নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

আলহামদুলিল্লাহ। যা চাইনি তার চেয়ে বেশি দিয়েছেন প্রিয়তম রব। যা পাইনি তার জন্য আফসোস নেই। সিজদাবনত শুকরিয়া। প্রত্যাশার একটি ঘর এখনও ফাঁকা কি না জানা নেই, তাঁর কাছে নি:শর্ত ক্ষমা আশা করেছিলাম। তিনি দয়া করে যদি দিতেন, শুন্য সেই ঘরটিও পূর্নতা পেত!

নতুন নকিব

যবে উৎপীড়িতের ক্রন্দল-রোল আকাশে বাতাসে ধ্বনিবে না, অত্যাচারীর খড়্গ কৃপাণ ভীম রণ-ভূমে রণিবে না- বিদ্রোহী রন-ক্লান্ত। আমি সেই দিন হব শান্ত।

নতুন নকিব › বিস্তারিত পোস্টঃ

মানুষের সম্মান ও মর্যাদা এবং কাউকে অবজ্ঞা ও উপহাস করার পরিণতি

৩০ শে জুলাই, ২০১৯ সকাল ১০:৩৮



মানুষের সম্মান ও মর্যাদা এবং কাউকে অবজ্ঞা ও উপহাস করার পরিণতি

প্রাককথন; সৃষ্টির শ্রেষ্ঠ মানুষ:

সৃষ্টির শ্রেষ্ঠ জীব মানুষ। আল্লাহ পাক মানুষকে বিশেষ জ্ঞান দান করেছেন যা অন্য কোনো মাখলূককে দেননি। জ্ঞান-বিজ্ঞানের এই শ্রেষ্ঠত্বের কারণে মানুষকে আশরাফুল মাখলুকাত বা সৃষ্টির সেরা জীব উপাধিতে ভূষিত করা হয়েছে। আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তায়ালা ইরশাদ করেন,

وَلَقَدْ كَرَّمْنَا بَنِي آدَمَ وَحَمَلْنَاهُمْ فِي الْبَرِّ وَالْبَحْرِ وَرَزَقْنَاهُم مِّنَ الطَّيِّبَاتِ وَفَضَّلْنَاهُمْ عَلَى كَثِيرٍ مِّمَّنْ خَلَقْنَا تَفْضِيلاً

'নিশ্চয় আমি আদম সন্তানকে মর্যাদা দান করেছি, আমি তাদেরকে স্থলে ও জলে চলাচলের বাহন দান করেছি; তাদেরকে উত্তম জীবনোপকরণ প্রদান করেছি এবং তাদেরকে অনেক সৃষ্ট বস্তুর উপর শ্রেষ্ঠত্ব দান করেছি।' [সূরা বনি ইসরাইল : ৭০]

We have honoured the sons of Adam; provided them with transport on land and sea; given them for sustenance things good and pure; and conferred on them special favours, above a great part of our creation.

সৃষ্টিজগতে মানুষই সবচে' সম্মানিত:

এই বিশ্ব জগতে মহান আল্লাহ তাআ'লার সৃষ্ট তামাম জীবের ভেতরে মানুষই সর্বাপেক্ষা সম্মান এবং মর্যাদার অধিকারী। মানুষের চেয়ে অধিক সম্মানের অধিক মর্যাদার আর কেউ নেই। এমনকি আল্লাহ পাকের আরেক সৃষ্টি নিষ্পাপ ফেরেশতাদের চেয়েও মানুষের মর্যাদা বেশি। মানুষ আল্লাহ তাআ'লার অন্যতম সৃষ্টি। আল্লাহ তাআ'লার প্রিয় মাখলূক। বুদ্ধিমত্তা দিয়ে, আকল দিয়ে, জ্ঞান দিয়ে তিনি তাদের চমকপ্রদ অবয়বে সৃষ্টিজগতের শ্রেষ্ঠ আসনে বসিয়েছেন। মানুষ আল্লাহ তাআ'লার প্রতিনিধি। মানুষ সৃজনশীল, বুদ্ধিসম্পন্ন এবং দায়িত্বশীল। কূল কায়েনাতের যাবতীয় বস্তুনিচয়কে সৃষ্টি করা হয়েছে মূলত: মানুষের সেবা করার জন্য। তারা মানুষের সেবায় নিত্য নিয়োজিত। এসব দৃষ্টিকোণ থেকে মানুষের মর্যাদা ও অধিকার নিশ্চিত করেছে ইসলাম। আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তাআ'লা অসাধারণ সুন্দর করে সৃষ্টি করেছেন মানুষের আকার-আকৃতি-অবয়ব-দৈহিক গঠন। আল্লাহ তাআ'লা ইরশাদ ফরমান,

لَقَدْ خَلَقْنَا الْإِنسَانَ فِي أَحْسَنِ تَقْوِيمٍ

'আমি সৃষ্টি করেছি মানুষকে সুন্দরতর অবয়বে।' [সূরা আত ত্বীন : ৪]

We have indeed created man in the best of moulds,

মানুষ সৃষ্টিকর্তার প্রতিনিধি:
মহাগ্রন্থ আল কুরআনে আল্লাহ সুবহানাহু ওয়াতাআ'লা মানুষকে নিজের প্রতিনিধি বা খলিফা হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন। মানুষকে কেন্দ্র করেই বিশ্বলোক-বিশাল এই ভূ-ভাগ-বিশ্বচরাচরের সৃষ্টি-উদ্ভব। সৃষ্টিকূলের মধ্যে একমাত্র মানুষই বুদ্ধি-বিবেক এবং জ্ঞানসম্পন্ন প্রাণী। এছাড়া মহান স্রষ্টা আল্লাহ সুবহানাহু ওয়াতাআ'লা মানুষকে বিশেষ কিছু ক্ষমতা দিয়ে ধন্য করেছেন, যা অন্য কোনো প্রাণিকে দান করেননি। মানুষকে তিনি বাকশক্তি দিয়েছেন এবং মাধ্যমে যাবতীয় সৃষ্টির ওপর তাকে শ্রেষ্ঠত্ব দিয়েছেন। চারিত্রিক গুণাবলীর দিক থেকে মানুষকে ফেরেশতার চেয়েও মর্যাদাসম্পন্ন করা হয়েছে। কারণ, ফেরেশতাদের কোনো জৈবিক চাহিদা নেই। মানুষের মাঝে এসব থাকা সত্বেও যারা তাদের চারিত্রিক সততা বজায় রেখে চলতে সক্ষম তাদের ফেরেশতাদের চেয়েও অধিক মর্যাদার স্থান দেয়া হয়েছে। সৃজনশীলতা মানুষের মর্যাদার আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। আল্লাহ তাআ'লা মানুষকে এমন ক্ষমতা দিয়ে দুনিয়াতে পাঠিয়েছেন যে, তার আত্মরক্ষা, আত্মোন্নতি বিধানের জন্য সে সবসময় আবিষ্কার ও সৃজনশীল কাজে ব্যস্ত। প্রাণীর মধ্যে মানুষ একমাত্র দায়িত্বশীল। কারণ একমাত্র তারাই ভদ্রতাপূর্ণ সুশৃঙ্খল সমাজে শান্তি-সৌহার্দ্যের সাথে বসবাস করে। সামাজিক সহমর্মিতা ও সম্প্রীতি শুধু মানুষের মধ্যেই পরিলক্ষিত হয়। অধিকন্তু, পার্থিব কৃতকর্মের জন্য মানুষের জন্য নির্ধারিত আছে জান্নাত ও জাহান্নাম। ভালো কাজ করলে রয়েছে জান্নাত আর মন্দ কাজ করলে জাহান্নাম। বুদ্ধি-চেতনা, জ্ঞান-বিজ্ঞান এবং সৃজনশীলতা ও চিন্তা-গবেষনায় মানুষকে দান করা হয়েছে বিশেষ স্বাতন্ত্র্য। এর সাহায্যে সে সমগ্র ঊর্ধ্বজগৎ ও অধঃজগৎকে করায়ত্ব করে নিজের কাজে নিয়োজিত করতে সক্ষম। পবিত্র কুরআনে পাকে বর্ণিত হয়েছে,

أَلَمْ تَرَوْا أَنَّ اللَّهَ سَخَّرَ لَكُم مَّا فِي السَّمَاوَاتِ وَمَا فِي الْأَرْضِ وَأَسْبَغَ عَلَيْكُمْ نِعَمَهُ ظَاهِرَةً وَبَاطِنَةً وَمِنَ النَّاسِ مَن يُجَادِلُ فِي اللَّهِ بِغَيْرِ عِلْمٍ وَلَا هُدًى وَلَا كِتَابٍ مُّنِيرٍ

'তোমরা কি দেখ না আল্লাহ নভোমন্ডল ও ভূ-মন্ডলে যাকিছু আছে, সবই তোমাদের কাজে নিয়োজিত করে দিয়েছেন এবং তোমাদের প্রতি তাঁর প্রকাশ্য ও অপ্রকাশ্য নেয়ামতসমূহ পরিপূর্ন করে দিয়েছেন? এমন লোক ও আছে; যারা জ্ঞান, পথনির্দেশ ও উজ্জল কিতাব ছাড়াই আল্লাহ সম্পর্কে বাকবিতন্ডা করে।' [সূরা লুকমান : ২০]

Do ye not see that Allah has subjected to your (use) all things in the heavens and on earth, and has made his bounties flow to you in exceeding measure, (both) seen and unseen? Yet there are among men those who dispute about Allah, without knowledge and without guidance, and without a Book to enlighten them!

অন্য আয়াতে ইরশাদ হয়েছে,

وَسَخَّرَ لَكُم مَّا فِي السَّمَاوَاتِ وَمَا فِي الْأَرْضِ جَمِيعًا مِّنْهُ إِنَّ فِي ذَلِكَ لَآيَاتٍ لَّقَوْمٍ يَتَفَكَّرُونَ

'এবং আয়ত্ত্বাধীন করে দিয়েছেন তোমাদের, যা আছে নভোমন্ডলে ও যা আছে ভূমন্ডলে; তাঁর পক্ষ থেকে। নিশ্চয় এতে চিন্তাশীল সম্প্রদায়ের জন্যে নিদর্শনাবলী রয়েছে।' [সূরা জাসিয়া : ১৩]

And He has subjected to you, as from Him, all that is in the heavens and on earth: Behold, in that are Signs indeed for those who reflect.

এ শ্রেষ্ঠত্বের ঘোষনা প্রদান করে আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তাআ'লা ফেরেশতাদের আদম আলাইহিস সালামকে সিজদা করার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন। কুরআনুল কারিমের বাচনিকে,

وَإِذْ قُلْنَا لِلْمَلاَئِكَةِ اسْجُدُواْ لآدَمَ فَسَجَدُواْ إِلاَّ إِبْلِيسَ أَبَى وَاسْتَكْبَرَ وَكَانَ مِنَ الْكَافِرِينَ

'এবং যখন আমি হযরত আদম (আঃ)-কে সেজদা করার জন্য ফেরেশতাগণকে নির্দেশ দিলাম, তখনই ইবলীস ব্যতীত সবাই সিজদা করলো। সে (নির্দেশ) পালন করতে অস্বীকার করল এবং অহংকার প্রদর্শন করল। ফলে সে কাফেরদের অন্তর্ভূক্ত হয়ে গেল।' [সূরা বাকারা : ৩৪]

And behold, We said to the angels: "Bow down to Adam" and they bowed down. Not so Iblis: he refused and was haughty: He was of those who reject Faith.

