নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

মাঝে মাঝে মনে হয় জীবনটা অন্যরকম হবার কথা ছিল!

মাঝে মাঝে মনে হয় জীবনটা অন্যরকম হবার কথা ছিল!

শেরজা তপন

অনেক সুখের গল্প হল-এবার কিছু কষ্টের কথা শুনি...

শেরজা তপন › বিস্তারিত পোস্টঃ

গুলজারঃ একজন শব্দের কারিগর

১৮ ই জুন, ২০২১ সকাল ১১:৩২


যদি রক্ত ঝরে,তবে সেটা ক্ষত,অন্যথায় প্রতিটি আঘাতই কবিতা। – গুলজার
হিলারা যা-ই করুক না কেন,সবসময় তাদের কোন না-কোন পুরুষের কাছে জবাবদিহি করতে হয়। কখনও বাবার কাছে,অন্য সময় স্বামী কিংবা ছেলের কাছে। – গুলজার
মি সব সময়ই ভাবতাম ভারতীয় চলচ্চিত্রের অত্যান্ত প্রতিভাবান, প্রভাবশালী নামি গীতিকার ও কবি ‘গুলজার’ সম্ভবত মুসলিম সম্প্রদায়ের লোক। বাঙলা সাহিত্যে ‘ইলিশ’নিয়ে গল্প খুঁজছিলাম। অনেক লেখকের ভীড়ে দেখি ‘গুলজার’ নামে একজন লেখকের নাম দেখে অবাক হলাম। ‘গুলজার’ নামে কোন লেখকের নাম শুনিনি কখনো।
গুগলে যতবার সার্চ দেই ঘুরেফিরে ভারতীয় এই গীতিকার ও কবি গুলজারের নাম আসে। অনেক খুঁজে অবশেষে বুঝলাম ইনিই তিনি।
'ইলিশ' গল্পটা ছিল অনুবাদ। উনার জীবনের গল্পে একটু চোখ বুলিয়েই মজে গেলাম;
জন্ম দেশভাগ, অর্থাভাবে গ্যারেজে মেকানিকের চাকুরি। সে আমলের বিখ্যাত সব বাঙ্গালী গুণী, সাহিত্যিক,পরিচালক,সুরকার, গায়ক ও অভিনেতাদের সাথে তার সখ্যতা এবং চলচ্চিত্রে তার উত্থান- সব মিলিয়ে দারুন এক বৈচিত্রময় জীবন তার।
বাঙলা কবিতা ও সাহিত্য বিশেষ করে রবীন্দ্রনাথের দারুন ভক্ত ও অনুরক্ত তিনি। রবীন্দ্রনাথের বেশ কিছু কবিতা আর গান তিনি অনুবাদ করে রি-এরেঞ্জ করে আধুনিক সঙ্গীতের ভুবনে পরিচয় করিয়েছেন। তিনি শুধু কবি,ও গীতিকার নন, একাধারে তিনি গল্পকার উপন্যাসিক ও চিত্রনাট্যকার অঙ্কন শিল্পি ও চলচ্চিত্র নির্মাতা। আসুন অল্প করে তার জীবনের গল্প আর লেখালেখি নিয়ে কিছু কথা শুনি;
নিবার, ১৮ আগস্ট ১৯৩৪ সাল। তৎকালীন বৃটিশ-ভারতের পাঞ্জাব প্রদেশের ঝিলাম জেলায় (বর্তমান পাকিস্তান) মাখন সিং কালরা এবং সুজান কাউরের ঘর আলোকিত করে জন্ম নেয় এক শিশুপুত্র। 'সাম্পুরান সিং কালরা' নাম পায় বাচ্চাটি। আচমকা তাসের ঘরের মতো তছনছ হয়ে যায় শিশুটির দুনিয়া। অল্প বয়সেই মাতাকে হারান! তারপর হারান দেশমাতাকে। এক ভূখণ্ড দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে নিজেদের আলাদা জাতি, গোত্র আর দেশ হিসেবে স্বীকৃতি দেয়।
ভাগ্যান্বেষণে মুম্বাই (তৎকালীন বোম্বে) শহরে পা রাখেন। দু'বেলা দুমুঠো খাবারের আশায় কাজ নেন গাড়ির মেকানিক হিসেবে। কিন্তু কবিতার প্রতি ভালোবাসাও লালন করতে থাকেন সযত্নে গোপনে। আলী আকবর খান আর রবি শংকরের কোনো সঙ্গীতানুষ্ঠান বাদ দিতেন না। দেশভাগ পরবর্তী তীব্র বেকারত্ব এবং ট্রেড ইউনিয়নের আন্দোলন তাকে দারুণভাবে আলোড়িত করে।
পিডব্লিউএ রবিবারের বৈঠকে তাঁর কথোপকথনের সময়ই শৈলেন্দ্র এবং বিমল রায় তাকে ছবিতে যোগ দিতে উত্সাহিত করেছিলেন। গুলজার তার কেরিয়ার শুরু করেছিলেন চলচ্চিত্র পরিচালক বিমল রায় এবং হৃষীকেশ মুখোপাধ্যায়ের অধীনে। তাঁর রবি পাড় বইতে বিমল রায় ও সৃষ্টির বেদনার বিবরণ রয়েছে। তিনি 'বান্দিনি' (১৯৬৩) চলচ্চিত্রের জন্য সংগীত পরিচালক শচীন দেব বর্মণের সাথে গীতিকার হিসাবে তাঁর কেরিয়ার শুরু করেছিলেন। চলচ্চিত্রগুলিতে তিনি বিমল রায় সহ তিনি যে দলের সাথে কাজ করেছিলেন তাতে সাহিত্যের সাথে যুক্ত একটি পরিবেশ খুঁজে পেয়েছিলেন, যার বেশিরভাগ চলচ্চিত্রই সাহিত্যকর্মের উপর ভিত্তি করে তৈরি হয়েছিল। শৈলেন্দ্র- লতা মঙ্গেশকরের গাওয়া "মোরা গোরা আঙ্গ লেলে" গানটি লেখার জন্য গুলজারকে অনুরোধ করেছিলেন।
রবি ঠাকুরের সবচেয়ে বিখ্যাত বাংলা কবিতা হিন্দিতে অনুবাদ হয়েছে এবং গান হিসাবে এক সাথে রাখা হয়েছে। রবি ঠাকুরের অ্যালবামের সাথে আলাপকালে গুলজার উর্দু এবং হিন্দিতে অনুবাদিত ঠাকুরের সবচেয়ে বিখ্যাত বাংলা কবিতা রয়েছে। গানগুলি ঠাকুরের রোমান্টিক দিক নিয়ে তাঁর সাথে আধুনিক মিউজিকাল গন্ধ দিয়ে তাঁর কবিতাকে সমবেত করার চেষ্টা করেছেন। এমুহুর্তে ভারতীয় চলচ্চিত্রের উজ্জ্বল নক্ষত্র আরেক বাঙ্গালী শান্তনু মৈত্রের মিউজিকে এই রচনাগুলি রবীন্দ্র সংগীতকে গিটার,গ্র্যান্ড পিয়ানো,ম্যান্ডোলিন ইত্যাদির মতো আধুনিক বাদ্যযন্ত্র সুরের মুর্ছনায় একটি নতুন যুগের সুচনা করেছে।
লিল চৌধুরী, শৈলেন্দ্র, সৈয়দ জাফরী এবং বলরাজ সাহানীর মতো স্বনামধন্য মানুষের সান্নিধ্য পেয়ে লেখালেখি শুরু করেন। এরপরের গল্পটা ছিল দিন বদলের। ভারতীয় শিল্প-সাহিত্য এবং চলচ্চিত্র অঙ্গনে পরিচিত, সমাদৃত এবং স্বনামধন্য বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী হিসেবে নিজের নাম আজীবনের জন্য স্থায়ী করে নেন। সাম্পুরান সিং কালরা নামক সেই লোককে আমরা না চিনলেও গুলজারকে কমবেশী সকলেই চিনি।
