নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

একজন সুখী মানুষ, স্রষ্টার অপার ক্ষমা ও করুণাধন্য, তাই স্রষ্টার প্রতি শ্রদ্ধাবনত।

খায়রুল আহসান

অবসরে আছি। কিছু কিছু লেখালেখির মাধ্যমে অবসর জীবনটাকে উপভোগ করার চেষ্টা করছি। কিছু সমাজকল্যানমূলক কর্মকান্ডেও জড়িত আছি। মাঝে মাঝে এদিক সেদিকে ভ্রমণেও বের হই। জীবনে কারো বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ করিনি, এখন তো করার প্রশ্নই আসে না। জীবন যা দিয়েছে, তার জন্য স্রষ্টার কাছে ভক্তিভরে কৃতজ্ঞতা জানাই। যা কিছু চেয়েও পাইনি, এখন বুঝি, তা পাবার কথা ছিলনা। তাই না পাওয়ার কোন বেদনা নেই।

খায়রুল আহসান › বিস্তারিত পোস্টঃ

বোনারপাড়া রেলওয়ে জংশন

২৭ শে অক্টোবর, ২০১৭ বিকাল ৪:২১

কোন পীর আউলিয়ার নামে নয়,
যেমন জালালাবাদ, জামালপুর।
কোন সাহসী নারীর নামে নয়,
যেমন চৌধুরাণী বা ভবানীপুর।
তবু করি সেই অখ্যাত নাম স্মরণ,
বোনারপাড়া রেলওয়ে জংশন!

বুকে ধরা ছিলো চারটে প্লাটফর্ম।
স্লিপার বসানো, পাথর বিছানো
সমান্তরালে আঁকাবাকা রেলপথে
দিনে রাতে ট্রেনগুলো ছয়দিকে
আনমনে আনাগোনা করতো দ্রুত।
বসত ভিটেয় কাঁপুনি লাগিয়ে যেত।

যমুনার ভাঙ্গনে তিস্তামুখ ঘাট
স্থান বদলাতো প্রায় হঠাৎ হঠাৎ।
ট্রেনগুলো খুব ধীর লয়ে চলতো।
ঘটাং ঘটাং করে বালুচর পার হতো।
এরপর পিঁপড়ের মত পিলপিল করে
বোনারপাড়া জংশনে পৌঁছাতো।

সাথে সাথে চারিদিকে হৈ হুল্লোড়ে
যাত্রী ও কুলিরা হাঁকডাক ছেড়ে,
প্ল্যাটফর্মটাকে সহসা সরগরম করে
তল্পিতল্পা নিয়ে ছোটাছুটি করতো।
যাত্রীরা ধেয়ে যেত হোটেলের পানে,
পানবিড়ি সিগ্রেট আর চায়ের দোকানে।

হঠাৎ প্রাণচঞ্চল এই বোনারপাড়ায়
বিধাতা কেন যেন অভিশাপ নামায়।
স্রোতহারা যমুনাবক্ষের এধারে ওধারে
বহু চর জেগে ওঠে মাথা উঁচু করে।
নয়া ঘাট খোঁজে সব রেলের বাবুরা,
বালাসীর ঘাটটাকে বেছে নেন তারা।

সেই থেকে ট্রেনগুলো বোনারপাড়াকে
বাইপাস করে যায় বালাসীর ঘাটে।
রেলশহর বলে খ্যাত এই বোনারপাড়া
পুনরায় বনে যায় শুধু এক অজ পাড়া।
রেলসেতু বসলো যখন যমুনার 'পরে,
বোনারপাড়াও গেলো ঘুমে চিরতরে।

পাদটীকাঃ একদা রাজধানী ঢাকার সাথে উত্তরাঞ্চলের জেলাগুলোর রেল যোগাযোগের এক অন্যতম সংযোগ কেন্দ্র ছিলো বোনারপাড়া রেলওয়ে জংশন। ছোটবেলায় যখন স্কুল ছুটির পর নানাবাড়ী দাদাবাড়ী বেড়াতে যেতাম, ট্রেনযোগেই যেতাম। স্টীমার থেকে যমুনার পাড় ভাঙ্গা গড়ার খেলা দেখতাম। বিস্তীর্ণ ধূ ধূ বালুচরের উপর দিয়ে ট্রেন যখন পিলপিল করে এগিয়ে চলতো, জনহীন দু'ধার দেখে অবাক বিস্ময়ে ভাবতাম, এখানে রেলপথ বসানো হলো কি করে! খুবই অল্প গতিবেগে ট্রেন চলতো ভরতখালী স্টেশন পর্যন্ত, তারপরে স্বাভাবিক গতিতে চলতো। বোনারপাড়ার পর থেকে খুব দ্রুতবেগে চলতো। প্রথমে টানতো কালো ধোঁয়া ছাড়া কয়লার ইঞ্জিন, বোনারপাড়া থেকে টানতো কানাডা সরকারের দেয়া হলুদ ডিজেল ইঞ্জিন।

ছোটবেলায় দোতারা হাতে ফকিরদের গাওয়া গানে বোনারপাড়া জংশনের নাম শুনেছিলাম। বড় হয়ে যাতায়াতের সময় দেখেছি বোনারপাড়া কতটা ভাইব্রেন্ট ছিলো। এই প্রাণচঞ্চল জংশনটি প্রথমে স্তিমিত হয়ে পড়ে রেলওয়ের স্টীমারঘাটটি তিস্তামুখঘাট থেকে বালাসীঘাটে স্থানান্তরিত হবার পর থেকে। আর একেবারে থেমে যায় যমুনা সড়ক সেতুর সাথে রেলসেতু যোগ হবার পর থেকে। সভ্যতার উন্নয়নে কোথাও আলোর চমক লাগে, আবার কোথাও বা অন্ধকার নেমে আসে চিরতরে। একই কথা প্রযোজ্য একদা সদাচঞ্চল, চিরজাগ্রত আরিচা ও নগড়বাড়ী ফেরীঘাট সম্পর্কেও।


