নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

শব্দকবিতা : শব্দেই দৃশ্য, শব্দেই অনুভূতি \n\[email protected]

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই

দুঃখের কবিতাই শ্রেষ্ঠ কবিতা। ভালোবাসা হলো দুঃখ, এক ঘরে কবিতা ও নারী।

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই › বিস্তারিত পোস্টঃ

দিনে দিনে খসিয়া পড়িবে রঙ্গিলা দালানের মাটি || কোন রঙ্গে বাইন্ধাছো ঘরখানা

১০ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ১১:৫২

আজকের আলোচ্য বিষয় দুটো গান যার রচয়িতা নীলকণ্ঠ মুখোপাধ্যায়। এ দুটো গানের লিরিক্সও প্রায় অভিন্ন, কিংবা বলা যায় একটা গানের ভেতর থেকে আরেকটা গান বের করা হয়েছে। এ দুটো মূলত আসামের গোয়াল পাড়িয়ার গান। 'দিনে দিনে খসিয়া পড়িবে' গানের মূল শিল্পী প্রতিমা পাণ্ডে বড়ুয়া। 'কোন রঙ্গে বাইন্ধাছো ঘরখানা' গানের মূল শিল্পী কে, আমার জানা নেই, তবে নীনা হামিদ ও ফেরদৌসী রহমানের কণ্ঠে অনেক আগে রেকর্ড করা গান পাওয়া যাচ্ছে, যা এই পোস্টে শেয়ার করা হয়েছে।

ইন্টারেস্টিং বিষয় হলো, প্রথম গানটির সুরকার হলেন গীতিকার নিজেই এবং দ্বিতীয় গানের সুরকার হলেন কানাই লাল শীল। মূল গানটা থেকে কীভাবে, কখন দ্বিতীয় সুরের ভার্সনটা সৃষ্টি করা হয়েছিল, সেটা আমি অনেক জানার চেষ্টা করেছি, কিন্তু এখনো উদ্ধার করতে পারি নি। আরেকটা কথা বলে নিই, আমার উদ্‌ঘাটিত তথ্যে কোনো ভুল থাকা স্বাভাবিক, কারণ, আমি এগুলো ইউটিউব এবং গুগুল থেকে বের করার চেষ্টা করেছি, যেখানে অনেক ভুল থাকা সম্ভব। কারো কাথে ভুল দৃষ্টিগোচর হলে প্লিজ সঠিক তথ্য দিয়ে সাহায্য করবেন। প্রথমে গানের কথাগুলো দেখে নিন।


দিনে দিনে খসিয়া পড়িবে
রঙ্গিলা দালানের মাটি গো সাঁইজি কোন রঙ্গে

বাঁধিছেন ঘর মিছা, মিছাই দ্বন্দ্ব বাজে গো সাঁইজি ...
কোন রঙ্গে।
হাড়েরও ঘরখানি, চামেরও ছাউনি
বন্ধে বন্ধে তার জোড়া
আর তাহারই তলে ময়ুর আর ময়ুরী
শূন্যে উড়ায় তারা গোসাঁইজি ... কোন রঙ্গে

এ গানের মূল শিল্পী প্রতিমা বড়ুয়া পাণ্ডে (আসাম)। তিনি উপরে উদ্ধৃত এক অন্তরাই গেয়েছেন। তবে পাপনের রেন্ডিশন/রিমিক্সিঙে নীচের ২য় অন্তরা/সঞ্চারী গাইতে দেখা যায়।

বাল্য না কাল গেলো হাসিতে খেলিতে
যৈবন কাল গেলো রঙ্গে
আর বৃদ্ধ না কাল গেলো ভাবিতে চিন্তিতে
গুরু ভজিবো কোন কালে, গো সাঁইজি ... কোন রঙ্গে
ও দিনে দিনে খসিয়া পড়িবে
রঙ্গিলা দালানের মাটি গো সাঁইজি ... কোন রঙ্গে


কোন রঙ্গে বাইন্ধাছো ঘরখানা,
মিছা দুনিয়ার মাঝে গো সাঁইজি, কোন রঙ্গে।।

ও তোর হারেরও ঘরখানা চামেলার ছাউনি, বন্ধে বন্ধে জোড়া।।
তাহারও মধ্যে মন ওড়ায় পাখি।।
পাখি ছুটিলে না দেয় ধরা গো সাঁইজি, কোন রঙ্গে..

ও তোর প্রথম কাল গেল হাসিতে খেলিতে, যৌবনও কাল গেল রসে
ও তোর বৃদ্ধ না কাল গেল ভাবিতে চিন্তিতে।।
গুরু ভজিবা কোন কালে গো সাঁইজি, কোন রঙ্গে..

ও তোর দন্ত পড়িবে চুল পাকিবে, যৌবনে লাইগা যাবে ভাটি।।
ও তোর দিন আর দিনে খসিয়া পড়িবে।।
ও তোর রঙ্গিলা দালানের মাটি গো সাঁইজি, কোন রঙ্গে..

মালির বাগিচায় ফুল ফুইটাছে, ভ্রমরা গুন গুন করে।।
সে ফুলে ভ্রমরা গুন গুন করে
তুমি সুজনও চিনিয়া করিও পিরিতি।।
সে যে মরিলে বাঁচাইতে পারে গো সাঁইজি, কোন রঙ্গে..

এক তালা দুই তালা তিন তলা চার তলা, সদর তলায় বাতি জ্বলে।।
সাধক নীলকন্ঠ কয় গুরু না ভজিলে।।
কি হবে নিদান কালে গো সাঁইজি, কোন বা রঙ্গে

এ গানের লাস্ট স্তবকে সাধক নীলকণ্ঠের (নীলকণ্ঠ মুখোপাধ্যায়) নাম উল্লেখ আছে। এজন্য এটা সহজেই বোঝা যায় এটার গীতিকার নীলকণ্ঠ মুখোপাধ্যায়। এ গানের সুরকার কানাই লাল শীল বলে বিভিন্ন জায়গায় উল্লেখ দেখে নিশ্চিত হয়েছি কানাই লাল শীলই সুরকার। তবে, আমি কোনো শিল্পীর কণ্ঠে লাস্ট স্তবক গাইতে শুনি নি।



