নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

একান্ত ব্যক্তিগত কারণে ব্লগে আর পোস্ট দেওয়া হবে না। আপাতত শুধু ব্লগ পড়বো। বিশেষ করে পুরানো পোস্টগুলো। কোন পোস্টে মন্তব্য করবো না বলে ঠিক করেছি। আমি সামহোয়্যারইন ব্লগে আছি এবং থাকবো। ভালো আছি। ভালো থাকুন সকলে।

ইসিয়াক

আমি অযত্ন অবহেলার আপনি ফোটা এক ফুল।

ইসিয়াক › বিস্তারিত পোস্টঃ

গল্পঃ ঊন মানুষের মন

১৫ ই জুলাই, ২০২৩ সন্ধ্যা ৭:০৪



একটু আগে আমার আব্বা মারা গেছে। আমি তাঁর লাশের সামনে বসে আছি।স্থির নিশ্চল!আমি জানি এখন আমার শোক প্রকাশ করা উচিত ।মিথ্যে করে হলেও কান্নার অভিনয় করা উচিত । না হলে লোকে মন্দ বলবে।সমাজে আমার বদনাম হয়ে যাবে কিন্তু হাজার চেষ্টা করেও আমি কান্না করতে পারছি না।আসলে অভিনয়টা আমার দ্বারা হয় না।

শত চেষ্টা স্বত্বেও আমি মুখ দিয়ে বুক ঠেলে ওঠা গোঙানির শব্দ আনতে পারলাম না। কেন জানি নিজেকে আমার ভীষণ নির্ভার লাগছে। মন জুড়ে কেমন যেন শান্তি শান্তি ভাব। আহ! মুক্তি।
কিসের মুক্তি তা অবশ্য আমি জানি না!