ঢাকা
২২ মার্চ ২০১৫
সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত।

(ইতোপূর্বে অন্যত্র প্রকাশিত)

মন্তব্য ৮৯ টি রেটিং +১৬/-০

মন্তব্য (৮৯) মন্তব্য লিখুন

১| ২৭ শে অক্টোবর, ২০১৭ বিকাল ৪:৩৯

মাহমুদ টোকন বলেছেন: বাহ্। বোনারপাড়া নামটি খুব সুন্দর। একসময় আমার অফিস একটি তথ্যকেন্দ্র খুলেছিলো এখানে।
শুধু নাম আর রেলস্টেশন বিষয় দুটির কারণে আমি অনুমোদন দিয়েছিলাম।!

২৭ শে অক্টোবর, ২০১৭ সন্ধ্যা ৬:৪১

খায়রুল আহসান বলেছেন: বোনারপাড়া নামটি সত্যিই খুব সুন্দর!
শুধু নাম আর রেলস্টেশন বিষয় দুটির কারণে আমি অনুমোদন দিয়েছিলাম - বাহ! চমৎকার একটা কাজ করেছিলেন বলে মনে হচ্ছে।
প্রথম মন্তব্যের জন্য আন্তরিক ধন্যবাদ। শুভেচ্ছা জানবেন।

২| ২৭ শে অক্টোবর, ২০১৭ বিকাল ৪:৪৫

নীলপরি বলেছেন: কবিতা ও পাদটীকা দুটোই ভালো লাগলো ।

২৭ শে অক্টোবর, ২০১৭ সন্ধ্যা ৬:৪৭

খায়রুল আহসান বলেছেন: কবিতা পাঠ এবং প্রথম প্লাসের জন্য অশেষ ধন্যবাদ। মন্তব্যে অনুপ্রাণিত।

৩| ২৭ শে অক্টোবর, ২০১৭ বিকাল ৫:০২

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: সভ্যতার উন্নয়নে কোথাও আলোর চমক লাগে, আবার কোথাও বা অন্ধকার নেমে আসে চিরতরে।

চলমান জীবনের পরম সত্য!

+++

২৮ শে অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ৯:৩৮

খায়রুল আহসান বলেছেন: চলমান জীবনের পরম সত্য! - অনেক ধন্যবাদ, এ এ্যাপ্রিসিয়েশনটুকুর জন্য।
মন্তব্যে এবং প্লাসে অনুপ্রাণিত। শুভেচ্ছা জানবেন।

৪| ২৭ শে অক্টোবর, ২০১৭ বিকাল ৫:১৩

শায়মা বলেছেন: বোনারপাড়া না হয়ে বোনেরপাড়া হলে তো আরও বেশি ভালো হ্ত ভাইয়া!


তোমার লেখা পড়ে আমার সেই স্টেশনে যেতে ইচ্ছা হচ্ছে।

২৮ শে অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ১০:৪০

খায়রুল আহসান বলেছেন: বোনেরপাড়া? হা হা হা, সেটাও বোধকরি খুব ভালই হতো। সব বোনেরা সময় পেলেই চলে আসতো সেখানে...
তোমার লেখা পড়ে আমার সেই স্টেশনে যেতে ইচ্ছা হচ্ছে - প্রামানিক তো সে স্টেশনের দুটো ছবি দিয়েছে এখানে, তবে সগুলো এখনকার মৃত স্টেশনের। ২০/২৫ বছর আগেও স্টেশনটা দিনে রাতে গমগম করতো।
কবিতা পড়ার জন্য ধন্যবাদ। মন্তব্য এবং প্লাসে অনুপ্রাণিত।

৫| ২৭ শে অক্টোবর, ২০১৭ বিকাল ৫:২২

প্রামানিক বলেছেন: আপনি আমার শৈশবের স্মৃতিময় স্টেশনের অতীত বর্তমান কবিতায় তুলে ধরেছেন। ঢাকা, বগুড়া, রংপুর যাওয়ার মেইন হাব ছিল এটি। মাঝে মাঝেই এখানে এসে ঘন্টার পর ঘন্টা সময় কাটিয়েছি। চব্বিশ ঘন্টা লোকে লোকারন্য থাকতো। সেই স্টেশন এখন মৃত প্রায়। খুব ভালো লাগল আপনার স্মৃতিচারণমূলক কবিতা। অসংখ্য ধন্যবাদ আপনাকে। আপনি আমার শৈশবের স্মৃতিময় স্টেশনের অতীত বর্তমান কবিতায় তুলে ধরেছেন। ঢাকা, বগুড়া, রংপুর যাওয়ার মেইন হাব ছিল এটি। মাঝে মাঝেই এখানে এসে ঘন্টার পর ঘন্টা সময় কাটিয়েছি। চব্বিশ ঘন্টা লোকে লোকারন্য থাকতো। সেই স্টেশন এখন মৃত প্রায়। খুব ভালো লাগল আপনার স্মৃতিচারণমূলক কবিতা। অসংখ্য ধন্যবাদ আপনাকে।

২৮ শে অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ১০:৫৪

খায়রুল আহসান বলেছেন: ঢাকা, বগুড়া, রংপুর যাওয়ার মেইন হাব ছিল এটি। মাঝে মাঝেই এখানে এসে ঘন্টার পর ঘন্টা সময় কাটিয়েছি। চব্বিশ ঘন্টা লোকে লোকারন্য থাকতো। সেই স্টেশন এখন মৃত প্রায় - ঠিকই বলেছেন। আপনার এ কথাগুলো আমিও গভীরভাবে অনুভব করি, কবিতায়ও তা হাল্কাভাবে হলেও প্রতিফলিত হয়েছে।
মন্তব্যের জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ। ভাল থাকুন...