গানের লিংক


কোন রঙ্গে বাইন্ধাছো ঘরখানা - ফেরদৌসী রহমান




কোন রঙ্গে বাইন্ধাছো ঘরখানা - নীনা হামিদ




দিনে দিনে খসিয়া পড়িবে রঙ্গিলা দালানের মাটি গো সাঁইজি - প্রতিমা পাণ্ডে বড়ুয়া




দিনে দিনে খসিয়া পড়িবে - শ্রাবণী




দিনে দিনে খসিয়া পড়িবে - ঐশী




দিনে দিনে খসিয়া পড়িবে - পাপন ও হর্ষদ্বীপ কৌর ভার্সন-১




দিনে দিনে খসিয়া পড়িবে - পাপন ও হর্ষদ্বীপ কৌর ভার্সন-২




বোনাস - আমার দুটি রেন্ডিশন


গরুরে চরাও গরুরে খাওয়াও - মূল 'হস্তীরে চড়ান হস্তীরে নড়ান'




সাধের কদু বানাইলো মোরে তরকারি - মূল 'সাধের লাউ বানাইলো মোরে বৈরাগী'




***

সবাই ঘরে থাকুন, নিরাপদে থাকুন।

Stay Home, Stay Safe





মন্তব্য ৭৭ টি রেটিং +৩/-০

মন্তব্য (৭৭) মন্তব্য লিখুন

১| ১১ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ১২:৪৯

রাজীব নুর বলেছেন: এই পোষ্ট টা এখন দিয়ে ভালো করছেন।

আমার গান শুনতে ইচ্ছা করছে এখন।

১১ ই এপ্রিল, ২০২০ সকাল ১০:৩৭

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: ওহ, দারুণ, পোস্ট দেয়া তাহলে সার্থক হলো :)

আপনার গানের লিংকগুলো উলট পালট হয়ে গেছে। দুইটা এখন খুঁজে পেলাম।

মিলন হবে কতদিনে - ফরিদা পারভীন



সব তোমারি জন্য - মান্না দে

২| ১১ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ১:৪৩

নেওয়াজ আলি বলেছেন: ভালো । শুভ কামনা

১১ ই এপ্রিল, ২০২০ সকাল ১০:৩৭

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: ধন্যবাদ নেওয়াজ আলি সাহেব।

৩| ১১ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ২:১০

সোহানী বলেছেন: আরে দারুনতো। গানগুলো আগে শোনা ছিল না।

১১ ই এপ্রিল, ২০২০ সকাল ১০:৪০

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: পাপনের রেন্ডিশন খুব পপুলারিটি পায়। পাপনের গায়কীও অসাধারণ। ৬ ও ৭ নম্বর গান। উপরে ফেরদৌসী রহমানের কণ্ঠেরটাও আমার অনেক ভালো লেগেছে।

৪| ১১ ই এপ্রিল, ২০২০ দুপুর ১২:০১

সাড়ে চুয়াত্তর বলেছেন: বড় আনন্দের জগতে আপনার বিচরণ।

১১ ই এপ্রিল, ২০২০ দুপুর ২:৩৫

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ সাড়ে চুয়াত্তর। 'সাড়ে চুয়াত্তর' ছবিটা দেখেছিলাম ১৯৯০ সালের দিকে। তখন তেমন মজা পাই নি, যদিও পরে জেনেছি ওটা খুবই মজার ছবি। তাই আবার ছবিটা দেখার খুব শখ, কিন্তু সময় পাই না :(

নীচে ব্লগার 'পুকু' একটা মন্তব্য করেছেন। আমার ওরকম কিছু বৈশিষ্ট্য আছে, নিজের জন্য আলাদা একটা ভুবন তৈরি করে নেবার। সেই ভুবনে আমি একা, কিন্তু জগতটা খুব বিস্ময়কর, যা আমি অনেক উপভোগ করি।

ধন্যবাদ সাড়ে চুয়াত্তর। শুভেচ্ছা। ঘরে থাকুন, নিরাপদে থাকুন।

৫| ১১ ই এপ্রিল, ২০২০ দুপুর ২:২৮

পুকু বলেছেন: কোথায় যেন পড়েছিলাম যে যদি কোনো creative people কে চার দেয়ালের মধ্যে বন্দিও করা হয় সে ঠিক একটি জানালা নিজের জন্য বেরকরে নেবে নিজেকে পূথিবীর সাথে connect করতে।আনেক শুভকামনা।

১১ ই এপ্রিল, ২০২০ দুপুর ২:৩৮

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: সাড়ে চুয়াত্তর-এর কমেন্টে আপনার কমেন্টের উপর অলরেডি হাইলাইট করেছি। যে কারোরই একটা নিজস্ব একান্ত ভুবন থাকা চাই, যেখানে সে সর্বেসর্বা, যা খুশি তাই করতে পারে, কোনো নিষেধ নাই, আদেশ নাই। আমারও এরকম একটা ভুবন আছে। মহারাজাধিরাজ আমি সেই ভুবনে। যখন ইচ্ছে ডুব দিই। আবার ইচ্ছে হলেই ঝলসানো তলোয়ার হাতে গর্জে উঠি।

আমার ব্লগে আপনাকে স্বাগতম। শুভেচ্ছা নিন। ঘরে থাকুন, নিরাপদে থাকুন।

৬| ১১ ই এপ্রিল, ২০২০ বিকাল ৩:০০

সাড়ে চুয়াত্তর বলেছেন: সময় করে ছবিটা দেখতে পারেন নিশ্চয়ই এবার হতাশ হবেন না। নিজস্ব ভুবন আসলে সবার দরকার আছে। এটা শরীর, মন উভয়ের জন্য উপকারী। ধন্যবাদ।

১১ ই এপ্রিল, ২০২০ বিকাল ৩:২২

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: আবার এসে সাজেশন দেয়ার জন্য অনেক ধন্যবাদ।

৭| ১১ ই এপ্রিল, ২০২০ বিকাল ৩:৪৮

মিরোরডডল বলেছেন: যে কোন গান অরিজিনালটাই মোস্ট অভ দা টাইম ভালো লাগে । প্রতিমা পাণ্ডেরটা ভালো লেগেছে ।
আর নতুনদের মধ্যে পাপন এর ভার্সন ২ ।
বোনাসে বাবা ছেলের সুন্দর পরিবেশনা । ধুলোর কণ্ঠ আর বাবুর গীটার ।

১১ ই এপ্রিল, ২০২০ বিকাল ৪:১৫

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: আপনার সাথে একমত।

পাপনের গানটা বেশ জনপ্রিয় হয়েছিল। এবং এরা দুজন অসাধারণ গেয়েছেন।

ছেলের গিটারে আমি মুগ্ধ। আরো রিফাইন করার চেষ্টা করছে এই মিউজিকটা। এ অংশটুকু আমি নিজেই বার বার শুনছি।

