নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

I am a grateful girl to life, as it has gifted me a lot of interesting stories to tell you.

মৌরি হক দোলা

Shine on me, sunshine Rain on me, rain Fall softly, dewdrops And cool my brow again - Maya Anglou

মৌরি হক দোলা › বিস্তারিত পোস্টঃ

হুমায়ূন আহমেদের লেখা হচ্ছে অল্প বয়সের পোলাপানের মাথা নষ্ট করার যন্ত্র!

২৭ শে জুন, ২০২২ রাত ৮:৫৮



হাইস্কুলে পড়ার সময় হুমায়ূন আহমেদের বই গোগ্রাসে গিলেছি। হিমু থেকে শুরু করে শুভ্র, মিসির আলী, প্রেমের উপন্যাস সবকিছু আমি পাগলের মতো পড়তাম। হার্ডকপি ছাড়াও সফট কপি পড়েছি প্রচুর। মিসির আলী সিরিজের বেশিরভাগ বই-ই আমার সফট কপিতে পড়া। এসএসসি পরীক্ষার পরে ঝুম বৃষ্টির মধ্যে পড়েছিলাম "বাদল দিনের প্রথম কদম ফুল"। জুন মাস এলেই এখনো সেই চার বছর আগের সেইসব দিন অনুভব করি। বৃষ্টির মধ্যে পড়া সেই নবনী, তিথির নীল তোয়ালে, তোমাকে, আয়নাঘর, পাখি আমার একলা পাখি-র সব চরিত্ররা যেন এখনো আমার কাছে জীবন্ত হয়ে ধরা দেয়।

তখন থেকেই হুমায়ূন আহমেদের অন্যান্য পাঠকদের মতো আমিও একটি কথা শুনে অভ্যস্ত। তা হচ্ছে- হুমায়ূন আহমেদের লেখা হচ্ছে অল্প বয়সের পোলাপানের মাথা নষ্ট করার যন্ত্র। অনেক ভেবেও তখন এই কথা বলার পেছনের যুক্তি খুঁজে পাইনি। তবে এরপরে বাংলা ও বিশ্ব সাহিত্যের অন্যান্য লেখা পড়তে গিয়ে হুমায়ূন সাহিত্যের সীমাবদ্ধতা কিছুটা ধরতে পেরেছি বলে মনে হয়েছিল। কিন্তু পোলাপানের মাথা নষ্ট করার মতো কী করলো এটা বুঝতে পারিনি। এতোদিন ভেবেছি, লেখায় চটুল ভাষার যে ব্যবহার তা-ই কি এই মন্তব্যের কারণ? কী জানি কেন অন্যরা এ কথা বলেন!



তবে সম্প্রতি বহুদিন পরে হুমায়ূন আহমেদের লেখা চারটে উপন্যাস টানা পড়ার পরে আমি সম্মত হতে বাধ্য হলাম যে, তার লেখা আসলেও অল্প বয়স্কদের বিগড়ে (!) দেওয়ার জন্য যথেষ্ট।

বিসাকে কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার থেকে দুটি বই 'এই বসন্তে' আর 'অন্যদিন' এনেছিলাম। আর পয়সা দিয়ে কিনেছিলাম 'সমুদ্র বিলাস' আর 'গৌরীপুর জংশন'। এই চারটি বই পড়তে পড়তে লক্ষ্য করলাম, হুমায়ূন আহমেদের লেখায় একটি বৈশিষ্ট্য আছে- যা আমি আগে কখনো লক্ষ্য করিনি। তাঁর লেখা এতোটাই সরলতা মাখা যে পড়লে মনে হয় জীবনটা বুঝি এমনই সহজ-সুন্দর। কত কঠিন কঠিন পরিস্থিতিকেও তিনি এমনভাবে দেখিয়েছেন যেন এই কঠিনতাই জীবনের সৌন্দর্য। এই কঠিন পরিস্থিতি না থাকলে জীবনটা আসলে জীবনই হতো না! হতো বুঝি মড়ার মতো পড়ে থাকা এক টুকরো শব্দ কেবল।

