নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

তুমি কেমন করে গান করো হে গুনী, আমি অবাক হয়ে শুনি, কেবল শুনি ।।

ঠাকুরমাহমুদ

sometimes blue sometimes white sometimes black even red, even golden ! yes dear - its me - i am sky ! color your life, than your life will be colorful

ঠাকুরমাহমুদ › বিস্তারিত পোস্টঃ

বাবা

১৬ ই জুন, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৫৭


=======================================================================
বাবা আমার, বাজারের সব রঙিন খেলনা
বাবা আমার, বাজারের সব মিষ্টি মিঠাই,
বাবা আমার, আজ শুক্রবার স্কুল ছুটি
বাবা আমার, সেদিন বুঝি যেদিন তার অনুপস্থিতি।
=======================================================================

উৎসর্গ: আমার আব্বা। একজন যোদ্ধা, যিনি জীবনের সকল যুদ্ধে জয়ী হয়েছেন। ১৯৭৯ সনের ডিসেম্বরের কনকনে এক শীতের রাতে আমার দাদাজানের অসুস্থতার কথা শুনে আমার আব্বা বাংলাদেশ সরকারের কারফিউতে কোনো গাড়ি না পেয়ে ঢাকা থেকে এক পাঁচটনি ট্রাক ভাড়া করে গ্রামের বাড়িতে চলে আসেন। তিনি ঢাকা ফিরেই রাগে দুঃখে একটি গাড়ি কিনেন। আমাদের জীবনের প্রথম নিজেদের গাড়ি Jeep CJ5 Yellow Model: 1974 আমার দাদাজান জিপে বসার আগে বলেছিলেন - দাদাজান একটি দান করতে চান। আমার আব্বা গর্বের সাথে দাদাজানের ইচ্ছাপূরণ করেন। তিনি আমাদের ৩৭০ বছরের পুরোনো আরিফাইল মসজিদ ফান্ডে আধা বিঘা জমি দান করে দেন। ১৯৮১ সনে আমার দাদাজান ও ১৯৯৯ সনে আমার আব্বা আমাদের অনাথ করে দিয়ে চিরো বিদায় নেন। পরম করুণাময়ের কাছে প্রার্থনা - যদি পুনর্জন্ম থেকে থাকে, তাহলে আমি বার বার এই বাবারই সন্তান হতে চাইবো।




ছবি: গুগল সার্চ ইঞ্জিন।
কৃতজ্ঞতা স্বীকার: সামহোয়্যারইন ব্লগ।







মন্তব্য ৭৯ টি রেটিং +২২/-০

মন্তব্য (৭৯) মন্তব্য লিখুন

১| ১৬ ই জুন, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:২১

বিজন রয় বলেছেন: সুন্দর।
আপনি সহ আপনার সকলকে শুভেচ্ছা।

১৬ ই জুন, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৪২

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




আপনাকেও অনেক অনেক শুভেচ্ছা, অভিনন্দন ও দোয়া।

২| ১৬ ই জুন, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৩৩

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: বাবা আমার, সেদিন বুঝি যেদিন তার অনুপস্থিতি..

এটাই সত্যি!
বাবা থাকতে বাবা বোঝা যায় না
চলে গেলেই বুঝি বটবৃক্ষের শুন্যতা কি অনুভুত হয়!

আপনার দাদার, বাবার পূন্যাত্মার জন্য দোয়া,
আপনার জন্য রইল শুভকামনা


১৬ ই জুন, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৩৮

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




বিদ্রোহী ভৃগু ভাই,
আমার দাদাজান আমার আব্বা এমন মানুষ ছিলেন কারো সুখের কথা শুনলে তিনি নিজেও সুখি হতেন আর দুঃখের কথা শুনলে হতেন সমদুঃখি। আপনার জন্যও রইলো অনেক অনেক দোয়া ও ভালোবাসা।

৩| ১৬ ই জুন, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৪১

বিজন রয় বলেছেন: অনেক দিন পর বাবাকে নিয়ে ব্লগে পোস্ট পেলাম।

আমার উত্তর দিলেন না যে!

১৬ ই জুন, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৪৪

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




দাদাভাই, আমি উত্তর দিতে গিয়ে বিদ্রোহী ভৃগু ভাইকে আগে উত্তর দিয়ে দিয়েছি প্লিজ মনে কষ্ট নিবেন না। বাবা নিয়ে বেশ কয়েকটা পোস্ট দেয়ার ইচ্ছে আছে। আপনার জন্য অনেক অনেক দোয়া ও ভালোবাসা রইলো।


৪| ১৬ ই জুন, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৪৬

বিজন রয় বলেছেন: কি বলেন!! নিশ্চয়ই কিছু মনে নিব না।

লিখুন আপনার দাদা, বাবা, পরিবার নিয়ে।
আপনার সম্পর্কে আমার খুব কৌতূহল।
কেন সেটা সময় হলে জানাবো।

১৬ ই জুন, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৫২

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




বিজন রয় ভাই, আমার দাদাজান ও আমার আব্বাকে নিয়ে অবস্যই লিখবো, তাহলে আমার পুত্রও একদিন আমাকে নিয়ে লিখবেন - আর এটাই জগতের নিয়ম। মজার মজার লেখা পাবেন ভাই। আপনাকে আবারো ধন্যবাদ।


৫| ১৬ ই জুন, ২০২০ রাত ৮:০৭

সোহানাজোহা বলেছেন: আপনার দাদাজান ও আপনার আব্বা অনেক বড় মনের মানুষ ছিলেন। আপনার দাদাজানও আপনার আব্বা হচ্ছেন যেমন পিতা তেমন পুত্র। আপনাদের সকলের জন্য অনেক অনেক দোয়া নিবেন। ভালো থাকুন।

১৬ ই জুন, ২০২০ রাত ৮:২২

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




আমি আমার সমগ্র জীবন তাদের মতো হতে চেয়েছি - হয়তো পেরেছি হয়তো পারিনি। আমার সঠিক জানা নেই। আপনার জন্যও অনেক অনেক দোয়া। ভালো থাকুন। নিরাপদ থাকুন।


৬| ১৬ ই জুন, ২০২০ রাত ৮:১৭

চাঁদগাজী বলেছেন:


আপনাদের গ্রামের বাড়ী কোন এলাকায়?

১৬ ই জুন, ২০২০ রাত ১১:৫০

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




বিখ্যাত ব্রাহ্মণবাড়িয়া।


৭| ১৬ ই জুন, ২০২০ রাত ৮:১৭

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: আপনার গুরুজনদের প্রতি শ্রদ্ধা।
মহান আল্লাহ সুবহানাতায়ালা উনাদের সবাই কে জান্নাতুল ফেরদৌস দান করুন।

জিয়ি সাহেব মনে হয় শেষের দিকে কারফিউ দিয়ে টিকে থাকতে চেয়েছিলেন।

১৬ ই জুন, ২০২০ রাত ৮:২৯

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:



তাদের দিয়েই আমি। নয়তো আমি কিছুই না।
আপনার জন্যও দোয়া করছি ভাই আ্পনি ভালো থাকুন - সুস্থ থাকুন - নিরাপদ থাকুন।

৮| ১৬ ই জুন, ২০২০ রাত ৯:০৪

নেওয়াজ আলি বলেছেন: বীর যোদ্ধা বাবাকে শ্রদ্ধা । আল্লাহ যেন উনাকে স্বর্গে সহী সালামত রাখে । আমার বাবা অ্যাজমা রোগী আর মা ডায়াবেটিস রোগী খুবই ভয়ে আছি এই করোনা কালে। আপনাকে ভালোবাসা প্রিয়জন।

১৬ ই জুন, ২০২০ রাত ৯:০৯

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




পরম করুণাময় আল্লাহপাকের কাছে দোয়া করছি যেনো আপনার আব্বা আম্মাকে হেফাজত রাখেন - নিরাপদ রাখেন। আপনার জন্য রইলো অনেক অনেক দোয়া ও ভালোবাসা।


