদিন বাদে দেশে এসেছেন।বহু খুজেও এই একজন বাদে পুরোনো আর কোন বন্ধুর হদিস পাননি-অগত্যা একঘেয়ে অবসর সময়টা কাটানোর জন্য সেই আড্ডার বিকল্প আর খুজে পেলেননা। অতএব ঘুরে ফিরে তার সেখানেই যাওয়া।

গল্পে আর ভাবনায় ওদের সাথে তাল মেলানো সম্ভব নয় ভেবে, তিনি জোকস এর নাম্বারের দিকে মনোযোগ দেবার চেস্টা করলেন। কয়েকদিন গভীর ভাবে লক্ষ্য করলেন কোন জোকসটা শুনলে সবাই সব'চে বেশী হাসে?
আমরা ধরে নিই সেই নম্বরটা ১৩
কোন একদিন আড্ডা চরম ভাবগম্ভীর পরিবেশ লক্ষ্য করে তিনি মওকামত ঝেড়ে দিলেন তার অস্ত্র-জোকস নম্বর ১৩
কিন্তু একি সবাই দেখি তার জোকস শুনে আরো বেশী গম্ভীর হয়ে গেল!!
ঘটনার আকস্মিকতায় বেশ কিছুক্ষন বিমুঢ় থেকে-লাজ শরমের মাথা খেয় অবশেষে বন্ধুর সরনাপন্ন হলেন। কনুই এর গুতো দিয় বন্ধুকে ফিসফিসয়ে জিজ্ঞেস করলেন ব্যাপার কি?
বন্ধু প্রবর আরো বেশী গম্ভীর হয়ে বিষন্ন কন্ঠে বললেন, ‘সবাই জোকস্ বলতে পারেনা!!’

হ্যাপি ব্লগিং

মন্তব্য ৫৫ টি রেটিং +৩/-০

মন্তব্য (৫৫) মন্তব্য লিখুন

১| ২৩ শে মে, ২০২১ রাত ১২:১০

রাজীব নুর বলেছেন: আজকাল কোনো কৌতুকে আমার হাসি আসে না কেন? সমস্যা টা কোথায়? আমি তো হাসতে চাই। হো হো করে হাসতে চাই।

২৩ শে মে, ২০২১ সকাল ৭:৫৩

শেরজা তপন বলেছেন: সম্ভবত আপনার বাবার মৃত্যু আপনাকে কাটখোট্টা বানিয়েছে। বিষন্ন ও হতাশাগ্রস্ত আপনি।
আমার মনে হচ্ছে কখনো খুব বেশী উদাসীন ঠাকছেন , কখনোবা খুব অল্প কথায় রিয়্যাক্ট করছেন। ধীরে ধীরে সব ঠিক হয়ে যাবে-
অপেক্ষা করুন আপনার কন্যা-ই আপনাকে হাসাবে...

২| ২৩ শে মে, ২০২১ রাত ১২:১৭

জটিল ভাই বলেছেন: রোগ নিয়ে আলোচনার চাইতে চিকিৎসা খুঁজা উত্তম।

২৩ শে মে, ২০২১ সকাল ৮:০২

শেরজা তপন বলেছেন: আপনিতো ব্লগে সারাদিন মজার মজার পোষ্ট দেন রে ভাই। আপনার জটিল কথনেরতো অনেক ফ্যান আছে বলে মনে হয়।
সম্ভবত নেহায়েত মজার ছলে রাজীব নুরকে নিয়ে প্যরডি কবিতায় করা @চাঁদ্গাজী'র মুহুর্মুহু আক্রমানত্মক মন্তব্যে আপনি শেষে
আর নিজেকে সংযত করতে পারেননি। জনাব চাঁদগাজী রাজীব নুরকে অন্ধভাবে ভাল বাসেন। দুজনের সম্পর্ক নিয়ে অনেক মজা হয়
সারাক্ষন ব্লগে।
তাকে ইগ্নোর করলেই সম্ভবত ল্যাঠাটা চুকে যেত। ব্লগতো আমাদের পরিবারের মত ঝুট-ঝামেলা হবে আবার সব ঠিক ঠাক হয়ে
যাবে একদিন।
আমি আশা করব লেখা নিয়ে যত পারুন সমালোচনা করুন( অশ্লীল-ভাবে নয়) ব্যক্তিগত আক্রমনে কেউ আর যাবেন না।

৩| ২৩ শে মে, ২০২১ রাত ১২:৪৮

চাঁদগাজী বলেছেন:



জোকস সব সময় পরিবেশকে হালকা করে, মানুষ হাসেন, আলোচনার পতঃ খোলে; আমি জোকস পছন্দ করি। আপনি একবার মধ্য-এশিয়ার জোকসও ধাঁ ধাঁ বলেছিলেন।

২৩ শে মে, ২০২১ সকাল ৮:১০

শেরজা তপন বলেছেন: আমার ব্যাক্তিগত অভিমত; আপনি অর্ধেক কথা বলা মানুষ! আপনার আ'তে আলু হবে না আম হবে এইটে বুঝতে অনেকেরই কষ্ট
হয়।
আবার যখন বলেন তখন বেশী বলে ফেলেন -থামানো কষ্ট হয়। আপনি চাইলে ব্লগে শান্তির পরিবেশ সৃষ্টি হয় অতি সহজেই- কিন্তু
এমন সব বেমক্কা মন্তব্য করেন যে ফের অগ্নিতে ঘৃতাহুতি হয়।
এসব কি ইচ্ছাকৃতভাবেই করেন?

৪| ২৩ শে মে, ২০২১ রাত ১২:৫১

কামাল১৮ বলেছেন: রোগটা জটিল,তাই অপারেশন ছাড়া চিকিৎসা নাই।

২৩ শে মে, ২০২১ সকাল ৮:১২

শেরজা তপন বলেছেন: যাকে এবং যার লেখা পছন্দ হয়না তাকে ইগনোর করলেই সব সমস্যার সমাধান! অযথা ছুরি কাঁচি চালিয়ে রক্তাক্ত করবেন কেন
ভায়া!!

৫| ২৩ শে মে, ২০২১ রাত ১২:৫৮

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:
কিছু অতিমাত্রার উন্মাদদের
কারনে এখন জোকস শুনেও
কেউ হাসেনা !

