নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

তুমি কেমন করে গান করো হে গুনী, আমি অবাক হয়ে শুনি, কেবল শুনি ।।

ঠাকুরমাহমুদ

sometimes blue sometimes white sometimes black even red, even golden ! yes dear - its me - i am sky ! color your life, than your life will be colorful

ঠাকুরমাহমুদ › বিস্তারিত পোস্টঃ

ডেঙ্গু ব্যাবসা - মানুষের মৃত্যুও একটি ব্যাবসা কর্ম হতে পারে !!!

২০ শে আগস্ট, ২০১৯ ভোর ৬:২৪



আমি লেখক বা সাহিত্যিক নই, কথা সাহিত্যিক আনিসুল হক সাহেব ও নই যে, দোকান - রেষ্টুরেন্ট - পার্লার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মডেল মেয়ে - মহিলা নিয়ে লাল ফিতা কেটে কেক খাবো বা র‌্যাম্প শোতে সেজেগুজে হাজিরা দিবো। আমি ব্যাবসায়ী মানুষ - ব্যাবসা বুঝি, যখন সরকারী চাকুরী করতাম তখন দিনরাত ডিউটি বুঝতাম তার বাইরে কিছু বোঝার প্রয়োজন ছিলো না। তারপরও ব্লগে লেখার জন্য সময়টাকে ধরে লেখার চেষ্টা করছি।

তারিখ ২০ আগষ্ট, ২০১৯ সময় ভোর ০৪:২৫ মিঃ ঢাকা’র এক প্রান্তে আমাদের উত্তরা মডেল টাউন রাজলক্ষি এলাকায় শফি ভাই মিষ্টির দোকানদার, ফজরের আযানের সময় তাঁর ঘুম ভাঙ্গে তিনি মনে মনে ভাবছেন তাঁর এলাকায় “আনন্দ, অনুষ্ঠান, বিয়ে, জন্মদিন, পরীক্ষা - পাশ” লেগেই থাকুক তাতে মিষ্টি বিক্রি বাট্টা ভালো হবে। ঠিক একই সময় ঢাকা’র আরেক প্রান্তে আজীমপুর গোরস্থানের কবর খোদাই শ্রমিক দলের নেতা মানু মিয়াও আযানের সাথে সাথে বিছানা ছাড়লেন, তিনিও মনে মনে ভাবছেন ঢাকায় আজ কতো জনের মৃত্যু হতে পারে? আর আজীমপুর গোরস্থানেই কতো জনের কবর হবে, তাতে আজকের আয় কতো হতে পারে? - মানুষের মৃত্যুও একটি ব্যাবসা কর্ম হতে পারে!!!

বাংলাদেশে বর্তমান সবচেয়ে রমরমা ব্যাবসা - ডেঙ্গু ব্যাবসা, তাতে লাভবান কারা হচ্ছেন?

১। রাস্তায় অলিতে গলিতে চিপা নালা নর্দমায় গড়ে উঠা ফার্মেসী
২। সরকারী, বেসরকারী হাসপাতাল
৩। সরকারী, বেসরকারী মেডিক্যাল কলেজ
৪। ক্লিনিক, ডায়াগনস্টিক সেন্টার
৫। ফার্মাসিউটিক্যালস ল্যাবরেটরিজ কোম্পানী
৬। মেডিক্যাল কিট, টেষ্ট কিট ও সিরিঞ্জ আমদানীকারক
৭। ডাক্তার

উপরোক্ত সাতটি নামের প্রতিটি নাম একটি আরেকটির সাথে চেইনের মতো সরাসরি জড়িত, একজন আরেকজনের কমিশনিং এ্যাজেন্ট!!! আমি পৃথিবীর কোনো দেশে এতো ফার্মেসী দেখিনি - শুনেছি বলেও মনে পরছে না। এতো এতো হাসপাতাল, মেডিক্যাল কলেজ, ক্লিনিক, ডায়াগনস্টিক সেন্টার আর শত সহস্র ফার্মাসিউটিক্যালস ল্যাবরেটরিজ কোম্পানী পৃথিবীর কোন দেশে আছে তাও জানা নেই। সবার শেষে নাম আসবে ডাক্তার !!! ডাক্তার - ইনি মর্তের ভগবান!!! উপরে ভগবান আর মর্তে আমরা বিস্বাস করি ডাক্তার নামক প্রাণীকে।

ব্যাবসাঃ- যারা “ছোট - বড় - মাঝারী” ব্যাবসা করেন তারা জানেন তাদের কাজ কি, তাদের ভোক্তা কারা? মানুষের রোগ অসুখ মহামারী নিয়ে যারা কাজ করছেন তাদের কি প্রয়োজন - ভোক্তা, অসুস্থ্য রোগী নামক প্রাণী !!! সহজ হিসাব। মানুষের মৃত্যুকে পুঁজি করে যাদের ব্যাবসা কর্ম ধর্ম চলছে।