৬| ২৭ শে অক্টোবর, ২০১৭ বিকাল ৫:২৫

প্রামানিক বলেছেন:
কি কারণে যেন মন্তব্যটি ডবল হয়েছে।

২৮ শে অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ১১:১৭

খায়রুল আহসান বলেছেন: প্রচুর সংখ্যক মালবাহী বগী লাইনে দাঁড়িয়ে থাকতো সবসময়!

৭| ২৭ শে অক্টোবর, ২০১৭ বিকাল ৫:৩১

এম ডি মুসা বলেছেন: সুন্দর লিখেছেন

২৮ শে অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ১১:৪৯

খায়রুল আহসান বলেছেন: অনুপ্রাণিত হ'লাম। অনেক ধন্যবাদ।

৮| ২৭ শে অক্টোবর, ২০১৭ সন্ধ্যা ৬:০৪

চাঁদগাজী বলেছেন:


মানুষ তাঁর জানাশোনা এলাকাকে সমৃদ্ধ, শক্তিশালী দেখতে চান; নিজের পরিচিত যায়গার লোকজনকে সুখী দেখতে চান; মানুষের মনে শৈশবের স্হান ও মানুষগুলো নিজের মনের, জীবনের অংশ হয়ে থেকে যায়, সেই স্হানগুলো, মানুষগুলো আপন হয়েই থেকে যায় আজীবন।

২৮ শে অক্টোবর, ২০১৭ সন্ধ্যা ৬:৫৫

খায়রুল আহসান বলেছেন: আপনার দার্শনিক পর্যবেক্ষণে মুগ্ধ হ'লাম। মন্তব্যে অনুপ্রাণিত।
ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা...

৯| ২৭ শে অক্টোবর, ২০১৭ সন্ধ্যা ৬:১৯

রুলীয়াশাইন বলেছেন: অনেক সুন্দর

২৮ শে অক্টোবর, ২০১৭ রাত ৮:৩০

খায়রুল আহসান বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ, প্রীত হ'লাম।

১০| ২৭ শে অক্টোবর, ২০১৭ সন্ধ্যা ৬:৪৩

ফেরদৌসা রুহী বলেছেন: সব কিছুই বদলে যায়।
কবিতা এবং পাদটীকা থেকে জানলাম বিস্তারিত বোনার পাড়া রেলওয়ে জংশন সম্পর্কে

২৮ শে অক্টোবর, ২০১৭ রাত ৮:৪৭

খায়রুল আহসান বলেছেন: সব কিছুই বদলে যায় - ঠিকই বলেছেন, তবে কিছু স্মৃতি রয়ে যায়।
কবিতা পড়ার জন্য ধন্যবাদ। মন্তব্যে প্রীত ও অনুপ্রাণিত।

১১| ২৭ শে অক্টোবর, ২০১৭ সন্ধ্যা ৬:৪৭

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: শৈশবে ছিল এখন নাই এরকম কিছুর জন্য খুব কস্ট হয়।
আমাদের একটা আম গাছ ছিল ,ছোট বেলায় আমি শুধু এই গাছটায় উঠতে পারতাম। এখন গাছটা নাই।
সেস্থানে গেলে এখনো বড্ড নস্টালজিক হয়ে পড়ি।

২৮ শে অক্টোবর, ২০১৭ রাত ৯:০৯

খায়রুল আহসান বলেছেন: শৈশবে ছিল এখন নাই এরকম কিছুর জন্য খুব কস্ট হয় - হ্যাঁ, ঠিক বলেছেন। বিশেষ করে হারিয়ে যাওয়া স্মৃতিটুকু যদি সুখের হয়ে থাকে।
কবিতা পড়ার জন্য ধন্যবাদ। মন্তব্যে ব্যক্তিগত স্মৃতির কথা উল্লেখ করায় প্রীত ও অনুপ্রাণিত।

১২| ২৭ শে অক্টোবর, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৪৪

কবি হাফেজ আহমেদ বলেছেন: বোনারপাড়া জংশন যেন আবারো ফিরে পায় তার হারানো ঐতিহ্য। সেই প্রার্থনা রইলো। অজানা ইতিহাস কবিতার চরণে পেয়ে খুব ভালো লাগলো। ধন্যবাদ প্রিয় ভাইয়া।

২৮ শে অক্টোবর, ২০১৭ রাত ৯:৩৩

খায়রুল আহসান বলেছেন: কবিতা পড়ে সুন্দর একটি প্রার্থনা এখানে রেখে যাবার জন্য আন্তরিক ধন্যবাদ।
মন্তব্যে প্রীত ও অনুপ্রাণিত।

১৩| ২৭ শে অক্টোবর, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৫৫

সুমন কর বলেছেন: শেষের কথা আর কবিতা বেশ লাগল।

ভালো লাগা রইলো।

২৮ শে অক্টোবর, ২০১৭ রাত ৯:৪৪

খায়রুল আহসান বলেছেন: শেষের কথুকু ছাড়া বোধহয় কবিতাটা সম্পূর্ণ হতোনা। কবিতা ভাল লেগেছে জেনে প্রীত হ'লাম। মন্তব্যে অনুপ্রাণিত।

২৮ শে অক্টোবর, ২০১৭ রাত ৯:৪৬

খায়রুল আহসান বলেছেন: কথুকু < < কথাটুকু হবে।

১৪| ২৭ শে অক্টোবর, ২০১৭ রাত ১১:৪৮

উম্মে সায়মা বলেছেন: ভালো লাগলো খায়রুল আহসান ভাই। এমন স্মৃতিবিজড়ত জায়গাগুলো হারিয়ে গেলে সত্যি কষ্ট লাগে....