২৩ শে মে, ২০২১ সকাল ৮:২২

শেরজা তপন বলেছেন: আমি মনে-প্রানে বিশ্বাস করি আপনার পরিচ্ছন্ন লেখার মত আপনিও একজন ভাল মানুষ।
আপনার আর তেনার তিতে-মিঠে সম্পর্ক ! কিন্তু মজা করে লেখা সেই কাব্যটার রস খোলা রাখা ছাই'ইয়ে বাতাসের কাজ করেছে।

হাসবে হাসবে - কত সাইক্লোন, টাইফুন, ঘুর্ণিঝড় আসল গেল! অপেক্ষা করেন

৬| ২৩ শে মে, ২০২১ রাত ১:৪৪

রানার ব্লগ বলেছেন: বাংগালী ধিরে ধিরে হাসতে ভুলে যাচ্ছে

২৩ শে মে, ২০২১ সকাল ৯:০৯

শেরজা তপন বলেছেন: আমরা অকারনে বেশী সিরিয়াস হয়ে যাচ্ছি। মনে হচ্ছে দেশে যুদ্ধাবস্থা বিরাজ করছে...

৭| ২৩ শে মে, ২০২১ রাত ১:৪৯

মা.হাসান বলেছেন: শেরজা তপন ভাই, ভিষণ কষ্ট পেলাম :( । বুকটা ভেঙে গেলো |-) । ব্লগের পবিত্র মাটিতে কাদা ছোড়াছুড়ি? এও কি সম্ভব X(( ? গুজব না তো? কারা করে এসব? :||

সব অতিরিক্ত টেলিভিশন দেখার ফলাফল। পাঁচ টাকার সার্ফ এক্সেল সব ময়লা পরিস্কার করে - এইসব বিজ্ঞাপন দেখার ফল।
চিকিৎসা আছে কি?

আমার মনে হয় মডু একটা প্রনোদনার ব্যবস্থা করতে পারে। প্রতি মাসের শেষে মডু ব্লগের সবচেয়ে ভদ্র, শান্তিকামি ব্লগারকে "এমাসের সুশিল ব্লগার" এই খেতাব দিতে পারেন। খ্যাতির মোহে হয়তো দুষ্ট লোকেরা ভালো হয়ে যাবে।

এ মাসের জন্য আমার নিজের নাম প্রস্তাব করে গেলাম :`> । আপনাদের সাপোর্ট একান্ত কাম্য।

বি.দ্র.-- জোকটা বুঝতে পারলাম না। তাই পোস্টে লাইক দিলাম না।

২৩ শে মে, ২০২১ সকাল ১১:৫১

শেরজা তপন বলেছেন: মা. হাসান ভাই,
আমি যখন 'আমাদের চামড়া ও চামড়াশিল্পে কেন আজ এই ভয়াবহ পরিস্থিতি?' নিয়ে একটা ধারাবাহিক লিখছিলাম তখন ব্লগের কেউ একজন আমার দৃষ্টি আকর্ষন করে বলল যে, আমি যেন ব্লগার মা.হাসান ভাই এর লিঙ্ক দিয়ে তার মতামত জানার জন্য অনুরোধ করলে আমি আপনার ব্লগে গিয়ে আমার এখানে এসে মন্তব্যের জন্য অনুরোধ করলাম।
আপনি আমার অনুরোধ রেখে দারুন কিছু মন্তব্য করে আমাকে উৎসাহিত উদ্দীপ্ত করলেন। আমি বেশ অনুপ্রাণিত হয়েছিলাম। সেই থেকে আপনি আমার প্রিয় একজন ব্লগারের লিষ্টে আছেন। আপনার বিভিন্ন পোষ্ট ও মন্তব্যে আমিএসয় ব্লগের অনেকেই উপকৃত হয়েছে।
আপনার মত বুদ্ধিমান সুলেখক ব্লগার চাইলে সামু ব্লগকে অন্যরকম এক উচ্চতায় নিয়ে যেতে পারেন।
আমি চাই আপনি ফিরে আসুন নিজস্ব বৃত্তে। ভাল থাকুন সুস্থ্য থাকুন নিরন্তর।

৮| ২৩ শে মে, ২০২১ রাত ১:৫৪

মা.হাসান বলেছেন: ইউরেকা ! বুঝতে পেরেছি!
আসলে কোনো কাদা ছুড়াছুড়ি হচ্ছে না! কাল্পনিক_কাদা ছোড়াছুড়ি- এটাই আপনার জোক!
কি দুর্দান্ত!

তবে কি পুরস্কার পাবো না? :(
নাহ, মডুর একটু প্রো একটিভ হওয়া দরকার। কে কখন কাদা ছোড়াছুড়ি শুরু করে ঠিক নাই। আগে থেকে ব্যবস্থা নেয়া ভাল। এই জন্য পুরস্কারটা চালু থাক। প্রথম সুশিল হিসেবে আমার নামটা সমর্থন করতে ভুলবেন না কিন্তু।

আর হ্যা, দুর্দান্ত জোকের জন্য এবার কিন্তু লাইক দিয়ে গেলাম B-))

২৩ শে মে, ২০২১ সকাল ৯:১৪

শেরজা তপন বলেছেন: আপনার মন্তব্যের উত্তর পরে দিচ্ছি- একটু সময় নিয়ে, ভেবে-চিন্তে

৯| ২৩ শে মে, ২০২১ রাত ২:০৭

স্বামী বিশুদ্ধানন্দ বলেছেন: আপনাকে ধন্যবাদ ব্লগে একটু হিউমার আনার চেষ্টার জন্য !

ব্লগে কাঁদা ছুড়াছুড়ি একটু বেশি হচ্ছে বলেই মনে হচ্ছে। ইদানিং দল বেঁধে দুএকটি সিন্ডিকেটের কিছু সদস্যদের কোনো কোনো ব্লগারকে আক্রমণ করতে দেখা যাচ্ছে, অনেকটা হায়না যেমন তার শিকারের উপর একত্রে ঝাঁপিয়ে পড়ে। ব্লগের বা পোস্টের বিষয়বস্তু বাদ দিয়ে ব্লগারকে আক্রমণে কেহ ব্যস্ত এবং তার দলভুক্তরা সুযোগ মতো এসে অর্পিত বিষয়াদি সমাধা করছে (ড: আলী ভাইয়ের একটি কমেন্ট থেকে আংশিক কোট করলাম) বলেই মনে হচ্ছে।

এটা খুবই দুঃখজনক। কারো পোস্ট বা অবস্থান পছন্দ না হলে এভোয়েড করা অথবা যুক্তি দিয়ে ডিফেন্ড করাটাই সুস্থ ব্লগিঙের পক্ষে সহায়ক হবে এবং সামুর জন্য মঙ্গলদায়ক হবে।

২৩ শে মে, ২০২১ সকাল ৯:১৩

শেরজা তপন বলেছেন: 'স্বামী বিশুদ্ধানন্দ বলেছেনঃএটা খুবই দুঃখজনক। কারো পোস্ট বা অবস্থান পছন্দ না হলে এভোয়েড করা অথবা যুক্তি দিয়ে ডিফেন্ড করাটাই সুস্থ ব্লগিঙের পক্ষে সহায়ক হবে এবং সামুর জন্য মঙ্গলদায়ক হবে।'

-খুবই সঠিক। আমি আপনার মতামতকে সাপোর্ট করছি ও শ্রদ্ধা জানাচ্ছি!
ডঃ আলী সাহেবের মত ব্লগার চাইলে ব্লগের পরিবেশ ঠান্ডা করতে অনেক অবদান রাখতে পারেন। বেশীরভাগ ব্লগাররা তার মতামতকে শ্রদ্ধা করেন। তবে দুঃখজনক যে, তার ভাষাও ছিল কিছুটা আক্রমনাত্মক!