উপসংহারঃ- সরকার, প্রশাসনের কাছে দাবী ও অনুরোধ, এভাবে দেশ চলতে থাকলে একদিন এদেশে শুধু ঔষধ থাকবে - ঔষধ সেবনের জন্য কোনো মানুষ “ভোক্তা” থাকবে না। এমনকি কবর দেওয়ার জন্য গোরস্থানের মানু মিয়া ও তার দলবলও কেউ থাকবে না। মর্তের ভগবান কখনো ডাক্তার হতে পারেনা - না সিন্ডিকেট প্রতিষ্ঠান বহর! মর্তের ভগবান প্রশাসন - আর এই প্রশাসনের গলা চিপে ধরে রাখলে - একদিন সিন্ডিকেট প্রতিষ্ঠান বহর প্রশাসনকে তিন আঙ্গুলের প্রথম ভাজ সমান এক চিমটি লবন দিয়ে খেয়ে হজম করে নিবে।।


ছবিঃ - গুগল
কৃতজ্ঞতাঃ - সামহোয়্যারইন ব্লগ কর্তৃপক্ষকে এক দিগন্ত ভালোবাসা ও ধন্যবাদ লেখাটি নির্বাচিত পোষ্টে স্থান দেওয়ার জন্য।









মন্তব্য ৫২ টি রেটিং +১০/-০

মন্তব্য (৫২) মন্তব্য লিখুন

১| ২০ শে আগস্ট, ২০১৯ সকাল ৭:১৪

বলেছেন: মানুষের মৃত্যুও একটা ব্যবসা -- সেতো বহুকাল ধরেই চলছে..
"একদিকে বিশালসংখ্যক বিরোধীগোষ্ঠীর জন্য বিশেষ কিছু মলম প্রোগ্রাম আবার সেই মলম প্রোডাকশনের জন্য বিশেষায়িত ব্যবস্হা করা আবার সেই মলম দয়া দক্ষিণা ও বিনামূল্যে বিতরণের মাধ্যমে মহামতি সাজা সে-সকল মহামান্যদেরকে বাহবা দিতেই হয়"" ।।।


কোথায় দেখলাম মানুষের মাংস বিক্রি করা হয় আবার মানুষের চামড়া দিয়ে পণ্য তৈরি করা হয়।।।।। ---

হায় ঈশ্বর

২০ শে আগস্ট, ২০১৯ সকাল ৭:৩৯

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: দেশে এখন ক্রান্তিকাল চলছে - সময় কতো ভয়ংকর রুপ ধারণ করতে পারে - তার ধারণা কয়জন রাখেন। দেশের মানুষ দুৃরে থাকুক ব্লগে ডেঙ্গু নিয়ে প্রতিনিয়ত ব্লগারগণ লেখার পরও দেখছি অনেক ব্লগারদের উদাসীনতা। আমার পরিবারে কারো ডেঙ্গু হয়নি আহা কতো মজা - আমি তো বেঁচে গেলাম, কিন্তু সেই বেঁচে যাওয়া কতোদিন! দেশে প্রলয় যখন আসবে তা শুধু আমার জন্য আসবে না, দেশের ১৭ কোটি মানুষের জন্যই আসবে, এটি বোঝা উচিত।

২| ২০ শে আগস্ট, ২০১৯ সকাল ৭:২৩

বিষন্ন পথিক বলেছেন: ব্যাবসা করতে সুজোগ আর বুদ্ধি লাগে, যেটা আপনার মত তাদেরও আছে

২০ শে আগস্ট, ২০১৯ সকাল ৭:৪৬

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: মানুষের রক্তের ব্যাবসা একমাত্র সোনার বাংলাতেই সম্ভব।

৩| ২০ শে আগস্ট, ২০১৯ সকাল ৭:৩৯

রাজীব নুর বলেছেন: ঠিক আছে তারা ব্যবসা করুক। কিন্তু তাদের ওষুধে তো কাজ হছে না। মশার কয়েলে ধোয়া হয় কিন্তু মশা যায় না। স্প্রে তে মশা মরে না। সরকার তো এই বিষয় গুলো দেখবে। নাকি??

২০ শে আগস্ট, ২০১৯ সকাল ৭:৫১

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: মশার ঔষধে ভেঁজাল অথবা বিষ রেসিসটেন্ট হয়ে গেছে, মশা এখন বিষকে কোমল পানীয় মনে করে। সরকার দোয়া করছেন আমরা জনগণ সরকারের কাছে দোয়াপ্রার্থী শরনার্থী।

৪| ২০ শে আগস্ট, ২০১৯ সকাল ৮:২৬

আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন: বিশ্বের বড় বড় বহুজাতিক ওষুধ কোম্পানি থেকে শুরু করে জড়ি বটি পানি পড়া বিক্রেতা ঠকবাজরাও এই ব্যবসা করে চলেছে দীর্ঘদিন থেকে। সাথে সংশ্লিষ্টরাও মৃত্যুর ব্যবসা থেকে টু পাইস কামাই করছে। হাজার হলেও ব্যবসাটা মানুষের বাঁচা মরার সাথে যুক্ত। এদের এই ব্যবসার ফাঁদে পা না দিয়ে সাধারণ মানুষের উপায় কী?