'অন্যদিন' উপন্যাস একটি মেস বাড়িকে কেন্দ্র করে লেখা। সেখানে চরিত্রগুলোর জীবনে কত দুঃখ, কতই না কঠিন শেষাংশ। অথচ কি সুন্দর মায়াময় ছন্দে লেখা। 'সমুদ্র বিলাস' পড়লে মনে হয় তৌহিদের মতো একজন মানুষ পেলে জীবনটা বেশ রোমাঞ্চকর হতো! কিন্তু আসলেই কি তৌহিদেরা সত্যিকারের জীবনে গ্রহণযোগ্য? রিমির সিদ্ধান্তই কি রূঢ় বাস্তবতা না, যে বাস্তবতাকেও উপন্যাসে তুলে আনা হয়েছে একটি শান্ত, সুন্দর 'সেটিং' এর মধ্য দিয়ে?



তো একটা সময় হয়তো বুঝতে পারা যায় যে, জীবনটা হুমায়ূন আহমেদের লেখা উপন্যাসের মতো না। এখানে মায়ার চেয়ে যন্ত্রণার বাস্তবতা ঢের বেশি। কিন্তু কৈশোরের অনভিজ্ঞ সময়ে এটা বোঝার কোনো উপায় থাকে না। তখন জীবনকে হুমায়ূন-উপন্যাস ভেবে অনেক সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেললে বাকি জীবন তার প্রায়শ্চিত্য করতে হয়। উপন্যাস তো যেকোনো ঘটনা দিয়েই শেষ হতে পারে! কিন্তু বাস্তবের জীবনগুলোর অবসানের জন্য তো অনিয়ন্ত্রিত মৃত্যু পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয়। তাই এসব বই রূঢ় বাস্তবতাকে দেখার আগে না পড়াই ভালো।

চারটে বইয়ের মধ্যে আমার 'সমুদ্র বিলাস' আর 'অন্যদিন' বেশ ভালো লেগেছে। 'এই বসন্তে' উপন্যাসকে অসম্পূর্ণ মনে হয়েছে; পড়ে তৃপ্তি পাইনি। প্লটকে বাইরে রেখে বিবেচনা করলে 'গৌরীপুর জংশন'ও মোটামুটি ভালো।


হুমায়ূন আহমেদের গানগুলোও আমার খুব পছন্দের। সেগুলোর মধ্যে এই গানটা শুনুন। এই গানের বিশেষ চারটি লাইন, আমার অনেক প্রিয়। বলতে পারেন কোন চারটি লাইন?

মন্তব্য ২৮ টি রেটিং +৩/-০

মন্তব্য (২৮) মন্তব্য লিখুন

১| ২৭ শে জুন, ২০২২ রাত ৯:২৬

সোনাগাজী বলেছেন:



ইংরেজীতে কথাবার্তা চালিয়ে যেতে পারেন?

২৯ শে জুন, ২০২২ ভোর ৪:২১

মৌরি হক দোলা বলেছেন: পারি।

২| ২৭ শে জুন, ২০২২ রাত ৯:৩৭

এস এম মামুন অর রশীদ বলেছেন: হুমায়ূন আহমেদের সবচেয়ে শক্তিশালী উপন্যাস ১৯৭১, মাহমুদুল হকের খেলাঘরের মতো।

২৯ শে জুন, ২০২২ ভোর ৪:২২

মৌরি হক দোলা বলেছেন: পড়া হয়নি, পড়ার ইচ্ছে রইল। ধন্যবাদ।

৩| ২৭ শে জুন, ২০২২ রাত ৯:৩৮

শাহ আজিজ বলেছেন: হুমায়ুন তরুণদের নিয়ে ভাবতেন খুব যা তার ঐ সমসাময়িক সময়ে পাওয়া যায়না । বাকিরা প্রেম বিষয়ক বড়দের গল্প লিখতেন । হুমায়ুনের জনপ্রিয়তায় তারা বাঁধা হয়েও সফল হননি । হুমায়ুনকে নিয়ে আমার শুরু ৭৬ সালে । বেশ অবাক হয়েছিলাম গল্পের গতিময়তা দেখে । এরপর আমার কন্যা বড় হতে হতে হুমায়ুন ভক্ত হয়ে গেল । তাকে আমি ৩০০ বই কিনে দিয়েছি । সেও এখন চাকুরি জীবী বিধায় গল্প পড়ার সময় পায় না । সেন্ট মারটিন দ্বীপকে তরুণদের ভিতরে জনপ্রিয় করতে হুমায়ুনের চেষ্টা সফল । সুনিলের একদা মন্তব্য পড়ে সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম গুরু সুনিল রত্ন চিনতে ভুল করেননি । বই মেলায় এখনো মৃত হুমায়ুন শীর্ষে আছে ।