প্রতিমা বড়ুয়ার ব্যাপারে উইকিপিডিয়ার প্রথম প্যারা এরকম : রতিমা বড়ুয়া পাণ্ডে (অসমীয়া: প্ৰতিমা বৰুৱা পাণ্ডে) (৩ অক্টোবর, ১৯৩৫ – ২৭ ডিসেম্বর ২০০২) ছিলেন জনপ্রিয় লোকগীতি গায়িকা। জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত প্রতিমা বড়ুয়া পাণ্ডে বিখ্যাত ছিলেন তাঁর অমর গোয়ালপাড়িয়া গান হস্তির কন্যা এবং মোর মাহুত বন্ধুরের জন্য। তিনি ছিলেন প্রকৃতীশচন্দ্র বড়ুয়ার কন্যা এবং দেবদাসখ্যাত চলচ্চিত্র পরিচালক প্রমথেশ বড়ুয়ার ভাইঝি।

ডুলুর জন্য অনেক অনেক শুভেচ্ছা।

৮| ১১ ই এপ্রিল, ২০২০ বিকাল ৫:৩৮

মিরোরডডল বলেছেন: থ্যাংকস ফর ইউর ইনফরমেশন । গুড টু নো ।

ধুলো মন দিয়ে গান দুটি শুনবে । মেয়েটির কণ্ঠ খুব মিষ্টি ।

'প্রতিক্ষণে একই ছবি
হৃদয়ের ক্যানভাসে
যেন সে তোমারই ছোঁয়া
বারে বারে ফিরে আসে'

তোমায় ভালোবেসে

'ওই চোখে চোখ রেখে
দিয়েছি এ মন তোমায়
সঁপেছি হৃদয়ওখানি
সঁপেছি জীবন'

মনের আঁধার

১১ ই এপ্রিল, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:০৮

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: ধুলো বেশ ভালোই ঝামেলায় পড়ে গেল দুটো গান নিয়েই। প্রথম গানটা 'তোমায় ভালোবেসে'র শিরোনাম হলো 'আঁধারের আলো'। ইউটিউবে এটা ভার্সন-২ নামে দেয়া। আমার কাছে আগে ন্যান্সির সব সিডিই থাকতো। পিসি চেক করে দেখি, আপনার লিংকের 'মনের আঁধার' গানটা ন্যান্সির 'আমার প্রিয়তম' অ্যালবামের গান, শিরোনাম- আঁধারের আলো, সহশিল্পী পারভেজ। ইউটিউবে 'আঁধারের আলো' ভার্সন-১ খুঁজতে যেয়ে দেখি, এটাও আমার কাছে আছে, এবং একই অ্যালবামে 'আঁধারের আলো' নামেই অন্তর্ভুক্ত।

তো, আপনার লিংকের গানদুটো মূলত একই গান। নীচেরটা পারভেজের সাথে, আর উপরেরটা ন্যান্সি একা গেয়েছেন। ওটা মনে হয় পরে রিলিজ হয়েছে, আমার পিসি ভালো করে না খুঁজেই বললাম- ওটা আমার কাছে নাই। পিসিতে এত গান যে, কোনো একটা গান দ্বিতীয়বার আমার শুনতে হলে ঐ গানটাকে অনেক ভাগ্যবান হতে হবে :) বুঝতে পারছেন তো? :)

৯| ১১ ই এপ্রিল, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৩৮

মিরোরডডল বলেছেন: ধুলোর মাথা নষ্ট । আমার মাথাটাও নষ্ট করবে । পিসিতে আছে না নেই,
এতো ঝামেলার কি আছে । আমার লিংক দুটাতে গান দুটো শুনলেই হয় ।

শিরোনাম আমি আমার মতন করে দিয়েছি ‘তোমায় ভালোবেসে’ ‘মনের আঁধার’ :)

আই নো সেইম সঙ । প্রথমটা পারভেজের সাথে ক্ল্যাসিকাল ডুয়েট । পরে ভার্সন ২ সিঙ্গেল এ্যালবামে
নান্সির কণ্ঠে । আমারতো দুটোই ভীষণ প্রিয় । সিঙ্গেলটায় অন্তরার কথাটা রিপিট হয়না তাই খুব ছোট হয়েছে গানটা ।

আচ্ছা গানটা ধুলোর কেমন লাগে সেটাতো বললোনা । পুরোটা শুনেছে নাকি খোঁজাখুঁজি অনলি :|

১১ ই এপ্রিল, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৫৬

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: ডুলুর কমেন্ট করার পর থেকে ধুলো মূলত ৩টা গান নিয়েই ব্যস্ত ছিল। প্রথম লিংকটা বেশ কয়েকবারই বেজেছে, ধুলো তখন ভিডিও এডিটিঙের কাজ করছিল গান অন রেখে। গণ্ডগোল ছিল ভার্সন-২ দেখে। স্বাভাবিক ভাবেই ভার্সন-১ দেখার সাধ জাগে। আর, যেহেতু ন্যান্সির সিডি আগে নিয়মিত কেনা হতো, তাই পিসিও চেক করা হলো আগের সিডিতে এই গানগুলো ছিল কিনা। বাকি ইতিহাস উপরেই বিদিত হয়েছে।

ন্যান্সির বেশ কিছু গান একাধিকবার শোনার মতো আছে। তবে, স্পেসিফিক্যালি গানের নাম মনে রাখতে ধুলো অপারগ। ধুলোকে মার্জনা করতে ডুলুর যেন র্জি হয়।

এখানেও ব্যাপারটা আর উহ্য না থাক। দুটো গানই ধুলোর বেশ ভালো লেগেছে।

১০| ১১ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ৮:১৩

মিরোরডডল বলেছেন: থ্যাংকস ধুলো সময় করে শোনার জন্য

১১ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ৮:৩০

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: ধুলোও ধন্যবাদ জানিয়েছে

১১| ১১ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ৮:২৩

মিরোরডডল বলেছেন: ধুলোর পিসিতে যত গানের কালেকশন আছে সেটা যেন এক্সট্রা ডিভাইসে ব্যাকাপ রাখা হয় ।
যদি পিসি ক্র্যাশ করে বাই এনি চান্স ।

১১ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ৮:৩৪

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: পিসিতে অরিজিন্যালি ১ টেরাবাইট, এসডিপিতে আরো ১ টেরাবাইট, মোট ২ টেরাবাইট। আরো ১ টেরাবাইট যোগ করা যাবে কিনা, সে ব্যাপারে গতকাল থেকে ধুলো ভেবে সারা :( কারণ, অলরেডি একটা ড্রাইভে লো ডিস্ক স্পেইস দেখাচ্ছে গতকাল থেকে। মোবাইল হার্ড ডিস্কে শুধু ইম্পরটেন্ট জিনিসগুলো রাখা হয়।

১২| ১১ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ৮:৫৪

মিরোরডডল বলেছেন: সেটা ঠিক আছে ইফ রিকয়ার অ্যাড করাই যায় ।
আমি বলতে চাইছি, একটা ইউএসবি ফ্ল্যাশ ড্রাইভ যেটা 2TB পর্যন্ত হতে পারে , ওটাতে ব্যাকআপ রাখা যায় ।
কজ ইলেক্ট্রনিক্স জিনিস যেকোনো সময় ক্র্যাশ হতেই পারে ।