১০| ২৩ শে মে, ২০২১ রাত ২:৩৬

এস এম মামুন অর রশীদ বলেছেন: ৭৭৩

২৩ শে মে, ২০২১ সকাল ৯:০৮

শেরজা তপন বলেছেন: :) আমরাতো আঁতেল নই; একটু ব্যাখ্যা করুন রশীদ ভাই?

১১| ২৩ শে মে, ২০২১ রাত ২:৩৭

নেওয়াজ আলি বলেছেন: যারা কাঁদা ছুড়াছুড়ি করার তারা স্বর্গ কিংবা নরক যেখানেই থাকবে একটু ছুড়ে মারবে । এইসব নিয়ে মন খারাপ করে লাভ নাই

২৩ শে মে, ২০২১ সকাল ৯:০৭

শেরজা তপন বলেছেন: আপনি সজ্জন নির্বিবাদী ভাল মানুষ। ভাল থাকুন

১২| ২৩ শে মে, ২০২১ সকাল ৮:২৫

মোঃমোস্তাফিজুর রহমান তমাল বলেছেন: কয়েকটা সিরিজ আপনি আটকে রেখেছেন।কুট্টি জোকসের সিরিজটা আপনি আর শেষ করেন নি। এক পর্ব বাকি ছিলো। রুশ উপকথার সিরিজিটাও বাকি। সেদিন বাবনিকের পঞ্চম পর্ব দিয়েও সরিয়ে নিলেন। এসব জিনিস পোস্ট করতে থাকেন। ভালো পোস্ট এলে ক্যাচাল থেকে মানুষের মন ডাইভার্টেড(এর বাংলা মনে নাই।জানা দরকার অবশ্যই।) হয়।

আঠারো নম্বর জোক টা শুনতে চাই। যদিও আমার জোক বলার এখতিয়ার আছে কি না জানি না।

২৩ শে মে, ২০২১ সকাল ৯:০৬

শেরজা তপন বলেছেন: বাবনিক সিরিজের পঞ্চম পর্ব ড্রাফট-এ নেবার আগে এর কারন জানিয়েছিলাম আপনার মন্তব্যের উত্তরে।
দীর্ঘক্ষন অপেক্ষা করবার পরে কোন সাড়া না পেয়ে সেটা ড্রাফটে নিয়ে যাই।
ব্লগের পরিবেশ আরেকটু ঠান্ডা হলে একটানা ৮-১০ পর্ব দিয়ে দিব।
ও দুটো সিরিজ বাদেও আমার আরো কিছু লেখা অসামপ্ত রয়ে গেছে। তার মধ্যে একটা হচ্ছে' একটি অসমাপ্ত বিজ্ঞাপন চিত্রের গল্প'
ও গল্প থেকে নাটক।
আপনি আমার অসমাপ্ত লেখাগুলোর কথা এমন করে মনে রেখেছেন দেখে আমি আপ্লুত , অভিভুত! আপনাকে কৃতজ্ঞতা জানানোর
ভাষা নেই।
-ভালো পোস্ট এলে ক্যাচাল থেকে মানুষের মন ডাইভার্টেড(এর বাংলা মনে নাই।জানা দরকার অবশ্যই।) হয়।'
ঠিক বলেছেন; দেখি গতিপথ পরিবর্তন হয় কিনা??

১৩| ২৩ শে মে, ২০২১ সকাল ৯:৩৯

মোঃমোস্তাফিজুর রহমান তমাল বলেছেন: "বাবনিক সিরিজের পঞ্চম পর্ব ড্রাফট-এ নেবার আগে এর কারন জানিয়েছিলাম আপনার মন্তব্যের উত্তরে।"
আমি তখন ব্লগে ছিলাম না।ব্লগে ঢুকে দেখি আপনার প্রতিউত্তরের নোটিফিকেশন।তাতে ক্লিক করে দেখি পোস্ট নেই। তাই মন্তব্যটা দেখতে পারিনি।
সিরিজগুলোর অপেক্ষায় থাকলাম।

২৩ শে মে, ২০২১ সকাল ১০:৫৮

শেরজা তপন বলেছেন: শুধু আপনার জন্য হলেও আমি সিরিজের বাকি পর্বগুলো নিয়ে আসছি শিঘ্রী।

ধন্যবাদ সাথে থাকর জন্য।

১৪| ২৩ শে মে, ২০২১ সকাল ১০:৫০

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন:
ব্লগের বর্তমান অবস্থা আমার কাছে ভালো লাগছে না।
আমরা মানুষ হিসাবে ভালো নই।
ব্লগে তার প্রমাণ মেলে।

২৩ শে মে, ২০২১ সকাল ১০:৫৬

শেরজা তপন বলেছেন: ------ মাত্রারিক্ত স্বাধীনতা মানুষের ভেতরের নোংরা দিকগুলো বের করে আনে সহজেই...

আপনাকে মিস করছিলাম।

১৫| ২৩ শে মে, ২০২১ সকাল ১১:১৬

জটিল ভাই বলেছেন: আপনার সুন্দর প্রতিউত্তরে মুগ্ধ হলাম :) অসংখ্য ধন্যবাদ। তবে আমার সমস্যাটা আপনি যেভাবে ভেবেছেন তেমন নয়। আমি প্রথম যখন ব্রগে আসি তখন প্রামানিক ভাই, সেলিম ভাইরা ছিলেন যার মাঝে আপনিও একজন। তখনের পরিবেশটা নিশ্চই মনে আছে। এরপর ব্যক্তিগত কারণে নিয়মিত ব্লগে আসা বন্ধ হয়ে যায়। তারমাঝে আপনার বলা ব্যক্তিটির আগমন। সঙ্গত কারণে তার নাম মুখে নিতেও আমার বাঁধে। কারণ, হঠাৎ এসে দেখি ব্যক্তিটি যা ইচ্ছে কমেন্ট করে বসে। তার সঙ্গে আমার পরিচয় নেই, তারপরও গায়ে পরে এসে করা তার কমেন্টগুলো তখন হতেই আমার ভালো লাগেনি। তার ব্যক্তিত্ব আমার পছন্দ হয়না। কিন্তু বহুদিন এড়িয়ে চলেছি। বুঝাতে চেষ্টা করেছি। কিন্তু আমার ভদ্রতা যেনো তারজন্য দুর্বলতা। আর আমরাতো মানুষ, শয়তান নই যে এতো ধৈর্য থাকবে! তাই তাকে আর নিতে পারছিনা। কিন্তু তারতো এসব লাজ-লজ্জার কোনো বালাই নেই! আর সমস্যাটা সেখানেই।
নতুবা আগে থেকেই দেখেছেন, আমি ব্লগের ক্যাঁচালে কোন পক্ষ ধরিনা। পোস্টে চেষ্টা করি সবাইকে আনন্দ দিতে। এর বেশি কিছু নাতো......