২০ শে আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ১:১০

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: ডাইনিং টেবিল দেখে হামলে পরা যাবেনা। খাদ্যে সংযম আনতে হবে। এখন না খেয়ে কেউ মরে না, বরং খেতে খেতে আটার বস্তা ড্রামে রুপান্তিরিত হয়। আর রোগ জীবানু হতে সাবধান থাকা পরিস্কার পরিচ্ছন্ন শুধু নিজে হলে হবে না নিজের পরিবেশ সমাজ পরিস্কার রাখতে হবে।

৫| ২০ শে আগস্ট, ২০১৯ সকাল ৮:৩০

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: আপনার মতের সারাংশের শেষাংশ ধরে-
মর্ত্যের ভগবান প্রশাসন!
প্রশাসনে ছড়ি ঘুরাচ্ছে রাজনীতিবিদ
রাজনীতিবিদরা ধরা আবার প্রশাসনের কাছে- রাতের ভোটের দায়ে!
কৃতজ্ঞতার ষোল আনার উপর আঠার আনা শোধ নিচ্ছে তারা
সহযোগীতায় আছে সিন্ডিকেট বানিজ্য গং!
ভাইস ভার্সায় একে অন্যের পরিপূরক!
ক্ষমতার দম্ভকে টিকিয়ে রাখতে গিয়ে সব শেষ হয়ে যাচ্ছে!
ভেঙ্গে পড়ছে প্রশাসনিক অবকাঠামো! নীতি নৈতিকতা! আইনের শাসন! বিচার ব্যবস্থা!
সামান্য মশা নিয়ে, দুর্নীতি নিয়ে, দুধে ভেজাল নিয়েও হাইকোর্টের রুল জারি করতে হয়!
সড়ক দূর্ঘটনায় মৃত্যুর ক্ষতিপূরণ আদায়ে হাইকোর্টকেেও গলদঘর্ম হতে হয়!
সরকারের এরকম ধারাবািহক ব্যার্থতা, ব্যার্থ রাষ্ট্রের দিকেই ঠেলে দেয় দেশকে।



২০ শে আগস্ট, ২০১৯ সকাল ৮:৩৯

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: ঠিক বলেছেন প্রশাসনের, আইনের অপব্যাবহার, প্রশাসনকে গলা চিপে ধরা, মুর্খ্য রাজনীতিবিদদের কাছে বিসিএসদের গলদঘর্ম হয়ে জবাব দিহি - এ যেনো গাধার কাছে রাজার গল্প! হাইকোর্ট সরকার প্রশাসন সহ ১৭ কোটি জনতা সবাই এখন জিম্মি ছাড়া আর কিছু না। - দায়ী কে?

৬| ২০ শে আগস্ট, ২০১৯ সকাল ৮:৪৯

বার্ণিক বলেছেন: আপনি কি মনে করেন সরকার জনগণের কথা ভাবে?

২০ শে আগস্ট, ২০১৯ সকাল ৯:০০

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: আপনার কি ধারণা?

৭| ২০ শে আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ১:০৭

মৃন্ময়ী শবনম বলেছেন: সমস্যা হচ্ছে এই দেশে সবাই রাজনৈতিক জ্যাকেটে আবৃত থাকে এবং থাকে ধোরা ছোঁয়ার বাইরে, আপনার সাহস দেখে শ্রদ্ধা করছি এভাবে আঙ্গুল তোলে কথা বলার জন্য সাহস না, মহা-সাহসের প্রয়োজন। মনে হয়না মৃত্যুর মিছিল থামবে - - - । তারপরও সরকার প্রশসানের কাছে এটাই অনুরোধ, আজ আপনারা সরকার কালকে হয়তো আপনারাই হবেন জনগণ, তাই রুখতে হবে এই মৃত্যুর মিছিল।

২০ শে আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ১:২০

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: না আমি আসলে তেমন সাহসি মানুষ নই, আমার এই লেখাটি ব্লগার “চাঁদগাজী” ভাই লিখলে তলোয়ার চালাতেন। ভালো বলেছেন এটাই সময়ের দাবী - আজ আপনারা সরকার কালকে হয়তো আপনারাই হবেন জনগণ, তাই আপনাদেরই রুখতে হবে এই মৃত্যুর মিছিল।

৮| ২০ শে আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ১:৩৪

তারেক_মাহমুদ বলেছেন: ডেঙ্গু নিয়ে সত্যি বিরাট বানিজ্য চলছে, কিছুই করার নেই আমাদের।

২০ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৮:২৬

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: আসলে ঠিক বানিজ্য নয়, একে বলে অপবানিজ্য। আমাদের দেশে এর আগেও অনেকবার অপবানিজ্য হয়েছে তার ফল ভয়ংকর হয়েছে।

৯| ২০ শে আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ১:৪১

কাজী ফররুখ আহমেদ বলেছেন: দেশের সাংসদদের ছেলে মেয়ে হয়তো ডেঙ্গু থেকে নিরাপদ কিন্তু প্রশ্ন মাদকাশক্ত এই নষ্ট রক্ত ডেঙ্গু মশা খাবে কেনো?