২৮ শে অক্টোবর, ২০১৭ রাত ১০:৩০

খায়রুল আহসান বলেছেন: কবিতা পড়ার জন্য ধন্যবাদ। মন্তব্যে এবং প্লাসে প্রীত ও অনুপ্রাণিত হ'লাম।

১৫| ২৮ শে অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ৯:০৮

মলাসইলমুইনা বলেছেন: পেছনের দিনগুলোর দিকে যখন তাই তখন জানি অনেক কিছুই আগের মতো নেই | কিছু জিনিস ভীষণ বদলে গেছে আমার অপেক্ষা না করেই | আমি তবুও সে নতুন জিনিষগুলোতেই খুঁজি পুরোনো দিনগুলোকে ! একটা বিষন্ন ভালো লাগা নিয়ে পড়লাম আপনার কবিতাটা | ভালো লাগলো খুব |

২৮ শে অক্টোবর, ২০১৭ রাত ১০:৪৮

খায়রুল আহসান বলেছেন: একটা বিষন্ন ভালো লাগা নিয়ে পড়লাম আপনার কবিতাটা | ভালো লাগলো খুব | - অনেক অনুপ্রাণিত বোধ করছি এমন সুন্দর মন্তব্য পড়ে। অনেক অনেক ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা!

১৬| ২৮ শে অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ৯:৩১

কঙ্কাবতী রাজকন্যা বলেছেন: মায়াময় স্মৃতিলেখা।

২৮ শে অক্টোবর, ২০১৭ রাত ১১:০০

খায়রুল আহসান বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ।
আপনার স্মৃতিকথাগুলোও পড়ে যাচ্ছি। খুব সুন্দর করে লিখে যাচ্ছেন।

১৭| ২৮ শে অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ৯:৪৩

ধ্রুবক আলো বলেছেন: মন মুগ্ধকর কবিতায় স্মৃতিচারণ...
খুব সুন্দর লাগলো, ইচ্ছে করছে গিয়ে একবার দেখে আসি!

২৮ শে অক্টোবর, ২০১৭ রাত ১১:০২

খায়রুল আহসান বলেছেন: খুব সুন্দর লাগলো, ইচ্ছে করছে গিয়ে একবার দেখে আসি - খুবই অনুপ্রাণিত হ'লাম এ মন্তব্যে।
প্লাসের জন্য ধন্যবাদ।

১৮| ২৮ শে অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ১০:৩১

নতুন নকিব বলেছেন:



সভ্যতার উন্নয়নে কোথাও আলোর চমক লাগে, আবার কোথাও বা অন্ধকার নেমে আসে চিরতরে।


চলমান জীবনের পরম বাস্তবতা!
মায়াময় স্মৃতি আলেখ্য। সুনিপূণ দক্ষতায়।

২৯ শে অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ৮:৪৮

খায়রুল আহসান বলেছেন: সুন্দর কথামালায় কবিতার এ মূল্যায়নে মুগ্ধ হ'লাম। অনেক, অনেক ধন্যবাদ এবং শুভেচ্ছা...

১৯| ২৮ শে অক্টোবর, ২০১৭ দুপুর ১২:০২

বানেসা পরী বলেছেন: স্মৃতির কোঠায় জমে থাকা ভাললাগাগুলো বদলে গেলে অন্যরকম কষ্ট হয়। লেখাটা পড়ে অচেনা রেল জংশনটির জন্য মায়ায় পড়ে গেলাম। বদলে যাওয়াই এই পৃথিবীর নিয়ম। তখনকার প্রাণচাঞ্চল্য আর গৌরবদীপ্ততাকে কবিতায় এনে আপনি কিন্তু সেখানকার ইতিহাসটা অমর করে রাখলেন।

২৯ শে অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ৯:০৯

খায়রুল আহসান বলেছেন: তখনকার প্রাণচাঞ্চল্য আর গৌরবদীপ্ততাকে কবিতায় এনে আপনি কিন্তু সেখানকার ইতিহাসটা অমর করে রাখলেন - অনেক ধন্যবাদ, আপনার এ মূল্যায়নের জন্য। আজকের মৃতপ্রায় এই রেলস্টেশনটি মাত্র বছর বিশেক আগেও সদা প্রাণচঞ্চল ছিল। যমুনা রেলসেতু হবার কারণে সেখানে আজ খুব কম ট্রেনই যাতায়াত করে। সেখানকার মানুষের রুটি রুজির উপরেও আঘাত এসেছে।
মন্তব্যে অনুপ্রাণিত হ'লাম। শুভেচ্ছা...