২৩ শে মে, ২০২১ সকাল ১১:২৮

শেরজা তপন বলেছেন: আমি প্রায় তের বছর ধরে ব্লগিং করছি কারো সাথে ক্যাচালে জড়াইনি! কেন??
তার মানে কি আমি তেলবাজ, ভন্ড, নিবীর্য, গাটস লেস???
মোটেই নয়- আমি প্রতিদিন মনে মনে বহু মানুষকে ইচ্ছেমত গালি দেই- যদি সুযোগ পেতাম আর ঝামেলা না থাকত তাহলে আমার হাতে শতাধিক মানুষ
খুন হয়ে যেত এতদিন- যার অর্ধেকরই সাথে পরিচয় ছিল মাত্র এক মুহুর্তের। শুধু একটা বাঁকা বা তীর্যক হাসির জন্য কাউকে খুন করে ফেলতে ইচ্ছে করে।
ব্লগ আমার কাছে জীবনের সুবিশাল মরুতে একটা মরুদ্যান! যেখানে আসলে আমি আরামবোধ করি- সপ্নের মাঝে বিচরন করে এক অন্য জগতের বাসিন্দা
হয়ে যাই।
আমরা আর কত ভাগ করব। যখন তিন/চারশ ছিল তখনো ভাগ করেছি, এখন তিরিশ চল্লিশজনে ভাগ করছি। ধর্ম,জাতি , রাজনীতি দেশ সমাজ, পরিবার
সবখানেই আমরা ভাগ হচ্ছি- একে অপরের তুচ্ছ কারনে শত্রু হয়ে যাচ্ছি!
একটা কথা স্মরণে রাখবেন, বাংলাদেশের সরকার বিরোধীদল থেকে শুরু করে দুর্নীতিবাজ, ধার্মিক(কট্টর) -অধার্মিক(কট্টর) সবাই ব্লগকে ভুয় পায়। আমাদের মতামতকে একেবারে হেলাফেলা করা যাবে না। আমাদের অনেক দ্বায়িত্ব।
ভাল থাকুন

১৬| ২৩ শে মে, ২০২১ সকাল ১১:২৮

জটিল ভাই বলেছেন: তবে আমি অশ্লীল ভাষার উত্তরেও কখনও অশ্লীল ভাষা ব্যবহার না করে এড়িয়ে যাই। আর ব্যক্তিগত আক্রমণ যখন কেউ করে সীমা ছাড়িয়ে যায় তখন প্রতিহত করতে চেষ্টা করি। এটা কি আমার অপরাধ? এক্ষেত্রে আপনার পরামর্শ পেলে কৃতজ্ঞ হই। সুষ্ঠ সামু চেয়ে আমিও কিন্তু কম পোস্ট-কমেন্ট করিনা যা হয়তো আপনার নজন এড়ায়নি আশা করি......

২৩ শে মে, ২০২১ সকাল ১১:৩০

শেরজা তপন বলেছেন: আপনার উত্তর আগের মন্তব্যে দিয়েছি।

আমি অনেক কিছু লক্ষ্য করার চেষ্টা করি...

১৭| ২৩ শে মে, ২০২১ দুপুর ১২:১৭

রাজীব নুর বলেছেন: হ্যাঁ আব্বা হঠাত মরে যাওয়াতে আমি সীমাহীন মানসিক যন্ত্রনার মধ্যে আছি।
তবে সেই যন্ত্রনা কিছুটা কাটিয়ে ঊঠতে সাহায্য করছে আমার পাঁচ মাসের কন্য ফারাজা।

গুতকালের কথা শুনুন। ভোর পাঁচ টা বাজে। কন্যার ঘুম ভেঙ্গে গেছে। সে হ্যাপি মুডে আছে। খুব হাসছে। এদিকে আমার চোখে ঘুম। ঘুম বাদ দিয়ে কন্যার সাথে খেলা করলাম। ভোর হতে দেখলাম। মনে হলো- জীবনটা আনন্দময়।

২৩ শে মে, ২০২১ দুপুর ১২:২৭

শেরজা তপন বলেছেন: হাঃ হাঃ বেশ তো!
আপনার কন্যাকে আমার আদর সোহাগ ও ভালবাসা। সে বাপের মনের ভাব বুঝতে পেরেছে। আমাদের চার দেয়ালের ঘোরটোপে প্রায় বন্দী জীবন কাটানো শহুরে বাপেরা পৃথিবীর সেরা বাপ!!!

১৮| ২৩ শে মে, ২০২১ দুপুর ১:১২

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: জোক্‌স বা কৌতুক আমার খুবই পছন্দের বিষয়। ভাবার্ত খোঁজার খুব একটা চেষ্টা করি না। এক জোক যতবার পড়ি ততবারই হাসতে থাকি।

বাবনিক এখন কোথায়?

ফিলিস্তিন-ইসরাইল ইস্যুটা আসলে মনের উপর বেশ ছাপ ফেলেছে। যুদ্ধ বিরতির ঘোষণায় কিছুটা স্বস্তি মিলেছে। অতি শীঘ্রই নিজের আরেকটা পোস্ট দিয়ে দিব বলে ভাবছি। কিছুদিন নিজেরে আমি খুব অ্যাক্টিভ দেখেছিলাম, আবার নিভে গেছি কিছুটা :)

জোকটা জানা ছিল। পৃথিবীখ্যাত ৫০টা কৌতুকের তালিকায় এটা আছে। আনিসুল হকের এক গদ্যকার্টুনে এটা পড়েছিলাম। সবটুকু মনে ছিল না, আপনার পোস্ট পড়ে পুরোটা বুঝলাম :)

আমার এক বন্ধু আছে। তাকে কৌতুকের জন্য স্টেজে উঠিয়ে দিলেই আমরা হাসতে হাসতে গড়াগড়ি যাই। আর আমি যদি দম ফাটানো কৌতুকটাও বলি, সবাই মুখ গম্ভীর করে বসে থাকবে :)