২০ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৮:৩১

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: এই ইডয়ট শ্রেণীর সমস্ত উত্তরসুরি মাদকাশক্ত বলেই তারা আমাদের নিয়ে কিছু ভাবতে চায় না। এরা এভাবেই মরবে, আর আমরা মরবো তাদের বোনা রোগ অসুখে।

১০| ২০ শে আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ১:৪৮

হাসান কালবৈশাখী বলেছেন:
ডেঙ্গু নিয়ে ব্যাবসার কিছু নেই।
সরকার ঘোষনা দিয়ে বলেছে ডেঙ্গু ৩ টেষ্ট মোট ৫০০টাকার বেশী হতে পারবে না।
বেসরকারি হাসপাতাল বেশী টাকা নিলে সরাসরি ICDDRB ল্যাবে চলে যান সরকারি মুল্যে পাবেন নিশ্চিত। ২৪ ঘন্টা খোলা।


প্রফেসর আবদুল্লাহ (জাতীয় অধ্যাপক) টিভিতে বলেছেন -
ডেঙ্গু জরে ৯৫% রোগির বাসায় থেকেই চিকিৎসা সম্ভব। মারা না গেলে ডেঙ্গু ৭ দিনে ভাল হয়ে যায়। ৪র্থ ও ৫ম দিন ভাইটাল।
প্লাজমা লিকেজ বা ইন্টার্নাল ব্লিডিং ঠেকাতে রোগীকে ফ্লুইড বা তরল খাবার দিতে হবে প্রচুর। মুখে খাওয়ান, শিরাতে দিন। ফ্লুইড, ফ্লুইড এন্ড ফ্লুইড। মুখে খেতে পারলে সবচেয়ে ভাল। ওরসেলাইন ফলের জুস, ফল, তরল খিচুড়ি। নরমাল খাবার খেতে পারলে তো ভালই।
অধিকাংশ ক্ষেত্রে ডেঙ্গু জ্বর হলে খুব বেশি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার দরকার নাই,
অযথা অর্থের অপচয় হয়।
জ্বরের ৪-৫ দিন পরে সিবিসি , সিবিসি টেষ্টেই Heamatocrit (HCT) আছে।
অযথা বার বার টেষ্টে অনেকে বিভ্রান্তিতে পড়তে পারেন। প্লেইটলেট টেষ্ট দরকার নেই
ডেঙ্গু জ্বরে Platelet দিয়ে কোন উপকার প্রমাণিত না।
ডেঙ্গু জ্বরে আইসিইউতে ভর্তি করা/ভর্তি হওয়ার দরকার নেই।
হাসপাতালের ফ্লোরে থাকতে হলেও থাকবেন। এবার বেশী রোগী মারা গেছে বার বার হাসপাতাল বদল করাতে। বা চিকিৎসা অসমাপ্ত অবস্থায় বাড়ি চলে যেতে।
অনেক রুগির অবিভাবক বলে বসে "এসব ডাক্তার কিছু জানে না" বলে বড় হাসপাতাল খোজে
সত্য কথা বলতে সরকারি হাসপাতালেই ডেংগুর সবচেয়ে ভাল চিকিৎসা পাবেন।

ডেঙ্গু জ্বরের চিকিৎসা কি করতে হবে?
ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত বেশির ভাগ রোগী সঠিক ভাবে মুখে ফ্লুইড খেয়ে সাধারণত ৭ দিনের মধ্যে নিজে নিজেই ভালো হয়ে যায়, এমনকি কোনো চিকিৎসা না করালেও। তবে আরো ৩ দিন বিশ্রাম নিতে হয়।
তবে আমি বলি রোগীকে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়েই চলতে হবে, যাতে ডেঙ্গু জনিত কোনো মারাত্মক জটিলতা না হয়।
মুখে খেতে পারলে সবচেয়ে ভাল। মুখে খেতে না পারলে শিরাতে নরমাল সেলাইন। তবে সেলাইন দিলে অযথা হার্টে ও লিভারে চাপ পরে। ডাক্তার নার্স তত্তাবধানে বিপি ও রোগির ওজন বয়স ইত্যাদি জাচাই করে দিতে হয়।
তাই মুখে খেতে না পারলে চামুচে চামুচে বার বার খাওয়াতে হবে।
সবাই ডেঙ্গু চিকিৎসার ন্যাশানাল গাইডলাইনটি ফলো করুন। এই ন্যাশানাল গাইডলাইন, ৯৬ পাতার এই National Guideline for Clinical Management of Dengue Syndrome প্রতিটি সরকারি ডাক্তার ও নার্সদের কাছে দেয়া হয়েছে।