মি মনে করি,ভারতীয় ছোটগল্প হলো আঁকাবাকা এবং উঁচু-নিচু পাহাড়ী পথে হাঁটার মতো। হাঁটতে হাঁটতে একসময় ঘুরে দাঁড়ালে দেখা যাবে আকাশ। – গুলজার
গুলজারের কবিতা বা লিরিক দুইটার সাথেই আগে থেকেই পরিচিত। তবে এই ভদ্রলোক যে এত ভালো আর দুর্দান্ত সব গল্প লিখেছেন তা সত্যিকার অর্থেই জানা ছিল না। একাধারে কবি, ছোটগল্প লেখক, শিশু সাহিত্যিক, ঔপন্যাসিক, অনুবাদক, গীতিকার, চলচ্চিত্র নির্মাতা, চিত্রনাট্য রচয়িতা, অঙ্কন শিল্পী এবং অধ্যাপক ছিলেন তিনি। একইসাথে বহু ভাষাবিদ বলে খ্যাতিও আছে তার। বাক্যের বুনন, শব্দচয়ন আর তার সঠিক ব্যবহার; এবং পাঠককে সম্মোহিত করে রাখার অলৌকিক দক্ষতার জন্য অনেকেই তাকে ‘শব্দের মোজার্ট’ বা ‘মাস্টার ওয়ার্ডস্মিথ’ অথবা ‘শব্দ-কারিগর’ খেতাবও দিয়েছেন।
ইংরেজিতে অনূদিত গুলজারের গল্প নিয়ে ‘রাভি পার এন্ড আদার স্টোরিজ’ এবং ‘হাফ এ রুপি স্টোরিজ’ শিরোনামে দুটি গল্প সংকলন আছে। ‘রাভি পার এন্ড আদার স্টোরিজ’ থেকে চারটি গল্প নিয়ে ‘সীমা এন্ড আদার স্টোরিজ’ নামে আরেকটি সংকলনও আছে। ‘টু’ তার একমাত্র উপন্যাস। ইতিমধ্যে যারা সাদাত হোসেন মান্টো পড়েছেন তাদের কাছে গুলজারের গল্পগুলো অত্যন্ত ভালো লাগবে। কেননা, দুইজনের লেখার পটভূমিটা একই। দেশবিভাগ, সীমান্তের গল্প, সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা নিয়ে রচিত।
সহজ আর সাবলীলভাবে বলে যাওয়া একটা গল্পই আচমকা একটা বাক্যে এসে এমনভাবে আঘাত করে যে, অন্তরাত্মা অবধি কেঁপে উঠতে পারে!
এক রঙের সঙ্গে অন্য রঙ মেশালে দুটি রঙই তাদের স্বকীয়তা হারিয়ে ফেলে এবং তারা বদলে যায়৷ অথচ পাথর স্বকীয়তা হারায় না এবং বদলায়ও না। – গুলজার
রাভি নদী পেরিয়ে গল্পটি মূলত দেশভাগের সময় উদ্বাস্তু এক শিখ পরিবারের গল্প। এই গল্পটা আমার অনেকটা চেনা। আমাদের মুক্তিযুদ্ধের একটা গল্প এই গল্পটার সাথে অনেকটাই মিলে যায়। এমনকি মুক্তিযুদ্ধের কোন সিনেমাতে দেখানো হয়েছে সম্ভবত। পাক সেনাদের ভয়ে মা বাচ্চার মুখ চেপে রাখে; যাতে বাচ্চা চেঁচিয়ে কেঁদে না উঠে। কিন্তু পাক সেনারা চলে গেলে দেখা যায় বাচ্চাটা মরে গেছে। এই গল্পটা অনেকটাই তেমন তবে অনন্য গুলজারের শব্দচয়ন আর বলার ঢং-এ।
ধোঁয়া গল্পটি ধর্মীয় নিয়মকানুনের ব্যবধান আর হিন্দু-মুসলমানের মধ্যে সংঘর্ষ নিয়ে লেখা। মুসলমান হোক আর হিন্দু,নিজেদের গোঁড়ামির জন্য দাঙ্গা তাদের কাছে নিতান্ত তুচ্ছ এক বিষয়। এলাকার প্রভাবশালী চৌধুরী মারা গেছেন। চৌধুরীর উইল মতে দাফনের বদলে পোড়ানোর সকল ব্যবস্থা করছেন চৌধুরানী। কিন্তু বাদ সাধে মহল্লার মুসলিমমনা লোকজন। এই অপমান যেন তাদের গায়ে আগুন ধরিয়ে দেয়। আর তাই তো,মৃতকে দাফন করার জন্যে জীবিতকে পুড়িয়ে মারে।
ইলিশ গল্পটি আদতে প্রেম আর ভালোবাসার গল্প মনে হলেও এটি সমাজের বাস্তব চিত্রের এক দারুণ প্রতীকী গল্প। বিভূতি আর কাঞ্চন বিবাহিত দম্পতি। প্রেমের কুলে ভাসছে দুজন। কাঞ্চনের গর্ভবতী হবার দিন এলো বলে। বছরের তিনটে মাস যখন ইলিশের পেটে ডিম থাকে তখনকারই এক সময়ে বিভূতি একজোড়া গর্ভবতী ইলিশ নিয়ে আসে। যে ইলিশের মুখটি হা করা থাকে সামান্য, যেন কিছু বলতে চায়।
মরা সবাই কমরির মতো। কমরির অর্থ হলো মুরগি। এই শহর শস্য দানা ছিটায়। আমরা মুরগির মতো টুক-টুক শব্দ করে সেগুলো কুড়িয়ে খাই। সেই খাবার খেয়ে যখন মোটা তাজা এবং নাদুসনুদুস হবো, তখন ওরা আমাদের কতল করবে। কারা? অনুভূতিহীন মহারাজারা। – গুলজার
গুলজারের গল্প প্রতীকী। সাধারণ একটা গল্পের ছলে খুব ভারিক্কি চালের বড়সড় কোন প্রতীকী ঘটনার পরিস্ফুটনই মূলত তার গল্পের মূল লক্ষ্য। মানব মনের অন্ধকার দিক, সামাজিক অবক্ষয়ের রূপ, সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার ভয়াবহতা, সমাজে নারীর অবস্থানসহ সামাজিক ইস্যুগুলোকে খুব সুন্দরভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন নিজের লেখায়। শব্দচয়নের ক্ষেত্রে বেশ পারঙ্গম এই লিরিক জাদুকর। আর তাই জন্যই তাকে ‘মাস্টার ওফ ওয়ার্ডস্মীথ’ বা ‘শব্দের মোৎজার্ট’ ডাকা হয় তাকে। তবে হ্যাঁ পুরো গল্পটা একদমই সাধারণ মনে হলেও শেষের বা তার আগের একটা বাক্য যে আপনাকে ধাক্কা দেবে তা নিশ্চিত থাকুন।
গুলজারের গল্পগুলো ভেতর থেকে নাড়া দেয়, নতুন করে ভাবতে শেখায়। তবে অনেকের কাছে ভালো নাও লাগতে পারে। পছন্দ আর রুচিতে ভিন্নতা থাকাটাই স্বাভাবিক। শেষ করছি গুলজারের একটা কবিতা দিয়ে –
সারাদিন আমি কাটিয়েছি
বন্ধুহীন, একাকী এবং দুঃখ নিয়ে,
নিজের কাছেই ছিলাম আমি অচেনা।
সৈকতে ডুবে গেলে দিন
আমি বিরান সড়ক পথে
ফিরে আসি হেঁটে
নিঃসঙ্গ নিবাসে।
যেই মুহূর্তে
দরোজার পাল্লা খুলি,
তখন আমার টেবিলের উপর বই
মৃদু শব্দে পৃষ্ঠা উল্টিয়ে শুধায়:
‘বন্ধু, কোথায় ছিলে তুমি
এই দীর্ঘ সময়?