রাশিয়ার এক বিখ্যাত কৌতুকবক্তা বাংলাদেশে এসেছেন। বিরাট হলঘরে থৈথৈ করছে মানুষ তার কৌতুক শোনার জন্য। তিনি একটা কৌতুক বলেন, আর ইন্টারপ্রিটার কৌতুক বলা শেষে নিজের ভাষায় অনুবাদ করে পাবলিককে বলেন। ঘটনা হলো, রাশিয়ান বক্তা ৫-১০ মিনিট ধরে কৌতুক বলেন, কেউ হাসে না, খালি গুঞ্জন শোনা যায়। বাঙালি ইন্টারপ্রিটার মাত্র ১০-২০ সেকেন্ডে সেটা অনুবাদ করে দেন, আর পাবলিক হাসতে হাসতে হাততালি দিতে দিতে হাতের চামড়া ফাডাইয়া ফেলেন। রাশিয়ান বাংলা ভাষার প্রকাশ ক্ষমতা দেখে মুগ্ধ, অভিভূত ও বিস্মিত। তিনি জানতে চান, তোমাদের ভাষা এত শক্তিশালী? কীভাবে সম্ভব? দোভাষী বলেন- এইডা কোনো কতা অইল? তুমি এতক্ষণ ধরে কৌতুক কইলা তোমার রাশান ভাষায়। আমি দাঁড়াইয়া পাবলিকরে খালি বলি - এইমাত্র ১১ নাম্বার কৌতুক বলা শেষ হইল। বাকিডা ইতিহাস

২৩ শে মে, ২০২১ দুপুর ২:২৯

শেরজা তপন বলেছেন: সোনাবীজে কত রস লুকিয়ে আছে সেটা আপনার সাক্ষাতে বলি কেমনে :)
ফাটিয়ে দিয়েছেন দাদা। আপনাকে না দেখে মনটা বড্ড আনচান করছিল

'বাবনিক' আমার নিজের অরবিট- ফাও এইদিক ওইদিন কান্নি খাচ্ছঅ।

বাবনিক নিয়ে আসছি খানিক বাদে। লম্পটের মহল্লায় আইসেন কিন্তু

১৯| ২৩ শে মে, ২০২১ দুপুর ১:১৬

দেশ প্রেমিক বাঙালী বলেছেন: আমরা পরবাসে মজার অভিজ্ঞতা জানতে চাই।

২৩ শে মে, ২০২১ দুপুর ২:৩৩

শেরজা তপন বলেছেন: আপনি নিজেইতো মাঝে মধ্যে ডুব দেন- এমন বোদ্ধা পাঠক না থাকলে লেখা-লেখিতে আগ্রহ থাকে?

২০| ২৩ শে মে, ২০২১ দুপুর ১:৫৬

পদ্মপুকুর বলেছেন: কৌতুক মনে হচ্ছে করোনার মতই নানা ভেরিয়েন্ট তৈরী করছে। :) আমি এই কৌতুকটা শুনেছিলাম এরকম- শেষে যখন তিনি বললেন ১৩, তখন সবাই হো হো করে পেট চেপে হাসতে হাসতে গড়িয়ে পড়তে লাগলো। শেষ মেসশ একজন কোনোরকম হাসি চেপে বললো- এই কৌতুকটা আগে কোনোদিন শুনিনি......

আবার সোনাবীজ---- এর রাশিয়ার কৌতুকটা শুনেছি এরকম- এক আমেরিকান সেনা কর্মকর্তা জাপানী সেনাবাহিনীর ট্রেইনার হিসেবে এসেছেন। আমেরিকানরা একটু ফানি আছে। সেই সেনা কর্মকর্তা ট্রেইনিংয়ের আগে ভাবলেন একটা কৌতুক বলে সোলজারদেরকে কিছুটা সহজ করে নিই। এরপর দীর্ঘ কৌতুক শেষে সে দোভাষীকে বললো ট্রান্সলেট করতে। দোভাষী মাত্র দুইটা কি তিনটা শব্দ বলতেই সোলজাররা হেসে গড়াগড়ি খেতে লাগলো....

এটা দেখে আমেরিকান খানিকটা অবাক হয়ে দোভাষীকে জিজ্ঞাসা করলো- আমি এতক্ষন ধরে যে কৌতুক বললাম, তুমি সেটা মাত্র দুই তিন শব্দেই কিভাবে শেষ করলে?

দোভাষী বললো- স্যার আপনি যে কৌতুক বলেছেন, সেটা একটুও হাসির হয়নি। ওইটা শুনলে সোলজাররাও হাসতো না। তখন আপনার মন খারাপ লাগতো। তাই আমি ওদের বলেছি যে স্যার একটা খুব হাসির কৌতুক বলেছেন, সবাই হাসো....

২৩ শে মে, ২০২১ দুপুর ২:৩৫

শেরজা তপন বলেছেন: এইটা সবদেশেই সবখানেই হয়; মুজতবা আলী তার একটা লেখায় একই কৌতুকের ভিন্ন দেশে রকমফের নিয়ে একটা নিবন্ধ লিখেছিলেন-সেখানেও
বাঙ্গালীকে এগিয়ে রাখা হয়েছে।

আপনারটাও বেশ মজার :)

২১| ২৩ শে মে, ২০২১ বিকাল ৩:১২

সাড়ে চুয়াত্তর বলেছেন: আমেরিকার একজন কূটনীতিবিদ রাশিয়া গেছেন। একটা সভাতে উনি রাশিয়ান কূটনীতিবিদদের সাথে ইংরেজিতে কথা বলছেন। ওনার কথা একজন দোভাষী রাশিয়ান ভাষায় অনুবাদ করে দিচ্ছেন কিছুক্ষন পরপর। পরিবেশ হাল্কা করার জন্য কথা প্রসঙ্গে অ্যামেরিকান ভদ্রলোক আলোচনার সাথে সঙ্গতিপূর্ণ একটা কৌতুক বললেন। কৌতুকটা একটু লম্বা ছিল তাই উনি একটু সময় নিয়ে ইংরেজিতে বললেন। কৌতুক বলা শেষ হলে দোভাষী রাশিয়ানদের উদ্দেশ্যে দুই একটা শব্দ বলার পরই রাশিয়ান কূটনীতিকরা হাসতে লাগলেন। অ্যামেরিকান ভদ্রলোক তখন দোভাষীকে জিজ্ঞেস করলেন যে আপনি এতো কম শব্দে কিভাবে আমার লম্বা কৌতুকটা ওদেরকে বললেন? উত্তরে দোভাষী বললে যে আমি শুধু বলেছি যে আপনি একটা কৌতুক বলেছেন তাই আপনারা একটু হাসুন। এই কারণে তারা হাসছে। :)

২৩ শে মে, ২০২১ বিকাল ৫:২৮

শেরজা তপন বলেছেন: জোকসের স্টকতো আপনার সিরাম ভ্রাতা :)