৯| ১৬ ই জুন, ২০২০ রাত ৯:৩৯

রাজীব নুর বলেছেন: আপনার বাবার জন্য শ্রদ্ধা রইলো।

আমার বাবা বেঁচে আছেন। তবে বেশ অসুস্থ। প্রায় এক বছর হয়ে এলো আব্বার সাথে দেখা হয় না। অথচ একই শহরে থাকি।

১৬ ই জুন, ২০২০ রাত ৯:৫১

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




রাজীব নুর ভাই, আমি আপনাকে অনুরোধ করছি প্লিজ আপনি দ্রুত চাচাজানের সাথে দেখা করুন। নয়তো নিজেকে নিজে কখনো ক্ষমা করতে পারবেন না। আপনার আব্বার জন্য দোয়া করছি আল্লাহপাক যেনো শান্তি দেন। আপনি আমার কথা শুনুন প্লিজ। বাবা মায়ের সাথে কখনো রাগ অভিমান করতে নেই।



১০| ১৬ ই জুন, ২০২০ রাত ৯:৪০

সাইন বোর্ড বলেছেন: উভয়ের আত্মার শান্তি কামনা করছি ।

১৬ ই জুন, ২০২০ রাত ৯:৫৫

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




আমি আপনার কাছে কৃতজ্ঞ। আপনার জন্যও দোয়া প্রার্থনা করছি।


১১| ১৬ ই জুন, ২০২০ রাত ৯:৪৪

মুক্তা নীল বলেছেন:
ঠাকুরদা ,
আপনার শ্রদ্ধেয় দাদাজান ও শ্রদ্ধেয় আব্বা
উনাদেরকে আল্লাহ বেহেশতে পরম শান্তিতে রাখুন।
বাবা তো বাবাই, যার বাবা বেঁচে নেই সেই দুঃখ
-কষ্ট হয়তো তারাই বুঝেন।

১৬ ই জুন, ২০২০ রাত ১০:০৪

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




আপনি আমার আব্বা ও দাদাজানের জন্য দোয়া করেছেন - আমি কৃতজ্ঞ। আপনার জন্য দোয়া করছি পরম করুণাময় আল্লাহপাক যেনো সব সময় আপনাকে শান্তিতে রাখেন, ভালো রাখেন, নিরাপদ রাখেন।

“পিতা অর্থ পুত্রের আশা ভরসা
পিতা অর্থ পুত্রের সকল ভালোবাসা”

১২| ১৬ ই জুন, ২০২০ রাত ১০:০৫

ওমেরা বলেছেন: আলহামদুল্লিলাহ ! আমার আব্বু এখনো শক্ত, ও সুস্থ্যতাসহ ভালো আছেন। আমার আম্মু নেই , খুবই মিস করি আম্মুকে মাঝে মাঝে এতবেশী খারাপ লাগে মনে আমার জীবনটাই বৃথা।
আল্লাহ আপনার , দাদা,আব্বাকে ভালো রাখুন।

১৬ ই জুন, ২০২০ রাত ১০:১৮

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




আপা, মাতাপিতার মতো আপন পৃথিবীতে আর কেউ নেই। কখনো সম্ভব না।

মনরে তোর আপন কে?
- আমার মা,
মনরে তোর বন্ধু কে?
- আমার বাবা।


নিজের মনকে যদি কখনো জিগ্যাসা করেন উত্তর এই পাবেন। আপা আপনার আম্মার জন্য দোয়া করি পরম করুণাময় আল্লাহপাক যেনো আপনার আম্মাকে জান্নাতবাসী করেন, আর আপনার আব্বাকে যেনো সুখে শান্তিতে রাখেন।


১৩| ১৬ ই জুন, ২০২০ রাত ১০:০৮

মৃন্ময়ী শবনম বলেছেন: বাবা পাশে থাকলে সন্তান পাহাড় সমুদ্র সহ সকল দুর্গম পথ পাড়ি দিতে পারেন। বাবার বিকল্প এই পৃথিবীতে কিছু নেই। আপনার আব্বা, দাদাজান ও আপনার জন্য দোয়া রইলো।

১৬ ই জুন, ২০২০ রাত ১০:২৪

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




বাবা পাশে থাকলে জীবনের প্রতিটি পথচলা হয় সুন্দর। বাবা হচ্ছেন সন্তানের সবচেয়ে শক্তিশালী বন্ধু। আপনার জন্যও অনেক অনেক দোয়া রইলো ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন, নিরাপদ থাকুন।



১৪| ১৬ ই জুন, ২০২০ রাত ১০:১৯

নতুন নকিব বলেছেন:



প্রিয়তম বাবার জন্য জান্নাতপ্রাপ্তির দুআ।

আপনার এলাকায় কোনো এক কাজে অনেক আগে একবার গিয়েছিলাম ভাই। আবার গেলে ইনশাআল্লাহ জানিয়ে তবেই যাব।

শুভকামনা। +

১৬ ই জুন, ২০২০ রাত ১০:৩৩

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




নতুন নকিব ভাই,
আমার আব্বা একটি কথা প্রায়ই বলতেন “মিথ্যা বলে একশত বছর বেঁচে থাকার চেয়ে সত্য বলে একদিন বেঁচে থাকা অনেক গর্বের অনেক আনন্দের”। আমি সব সময় এই কথা মনে রাখি।

আপনি অবস্যই অবস্যই আমাকে জানাবেন। আপনার জন্যও দোয়া করছি আল্লাহপাক আপনাকে ভালো রাখুন, সুস্থ রাখুন, নিরাপদ রাখুন।

১৫| ১৬ ই জুন, ২০২০ রাত ১০:২৮

খায়রুল আহসান বলেছেন: অল্প কথায় চমৎকার লিখেছেন। প্রথম চারটে লাইন মন ছুঁয়ে গেল! + +
আপনার প্রয়াত বাবা এবং দাদার মাগফিরাতের জন্য দোয়া করছি, আল্লাহ পাক যেন তাদেরকে বেহেস্ত নসীব করে দেন। আর আপনার সন্তানরাও যেন আপনার মত হয়।

১৬ ই জুন, ২০২০ রাত ১০:৪৫

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




খায়রুল আহসান ভাই,
২০১০ সনে আমি শেষ ওমরাহ করেছি। জানিনা আবার যেতে পারবো কিনা? জানিনা ভবিষ্যত কি? ওমরাহ ফ্লাইটে সাউদি এয়ারলাইন্স ঢাকা-রিয়াদ-জেদ্দা আমি কিছু খেতে পারিনি, পুরোটা সময় আমার আব্বার কথা মনে পরেছে। বাবার অপূর্ণতা কোনোদিন পূরণ হবার নয়। বৃদ্ধ হয়েছি এখনো পাশে বাবা না থাকার কষ্ট মনে বাস করে।

১৯৭৪ সনের দুর্ভিক্ষে আমার দাদাজান লঙ্গরখানা দিয়েছিলেন। সেই গল্প কোনো একদিন করবো। দাদাজান যেমন বড় মনের মানুষ ছিলেন তেমন ছিলেন উদার। খায়রুল আহসান ভাই, আমি আপনার কাছে কৃতজ্ঞ। আপনার জন্যও দোয়া করছি আল্লাহপাক যেনো আপনাকে ভালো রাখেন, শান্তিতে রাখেন, নিরাপদে রাখেন।


১৬| ১৬ ই জুন, ২০২০ রাত ১১:০৮

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: ছোট ছিলাম যখন আমি
বাবা ছিলেন কাছে
এখনো ঠিক বাবার কাছে
থাকতে এ মন যাচে।

