নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

ভাল থাকার জন্য অর্থ উপার্জন জরুরী, তা না হলে ছোট বেলার মত হয়ত সকাল ৯টা পর্যন্ত ঘুমিয়ে থাকতাম । অথচ জীবন খুব দ্রুত ফুরিয়ে যাচ্ছে দেখে ভাল কিছু লেখার তাগিদ যেমন অনুভব করি তেমনি প্রতিনিয়ত নিজেকে নির্মাণ করারও চেষ্টা করি...

সাইন বোর্ড

সব কিছুর উর্ব্ধে উঠা যায় না, তবু মাঝে মাঝে ইচ্ছে হয়...

সাইন বোর্ড › বিস্তারিত পোস্টঃ

কাঁচের বোতলে শান্তিরস সালসা এবং ভোটের পোষ্টার

০৪ ঠা ফেব্রুয়ারি, ২০২০ সকাল ১১:২৬


ছোট বেলায় দেখতাম, আমাদের গ্রামের হাটে প্রায়'ই এক লোক প্রাইভেট কারে চড়ে ওষুধ বিক্রি করতে আসত । নাম ছিল তার মেহদি হাসান । দেখতে লম্বা, স্মার্ট এবং সুস্বাস্থ্যের অধিকারী । বক্তৃতার মাঝে মাঝে সে প্রায়'ই বলত, তৎকালীন নায়িকা শাবানার বিপরীতে সে নাকি বেশ কয়েকটা চলচিত্রে অভিনয়ও করেছে । যদিও এটা ছিল উপস্থিত মানুষদেরকে তার ফাঁপড় মারার একটা কথা । তবে দেখতে সে অনেকটা বাংলা সিনেমার নায়কের মতো ছিল - এটা ঠিক । যাইহোক, সেই ছোট বয়সেও তার বক্তৃতার শেষ কথাটি আমার খুব মনে ধরত । আর এ জন্যেই মূলতঃ রেফারেন্স হিসেবে তাকে এখানে নিয়ে আসা ।

মেহেদি হাসান যে ওষুধটি বিক্রি করত, তার নাম ছিল শান্তিরস সালসা । তার ভাষায় ওষুধটি তৈরী হত বিভিন্ন প্রকার গাছ-গাছড়া এবং নানা জাতিয় ফলমূলের রস দিয়ে । এবং সেটি প্রমাণ করার জন্য সে প্রায়'ই একটা বোতলের মুখ খুলে উপস্থিত লোকজনের মধ্য থেকে কাউকে কাউকে খাওতো এবং তাদের মুখ থেকে এক এক ফলের ঘ্রাণের নাম শুনত । গ্রামের সহজ-সরল মানুষ সালসা খেয়ে মেহেদি হাসান যেভাবে চাইত তারা সেভাবেই বিভিন্ন ফলের নাম বলত । এতে করে তার প্রমাণ করতে সহজ হত যে, ওষুধটি বিভিন্ন ফলের রস দিয়ে তৈরী । আর অসুখের কথা বলতে গেলে বাত, গ্যাস্ট্রিক থেকে শুরু করে প্রায় সব অসুখ'ই ভাল হয়ে যাবার কথা বলত । লোকজন তখন দেদারসে ওষুধ কিনত । এর মাঝে মাঝে চলত গান, কারন তার সাথে একজন শিল্পী এবং বাদ্যকারও থাকত । সেই সময়ও তার হাতে থাকত তারবিহীন মাইক্রোফোন এবং একটি বড় ক্যাসেট প্লেয়ার থাকত প্রাইভেট কারের উপর ।

এভাবে বেচা-বিক্রি, সালসার গুণ-মান প্রমাণ শেষে ঠিক চলে যাবার আগ মুহূর্তে উপস্থিত লোকজনকে উদ্দেশ্য করে খুব ছোট করে তার একটা বক্তৃতা থাকত, তা হলো - "আমার এই সালসায় শেষ পর্যন্ত যদি কোন কাজ নাই'ই হয়, তাহলে এই যে বোতলটা দেখছেন না, (দু'হাত বোতলের সমান করে দেখিয়ে) এর ভেতর কমপক্ষে আড়াই কেজি কেরোসিন ধরবে । বোতলটা আপনাদের বাড়িতে কেরোসিন রাখার কাজে তো লাগবে ।"