ইসলাম মানুষের মর্যাদাকে সমুন্নত করেছে:
এমনকি মানুষের মর্যাদা ও শ্রেষ্ঠত্বের কথা বিবেচনা করেই তার জান-মাল, বিবেক-সম্ভ্রম, ধর্ম ও বংশ রক্ষা করার জন্য ইসলাম বহু বিধিবিধান প্রণয়ন করেছে। মানুষের ধর্ম রক্ষার জন্য জিহাদের নির্দেশনা; তার জান ও রক্তকে হিফাজত করার জন্য কিসাসের বিধান জারি করেছে। মানুষের সম্মান ও সম্ভ্রম রক্ষা করার জন্য গিবত-শেকায়েত ও পরনিন্দার ব্যাপারে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। মানুষের বংশপরম্পরাকে রক্ষা করার জন্য জিনা-ব্যভিচারের পথ রুদ্ধ করে বৈবাহিক জীবনাচারের নির্দেশ প্রদান করেছে। মানুষের মেধা-মনন, বিবেক-বুদ্ধি সতেজ ও পরিশোধিত রাখতে সকল প্রকারের মাদকদ্রব্য নিষিদ্ধ করেছে। মানুষের সম্পদকে রক্ষা করার জন্য সব রকমের চুরি, ডাকাতি, লুটতরাজ, সুদ, ঘুষ, দুর্নীতি ও প্রতারণার পথ রুদ্ধ করার নির্দেশনা দান করা হয়েছে। মর্যাদার দিক থেকে ইসলাম মানুষকে যেমন সর্বোচ্চ শিখরে উন্নীত করেছে তেমনি দায়িত্ব-কর্তব্যের বিচারেও মানুষের অবস্থানকে রেখেছে সর্বশীর্ষে। সেরা জীব হিসেবে মানুষের প্রতিটি পদক্ষেপ হিসাব কষে কষে ফেলতে হয়। ইচ্ছে করলেই মানুষ যা খুশি তা করতে পারে না। মানুষের আছে সামাজিক, রাষ্ট্রীয় ও ধর্মীয় বাধা নিষেধ। ইচ্ছা ও কর্মে স্বাধীন হলেও মানুষের দায়বদ্ধতা প্রচুর। মানুষকে নিজের সম্মান ও মর্যাদা সংরক্ষণে যেমন সচেতন হতে হবে ঠিক তেমনি অন্যের সম্মানহানী হয় এমন কাজ থেকেও বিরত থাকতে হবে সদা সর্বদা।

ইসলামে মানুষের ব্যক্তিগত সুনাম ও সম্মান নষ্ট করা তো দূরের কথা বরং তা রক্ষা করার জন্য নিকট ও দূর আত্মীয়সহ সকলের সাথে সদয় আচরণ করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। পবিত্র কুরআনে বলা হয়েছে,

وَاعْبُدُواْ اللّهَ وَلاَ تُشْرِكُواْ بِهِ شَيْئًا وَبِالْوَالِدَيْنِ إِحْسَانًا وَبِذِي الْقُرْبَى وَالْيَتَامَى وَالْمَسَاكِينِ وَالْجَارِ ذِي الْقُرْبَى وَالْجَارِ الْجُنُبِ وَالصَّاحِبِ بِالجَنبِ وَابْنِ السَّبِيلِ وَمَا مَلَكَتْ أَيْمَانُكُمْ إِنَّ اللّهَ لاَ يُحِبُّ مَن كَانَ مُخْتَالاً فَخُورًا

'আর উপাসনা কর আল্লাহর, শরীক করো না তাঁর সাথে অপর কাউকে। পিতা-মাতার সাথে সৎ ও সদয় ব্যবহার কর এবং নিকটাত্নীয়, এতীম-মিসকীন, প্রতিবেশী, অসহায় মুসাফির এবং নিজের দাস-দাসীর প্রতিও। নিশ্চয়ই আল্লাহ পছন্দ করেন না দাম্ভিক-গর্বিতজনকে।' [সূরা নিসা : ৩৬]

Serve Allah, and join not any partners with Him; and do good- to parents, kinsfolk, orphans, those in need, neighbours who are near, neighbours who are strangers, the companion by your side, the wayfarer (ye meet), and what your right hands possess: For Allah loveth not the arrogant, the vainglorious;-

কাউকে বিদ্রুপ করার অবকাশ নেই ইসলামে:
ইসলামের দৃষ্টিতে মানুষকে খারাপ নামে ডাকা অথবা কাউকে বিদ্রুপাত্মকভাবে ডাকা উচিত নয়; বরং এর পরিবর্তে সুন্দর ব্যবহারের মাধ্যমে মানুষের সুনাম, মর্যাদা অক্ষত রাখার জন্য যথাযথ নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। কুরআনুল কারীমে বলা হয়েছে,

يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا لَا يَسْخَرْ قَومٌ مِّن قَوْمٍ عَسَى أَن يَكُونُوا خَيْرًا مِّنْهُمْ وَلَا نِسَاء مِّن نِّسَاء عَسَى أَن يَكُنَّ خَيْرًا مِّنْهُنَّ وَلَا تَلْمِزُوا أَنفُسَكُمْ وَلَا تَنَابَزُوا بِالْأَلْقَابِ بِئْسَ الاِسْمُ الْفُسُوقُ بَعْدَ الْإِيمَانِ وَمَن لَّمْ يَتُبْ فَأُوْلَئِكَ هُمُ الظَّالِمُونَ

'মুমিনগণ, কেউ যেন অপর কাউকে উপহাস না করে। কেননা, সে উপহাসকারী অপেক্ষা উত্তম হতে পারে এবং কোন নারী অপর নারীকেও যেন উপহাস না করে। কেননা, সে উপহাসকারিণী অপেক্ষা শ্রেষ্ঠ হতে পারে। তোমরা একে অপরের প্রতি দোষারোপ করো না এবং একে অপরকে মন্দ নামে ডেকো না। কেউ বিশ্বাস স্থাপন করলে তাদের মন্দ নামে ডাকা গোনাহ। যারা এহেন কাজ থেকে তওবা না করে তারাই যালেম।' [সূরা হুজুরাত : ১১]

O ye who believe! Let not some men among you laugh at others: It may be that the (latter) are better than the (former): Nor let some women laugh at others: It may be that the (latter are better than the (former): Nor defame nor be sarcastic to each other, nor call each other by (offensive) nicknames: Ill-seeming is a name connoting wickedness, (to be used of one) after he has believed: And those who do not desist are (indeed) doing wrong.

অপরের সম্মান রক্ষায় ইসলাম সর্বাধিক গুরুত্ব দেয়:
ইসলামে মানুষের সুনাম ও সম্মান রক্ষার জন্য অত্যন্ত সতর্কতামূলক বাণী উচ্চারণ করেছে। এ সম্পর্কে মহান আল্লাহ বলেন,

يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا اجْتَنِبُوا كَثِيرًا مِّنَ الظَّنِّ إِنَّ بَعْضَ الظَّنِّ إِثْمٌ وَلَا تَجَسَّسُوا وَلَا يَغْتَب بَّعْضُكُم بَعْضًا أَيُحِبُّ أَحَدُكُمْ أَن يَأْكُلَ لَحْمَ أَخِيهِ مَيْتًا فَكَرِهْتُمُوهُ وَاتَّقُوا اللَّهَ إِنَّ اللَّهَ تَوَّابٌ رَّحِيمٌ

'মুমিনগণ, তোমরা অনেক ধারণা থেকে বেঁচে থাক। নিশ্চয় কতক ধারণা গোনাহ। এবং গোপনীয় বিষয় সন্ধান করো না। তোমাদের কেউ যেন কারও পশ্চাতে নিন্দা না করে। তোমাদের কেউ কি তারা মৃত ভ্রাতার মাংস ভক্ষণ করা পছন্দ করবে? বস্তুতঃ তোমরা তো একে ঘৃণাই কর। আল্লাহকে ভয় কর। নিশ্চয় আল্লাহ তওবা কবুলকারী, পরম দয়ালু।' [সূরা হুজুরাত : ১২]

O ye who believe! Avoid suspicion as much (as possible): for suspicion in some cases is a sin: And spy not on each other behind their backs. Would any of you like to eat the flesh of his dead brother? Nay, ye would abhor it...But fear Allah. For Allah is Oft-Returning, Most Merciful.

ইসলাম অন্যের গৃহে প্রবেশেও শিষ্টাচার শেখায়:
একে অপরের গৃহে প্রবেশ করার বিধান সম্পর্কে মহান আল্লাহ বলেন,

يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا لَا تَدْخُلُوا بُيُوتًا غَيْرَ بُيُوتِكُمْ حَتَّى تَسْتَأْنِسُوا وَتُسَلِّمُوا عَلَى أَهْلِهَا ذَلِكُمْ خَيْرٌ لَّكُمْ لَعَلَّكُمْ تَذَكَّرُونَ

'হে মুমিনগণ, তোমরা নিজেদের গৃহ ব্যতীত অন্য গৃহে প্রবেশ করো না, যে পর্যন্ত আলাপ-পরিচয় না কর এবং গৃহবাসীদেরকে সালাম না কর। এটাই তোমাদের জন্যে উত্তম, যাতে তোমরা স্মরণ রাখ।' [সূরা নূর : ২৭]

O ye who believe! enter not houses other than your own, until ye have asked permission and saluted those in them: that is best for you, in order that ye may heed (what is seemly).