নেই কাছে নেই বাবা আমার
ভালোবাসার অভাব
অসুখ হলে বাবার কোলে
থাকা ছিলো স্বভাব।

অসুস্থ হই কেউ রাখে না
কপালে হাত আমার
মন জমিনে গড়া যেনো
বিষাদ ব্যথার খামার।

আঙ্গুল ধরে শিখলাম হাঁটা
শিখলাম কথা বলা
মেয়েবেলা কাটতো আমার
জড়িয়ে তাঁর গলা।

বাবা ছিলেন যেনো আমার
ইতিহাসের খনি
বিশ্ব শিখে তাঁর কাছে হই
জ্ঞান বিজ্ঞানে ধনী।

আজকে বাবা বার্ধক্য রোগ
ঝাপটে ধরলো দেহ
পাচ্ছি না আর হাত বুলানো
মেয়েবেলার স্নেহ।

চুল পেকেছে নির্বল দেহ
জরাজীর্ণ জীবন;
দূরে থেকে বাবা কাছে
তাই সুখের হয় ভুবন।

বাবা যেনো এই জীবনে
সাফল্যতার চাষী
বুক ভরে তাই বলি বাবা
তোমায় ভালোবাসি।

১৬ ই জুন, ২০২০ রাত ১১:৩০

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




ছবি আপা, কবিতায় আমি আপনার কাছে কৃতজ্ঞ। আমি আপনার কাছে ঋণী রইলাম। আমার কাছে এই কবিতা সংগ্রহে থাকবে আজীবন।

আমার বাবার মুখে প্রথম যেদিন
শুনেছিলাম গান
সেদিন থেকে গানই জীবন
গানই আমার প্রাণ

আমার মায়ের আদেশ বাবার মতো
গাইতে হবে গান
সেদিন থেকে গানই জীবন
গানই আমার প্রাণ

শিল্পীর ঘরে জন্ম
তাই শিল্পী হয়েছি
সংগীতটাকে সারাজীবন
সঙ্গী করেছি

জীবনে যতো দুঃখ
যতো কষ্ট পেয়েছি
সুরের মাঝে ডুবে গিয়ে
সবই ভুলেছি

এই গানই আমার জীবন-মরণ
গানই যেন প্রাণ
আমার বাবার মুখে প্রথম যেদিন
শুনেছিলাম গান
সেদিন থেকে গানই জীবন
গানই আমার প্রাণ

বাবা যেন আজও স্বর্গে বসে
গাইছে সেই গান
যেই গান শুনে সঁপেছিল মা
বাবাকে মন ও প্রাণ
কোনোদিন এই কণ্ঠ
যদি কখনো থেমে যায়…


১৭| ১৬ ই জুন, ২০২০ রাত ১১:২৪

কলাবাগান১ বলেছেন: তাহের উদ্দীন ঠাকুর পরিবার???

১৬ ই জুন, ২০২০ রাত ১১:৩১

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: তাহের উদ্দিন ঠাকুর আমার ছোট চাচা।

১৮| ১৭ ই জুন, ২০২০ রাত ১:২৯

সুপারডুপার বলেছেন:



প্রিয় মাহমুদ ভাই,

পরম করুণাময়ের কাছে প্রার্থনা - যদি পুনর্জন্ম থেকে থাকে, তাহলে আমি বার বার এই বাবারই সন্তান হতে চাইবো।
-যদিও আপনি এটা আবেগ -অনুভূতি দিয়ে বলেছেন , কিন্তু এখানে মা'র অনুপস্থিতি প্রকাশ পেয়েছে। মা ভিন্ন হলে আপনার নিউরন কোষগুলোর ধারণকৃত শব্দ, দৃশ্য, স্পর্শ, অনুভূতিগুলো ভিন্ন হতে পারে। ফলে তখন আপনার আবেগ -অনুভূতি ভিন্ন হওয়ার-ই সম্ভবনা।

আপনার বাবার প্রতি আমার বিনম্র শ্রদ্ধা। আপনি আপনার বাবার আদর্শ নিয়ে সামনের দিকে এগিয়ে যাবেন এই শুভকামনা রইলো :-

১৭ ই জুন, ২০২০ রাত ৩:৩৫

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




সুপারডুপার ভাই,
ওমেরা আপার মন্তব্যে আমি লিখেছি - “মনরে তোর আপন কে? - আমার মা, মনরে তোর বন্ধু কে? - আমার বাবা”

পোস্টের শিরোনাম “বাবা” এই পোস্টে বাবার কথাই থাকবে আর মায়ের কথা থাকবে অনুপস্থিত। মা শিরোনাম নিয়ে যখন লিখবো তখন মায়ের প্রতি কৃতজ্ঞতার কথা থাকবে। - আশা করি ব্যাপারটি সহজ হয়েছে।

আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ ভাই। ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন, নিরাপদ থাকুন।



১৯| ১৭ ই জুন, ২০২০ ভোর ৫:১১

কলাবাগান১ বলেছেন: তাহের উদ্দীন ঠাকুর এর বংগবন্ধু এর সাথে বিশ্বাসঘাতকতা কে কিভাবে দেখেন আপনি

১৭ ই জুন, ২০২০ সকাল ১০:৪৯

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




বঙ্গবন্ধুর সাথে তাহের উদ্দিন ঠাকুর কিভাবে বিস্বাসঘাতকতা করেছেন? আপনি কি কর্নেল তাহের আর তাহের উদ্দিন ঠাকুর এক ও অভিন্ন ব্যক্তি মনে করছেন? তাছাড়া এই পোস্ট কি তাহের উদ্দিন ঠাকুর নিয়ে? আমার কাছে জানার চেয়ে উইকিপিডিয়াতে কি তথ্য আছে তা জেনে নিন।

২০| ১৭ ই জুন, ২০২০ ভোর ৫:৩৮

ডঃ এম এ আলী বলেছেন:



অআপনার দাদা ও বাবার প্রতি রইল শ্রদ্ধাঞ্জলী ।
উনাররা জান্নাতে অপার শান্তিতে থাকুন এ কামনা রইল ।
এখন অনেক রাত ।পরে একসময় আবার আসার ইচ্ছে রইল ।

শুভেচ্ছা নিবেন ।

১৭ ই জুন, ২০২০ সকাল ১১:০১

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




ডঃ এম এ আলী ভাই,
আপনার কাছে ভাই আমি কৃতজ্ঞ। আপনার ও আপনার পরিবারের জন্য দোয়া করছি পরম করুণাময় আল্লাহপাক আপনাদের ভালো রাখুন - সুস্থ রাখুন - ‍নিরাপদ রাখুন।


১৭ ই জুন, ২০২০ রাত ৯:৩৯

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




ডঃ এম এ আলী ভাই,
একজন বাবার কাছে সবচেয়ে প্রিয় শব্দ কি আপনি জানেন। - তার সন্তানের মুখের প্রথম শব্দ। একজন বাবা তার জীবনে অনেক কথা শুনেন সময়ের স্রোতে ভুলেও যান কিন্তু আমরণ তিনি তার সন্তানের মুখের প্রথম শব্দ মনে রাখেন। আর এটিই একজন বাবার জীবনের ইমোশনের শুরু। বাবা সারাদিনের সকল শ্রম কষ্ট দুঃখ ভুলে যান যখন তার সন্তানের কাছে তিনি ফিরে আসেন। পিতা পুত্র, পিতা কন্যা সম্পর্ক পৃথিবীর সবচেয়ে শক্ত মজবুত সম্পর্ক। পিতা এমন এক শক্তি যেখানে আমরা জীবনের সকল বীরত্ব খোঁজে পাই। পিতা হচ্ছেন মাথার উপরের ছায়া।

আপনার জন্য দোয়া করছি ভাই, আপনি আপনার পরিবার নিয়ে ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন, নিরাপদ থাকুন।

সন্তানের জন্য পিতা প্রাণ দিয়েছেন এমন অসংখ্য ইতিহাস আছে তারমধ্যে আমি শুধু একটি নাম বলছি - সম্রাট বাবর প্রাণ দিয়েছেন তার পুত্র সম্রাট হুমায়ূনের জন্য। পৃথিবী যতোদিন টিকে থাকবে মানব সভ্যতা যতোদিন টিকে থাকবে সম্রাট বাবরের এই বলিদান পৃথিবীর মানুষ জন্য শ্রদ্ধাভরে স্বরন করবেন।