৩০ শে নভেম্বর, ২০১৭ বিকাল ৩:৩৪

খায়রুল আহসান বলেছেন: আপনার প্রথম পোস্ট এতটুকু চাওয়া পড়ে সেখানে একটা মন্তব্য রেখে এলাম। আশাকরি, সময় করে একবার পড়ে দেখবেন।

২০| ২৮ শে অক্টোবর, ২০১৭ দুপুর ১:০২

মনিরা সুলতানা বলেছেন: আমার শৈশবের গন্ধ লেগে আছে যেমন সদর ঘাট টু তালতলা লঞ্চ ঘাট ।
আপনার তেমনি বোনারপাড়া জংশনে ;
লেখায় ভালোলাগা ভাইয়া ।

২৯ শে অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ৯:২৯

খায়রুল আহসান বলেছেন: সদর ঘাট টু তালতলা লঞ্চ ঘাট -- বাহ, আমার কবিতাটা পড়ে আপনার মনে এ স্মৃতির উদ্রেক হয়েছে জেনে ভাল লাগছে।
মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ, প্রীত হ'লাম।

২১| ২৮ শে অক্টোবর, ২০১৭ দুপুর ১:২০

জাহিদ অনিক বলেছেন:

মাইকেল মধুসূদন দত্ত বিদেশে গিয়ে তার প্রিয় কপোতাক্ষকে স্মরণ করে কবিতা লিখেছিলেন, আপনিও আপনার প্রিয় বোনারপাড়া রেল স্টেশনকে অনুভব করে কবিতা লিখলেন।

পাঠক যদি এই রেল স্টেশনের আদ্যোপান্ত না জানে, পাঠকের সাথে যদি এই স্টেশনের পূর্বে কোন যোগাযোগ না থেকে থাকে তবে এই কবিতা পাঠকের কাছে তেমন একটা অর্থবহ হবে না যদি না কবি সেটার দায়িত্ব না নেন।

আপনি বেশ কিছুটা সফল হয়েছেন, এই স্টেশনের সাথে আমার কোন পুর্ব যোগাযোগ না থাকলেও কবিতাটি অনুভব করতে পারছি।
পাদটীকা দেয়ার জন্য ধন্যবাদ।

২৯ শে অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ৯:৪৭

খায়রুল আহসান বলেছেন: কোথায় মাইকেল আর কোথায় সাইকেল! :)
তবুও, তুলনাটা যখন টেনেই এনেছেন, তখন তো আর পুলকিত না হয়ে উপায় নেই!! :)
আপনি বেশ কিছুটা সফল হয়েছেন, এই স্টেশনের সাথে আমার কোন পুর্ব যোগাযোগ না থাকলেও কবিতাটি অনুভব করতে পারছি - অনেক অনুপ্রাণিত হ'লাম আপনার এ উদার মন্তব্যে।
পাদটীকা দেয়ার জন্য ধন্যবাদ - পাদটীকাটি ছাড়া বোধহয় কবিতার বক্তব্যটুকু স্পষ্ট হতো না। তাই সেটা সংযোজন করেছি, যদিও কবিতায় পাদটীকা দেখতে বা দেখাতে আমি আগ্রহী নই।
অনেক অনেক ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা...

২২| ২৮ শে অক্টোবর, ২০১৭ দুপুর ১:৪৬

রূপক বিধৌত সাধু বলেছেন: স্মৃতিচারণ ভালো লাগলো।

২৯ শে অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ৯:৫৫

খায়রুল আহসান বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ। অনেকদিন পরে সাধুজী এলেন, খুশী হ'লাম।

২৩| ২৮ শে অক্টোবর, ২০১৭ বিকাল ৩:৫০

শাহেদ খান বলেছেন: সুন্দর একটা বিষাদী আবেশ তৈরি করলেন। শব্দগুলো দৃশ্যময়!

পরিবর্তনের ভাঁজে অনেক দীর্ঘশ্বাস লুকানো থাকে। সরল স্পষ্টতায় সেটা চিত্রায়িত করেছেন।

অনেক শুভকামনা জানবেন।

২৯ শে অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ১০:১০

খায়রুল আহসান বলেছেন: শব্দগুলো দৃশ্যময় - স্মৃতির এলবাম থেকে লেখা, দৃশ্যময় হয়েছে জেনে অনুপ্রাণিত হ'লাম।
অনেক ধন্যবাদ এবং শুভেচ্ছা!

০৬ ই ডিসেম্বর, ২০১৭ দুপুর ১২:১১

খায়রুল আহসান বলেছেন: আপনার লেখা প্রস্থান কবিতাটি পড়ে মন্তব্য করে এলাম। খুব সুন্দর, মায়াবী কবিতা। + +

২৪| ২৮ শে অক্টোবর, ২০১৭ সন্ধ্যা ৬:৪৮

রাসেল উদ্দীন বলেছেন:
সতত, হে জংশন তুমি পড় মোর মনে
সতত তোমার কথা ভাবি এ বিরলে
বহু জংশন দেখিয়াছি বহু রেলে চড়ে
কিন্তু এ স্নেহের মায়া স্মৃতির মিনারে ওড়ে?

দুগ্ধ-স্রোতোরূপী তুমি জন্মভূমি-স্তনে।
আর কি হে হবে দেখা?

২৯ শে অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ১০:৩২

খায়রুল আহসান বলেছেন: মধুকবি অনুসরণে ভাল প্রচেষ্টা!
মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা...