আমার লেখাটি পড়ুন view this link

২০ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৮:৩৬

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: হাসান কালবৈশাখী ভাই, আপনার প্রতটি লেকা আমি পড়ি, এমনকি অন্যান্য পোষ্টে আপনার লেখা মন্তব্যও। আশার বাণী এই ব্লগে আপনারা আছেন যারা আশা দিচ্ছেন, নিশ্চিন্ত হচ্ছি, আশা করছি আবহাওয়া পরিবর্তন হলে ডেঙ্গু প্রাদুর্ভাব কমবে। এখন বাদবাকী আল্লাহ ভরসা।

১১| ২০ শে আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৩:২১

খায়রুল আহসান বলেছেন: পুঁজিবাদের ছোবলে এ দেশে চিকিৎসা সেবা আক্রান্ত বহু বছর ধরেই। ঔষধ শিল্প প্রতিষ্ঠান কর্তৃক নিয়োজিত প্রতিনিধিদের চাপ, ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোর প্রলোভনের শিকার মর্ত্যের ভগবানদের নীতিহীনতা, লোভ লালসা ইত্যাদি আমাদের বিত্তহীন, নিম্নবিত্ত, মধ্যবিত্ত ও উচ্চমধ্যবিত্ত জনগণকে ইতোমধ্যেই চিকিৎসাহীন থাকতে অথবা অপচিকিৎসা গ্রহণ করতে বাধ্য করছে। শুধুমাত্র উচ্চবিত্তরাই বিদেশে গিয়ে এবং প্রভাবশালীরা দেশে থেকেই সুচিকিৎসা নিতে পারছেন।

২০ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ১১:২০

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: আমরা বাংলাদেশী সবসময় জিম্মি থেকেছি, স্বাধীন দেশে বন্দী থেকে থেকে আমাদের এখন আর কিছু বলার নেই - শুধু নিরব দর্শক। বৃটিশ আমলে ছিলাম সাদা চামড়ার হাতে বন্দী, এখন স্বাধীন দেশে আমরা সবাই নিজের দেশের মুর্খ্য অর্ধ শিক্ষিত রাজনৈতিক ট্যাগ লাগানো জানোয়ারদের কাছে জিম্মি বন্দী। সময় পাল্টায় তবে আমাদের দেশের সময় হয়তো এভাবেই যাবে।

১২| ২০ শে আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৩:২৬

মাহের ইসলাম বলেছেন: সময়োপযোগী পোস্ট।
তবে, আপনার টাইটেলটাতে আমাদের সমাজের অনেক বড় চিত্র উঠে এসেছে।

হাসান কালবৈশাখী ভাইয়ের কথা শুনে ভয় কমেছে। এখন মনে হচ্ছে, বাসায় থেকেও হয়তো বিশ্রাম নিলে, আর পর্যাপ্ত ফ্লুইড খেতে পারলে টেনশন করার কিছু নেই।

শুভ কামনা রইল।
ভালো থাকবেন।

২০ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৮:৪৪

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: যেকোনো অসুস্থ্যতার একটি বড় নিরাময় বিশ্রাম ও ঘুম। বিশ্রাম ও ঘুমে শরীর তার নিজ মতো কাজ করতে পারে। হাসান কালবৈশাখী ভাই ডেঙ্গু নিয়ে খুব ভালো লিখেছেন আমরা আশাবাদী - আশাতেই আমার বেঁচে আছি। যতোই অন্ধাকার রাত হোক দিনের আলো আসবেই।

১৩| ২০ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৮:১১

করুণাধারা বলেছেন: ডেঙ্গু অনেকের জন্যই ব্যবসার সুযোগ সৃষ্টি করে দিয়েছে। কদিন আগে আমার ছেলের পায়ের পাতায় ফান্গাল ইনফেকশন দেখাতে একজন ডার্মাটোলজিস্ট এর কাছে নিয়ে যাই। তিনি একগাদা রক্ত-পরীক্ষা করতে দেন যে, পরীক্ষার মধ্যে ছিল ডেঙ্গু টেস্ট এবং প্লেটলেট কাউন্ট যাচাই।

অনেক ডাক্তারই এখন সুযোগ পেয়েছেন, অকারনে ডেঙ্গু টেস্ট করতে দিয়ে কমিশন বাণিজ্য করার।

২০ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৮:৪৮

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: ডাক্তার নামক জানোয়ারদের বোঝা উচিত সন্তান নিয়ে যখন মাতাপিতা ডাক্তার শরণাপন্ন হোন আর মাতাপিতার হাতে এমন ভয়ংকর মেডিক্যাল টেষ্ট রিকোয়ারমেন্ট ধরিয়ে দিলে মাতাপিতার মনের উপর দিয়ে কি যায়? ডাক্তারদের মনে রাখতে হবে ১৭ কোটি মানুষের অভিশাপ বিফলে যেতে পারেনা।