জীবন বিনিময়
কবি গোলাম মোস্তফা
-------------------------------------------------------

বাদশা বাবর কাঁদিয়া ফিরিছে, নিদ নাহি চোখে তাঁর-
পুত তাহার হুমায়ুন বুঝি বাঁচে না এবার আর!
চারিধারে তার শনায়ে আসিছে মরণ-অন্ধকার।

রাজ্যের যত বিজ্ঞ হেকিম করিবাজ দরবেশ
এসেছে সবাই, দিতেছে বসিয়া ব্যবস্থা সবিশেষ,
সেবাযত্নের বিধিবিধানে তু্রটি নাহি এক লেশ।

তবু তার সেই দুরন্ত রোগ হটিতেছে নাক হায়,
যত দিন যায়, দুর্ভোগ তার ততই বাড়িয়া যায়-
জীবন-প্রদীপ নিভিয়া আসিছে অস্তরবির প্রায়।

শুধাল বাবর ব্যগ্রকনেঠ ভিষকবৃন্দে ডাকি,
‘বল বল আজ সত্যি করিয়া, দিও নাকো মোরে ফাঁকি,
এই রোগ হতে বাদশাজাদার মুক্তি মিলিবে নাকি?

নতমস্তকে রহিল সবাই, কহিল না কোনো কথা,
মুখর হইয়া উঠিল তাঁদের সে নিষ্ঠুর নীরবতা
শেলসম আসি বাবরের বুকে বিঁধিল কিসের ব্যাথা!

হেনকালে এক দরবেশ উঠি কহিলেন—‘সুলতান,
সবচেয়ে তব শ্রেষ্ট যে-ধন দিতে যদি পার দান,
খুশি হয়ে তবে বাঁচাবে আল্লা বাদশাজাদার প্রান।’

শুনিয়া সে কথা কহিল বাবর শঙ্কা নাহিক মানি-
‘তাই যদি হয়, প্রস্তুত আমি দিতে সেই কোরবানি,
সবচেয়ে মোর শ্রেষ্ঠ যে ধন জানি তাহা আমি জানি।’
এতেক বলিয়া আসন পাতিয়া নিরিবিলি গৃহতল
গভীর ধেয়ানে বসিল বাবর শান্ত অচঞ্চল,
প্রার্থনারত হাতদুটি তাঁর, নয়নে অশ্রু জল।

কহিল কাঁদিয়া- ‘হে দয়াল খোদা, হে রহিম রহমান,
মোর জীবনের সবচেয়ে প্রিয় আমারি আপন প্রাণ,
তাই নিয়ে প্রভু পুত্রের প্রান কর মোরে প্রতিদান।’

স্তব্ধ-নীরব গৃহতল, মুখে নাহি তার বাণী,
গভীর রজনী, সুপ্তি-মগন নিখিল বিশ্বরাণী,
আকাশে বাতাসে ধ্বনিতেছে যেন গোপন কী কানাকানি।

সহসা বাবর ফুকারি উঠিল—’নাহি ভয় নাহি ভয়,
প্রার্থনা মোর কবুল করেছে আল্লাহ হে দয়াময়,
পুত্র আমার বাঁচিয়া উঠিবে—মরিবে না নিশ্চয়।’

ঘুরিতে লাগিল পুলকে বাবর পুত্রের চারিপাশ
নিরাশ হৃদয় সে যেন আশায় দৃপ্ত জয়োল্লাস,
তিমির রাতের তোরণে তোরণে ঊষার পূর্বাভাস।

সেইদিন হতে রোগ-লক্ষণ দেখা দিলে বাবরের,
হৃষ্টচিত্তে গ্রহন করিল শয্যা সে মরণের,
নতুন জীবন হুমায়ুন ধিরে বাঁচিয়া উঠিল ফের।

মরিল বাবর – না, না ভুল কথা, মৃত্যু কে তারে কয়?
মরিয়া বাবর অমর হয়েছে, নাহি তার কোন ক্ষয়,
পিতৃস্নেহের কাছে হইয়াছে মরনের পরাজয়!



২১| ১৭ ই জুন, ২০২০ ভোর ৬:৪২

ইসিয়াক বলেছেন:




প্রিয় মাহমুদ ভাই,

আপনার দাদা ও বাবার প্রতি রইল গভীর শ্রদ্ধা ।আল্লাহ পাক যেন তাদেরকে বেহেস্ত নসীব করে দেন।
শুভকামনা রইলো।

১৭ ই জুন, ২০২০ সকাল ১১:০৪

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




ইসিয়াক ভাই,
আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ। ২১শে জুন বাবা বিশ্ব দিবস, ভাবছি বাবা নিয়ে বেশ কিছু লেখা পোস্ট দিবো। আপনাকে আবারো ধন্যবাদ। ভালো থাকুন।


২২| ১৭ ই জুন, ২০২০ সকাল ৭:৪৯

কাছের-মানুষ বলেছেন: আপনার বাবা এবং দাদাকে নিয়ে পোষ্টটি ভাল লাগল। তাদের প্রতি আমার শ্রদ্ধা রইল।

ভাল লিখেছেন।

১৭ ই জুন, ২০২০ সকাল ১১:০৭

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




ভাই, আসছে ২১শে জুন বিশ্ব বাবা দিবস। ভাবছি জুন মাসে বাবা নিয়ে বেশ কিছু লেখা পোস্ট দিবো। আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ। কৃতজ্ঞতা ও শুভেচ্ছা নিবেন।

২৩| ১৭ ই জুন, ২০২০ সকাল ১১:১২

কলাবাগান১ বলেছেন: হাসালেন ঠাকুর সাহেব...

ইতিহাস লিখা আছে কিভাবে তাহের উদ্দিন ঠাকুর মুশতাকের ডান হাত ছিলেন...ঠাকুর সাহেবের বিচার যখন হয়, তখন তিনিই সব নিজ মুখে বলেছিলেন...বেশী দুর যেতে হবে না ডেইলি স্টার পড়ে দেখুন এখানে
"Moshtaque also advised Taher not to go outside Dhaka and asked him to meet him at his office the following day (August 14), said Taher, who emerged as a political leader of the putsch that killed Mujib."

Taher Uddin Thakur : One of the leaders of the putsch

"Taher said on August 15, 1975 he prepared the brief radio speech for Moshtaque which was broadcast in his own voice."

"[Source: Confessional statement of Taher Uddin Thakur, The Guardian, Wednesday, August 15, 1979- Lawrence Lifschuitz, formerly South Asia Correspondent of the "Far Eastern Economic Review".]"

১৭ ই জুন, ২০২০ সকাল ১১:৩২

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




১। ডেইলি স্টার তথ্য নিয়ে কথা বলার আগে বলুন বাংলাদেশে বঙ্গবন্ধুর সাথে বিস্বাসঘাতকতা করে বাংলাদেশে থেকে কেউ ছাড় পেয়েছেন?
২। বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর সরকার আমলে তাহের উদ্দিন ঠাকুর কিভাবে বেকসুর খালাস পেলেন?
৩। তিনি তো আওয়ামী লীগের সাথে জড়িত নন তাহলে তিনি কিভাবে মুক্তি পেলেন?

*এই পোস্ট তাহের উদ্দিন ঠাকুর নিয়ে নয় তারপরও আপনি বাড়তি কথা বলে যাচ্ছেন। আপনি উপরের তিনটি প্রশ্নের জবাব দিবেন।

২৪| ১৭ ই জুন, ২০২০ সকাল ১১:৫৮

মাঈনউদ্দিন মইনুল বলেছেন:


পিতা ও পিতামহের প্রতি শ্রদ্ধাঞ্জলি!

পিতৃহীনতার এই মর্মবেদনা সার্বজনীন।
আমি 'আব্বা' শব্দটি করতে পারি না ১৯৮৯ সাল থেকে!