২৫| ২৯ শে অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ১১:৫১

সামিয়া বলেছেন: দারুন ছন্দে ছন্দে বর্ণনা।। অসাধারণ।++++++

২৯ শে অক্টোবর, ২০১৭ বিকাল ৪:০১

খায়রুল আহসান বলেছেন: কবিতা পড়ার জন্য অশেষ ধন্যবাদ। মন্তব্যে এবং প্লাসে প্রীত ও অনুপ্রাণিত হ'লাম।

০৯ ই ডিসেম্বর, ২০১৭ রাত ১০:৫৬

খায়রুল আহসান বলেছেন: আপনার পুরনো পোস্ট বোকা মেয়েটা পড়ে একটা মন্তব্য রেখে এসেছি।

২৬| ২৯ শে অক্টোবর, ২০১৭ বিকাল ৩:২৯

ডঃ এম এ আলী বলেছেন: ধন্যবাদ বোনারপাড়া রেল জংসন নিয়ে সুন্দর কবিতা ও মুল্যবান তথ্যসমৃদ্ধ পাদটিকার জন্য ।
আশীর দশকে দাপ্তরিক পরিদর্শন কাজের প্রয়োজনে উত্তর বঙ্গের বিভিন্ন জেলায় যাওয়ার পথে এই বোনারপাড়া রেল ষ্টেশন পারি দিতে হয়েছিল । সেখানে নেমে অনেক সময় ট্রেন পরিবর্তন করতে হয়েছিল । সেখানকার অনেক স্মৃতি এখনো মনে ভেসে উঠে । বাহদুরাবদ ঘাট হতে ফেরী পার হয়ে দেখা যেত ট্রেন রেডি হয়ে আছে যাত্রার জন্য । ট্রেনে উঠলে পরে এত ধীরে ধীরে ট্রেয চলত তাতে বেশ ভালই লাগত , কারণ আশে পাশের দৃশ্য ভাল করে দেখা যেত ।

যমুনা সেতু চালু হওয়ার পরে এই বোনারপাড়া রেল স্টেশনটির গুরুত্ব কিছুটা কমে যায় এটা সত্য কথা , তবে রেলের সার্বিক উন্নতি হলে এই রেল জংসনটি আবার ফিরে পাবে তার পুরাতন গৌরব সেটা মনে ধরে রাখা যায় ।

অনেক অনেক শুভেচ্ছা রইল ।

৩০ শে অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ১০:১৮

খায়রুল আহসান বলেছেন: যমুনা সেতু চালু হওয়ার পরে এই বোনারপাড়া রেল স্টেশনটির গুরুত্ব কিছুটা কমে যায় এটা সত্য কথা , তবে রেলের সার্বিক উন্নতি হলে এই রেল জংসনটি আবার ফিরে পাবে তার পুরাতন গৌরব সেটা মনে ধরে রাখা যায় - আপনার এই আশার বাণী শুনে মনটা ভাল হয়ে গেল।
কবিতা পড়ার জন্য অশেষ ধন্যবাদ। মন্তব্যে এবং প্লাসে প্রীত ও অনুপ্রাণিত হ'লাম।
শুভেচ্ছা জানবেন।

২৭| ৩০ শে অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ১০:০৩

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: বোনারপাড়া রেল জংশন ভাল লেগেছে। পদটিকা দেয়াতে সবকিছু বুঝা গেছে।

এখানে একটু খানি বাড়িয়ে বলতে চাই। বাংলাদেশে রেল জংশনগুলি অবস্থা গড়পরতা খুবই খারাপ। অবহেলার ছাপ অবয়বে মেখে যেনো দাড়িয়ে আছে।
এদিকে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের আশু সুদৃষ্টি কামনা করছি। এটি অর্থ অপচয় হবে না । সুন্দর মনোরম আধুনিক রেল জংশন চাই। :)

৩০ শে অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ১১:৩৯

খায়রুল আহসান বলেছেন: আপনার এ দাবীর সাথে একাত্মতা ঘোষণা করছি।
কবিতা পড়ার জন্য অশেষ ধন্যবাদ। মন্তব্যে এবং প্লাসে প্রীত ও অনুপ্রাণিত হ'লাম।
শুভেচ্ছা জানবেন।

২৮| ৩০ শে অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ১১:৪৭

মোঃ মাইদুল সরকার বলেছেন: কবিতায় হারিয়ে যাওয়া এক জংশন-কে তুলে ধরেছেন।

শুধুই কি তুলে ধরা একপ্রকার অমরতাই এনে দিলেন ঘুমিয়ে পড়া এই ষ্টেশনকে।

খুব সুন্দর স্মৃতিময় কবিতা।

৩০ শে অক্টোবর, ২০১৭ দুপুর ১২:০৩

খায়রুল আহসান বলেছেন: শুধুই কি তুলে ধরা একপ্রকার অমরতাই এনে দিলেন ঘুমিয়ে পড়া এই ষ্টেশনকে। খুব সুন্দর স্মৃতিময় কবিতা - আপনার এ উদার প্রশংসার জন্য জানাচ্ছি আপনাকে প্রাণঢালা শুভেচ্ছা!
মন্তব্যে অনেক অনুপ্রাণিত হ'লাম। শুভেচ্ছা জানবেন।

২৯| ৩০ শে অক্টোবর, ২০১৭ রাত ৯:০৩

আহমেদ জী এস বলেছেন: খায়রুল আহসান,




কবিতায় যমুনার ভাঙ্গনের মতো হাহাকারের ছবি বোনারপাড়া রেলওয়ে জংশনের । কুউউ ..... ঝিকঝিক........... শব্দে যে বাতাসে একদিন দোলা লাগতো, যে চৌহদ্দি একদিন মানুষের কলকাকলীতে নির্ঘুম সময় কাটাতো বারোমাস, সময়ের করালগ্রাসে তা আজ বিলীন । পরিবর্তশীল প্রকৃতিতে পরিবর্তনটাই অমোঘ ।

কবিতাও দৃশ্য বর্ণনার সাথে সাথে রেলের মতো ছন্দ তুলে এগিয়ে গেছে বোনারপাড়া ছাড়িয়ে পাঠকের মনের জংশনে ।
ভালো লাগলো ।