১১ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ৯:৩৩

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: আমি সারাজীবনই ব্যাকআপ রেখে আসছি। তবে, ব্যাকআপের জন্য মোবাইল হার্ড ডিস্কের সাইজ ১ টিবি। এবং, আগের মতো একচাপা সবকিছু এখন আর ব্যাকআপে নিচ্ছি না। প্রথমত, এত স্পেইস নাই মোবাইল হার্ড ডিস্কে, দ্বিতীয়ত, প্রতিদিন আমার এত বেশি পরিমাণে নতুন জিনিস অ্যাড হচ্ছে, যেগুলো ব্যাক আপে নেয়ার মতো ধৈর্য নাই, তাই ইম্পর্টেন্ট আর লেস/নন-ইসেনশিয়াল ম্যাটারিয়াল হিসাবে আলাদা করে ফেলছি।

পিসিতে আরো ২টিবি এসডিপি যোগ করা গেলে সেটাই বেস্ট হবে।

একি, এত ঘ্যানর ঘ্যানর করলাম কেন। ধুলো কোথায়?

ছেলের গিটার আমার খুব শুনতে ভালো লাগছে। আজ আবার নতুন করে কিছু যোগ হয়েছে। আপনি শুনতে চাইলে প্রথম অর্ধেক টেনে শুন্তে/দেখতে পারেন।



'আপনি' বলতে ডুলুকে বোঝানো হয়ে থাকে

১৩| ১১ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ১০:২১

আখেনাটেন বলেছেন: গানটি প্রথম শুনলাম। :D

কদিন আগে মজার আরেকটি গানের সাথে পরিচিত হলুম। বাংলা নাকি অসমিয়া নাকি...

ছাতা ধরো হে দেওরা
হেসান সুন্দর খোঁপা আমার ভিগ গিলাই না
ছাতা ধরো হে দেওরা
হেসান সুন্দর শাড়ি আমার ভিগ গিলাই না
ছাতা ধরো দেওরা
হেসান সুন্দর খোঁপা আমার ভিগ গিলাই না
রিমিঝিমি পানীয়া বরষ দিলাই না,
রিমিঝিমি পানীয়া বরষ দিলাই না,
হেসান সুন্দর শাড়ী আমার ভিগ গিলাই না
ছাতা ধরো হে দেওরা
হেসান সুন্দর খোঁপা আমার ভিগ গিলাই না। B-)

১১ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ১০:৩৫

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: বাংলা আর অসমিয়ার মধ্যে কী পার্থক্য আমার জানা নাই। তবে, এটা তো বাংলাই মনে হচ্ছে। চলতি বা আঞ্চলিক ভাষা হতে পারে। হেসান - এত। ভিগ - ভিজ - উচ্চারণ হচ্ছে 'ভিজ' হিসাবে। দেবরকে ছাতা ধরতে বলছে, যাতে এত সুন্দর খোঁপা ভিজে না যায়। কিছু শব্দ অবশ্য বুঝি নাই।

১৪| ১১ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ১০:২৩

আখেনাটেন বলেছেন: লিংক.....ইউটিউবে....

ছাতা ধরো হে দেওরা

১১ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ১০:৪০

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: গানটা অসাধারণ। আগে কখনো শুনি নাই। এরই মধ্যে দুইবার শোনা হয়ে গেল। ঐ লিংকে তো আরো ভালো ভালো গান আছে দেখছি।

১৫| ১১ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ১০:৪৩

ডার্ক ম্যান বলেছেন: আপনার মেইল আইডি দরকার।

১১ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ১১:০৩

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: [email protected]

১৬| ১১ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ১০:৫৪

রাজীব নুর বলেছেন: আরেকবার ধন্যবাদ আপনাকে।

১১ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ১১:০৪

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: আপনাকেও ধন্যবাদ। এবং ইতিমিধ্যে আপনি একটা গান শুনেও ফেলেছেন দেখলাম :)

১৭| ১১ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ১০:৫৯

আখেনাটেন বলেছেন: হুম, তু লাল পাহাড়ির দেশে যা, রাঙামাটির দেশে যা, ইতাক তুরে মানাইছে নাই গো, ইক্কেবারে মানাইছে নাই গো...এই গানটিও অসাধারণ লাগে।

১১ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ১১:১২

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: আরেকটা ভালো ফোক গান আছে। যদ্দূর মনে পড়ে, আপনিই লিংক দিয়েছিলেন। অথবা, ঠাকুরমাহমুদ দিয়েছিলেন। অনেক বার শুনেছি।

১৮| ১১ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ১১:০১

আখেনাটেন বলেছেন: ঐ কয়টা ফোক সং আমি ঘন্টার পর ঘন্টা কানে লেগে শুনছি কদিন থেকে। লোপামুদ্রার 'লালমাটি সবুজ টিলা' অসাধারণ।

১১ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ১১:১৪

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: আমিও শুনবো। ধন্যবাদ লিংকের জন্য।

১৯| ১২ ই এপ্রিল, ২০২০ বিকাল ৫:০০

মিরোরডডল বলেছেন: বাবুটা গিটার ভালোই বাজায় । বড় হলে আরও ভালো করবে ।
আখেনাটেন এর লিংকে ছাতা গানটা দারুন !!
এরকম পাহাড়ি রিদমিক গান ভালোই লাগে ।
ধুলোর লিংক কাজলের কালো এটাও ভালো লেগেছে ।
এই গানগুলোর মাঝে অনেক রিদম আছে ।
থ্যাংকস ধুলো ।

১২ ই এপ্রিল, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৩৫

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: বড়ো ছেলের গিটার বাজানো ওর বন্ধু মহলে খুবই প্রশংসিত হচ্ছে। ছোটো ছেলে তার ভাইয়ের দেখাদেখি শিখে ফেলেছে। তার বড়ো গুণ হলো অল্প সময়েই সে সুর তুলতে পারে, কিন্তু খারাপ গুণ হলো, ওটা রিফাইন করার জন্য আর সময় দেয় না, কারণ, গেইমস খেলতে ব্যস্ত হয়ে পড়ে।

আমি জীবনে অনেক চেষ্টা করেছি বাঁশি বাজানো শিখতে। একদিন সায়েন্স ল্যাব থেকে সে বাঁশি কিনলো এবং অবাক হয়ে দেখলাম কয়েকদিনের মধ্যেই সে বাঁশি বাজানো শিখে গেছে।

কাজল কালো গানটা আমার সামনে উঠে এলে আমি একটানা শুনতে থাকি।

২০| ১২ ই এপ্রিল, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৫৫

আখেনাটেন বলেছেন: এই গানগুলিও ভালো লেগেছিল: 'পিনদারে পলাশের বন, পালাবো পালাবো মন, নেংটি ইঁদুরে ঢোল কাটে, কাটে হে, গতরে পিরিতের ফুল ফোটে.......