১৭ ই জুন, ২০২০ দুপুর ১:৩৩

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




মাঈনউদ্দিন মইনুল ভাই, আপনার আব্বার প্রতি রইলো অনেক অনেক শ্রদ্ধা, ভালোবাসা ও দোয়া, পরম করুণাময় আল্লাহপাক আপনার আব্বাকে বেহেস্ত নসীব দান করুন। আপনি আপনার বাবার জন্য দোয়া করবেন তিনি আপনার কাছে দোয়া দাবী রাখেন - তিনি আপনার কাছে দোয়া অধিকার রাখেন।

পিতা এমন এক শক্তি যেখানে আমরা জীবনের সকল বীরত্ব খোঁজে পাই। পিতা হচ্ছেন মাথার উপরের ছায়া।

২৫| ১৭ ই জুন, ২০২০ দুপুর ১২:৩৭

রাজীব নুর বলেছেন: করোনা শেষ হোক তারপর যাবো দেখা করতে। গত পরশু আব্বা ফোণ করেছিলো। কথা হলো।

১৭ ই জুন, ২০২০ দুপুর ১:৪৭

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




রাজীব নুর ভাই,
আপনি সর্বোচ্চ নিরাপত্তা নিয়ে গায়ে ডেটল ছিটিয়ে এবং সিএনজি বা মটর সাইকেলে ডেটল ছিটিয়ে জীবাণুমুক্ত করে আপনি আপনার বাবার সাথে দেখা করতে যান। একদিন সময় আসবে তখন আমার আজকের দিনের কথা আপনি স্বরন করবেন। আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ আপনি আপনার বাবার সাথে ফোনে কথা বলেছেন। বাবা মার সাথে কখনো রাগ অভিমান করতে নেই।

২৬| ১৭ ই জুন, ২০২০ দুপুর ১২:৪৭

অন্তরন্তর বলেছেন: ঠাকুর ভাই শ্রদ্ধাঞ্জলি আপনার বাবা এবং দাদার প্রতি। আমার বাবাকে হারিয়েছি অনেক দিন আগে। বাবা একটি পরিবারের বট বৃক্ষ। এমনকি অসুস্থ হয়ে পরে থাকলেও সবসময় সাহস থাকে পরিবারটিতে। আপনার বাবা এবং দাদাকে আল্লাহ্ রাব্বুল আলামিন জান্নাতুল ফেরদাউস নসীব করুন। @কলাবাগান আপনি পোস্ট বহির্ভূত প্রশ্ন করেছেন যা কাম্য নয়। আওয়ামীলীগের আমলে বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলায় বেকসুর খালাস পাওয়া আপনি কি মনে করেন সম্ভব ছিল? আপনাকে একটা ছোট তথ্য দেই, বঙ্গবন্ধু তাহের উদ্দিন ঠাকুরকে ঠাট্টা করে মুসলমান ঠাকুর বলে ডাকতেন আর খুব ভালবাসতেন। পোস্ট কন্টেন্ট বহির্ভূত প্রশ্ন করা আসলে একেবারেই উচিত না। ধন্যবাদ।

১৭ ই জুন, ২০২০ দুপুর ১:৫২

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




অন্তরন্তর ভাই,
পৃথিবীতে নিঃসার্থ ভালোবাসা একমাত্র বাবা মায়ের কাছে সন্তান পেয়ে থাকেন। এছাড়া পৃথিবীতে নিঃস্বার্থ ভালোবাসা বলে কোনো শব্দ নেই। বাবা এমন একটি শব্দ যেখানে সন্তান তার আ্শ্রয় ভালোবাসা শ্রম শক্তি খোঁজে পায়। আপনার জন্য দোয়া করি ভাই আপনি ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন, নিরাপদ থাকুন।

২৭| ১৭ ই জুন, ২০২০ দুপুর ১:৩০

কাল্পনিক_ভালোবাসা বলেছেন:
প্রিয় ঠাকুর মাহমুদ ভাই, আপনার বাবা ও পিতামহের প্রতি রইল আন্তরিক শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা।

১৭ ই জুন, ২০২০ দুপুর ২:২০

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




কাল্পনিক_ভালোবাসা ভাই,
একজন বাবার কাছে সবচেয়ে প্রিয় শব্দ কি জানেন? - তার সন্তানের মুখের প্রথম শব্দ। একজন বাবা তার জীবনে অনেক কথা শুনেন সময়ের স্রোতে ভুলেও যান কিন্তু আমরণ তিনি তার সন্তানের মুখের প্রথম শব্দ মনে রাখেন। আর এটিই একজন বাবার জীবনের ইমোশনের শুরু। বাবা সারাদিনের সকল শ্রম কষ্ট দুঃখ ভুলে যান যখন তার সন্তানের কাছে তিনি ফিরে আসেন। পিতা পুত্র, পিতা কন্যা সম্পর্ক পৃথিবীর সবচেয়ে শক্ত মজবুত সম্পর্ক। আপনার জন্যও দোয়া করছি ভাই, আপনি আপনার পরিবার নিয়ে ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন, নিরাপদ থাকুন।

কাল্পনিক_ভালোবাসা ভাই, সন্তানের জন্য পিতা প্রাণ দিয়েছেন এমন অসংখ্য ইতিহাস আছে তারমধ্যে আমি শুধু একটি নাম বলছি - সম্রাট বাবর প্রাণ দিয়েছেন তার পুত্র সম্রাট হুমায়ূনের জন্য। পৃথিবী যতোদিন টিকে থাকবে মানব সভ্যতা যতোদিন টিকে থাকবে সম্রাট বাবরের এই বলিদান পৃথিবীর মানুষ জন্য শ্রদ্ধাভরে স্বরন করবেন।

জীবন বিনিময়
কবি গোলাম মোস্তফা
-------------------------------------------------------

বাদশা বাবর কাঁদিয়া ফিরিছে, নিদ নাহি চোখে তাঁর-
পুত তাহার হুমায়ুন বুঝি বাঁচে না এবার আর!
চারিধারে তার শনায়ে আসিছে মরণ-অন্ধকার।

রাজ্যের যত বিজ্ঞ হেকিম করিবাজ দরবেশ
এসেছে সবাই, দিতেছে বসিয়া ব্যবস্থা সবিশেষ,
সেবাযত্নের বিধিবিধানে তু্রটি নাহি এক লেশ।

তবু তার সেই দুরন্ত রোগ হটিতেছে নাক হায়,
যত দিন যায়, দুর্ভোগ তার ততই বাড়িয়া যায়-
জীবন-প্রদীপ নিভিয়া আসিছে অস্তরবির প্রায়।

শুধাল বাবর ব্যগ্রকনেঠ ভিষকবৃন্দে ডাকি,
‘বল বল আজ সত্যি করিয়া, দিও নাকো মোরে ফাঁকি,
এই রোগ হতে বাদশাজাদার মুক্তি মিলিবে নাকি?

নতমস্তকে রহিল সবাই, কহিল না কোনো কথা,
মুখর হইয়া উঠিল তাঁদের সে নিষ্ঠুর নীরবতা
শেলসম আসি বাবরের বুকে বিঁধিল কিসের ব্যাথা!