এদিকে আমার সৎ ভাইবোনগুলোর শোক বিলাপে আকাশ বাতাস ভারি হয়ে উঠেছে। সেটাই স্বভাবিক। আমার সৎ মা ঘণ ঘণ মূর্চ্ছা যাচ্ছেন।তাকে ঘিরে উপস্থিত প্রায় সকলেরই চোখে জল।তার মধ্যে কেউ কেউ আমাকে লক্ষ করে ফিসফিস করে নিজেদের মধ্যে কি সব আলাপ করছে।সে সব অবশ্যই প্রশংসা সূচক কোন বাক্য নয়।আমি জানি ওরা এমনই। আবার এও জানি এসব আমার প্রাপ্য ।
আমার এমন অদ্ভুত অনুভূতির কারণ অবশ্যই আছে!
সত্যি বলতে কি সৃষ্টিকর্তার কাছে আমি বহুদিন আমার আব্বার মৃত্যু কামনা করেছি।নানা রকমের মৃত্যু! কখনও বাস এক্সিডেন্টে মৃত্যু। কখনও পানিতে ডুবে যাওয়া মৃত্যু। কখনও আবার আমাদের বাড়ির দোতলা ছাদ থেকে ঝুপ করে গড়িয়ে পড়ার মৃত্যু। কিন্তু তিনি এতদিন আমার কোন ডাক কবুল করেন নি।আজ হঠাৎ...
ছোট থেকেই আমার নিজের মাকে আমি কখনও দেখিনি।দেখলেও স্বরণে নেই। ইচ্ছা অনিচ্ছায় আব্বার কাছেই মানুষ।বেড়ে ওঠার জন্য একটা আশ্রয়স্থল অবশ্যই প্রয়োজন। জ্ঞান হওয়া অবধি আমি আব্বাকে যমের মতো ভয় পেতাম। আব্বার কড়া শাসন সাথে নানা রকম মানসিক নির্যাতন,কথায় কথায় রাম ধোলাই আমার সৎ ভাই বোনদের বিনোদিত করলেও আমার জীবনকে করে তুলেছিল বিষময়।
যদিও জানি এসব কিছুর পিছনে ছিল আমার সৎ মায়ে চক্রান্ত।আমাকে তাড়ানোর চক্রান্ত। সম্পত্তির হিসাব বড় কঠিন হিসাব।।অবশ্য এটাও জানি আমার আব্বা তাঁর তৃতীয় বিয়েটা টিকিয়ে রাখবার জন্য মরিয়া ছিলেন।বিশেষ কিছু কারণে সৎ মায়ের কথা শোনা ছাড়া তাঁর অন্য কোন উপায় ছিল না। তাই বলে তিনি আমার সাথে ঘটমান অনেক না ইনসাফি অবশ্যই ঠেকাতে পারতেন, আমি আবারও জোর দিয়ে বলবো অবশ্যই ঠেকাতে পারতেন। তিনি কি পারতেন না আমার হারিয়ে যাওয়া ঠেকাতে?
ছোট মা না হয় দুষ্টু বুদ্ধিটা দিয়েছিলেন।তাই বলে তিনি আমাকে ভারতের নিয়ে গিয়ে অজানা অচেনা বাজারে ছেড়ে দিয়ে আসবেন! এত নিষ্ঠুর তিনি কি করে হয়েছিলেন? আমি অবশ্য তিন মাসের মাথা সশরীরে বাড়িতে ফিরে এসেছিলাম এবং আমার বাড়ির লোকজনদের দারুণভাবে চমকে দিয়েছিলাম।আমার বাসার সবাই আমাকে সাথে নানা রকম নির্যাতন করতো।একবার তারা আমাকে বাঁওড়ে বেড়াতে যাবার নাম করে ডুবিয়ে মারতে চেয়েছিল। সে যাত্রা য়ও আমি বেঁচে গিয়েছিলাম।
তবুও এত কিছুর পর আমার সমস্ত রাগ দুঃখ অভিমান আমার আব্বা উপরেই বেশি ।সৎ মা তার ছেলে মেয়েরা তো এমনই হয় ।আব্বা কেন তাঁর নিজের সন্তানকে বুঝতে পারেন নি।আমার কষ্টগুলো তিনি কেন অনুধাবন করতে পারতেন না? আমি না তার নিজের ছেলে?কেন শুধু শুধু তিনি আমাকে সহ্য করতে পারতেন না।আমি নিতান্ত বেটে খাটো অসুন্দর,এক চোখ অন্ধ বলেই কি আমার জন্য এই দূর্ব্যবহার বরাদ্দ ছিল? আর আমার মা ও কি পরিত্যক্তা হয়েছিল আমার কারণে ? আমি শুনেছি আমার তিন বছর বয়সে আমার মা আত্মহত্যা করেছিলেন। কারণ ছিলাম আমি সেটাও নিশ্চিত ।জানি আমার শারীরিক ক্রুটি আছে।আমার বেটেখাটো বদখত চেহারার জন্য অনেক অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি তৈরি হয়। লোকে হাসে মজা নেয়,তাই বলে আমার কি ভালোভাবে বেঁচে থাকবার কোন অধিকার নেই।আমার জন্ম কি আমার দোষে হয়েছে ?
অনেক কথা মনে আসছে। না ভাবতে চাইলেও মনে আসছে।আমি মাথা নিচু করে বসে রইলাম।আব্বার জন্য দোয়া দরুদ পড়া দরকার কিন্তু কোন দোয়া দরুদ মনে পড়ছে না।
জোহরের নামাজের পর লাশ দাফন হলো।এরপর বাসার সবাই যে যার কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়লো।যেন স্বাভাবিক একটা দিন।আমি আশ্চর্য হয়ে লক্ষ করলাম ভাই বোন সৎ মায়ের নকল মুখোশ খসে পড়লো আত্নীয় স্বজন বিদায় হবার প্রায় সঙ্গে সঙ্গে। এদিকে আমার হঠাৎই গা কাপিয়ে জ্বর চলে এলো।অগত্যা মাথায় যন্ত্রণায় কাতর হয়ে আমি আমার জন্য বরাদ্দ ছোট খুপরিতে গিয়ে শুয়ে পড়লাম। কতক্ষণ ঘুমিয়েছি জানি না। চাপা স্বরে ঝগড়ার আওয়াজে আমার ঘুম ভেঙে গেল। ঝগড়ার বিষয়বস্তু সম্পত্তির ভাগ বাটোয়ারা সম্পর্কিত। কি অদ্ভুত!
কত কথা কত কিছু মনে এলো এর মধ্যে হঠাৎ ই বুক ঠেলে কান্না এলো।দম বন্ধ করা কষ্ট বুকের ভিতর ।আব্বার জন্য কষ্ট হতে লাগলো খুব । আব্বাকে কি আমি ভালোবাসতাম?জানি না তবে বুকটা কেমন যেন ভারি হয়ে গেলো।চোখ ফেটে জল ঝরতে লাগলো।হঠাৎ অনুশোচনা হলো।নিজেকে ধিক্কার দিতে ইচ্ছে হলো।হয়তো আমার অভিশাপে বাবার এত তাড়াতাড়ি মৃত্যু হয়েছে।আরও কটা দিন বেঁচে থাকলে কি এমন ক্ষতি হতো!
© রফিকুল ইসলাম ইসিয়াক

মন্তব্য ২০ টি রেটিং +৮/-০

মন্তব্য (২০) মন্তব্য লিখুন

১| ১৫ ই জুলাই, ২০২৩ সন্ধ্যা ৭:১৫

নিবর্হণ নির্ঘোষ বলেছেন: ভালোবাসা কী অদ্ভূত !!