হযরত আবূ হুরাইরা রাদিআল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, “তোমাদের কোন ভাই যাতে করে অন্য মুসলিম ভাইকে ছোট না করে অর্থাৎ তার মান ও সম্মান ক্ষুণ্ন না করে। কেননা প্রত্যেক মুসলিম এর প্রতি অন্য ভাই এর রক্ত, মাল ও সম্মানকে ক্ষুণ্ন করা হারাম করা হয়েছে। (রক্ত দ্বারা উদ্দেশ্য হত্যা করা)।” [সহীহ মুসলিম-৪/১৯৮৬, হাদীস-২৫৬৪]

ইসলামের দৃষ্টিতে একজন মুসলমান কর্তৃক অন্যের সুনাম, মর্যাদাকে নষ্ট করা তো দূরের কথা; বরং সর্বদা সে আল্লাহর ভয়ে ভীত থাকে যে, কখনও সে অন্যকে কষ্ট দিচ্ছে কি-না। যেমন ইকরামা রাদিআল্লাহু আনহু বলেন, ‘আমার যতদূর মনে পড়ে আয়েশা রাদিআল্লাহু আনহাকে বলতে শুনেছি, তিনি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে হাত তুলে দু‘আ করতে দেখেছেন। তিনি এই দু‘আ করছিলেন, “হে আল্লাহ! আমি মানুষ, মানুষসুলভ দুর্বলতাবশতঃ আমি যদি তোমার কোন মুমিন বান্দাকে যদি কোনভাবে আঘাত দিয়ে থাকি বা কোনরূপ কষ্ট দিয়ে থাকি তবে এজন্য আমাকে শাস্তি দিও না।’’ [আহমাদ, আল-আদাবুল মুফরাদ হা/৬১০]

ইসলামে যেকোন ব্যক্তির সম্মান ও সুনাম রক্ষা করা একটা পবিত্র বিষয় যা অলংঘনীয়। এ সম্পর্কে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বিদায় হজ্জের ভাষণে বলেন, “তোমাদের রক্ত, তোমাদের সম্পদ এবং তোমাদের সম্মান তোমাদের জন্য ঠিক তেমনি পবিত্র, যেমন তোমাদের আজকের এই দিন এই মাস এই শহর পবিত্র।’’ [ইবনে মাজাহ, হা/৩০৫৫]

আবু হুরায়রা রাদিআল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, “তোমরা অবশ্যই ধারণা থেকে বেঁচে থাক। কেননা ধারণা সবচেয়ে বড় মিথ্যা কথা। কারো দোষ খুঁজে বেড়িও না, গোয়েন্দাগিরিতে লিপ্ত হয়ো না এবং (বেচা-কেনায়) একে অপরেরকে ধোঁকা দিয়ো না। পরস্পরে হিংসা করো না, একে অন্যের প্রতি বিদ্বেষ ভাব রেখো না, একজন থেকে আর একজন বিচ্ছিন্ন হয়ে যেও না। বরং সবাই এক আল্লাহর বান্দা হয়ে ভাই ভাই হয়ে যাও।’’ [বুখারী হা/৬০৬৬]

আবু দারদা রাদিআল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন, “আমি কি তোমাদেরকে সিয়াম, সালাত ও সদকার মর্তবা থেকেও শ্রেষ্ঠ বিষয় সম্পর্কে বলব না?’ সবাই আরজ করলেন, ‘আল্লাহর রাসূল! অবশ্যই বলুন।’ তিনি বললেন, ‘বিবাদরতদের মাঝে শান্তি স্থাপন করা। আর জেনে রেখো, পরস্পর কলহ-বিবাদই তো মানুষকে মুড়িয়ে দেয়।’’ [মুসনাদে আহমদ, হাদীস : ২৭৫০৮; সুনানে আবু দাউদ, হাদীস : ৪৯১৯; জামে তিরমিযী, হাদীস : ২৫০৯)]

উবাদাহ বিন সামিত রাদিআল্লাহু আনহু ও আবদুল্লাহ ইবন আব্বাস রাদিআল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত। তাঁরা বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, “তুমি কারোর কোনো ধরনের ক্ষতি করো না। তেমনিভাবে তোমরা পরস্পর একে অপরের ক্ষতি করার প্রতিযোগিতা ক[রো না।’’ [ইবন মাযাহ : ২৩৬৯, ২৩৭০]

আবু সিরমাহ রাদিআল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, “যে ব্যক্তি অন্যের ক্ষতি করতে চায়, আল্লাহ তায়ালা তার ক্ষতি করেন। তেমনি ভাবে যে ব্যক্তি অন্যের উপর কঠিন হয় আল্লাহ তায়ালাও তার উপর কঠিন হন।’’ [ইবন মাযাহ : ২৩৭১]

মহান আল্লাহ রাব্বুল আ’লামীন বলেন,

لَا يَنْهَاكُمُ اللَّهُ عَنِ الَّذِينَ لَمْ يُقَاتِلُوكُمْ فِي الدِّينِ وَلَمْ يُخْرِجُوكُم مِّن دِيَارِكُمْ أَن تَبَرُّوهُمْ وَتُقْسِطُوا إِلَيْهِمْ إِنَّ اللَّهَ يُحِبُّ الْمُقْسِطِينَ

'ধর্মের ব্যাপারে যারা তোমাদের বিরুদ্ধে লড়াই করেনি এবং তোমাদেরকে দেশ থেকে বহিস্কৃত করেনি, তাদের প্রতি সদাচরণ ও ইনসাফ করতে আল্লাহ তোমাদেরকে নিষেধ করেন না। নিশ্চয় আল্লাহ ইনসাফকারীদেরকে ভালবাসেন।' [সূরা মুমতাহিনা : ৮]

Allah forbids you not, with regard to those who fight you not for (your) Faith nor drive you out of your homes, from dealing kindly and justly with them: for Allah loveth those who are just.

إِنَّمَا يَنْهَاكُمُ اللَّهُ عَنِ الَّذِينَ قَاتَلُوكُمْ فِي الدِّينِ وَأَخْرَجُوكُم مِّن دِيَارِكُمْ وَظَاهَرُوا عَلَى إِخْرَاجِكُمْ أَن تَوَلَّوْهُمْ وَمَن يَتَوَلَّهُمْ فَأُوْلَئِكَ هُمُ الظَّالِمُونَ

'আল্লাহ কেবল তাদের সাথে বন্ধুত্ব করতে নিষেধ করেন, যারা ধর্মের ব্যাপারে তোমাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করেছে, তোমাদেরকে দেশ থেকে বহিস্কৃত করেছে এবং বহিস্কারকার্যে সহায়তা করেছে। যারা তাদের সাথে বন্ধুত্ব করে তারাই জালেম।' [সূরা মুমতাহিনা : ৯]

Allah only forbids you, with regard to those who fight you for (your) Faith, and drive you out of your homes, and support (others) in driving you out, from turning to them (for friendship and protection). It is such as turn to them (in these circumstances), that do wrong.

ইবনে আব্বাস রাদিআল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম মুয়ায রাদিআল্লাহু আনহুকে ইয়েমেনে পাঠানোর সময় বলেন, মাজলুমের বদ-দু‘আকে ভয় কর, কেননা তার বদ-দু‘আ ও আল্লাহর মাঝখানে কোন বাধা নেই।” [তিরমিযী : ১৯৬৩]

মানবতার লালন ও সংরক্ষণের প্রতি ইসলামের এতই সুস্পষ্ট দৃষ্টিভঙ্গি যে যুদ্ধাবস্থায়ও সে মানবাধিকারের প্রতি পুরোপুরি লক্ষ্য রাখার শিক্ষা দেয়। প্রথম খলিফা আবু বকর রাদিআল্লাহু আনহু যখন সিরিয়ায় সেনা পাঠান তখন তাদের ১০টি নির্দেশ দিয়ে দেন। সে নির্দেশ ছিল এই : ১. নারী, শিশু ও বৃদ্ধদের কেউ যেন হত্যা না করে, ২. লাশ যেন বিকৃত করা না হয়, ৩. আশ্রম, প্যাগোডা ও কতারিতে উপাসনারত সন্ন্যাসী ও তপস্বীদের কষ্ট দেয়া যাবে না। কোনো উপাসনালয় ভাঙা যাবে না, ৪. ফলবান বৃক্ষ যেন কেউ না কাটে এবং ফসলের ক্ষেত যেন পোড়ানো না হয়, ৫. জনবসতিগুলোকে (সন্ত্রাস সৃষ্টির মাধ্যমে) যেন জনশূন্য না করা হয়, ৬. পশুদের যেন হত্যা করা না হয়, ৭. প্রতিশ্রুতি ভঙ্গ করা চলবে না, ৮. যারা আনুগত্য স্বীকার করবে তাদের জানমালকে মুসলমানদের জানমালের মতো নিরাপত্তা দিতে হবে, ৯. গণিমতের সম্পত্তি যেন আত্মসাৎ করা না হয় ও ১০. যুদ্ধে যেন পৃষ্ঠ প্রদর্শন করা না হয় [মুসান্নাকে ইবনে আবি শায়বাহ : ষষ্ঠ খণ্ড, পৃ: ৪৮৭-৪৮৮]

ইসলামী রাষ্ট্রে শাসকের জন্য কারো আভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ করার ক্ষমতা কতটুকু এবং এই ক্ষেত্রে নাগরিকের অধিকার কতটুকু উমার রাদিআল্লাহু তায়ালা আনহুর একটি ঘটনা থেকে তা সহজে অনুমান করা যায়। আব্দুর রহমান ইবনু আওফ রাদিআল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত, একদা তিনি উমার রাদিআল্লাহু আনহুর সাথে মদীনার প্রজা সাধারণের খোঁজ-খবর নেয়ার জন্য বের হলেন। হাটতে হাটতে হঠাৎ একটি বাড়ির ভেতরে থাকা প্রদীপ তাদের দৃষ্টিগোচর হল। অতঃপর তারা সেদিকে যেতে লাগলেন। তারা বাড়ির নিকটবর্তী হয়ে দেখলেন দরজা আটকানো একটি ঘরের মধ্যে একদল লোক রয়েছে এবং সেখানে উচ্চস্বরে আওয়াজ হচ্ছে। তখন উমার রাদিআল্লাহু আনহু আব্দুর রহমানের হাত ধরে বললেন, তুমি কি জান এ বাড়ীটি কার? তিনি বললেন, না। উমার রাদিআল্লাহু আনহু বললেন, এ বাড়ীটি রাবী‘আহ বিন উমাইয়া ইবনে খালাফের। হয়তো তারা মদ পান করছে, তুমি কি মনে কর? আব্দুর রহমান বললেন, আমি মনে করি, আমরা আল্লাহর নিষেধকৃত পন্থায় এখানে এসেছি। আল্লাহ তাআ'লা আমাদেরকে নিষেধ করে বলছেন, ‘তোমরা গোয়েন্দাগিরি কর না” [সূরা হুজুরাত : ১২] অথচ আমরা গোয়েন্দাগিরি করছি। একথা শুনে উমার রাদিআল্লাহু আনহু তাদের ছেড়ে ফিরে আসলেন।” [মুছান্নাফ আব্দুর রাজ্জাক, হা/১৮৯৪৩; হাকেম হা/৮১৩৬]

মানবতা ও নৈতিকতার কোনো স্তরেই নিরপরাধ মানুষের প্রাণহানি ও অহেতুক রক্তপাতকে সমর্থন করা হয় না। হীনস্বার্থ চরিতার্থ করার জন্য, প্রতিশোধ গ্রহণের অসৎ উদ্দেশ্য সাধনের জন্য যারা নিরপরাধ মানুষ হত্যা করে তারা মানবতাবর্জিত ও সভ্যতার শত্রু। শান্তি, সাম্য ও মানবিক ধর্ম ইসলাম মানুষের জানমাল রক্ষা করার জন্য সব ধরনের জুলুম, অন্যায় ও রক্তপাত নিষিদ্ধ করেছে। ইসলাম নিরপরাধ মানুষ হত্যা করাকে শিরকের পর বড় অপরাধ হিসেবে সাব্যস্ত করেছে। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, “কবিরা গোনাহসমূহের মধ্যে সবচেয়ে বড় গোনাহ হলো আল্লাহর সঙ্গে কাউকে অংশীদার সাব্যস্ত করা, নিরপরাধ মানুষকে হত্যা করা, পিতা-মাতার অবাধ্য হওয়া এবং মিথ্যা কথা বলা।” [বুখারি : ৬৮৭১, মুসলিম : ৮৮]