২২| ২৩ শে মে, ২০২১ বিকাল ৫:০৬

এস এম মামুন অর রশীদ বলেছেন: আহা, শেরজা ভাই, ৭৭৩ হচ্ছে আপনার কৌতুকগুচ্ছেরই একটি কৌতুক। নম্বরটি বললাম শুধু, আর আপনি নিজেই বেমালুম ভুলে গেলেন! এখানে ৪ নং-এ আছে এরকম আরও কিছু কৌতুক। :)

গণিতের সপ্ত কৌতুক (৪)

২৩ শে মে, ২০২১ বিকাল ৫:২৬

শেরজা তপন বলেছেন: বেকুব কি আর গাছে ধরে- আমি আসলেই একটা গর্ধভ :) :)

২৩| ২৩ শে মে, ২০২১ রাত ৯:৪৩

মা.হাসান বলেছেন: প্রিয় তপন ভাই, সাতনম্বর মন্তব্যের জন্য এত দীর্ঘ জবাব দেয়ায় আমি অভিভুত।

ব্লগকে অন্য উচ্চতায় নেয়ার সামর্থ বা আগ্রহ আমার নাই। বাঁশ দিয়ে ব্লগকে অনেকেই উচু করার কাজে নিয়োজিত। আমি বড়জোর একজন দর্শক হতে পারি।

আপনি বলেছেন আপনি চামড়া সংক্রান্ত পোস্ট লেখার পর আপনার পোস্টে কেউ একজন আমার নাম উল্লেখ করেছিলো। অত্যন্ত সম্মানিত বোধ করছি। তবে অন্য রকম ধারণাও তো থাকে - যেমন:

@ভুয়া মফিজ ,

আপনি, জটিলভাই, মা.হাসান, বিদ্রোহী ভৃগু, লোনার, ইত্যাদির লেখাগুলো আমার কাছে অখাদ্য মনে হয়েছে সব সময়।

রেফারেন্স: এই পোস্টে দেখুন

আপনার পোস্টের কিছু সমালোচনা করি। প্রথম লাইনে আপনি বলেছেন কাদাছোড়াছুড়ির কারণে আপনি ভীষন মর্মাহত

ব্লগে একজন রুচিহীন পার্ভার্ট সাইকো বিভিন্ন পোস্টে যেয়ে দীর্ঘদিন ধরে কদর্য কমেন্ট করে আসছেন।
দুটি নমুনা দেখুন-
প্রথম পোস্টের লিংক

দ্বিতীয় পোস্টের লিংক

এই পোস্টে ঐ সাইকোর দুটি মন্তব্য আছে। আপনার কাছে কি এগুলো সুস্থ লোকের মন্তব্য মনে হয়?

আমার অ্যাকাউন্টের বয়স ৫ বছরের মতো হলেও ব্লগে ঘোরাঘুরির বয়স মাত্র আড়াই বছরের মতো। এই সময়ে সামুতে সবচয়ে সমৃদ্ধ যে কয়জন ব্লগার পেয়েছি তাদের মধ্যে শ্রদ্ধেয় জাফরুল মবীন একজন। জাফরুল মবীনের একাধিক পোস্টে দেখা যায় উনি পোস্ট দেয়ার পর একজন ব্লগার তাতে পাগলা কুকুরের মতো ঝাপিয়ে নোংরা মন্তব্য করছেন। অনেক মন্তব্যই মডারেটর মুছে দিতে বাধ্য হয়েছেন। জাফরুল মবীনের ব্লগ পেজের লিংক দিলাম: জাফরুল মবীন

উনি কি মানের লেখা লিখতেন তা ওনার যে কোনো পোস্ট পড়লেই বুঝতে পারবেন। ওনার একাধিক লেখা স্টিকি হয়েছে, সম্ভবত প্রতিটাই হবার মতো ছিলো।

আরেকজন সমৃদ্ধ ব্লগার ছিলেন শের শায়েরী। মডারেটর নিজেও ওনার পোস্টের ভক্ত ছিলেন। শের শায়েরীর ব্লগ পাতার লিংক: শের শায়েরী

শের শায়েরীর শেষের দিলের পোস্ট গুলো পড়লে দেখবেন- প্রতিটিতেই অসংলগ্ন, কুৎসিৎ মন্তব্য।

ব্লগের আরেকজন্য অনন্য ব্লগার হলেন ম্যাভেরিক। আমি যখন ব্লগে আসি তখন উনি ব্লগ ছেড়ে গেছেন। তবে সম্প্রতি উনি ফিরে এসেছেন। ওনার ব্লগ পেজের লিংক: এস এম মামুন অর রশীদ । ওনার লেখাতেও আক্রমন। তবে কম। কেনো? কারণ জাফরুল মবীন বা শের শায়েরী ছিলেন অতি ভদ্র, কুৎসিৎ মন্তব্যের প্রতিবাদ করতেন না, নীরবে সহ্য করতেন। ম্যাভেরিক ভাই কুকুরের ঘেউ ঘেউ দেখলে কুকুরকে পাল্টা মুগুর দেখান।

এই পার্ভার্টকে বার বার জেনারেল করে মডুও ক্লান্ত। অতীতে ব্যান করার পর নতুন নামে অ্যাকাউন্ট খুলে নোংরামি চালিয়ে যাচ্ছে।
ওনার নোংরা মন্তব্য থেকে ব্লগার করুণাধারা, রাবেয়া রহীম, ফাহমিদা বারী- কেউই রেহাই পান নি।
আজকে আপনি কাদা ছোড়াছুড়ি দেখে মর্মাহত। কিন্তু ঐ নোংরামি দেখে কি কখনো প্রতিবাদ করেছেন? বরং বলেছেন "এমন ব্লগার আছেন বলেই ব্লগ এখনো প্রানবন্ত!"
(কোন পোস্টে বলেছেন ভুলে গেলে লিংক দিতে পারি।

ওনার নোঙরামির বিরোধীতা করাকে আপনি কাদা ছোড়াছুড়ি বলেন, মর্মাহত হন আর নোংরা মন্তব্যকে আপনি বলেন প্রানবন্ত!
বিষয়টা কি ডাবল স্ট্যান্ডার্ড না?