২৯ শে জুন, ২০২২ ভোর ৪:২২

মৌরি হক দোলা বলেছেন: আপনার মতামত জেনে প্রীত হলাম।

৪| ২৭ শে জুন, ২০২২ রাত ৯:৪৯

মনিরা সুলতানা বলেছেন: এখন ও হুমায়ুনে আবেশিত।

২৯ শে জুন, ২০২২ ভোর ৪:২৩

মৌরি হক দোলা বলেছেন: ঠিক তাই।

৫| ২৭ শে জুন, ২০২২ রাত ১০:৩১

অপু তানভীর বলেছেন: হুমায়ূন সাহিত্য মানেই অন্য কিছু । আমার জীবনের বড় একটা অংশ জুড়ে রয়েছে এই হুমায়ূন আহমেদ । আগে টুকটাক কয়েকটা বই পড়লেই নিয়মিত হুমায়ূন আহেমেদের বই পড়া শুরু করে ক্লাস নাইন থেকে । কোন দ্বিধা নেই যে তার এই বই আমার চিন্তা ভাবনা অনেক পরিবর্তণ করেছে ।
তবে মাথা নষ্ট করার যন্ত্র যারা বলে তাদের সবাই হচ্ছে বই না পড়েই বই বিশেষজ্ঞদের দলে ।

২৯ শে জুন, ২০২২ ভোর ৪:২৩

মৌরি হক দোলা বলেছেন: ধন্যবাদ, ভাই।

৬| ২৮ শে জুন, ২০২২ রাত ১২:১৮

কামাল৮০ বলেছেন: তার কিছু ছোটগল্প,কিছু নাটক ও কিছু চলচিত্র আমার ভাল লেগেছে।প্রথম দুটি বই খুবই ভাল লেগেছে।খুব কম সংখ্যক বই পড়েছি।

২৯ শে জুন, ২০২২ ভোর ৪:২৪

মৌরি হক দোলা বলেছেন: আচ্ছা।

৭| ২৮ শে জুন, ২০২২ রাত ১২:৪৩

শূন্য সারমর্ম বলেছেন:

অল্প বয়সী ছেলে-মেয়ে থেকে কতভাগ হুমায়নের মত লিখে বইমেলায় বই তুলেছে?

২৯ শে জুন, ২০২২ ভোর ৪:২৫

মৌরি হক দোলা বলেছেন: জানি না। তবে হুমায়ূন-ঢং হুমায়ূন আহমেদের লেখাতেই ভালো লাগে। অন্য কারো লেখায় ন্যাকামি মনে হয়।

৮| ২৮ শে জুন, ২০২২ রাত ১২:৫৩

রাজীব নুর বলেছেন: হুমায়ূন শেষ করে, অন্য লেখকদের ধরুন।

২৯ শে জুন, ২০২২ ভোর ৪:২৫

মৌরি হক দোলা বলেছেন: আমি তো মিলিয়ে ঝিলিয়ে পড়ি ভাই।

৯| ২৮ শে জুন, ২০২২ রাত ২:২৩

জাহিদুল ইসলাম ২৭ বলেছেন: হুমায়ূন আহমেদের সমালোচনা করা সহজ,তার মতো লেখা সহজ না।

২৯ শে জুন, ২০২২ ভোর ৪:২৬

মৌরি হক দোলা বলেছেন: সহমত।

১০| ২৮ শে জুন, ২০২২ রাত ৩:১৫

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:
আমার মনে হয় হুমায়ূনের উপন্যাসের
গভীরতা কম। যখন পড়া তখন মজা পরে
ভুলে যাওয়া। হাওয়াই মিঠাই এর মতো।
পরে সেসব নিয়ে চিন্তার কিছু থাকেনা।
এটাই পাঠককে টানে চুম্বকের মতো
বিশেষ করে অল্প বয়সের পোলাপানের।