নিরীহ মানুষকে অন্যায়ভাবে হত্যা করার চেয়ে ভয়াবহ পাপ আর সমাজে নেই। ইসলামী শরীয়তে পৃথিবীর সব মানুষ মিলে যদি একটি অন্যায় হত্যাকা- ঘটায়, তবে কিয়ামতের দিন সবাইকে জাহান্নামের আগুনে জ্বলতে হবে। নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, “যদি আসমান ও জমিনের সব অধিবাসী একজন মুসলমানকে অন্যায়ভাবে হত্যার জন্য একমত হয়, তবে আল্লাহ তাদের সবাইকে অবশ্যই জাহান্নামে নিক্ষেপ করবেন।” [মুসনাদে আহমদ]

চূড়ান্ত বিচারের দিনে অন্যায় হত্যাকান্ডের মোকদ্দমা দিয়েই বিচারকার্য শুরু হবে। “কিয়ামতের দিন মানুষের মধ্যে সর্বপ্রথম যে মোকদ্দমার ফায়সালা হবে তা হলো, রক্তপাত বা হত্যা সম্পর্কিত।” [বুখারি : ৬৩৫৭]

নিরপরাধ মানুষ হত্যাকারীকে দুনিয়াতেও মৃত্যুদণ্ড বা অর্থদণ্ডের মতো কঠোর শাস্তি ভোগ করতে হবে। মহান আল্লাহ বলেন,

وَلاَ تَقْتُلُواْ النَّفْسَ الَّتِي حَرَّمَ اللّهُ إِلاَّ بِالحَقِّ وَمَن قُتِلَ مَظْلُومًا فَقَدْ جَعَلْنَا لِوَلِيِّهِ سُلْطَانًا فَلاَ يُسْرِف فِّي الْقَتْلِ إِنَّهُ كَانَ مَنْصُورًا

'আর তোমরা সেই জীবনকে হত্যা কোরো না, যা আল্লাহ হারাম করেছেন- সংগত কারণ ছাড়া। যে অন্যায়ভাবে নিহত হয়, আমি অবশ্যই তার অভিভাবককে (মৃত্যুদণ্ড, অর্থদণ্ড বা ক্ষমার) অধিকার ও ক্ষমতা দান করেছি। সুতরাং এ ব্যাপারে সে যেন সীমা লঙ্ঘন না করে। নিশ্চয়ই সে হবে সাহায্যপ্রাপ্ত।' [সূরা বনি ইসরাইল : ৩৩]

Nor take life - which Allah has made sacred - except for just cause. And if anyone is slain wrongfully, we have given his heir authority (to demand qisas or to forgive): but let him nor exceed bounds in the matter of taking life; for he is helped (by the Law).

দুনিয়ার শাস্তি ভোগ করার পরও পরকালে অন্যায় হত্যাকারীর জন্য রয়েছে ভীষণ শাস্তি। পবিত্র কুরআনে বলা হয়েছে,

وَمَا كَانَ لِمُؤْمِنٍ أَن يَقْتُلَ مُؤْمِنًا إِلاَّ خَطَئًا وَمَن قَتَلَ مُؤْمِنًا خَطَئًا فَتَحْرِيرُ رَقَبَةٍ مُّؤْمِنَةٍ وَدِيَةٌ مُّسَلَّمَةٌ إِلَى أَهْلِهِ إِلاَّ أَن يَصَّدَّقُواْ فَإِن كَانَ مِن قَوْمٍ عَدُوٍّ لَّكُمْ وَهُوَ مْؤْمِنٌ فَتَحْرِيرُ رَقَبَةٍ مُّؤْمِنَةٍ وَإِن كَانَ مِن قَوْمٍ بَيْنَكُمْ وَبَيْنَهُمْ مِّيثَاقٌ فَدِيَةٌ مُّسَلَّمَةٌ إِلَى أَهْلِهِ وَتَحْرِيرُ رَقَبَةٍ مُّؤْمِنَةً فَمَن لَّمْ يَجِدْ فَصِيَامُ شَهْرَيْنِ مُتَتَابِعَيْنِ تَوْبَةً مِّنَ اللّهِ وَكَانَ اللّهُ عَلِيمًا حَكِيمًا

'মুসলমানের কাজ নয় যে, মুসলমানকে হত্যা করে; কিন্তু ভুলক্রমে। যে ব্যক্তি মুসলমানকে ভূলক্রমে হত্যা করে, সে একজন মুসলমান ক্রীতদাস মুক্ত করবে এবং রক্ত বিনিময় সমর্পন করবে তার স্বজনদেরকে; কিন্তু যদি তারা ক্ষমা করে দেয়। অতঃপর যদি নিহত ব্যক্তি তোমাদের শত্রু সম্প্রদায়ের অন্তর্গত হয়, তবে মুসলমান ক্রীতদাস মুক্ত করবে এবং যদি সে তোমাদের সাথে চুক্তিবদ্ধ কোন সম্প্রদায়ের অন্তর্গত হয়, তবে রক্ত বিনিময় সমর্পণ করবে তার স্বজনদেরকে এবং একজন মুসলমান ক্রীতদাস মুক্ত করবে। অতঃপর যে ব্যক্তি না পায়, সে আল্লাহর কাছ থেকে গোনাহ মাফ করানোর জন্যে উপর্যুপুরি দুই মাস রোযা রাখবে। আল্লাহ, মহাজ্ঞানী, প্রজ্ঞাময়।' [সূরা আন-নিসা : ৯২]

Never should a believer kill a believer; but (If it so happens) by mistake, (Compensation is due): If one (so) kills a believer, it is ordained that he should free a believing slave, and pay compensation to the deceased's family, unless they remit it freely. If the deceased belonged to a people at war with you, and he was a believer, the freeing of a believing slave (Is enough). If he belonged to a people with whom ye have treaty of Mutual alliance, compensation should be paid to his family, and a believing slave be freed. For those who find this beyond their means, (is prescribed) a fast for two months running: by way of repentance to Allah. for Allah hath all knowledge and all wisdom.

وَمَن يَقْتُلْ مُؤْمِنًا مُّتَعَمِّدًا فَجَزَآؤُهُ جَهَنَّمُ خَالِدًا فِيهَا وَغَضِبَ اللّهُ عَلَيْهِ وَلَعَنَهُ وَأَعَدَّ لَهُ عَذَابًا عَظِيمًا

'যে ব্যক্তি স্বেচ্ছাক্রমে মুসলমানকে হত্যা করে, তার শাস্তি জাহান্নাম, তাতেই সে চিরকাল থাকবে। আল্লাহ তার প্রতি ক্রুদ্ধ হয়েছেন, তাকে অভিসম্পাত করেছেন এবং তার জন্যে ভীষণ শাস্তি প্রস্তুত রেখেছেন।' [সূরা আন-নিসা : ৯৩]

If a man kills a believer intentionally, his recompense is Hell, to abide therein (For ever): And the wrath and the curse of Allah are upon him, and a dreadful penalty is prepared for him.

বরং এমন অত্যাচারী ব্যক্তি কিয়ামতের দিন দ্বিগুণ শাস্তির সম্মুখীন হবে। আল্লাহ তায়ালা বলেন,

وَالَّذِينَ لَا يَدْعُونَ مَعَ اللَّهِ إِلَهًا آخَرَ وَلَا يَقْتُلُونَ النَّفْسَ الَّتِي حَرَّمَ اللَّهُ إِلَّا بِالْحَقِّ وَلَا يَزْنُونَ وَمَن يَفْعَلْ ذَلِكَ يَلْقَ أَثَامًا

'(দয়াময় রহমানের বান্দা তারাই) যারা আল্লাহর সঙ্গে অন্য উপাস্যের ইবাদাত করে না, আল্লাহ যার হত্যা অবৈধ করেছেন, সংগত কারণ ছাড়া তাকে হত্যা করে না এবং ব্যভিচারে লিপ্ত হয় না। যারা এ কাজ করে, তারা শাস্তির সম্মুখীন হবে।' [সূরা আল-ফুরকান : ৬৮]

Those who invoke not, with Allah, any other god, nor slay such life as Allah has made sacred except for just cause, nor commit fornication; - and any that does this (not only) meets punishment.

يُضَاعَفْ لَهُ الْعَذَابُ يَوْمَ الْقِيَامَةِ وَيَخْلُدْ فِيهِ مُهَانًا

'কিয়ামাতের দিন তাদের শাস্তি দ্বিগুণ হবে এবং তথায় লাঞ্ছিত অবস্থায় চিরকাল বসবাস করবে।' [সূরা আল-ফুরকান : ৬৯]

(But) the Penalty on the Day of Judgment will be doubled to him, and he will dwell therein in ignominy,-

রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, “হত্যাকৃত ব্যক্তি কিয়ামতের দিবসে হত্যাকারীর মাথার অগ্রভাগ নিজ হাতে ধরে এমনভাবে নিয়ে আসবে যে হত্যাকারীর গলার রগসমূহ থেকে রক্ত প্রবাহিত হতে থাকবে। তখন হত্যাকৃত ব্যক্তি এ কথা বলতে বলতে হত্যাকারীকে আরশের কাছে নিয়ে আসবে ‘হে প্রভু! সে আমাকে হত্যা করেছে।” [মুসনাদে আহমদ : ২৫৫১, তিরমিজি : ২৯৫৫]

কাউকে উপহাস করা উচিত নয়:
কাউকে উপহাস করা যাবে না। অনর্থক কথা বলার ফলে প্রায়শই উপহাসের বিষয়গুলো নিজের জ্ঞাতে কিংবা অজ্ঞাতে কথায় কথায় প্রকাশ হয়ে পড়ে। এই কারণে প্রয়োজনাতিরিক্ত কথাও অনর্থক কথার অন্তুর্ভুক্ত। সাধারণ কথা থেকে টেনে শয়তান গোনাহের দিকে কখন যে নিয়ে যাবে তা টেরও পাওয়া যাবে না। সিধেসাদা ও সরল প্রকৃতির কিছু মানুষ সকল কালে সকল সমাজেই থেকে থাকে। এদেরকে নিয়ে কিছু মানুষ হাসি-তামাশা করে থাকেন, বিষয়টা এমন যে, এই সরল সোজা মানুষেরাই যেন একটা কৌতুক এবং হাসি তামাশার বিষয়বস্তু। কিন্তু কথা হল, সে কৌতুক যদি এই পরিমাণে সীমাবদ্ধ হয় যাতে সে খুশি থাকে তাহলে তা আপত্তিকর নয়। পক্ষান্তরে এই হাসি তামাশা ও কৌতুক যদি তাকে অতিষ্ট করে তোলার কারণ হয়ে দাঁড়ায়, সে যদি বিব্রতবোধ করে, লজ্জিত হয়, বিরক্তবোধ করে, যা তার অন্তরে কষ্ট দেয়, তার খারাপ লাগে, তাহলে এমতাবস্থায় উক্ত কৌতুক ও রহস্য অনেক বড় গোনাহের কারণ হবে। এই জাতীয় ঠাট্টা মশকরা নিসন্দেহে নিন্দনীয় এবং বর্জনীয়।

কারণ, এটা বান্দার হক্বের সাথে সম্পৃক্ত। পূর্বোক্ত আয়াতে কারিমায় আল্লাহ তাআ'লা মুআশারাতের দিকনির্দেশনামূলক বেশ কয়েকটি নির্দেশনা দিয়েছেন। তিনি ইরশাদ ফরমান,

لا يسخر قوم من قوم

'কেউ যেন কারো উপহাস না করে।'