আমার বোঝার ভুল হয়ে থাকতে পারে। ভুল ধরিয়ে দিতে পারেন। মুখের উপর সত্য কথা, যত তিতা হোক, বললে রাগ পুষে রাখি না।
মন্তব্য পছন্দ না হলে মুছে দিতে পারেন। এটাও আমি গায়ে মাখি না।
অনেক ভালোবাসা ( সারকাজম না, আপনি আসলেই আমার প্রিয় লেখক)।

২৩ শে মে, ২০২১ রাত ১১:৪৫

শেরজা তপন বলেছেন: শেরজা তপন বলেছেন: বরং বলেছেন "এমন ব্লগার আছেন বলেই ব্লগ এখনো প্রানবন্ত!"
(কোন পোস্টে বলেছেন ভুলে গেলে লিংক দিতে পারি।) - একথা অবশ্যই আমি বলেছি, প্রমানের দরকার নেই।
সমালোচনা যদি করতেই হয় তবে সম-আলোচনা করতে হবে। যেমন আপনি আমার ব্যাপারে করেছেন। ডাব স্ট্যান্ডার্ড বলায় আমি
কষ্ট পাইনি, আসলেই আমি ডাবল স্ট্যান্ডার্ড মেইন্টেইন করি।
এই ব্লগের অলমোস্ট সবাইওকে আমি ভালবাসি। আমার একসময়ের চরম লম্পট এখন যেমন নামাজ পড়তে পড়তে কপালে
দাগ
ফেলে দিয়েছে তেমনি ব্লগের অনেক ভয়ঙ্কর কুটিল লেখকেরা সভ্য ভব্য হয়ে কলম পিষছে।
শের শায়েরী, ম্যাভেরিকের মত ব্লগার আপনার যেমন আমারও অতি প্রিয়। তারা মনে হয় না ওনার আক্রমনে ভয় পেয়েছেন।
আমার প্রতিবাদের স্টাইল অন্য রকম; তিনি ঘন ঘন পোস্ট মুছে ফেলেন দেখে আমি বহুদিন তার কোন পোষ্টে মন্তব্য করিনি।
তিনি যখন আক্রমন করেন আমাকে আমি তখন একটুখানি খোঁচা দিয়ে আরো বেশী ভালবাসা প্রকাশ করি। যেমন তিনি আলকাশে আচমকা প্রশ্ন করলেন;
চাঁদগাজী বলেছেন:
করোনার টিকা আবিস্কার বন্ধ করে দিলে, কেমন হয়?
২৮ শে জুলাই, ২০২০ রাত ১০:০১০
লেখক বলেছেন: আপনি লেখার বাইরে এমন সব প্রশ্ন করেন!!!
খুব ভাল হয় - আমারতো হয়ে গেছে। স্বার্থপর মানুষতো- নিজেকেই নিয়ে ভাবি শুধু

কোরবানির মত বিষয় নিয়ে তিনি যখন ভীষন কটুক্তি করে একটা পোস্ট দিলেন তখন আমি মন্তব্যে লিখেছিলাম;
২০২০ ভাই চাঁদগাজী,
কেউ বলে; কুরবানি দিয়ে হুদাই মানুষ টাকা পয়সা নষ্ট করে।কেউ কেউ বলে; বেশী দামে গরু কিনে ফাউ ফুটানি দেখাইতে গিয়া কোটি কোটি টাকা হাওয়া হয়ে গেল!
এটাকে হাওয়ায় মিলিয়ে যাওয়া বলছেন কেন? কারো না কারো হাতে যাচ্ছে এ টাকা,কত হুজুর,কসাই,দালাল,ফড়িয়া,খামারি, গরু-পালনকারি প্রান্তিক জনগন,হাটের ইজারাদার,হোগলা, চাটা্‌ ছুরি , তুষ ঘাস বিক্রেতা,মাদ্রাসার এতিম পোলাপান,চামড়া ব্যাবসার সাথে হাজার হাজার লোক!
গরুর কি শুধু মাংস কাজে লাগে? আপনি খোঁজ নিয়ে দেখেন কত সহস্র মানুষ প্রতিক্ষায় থাকে এই দিনের-তাদের একটু ব্যাবসা হবে বলে। হাড় গোর,মাথানি,খুর,শিং এইসব দিয়ে কত কিছু তৈরি হচ্ছে আর খবর কি রাখেন ভাই। চামড়া থেকে ফেলে দেয়া মাংস দিয়ে কত লোকের অন্ন সংস্থান হচ্ছে জানেন? শুধু কোরবানীর গরুর মাথার চামড়া প্রসেস করে কত শত পরিবার সারা বছর চলে সেটা জানেন? এমনকি গরুর মুত্রথলি, অন্ডকোষ নাকি রপ্তানি করেন কেউ কেউ!
আমাদের ব্লাক গোটের উৎকৃষ্ট মানের চামড়ার জন্য কত দেশ অপেক্ষা করে এটা জানেন? সারা বছরে কসাইরা কেনে হাড় জির জিরে গরু মহিষ। সেই চামড়ার গ্রেডিং আর কোরবানীর চামড়ার গ্রেডিং এ কত পার্থক্য সেটা অনেকেই জানেনাঅকিছু বাজে মানুষের কারসাজিতে চামড়ার বাজারটা নষ্ট হয়ে গেছে- কিন্তু ভারত উন্মুখ হয়ে থাকে সারা বছর, চায়নার কিছু ব্যাবসায়িরাও আবহাওয়া-জনিত কারনে এখানকার গরুর চামড়া মান ওদের থেকে অনেক ভাল( চামড়ার স্থায়িত্ব বেশী ও গ্রেইন সুক্ষ, প্রসেসিং এ পরিবেশ দুষনের জন্য আমরা মার খেয়ে গেছি)। জাপানিজরা এদেশে চামড়াজাত পন্যের জন্য বেশী আসে- গার্মেন্টস এর জন্য না।
কত হাজার এতিম অনাথ(যাদের সমাজের অন্য কোথাও জায়গা হত না) মাদ্রাসায় পড়ুয়া ছেলে পিলের সারা বছরের সংস্থান হয় কি না? আমরা গত বছরের কথা ভুলে যাই) চাইলে এ নিয়ে।
কোরবানিটা হতে পারে নিঃশ্বংসতা,বড়লোকের বড়লোকি দেখানোর মাধ্যম। অযথাই রক্ত মাংসের মচ্ছব। কিন্তু এটা ধর্ম ছাড়িয়ে আমাদের অর্থনীতি/ ঐতিহ্যের মধ্যে ঢুকে গেছে।
-এই মন্তব্যের পরেই উনি পোস্ট সরিয়ে নিয়েছিলেন। পরে সম্ভবত কোরবানি নিয়ে আর কোন পোস্ট দেননি।

আমার 'অবশেষে 'রুস্কাইয়া ব্লুদা' বই আকারে প্রকাশ পেল!!!' পোস্টে উনি মন্তব্য করলেন;
চাঁদগাজী বলেছেন:
অভিনন্দন।
নিজের পকেট থেকে পয়সা দিয়েছেন?
০৫ ই এপ্রিল, ২০২১ সন্ধ্যা ৭:১২১

লেখক বলেছেন: আপনার খোঁচাটা মারাত্মক হয়েছে!
পয়সা ছাড়া যেই বইগুলো ছাপা হয় সেগুলো খুব মান সম্পন্ন হয় নাকি? প্রকাশকরা সেই বইগুলি কোন দৃষ্টিভঙ্গীতে ছাপেন?
আপনার মনে হয় স্বরে অ এর স্বত্বাধিকারী আবু বকর সিদ্দিকি রাজুর সাথে পরিচয় নাই। থাকলে ভাল হত।
তবে অনেক ধন্যবাদ আপনার মত গুণী একজন ব্লগারের অভিনন্দনের জন্য। ভাল থাকুন।
আরো অনেক কিছু লেখার ইচ্ছে ছিল- সময় পেলাম না বাকিটুকু পরে লিখব।