১৪ ই এপ্রিল, ২০২০ সকাল ১০:২৬

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: প্রথম গানটা আগে শুনি নাই। তবে, পরের দুইটা তো খুব জনপ্রিয় গান। ভাল শেয়ার দিয়েছেন।

শুভ নববর্ষ ১৪২৭।

২১| ১৩ ই এপ্রিল, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:১১

মিরোরডডল বলেছেন: ইটস ট্রু ধুলো । বাঁশি বাজানো অনেক কঠিন । আমার বোন অনেক ট্রাই করেছিল । ফাইনালি গেভ আপ । বাবুকে এনকারেজ করা হোক যেন বাঁশি কনটিনিউ করে । আমার প্রিয় একটা ফ্লুট শেয়ার করলাম । ইন ফ্যাক্ট এটা আমার সবচেয়ে প্রিয় ।

আর একটা সিক্রেট হচ্ছে অনেক বছর পর্যন্ত এটা আমার নিক ছিল ।
সামুতে না বাট অন্য কোথাও ।

Lonely Shepherd

১৪ ই এপ্রিল, ২০২০ সকাল ১১:৩৫

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: বাঁশিটা খুব মনোযোগ দিয়ে শুনলাম। মনোযোগের কারণ হলো, বাঁশির শুরুর অংশটা অন্য কোথায় যেন শুনেছি মনে হলো। এরপর মাঝখানেও কিছু অংশ মনে হলো, কোথায় যেন শুনেছি। সেই সুরটা খুঁজে পাচ্ছি না।

আমি তো এটাও শুনলাম

সুরটা দূরে কোথাও নিয়ে যায়। অসাধারণ।


২২| ১৪ ই এপ্রিল, ২০২০ দুপুর ১২:০১

মিরোরডডল বলেছেন: হুম ধুলো হি ইজ দা ওয়ান । Gheorghe Zamfir এই সুরের স্রষ্টা । তাঁর লাইভ পারফরমেন্স ।
চেনা লাগছে ? KillBill movie theme song. সেই সাউন্ডট্রাকে শোনা হতে পারে ।

You are absolutely right. দূরে কোথায় যেন নিয়ে যায় আর সেজন্যই আমার এতো ভালো লাগে ।

আর সাথে যিনি আছেন André Rieu উনি অসাধারণ ভায়োলিন বাজায় ।
আমার অনেকি প্রিয় ভায়োলিন ।


Romeo & Juliet

১৪ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ৮:৩০

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: না, মুভিতে না, দেশীয় বা উপমহাদেশীয় কোনো গানের মাঝখানের কিছু অংশের সাথে মিল মনে হচ্ছিল, যেটা একান্তই কাকতালীয়। তবে, সেই চেনা সুরটা ধরতে পারছি না, এবং এই ধরতে না পারাটা একটা অস্বস্তিও সৃষ্টি করছে :(

শুভ নববর্ষ ১৪২৮।

২৩| ১৪ ই এপ্রিল, ২০২০ দুপুর ১২:০৫

মিরোরডডল বলেছেন: ধুলো আখেনাটেন কে নববর্ষের শুভেচ্ছা দিলো, আমাকে কেনো দিলোনা :(

শুভ নববর্ষ ধুলো ।

১৫ ই এপ্রিল, ২০২০ সকাল ১১:৫৭

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: ডুলুকেও শুভেচ্ছা জানানোর কথা ছিল। কিন্তু কীভাবে কী ঘটে গেল বাঁশির সুরে, ধুলো তা নিজেও বুঝতে পারে নি।

আমার একটা অস্বস্তিকর অসুখ আছে। মগজে কিছু ঢুকে গেলে ওটা সুরাহা না হওয়া পর্যন্ত পোকারা মগজ কামড়ায়। বাঁশির সুরের একটা অংশ একটা পরিচিত গানের ১০/১৫ সেকেন্ডের একটা অংশের সাথে মিলে যায়- সেই সুরটা 'জানি নাআআআআআআ' পর্যন্ত মনে আসে, আগে-পরের কিছুই আসে না। আশ্চর্য হলো, আজ সকালে সেই অংশ ধরতে পারি, অর্ণব বা আগুনের গান, কিন্তু এখন আবার ভুলে গেছি :(

২৪| ১৫ ই এপ্রিল, ২০২০ বিকাল ৪:১২

মিরোরডডল বলেছেন: বাঁশির সুরে ভুলে ধুলোর এমনই অবস্থা যে ১৪২৭ হয়ে গেছে ১৪২৮ ।

আসলে এই টিউনটা অনেকি পুরনো আর পপুলার । কাজেই আমাদের উপমহাদেশে যদি অন্য কারো গানে ওটা ফলো করে এটা হতে পারে । নাথিং নিউ । এরকম অনেক হয়েছে । বাইরের একটা সুর প্রথমে ইন্ডিয়া পরে বাংলাদেশ অনুকরন করে । আবার কাকতালীয় মিলে গেছে এটাও হতে পারে ।

ভুলে গেছে বেশ হয়েছে , মনে পরলে যেন আমাকে দেয়া হয় ।

ধুলো জানে আমার ধৈর্য কম তারপরও এতো লেইট করে রিপ্লাই করে, এরকম করলে কিন্তু আমি আর সুরে সুরে খেলবোনা বলে দিচ্ছি ।

আমি যে একটা ভায়োলিন দিয়েছিলাম, ওটা কে শুনবে ?

১৫ ই এপ্রিল, ২০২০ বিকাল ৫:১৫

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: বাঁশির সুরে ভুলে ধুলোর এমনই অবস্থা যে ১৪২৭ হয়ে গেছে ১৪২৮। ধুলো জেনেশুনেই ১৪২৮ দিয়েছে :) ডুলুর চোখে এটা ধরা পড়েছে দেখে ধুলো বিস্মিত ও মুগ্ধ হয়েছে।

টিউনটা কাকতালীয় হওয়াই স্বাভাবিক। এখন মনে হচ্ছে, ওটা আমার ভুলও হতে পারে, অর্থাৎ আগে ওটা শুনেছি কোথাও মনে হলেও আদতে শুনি নি; টিউনটা এরকম যে দূরে কোথাও নিয়ে যায়, এজন্য এ ভ্রমটা হয়ে থাকতে পারে। ওটা ধুলো আজও শুনেছে দুবার।

পরের ভায়োলিনটা ধুলো গতকালই শুনেছে। আজও শুনেছে। আবারও শোনার ইচ্ছে আছে তার।

একসাথে অনেকগুলো নৌকায় পাড়া দিতে গেলে যা হয় আর কী :) খাওয়া দাওয়া বা ঘুমানোর ঝামেলা না থাকলে ঐ সময়টা গানে ও ব্লগে দেয়া যেত। কিয়েক্টাবস্থা ক্ষুধা আর ঘুমের জন্য :(

২৫| ১৬ ই এপ্রিল, ২০২০ সকাল ৯:৫১

মিরোরডডল বলেছেন: :)

১৬ ই এপ্রিল, ২০২০ সকাল ৯:৫৯

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: ডুলু এত সকালেই ঘুম থেকে উঠেছে?