আমার কী মনে হয় জানেন ? ভালোবাসাও অভিমান করতে জানে , আর তাই অভিমানে নিজেকে গুটিয়ে নেয় কিন্তু একসময় মান ভাঙে তার এরপর নিজেকে প্রকাশ করে !!

খুব ভালো হলো লিখাটা , ভালো লাগলো খুব !!

১৫ ই জুলাই, ২০২৩ রাত ৮:০৭

ইসিয়াক বলেছেন: পাঠ মন্তব্য ও লাইকের জন্য কৃতজ্ঞতা রইলো প্রিয় ব্লগার।
অনেকগুলো গল্প লেখা রয়েছে ফাইনাল টাচ দেওয়া বাকি কিন্তু পোস্ট দিতে পারছি না।কেবলই মনে হচ্ছে কিচ্ছু হয় নি। এই ছোট্ট গল্পটা হঠাৎ করেই মাথায় এলো আজ দুপুরে সেই সঙ্গে নিজের কিছু কথা মনে জড়ো হলো। একটানে লিখলাম।তপন ভাই এর তাগাদা ছিল। যাহোক চোখ কান বুজে পোস্ট দিয়ে দিলাম।
শুভেচ্ছা রইলো।

২| ১৫ ই জুলাই, ২০২৩ সন্ধ্যা ৭:২৪

মোহামমদ কামরুজজামান বলেছেন: সমাজটাই ভাই এখন বড় অদ্ভুত হয়ে গেছে। মানুষের মানবীয় সব গুন হারিয়ে গেছে স্বার্থের ভীড়ে।

আর তাইতো এখন অহরহ দেখা যাচছে বাপের লাশ উঠানে(দাফন-কাফন না করে) রেখে ভাই-বোনেরা বাপের রেখে যাওয়া
ধনসম্পত্তি নিয়ে লড়াইয়ে মেতে উঠে।

সকল ভালবাসা দিনে দিনে হারিয়ে যাচছে স্বার্থের মারপ্যাচে ও জীবনের জটিলতার ভীড়ে।

১৫ ই জুলাই, ২০২৩ রাত ৮:১২

ইসিয়াক বলেছেন: বর্তমান মানুষ মরিচীকার পিছনে ছুটছে। কিছু কিছু মানুষের লোভ সীমাহীন হয়ে পড়েছে। অথচ বেঁচে থাকতে হলে অঢেল সম্পদের প্রয়োজন নেই। প্রয়োজনের অতিরিক্ত সম্পদ যত অনর্থের মূল। অল্পে সন্তষ্ট থাকলে সবাইকে মোটামুটি ভালো থাকা যায়।

৩| ১৫ ই জুলাই, ২০২৩ সন্ধ্যা ৭:২৭

করুণাধারা বলেছেন: একজন প্রতিবন্ধী মানুষ, তাঁকে ঊন মানুষ বলাই যায়... শিরোনাম গল্পের জন্য একেবারে যথাযথ হয়েছে।

গল্প ভালো লেগেছে, অল্প কথায় ঊন মানুষটির মনের ছবি এঁকেছেন। যে কখনো বাবার ভালোবাসা পায়নি, বাবাকে হারিয়ে ফেলার পর তার শোক কি বাবার জন্য, নাকি সেই না পাওয়া ভালবাসার জন্য... কে জানে!!

১৫ ই জুলাই, ২০২৩ রাত ৮:৩৩

ইসিয়াক বলেছেন: প্রিয় ব্লগার আপনার মন্তব্যটি আমার অন্তর ছুঁয়ে গেল।
আসলে কোন কোন মানুষ সারাজীবন ভালোবাসার কাঙাল থাকে।অথচ তাকে নানাভাবে পর্যুদস্ত করা হয়। কখনও সম্পদের ভাগিদারের অযুহাতে কখন অবয়ব অথবা সামাজিক যোগ্যতার বিচারে।বর্তমান সমাজে মানুষের ভালোবাসা পাওয়া ক্রমশ দূর্লভ হয়ে উঠেছে।সবকিছুতে শুধু স্বার্থ খোঁজে মানুষ। কি এক অদ্ভুত সময় আমরা অতিক্রম করছি!
শুভেচ্ছা রইলো।