গীতিকার হিসাবে গুলজারের সংগীত পরিচালক রাহুল দেব বর্মণের সাথে ঘনিষ্ঠতা ছিল। গুলজার আনন্দ (১৯৭১) এবং মেরে আপনে (১৯৭১) সলিল চৌধুরীর সাথে কাজ করেছিলেন।
এ. আর রহমান দিল সে .. ১৯৯৮, স্লামডগ মিলিয়নেয়ার (২০০৮) গুলজার আমির খুস্রোর "আই সারবতে আশিকী" থেকে মণি রত্নমের ২০০৭ সালের হিন্দি ছবি ‘গুরু’ রচনার জন্য অনুপ্রেরণা নিয়েছিলেন, যার নাম ছিল এ আর রহমান। আরেকটি রত্নম-রহমান হিট করেছিলেন, দিল সে থেকে "ছাইয়া ছাইয়া"। এ গান গুলজার লিখেছিলেন,কবি বুলিহ শাহের সুর সহ, সুফি লোকগান "থাইয়া থাইয়া" অবলম্বনে। ড্যানি বোলের হলিউড ছবি স্লামডগ মিলিয়নেয়ারের জন্য রহমান এবং গুলজার ৮১ তম একাডেমি পুরষ্কারে "জয় হো" এর জন্য সেরা অরিজিনাল গানের জন্য একাডেমী পুরষ্কার পেয়েছিলেন।)