২৬| ১৬ ই এপ্রিল, ২০২০ সকাল ১০:০৮

মিরোরডডল বলেছেন: সকাল ? #:-S
সারাদিন অফিস করে অলমোস্ট এন্ড ।

১৬ ই এপ্রিল, ২০২০ সকাল ১০:১০

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: ওটা তাহলে ধুলোর সকাল আর ডুলুর বিকাল হবে

২৭| ১৬ ই এপ্রিল, ২০২০ সকাল ১০:১৮

মিরোরডডল বলেছেন: অনেকটা তাই

সকাল যেখানে চৌরাস্তায় গিয়ে
বিকেলে পরবে দুপুরের পথ দিয়ে
সেইখানে হবে দেখা
তোমার সঙ্গে একা

১৬ ই এপ্রিল, ২০২০ সকাল ১০:৩৩

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: প্রথম দুই লাইন দেখে তো চমকে উঠেছিলাম - 'দারুণ লিখেছেন তো' বলে লাফ দেয়ার আগেই নীচে চলে যায় চোখ।

সুমন ছিল একটা ক্রেজ। অবশ্য এখনো আছে। 'তোমার সঙ্গে একা' আগে শুনি নি। গানটার এক জায়গায় সামান্য ক্র্যাক মনে হয়েছে।

সুমনের সবচাইতে মুগ্ধতাপূর্ণ গান শুনেছি সর্বশেষ 'জাতিস্বর' ছবিতে। 'জাতিস্বর' ছবির সব শিল্পীর সব গানই বিস্ময়কর।

ছোটো ছেলে কয়েকদিন ধরে 'রাজাহীন রাজ্য' (শূন্য ব্যান্ডের) গানটা প্র্যাকটিস করছে। ছেলে যা গায় তাই ভালো লাগে।

আপনি একটা ছয় লাইনের খুব সহজ লিরিক লিখুন। ছোটো ছোটো লাইন হতে হবে।

২৮| ১৬ ই এপ্রিল, ২০২০ সকাল ১১:১৬

মিরোরডডল বলেছেন: ধুলো !!!!
লিরিক???? আমি লিখবো????
Come on man… আমিতো লিখিনা
ধুলোরা লিখবে , আমরা পড়বো অথবা শুনবো :)

বাবা ছেলের গানে মুগ্ধ হবে এটাইতো স্বাভাবিক ।

সুমনের অনেক সুন্দর সুন্দর গান আছে ।
'জাতিস্বর' মুভি দেখিনি কিন্তু গানটা শুনেছি, অনেক সুন্দর ।

১৬ ই এপ্রিল, ২০২০ সকাল ১১:৩৭

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন:


এটা একটা লিরিক। একটা সুরও আছে। ইনফ্যাক্ট, সুরটা ধরার জন্যই লিরিক্স। লিরিক্স পড়েকি কিছু বোঝা যায়?

এইখানে যারা ছিল জানে না তারা
কোথায় ছিল তাদের মূল ঠিকানা
একদিন দল বেঁধে
গ্রাম ছেড়ে চলে গেল
কোথায় যে গেল তারা
জানা গেল না না
আর জানা হলো না

আকাশের তারা খোঁজে
নদী ও পাহাড় খোঁজে
কোথাও নেই তারা
পৃথিবীর মাঝে

আর তারা এলো না
ফিরে তারা এলো না
কোথায় যে গেল তারা
জানা গেল না না
আর জানা হলো না
কেউ জানে না না
কেউ জানে না
আর জানা হলো না
আর জানা হলো না

০৪ নভেম্বর ২০১৯

২৯| ১৬ ই এপ্রিল, ২০২০ দুপুর ১২:১৩

মিরোরডডল বলেছেন: বাহ !
এর কিন্তু অনেকগুলো অর্থ হতে পারে ।
প্রথমত, এই সুন্দর ভুবন ছেঁড়ে যারা চিরতরে চলে গেছে তাঁদের কথা বলা হয়েছে ।
এটা ইন জেনারেল ডেথকে বোঝানো যায় ।
অথবা হতে পারে মহামারীতে যারা মারা যায় (chances are very slim though)
ফাইনালি, হতে পারে আমাদের সমাজে মাইনর সম্প্রদায় যারা দল বেঁধে দেশ ছাড়া হয়েছে তাঁদের কথা । (chances are slim again) কারণ পৃথিবী ছেঁড়ে চলে যাওয়া আর দেশ ছাড়া এক কথা না ।
কোরবানির গরুও হতে পারে । হা হা হা ...সরি :)

এখন শুনি লেখক কি ভেবে লিখেছেন ।

১৬ ই এপ্রিল, ২০২০ দুপুর ১২:২৬

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: এবার একটা খেলা। লিরিক্স থেকে একটা সুর কল্পনা করুন, বা ভাবুন, কীরকম হতে পারে। এরপর এর সাথে মিলিয়ে দেখুন, যেরকম ভেবেছেন তার সাথে মিল বা তফাত কতখানি। এটা এখন রেকর্ড করা।

এইখানে যারা ছিল জানে না তারা

১৬ ই এপ্রিল, ২০২০ দুপুর ১২:৩০

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: ব্যাখ্যা পড়ে মুগ্ধ ও বাকরুদ্ধ।

৩০| ১৬ ই এপ্রিল, ২০২০ দুপুর ১২:৩৫

মিরোরডডল বলেছেন: আমিতো ঠিক এরকম কিছু একটাই ভেবেছিলাম :)
কি মজা !! খেলায় জিতে গেছি :) :)