عسى ان يكونوا خيرا منهم

'হতে পারে যাদেরকে উপহাস ও তাচ্ছিল্য করা হচ্ছে তারা (আল্লাহর নিকট) তোমাদের থেকে উত্তম।'

এরপর আল্লাহ তাআ'লা বলেন, ولا نساء من نساء 'অনুরূপ কোনো মহিলা অপর মহিলাকে তাচ্ছিল্য করবে না।' عسى ان يكن خيرا منهن 'হতে পারে তাচ্ছিল্যকৃত মহিলা তোমাদের চেয়ে আল্লাহর নিকট উত্তম।'

কুরআনুল কারীমের এই আয়াতে আল্লাহ তাআ'লা সুস্পষ্টভাবে কাউকে নিয়ে উপহাস করতে শক্তভাবে নিষেধ করেছেন।

এই আয়াতে মহিলাদেরকে বিশেষভাবে দ্বিতীয়বার উল্লেখ করা হয়েছে, যদিও আয়াতের প্রথম অংশের দ্বারাই মহিলা-পুরুষ সকলে অন্তর্ভুক্ত হয়ে গিয়েছে। তারপরও মহিলাদের ব্যাপারটা বিশেষভাবে উল্লেখ করার কারণ আল্লাহ তাআ'লাই সম্যক অবগত।

তবে এর দুটি হিকমত বোঝা যায়। যেমন-

১. সাধারণত মহিলাদের মধ্যে এ অভ্যাসটি বেশি পরিলক্ষিত হয়,তাই তাদেরকে বিশেষভাবে সতর্ক করা হয়েছে।

২. যেহেতু পুরুষদের মজলিস ভিন্ন হবে এবং মহিলাদের মজলিস ভিন্ন হবে, তাই পৃথক পৃথক উল্লেখ করে বোঝানো হয়েছে যে পুরুষ-মহিলার মজলিস ও চলাফেরা ভিন্ন ভিন্ন হওয়া উচিত। আজকাল যেরূপ নারী-পুরুষের যে অবাধ মেলামেশা এ আয়াতে ইঙ্গিতে তা নিষেধ করা হয়েছে।

কাউকে ঠাট্টা ও উপহাস করা কবীরা গোনাহ:
উক্ত আয়াতে কাউকে উপহাস করাকে সুস্পষ্ট গোনাহ সাব্যস্ত করা হয়েছে। বিশেষভাবে এ কথাও বোঝানো হয়েছে যে, তোমরা অন্যকে যে তাচ্ছিল্য করছো, এর দ্বারা তোমরা নিজেকে বড় ও উত্তম ভেবেই অপরকে তাচ্ছিল্য করছো। এ তো চরম অহংকার যে নিজেকে উত্তম ভেবে অপরকে তুচ্ছ ভাবা হচ্ছে।

তবে স্মরণ রেখো, আল্লাহ তাআ'লা বলছেন, 'ওই সহজ-সরল সিধেসাদা যে ব্যক্তিকে তুমি তাচ্ছিল্য করছো, সে আল্লাহ তা’আলার নিকট কতটুকু মর্যাদাশীল, তা তুমি জানো না। সুতরাং, কারো শুধু চেহারা দেখেই তুমি তো বলতে পারো না যে, আল্লাহ তা’আলার সাথে তার সম্পর্ক কতটুকু গভীর।'

প্রত্যেক বান্দার সঙ্গেই আল্লাহ তা’আলার বিশেষ একটি সম্পর্ক থাকে, এর মাঝে অনুপ্রবেশ করার কি অধিকার তোমার? তুমি কি জানো, সে আল্লাহর সাথে কী সম্পর্ক গড়ে নিয়েছে? তোমার কি জানা আছে, সে আল্লাহর কত প্রিয়? কারো শুধু বাহ্যিক অবয়ব দেখেই কোনো মন্তব্য করা যাবে না। কেননা, মানুষ জানে না কার সাথে আল্লাহর সাথে আন্তরিকভাবে কতটুকু গভীর সম্পর্ক।

কাউকে জাহান্নামী বলা জায়েয নেই:
কিছু লোককে দেখা যায়, কথায় কথায় তারা অপরকে জাহান্নামী বলে বসে। কারো ব্যাপারে কোনো দোষ দৃষ্টিগোচর হলেই বলে দেয় যে, সে তো জাহান্নামী, তার অমুক অমুক দোষ। নাউযুবিল্লাহ! আস্তাগফিরুল্লাহ! তারা ঠিক জানেও না যে, কথাগুলো কতটা মারাত্মক! জান্নাত-জাহান্নামের ফয়সালা দেয়ার ক্ষমতা তো একমাত্র আল্লাহ তা’আলার হাতে। তো সে এই ফয়সালা দেয়ার অধিকার কোত্থেকে পেল? তাকে এতবড় দু:সাহস কে দিল? হতে পারে, 'জাহান্নামি আখ্যায়িত ব্যক্তি' তাওবা করে জান্নাতি হয়ে যাবেন। সুতরাং, কাউকে এ ধরনের কথা কোনো অবস্থায়ই বলা উচিত নয়।

ব্যক্তির অন্তরের অবস্থা আল্লাহ তা’আলাই ভালো জানেন। বাহ্যিকভাবে কাউকে খারাপ, বদকার, ফাসেক মনে হলেও হযরত হাকীমুল উম্মত থানভী (রহ.)-এর পরামর্শ হলো, তার ব্যাপারে এই চিন্তা করবে যে, হতে পারে আল্লাহ তা’আলা তার ভেতরে এমন কোনো ভালো গুণ রেখেছেন, যার বদৌলতে তার সাথে আল্লাহর সাথে এমন মজবুত সম্পর্ক হয় যার উসিলায় তোমার চেয়ে মর্যাদায় সে আগে বেড়ে যাবে। আজ যদিও মন্দ মনে হচ্ছে, কাল হয়তো আল্লাহর রহমতে এমন পরিবর্তন হবে যে সবাইকে পেছনে ফেলে দেবে।

কাউকে দেখে নিজেকে বড় মনে করা, তার থেকে নিজেকে উত্তম মনে করা এবং ওই ব্যক্তিকে ছোট মনে করাকেই তাকাব্বুর বা অহংকার বলা হয়। অহংকার মারাত্মক ক্ষতিকর একটি জিনিস।

আল্লাহ তা’আলা দয়া করে সকল মুমিনকে তা থেকে হেফাজত করুন।

গোনাহগার অপরাধীকে তাচ্ছিল্য করাও হারাম:

এ জন্য আল্লাহ তা’আলার উক্ত ইরশাদ ব্যাপকভাবে সকলের ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য –

عسى ان يكون خيرا منهم

“হতে পারে ওই সব লোক তাদের থেকে উত্তম।” বাক্যটি ব্যাপক,মুত্তাকী পরহেযগার, গোনাহগার সকলেই অন্তর্ভুক্ত। অনুরূপ- يا يسخر قوم من قوم বাক্যটিও ব্যাপক অর্থবোধক।

কেউ কারো উপহাস যেন না করে চাই উপহাসকারী যত বড় মুত্তাকী-পরহেযগারই হোক এবং উপহাসকৃত ব্যক্তি যত বড় ফাসেক ও গোনাহগারই হোক না কেন।

হ্যাঁ,এটা জায়েয আছে যে অমুক ব্যক্তির এ কাজটি গোনাহের কাজ এবং তা থেকে আল্লাহর কাছে পানাহ চাইবে। কিন্তু গোনাহের কারণে গোনাহগার ব্যক্তিকে তাচ্ছিল্য ও অপমান করা বৈধ নয়।

কথাটি এভাবে বুঝতে পারো গোনাহগারকে মূলত অসুস্থ মনে করো। কেউ যদি কোনো মারাত্মক রোগে আক্রান্ত হয় তাহলে তার ওপর দয়ার আচরণ করা হয়। তার সাথে রাগ করা যাবে না,তাচ্ছিল্য ও অপমান করা যাবে না।

তো গোনাহগার বেচারাও একজন গোনাহের রোগী। কে বলতে পারে,হয়তো আল্লাহর নিকট তার কোনো কাজ পছন্দনীয় হয়ে আছে,যার বদৌলতে তাকে মর্যাদাবান করে দেবেন।

এ জন্য কখনো কাউকে তাচ্ছিল্য ও উপহাস করা যাবে না। তুমি বাহ্যিকভাবে যত বড় মুত্তাকী-পরহেযগারই হও, কিন্তু হতে পারে তোমার চেয়ে ওই উপহাসকৃত ব্যক্তিই আল্লাহর নিকট অনেক মর্যাদাবান।

ইঙ্গিতেও কাউকে উপহাস করা বৈধ নয় :
কাউকে ইশারা-ইঙ্গিতে উপহাস করাও এর অন্তর্ভুক্ত। কারো কথাবার্তা,চালচলন বা গঠন-প্রকৃতি নিয়ে টিকা-টিপ্পনী মারা ও হাসাহাসি করা,যার কারণে সে কষ্ট পায়,তাও হারাম।

এক হাদীসে এসেছে,একদা উম্মুল মুমিনীন হযরত আয়েশা সিদ্দীকা (রা.) রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর জনৈকা স্ত্রীর ব্যাপারে আলোচনা প্রসঙ্গে ঈঙ্গিতে তাঁর গঠন বেঁটে হওয়ার কথা বললেন,শুধুমাত্র হাতের ইশারায় তা বলেছিলেন। কিন্তু রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাঁকে বললেন,আয়েশা! তুমি মারাত্মক ভুল করেছ। হযরত আয়েশা (রা.)-কে কঠোরভাবে নিষেধ করলেন যেন কখনো কারো কোনো বিষয় নিয়ে তাচ্ছিল্য না করা হয়। যেরূপ সামনাসামনি কারো কোনো বিষয় নিয়ে এমন কথা বলা,যাতে ওই লোক কষ্ট পায়,তা তো মারাত্মক গোনাহ। সাথে সাথে উক্ত ঠাট্টা ও উপহাস যদি তার সামনে না করে তার অনুপস্থিতিতে করা হয় তাহলে তাতে দ্বিগুণ গোনাহ। উপহাস করার গোনাহ এবং গীবত করার গোনাহ।

হাসি-রহস্য ও উপহাসের মাঝে বিস্তর পার্থক্য:
কখনো কখনো বন্ধুদের মজলিসে পরস্পর হাসি-মশকরা হয়ে থাকে,যাতে এ কথা নিশ্চিত হয় যে এর দ্বারা কোনো সাথী মনে কষ্ট পায় না এবং ওই সব কথায় কেউ অপমান বোধ না করা নিশ্চিত হয় তাহলে তা বৈধ।

কিন্তু যদি এই সম্ভাবনা থাকে যে এর দ্বারা কারো মনে কষ্ট আসতে পারে কিংবা কেউ অপমান বোধ করবে তাহলে এ ধরনের হাসি-তামাশা কখনো বৈধ হবে না।