এই শহরে অনুভূতিহীন মহারাজারা দুই ধরনের। প্রথমত- পল্টি মানুষ। তারা কথার ফুলঝুড়ি ছড়ায়। বক্তৃতা দেয়। মালপানি ঢালে। ভোট নেয়। দ্বিতীয়ত- অস্ত্র-ছোরাবাজ। টাকাকড়ি নেয়। জীবন নেয় না। কিন্তু সময় জীবন নেয়,টাকা দেয়। উভয় দলই গুণ্ডা। শুধু পার্থক্য হলো তাদের ধরনধারণে।গুলজার


কৃতজ্ঞতা স্বীকারঃ

জনাব ওয়াজেদুর রহমান ওয়াজেদ (যার লেখা না পড়লে আমি ‘গুলজার’ এর সাহিত্য সন্মন্ধে কিছুই জানতাম না) ও উইকি

মন্তব্য ৩৬ টি রেটিং +৯/-০

মন্তব্য (৩৬) মন্তব্য লিখুন

১| ১৮ ই জুন, ২০২১ দুপুর ১২:২২

খায়রুল আহসান বলেছেন: শব্দের কারিগর গুলজার কে নিয়ে এত চমৎকার একটা পোস্ট লেখার জন্য আন্তরিক ধন্যবাদ। বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী গুলজার এর যে উক্তিটা উদ্ধৃত করে পোস্ট টা শুরু করেছেন, তা পড়ে রীতিমত চমকে উঠেছি- ".... অন্যথায় প্রতিটি আঘাতই কবিতা" - এত গভীর একটা অনুভব কথায় ফুটিয়ে তোলা বাস্তবিকই একজন 'শব্দের কারিগর' এর পক্ষেই সম্ভব!

পোস্টের শেষের কবিতাটাও খুব সুন্দর!

পোস্টে দ্বিতীয় ভাল লাগা + +।

১৮ ই জুন, ২০২১ দুপুর ১২:৩২

শেরজা তপন বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ খাইরুল আহসান ভাই, ওই একটা কথাই আমাকে তার ব্যাপারে ভালভাবে জানার জন্য উদ্বুদ্ধ করেছে।
ওই কথাটা প্রতিটা কবির জন্যি দাউনভাবে উদ্দীপনাময়।
আপনার চমৎকার মন্তব্যে আমি দারুনভাবে অনুপ্রাণিত হলাম! ভাল থাকুন।
আমি কিবিতা লিখতে পারি না- এ বিষয়ে আমার জ্ঞান ভীষন সীমিে! তারপরেও ভাল লাগে কবিতা পড়তে- অন্যের কবিতার উদ্ধৃতি দিতে :)


* আপনার মায়ের খবর জানতে চাইছি?