হেনকালে এক দরবেশ উঠি কহিলেন—‘সুলতান,
সবচেয়ে তব শ্রেষ্ট যে-ধন দিতে যদি পার দান,
খুশি হয়ে তবে বাঁচাবে আল্লা বাদশাজাদার প্রান।’

শুনিয়া সে কথা কহিল বাবর শঙ্কা নাহিক মানি-
‘তাই যদি হয়, প্রস্তুত আমি দিতে সেই কোরবানি,
সবচেয়ে মোর শ্রেষ্ঠ যে ধন জানি তাহা আমি জানি।’
এতেক বলিয়া আসন পাতিয়া নিরিবিলি গৃহতল
গভীর ধেয়ানে বসিল বাবর শান্ত অচঞ্চল,
প্রার্থনারত হাতদুটি তাঁর, নয়নে অশ্রু জল।

কহিল কাঁদিয়া- ‘হে দয়াল খোদা, হে রহিম রহমান,
মোর জীবনের সবচেয়ে প্রিয় আমারি আপন প্রাণ,
তাই নিয়ে প্রভু পুত্রের প্রান কর মোরে প্রতিদান।’

স্তব্ধ-নীরব গৃহতল, মুখে নাহি তার বাণী,
গভীর রজনী, সুপ্তি-মগন নিখিল বিশ্বরাণী,
আকাশে বাতাসে ধ্বনিতেছে যেন গোপন কী কানাকানি।

সহসা বাবর ফুকারি উঠিল—’নাহি ভয় নাহি ভয়,
প্রার্থনা মোর কবুল করেছে আল্লাহ হে দয়াময়,
পুত্র আমার বাঁচিয়া উঠিবে—মরিবে না নিশ্চয়।’

ঘুরিতে লাগিল পুলকে বাবর পুত্রের চারিপাশ
নিরাশ হৃদয় সে যেন আশায় দৃপ্ত জয়োল্লাস,
তিমির রাতের তোরণে তোরণে ঊষার পূর্বাভাস।

সেইদিন হতে রোগ-লক্ষণ দেখা দিলে বাবরের,
হৃষ্টচিত্তে গ্রহন করিল শয্যা সে মরণের,
নতুন জীবন হুমায়ুন ধিরে বাঁচিয়া উঠিল ফের।

মরিল বাবর – না, না ভুল কথা, মৃত্যু কে তারে কয়?
মরিয়া বাবর অমর হয়েছে, নাহি তার কোন ক্ষয়,
পিতৃস্নেহের কাছে হইয়াছে মরনের পরাজয়!


২৮| ১৭ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৪:৪২

নীল আকাশ বলেছেন: শ্রদ্ধেয় বড় ভাই,
আপনার বাবা এবং দাদা জন্য রইলো সশ্রদ্ধ সম্মান এবং স্যালুট।
এমন বাবার সন্তান শুধু আপনি কেন? সবাই হতে চাইবে!
শুভ কামনা রইলো।

১৭ ই জুন, ২০২০ রাত ৯:০১

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




নীল আকাশ ভাই,
পোস্টের ছবিতে যে গাড়িটির ছবি দেখেতে পাচ্ছেন এই ছবি গুগল হতে নেওয়া । আমার আব্বা গাড়িটি কিনেছিলেন তৎকালীন পাট মন্ত্রনালয়ের সচিবের ছেলের কাছ থেকে পরবর্তীতে ১৯৮১ সনে আমার দাদাজানের অসুস্থথার কারণে ও চিকিৎসা ব্যয়ের জন্য আব্বা গাড়িটি বিক্রি করে দেন। আমার আব্বা ও আমার দাদাজান ছিলেন যেমন পিতা তেমন পুত্র।

নীল আকাশ ভাই, আপনার জন্য দোয়া করছি আপনি ভালো থাকুন, নিরাপদ থাকুন।

২৯| ১৭ ই জুন, ২০২০ বিকাল ৪:৫৮

মোস্তফা সোহেল বলেছেন: আপনার বাবা ও দাদার জন্য দোয়া রইল।

১৭ ই জুন, ২০২০ রাত ৯:১২

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




মোস্তফা সোহেল ভাই,
মা বাবা সন্তানের জন্য শান্তির ছায়া। এই ছায়া চলে যাওয়ার পর আর জীবনে ছায়া খোঁজে পাওয়া যায় না। আপনার জন্যও দোয়া করছি আপনি ভালো থাকুন।

৩০| ১৭ ই জুন, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:০৩

করুণাধারা বলেছেন: আপনার আব্বা ও দাদাজানের জন্য দোয়া রইল, আপনি যেন তাদের সাথে মিলিত হত পারেন পরের জীবনে সেই দোয়া করি।

এবং যাহারা ঈমান আনে আর তাহাদের সন্তান- সন্ততি ঈমানে তাহাদের অনুগামী হয়, তাহাদের সাথে মিলিত করিব তাহাদের সন্তান- সন্ততিকে এবং তাহাদের কর্মফল আমি কিছুমাত্র হ্রাস করিব না; প্রত্যেক ব্যক্তি নিজ কৃতকর্মের জন্য দায়ী। (সূরা তূর, আয়াত ২১) আমার প্রিয় আয়াত।

১৭ ই জুন, ২০২০ রাত ৯:১৮

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




করুণাধারা আপা, মাতাপিতা হচ্ছেন সন্তানের আশ্রয়। সকল সুখ দুঃখের কথা বলার ঠিকানা। আমার আব্বা চলে যাওয়ার পর মনে হয়েছে আমার সুখ দুঃখের কথা বরার ঠিকানা আমার নিজের ঠিকানা আমি হারিয়ে ফেলেছি।

আপা আমি মনেপ্রাণে দোয়া করি কাল কেয়ামতে আখেরাতে যেনো আমি আমার আব্বা আমার দাদাজানের সাথে থাকতে পারি। জীবনের না বলা কথা তখন তাদের সাথে গল্প করবো।

করুণাধারা আপা, আপনার দোয়ার জন্য আমি আপনার কাছে কৃতজ্ঞ। আপনার জন্য দোয়া করছি আপনি ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন, নিরাপদ থাকুন। - ফি আমানিল্লাহ।

৩১| ১৭ ই জুন, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৪৯

জুন বলেছেন: আপনার বাবা ও দাদা যেন বেহেশত নসীব হোন এই দুয়া করি।
আমার মা মারা গিয়েছিলেন আমি তখন সদ্য কিশোরী অত বুঝে উঠতে পারি নি। কিন্ত আমার আব্বা মারা গেছেন ৫ বছর আগে। আব্বার চলে যাওয়ার কষ্ট আমি আজও মুছে ফেলতে পারি না ঠাকুর মাহমুদ। মনে হয় কিছুই করতে পারি নি আব্বার জন্য, এই দুঃখ আমাকে প্রায় কুরে কুরে খায়। যাবো শুনলে জানালা ধরে দাড়িয়ে থাকতেন না যাওয়া পর্যন্ত। এখনতো কেউ যেতে বলে না অমন করে, কেউ অপেক্ষা করে না।

যাদের বাবা মা বেচে আছেন তারা যেন তাদের কিছুটা সময় দেন।

১৭ ই জুন, ২০২০ রাত ৯:৩৩

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




জুন আপা,
আমি আপনার আম্মা ও আপনার আব্বার জন্য দোয়া করছি আল্লাহপাক যেনো তাদের বেহেস্ত নসীব দান করেন। প্রতিটি সন্তানের উচিত মাতাপিতার জন্য দোয়া করা - এটি মাতাপিতার হক, মাতাপিতার দাবী ও অধিকার। মাতাপিতা হচ্ছেন সন্তানের আশ্রয়। সকল সুখ দুঃখের কথা বলার ঠিকানা। আমার আব্বা চলে যাওয়ার পর মনে হয়েছে আমার সুখ দুঃখের কথা বরার ঠিকানা আমার নিজের ঠিকানা আমি হারিয়ে ফেলেছি।

আপা, বাবার জন্য আপনার যেই আকুতি এটি আপনার বাবার হক। আপনি বড় মনের মানুষ তাই বাবার জন্য মন কাঁদে।

প্রতিটি সন্তানের উচিত মাতাপিতাকে সময় দেওয়া। এই সময় আর কখনো ফিরে পাওয়া যাবে না। আপনার জন্য দোয়া করছি আপনি ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন, নিরাপদ থাকুন।

৩২| ১৭ ই জুন, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৪৯

রাজীব নুর বলেছেন: আরে ভাই আমার আব্বা তো আমার জন্য অপেক্ষা করে বসে নেই।

১৭ ই জুন, ২০২০ রাত ৯:৩৫

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




রাজীব নুর ভাই, আল্লাহ ভরসা। আপনার জন্য ও আপনার আব্বার জন্য আমি দোয়া করছি আল্লাহপাক যেনো আপনাদের ভালো রাখেন।