৩১ শে অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ৭:৩৪

খায়রুল আহসান বলেছেন: যে চৌহদ্দি একদিন মানুষের কলকাকলীতে নির্ঘুম সময় কাটাতো বারোমাস, সময়ের করালগ্রাসে তা আজ বিলীন । পরিবর্তশীল প্রকৃতিতে পরিবর্তনটাই অমোঘ - পরিস্থিতির একেবারে সঠিক একটা চিত্র এঁকে ফেলেছেন এ দু'টি লাইনে।
সুন্দর, কাব্যিক মন্তব্যে মন ভরে গেল। প্লাসটা বাড়তি প্রেরণা।
অনেক, অনেক ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা, আহমেদ জী এস

৩০| ০১ লা নভেম্বর, ২০১৭ বিকাল ৪:৪৫

শাহরিয়ার কবীর বলেছেন:

কবিতা ও পাদটীকা খুব সুন্দর করে লিখেছেন ।

০১ লা নভেম্বর, ২০১৭ রাত ৯:১৪

খায়রুল আহসান বলেছেন: কবিতা পড়ার জন্য অশেষ ধন্যবাদ। মন্তব্যে এবং প্লাসে প্রীত ও অনুপ্রাণিত হ'লাম।
শুভেচ্ছা জানবেন।

৩১| ০২ রা নভেম্বর, ২০১৭ সকাল ৮:৪৬

এম আর তালুকদার বলেছেন: এই ধরনের কাব্যগুলি স্মৃতির পাতায় নিয়ে যায়, খুব ভাল লাগলো।

০২ রা নভেম্বর, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:১৫

খায়রুল আহসান বলেছেন: কবিতাটি পড়ার জন্য অনেক ধন্যবাদ। মন্তব্যে প্রীত ও অনুপ্রাণিত হয়েছি।

১৮ ই ডিসেম্বর, ২০১৭ সকাল ১০:৪৮

খায়রুল আহসান বলেছেন: এ ব্লগে আপনার লেখা প্রথম পোস্টে একটা মন্তব্য রেখে এসেছি।

৩২| ০৪ ঠা নভেম্বর, ২০১৭ রাত ১২:১৭

মাহমুদ০০৭ বলেছেন: কবিতা টা পড়ে কেমন যেন লাগছে । কবিতায় প্রাণ আছে । পাদটিকায় অনেক কিছু জানতে পারলাম
শুভেচ্ছা

১৫ ই নভেম্বর, ২০১৭ দুপুর ১২:৩৭

খায়রুল আহসান বলেছেন: কবিতায় প্রাণ আছে - অনেক ধন্যবাদ, ছোট্ট একটি কথা দিয়ে অনেক বড় প্রশংসা করে যাবার জন্য।
গল্পকারের কবিতাটি ভাল লেগেছে জেনে অনুপ্রাণিত হ'লাম। আপনাকেও অনেক অনেক শুভেচ্ছা...

৩৩| ০৫ ই নভেম্বর, ২০১৭ দুপুর ২:২৯

জুন বলেছেন: স্টেশনের নাম নিয়ে একটি অনিন্দসুন্দর কাব্যে রয়েছে নতুনত্ব খাইরুল আহসান । আমার যেমন আশৈশব প্রেম সীতাকুন্ড আর সেখানকার রেলষ্টেশন নিয়ে । পথের পাঁচালীর দুর্গার মত মন ছুটে যায় এখোনো সেখানে সেই পুরোনো পরে থাকা দুটো রেল লাইনে।
কবিতায় ভালোলাগা রইলো ।
+

১৫ ই নভেম্বর, ২০১৭ বিকাল ৪:০৭

খায়রুল আহসান বলেছেন: পথের পাঁচালীর দুর্গার মত মন ছুটে যায় এখোনো সেখানে সেই পুরোনো পরে থাকা দুটো রেল লাইনে - সুন্দর analogy টেনেছেন।
কবিতা পড়ার জন্য অনেক ধন্যবাদ। মন্তব্যে অনুপ্রাণিত।

১৮ ই ডিসেম্বর, ২০১৭ রাত ৯:০৬

খায়রুল আহসান বলেছেন: আপনার পুরনো দুটো পোস্ট ভালবাসায় বানানোর স্বাদ (মার্চ/২০১০) এবং শিরোনাম নেই পড়ে সেখানে দুটো মন্তব্য রেখে এলাম। আশাকরি, সময় করে একবার পড়ে দেখবেন।

৩৪| ০৫ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ৯:৪৮

কথাকথিকেথিকথন বলেছেন:




স্মৃতিচারণে হাহাকার গড়ে উঠেছে কবিতায় । এই যেমন জীবন বদলায় গতিপথ তেমনি সবকিছুই বদলে যায় পৃথিবী নামটা ব্যাতিরেকে !

১৫ ই নভেম্বর, ২০১৭ বিকাল ৪:২৩

খায়রুল আহসান বলেছেন: দার্শনিক মন্তব্য, ভাল লাগলো।
মন্তব্যে এবং প্লাসে প্রীত ও অনুপ্রাণিত হ'লাম।

৩৫| ০৯ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ৮:৫৫

আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন: স্টিকি পোস্টের (সামহোয়্যার ইন ব্লগঃ মুদ্রার অন্য পিঠ) ৯৭ নম্বর মন্তব্যের প্রতি আপনার দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

১৫ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ১১:০৫

খায়রুল আহসান বলেছেন: আপনার স্টিকি পোস্টের মন্তব্যগুলো পড়ে যাচ্ছি। ৯৭ নম্বরটাও পড়েছি। ব্লগে আমি প্রায় নতুনই বলা চলে, মাত্র দু'বছর দু'মাসের অভিজ্ঞতা। তাই কিছু সাজেশন দেবার মত অভিজ্ঞতা আমার নেই বললেই চলে। তথাপি, আরেকটু ভেবে দেখবো, নিজে কিছু গ্রহণযোগ্য সাজেশন দিতে পারবো কিনা। যদি পারবো বলে মনে করি, তবে নবগঠিত ইমেল গ্রুপে যোগদানের ইচ্ছের কথা জানিয়ে জানা আপুকে ইমেল করবো।
বাই দ্য ওয়ে, আমার এ পোস্ট সম্পর্কে তো কিছু বললেন না?