২| ১৮ ই জুন, ২০২১ দুপুর ১২:৩০

শাহ আজিজ বলেছেন: চমৎকার লেখা হয়েছে । গুলজারের লেখা গান শুনি সবসময় , কায়ফি আজমি , জাভেদ আখতার এবং আরও অনেক রত্ন ভারত ও প্রতিবেশী দেশগুলোতে রঙ ছড়িয়েছে গেল ৭০ বছর ধরে । এরা যা গড়েছে তা কখনই আর হবে না । সবচে আশ্চর্য বিষয় শাসকরা এর মধ্যে নোংরা হাত লাগায়নি ।

১৮ ই জুন, ২০২১ দুপুর ১২:৩৯

শেরজা তপন বলেছেন: গুলজারের ( আদবের সহিত) এমন কিছু কবিতা আর সৃষ্টিকর্মের সাথে পরিচিত হলাম যে, বার বার বিমোহিত হয়েছি,আশ্চর্য হয়েছি এই ভেবে, আমরা এত কাছের মানুষ সন্মন্ধে কতই না কম জানি!

ঠিক বলেছেন একদম খাঁটি কথা। এইটা আশ্চর্যের বিষয় হলেও বার বার তাদের কঠিন দেশ ভক্তির পরিক্ষা দিতে হয়েছে।
সাহিত্য শিল্প সৃষ্টির পথে দেশভাগ ও ধর্মের বৈরিতা বেশ বড় ধরনের অন্তরায় হয়ে দাড়িয়েছিল ।
মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা আপনাকে। ভাল থাকুন

৩| ১৮ ই জুন, ২০২১ দুপুর ১২:৩৩

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: হিন্দি ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে গুলজার একটা সুপরিচিত ও প্রভাবশালী নাম। কিন্তু তার অন্যান্য পরিচয়, জীবন বৃত্তান্ত, ইত্যাদি সম্পর্কে কোনো আইডিয়াই ছিল না। আপনার পোস্ট পড়ে সেসব জানতে পারলাম।

পোস্টটা পড়তে মাঝে মাঝেই থামতে হয়েছে। যতিচিহ্নের ব্যবহার অনেক জায়গায় ঠিকমতো হয় নি, ফলে লেখা বুঝতে উঠতে খানিকটা কষ্ট হয়েছে। সম্ভব হলে আরেকটু এডিট করে দিয়েন।

সুন্দর পোস্ট শেরজা তপন ভাই।

১৮ ই জুন, ২০২১ দুপুর ১২:৫৫

শেরজা তপন বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা 'সোনাবীজ' ভাই( আপনার এই নামটাই আমার ভাল লাগে)!
এভাবে ভুল-ভাল ধরিয়ে দিলে সামুর সব লেখকেরাই দারুন উপকৃত হবে নিঃসন্দেহে! অনেকেই লেখক কষ্ট পাবেন ভেবে এসব বিষয় এড়িয়ে চলেন। আমি লেখা লেখি করি ঠিকই- কিন্তু বাঙলা ভাষায় আমার দখল সাংঘাতিক রমকম কম।
আপনার মন্তব্য পড়ে আগে যতদুর পেরেছি ঠিকঠাক করে তবে মন্তব্যের উত্তর দিতে আসলাম। দয়া করে বড় কোন ভুল থাকলে জানালে কৃতার্থ হব।
আমিও তেমন কিছু জানতাম না যদি না 'ইলিশ' নিয়ে সাহিত্য গল্প নাড়াচাড়া না করতাম :) । আপনাকে পেয়ে বরাবরই ভাল লাগে- আপনার সান্নিধ্যে নিজেকে সমৃদ্ধ করি।

ভাল থাকুন ভাই নিরন্তর!

৪| ১৮ ই জুন, ২০২১ দুপুর ১২:৫৮

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: অতো লজ্জা দিয়েন না :)

১৮ ই জুন, ২০২১ বিকাল ৩:৪২

শেরজা তপন বলেছেন: আপনি একটু বেশী লাজুক বটে :)

৫| ১৮ ই জুন, ২০২১ সন্ধ্যা ৭:১৮

মোঃমোস্তাফিজুর রহমান তমাল বলেছেন: তাঁর কণ্ঠটাও সুন্দর। বিভিন্ন সিনেমায় তাঁর কণ্ঠে ওপেনিং সিন অথবা সিনেমার বিভিন্ন পর্যায়ে তাঁর কণ্ঠের আবৃত্তি থাকে।

১৮ ই জুন, ২০২১ রাত ১০:৪৬

শেরজা তপন বলেছেন: জ্বী রবীন্দ্রনাথের অনুবাদকৃত গানগুলোর সাথে কবিতা তিনি সকন্ঠে আবৃতি করেছেন। কেমন যেন ভাঙ্গা ভাঙ্গা দূর থেকে ভেষে আসা
ভরাট কন্ঠ তার।
আপনার মন্তব্যের জন্য( সাথে লাইক দেবার জন্য) আন্তরিক ভালবাসা ও ধন্যবাদ