৩৩| ১৭ ই জুন, ২০২০ রাত ৯:০০

আহমেদ জী এস বলেছেন: ঠাকুরমাহমুদ,




খুব বাবা ভক্ত মানুষ আপনি, বোঝা গেলো। "বাবা' তেমন হলেই তবে তাঁর ভক্ত হওয়া যায়। কামনা করি আপনিও তেমন একজন বাবা হয়ে উঠুন।

আপনার পরিবারের প্রয়াতজনদের প্রতি রইলো শ্রদ্ধাঞ্জলি।

১৭ ই জুন, ২০২০ রাত ৯:১০

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




আহমেদ জী এস ভাই,
আমার মনের সুখ দুঃখের কথা যিনি মন দিয়ে শুনতেন তিনি আমার আব্বা। অসম সাহসী এক মানুষ ছিলেন এবং সবার খুবই প্রিয় মানুষ ছিলেন। আমি ২০১৮ সনে আজমীর শরিফ গিয়েছিলাম সারা পথ আব্বার কথা মনে পরেছে, দরগাহতে গিয়ে আল্লাহর কাছে নিজের জন্য কিছু চাওয়ার আগে আমার আব্বার জন্য আর আমার সন্তানের জন্য চেয়েছি। ২০১০ সনে আমি শেষ ওমরাহ করেছি। জানিনা আবার যেতে পারবো কিনা? জানিনা ভবিষ্যত কি? ওমরাহ ফ্লাইটে সাউদি এয়ারলাইন্স ঢাকা-রিয়াদ-জেদ্দা আমি কিছু খেতে পারিনি, পুরোটা সময় আমার আব্বার কথা মনে পরেছে। বাবার অপূর্ণতা কোনোদিন পূরণ হবার নয়। বৃদ্ধ হয়েছি এখনো পাশে বাবা না থাকার কষ্ট মনে বাস করে।

আমি আজকেই আপনার পোস্টে গিয়ে আপনার খোঁজ করবো বলে ভাবছিলাম। আপনার প্রতি আমি কৃতজ্ঞ। আপনি ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন, নিরাপদ থাকুন।

৩৪| ১৭ ই জুন, ২০২০ রাত ৯:৪৫

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: বাবা কে নিয়ে চমৎকার পোষ্ট। ভাল থাকুক আপনার বাবা। বাবা ঋণ শোধ করা যায় না । বাবার স্থান অপূরণীয়। পোস্টে ভালো লাগা।

১৭ ই জুন, ২০২০ রাত ৯:৫৮

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




কবিতার জাদুকর সেলিম আনোয়ার ভাই,
আপনার কবিতাটি আমি প্রিয়তে রেখেছি। বাবা মা নিয়ে এমন কবিতা আমার কাছে শুধু নয় বা্ংলাদেশের সকল মাতাপিতা ও সন্তানের কাছে অমূল সম্পদ। যদি সুস্থ থাকি যদি বেঁচে থাকি আমি কাল্পনিক ভালোবাসা ভাইয়ের কাছে অনুরোধ করবো এই কবিতা যেনো সামহোয়্যারইন ব্লগ ম্যাগাজিনে ছাপা হয়। - অবস্যই যেনো ছাপা হয়।

বাবা মায়ের ঋণ কখনো শোধ করা যায় না। এই ঋণ শোধ হবার নয়। বাবা মায়ের শূন্যস্থান কেউ কোনোদিন পূরণ করতে পারেন না। বাবা মা হচ্ছেন সন্তানের জন্য শান্তির শিতল ছায়া এই ছায়ার ঋণ কখনো শোধ হবার নয়।

আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ। ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন, নিরাপদ থাকুন।

৩৫| ১৭ ই জুন, ২০২০ রাত ১০:৩৭

আরোগ্য বলেছেন: আল্লাহ উনাদের দু'জনকে ও আমার বাবাকে চিরশান্তিতে রাখুক।

১৭ ই জুন, ২০২০ রাত ১০:৫২

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




ভাই আরোগ্য আমি অন্তর থেকে দোয়া করছি আপনার আব্বা, আমার আব্বা ও দাদাজানকে আল্লাহপাক বেহেস্ত নসীব দান করুন। আপনি শরীরের যত্ন নিন। নিয়মিত খাওয়া দাওয়া করুন। আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা।


৩৬| ১৮ ই জুন, ২০২০ সকাল ১১:০৮

মনিরা সুলতানা বলেছেন: বাবা আমার, বাজারের সব রঙিন খেলনা
বাবা আমার, বাজারের সব মিষ্টি মিঠাই,
বাবা আমার, আজ শুক্রবার স্কুল ছুটি
বাবা আমার, সেদিন বুঝি যেদিন তার অনুপস্থিতি।


কী যে ময়াভরা ক' লাইন !!! মন ভরে উঠলো। আমার দাদা কে আমি দেখি নি , কিন্তু আমার আব্বা ছিলেন আমাদের আকাশ, সমস্ত টা তে ছিলেন আব্বা। আপনার আব্বা ও দাদা কে আল্লাহ বেহেশত নসিব করুন!
রাব্বির হামহুমা কামা রাব্বায়িনি সাগিরা।

১৮ ই জুন, ২০২০ দুপুর ১২:৫৫

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




মনিরা সুলতানা আপা,
মাতাপিতা পাশে থাকলে সন্তান হয় সাহসী। মা হচ্ছেন সন্তানের ভালোবাসা আর বাবা হচ্ছেন সন্তানের আশা ভরসা শক্তি সাহসীকতা আর জীবন চলার পথের পাথেয়। বাবা মায়ের ঋণ কখনো শোধ করা যায় না। এই ঋণ শোধ হবার নয়। বাবা মায়ের শূন্যস্থান কেউ কোনোদিন পূরণ করতে পারেন না। বাবা মা হচ্ছেন সন্তানের জন্য শান্তির শিতল ছায়া এই ছায়ার ঋণ কখনো শোধ হবার নয়।

আপনার আব্বার জন্য দোয়া করছি আল্লাহপাক যেনো আপনার আব্বাকে বেহেস্ত নসীব দান করেন। রাব্বির হামহুমা কামা রাব্বায়িনি সাগিরা। ফি আমানিল্লাহ।

৩৭| ১৮ ই জুন, ২০২০ সকাল ১১:৫১

পদ্ম পুকুর বলেছেন: খুবই অল্প কথায় অনেক বেশি বলেছেন।
হয়তো পৃথিবীর সব বাবাই এমন। ৯৮ বা ৯৯ এ সুমনা শারমীন এর সম্পাদনায় প্রথম আলো একটা বাবা সংখ্যা বের করেছিলো। ওই সংখ্যায় সুমনা শারমীনের একটা লেখা পড়ে আমি এতটায় আবেগাপ্লুত হয়েছিলাম যে তাঁর বরাবর একটা চিঠিও পাঠিয়েছিলাম, যেখানে মোটামুটিভাবে আমার আব্বার কঠিন ও ভালোবাসাহীন চরিত্রের কথা উল্লেখ করা হয়েছিলো।

এখন ভাবি, হায়, কি ভুলের মধ্যেই না আমি ছিলাম। বাবারা কোনোসময়ই কঠিন হন না, ভালোবাসাহীন হন না। আমার পিতার কঠিন খোলসের আড়ালে কি পরিমাণ মমতা জড়িয়ে ছিলো তার পড়ন্ত বয়সে এসে যখন সে আগল খুলে গেলো, তখনই কেবল উপলব্ধি করতে পারলাম।