২৪| ২৩ শে মে, ২০২১ রাত ১১:৩১

এস এম মামুন অর রশীদ বলেছেন: মা. হাসান সুন্দর মন্তব্যে ব্লগের সামগ্রিক পরিস্থিতি তুলে ধরেছেন, বিশেষ করে সাইকোর ব্যাপারে তাঁর পর্যবেক্ষণ যথার্থ। এরকম সাম্প্রদায়িক মন্তব্যের কারণে স্ক্যান্ডিনেভীয় এলাকার মতো চরম মুক্তমতের দেশেও বিচারে সাজাপ্রাপ্ত হয়ে জেল খাটার মতো নজির আছে। সাইকোর ভাগ্য ভালো সামু ব্লগ বলে বারবার পার পেয়ে যাচ্ছে, উপরন্তু কিছু মুরিদও জুটিয়ে ফেলেছে।

২৫| ২৪ শে মে, ২০২১ রাত ১২:৪১

জটিল ভাই বলেছেন:
এম মামুন অর রশীদ বলেছেন: মা. হাসান সুন্দর মন্তব্যে ব্লগের সামগ্রিক পরিস্থিতি তুলে ধরেছেন, বিশেষ করে সাইকোর ব্যাপারে তাঁর পর্যবেক্ষণ যথার্থ।
আরেকটি নমুনা দিলাম। গতকাল পর্যন্ত সবাইকে জামাত-শিবির বানিয়ে দিচ্ছিলো।

২৪ শে মে, ২০২১ সকাল ৮:১৯

শেরজা তপন বলেছেন: উনি যাদের কথা বলেছেন, প্রত্যেকেই ব্লগের জনপ্রিয় ব্লগার এবং আমার অতি প্রিয় মানুষ!
কারো ব্লগে গিয়ে অন্য কোন ব্লগারের নাম ধরে তুচ্ছ তাচ্ছিল্য করা অত্যান্ত গর্হিত কাজ। আমি এর তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি,
যারা সারাক্ষন ব্লগ মাতিয়ে রাখেন- যাদের লেখা পড়ার জন্য ব্লগাররা মুখিয়ে থাকেন তাদেরকে এভাবে হেয় করা অতি নীচু
মানসিকতার পরিচায়ক।

আমি মনে করি ইগ্নোর করাই সর্বোত্তম পন্থা!

২৬| ২৪ শে মে, ২০২১ দুপুর ১২:৪০

অশুভ বলেছেন: বহুদিন আগে একটা নাটক দেখেছিলাম নাম "মুড়ির টিন"। মারজুক রাসেল মাতালের অভিনয় করেছিলেন। সেখানে তিনি "মুড়ির টিন" বাসে বসে তিনদিন আগের বাসি পত্রিকা খুব মনোযোগ দিয়ে পড়ছিলেন। পাশ থেকে তা লক্ষ্য করে এক ভদ্রলোক (কচি খন্দকার) মন্তব্য করেন, "পাড় মাতাল তো তিনদিন ধরে মনে হয় বেহুঁশ ছিল, তাই তিনদিন যে পার হয়ে গেছে তা টেরই পায় নাই।" এই কথা শুনে মারজুক রাসেলের উত্তর ছিল, "আজকের পত্রিকায় কলাম লিখছে ঘটনার অন্তরালে। এখন যদি ঘটনাই না জানি তাহলে অন্তরালে পইড়া লাভ কী? তাই তিনদিন আগের পত্রিকায় ঘটনা পড়তেছি, তারপর অন্তরালে পড়ব।"
আমার অবস্থা হয়েছে সেরকম ব্লগে কখন কী নিয়া ক্যাচাল হয় টেরই পাই না। কার সাথে কার লাগে কিছুই জানি না। মাঝে মাঝে দেখি দু-চারজন ব্যান খাইয়া বসে থাকে। আমি খালি অন্তরালে পড়তে পারি, কিন্তু আসল ঘটনাই জানি না। =p~
আপনার জোকসটা ভাল লাগছে।

২৪ শে মে, ২০২১ দুপুর ১:০০

শেরজা তপন বলেছেন: বাঃ বাঃ বেশ বলেছেন :)
আমিও বরাবর অন্তরালে-ই পড়তাম। এবার ক্যাম্নে ক্যমনে যেন আগের খবর পড়ে ফেলেছি।

এসব থেকে দূরে থাকাই ভাল- না জানা আরো ভাল।
ধন্যবাদ ফের

২৭| ৩০ শে মে, ২০২১ ভোর ৬:৪৩

সোহানী বলেছেন: জোক্স নয়, ব্লগে সবার জন্য ওপেন ডিবেটের আয়োজন করা দরকার মনে হচ্ছে!!!!!!!!!

৩০ শে মে, ২০২১ সকাল ১১:১৩

শেরজা তপন বলেছেন: এমনটা করা কি সম্ভব? হলে তো ভাল হয়

আপনি উদ্যোগ নিলে সম্ভব মনে হয়

২৮| ৩০ শে মে, ২০২১ দুপুর ১২:০৬

জুন বলেছেন: আমার আসতে আসতে এত দেরী হলো যে এসে দেখি কাদা শেষ :(
কাদা না থাকলে কি আর করা! ওইসব ছোড়াছুড়ি বন্ধ করে আপনার ১৩ নং জোকসটাই না হয় শুনি /:)
তবে সত্যি কথা বলতে কি কখনো কাউকে কটু কথা বলা বা ঝগড়া করা আমার স্বভাব বিরুদ্ধ। অনেকে আমাকে বলেছে, নীরবে চোখের পানি মুছে সহ্য করেছি তবুও প্রতিবাদ করি নি। বর্তমানে ব্লগের ঝামেলা আমার মনকে পীড়িত করে শেরজা তপন।
সোহানীর প্রস্তাবে একমত পোষণ করে গেলাম।

৩০ শে মে, ২০২১ দুপুর ১২:১০

শেরজা তপন বলেছেন: আপনাকে আমি জানি বহু বছর ধরে!
মানুষ চিনতে বার বার ভুল হয়- কিন্তু আপনাকে চিনেছি মনে হয় খানিকটা।

@চাঁদগাজি সাহেবকে বেশ কড়া কড়া কথা শুনিয়েছেন আপনি।
সুপ্রিয় ব্লগার সোহানীর কথায় আমিও একমত পোষন করেছি।

আপনি এখন সুস্থ্য তো?

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.