কারো উপহাস করার ভয়ংকর পরিণতি:
একটি হাদীসে এসেছে,যারা অন্য কারো উপহাস করে,তারা তো এই উপহাস করে বসেই থাকে,কিন্তু তাদের পরিণাম খুবই ভয়াবহ। আখিরাতে তাদের সাথেও এ ধরনের উপহাস করা হবে। জান্নাতের দরজা খুলে তাদেরকে জান্নাতের দিকে ডাকা হবে,কিন্তু তারা যখন এগিয়ে এসে দরজা দিয়ে ঢুকতে যাবে,অমনিই দরজা বন্ধ করে দেওয়া হবে এবং তারা ফিরে যাবে। এরপর পুণরায় দরজা খুলে তাদেরকে ডাকা হবে,আবার যেইমাত্র তারা এগিয়ে এসে ঢুকতে যাবে তখনই দরজা পুনরায় বন্ধ করে দেওয়া হবে। এভাবেই তার সাথে বারবার উপহাস করতে থাকবে। একপর্যায়ে সে নিরাশ হয়ে আর জান্নাতের দিকে যাবে না। এই শাস্তি এই জন্যই যে তুমি দুনিয়ায় তোমার কথাবার্তায় কাউকে উপহাস করে কষ্ট দিয়েছিলে এখন দেখো এর মজা কী রূপ।

এ জন্যই সাবধান হওয়া উচিত,যেকোনো কথা বলার আগে মেপেজুখেচিন্তাভাবনা করেই তবে বলতে হবে।

রহস্য ও কৌতুকের সীমারেখা:
কেউ কেউ মানুষের উপহাস করাকে সাধারণ রহস্য ও কৌতুকের অন্তর্ভুক্ত মনে করে থাকে। অথচ উভয়ের মাঝে বিস্তর ব্যবধান।

হাসি-রহস্য হচ্ছে ওই সব কথাবার্তা,যার দ্বারা সকলের মনে প্রফুল্লতা আসে।

হযরত রাসূলে করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম থেকেও তা প্রমাণিত। তবে শর্ত হলো, এ ক্ষেত্রে কোনো মিথ্যা ও অসারতার আশ্রয় নেওয়া যাবে না, কাউকে অপমান করা যাবে না। তাহলে তা বৈধ।

একটি হাদীসে এসেছে, জনৈকা বৃদ্ধা মহিলাকে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, কোনো বৃদ্ধা জান্নাতে যাবে না। এতদশ্রবণে বৃদ্ধা মহিলা কান্না আরম্ভ করল। তখন রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সান্ত্বনা দিয়ে বললেন, আসল কথা হলো বৃদ্ধ অবস্থায় কেউই জান্নাতে যাবে না। অর্থাৎ জান্নাতে প্রবেশের সময় আল্লাহ তা’আলা সকলকে যৌবন অবস্থা ফিরিয়ে দেবেন।

তো রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ওই বৃদ্ধার সাথে রহস্য করতে গিয়ে কথাটি একটু ঘুরিয়ে বলেছেন,যা বৃদ্ধা বুঝতে পারেনি। তবে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম -এর কথায় অসত্যের মিশ্রণ হয়নি এবং ওই বৃদ্ধার মনে কষ্ট বা সম্ভ্রমহানিও হয়নি।

অনুরূপ একটি হাদীসে এসেছে, জনৈক ব্যক্তি রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম -এর কাছে এসে বললেন, তোমাকে আমি একটি উটের বাচ্চা দেব তখন লোকটি বলল, হুজুর! আমি তো বাহনের উট চেয়েছি, বাচ্চা দিয়ে কী কাজ হবে? রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, বাহনের উপযুক্ত বড় উটটিও তো কোনো একটি উটনীর বাচ্চা হবে।

সামান্য সময়ের জন্য রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম লোকটির সাথে রহস্য করলেন। কিন্তু এতে কোনো অসত্যের আশ্রয় নেওয়া হয়নি এবং কাউকে কষ্টও দেওয়া হয়নি। এসব অবশ্যই বৈধ।

তবে এমন বৈধ কৌতুকও মাঝেমধ্যে হয়ে গেলে মন্দ নয়, কিন্তু নিয়মিত এতে লিপ্ত হয়ে যাওয়াও কাম্য নয়। মাঝেমধ্যে হলে ভালো।

তবে অবশ্যই ধর্তব্য যে এসব কৌতুক রহস্যের মধ্য দিয়ে কোনো মিথ্যার প্রচার যেন না হয়, কারো প্রতি দোষারোপ বা গীবত না হয়। সর্বোপরি কেউ যেন কষ্ট না পায়। অন্যথায় তা মারাত্মক গোনাহ হিসেবে বিবেচিত হবে।

সারকথা হলো, সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত আমাদের উঠাবসা, চলাফেরা ও কথাবার্তা লাগাতার চলতে থাকে। মুখ দিয়ে কী বের হচ্ছে এর প্রতি কোন ভ্রুক্ষেপ নেই, এতে কি কারো মনে কষ্ট দেওয়া হয়ে যাচ্ছে কি না, তারও খবর নেই। কী হবে এর পরিণতি।

পরিণতি সম্বন্ধে বেখবর হওয়া কখনো উচিত নয়। দুনিয়ার কাজকারবারে লিপ্ত হয়ে আখিরাতকে ভুলে যাওয়া অত্যন্ত বোকামি।

এ কথা স্মরণ রাখা উচিত, দুনিয়া থেকে আমার চলে যেতে হবে, আল্লাহর সামনে অবশ্যই দাঁড়াতে হবে। প্রতিটি কাজ ও কথার জন্য আমার জবাবদিহি করতে হবে।

অসতর্কতা ও গাফিলতিতে আমার থেকে যেন এমন কোনো কথা ও কাজ প্রকাশ না পায়,যার ফলে আখিরাতে আমার পরিণতি খারাপ হয়। এ জন্য সর্বদা অন্তরে আল্লাহ তা’আলাকে স্মরণ রাখবে। আল্লাহর নিয়ামতসমূহের শুকরিয়া জ্ঞাপন করবে।

শেষের কথা:
কথা ও কাজে সর্বদা সতর্কতার সাথে লক্ষ্য রেখে চলতে হবে। সকল ক্ষুদ্রতা পরিহারে আল্লাহ তাআ'লার নিকট তাওফিকপ্রার্থনা করতে হবে। আল্লাহ তাআ'লার সন্তুষ্টিপ্রাপ্ত বান্দা- আম্বিয়ায়ে কেরাম, সাহাবায়ে কেরাম এবং নেককার ওলী আউলিয়াগনের জীবনাচরণ অধ্যায়ন করতে হবে। এটি আখিরাতের ফিকির এবং আল্লাহ তাআ'লার স্মরণ লাভের অন্যতম মাধ্যম। আর আল্লাহ তাআ'লার স্মরণ যার অন্তরে সদা বিদ্যমান, সকল মানুষকে সৃষ্টির শ্রেষ্ঠ জীব হিসেবে, পৃথিবীতে আল্লাহ তাঅা'লার প্রিয় প্রতিনিধি হিসেবে সম্মান এবং মর্যাদার চোখে দেখা তার পক্ষেই সম্ভব। আল্লাহ তাআ'লা নিজ দয়ায় আমাদের সকলকে এসবের তাওফিক দান করুন।

এর বিপরীতে কাউকে অবজ্ঞা ও উপহাস করার পরিণতি অনুধাবন করে সেই মোতাবেক জীবন যাপন করার তাওফিক দান করুন। আর যেহেতু মানবসমাজে কোনো রকম অশান্তি সৃষ্টি, নৈরাজ্য, বিশৃঙ্খলা, হানাহানি, উগ্রতা, বর্বরতা, সহিংসতা ও হত্যাকাণ্ড কোনো বিবেকবান ও ধর্মপ্রাণ মানুষের কাম্য নয় সেহেতু আল্লাহ তাআ'লা দয়াপূর্বক আমাদের সকলকে এসব গর্হিত কাজ থেকে বিরত থেকে তাঁর প্রিয় বান্দা হওয়ারও তাওফিক দান করুন।

কেন এই পোস্ট:
দীর্ঘ পোস্ট পাঠের জন্য অনেক অনেক ধন্যবাদ। এই পোস্টটি আমার অত্যন্ত প্রিয় মানুষ, সুলেখক ভুয়া মফিজ ভাইকে নিবেদন করছি। তার একটি মন্তব্যকে কেন্দ্র করে এই পোস্টের চিন্তা মাথায় আসে। তার জন্য অভিনন্দন এবং শুভকামনা।

ছবি: অন্তর্জাল।

মন্তব্য ২৩ টি রেটিং +৫/-০

মন্তব্য (২৩) মন্তব্য লিখুন

১| ৩০ শে জুলাই, ২০১৯ সকাল ১১:১৬

বিষন্ন পথিক বলেছেন: সঠিক ইসলাম চর্চার গাইডলাইন আপনার পোষ্ট থেকে কিছুটা পাওয়া যায়, অবশ্যই আল্লাহপাক আপনাকে উত্তম প্রতিদান দেবেন। শুভকামনা জানবেন

৩০ শে জুলাই, ২০১৯ দুপুর ২:৫৭

নতুন নকিব বলেছেন:



প্রথম মন্তব্যে আপনাকে স্বাগত।

সঠিক ইসলাম চর্চার দিকেই আমাদের এগিয়ে আসতে হবে। এই কঠিন সময়ে আল্লাহ পাক আমাদের সেই তাওফিক দান করুন। আপনার সুন্দর মন্তব্য মন ছুঁয়ে গেল। প্রেরণা রেখে যাওয়ায় কৃতজ্ঞতা এবং অশেষ শুভকামনা আপনার জন্য। আপনার পরিবার পরিজন সকলের জন্য। আবারও সাক্ষাতের প্রত্যাশা অন্য কোনো পোস্টে অন্য কোনো সময়।

অনেক ভালো থাকুন।

২| ৩০ শে জুলাই, ২০১৯ দুপুর ১২:৪৫

মা.হাসান বলেছেন: সুন্দর পোস্টটি দেয়ার জন্য অনেক ধন্যবাদ। জাজাকাল্লাহ খায়ের।
অহংকার আল্লাহ জাল্লাশানহুর চাদর। সমস্যা তখন দেখা দেয় যখন মানুষ ঐ চাদর ধরে টানাটানি করে। অহংকার না থাকলে অন্যকে তুচ্ছ করার ইচ্ছাও থাকার কথা না।
মফিজ ভাই আমারো প্রিয় লেখক। আল্লাহ ওনাকে হায়াতুন তইয়্যেবা দান করুন। আমিন।
ওনার অনেক কমেন্টই অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ। আমার কাছে বিশেষ ভালো লাগে নিচের কমেন্টটা

(বিতর্ক চাইনা, যার বিষয়ে উনি এই কমেন্ট করেছে, তার বিষয়ে আমার ধারনা অনেক আগে পরিস্কার করেছি)।

৩০ শে জুলাই, ২০১৯ বিকাল ৩:০৮

নতুন নকিব বলেছেন:



বরাবরই আপনার বুদ্ধিদীপ্ত মন্তব্যগুলো সময় সুযোগ পেলে মনযোগ দিয়ে দেখি। এই পোস্টে আপনার আগমন এবং এমন সুন্দর একটি মন্তব্য রেখে যাওয়ায় অনেক অনেক কৃতজ্ঞতা। জাজাকুমুল্লাহ আহসানাল জাজা।