এবার ঝটপট বলে ফেলা হোক তাঁরা কারা ।

ধুলো অভয় দিলে একটা কথা বলবো ।

১৬ ই এপ্রিল, ২০২০ দুপুর ১২:৩৭

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: ডুলুকে অভয় দান করা হলো।

১৬ ই এপ্রিল, ২০২০ দুপুর ১২:৪২

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: খেলায় জেতার জন্য অভিনন্দন। একটা গান বা কবিতার অর্থ লেখক যদি বলে দেয় তাহলে এর বহুমাত্রিকতা বন্ধ হয়ে যায়। এমনও হতে পারে, লেখক নিজেও জানে না সে কী বলতে চেয়েছিল, কিন্তু পাঠকের কৃতিত্ব এটাই যে তারা লেখকের মন বা ভাবকে ছাপিয়ে লেখার গভীর একটা অর্থ বের করে তার স্বাদ উপভোগ করেছেন।

আপনার ব্যাখ্যা করার ক্ষমতা দেখে আমি চমৎকৃত।

৩১| ১৬ ই এপ্রিল, ২০২০ দুপুর ১২:৪৬

মিরোরডডল বলেছেন: ধুলোর কণ্ঠে কিন্তু অনেকগুলো গান শুনেছি সো ফার ।
আমার মনে হয়েছে
একটা জিনিস একটু কারেকশন করে নিলে গানগুলো আরও ভালো হতে পারে ।
সেটা হচ্ছে ‘ছ’ এর উচ্চারণ ।
এটাকে কন্সট্রাক্টিভ ক্রিটিসিজম ভেবে নিলে খুশী হব ।
ধুলো অনেক জানে । আই’ম নো ওয়ান টু এডভাইস ।
আমার কোথায় ধুলো কিছু মনে করেনি, রাইট ?

১৬ ই এপ্রিল, ২০২০ দুপুর ১২:৫০

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: ছ আর জ স্পষ্ট হয় না, সেটা আমি ট্রাই করেছি। আরেকটা হয়ত খেয়াল করেন নি- সেট হলো র-ফলা- যেমন গ্রাম। হঠাৎ শুনলে গাম মনে হতে পারে। অন্য একটা গান আমি বাদ দিতে দিতেও দিই যেখানে 'প্রেম' শব্দটা 'পেম' শোনা যায়, সূক্ষ্মভাবে না শুনলে র-ফলা আসে না।

শুনলে হয়ত অবাক হবেন, লাস্টটায় ছ-টা যাতে স্পষ্ট হয়, সেজন্য স্ট্রেস একটু বেশিই দিয়েছিলাম। ওটা আসে নি, গ্রামটা যদিও ততটা অস্পষ্ট হয় নি :)

৩২| ১৬ ই এপ্রিল, ২০২০ দুপুর ১:০২

মিরোরডডল বলেছেন: একটা গান বা কবিতার অর্থ লেখক যদি বলে দেয় তাহলে এর বহুমাত্রিকতা বন্ধ হয়ে যায়। এমনও হতে পারে, লেখক নিজেও জানে না সে কী বলতে চেয়েছিল, কিন্তু পাঠকের কৃতিত্ব এটাই যে তারা লেখকের মন বা ভাবকে ছাপিয়ে লেখার গভীর একটা অর্থ বের করে তার স্বাদ উপভোগ করেছেন।

লিরিকের মন্তব্যে যেটা বললো, সেটা বললে হবেনা ধুলো ।
এই লেখার স্বাদ উপভোগ করতে হলে কোন কনক্লুশনে আসা যাচ্ছেনা ।
লেখক প্যাঁচ লাগিয়ে রেখেছে, কি করে মর্মোদ্ধার হবে :)
এটার লিরিক কিন্তু কনফিউজিং, তাই আমি জানতে চাই ।
ইন জেনারেল মৃত্যুকে নিয়ে ভাবা যেত ।
কিন্তু ওই যে বলা হোল দল বেঁধে গ্রাম ছেঁড়ে চলে যাওয়ার কথা ।
আবার বলা হোল পৃথিবীর কোথাও নেই । ডেফিনিটলি এখানে মৃত্যুকে ইন্ডিকেইট করছে ।
কিন্তু দল বেঁধে কেন ? গ্রামই বা কেনো, শহর নয় কেনো ?
সো লেখকের দায়িত্ব এটা ক্লিয়ার করা :)

১৬ ই এপ্রিল, ২০২০ দুপুর ১:১৩

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: নদীর পাড়ে একটা চর জেগে উঠেছে। সেই চরে একদল উদবাস্তু এসে ঘর বাঁধলো। কিন্তু, চরের প্রশাসন খুব জটিল বিষয়। এখানে জোরদখল হয় অনেক বেশি। একদিন প্রভাবশালী গোষ্ঠী তাদের মেরে তাড়িয়ে দিল। তারা যেভাবে এসেছিল, সেভাবেই হঁটে গ্রাম ছেড়ে চলে গেল।

এটাই সারফেস মিনিং

এবার এর সাথে আপনি অন্য কিছুও মেশাতে পারেন, বা তুলনা করতে পারেন।

কিন্তু, এই যে আমি ব্যাপারটা বলে দিলাম, আপনি আপনার মনকে আর অন্য কোনো দিকে ধাবিত করতে পারবেন না, ঘুরে ফিরে চরেই চলে আসবেন :) এজন্যই বলা হয়, কবিতা হলো বহুমাত্রিক, যার কোনো নির্দিষ্ট অর্থ নেই, এর অর্থ একেক জনের কাছে একেক রকম। যে যেভাবে অর্থ বানায়, ওটাই সঠিক।

একবার রবীরন্দ্রনাথের কোনো একটা কবিতা বিশ্ববিদ্যালয়ে পাঠ্যভুক্ত করা হলো। তার কাছে আবেদন করা হলো, সব ছাত্রকে একই প্লাটফর্মে নিয়ে আসার জন্য একটা নির্দিষ্ট ব্যাখ্যা বেঁধে দেয়ার জন্য। তিনি দিয়েছিলেন।

সোনার তরী'র ব্যাপারে গল্প শুনেছি (কোথাও লিখিত আকারে থাকবে নিশ্চয়ই)- কবিতা প্রকাশ হওয়ার পর অনেক বিশিষ্ট কবি ও পণ্ডিতরা এর বিভিন্ন ব্যাখ্যা দাঁড় করালেন। কেউ বললেন বর্ষার মনোরম প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের বর্ণনা, কেউ বললেন ধান কাটার মৌসুমের বর্ণনা, ইত্যাদি। ঠাকুর সব শুনে তাদের বাহবা জানালেন। তিনি বললেন, আপনাদের ব্যাখ্যা ঠিক আছে। তবে, আমি যা ভেবে লিখেছি তা হলো এই- যা বর্তমানে আমরা জানি।

৩৩| ১৬ ই এপ্রিল, ২০২০ দুপুর ১:১৯

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: সুন্দর।+

১৬ ই এপ্রিল, ২০২০ দুপুর ১:২১

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: ধন্যবাদ প্রিয় কবি সেলিম আনোয়ার ভাই+