২৯ শে জুন, ২০২২ ভোর ৪:২৬

মৌরি হক দোলা বলেছেন: তাই হবে হয়তো।

১১| ২৮ শে জুন, ২০২২ ভোর ৫:১১

মোহাম্মাদ আব্দুলহাক বলেছেন: আমি ছোটকাল থেকে বিদেশ। লেখালেখি করি। শৈলী এবং কলাকৌশল শিখার জন্য ভালো লেখকদের বই পড়ার জন্য কিছু বই কিনেছিলাম। তাদের একজন ছিলেন হুমায়ূন আহমেদ। কয়েক পৃষ্টা পড়ে আক্ষিপ্ত হয়েছিলাম। আরেক ইংলিস লেখকের এক উপন্যাস কিনে খুব বিরক্ত হয়েছিলাম।

সবাই সবার জন্য চিন্তা করে না। তবে নিজের লাভের চিন্তা করে।

২৯ শে জুন, ২০২২ ভোর ৪:২৭

মৌরি হক দোলা বলেছেন: এই দুনিয়ায় 'আমি' ই সত্য।

১২| ২৮ শে জুন, ২০২২ সকাল ১০:০৬

সৈয়দ মশিউর রহমান বলেছেন: উপন্যাস বা কবিতা লেখা সহজ কাজ নয়।

২৯ শে জুন, ২০২২ ভোর ৪:২৮

মৌরি হক দোলা বলেছেন: সহমত।

১৩| ২৮ শে জুন, ২০২২ সকাল ১১:২০

নতুন বলেছেন: তা হচ্ছে- হুমায়ূন আহমেদের লেখা হচ্ছে অল্প বয়সের পোলাপানের মাথা নষ্ট করার যন্ত্র। অনেক ভেবেও তখন এই কথা বলার পেছনের যুক্তি খুঁজে পাইনি। তবে এরপরে বাংলা ও বিশ্ব সাহিত্যের অন্যান্য লেখা পড়তে গিয়ে হুমায়ূন সাহিত্যের সীমাবদ্ধতা কিছুটা ধরতে পেরেছি বলে মনে হয়েছিল।

হুমায়ুন আহমেদ মারা যাবার খবরে বেশির ভাগ মানুষেরই নিজের কাছের মানুষ হারিয়েছে এমন কস্ট পেয়েছে।

একজন লেখক হিসেবে দুই এক জেনারেসনের মনে এমন স্থান করে নেওয়ার মতন লেখক সম্ভবত সাহিত্যের ইতিহাসে কমই আছে। উনার লেখাতে উচ্চমার্গীয় ফিলোসফি নেই। কিন্তু লেখাতে মানুষকে একটা অন্য রকমের স্বপ্ন দেখিয়েছে যেটার অভাব হয়তো আমাদের সমাজের মানুষের অভাব ছিলো। খুবই সহজ ভাষায়, একটা ছোট্ট পাগলামী মানুষের মনে গেথে দিতে সবাই পারেনা।

২৯ শে জুন, ২০২২ ভোর ৪:৩১

মৌরি হক দোলা বলেছেন: দৈনন্দিন জীবনকে আকর্ষনীয়ভাবে তুলে ধরাও কিন্তু এক ধরণের আর্ট। সব লেখাতেই উচ্চমার্গীয় দার্শনকিতা থাকতে হবে কেন জানি না। আপনার মন্তব্যটি খুব ভালো লেগেছে।

১৪| ২৮ শে জুন, ২০২২ দুপুর ১:৫২

নীল আকাশ বলেছেন: উনার লেখায় খুব গভীর কিংবা উচ্চমানের সাহিত্য কিছু থাকে না। এইগুলিকে কি আসলে উপন্যাস বলা যায় না কি সেটা নিয়েও প্রশ্ন আছে। এইগুলি আসলে বড় গল্পের সাথে তুলনীয়।

২৯ শে জুন, ২০২২ ভোর ৪:৩১

মৌরি হক দোলা বলেছেন: ধন্যবাদ।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.