ধৈর্য্য, সহনশীলতা এবং পরমত সহিষ্ণুতা জীবনের সবচেয়ে বড় একটা ব্যাপার। এই গুনগুলোর অভাবে আমরা অনেক অনেক পিছিয়ে। এর বিপরীতে যা রয়েছে তা হচ্ছে, হঠকারিতা, উগ্রতা, অস্থিরতা, অহংকার- এগুলো জাতি হিসেবে আমাদের অগ্রগতিকে থামিয়ে দিচ্ছে। আমাদের পেছনে টানছে। মফিজ ভাইয়ের চিন্তাশীল এবং দারুন কৌশলী লেখাগুলো পড়ে অনেক সময় তার বুদ্ধির দৌড় দেখে বিস্মিত হই। আপনার উদ্ধৃত তার এই মন্তব্যটি নিসন্দেহে তার সহনশীলতা এবং পরমতসহিষ্ণুতার প্রমান। এই বৈশিষ্ট্য আমাদের সকলের ভেতরেই থাকা উচিত।

অনেক ভালো থাকবেন, প্রত্যাশা নিরন্তর।

৩| ৩০ শে জুলাই, ২০১৯ দুপুর ১:৪৪

ভুয়া মফিজ বলেছেন: আমি খুবই স্ট্রেইট ফরোয়ার্ড একজন মানুষ। সরাসরি কথা বলতে চেষ্টা করি, ঝামেলার গন্ধ পেলে অনেক সময় একেবারেই এড়িয়ে যাই। আপনার কাছে একটি বিষয় জানতে চেয়েছিলাম সরাসরি। আপনি সরাসরি উত্তর না দিলেও এতো বিষদভাবে দিয়েছেন যে, যা জানতে চেয়েছিলাম, তার চেয়ে বেশী জানা হয়ে গিয়েছে। আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। :)

যেমন, কয়েকদিন ধরে 'অনুমান মিথ্যাবাদীর লক্ষণ' এমন একটা হাদিসের রেফারেন্স খুজছিলাম, আজ পেয়ে গেলাম। দরকারী পোষ্ট......তাই প্রিয়তে নিয়ে রাখলাম।

যাইহোক, শেষে এসে থমকালাম; কি বলবো বুঝতে পারছি না। তবে, আমি সুলেখক জেনে একটু শরম পেয়েছি। এ'ব্যাপারে অবশ্য আমার ধারনা অত্যন্ত নিম্নমানের। :P

আপনাকেও আমি খুব পছন্দ করি। সহজ-সরল, সাদাসিদা এবং নির্ঝঞ্ঝাট একজন মানুষ আপনি। অপছন্দ করার কোন কারনই নাই। ভালো থাকবেন।

৩০ শে জুলাই, ২০১৯ বিকাল ৩:২৮

নতুন নকিব বলেছেন:



আপনাকে তো কখনো দেখিনি। কখনো দেখা হবে কি না, তা-ও জানা নেই। না দেখলেও আপনাকে দূর থেকে অনুভব করতে পারি। বাহ্যিক দুই চোখের বাইরে আল্লাহ পাক আমাদের প্রত্যেককেই যে আরও একটি দেখার ক্ষমতা দিয়েছেন, সেই চাহনি তো কোনো সীমা-পরিসীমা মানে না। সেই চাহনির তো কোনো কিছু দেখতে বারণও নেই। সেই নয়নে অপলক আপনাকে দেখে নিই ঠিকই। অনুভবে মনে হয়, আপনি দূরে নন, কাছেই রয়েছি আমরা। ভালো কোনো কাজ, তা পৃথিবীর যে প্রান্তেই সংঘটিত হোক, ভালো মানুষ তা তিনি/ তারা যেখানেই থাকুন না কেন, মনে হয় আমিও সাথে আছি এসবের, সকলের। যাক, আলহামদুলিল্লাহ, শুকরিয়া, আপনি সুন্দর মনের একজন মানুষ।

আপনার জানার জন্য এই পোস্ট সামান্য সহায়ক হয়েছে জেনে আনন্দিতবোধ করছি। আল্লাহ তাআ'লা তাওফিক না দিলে এই পোস্ট উপস্থাপনের ক্ষমতা আমার আদৌ ছিল না। তাঁর নিকটেই সকল কৃতজ্ঞতা।

আমি যে লিখেছি, চিন্তা করেই লিখেছি, আপনি সত্যিই সুলেখক। আপনার লেখার কৌশলগুলো মুগ্ধতা আনে। পোস্ট প্রিয়তে নেয়ায় খুশি হলাম।

পরিশেষে, আমার মত নিতান্ত অযোগ্যের প্রতি আপনার অনি:শেষ আন্তরিকতার জন্য আবারও কৃতজ্ঞতাসহ ধন্যবাদ। নিরন্তর ভালো থাকার দুআ।

৪| ৩০ শে জুলাই, ২০১৯ দুপুর ১:৫৬

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: সুন্দর পোস্ট। তথ্য বহুল । মানুষকে নিয়ে হাসি ঠাট্টা করা স্রষ্টার কাছেও গর্হিত কাজ ।

৩০ শে জুলাই, ২০১৯ বিকাল ৩:৩২

নতুন নকিব বলেছেন:



ঠিক বলেছেন প্রিয় কবি। মহান আল্লাহ তাআ'লার নিকট মানুষকে হেয়প্রতিপন্ন করা, কাউকে নিয়ে হাসি ঠাট্টা করা নিতান্ত গর্হিত কাজ। এগুলো থেকে আল্লাহ পাক আমাদের বিরত থাকার তাওফিক দিন।

আপনার নিকট এই পোস্টটি সুন্দর লেগেছে জেনে আনন্দিত। কৃতজ্ঞতা এবং শুভকামনা সবসময়।

৫| ৩০ শে জুলাই, ২০১৯ দুপুর ২:০০

জুন বলেছেন: এই জীবনে কাউকে অবজ্ঞা বা উপহাস করি নি । এটা আমার রুচি বিরুদ্ধ । প্রয়োজনে এড়িয়ে যাই কারন ঝগড়া ঝাটিও আমি দারুন অপছন্দ করি নতুন নকিব ।

৩০ শে জুলাই, ২০১৯ বিকাল ৩:৩৯

নতুন নকিব বলেছেন:



অসংখ্য ধন্যবাদ আপনাকে। এটা তো বিশাল ব্যাপার। কুরআন হাদিসে বর্ণিত এই অতিব গুরুত্ববহ বিষয়াবলীর আপনি যেন একজন বাস্তব প্রতিচ্ছবি। আল্লাহ পাক আপনার প্রতি তাঁর দয়া এবং আশীষকে অবারিত করুন।

এই জীবনে কাউকে অবজ্ঞা বা উপহাস করি নি। বুকে হাত দিয়ে এই কথাটি ক'জন বলতে পারে? সমাজে চলমান বিবাদ বিসংবাদের সিংহভাগ সংঘটনের পেছনে এই অবজ্ঞা, উপহাসসহ ইত্যাকার ক্ষতিকর বিষয়ের ভূমিকাও বোধ করি কম নয়।

মন্তব্যে আসায় অভিনন্দন। শুভকামনা জানবেন সবসময়।

৬| ৩০ শে জুলাই, ২০১৯ বিকাল ৪:৪৫

নজসু বলেছেন:




আস সালামু আলাইকুম।

আপনার পোষ্টগুলো তাৎক্ষণিক পাঠ করা হয় না।
আমি সময় করে খুবই গুরুত্ব সহকারে পড়ি।
কারণ, আপনার পোষ্টে আমার জন্য আছে অনেক মূল্যবান রত্ন।
শিখি। শিখতে থাকি।

ভালো থাকবেন। দোয়া করবেন।

৩১ শে জুলাই, ২০১৯ সকাল ৮:৪৮

নতুন নকিব বলেছেন:



ওয়া আলাইকুমুস সালামু ওয়া রহমাতুল্লাহ।

জ্বি, আপনি ঠিক বলেছেন। আমার অধিকাংশ পোস্টই দীর্ঘকায় হওয়ায় সময় নিয়েই দেখতে হয়। আপনি এই অধমের পোস্ট খুবই গুরুত্ব সহকারে পড়েন জেনে বিশেষ কৃতজ্ঞতা। আমার টুকটাক অগোছালো লেখা আপনাদের মত অনুসন্ধানী বিজ্ঞজনদের সামান্য কাজে আসে জেনে লেখার প্রেরণা পাই। সবসময়ই আপনাকে পাশে পেয়ে আসছি। এটা নিসন্দেহে আনন্দিত হওয়ার কারণ।

মূল্যবান মন্তব্যে অভিবাদন। ভালো থাকবেন আপনিও। অবারিত কল্যানের দুআ সবসময়।

৭| ৩০ শে জুলাই, ২০১৯ বিকাল ৫:১৪

রাজীব নুর বলেছেন: সবাই যদি ইসলামের নিয়ম মেনে চলতো- তাহলে আমাদের দেশটা অনেক আনন্দময় হতো<

৩১ শে জুলাই, ২০১৯ সকাল ৮:৫১

নতুন নকিব বলেছেন:



জ্বি, আপনি মূল্যবান কথা বলেছেন। ইসলামের দিকনির্দেশনা মেনে চললে সামাজিক সমস্যাগুলো এমনিতেই শুন্যের কোটায় চলে আসতো। কিন্তু আমরা ক'জন মেনে চলি! কতটুকুই বা গ্রহন করি!

অভিনন্দন এবং শুভকামনা।

৮| ৩১ শে জুলাই, ২০১৯ ভোর ৬:৪২

হাসান কালবৈশাখী বলেছেন:
ধর্মে অনেক ভাল ভাল এবং মংগলময় দিক আছে।
সবাই যদি মেনে চলত, পৃথিবীটা অনেক সুন্দর হতো।
ধন্যবাদ।

৩১ শে জুলাই, ২০১৯ সকাল ৮:৫৩

নতুন নকিব বলেছেন:



সেটাই। আপনি সুন্দর বলেছেন। ধর্মের ভালো দিকনির্দেশনাগুলো আমাদের মেনে চলা উচিত। পৃথিবীকে সুন্দর একটি আবাস হিসেবে গড়ে তুলতে এছাড়া আর বিকল্প কিছু নেই। আল্লাহ পাক আমাদের সেই তাওফিক দিন।

৯| ৩১ শে জুলাই, ২০১৯ সকাল ৯:১৩

রাজীব নুর বলেছেন: লেখক বলেছেন:
জ্বি, আপনি মূল্যবান কথা বলেছেন। ইসলামের দিকনির্দেশনা মেনে চললে সামাজিক সমস্যাগুলো এমনিতেই শুন্যের কোটায় চলে আসতো। কিন্তু আমরা ক'জন মেনে চলি! কতটুকুই বা গ্রহন করি!
অভিনন্দন এবং শুভকামনা।

ইসলামের নিয়ম মেনে চলতে হবে। সরকার প্রয়োজনে কঠোর হলেই সম্ভব।

১৫ ই আগস্ট, ২০১৯ সকাল ১০:০৯

নতুন নকিব বলেছেন:



পুনরায় মন্তব্যে আসায় অনেক কৃতজ্ঞতা।

শুভকামনাসহ।

১০| ১৩ ই আগস্ট, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:৩৮

মাহমুদুর রহমান জাওয়াদ বলেছেন: এটা আমি অনেক আগেই পড়েছি কিন্তু মন্তব্য করার সুযোগ পাই নি।
ধন্যবাদ এমন সুন্দর একটি লেখা পোষ্ট করার জন্য।