৩৪| ১৬ ই এপ্রিল, ২০২০ দুপুর ১:২৫

মিরোরডডল বলেছেন: আমার প্রথম ব্যাখ্যার একটা তাহলে মিলে গেলো মাইনরদের গ্রাম ছেঁড়ে চলে যাওয়া ।

আকাশের তারা খোঁজে
নদী ও পাহাড় খোঁজে
কোথাও নেই তারা
পৃথিবীর মাঝে


এই জায়গায় একটু খটকা থেকে গেলো । অবশ্য এটার মানেও করা যায় ।
আমাদের জীবন থেকে অনেকসময় অনেকে চলে যায় ।
এই পৃথিবীতে আছে কোথাও দূরে । যেহেতু কোন যোগাযোগ নেই বা থাকতে নেই ।
তাই বেঁচে থেকেও মৃত । একজন মানুষ মরে গেলে যে কষ্টবোধ হয় সেই একই ফিলিংস হয় হারিয়ে যাওয়া মানুষের জন্য ।
তখন হয়তো এভাবে বলা যায় পৃথিবীর কোথাও নেই !

১৬ ই এপ্রিল, ২০২০ দুপুর ১:৩৯

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: কবিতা হলো উপমা, তুলনা, উৎপ্রেক্ষায় ভরপুর সাহিত্যকলা। সাধারণ কথাটাকে অলঙ্কৃত করে প্রকাশ করা। এজন্যই এর এত অর্থ বের করা যায়।

গরীব মানুষের খবর ইতিহাসে লেখা থাকে না। তারা হারিয়ে যায়, বা নিশ্চিহ্ন হয়ে যায়। বা তারা যদি কোথাও বেঁচেবর্তে থাকেও, যে বাঁচা আদতে বেঁচে থাকা না (যা আপনি ঠিকই আইডেন্টিফাই করেছেন)।

এবার পুরো জিনিসটাকে আরো ব্যাপক ভাবে ভাবতে পারেন। চরটাকে চর না ভেবে পুরো পৃথিবীটাকেই ভাবতে পারেন। মানুষ কোথা থেকে এসেছে তা আমরা দিনের পর দিন গবেষণা করেই যাচ্ছি, পূর্ব পুরুষ কে ছিল, তা নিয়ে আরো কয়েক শতাব্দী পর নতুন তত্ত্ব উঠে আসতে পারে। এরা যে আবার কোথায় চলে যায়, তার জ্ঞান আমাদের ধর্মগ্রন্থ দিচ্ছে একরকম, বিজ্ঞান দিচ্ছে অন্যরকম, বা কিছুই দিচ্ছে না।

এতক্ষণে নিশ্চয়ই পুলকিত বোধ করছেন!!! :)

৩৫| ১৬ ই এপ্রিল, ২০২০ দুপুর ১:৩২

মিরোরডডল বলেছেন: আই হ্যাভ টু সে , আগের গানগুলোর চেয়ে এবারের গানটায় ‘ছ’ এর উচ্চারণ বেটার ।
সো ইউ ক্যান ডু । Practice makes a man perfect.
ধুলোর ‘ছ’ ‘জ’ সবই ঠিক হয়ে যাবে ।
আরও অনেক অনেক গান করবে ।

সুমনের অসংখ্য গান আমার পচ্ছন্দ । তাঁর মাঝে এটা খুব প্রিয় ।

তোমাকে দেখছি

১৬ ই এপ্রিল, ২০২০ দুপুর ১:৫০

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: সুমনের না-ভালো লাগা কোনো গান আছে কিনা আমি জানি না। প্রথম মনে হয়েছিল 'তোমাকে দেখছি' গানটা আগে শুনেছি, পরে মনে হলো শুনি নি, ল্যাম্পোস্ট নিয়ে বোধ হয় আরো একটা গান আছে, সেটা শুনেছি। প্রথম এলবাম 'তোমাকে চাই' অনেক বেশি শোনা হয়েছিল, ৯৩-তে (বের হয় ৯২-তে)। 'তোমাকে চাই' গানটা শুনতে শুনতে অ্যাবিউজমেন্টের পর্যায়ে চলে গেছিল :)

৩৬| ১৬ ই এপ্রিল, ২০২০ দুপুর ২:৩৮

মিরোরডডল বলেছেন: অ্যাবিউজমেন্ট??
হা হা হা ... পাগল একটা :)

প্রথম দুটা অ্যালবাম জোস , ম্যাক্সিমাম গান সুন্দর ।

ওকে ধুলো, ভালো থাকা হয় যেন ।

৩৭| ১৮ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ১১:০৮

মিরোরডডল বলেছেন: ধুলো

৩৮| ১৮ ই এপ্রিল, ২০২০ রাত ১১:২৮

মিরোরডডল বলেছেন: আই হ্যাড রাশ আদার ডে, তাই সেকেন্ড লাস্ট কমেন্ট রিপ্লাই করা হয়নি ।

“এবার পুরো জিনিসটাকে আরো ব্যাপক ভাবে ভাবতে পারেন। চরটাকে চর না ভেবে পুরো পৃথিবীটাকেই ভাবতে পারেন। মানুষ কোথা থেকে এসেছে তা আমরা দিনের পর দিন গবেষণা করেই যাচ্ছি, পূর্ব পুরুষ কে ছিল, তা নিয়ে আরো কয়েক শতাব্দী পর নতুন তত্ত্ব উঠে আসতে পারে। এরা যে আবার কোথায় চলে যায়, তার জ্ঞান আমাদের ধর্মগ্রন্থ দিচ্ছে একরকম, বিজ্ঞান দিচ্ছে অন্যরকম, বা কিছুই দিচ্ছে না।“

বলা হয়নি যে এ কথাগুলো ভালো লেগেছে । থ্যাংকস ধুলো ।

১৯ শে এপ্রিল, ২০২০ রাত ৯:১৪

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: কথাগুলো ভালো লেগেছে জেনে আমার ভালো লাগলো। মেনশন করার জন্য ধন্যবাদ।

৩৯| ১৬ ই অক্টোবর, ২০২০ রাত ২:০৩

মৃত্তিকামানব বলেছেন: তিনদিন ধরে গানটা শুনতেছি।দিনে দিনে। গুরুত্বপূর্ণ লেখা পেলাম। চ্যানেল আই এর অনুষ্ঠানে শ্রাবনীর পারফরম্যান্সে বারী সিদ্দিকীর কথাগুলো গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে হয়েছে।দ্বিতীয় গানটাই বিবর্তিত হয়ে প্রথমটা হয়েছে বলে উনার মতামত।দ্বিতীয় গানটাতে উনি "কোন বা রঙ্গে " বলেছেন।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.