এই জীবন, পরজীবন, সবখানেই এই পিতার সন্তান হওয়ার সুযোগ আপনি পাবেন, সে কামনা করি।

১৮ ই জুন, ২০২০ দুপুর ১২:৪৭

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




পদ্ম পুকুর ভাই,
সংসারে সন্তানের প্রতি মাতাপিতার যে ভালোবাসা তা অনেক সন্তান অনুভব করতে পারেন না। তার কারণ নিজের বিয়ে সংসার ও সন্তান হওয়ার আগে হয়তো মাতাপিতা আর দুনিয়াতে থাকেন না। তাই সন্তান নিয়ে কি কষ্ট করতে হয় তা মাতাপিতাকে সেই ভালোবাসা ফিরিয়ে দিতে পারেন না। - আমরা আসলে সময়ের কাছে বন্দি আর বন্দি বলেই আমাদের কাছে অমূল্য ভালোবাসা কখনো কখনো মূল্যহীন হয়ে পরে। এখানে তিন প্রজন্মের একটি গ্যাপ তৈরি হয় আর এই তিন প্রজন্মের গ্যাপ অনন্তকাল ধরে চলতে থাকে।

পৃথিবীর সকল বাবা মা সহ পৃথিবীর সকল সন্তান ভালো থাকুক মঙ্গলময়ের কাছে এই প্রার্থণা করি। আপনার জন্য শুভ কামনা করছি।

৩৮| ১৯ শে জুন, ২০২০ ভোর ৪:১২

ডঃ এম এ আলী বলেছেন:



সুন্দর প্রতি মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ ।
সম্রাট বাবারকে নিয়ে গোলাম মোস্তফার জীবন বিনিময় কবিতাটি আপনার কল্যানে আবারো মুগ্ধ হয়েপাঠ করলাম ।
আমার প্রিয় কবি ও লেখকদের মধ্যে গোলাম মোস্তফা একজন । মুসলিম জাগরণের অগ্রদূত কবি গোলাম মোস্তফার অবদান বাংলা সাহিত্যে এক বিরল দৃষ্টান্ত। তার প্রথম কাব্য গ্রন্থ ‘রক্ত রাগ’ প্রকাশিত হলে বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর নিচের দু’লাইন কবিতার মাধ্যমে কবিকে অভিনন্দিত করেছিলেন-
তব নব প্রভাতের রক্তরাগখানি মধ্যাহ্নে জাগায় যেন জ্যোতির্ময়ী বাণী।”
কবি গোলাম মোস্তফার ‘বিশ্বনবী’ একটি আশ্চর্য রকমের সফল সৃষ্টি। গ্রন্থটিতে হৃদয়ের আবেগ, আন্তরিক অনুভূতি যে ভাবে বর্ণিত হয়েছে তার তুলনা আমাদের বাংলা সাহিত্যে নিতান্তই বিরল। এর পরবর্তীকালে তিনি কোর-অনিক ঘটনার অমিত্রাক্ষর ছন্দে ‘বনি আদম’ নামে যে মহাকাব্য লিখেছিলেন তা বাংলা সাহিত্যে এক অমর ও অক্ষয় কীর্তি।

অনেক অনেক শুভেচ্ছা রইল

১৯ শে জুন, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৫৭

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




প্রার্থনা
কবি গোলাম মোস্তফা
===========================
অনন্ত অসীম প্রেমময় তুমি
বিচার দিনের স্বামী।
যত গুণগান হে চির মহান
তোমারি অন্তর্যামী।

দ্যুলোক-ভূলোক সবারে ছাড়িয়া
তোমারি চরণে পড়ি লুটাইয়া
তোমারি সকাশে যাচি হে শকতি
তোমারি করুণাকামী।

সরল সঠিক পূণ্য পন্থা
মোদের দাও গো বলি,
চালাও সে-পথে যে-পথে তোমার
প্রিয়জন গেছে চলি।

যে-পথে তোমার চির-অভিশাপ
যে-পথে ভ্রান্তি, চির-পরিতাপ
হে মহাচালক,মোদের কখনও
করো না সে পথগামী।
===========================

ডঃ এম এ আলী ভাই, আমরা এমন স্থানে এসে পৌছেছি এখন আমাদের প্রার্থনা একমাত্র সম্বল। আর নিজেদের জন্য সহ দোয়া করতে হবে মাতাপিতা ও সন্তানদের জন্য। আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন, নিরাপদ থাকুন। - ফি আমানিল্লাহ।

৩৯| ১৯ শে জুন, ২০২০ রাত ৮:২৫

মিরোরডডল বলেছেন:



বাবা আর দাদার গল্পটা পড়ে ভালো লাগলো ।
আমি আমার দাদাকে পাইনি কিন্তু এ লেখা পড়ে বাবার কথা মনে পরে । আসলে কিছু মানুষই থাকে যারা অন্যকে করার মাঝেই আনন্দ পায় । আমার বাবা ছিল অনেকটা সেরকম । মাটির কাছের মানুষ । গ্রামে স্কুল করা থেকে শুরু করে অনেক কিছুই করেছিল । সত্যি বলতে আমাদের অনেক সময় অভিযোগ ছিল বাবা কি পরিবারের প্রতি কিছুটা উদাসীন ! আমরা কি কাছে পেয়েছি সেইভাবে ! শুধু পরোপকারী নিয়ে ব্যাস্ত । বাট ইউ নো হোয়াট ??

বাবা যখন মারা গেলো আর গ্রামে নিয়ে যাওয়া হোলো, সেটাই বাবার ইচ্ছে ছিল, দাদা চাচাদের সাথে যেন রাখা হয় । আমার জীবনে প্রথম আমি কবর খোরা থেকে কবর দেয়া পর্যন্ত দেখলাম । আর দেখলাম মানুষের ভালোবাসা । ঈদগাহ মাঠে যখন জানাজা হয়েছে, যতদূর চোখ যায় শুধু মানুষ আর মানুষ । কয়েক হাজার লোক একসাথে । সেদিন মনে হয় আমাদের ফ্যামিলির সবাই বুঝতে পেরেছিলাম কেনো এই মাটির মানুষগুলোর কাছে যেতো । ভালোবাসার ঋণ ভালোবাসা দিয়েই শোধ করতে হয় । বাবাকে সেইভাবে না পাওয়ার জন্য আমাদের অবচেতন মনের যত অভিযোগ অনুযোগ ছিল সব চলে গেছে সেদিন ।

আপনার দাদা ও বাবার জন্য অনেকি শ্রদ্ধা ।

১৯ শে জুন, ২০২০ রাত ১১:০৩

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




বাবা মনেই আদর, বাবা মানেই শাসন-বারণ, বাবা মানেই ভালোবাসার এক অন্যরকম সুখ, বাবা মানেই এক টুকরো হাসি খুশি মুখ। বাবা শুধু একজন মানুষ নন, স্র্র্রেফ একটি সম্পর্কের নাম নয়। বাবার মাঝে জড়িয়ে আছে বিশালত্বের এক অদ্ভুত মায়াবি প্রকাশ।

বাবা নামটা উচ্চারিত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে যে কোন বয়সী সন্তানের হৃদয়ে শ্রদ্ধা কৃতজ্ঞতা আর ভালবাসার এক অনুভব জাগে মানুষটি কতোভাবে অবদান রেখে যান সন্তানের জন্য, যার চুলচেরা হিসাব করে কেউ বের করতে পারবেন না। বাবার কাঁধটা কি অন্য সবার চেয়ে বেশি চওড়া? তা না হলে কি করে সমাজ সংসারের এত দায়ভার অবলীলায় বয়ে বেড়ান বাবা। বাবার পা কি অন্য সবার চেয়ে অনেক বেশি দ্রুত চলে? নইলে এতোটা পথ এতো অল্প সময়ে কি করে এতো শক্ত করে সব কিছু আগলে রাখেন বাবা।

আর বাবার ছায়া? - সেটাও শেষ বিকেলের বটগাছের ছায়ার চেয়েও বড়। বড় যদি না হবে তবে জীবনের এতো উত্তাপ থেকে কি করে সন্তানকে সামলে রাখেন বাবা আর বাবার চোখ? সেটাও কি দেখতে পায় কল্পনার অতীত কোনো দূরত্ব। তা না হলে কি করে সন্তানের ভবিষ্যত ভাবনায় শঙ্কিত হোন বাবা।

বোন আপনার আব্বার প্রতি রইলো শ্রদ্ধা ও দোয়া।




আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.