১৪| ২০ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৯:২১

জুনায়েদ বি রাহমান বলেছেন: সহমত

ব্লগার কালবৈশাখী ভাইএর মন্তব্য পড়লে মনে হয়, উনি ব্লগে সরকারের প্রতিনিধিত্ব করছেন। এবং ব্লগারদের হাউকাউ সরকার পর্যন্ত পৌছাচ্ছে।

২০ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৯:৩১

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: জুনায়েদ ভাই এটাই তো দুঃখ, ৮০ কিঃ মিঃ হন্টনকারী শক্তিমান কম্পুটার প্রবাদ আবাদ পুরুষটা যদি ব্লগ দেখতো তাহলে ডেঙ্গু নিয়ে ভালো কিছু ধারণা পেতো এখান থেকে।

১৫| ২০ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৯:২৫

জুনায়েদ বি রাহমান বলেছেন: একজন দিনমজুর রিকশাচালক বা কামলার ডেঙ্গুজ্বর হলে, সে ৫০০ টাকা কই পাবে? কে দেবে?
*** দিনমজুরেরা জ্বর হলেই হাসপাতালে দৌড় দেয় না। প্যারাসিটামল খেয়ে ঘরে শুয়ে থাকে।
তিনদিন ঘরে বসে খেয়ে, ০ হাতে সরকারী হাসপাতালে গেলে তার কি হবে????? @ বৈশাখী ভাই

২০ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৯:৩৪

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: জুনায়েদ ভাই, সরকার বলেছেন চামড়ার দাম এতো - তা ছিলো? চামড়া রাস্তায় কাদায় গড়াগড়ি দিয়েছে। সরকার বলেছেন মেডিক্যাল ফি এতো - এখন মিরপুর-১ থেকে বা দক্ষিণখান উত্তরখান উত্তরা থেকে আইসিডিডিআরবি যেতে ওতো রোগি মারা যাবে ডাক্তার পৌছাবার পূর্বে !!!

১৬| ২০ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ১০:২০

সুপারডুপার বলেছেন: জন্ম, বিয়ে ও মৃত্যু - জীবনের এই তিনটি পর্যায়ে মানুষ অনুষ্ঠান করে। তাই, এই তিনটিকে কেন্দ্র করে ব্যবসা হতে পারে।

২০ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ১০:২৪

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: মৃত্যু নিয়ে অনুষ্ঠানে আমার অনেক অনেক তিক্ত অভিজ্ঞতা আছে আশা করি লিখবো। মানুষ আর অমানুষে পার্থক্য সম্ভবত মাত্র এক চুল পরিমান দুরত্ব !!! এটি আমার ধারণা প্রিয় সুপারডুপার, তার কিছু অভিজ্ঞতা আমি লিখবো। ধন্যবাদ।

১৭| ২০ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ১০:২৩

চাঁদগাজী বলেছেন:


বাংলাদেশ একটা বাজার মাত্র

২০ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ১০:৫৫

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: চাঁদগাজী ভাই, বাংলাদেশের এই বাজার একদিন বাংলাদেশের ১৭ কোটি মানুষ খাবে, বাংলাদেশকেও খাবে।

১৮| ২০ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ১০:৫৩

জুনায়েদ বি রাহমান বলেছেন: লেখক বলেছেন: জুনায়েদ ভাই, সরকার বলেছেন চামড়ার দাম এতো - তা ছিলো? চামড়া রাস্তায় কাদায় গড়াগড়ি দিয়েছে। সরকার বলেছেন মেডিক্যাল ফি এতো - এখন মিরপুর-১ থেকে বা দক্ষিণখান উত্তরখান উত্তরা থেকে আইসিডিডিআরবি যেতে ওতো রোগি মারা যাবে ডাক্তার পৌছাবার পূর্বে !!!
-
সরকার দাম নির্ধারণের আনুষ্ঠানিক একটা দায়িত্ব পালন করে মাত্র। মূল দাম তো নির্ধারণ করে ব্যবসায়ী গুষ্ঠি। সরকারও সেটা জানে। তাই নির্ধারণ করা দাম, নিয়ম বাস্তবায়িত করতে সরকার কোনোপ্রকার পদক্ষেপ নেয় না। অন্যভাবে বললে, সরকারের দাম নির্ধারণ করে দেয় 'বৈশাখী 'ভাইদের মুখ রক্ষার জন্য। অর্থাৎ তারা যাতে পাব্লিক প্লেসে বলতে পারেন, সরকার এটা বলেছে; সেটা বলেছে......

২০ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ১১:০০

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: সরকারের সাথে সিন্ডিক্যাট ব্যাসায়ী বেয়াই বেয়াইন সম্পর্ক সেই ১৯৪৭ সন থেকে, আর আমরা হচ্ছি সবাই বিয়ে বাড়ীর দর্শক। তবে একটা কথা মনে রাখবেন এই সিন্ডিক্যাট ব্যাসায়ী একদিন সরকার খেয়ে ফেলে।

১৯| ২১ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ২:১৭

ভবিষ্যত বলেছেন: আমার মনে হয় এতো সবে শুরু.... সামনে শুভ দিন আসার কোন লক্ষন নাই...