১৫ ই আগস্ট, ২০১৯ সকাল ১১:৩৫

নতুন নকিব বলেছেন:



আমার কোনো পোস্টে এটাই বোধ হয় আপনার এই আইডি দিয়ে প্রথম মন্তব্য। আন্তরিক অভিনন্দন।

সাম্প্রতিক সময়ে আপনার সাথে ব্লগে ঘটে যাওয়া কিছু বিষয় নজরে এসেছিল আমারও। কিছু কথা বলার ইচ্ছেও ছিল তখন। কিন্তু সুযোগ পাইনি বলে দু:খিত। আজ না বলা সে কথাগুলোর কিছু বলতে চাচ্ছি। আমার ধারণা, আপনার চেয়ে আমি বয়োজেষ্ঠ্য হয়ে থাকবো। সেই কারণে আশা করবো, কথাগুলো উপদেশ অথবা অনুরোধ যে হিসেবেই নেন, বিশেষ গুরুত্বসহকারে ভাববেন এবং কোনো প্রকার কষ্ট নিবেন না।

আপনি দয়া করে আরেকটু সহনশীলতার সাথে পথ চলার চেষ্টা করুন। দেখুন, ভিন্নমতের মানুষ আমাদের আশেপাশে যেমন আছে, ব্লগে, ফেসবুকে অনলাইনেও অহরহ থাকবে। এটাই স্বাভাবিক। নিজেদের সম্মান বজায় রাখার স্বার্থে, ধর্মকে অহেতুক কটাক্ষমূলক কথাবার্তা থেকে মুক্ত রাখার প্রয়োজন বিবেচনায় হলেও এদের প্রতি পরিমিত নমনীয় আচরণ বাঞ্চনীয়। কারণ, একজন ধার্মিক পরিচয়ের মানুষকে যখন কেউ গালি দেয় তখন ধর্মের প্রতি তার সামান্য আঁচড় হলেও লেগে যায়। আপনি যেহেতু নিজের ধর্ম বিশ্বাসে অটল একজন মানুষ। একারণে সতর্কতা বেশি প্রয়োজন। আমাদের আচরণ হতে হবে যথেষ্ট মার্জিত।

ঝগড়া বিবাদ সর্বাবস্থায় পরিত্যাজ্য। এটা বুঝার জন্য বলছি- ধরুন, কারও সাথে আপনার মতবিরোধ হলো। আপনার সাথে কোনো একটি বিষয়ে অহেতুক তর্ক বিতর্ক করে পরিবেশ উত্তপ্ত করে তুললো। আপনাকে গালিগালাজ করলো। নিতান্ত অপারগ হয়ে শেষমেষ আপনিও গালির কিছু উত্তর দিতে বাধ্য হলেন। এখানেই তাদের বিজয়। এইখানটাতে এসে আপনিও কিন্তু আটকে গেলেন। আপনাকে কৌশলে আটকে দেয়া হলো। আপনাকে গালিগালাজ করা লোকদের সমপর্যায়ে নামিয়ে আনা হল। সমাজের দর্শকদেরকেও দেখবেন, এত কিছু যাচাই করার প্রয়োজন তারাও হয়তো মনে করবেন না। দৃশ্যমান বিষয়গুলো হালকা পাতলাভাবে হয়তো তারা দেখবেন। তারা দেখবেন, সে গালি দিয়েছে, আপনিও তো গালি দিয়েছেন। তাদের বিচারেও আপনাকে দায় নিতে হবে বেশি। তারা হয়তো বিষয়টিকে এভাবে বিশ্লেষন করার চেষ্টা করবেন, সেই গালিদাতা ব্যক্তি তো আর ধার্মিক নন, এই কারণে তিনি একটু আধটু গালিগালাজ করতেই পারেন! কিন্তু আপনি ধার্মিক মানুষ হয়ে গালি দিলেন কিভাবে? এইভাবে গালি দেয়া বুঝি আপনার ধর্মের আদর্শ? ইত্যাকার নানান প্রশ্নের গ্যাড়াকলে আপনাকে আটকে দেয়ার চেষ্টা হবে।

অতএব দয়া করে যাদের সাথে আপনার বিশ্বাস এবং আদর্শের অমিল তাদের কমেন্ট, পোস্ট, উল্টোপাল্টা কথাবার্তাগুলো হিসেবের বাইরে রাখুন। দেখেও না দেখার মত করে এড়িয়ে যান। মনে রাখতে হবে, ঝগড়া-বিবাদের কোনো স্থান ইসলামে নেই। এগুলো সর্বাবস্থায় পরিত্যাজ্য। কেউ গালি দিলে তাকেও গালি দিতে হবে এমনটা কখনোই কাম্য নয়। সহনশীলতা, নমনীয়তা, পারস্পারিক শ্রদ্ধাবোধ, ভিন্নমতের প্রতি সম্মান প্রদর্শন, ক্ষমা, দয়া, ভালোবাসা, হৃদ্যতা - এসবই ইসলামের আদর্শ। এগুলো আমাদের রপ্ত করতে হবে।

নতুন আইডিতে কেন? আপনার পূর্বের আইডিটা কি খোলা নেই?

নতুন পরিচয়ে ব্লগে আপনার বিচরণ স্বাচ্ছন্দপূর্ণ হোক। অনেক অনেক শুভকামনা আপনার জন্য। আপনার প্রতি আল্লাহ পাক রহমত বর্ষন করুন।

১১| ১৫ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ১১:০০

মাহমুদুর রহমান জাওয়াদ বলেছেন: আপনি আমার থেকে বয়সে বড় হবে এতে কোন সন্দেহ নেই।তবে বয়সে ছোট কিংবা বড় হলে তার কথা যদি হয় আপরের জন্য কল্যানকর তবে তার কথা অবশ্যই গ্রহনযোগ্যতা রাখে।আপনার মূল্যবান কথাগুলো আমার ভালো লেগেছে।যদিও সেদিনকার মন্তব্যটা ছিলো দীর্ঘদিনের পর্যবেক্ষনের ফল।তবে কাউকে অবজ্ঞা কিংবা উপহাস করে চলার মানসিকতা আমার নেই।আমি এই কাজ সবচেয়ে বেশী অপছন্দ করি।আমি মূলত একটা পরীক্ষামূলক প্রশ্ন করেছিলাম।জানি কথাটা অনেক বেশী খারাপভাবে করেছি তাতে আমি একটু বিচলিত হই নি।কারন যুক্তির খাতিরে মানুষ মানুষকে নানানভাবে প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করতে পারে।

পৃথিবীতে ক্রাইমের হার সবচেয়ে বেশী পশ্চিমায়।এমনকি তারা ক্রিমিনালের পক্ষ হয়েও কাজ করে।তার সেটার নাম দিয়েছে মানবতা।একজন ফাসির আসামির পক্ষ হয়ে আন্দোলন করে সেদেশের মানুষজন।সেখানে ব্যাভিচার হয়,ধর্ষণ হয়,অজাচার হয়। ৯০ সালের রিপোর্ট অনুযায়ী সেদেশে অজাচার ঘটে ১০ লক্ষ।এখন তো আরো বেশী।পশ্চিমারা যদি ভালো মানুষ হয়ে থাকে তবে এসব কেন করে?

ঐ ব্লগারের পশ্চিমাপ্রীতি মনোভাব আমি আমার ধর্মীয় লেখাগুলোতে তার করা মন্তব্যে প্রমান পেয়েছি।তারপর তার মন্তব্যটা যদি টপিকের ভিতরে থাকতো তাহলে মন্তব্যের ভাষা থাকতো আলাদা কিন্তু আমার পোষ্টের বাহিরে গিয়ে তিনি কথাটা বলেছেন তারওপর সেদিন মনটাও খারাপ ছিলো ।তাই অজাচার ভালো নাকি মন্দ কাজ এই বিষয়টা তার কাছ থেকে জানতে চাওয়ার লক্ষ্যেই তাকে জিজ্ঞেস করেছি সে ভাষায়। আমি সেভাষাতেই জিজ্ঞেস করেছি তিনি যে ভাষার যোগ্য ছিলেন। কিন্তু এটা গালমন্দ সবাই বললেও আমি পারি না বলতে কারন যুক্তির খাতিরে মানুষ মানুষকে অনেক প্রশ্ন করতে পারেন অনেক উদাহরণ স্বরূপ অনেককেই টানতে পারেন আমার বিশ্বাস।

আমার সবচেয়ে বেশী আশ্চর্য লেগেছে একজন আমার মন্তব্যটা না বুঝেই সুরা হুমাজাহ এর ১ম আয়াত উল্লেখ করেছিলেন।অথচ তিনি নাকি ধার্মিক মানুষ অন্য একজন ব্লগারের কাছ থেকে জানলাম।একজন ধার্মিক মানুষ আগে বুঝে তারপর কথা বলে।উনি এই কাজটা করলেন না।উনি আমার লেখায় বিরুপ মন্তব্য করে আমাকেই উপহাসের পাত্র বানিয়ে দিলেন।এটা মোটেও প্রত্যাশিত ছিলো না।

তারপর একজন ব্লগার বললেন আমার ধর্মীয় পোষ্ট তার ভালো লাগে না তাই আসেন না কিন্তু আমাকে সমালোচনার পাত্র হতে দেখে তিনি এসেছেন এবং অনেক বিরোধপূর্ণ কথা বলেছেন।অর্থাৎ তার এই কথাই প্রমান করে এই লোকটাকে এবার একটু অপমান করা যাক।তার মতো আরো কয়েকজন মন্তব্য করেছিলো সেখানে(মুসলিম নামধারী)।আমার কথা হলো ভালো লাগা আর না লাগা এটা যার যার ব্যাপার কিন্তু আপনি তো আমাকে বলবেন কেন আমার পোষ্ট ভালো লাগে নি? কারনটা কি কোথায় সমস্যা।এসব কিছু বলতেন না।কি আশ্চর্য ব্যাপার ভাই আমি কি তাদের মুখে বেধে রেখেছিলাম?

যাই হোক ভাই বললে হাজারটা কথা বলা যায়, না বললে কোন কথাই না।এক কথায় আপনার মন্তব্যটা আমার ভালো লেগেছে।আমি সাদরে গ্রহন করলাম।

আমি নতুন আইডিতে।পুরাতন আইডির সকল লেখা আমি মুছে দিয়েছি।কারন আমার উদ্দেশ্যে নিজেকে নতুন করে সাজাবো।

আমীন।জাঝাকাল্লাহ খাইরান।

১২| ১৭ ই আগস্ট, ২০১৯ সকাল ৯:০৩

নতুন নকিব বলেছেন:



মন্তব্যটি মনযোগের সাথে দেখায় এবং সাদরে গ্রহন করায় কৃতজ্ঞতা এবং অসংখ্য ধন্যবাদ আপনাকে।

অনেক ভালো থাকুন।

১৩| ২৮ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৪:০৫

জটিল ভাই বলেছেন: ধন্যবাদ এত সুন্দর পোস্ট উপহার দেবার জন্য। কিন্তু এই বিষয়গুলো আমরা কতজন চর্চা করি কিংবা করার দাওয়াত দেই?? আর করলেও তা পূর্ণাঙ্গভাবে কতজন করি???

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.