৪| ১৫ ই জুলাই, ২০২৩ সন্ধ্যা ৭:৪৬

রাজীব নুর বলেছেন: হুমায়ূন আহমেদের এরকম একটা গল্প আছে।

১৫ ই জুলাই, ২০২৩ রাত ৮:০২

ইসিয়াক বলেছেন: গল্পটার নাম কি? একটু জানান প্লিজ।

৫| ১৫ ই জুলাই, ২০২৩ সন্ধ্যা ৭:৪৬

এইযেদুনিয়া বলেছেন: কান্না পেলো।

১৫ ই জুলাই, ২০২৩ রাত ৮:৩৪

ইসিয়াক বলেছেন: কান্না পাওয়ার মতই ঘটনা। মানুষ আরও মানবিক হোক এটাই কাম্য।শুভেচ্ছা রইলো।

৬| ১৫ ই জুলাই, ২০২৩ রাত ৮:১৬

সৈয়দ তাজুল ইসলাম বলেছেন: এটা আমাদের সমাজের স্বাভাবিক ঘটনাগুলোর মধ্যে একটা হলেও আপনার ফুটিয়ে তোলার চিত্রটি অনেক প্রশংসনীয় । ভালো লাগলো।

২২ শে জুলাই, ২০২৩ সন্ধ্যা ৬:০৮

ইসিয়াক বলেছেন: অনেক অনেক কৃতজ্ঞতা রইলো প্রিয় ব্লগার।
ভালো থাকুন সব সময়।

৭| ১৫ ই জুলাই, ২০২৩ রাত ৮:৩৭

রূপক বিধৌত সাধু বলেছেন: এমন পিতার জন্য আমারও মায়া কাজ করে না। আমার মনে হয় এদের নির্মম মৃত্যু হওয়া উচিত। জন্মদাতা হয়ে সন্তানের প্রতি এমন নির্দয় কী করে হয় মানুষ!

২২ শে জুলাই, ২০২৩ সন্ধ্যা ৭:৪৮

ইসিয়াক বলেছেন: পৃথিবীতে কত কিছুই তো অজানা থাকে। সেসবের খোঁজ ক'জনই বা রাখে।
ভালো থাকুন সব সময়।

৮| ১৫ ই জুলাই, ২০২৩ রাত ৮:৫৯

নিবর্হণ নির্ঘোষ বলেছেন: তপন ভাই এর তাগাদা ছিল। যাহোক চোখ কান বুজে পোস্ট দিয়ে দিলাম।
শুভেচ্ছা রইলো।


এরকম তাগাদা থাকলে সত্যিই লেখালিখিতে অনেক উপকার হয় । উনার কাছে আমিও কৃতজ্ঞ একটা লিখার জন্য !!

২২ শে জুলাই, ২০২৩ সন্ধ্যা ৭:৫০

ইসিয়াক বলেছেন: সত্যি বলতে কি সামহোয়্যারইন ব্লগের সবার কাছেই আমি কৃতজ্ঞ

ভালো থাকুন।
শুভেচ্ছা রইলো প্রিয় ব্লগার।

৯| ১৫ ই জুলাই, ২০২৩ রাত ১০:৩৩

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: খুবই যাতনাময় লেখা। হৃদয়ছোঁয়া কাহিনী।

২২ শে জুলাই, ২০২৩ সন্ধ্যা ৭:৫২

ইসিয়াক বলেছেন: আপনি আবার কবে পোস্ট দিবেন? এভাবে হয়তো একসময় হারিয়ে যাবেন।
আপনার গল্প আবার পড়তে চাই। প্লিজ।

১০| ০৮ ই আগস্ট, ২০২৩ ভোর ৪:০৩

খায়রুল আহসান বলেছেন: করুণাধারা এর সাথে আমি একমতঃ শিরোনাম গল্পের জন্য একেবারে যথাযথ হয়েছে
পরিমিত পরিসরে গল্পটা চমৎকার হয়েছে। একজন উনো মানুষের মনোবেদনা অল্প কথায় এঁকেছেন অনবদ্য মমত্ববোধে, যা পাঠকের মনেও বেদনার উদ্রেক করে। যেমন একজন পাঠক তো বলেই ফেলেছেনঃ "কান্না পেলো"। ( ৫ নং মন্তব্য)
পোস্টে অষ্টম প্লাস। + +

২৫ শে আগস্ট, ২০২৩ রাত ১১:০২

ইসিয়াক বলেছেন: প্রিয় ব্লগার আপনার প্রতিটা মন্তব্য আমার কাছে অনুপ্রেরণা ও আশীর্বাদ স্বরূপ।
অশেষ কৃতজ্ঞতা ও ভালোবাসা রইলো।

ভালো থাকুন সব সময়।
শুভেচ্ছা।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.