২১ শে আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৪:২১

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: অজানার পথে ছোটে চলছি এক অজানা পথের পথিক।

২০| ২১ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৩:০৫

আহমেদ জী এস বলেছেন: ঠাকুরমাহমুদ,




হাসান কালবৈশাখীর মন্তব্য সুন্দর। ব্যবসায়ীদের হাত থেকে বাঁচতে তার লেখাটিতে আশ্বস্ত হওয়া যেতে পারে।
এ ধরনের সুযোগী ব্যবসা কেন দমানো সম্ভব নয় তা খায়রুল আহসানের বক্তব্যে উঠে এসেছে।

পরিশেষে বলি, বিপদে মাথা ঠাণ্ডা রাখতে হয়, গরম হয়ে গেলেই অনর্থ। প্রোপাগান্ডার আতংকে মানুষ দিশেহারা হয়েছে বলেই ডেঙুতে এতো এতো মানুষের মৃত্যু আমাদের দেখতে হয়েছে। অথচ ডেঙু ভয়াবহ কোন রোগ নয়।

২১ শে আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৪:২৮

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: আহমেদ জী এস ভাই, আমাদের সবার মাথা এখন ঠান্ডা আর এই ঠান্ডা থাকর কারণে আমরা প্রয়োজনীয় বিষয় নিয়ে প্রতিবাদ করতে ভুলে গেছি, লেখাতেও প্রতিবাদ আসে না। আমরা কি আসলে ফর্মালিন যুক্ত ভদ্রলোক?

২১| ২১ শে আগস্ট, ২০১৯ সকাল ৭:০৩

ডঃ এম এ আলী বলেছেন: ভাল বিষয় তুলে ধরেছেন ।
ডেঙ্গু বানিজ্য তালিকায় আরো দু ্কএকটি টি আইটেম যোগ করতে হবে যে ।
প্রথম আলোতে দেখলাম ঢাকা মহানগরীতে এডিস মশা নিধনে চিরুনী অভিযান শুরু হয়েছে ।
এই অভিযান বিষয়ে একজন মেয়র বলেছেন কোনো বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানে কোনো পাত্রে পানি জমে থাকা দেখলে, এডিস মশার প্রজননস্থল পাওয়া গেলে তাদের জরিমানা করা হবে। সিটি করপোরেশন প্রথমবার বাসাবাড়িতে গিয়ে সতর্ক করে দিয়ে আসার এক সপ্তাহ থেকে ১০ দিন পর পুনরায় গিয়ে দেখবে সেটা পরিচ্ছন্ন আছে কি না। দ্বিতীয়বার গিয়ে পরিচ্ছন্ন না পেলে এবং এডিস মশার অস্তিত্ব পেলে সেগুলোকে জরিমানা করা হবে। বুঝতে পারছেন বানিজ্যটা কতপ্রকার ও কি কিকি ধরনের হতে পারে । তাই এটাও তালিকায় যুক্ত হতে পারে । জরিমানা বানিজ্যের হাত হতে বাঁচতে চাইলে পুরা বাড়ীকে মশারীর ভিতরে নিয়ে আসুন ।মশারী যারা তৈরী করে তাদেরো ভাল বানিজ্য হবে ।

আর হ্যাঁ প্রশাশন নিয়ে ভাবতে হবেনা এটার বেসরকারী করন শুরু হয়ে গেছে , বানিজ্য মন্ত্রনালয়র প্রশাসন ইতিমধ্যে বেসরকারী পর্যায়ে এফবিসিসিআই এর কাছে চলে গেছে!!! বাকি গুলাও যাবে কিংবা যাই যাই করছে ।

২১ শে আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৪:৩৯

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: ডিসিস এর প্রতিকার না করে জরিমানা ব্যাবসা করবে এটি তো মজার ব্যাবসা !!! তাতে আবার ঘুষ বানিজ্যও আছে!!! আর মশারী, মশা মারার এ্যরোসল স্প্রে বানিজ্য তো তুঙ্গে!!!

বাংলাদেশে কিছু নামকরা প্রতিষ্ঠান যারা মশারী তৈরি করে তাদের প্রোডাকশন এখন সম্ভবত ২৪ ঘন্টা চালু আছে কারণ ইতিমধ্যে বাজারে মশারী ঘাটতি দেখা গিয়েছে। এবং বাজারে মশারী প্রতি ৫০-১০০ টাকা দাম বেড়ে গেছে!!!

২২| ২১ শে আগস্ট, ২০১৯ সকাল ৯:৫১

সোহানী বলেছেন: শতভাগ সহমত। দেশের যে অবস্থা সেখানে ঢেউ গুনে পয়সা নেবার চেস্টা করে সেখানে ডেঙ্গুতো ওদের জন্য আর্শিবাদ। ঢেউ গুনার গল্পটা নিশ্চয় জানান আছে!!!