৬| ১৮ ই জুন, ২০২১ রাত ৯:৩৭

জটিল ভাই বলেছেন:
ধন্যবাদ তপন ভাই। অনেককিছুই জানলাম :)

১৮ ই জুন, ২০২১ রাত ১০:৪৭

শেরজা তপন বলেছেন: আপনাকে পেয়ে ভাল লাগল

ধন্যবাদ ও জটিলবাদ আপনাকেও :)
ভাল থাকুন

৭| ১৯ শে জুন, ২০২১ রাত ১২:৫৭

রোকসানা লেইস বলেছেন: আহা কি শব্দ কি কথা, বাক্য গড়ন। বহু আগে পড়েছিলাম গল্প, মনে করিয়ে দিলেন। একটা গল্প পড়ে তার ভিতরে খাবি খেয়েছি কতদিন। ইলিশ গল্পটা পড়ার পর মনে হয়েছিল একটা মেঘ জমে আছে আমার চারপাশে। তখন অনুভুতিও প্রবল ছিল ।সেই মেঘ কাটাতে বসে ছিলাম লোটা কম্বল নিয়ে। হাসির মাঝে সেও এক টানাপুড়েন দুঃখবোধ জীবনের।
ছাইয়া ছাইয়া গানটা যে কি পরিমান বাজত আমার ঘরে সারাদিন রাত দুপুর পর্যন্ত। তখন কেবল নতুন ডেক্সটপ এসেছে সাথে সিডি বাজানো যায়। আর গানটাও কেবল নতুন রিলিজ হয়েছে।
গুলজার এই গানের লেখক এটা জানা ছিল না আপনাকে কৃতজ্ঞতা। আগে গানের গীতিকারের নাম জানায় তেমন আগ্রহ ছিল না। এখন এই বিষয়টা বদলে গেছে। এমন সুন্দর শব্দ কে সৃষ্টি করেছেন তাকে বেশি জানতে ইচ্ছা করে।
সুন্দর পোষ্ট ।
শুভেচ্ছা জানবেন।

১৯ শে জুন, ২০২১ সকাল ৮:১৬

শেরজা তপন বলেছেন: বহুদিন বাদে আপনাকে আমার ব্লগে পেলাম!
আপনার মন্তব্যে আমি বিমোহিত হলাম- যেন গুলজারের অন্য এক রুপ উন্মোচন হল আপনার লেখায়!!
আপনি গুলজারের লেখার সাথে অনেক আগে থেকেই পরিচিত জেনে ভাল লাগল।
আমি যেমন জানতাম না, তেমনি অনকেরই অজানা ছিল তার সাহিত্যিক প্রতিভার কথা। আমার মনে হয় আপনার কাছ থেকেই তার বিষয়ে আরো অনেক কিছু জানার আছে।

'ছাইয়া ছাইয়া' গানটা জনপ্রিয় হয়নি দক্ষিন এশিয়ার এমন অঞ্চল খুঁজে পাওয়া কষ্ট। শুধু একটা গানের সাথে নেচে একজন অভিনেত্রী আজন্ম হিট :)

ভাল থাকুন, সুন্দর থাকুন সুস্থ্য থাকুন।

৮| ১৯ শে জুন, ২০২১ ভোর ৪:০৪

জাদিদ বলেছেন: খুবই ভালো লাগলো ভাইয়া। বহুদিন পর এত চমৎকার একটা পোস্ট পড়লাম।

১৯ শে জুন, ২০২১ সকাল ৮:১৮

শেরজা তপন বলেছেন: আপনাকেও সবিশেষ ধন্যবাদ ও আন্তরিক ভালবাসা লেখাটা পড়ার জন্য 'জাদিদ' ভাই।
আমি আনন্দিত ও আপ্লূত হলাম। ভাল থাকুন নিরন্তর!

৯| ১৯ শে জুন, ২০২১ সকাল ১০:০৩

সাড়ে চুয়াত্তর বলেছেন: ওনার স্ত্রী রাখী গুলজার ছিলেন হিন্দি সিনেমার একজন নামকরা নায়িকা। উনি বাঙালি ছিলেন তাই অনেক ভারতীয় বাংলা সিনেমাতেও অভিনয় করেছেন। অমিতাভ, ধরমেন্দ্র, শশী কাপুর, দেভ আনান্দ প্রমুখ তারকাদের বিপরীতে তিনি অভিনয় করেছেন। উনি বেশীরভাগ সিনেমাতে শাড়ি পরতেন।

১৯ শে জুন, ২০২১ দুপুর ১২:১৪

শেরজা তপন বলেছেন: তথ্য শেয়ার করার জন্য। আমি এখানে শুধু গুলজারকে নিয়ে আলোচনা করেছি তার ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে নয়।
রাখী মজুমদারকে তিনি বিয়ে করেছিলেন ১৯৭৩ সালে কিন্তু দুর্ভাগ্যজনকভাবে তার মেয়ের জন্মের পরেই মাত্র এক বছরের মাথাইয় তারা সেপারেট হয়ে যায়।
জ্বী এইটা একটা পয়েন্ট যে রাখী মজুমদারও বাঙ্গালী ছিলেন- গুলজারকে বিয়ে করে তিনি রাখী গুলজার বনে যান। গুলজারের বাঙ্গালী প্রীতির এটাও একটা উদাহরন।
রাখী নিঃসন্দেহে উঁচু মাপের অভিনেত্রী কিন্তু তার অভিনয় বেশী ম্যাড়ম্যাড়া ছিল - আমার পছন্দ হয়নি কখনো।