বলা বাহুল্য, দেশে তখনো সহজলভ্য প্লাস্টিকের বোতলের প্রচলন হয়নি, তাই একটি বড় কাঁচের বোতলের যথেষ্ট চাহিদা ছিল ।

মাত্র কয়েকদিন আগে ঢাকা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন শেষ হয়েছে । কেউ কেউ এটাকে পুরানো নাটকের'ই নতুন ভার্সন বলছে । মানে রাতের কলংক মুছার জন্য ডিজিটাল কায়দায় দিনকেই রাত বানানো হয়েছে । তাছাড়া সবাই তো জানেই, তালগাছ তার'ই হবে, মাঝ থেকে মামলা-মোকাদ্দমা করে টাকা নষ্ট করা আর কি । তবে ভোট শেষে কিছু স্বেচ্ছা-সেবকের উদ্যোগ অনেকেরই চোখে পড়েছে এবং ভালও লেগেছে । সালসা বিক্রয় শেষে অনেকটা ঐ শিক্ষিত হকার মেহদি হাসানের শেষ কথার মতো - "আমরা কেউ ভোট দিতে না পারলে কি, কোটি কোটি টাকা খরচ করে ছাপানো ভোটের পোষ্টার গুলো দেশের সুবিধা বঞ্চিত কিছু ছেলে-মেয়ের লেখার খাতার কাজে তো লাগবে ।"

মন্তব্য ৮ টি রেটিং +২/-০

মন্তব্য (৮) মন্তব্য লিখুন

১| ০৪ ঠা ফেব্রুয়ারি, ২০২০ দুপুর ১:৫২

রিফাত হোসেন বলেছেন: পড়লাম। কিছু বলার নাই।

০৫ ই ফেব্রুয়ারি, ২০২০ সকাল ১০:৫৬

সাইন বোর্ড বলেছেন: বললেই সমস্যা, তাই না বলায় ভালো । অসংখ্য ধন্যবাদ ।

২| ০৪ ঠা ফেব্রুয়ারি, ২০২০ দুপুর ২:৪৪

রাজীব নুর বলেছেন: সবাই সব কিছু জানে। সবাই সব কিছু বুঝে। তবু চুপ করে আছে। চুপ করে থাকতে হয়।

০৫ ই ফেব্রুয়ারি, ২০২০ সকাল ১০:৫৭

সাইন বোর্ড বলেছেন: কথা সত্য । অসংখ্য ধন্যবাদ ।

৩| ০৪ ঠা ফেব্রুয়ারি, ২০২০ বিকাল ৩:১৯

বিচার মানি তালগাছ আমার বলেছেন: আমি প্রথম থেকেই আফসোস করেছি এই ব্লগে। কেন খামাখা তাবিথ আর ইশরাক এতগুলো টাকা নষ্ট করছে। এই টাকা দিয়ে কত ভাল ভাল কাজ করা যেত...

০৫ ই ফেব্রুয়ারি, ২০২০ সকাল ১০:৫৯

সাইন বোর্ড বলেছেন: বলার কিছু নেই, এভাবে আরো অনেক কিছু আমাদেরকে দেখে যেতে হবে । অসংখ্য ধন্যবাদ ।

৪| ০৪ ঠা ফেব্রুয়ারি, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৩৬

নেওয়াজ আলি বলেছেন: ছিঃ ছিঃ খুব ভালা লোক। তাই ভোট এমন।

০৫ ই ফেব্রুয়ারি, ২০২০ সকাল ১০:৫৯

সাইন বোর্ড বলেছেন: অসংখ্য ধন্যবাদ ।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.