৩৬| ০৯ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ১০:১৫

মিথী_মারজান বলেছেন: মমতামাখা স্মৃতিচারণ।
অনুভূতিগুলো যেন কাঁদছে অতীত ঐতিহ্য ফিরে পাবার জন্য।
স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা রইল।
সুন্দর কবিতা।

১৬ ই নভেম্বর, ২০১৭ বিকাল ৫:১০

খায়রুল আহসান বলেছেন: মন ছোঁয়া মন্তব্য, অনেক অনুপ্রাণিত হ'লাম।
ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা...

৩৭| ১০ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ১১:৩৩

কালীদাস বলেছেন: নামটা আগে শুনিনি, অন্যরকম। ইনফ্যাক্ট দেশের উত্তরাঞ্চলেই কখনও যাওয়া হয়নি। জানলাম নতুন কিছু এই পোস্ট থেকে।

অফটপিক: আপনার মন্তব্যগুলোর রিপ্লাই দিয়েছি আমার মেগাসিরিয়ালে। কিছু দিন ব্লগের বাইরে ছিলাম, তাই দেরি হল বলে দুঃখিত।

১৬ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ৮:২২

খায়রুল আহসান বলেছেন: হ্যাঁ, স্টেশনের নামটা একটু বিশেষ রকমেরই বটে। কবিতায় প্লাস এর জন্য ধন্যবাদ।
আপনার রিপ্লাইগুলো দেখে আসলাম। আমিও কিছুদিন দেশের বাইরে ছিলাম। ফিরে এসে জবাব দিচ্ছি।
কিছুক্ষণ আগে আপনার মেগা সিরিয়াল এর পর্ব-৪ এ মন্তব্য রেখে আসলাম।

৩৮| ১১ ই নভেম্বর, ২০১৭ বিকাল ৩:৫৪

জাহিদ অনিক বলেছেন:



বেশকিছুদিন ব্লগে দেখছি না আপানকে, আশা করছি সুস্থ আছেন।

১৬ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ৮:২৭

খায়রুল আহসান বলেছেন: সপ্তাহ দুয়েকের জন্য দেশের বাইরে ছিলাম, তাই নতুন কোন পোস্ট কিংবা মন্তব্য দিতে পারিনি।
আপনার সহৃদয় কনসার্নের জন্য আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি। আশাকরি ভাল আছেন। শুভেচ্ছা রইলো...

৩৯| ১৬ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ১০:১৮

মোহেবুল্লাহ অয়ন বলেছেন: শুরুটা বেশ ভাল লেগেছে। বেশ দরদ নিয়ে অকৃত্রিমভাবে স্মৃতিচারণ করেছেন। মানুষ এক চমৎকার সৃষ্টি আল্লাহর! জড় বস্তু, প্রাণ নেই অথচ আমরা কি সুন্দর ভাবে এসব কিছুর স্মৃতিচারণ করি যেন সে কোন ব্যক্তি ছিল, ভাল লাগার মানুষ ছিল!

১৭ ই নভেম্বর, ২০১৭ সকাল ১০:০২

খায়রুল আহসান বলেছেন: জড় বস্তু, প্রাণ নেই অথচ আমরা কি সুন্দর ভাবে এসব কিছুর স্মৃতিচারণ করি যেন সে কোন ব্যক্তি ছিল, ভাল লাগার মানুষ ছিল! - ব্যতিক্রমী এই পর্যবেক্ষণের জন্য অশেষ ধন্যবাদ জানাচ্ছি।
মন্তব্যে অনুপ্রাণিত।

৪০| ১৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:২৭

তারেক ফাহিম বলেছেন: চমৎকার স্মৃতিময় লিখা।

ভালো লাগলো কবির স্মৃতিময় কবিতা।

১৮ ই নভেম্বর, ২০১৭ রাত ৯:৩৫

খায়রুল আহসান বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ, কবিতা পড়ার জন্য। স্মৃতিময় কবিতার প্রশংসায় অনুপ্রাণিত হ'লাম।
শুভেচ্ছা...

৪১| ১৯ শে নভেম্বর, ২০১৭ বিকাল ৩:০১

রাতুল_শাহ বলেছেন: প্রথমে মনে করেছিলাম বনপাড়া।

ভালো লাগলো।

১৯ শে নভেম্বর, ২০১৭ বিকাল ৩:০৬

খায়রুল আহসান বলেছেন: :) :)
ঠিক আছে, এখন তো সঠিকটা জানা হলো! :)
তার পরেও ভাল লেগেছে জেনে খুশী হ'লাম। প্লাসের জন্য ধন্যবাদ।

২৭ শে ডিসেম্বর, ২০১৭ সকাল ১১:১১

খায়রুল আহসান বলেছেন: আপনার পুরনো পোস্ট প্র্যাকটিক্যাল ক্লাসে .... পড়ে আসলাম। আপনার অভিজ্ঞতা এবং পোস্টের শেষে পরামর্শ দুটো পড়ে বেশ মজা পেলাম।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.