ধন্যবাদ আপনাকে সাথে থাকার জন্য- ভাল থাকবেন।

১০| ১৯ শে জুন, ২০২১ দুপুর ১২:২৯

মনিরা সুলতানা বলেছেন: গুলজার আমার কাছে একজন কবি !
হিন্দি সিনেমার বেশির ভাগ গান ই বেশ উচু দরের সাহিত্য। আপনার লেখায় গুলজারের অনেক কিছু উঠে এসছে।

১৯ শে জুন, ২০২১ দুপুর ১২:৪০

শেরজা তপন বলেছেন: অবশেষে আইলান :)
ইদানিং ব্লগে দেখা সাক্ষাৎ কম হচ্ছে!!!
জ্বী তবে সুফি সঙকে এক অনন্য মাত্রায় নিয়ে গেছে!
বরাবরের মত সাথে আছেন জেনে আনন্দিত হলাম। অবসর পেলে আরেকটু ব্লগে সময় দিবেন বলে আশা রাখছি।

১১| ১৯ শে জুন, ২০২১ দুপুর ১২:৩০

সাড়ে চুয়াত্তর বলেছেন: অমিতাভ, ধরমেন্দ্র, শশী কাপুর, দেভ আনান্দের পছন্দ হল আর আপনার হল না? :D

১৯ শে জুন, ২০২১ দুপুর ১২:৩৬

শেরজা তপন বলেছেন: তারা তাদের মত করে দেখেছে আমি আমার কথা বলেছি। তার স্পিচ থ্রোয়িং ভাল না- মনে হয় যেন জোর করে সংলাপ বলছেন :)
বাকি চেহারা সুরত, বডি ল্যাঙ্গুয়েজ ভালই ছিল। বরাবরই মা মা চেহারার ছিলেন তিনি। :)

১২| ১৯ শে জুন, ২০২১ দুপুর ১২:৪১

মোঃ মাইদুল সরকার বলেছেন: ওনার সম্পর্কে অনেক কিছু জানা হলো। ধন্যবাদ।

১৯ শে জুন, ২০২১ বিকাল ৩:১৪

শেরজা তপন বলেছেন: প্রথমে লেখাটা পড়ে মন্তব্যের জন্য আন্তরিক ধন্যবাদ-
অনুপ্রাণিত করার জন্য আন্তরিক কৃতজ্ঞতা।
ভাল থাকবেন-সবসময়!

১৩| ১৯ শে জুন, ২০২১ দুপুর ১২:৪৫

মনিরা সুলতানা বলেছেন: ব্লগে আসতে তো সমস্যা নেই , কিন্তু যে সময় টুকু ওয়াইফাই থেকে দূরে ব্লগ থেকে ও থাকতে হচ্ছে।

১৯ শে জুন, ২০২১ বিকাল ৩:১৬

শেরজা তপন বলেছেন: আমি ইদানিং লেখালখি যাতে না থেমে যায়- সেজন্য বাসা, কাজ, আড্ডা সবখানে একটা লেখালেখির পরিবেশ তৈরি করার চেষ্টা করছি।

তাই ব্লগে বেশ অনেক সময় দিতে পারি- আর সেজন্য প্রিয় কারো উপস্থিতি অনুপস্থিতি ভাবায় :)

১৪| ১৯ শে জুন, ২০২১ দুপুর ১২:৫০

সাড়ে চুয়াত্তর বলেছেন: মা হিসাবেই মায়ের মত ভালবাসতে পারেন ওনাকে। :) ভালবাসার অনেক রুপ আছে। তবে যারা রাশিয়ান ললনাদের সান্নিধ্য লাভ করেছে তাদের কাছে নায়িকা হিসাবে ভাল না ও লাগতে পারে। :D

১৯ শে জুন, ২০২১ বিকাল ৩:২০

শেরজা তপন বলেছেন: আমার মাতো একজনই ভ্রাতা! পৃথিবীর অন্য কোন নারীকে আমার মা ভাবার ইচ্ছে নেই- সুনীলের মত বলতে হয়, মা বোন বাদে পৃথিবীর সব নারীই
আমার সখি :)

আরে ছিঃ কি বলেন সেটাতো আমার গল্পের প্রমুখ নায়কেরা রুশীয় ললনাদের একান্ত সান্নিধ্য লাভ করেছিলেন। আমি ছা-পোষা মানুষ ভাই :)