যাহোক, প্রশাসন যেখানে ব্যবসায়ী সেখানে বাকিরা ব্যবসা করাইতো স্বাভাবিক।

২১ শে আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৪:৫৪

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: আপা, দেশে থেকে দেশের যন্ত্রনা আর দেশের বাইরে থেকে দীর্ঘমেয়াদী ভিসার সমস্যা। কোথায় যাবেন বলেন? আর মুসলিম ট্যাগ থাকার কারণে ইমিগ্রেশনে এখন যে ধরনের চেকিং হয় তাতে মনে হয় বলি, ভাই আপনার দেশে যাবো না আমাকে ফিরতি ফ্লাইটে ব্যাক করে দিন - এখন এটি বললেও সমস্যা। আমাদের দেশ অরাজকতার দেশে পরিনত হচ্ছে আর তার মূল হোতা ছাত্র রাজনীতি।

২৩| ২১ শে আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৩:০৫

নাসির ইয়ামান বলেছেন: @বিদ্রোহী ভৃগু
আপনার পোস্ট,মন্তব্য,প্রতিমন্তব্য খুব সুন্দরভাবে উপস্থাপন করেন। ভালো লাগে!

@হাসান কালবৈশাখী
আপনাদের সরকার উন্নতমানের অভিনেত্রী/অভিনেতা।
পৃথিবীতে প্রথম যেদিন অভিনয় শিল্প প্রাতিষ্ঠানিকভাবে চালু হয়েছে,সেদিন থেকে মিথ্যাবাদীরা মিথ্যা বলার স্বীকৃতি পেয়েছে।এমনকি ভাওতাবাজির কারণে সম্মানিতও হয়েছে,হচ্ছে।

২১ শে আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৪:৫৫

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: আপনার সরকার কে? আপনি কোন দেশের নাগরিক? আপনি কি রোহিঙ্গা?

২৪| ২১ শে আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৩:১৫

নাসির ইয়ামান বলেছেন: @ঠাকুরমাহমুদ।
আপনি ১৬তম মন্তব্যের প্রতিমন্তব্যে মৃত্যুকেন্দ্রিক আনুষ্ঠানিকতা নিয়ে তিক্ত অভিজ্ঞতার বর্ণনা দিতে চেয়েছেন,ভাল কথা।তবে আপনার লেখা "দাদী ও হ্যাজাকলাইট" এতে আমি মৃত্যু উপলক্ষ্যে আয়োজনের বিরোধিতা করেছি,আপনি ডিসলাইক করেছেন। আপাত মূহুর্তে আপনার সিদ্ধান্ত কী ডাবলষ্ট্যান্ডার্ড/পক্ষে-বিপক্ষে!

আপনার অত্র লেখাটি প্রশংসনীয়.!

২১ শে আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৪:৫৮

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে গ্রামবাসীকে আত্মীয় পরিজনকে দাওয়াত দিয়ে সম্মানের সাথে খাওয়ানো যাবে না - এটি কোরআনের কোন আয়াতে লেখা আছে আমাকে জানাবেন। কোরআনের কোন আয়াত।

২৫| ২১ শে আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৩:১৭

রাজীব নুর বলেছেন: লেখক বলেছেন: মশার ঔষধে ভেঁজাল অথবা বিষ রেসিসটেন্ট হয়ে গেছে, মশা এখন বিষকে কোমল পানীয় মনে করে। সরকার দোয়া করছেন আমরা জনগণ সরকারের কাছে দোয়াপ্রার্থী শরনার্থী।


আসলে এই দেশে শান্তি নাই।

২১ শে আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৫:০২

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: নিজের দেশে ছেড়ে যাবো কোথায়? সাংসদরা প্রতি পাঁচ বছর পর পর দেশ ছেড়ে পালায় - কারণ তারা দেশে পাপ করেছে। আমরা দেশ ছাড়বো কেনো, কোন দুঃখে ?

২৬| ২১ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৮:০৯

নাসির ইয়ামান বলেছেন: ধর্মের নামে এমন কাজ করা যাবে না,যা ধর্ম নয়!

সহীহ মুসলিমের হাদিস,

""তোমাদের উপর অবশ্যকর্তব্য হলো আমার রীতিনীতি ও সাহাবাদের রীতিনীতি আকড়ে ধরা! ""
রাসুল (সা়) সাহাবারা (রা়) এগুলো করেননি!

ধর্মে বাড়াবাড়ির কারণে ইহুদি ও খৃষ্টানেরা অভিশপ্ত ও পথভ্রষ্ট হয়েছে! {বিস্তারিত পরে জানাবো}ইনশা....

২১ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৮:১৮

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে গ্রামবাসীকে আত্মীয় পরিজনকে দাওয়াত দিয়ে সম্মানের সাথে খাওয়ানো যাবে না - এটি কোরআনের কোন আয়াতে লেখা আছে আমাকে জানাবেন। কোরআনের কোন আয়াত।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.