১৫| ১৯ শে জুন, ২০২১ বিকাল ৩:২৬

জুন বলেছেন: গুলজারের অনেক গান অনেক ম্যুভিই আছে তারপর ও চেরাচেনা (ইন্দিরা গান্ধীর জীবন ) গল্প নিয়ে তৈরি আধি আমার মনে সবচেয়ে দাগ কেটে গেছে শেরজা তপন। তবে গুলজারের রচিত সাহিত্য পড়া হয়ে উঠেনি। ভারতবর্ষের অনেক বিখ্যাত কবিরাই উর্দু বা হিন্দিতে গান লিখেছেন যার মাঝে গুলজারের সাথে শাহের লুধিয়ানভী, কাইফি আজমিও আমার অনেক পছন্দের গীতিকার।
+ দিয়ে গেছি প্রথম দিনেই :)

১৯ শে জুন, ২০২১ বিকাল ৩:৩৪

শেরজা তপন বলেছেন: হয়- কালকে একখানা লাইক দিয়া একদম লাপাত্তা হয়ে গেলেন যে???
আপনার ব্লগেও ধর্না দিয়েছি- আমার মনে হচ্ছে ছবি তুলতে গিয়েছিলেন :)

লুধিয়ানভীর লিরিক্সে কি কি গান শুনেছি; ও ও কাভি কাভি মেরে দিলমে- আহা হা হা! আমার শুন্যের গর্ভে লেখাটা পড়েছিলেন? সেখানে এই গানের স্মৃতিকথা আছে।
কাইফি আজমিও অসাধারন কবি( লিরিক্স রাইটারদের কবি পরিচয় প্রথমে নাকি?)

আপনার কাছে রেফারেন্সের গাট্টি!!! এতো কিছু জানেন ক্যামনে??

১৬| ১৯ শে জুন, ২০২১ বিকাল ৩:৪৮

জুন বলেছেন: https://youtu.be/uvJbb_9J3Fc আপনি কাইফি আজমির লেখা লতার গাওয়া এই গানটা শোনেন শেরজা তপন। লিরিক্স দেখতে পারেন যদি গান থেকে কথাগুলো না বুঝতে পারেন। এত সুন্দর গান মানুষ লিখে কি করে আমি ভেবে পাই না। যদি না আপনি সব সময় ধুম ধারাক্কা গান পছন্দ না করেন তবে ভালো লাগবে আমি শিওর :)

১৯ শে জুন, ২০২১ বিকাল ৪:০৭

শেরজা তপন বলেছেন: ধন্যবাদ রেফারেন্সের জন্য!
ফ্যাক্টরিতে চারিদিকে শব্দ! গান শোনার উপায় নেই - বাসায় গিয়ে নিরিবিলিতে শুনব। আপনি যখন বলেছেন-ভাল লাগবে নিশ্চিত!

১৭| ১৯ শে জুন, ২০২১ রাত ৮:৪০

খায়রুল আহসান বলেছেন: @মোঃমোস্তাফিজুর রহমান তমাল এবং @লেখক এর প্রতি অনুরোধঃ গুলজারের স্বকণ্ঠে আবৃত্তিকৃত কোন কবিতার লিঙ্ক দিতে পারবেন?

রোকসানা লেইস এর চমৎকার মন্তব্যটি ভাল লেগেছে। বিশেষ করে গীতিকারের নামটি লক্ষ্য করার বিষয়ে তার আগ্রহের কথাটি জেনে।

* আপনার মায়ের খবর জানতে চাইছি? - মায়ের অবস্থা এক কথায় বলা যায়, অপরিবর্তিত। তবে বুঝতে পারছি, তিনি ধীরে ধীরে অস্তমান সূর্যের মত দিগন্তরেখায় চলে যাচ্ছেন।

এখানে পাল্টা প্রশ্ন করাটা কতটুকু শোভন হচ্ছে জানিনা, তবে আপনার মা এখন কেমন আছেন, তা আমারও জানতে ইচ্ছে হচ্ছে। বেশ কিছুকাল আগে লেখা আপনার একটা পোস্ট/মন্তব্য/প্রতিমন্তব্য থেকে জেনেছিলাম, আপনার মা তখন বেশ অসুস্থ ছিলেন। সে সময়ে কয়েকজন সহব্লগারের আপনার মায়ের জন্য রক্ত দেয়ার জন্য যে আকুলতা আমি লক্ষ্য করেছিলাম, তা আমার মনে গভীর রেখাপাত করেছিল।

২১ শে জুন, ২০২১ রাত ৮:৩৭

শেরজা তপন বলেছেন: https://www.youtube.com/watch?v=oax6G5EbWt4
এই লিঙ্কে টোকা দিতে পারেন।

আপনার আম্মার কথা জানানোর জন্য ধন্যবাদ!
ভাল থাকবেন।

১৮| ২০ শে জুন, ২০২১ রাত ১১:৪২

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




গুলজার সম্পর্কে অনেক অজানা জানা হলো, আপনাকে বিশেষ বিশেষ ধন্যবাদ।



২১ শে জুন, ২০২১ দুপুর ১২:৪৪

শেরজা তপন বলেছেন: আপনাকেও ধন্যবাদ বরাবরের মত অনুপ্রাণিত করার জন্য।

ভাল থাকুন নিরন্তর!

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.