নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

জামাত শিবির,ধর্মান্ধ মোল্লা ও একটি নির্দিষ্ট ধর্ম বিদ্বেষী মুক্ত ব্লগ।আপনার প্রতি আমি কেমন ব্যাবহার করবে তা আপনার আচরণের উপর নির্ভর করবে।সত্য মিথ্যা যাচাই না করে অন্যের কথার উপর ভিত্তি করে যদি আমার উপর সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন,তাহলে আমার বন্ধু হওয়ার দরকার নেই

মোহাম্মদ গোফরান

♠ঘুমন্ত শহরে, রূপালী রাতে, স্বপ্নের ও নীল চাদর বিছিয়ে, কষ্টের শীতল আবরন জড়িয়ে আমি আছি, আছি, তোমার স্মৃতিতে ভালবাসার সরল বাধন ছিড়ে, চলে গেছ এই হৃদয়টাকে ভেঙ্গে তুমি আমি একই শহরে তবুও একাকী ভিন্ন গ্রহে। মনে পরে সেই নিয়ন জ্বলা রাতে, অনন্ত প্রেম দিয়েছি উজার করে, নিঃসঙ্গ নিশি পথিক পেছনে ফেলে পথ হেটেছি বাধা দুটি হাতে। দূর আধারের ভালবাসায় হারাতে, ছুটে ছিলাম সেই রূপালী রাতে।♠

মোহাম্মদ গোফরান › বিস্তারিত পোস্টঃ

গায়ে হলুদ নামক অপ্রয়োজনীয় অনুষ্ঠানের কোন দরকার আছে কি?

১৮ ই আগস্ট, ২০২২ রাত ৮:২৪


একটি গায়ে হলুদ অনুষ্ঠানে লিনা।

চাটগাঁতে অধিকাংশ বৃহস্পতিবার যন্ত্রনাদায়ক হয়ে ওঠে গায়ে হলুদের জন্য। বিয়েটা সহজ ভাবে হয়ত নেয়া যায় কিন্তু গায়ে হলুদ রিসেপশান বা ওয়ালিমা খুবই অপ্রয়োজনীয় মনে হয় আমার কাছে। এক এলাহী কান্ড। নাচের অনুষ্ঠান, কনসার্ট, বর্তমানে ফেসবুক লাইভ, খানা-পিনার এলাহী আয়োজন কি নেই এতে? আমাদের সমাজের উচ্চবিত্তরা গায়ে হলুদ বিয়েতে এতো বেশি পরিমান অপচয় করেন যে, মধ্যবিত্ত নিম্নবিত্তের সামান্য কিছু হলেও আয়োজন করতে।

গায়ে হলুদকে ঘিরে চট্টগ্রামের মানুষের আয়োজনের শেষ নেই। যদিও এটি দেশের বহু প্রচলিত উৎসবের একটি। কালচারটি হল বর পক্ষ কনে পক্ষকে হলুদ পাঠাবে। কনে পক্ষ থেকে বিভিন্ন উপহার সামগ্রী পাঠাবে। সামান্য কিছু গেস্ট থাকবে। এই সিম্পল বিষয়টিকে ঘিরে এতো বিলাসিতা করা হয় যে, আপনি অবাক হয়ে যাবেন।

মাত্র কয়েকটি বলছিঃ
১) সামর্থ্য অনুসারে লক্ষ লক্ষ টাকা খরচ করে সিংগার আনা হয়। যদিও বড় বড় ব্যন্ড ও খ্যাতিমান শিল্পীরা গায়ে হলুদে পারফর্ম করে নিজেদের ক্লাস ডাইন করে না।

২) পরিবারের ও আত্নীয় লতাপতার জন্য ম্যাচিং করে একই রকমের শাড়ি পাঞ্জাবি কিন।

৩) অহেতুক সর্বনিম্ন ৩০০ সর্বোচ্চ ৫০০০ মানুষের খাবারের আয়োজন করা হয়। শিল্পপতিরা তো পারেনা শহরের সমস্ত নামি দামি মানুষকে নিয়ে আসতে।

৪) মেক আপ, ম্যাচিং জুয়েলারি, এই সেই হেন তেন ডিসের লাইন,বিশাল কেক, দুনিয়ার সব মিষ্টি।

৫) বিশাল কমিউনিটি হল ভাড়া কর, আলোকোজ্জ্বল কর, রাজকীয় স্টেজ বানাও।

আফসারাফ না উপরের সবগুলো? অহেতুক অপচয় করসে। সৃষ্টিকর্তা রিজিক ও বরকত হ্রাস না করে কি করবেন? সবচেয়ে বড় ছোটলোকি হচ্ছে - এসব অনুষ্ঠানে গরীব ফকির মিসকিন আসলে তাদের তাড়িয়ে দেয়া হয়! বড় লোকদের এগুলো দেখে মধ্যবিত্ত নিম্নবিত্তের সামর্থ্যের বাইরে গিয়ে কিছুটা হলেও আয়োজন করতে হয়। সম্ভবত হিন্দু ভাই বোনদের বিয়েতে আরও অনে বেশী খরচ হয়। এক মাসি মা যার একটা পার্লার আছে। তার সাথে কথা হল মেয়ের বিয়েতে নাকি ৩০ লাখ টাকা খরচ হবে।জুয়েলারী যৌতুক সব মিলিয়ে। অথচ নিচের ছবিতে লিনার স্টাইলিং এ হিন্দু বিয়ের সাজটি দেখুনঃ শাড়ি গহনা মেক আপ সব মিলিয়ে মাত্র ২০ হাজার টাকা। এগুলো কোন স্বর্নের জুয়েলারি নয়। নরমাল জুয়েলারি। মেয়েটি কিন্তু দেখতে অত সুন্দর নয়। তাঁকে ওভাবে সাঁজানো হয়ে। যাদুকরী মেক আপ আর্টিস্ট, সুনিপুণ স্টাইলিং, আর অসাধারণ ফটোগ্রাফি এর মাধ্যমে নিচের ছবি ক্রিয়েট হয়েছে। বলতে চাচ্ছি লাখ টাকা খরচ না করেও কম খরচে বউ সাজ থেকে শুরু করে বিয়ের সাঁজ সব সম্পন্ন করা সম্ভব।


পোস্ট উৎস্বর্গঃ বাংলাদেশের সকল কন্য দায়গ্রস্ত পিতা মাতা।

মন্তব্য ১৮ টি রেটিং +০/-০

মন্তব্য (১৮) মন্তব্য লিখুন

১| ১৮ ই আগস্ট, ২০২২ রাত ৮:৩৫

অধীতি বলেছেন: শেষ কথাটা যেমনি বলেছেন, ঐ কথার ভিত্তি ধরে বলা যায় বিয়ের সবগুলো পর্ব অনুষ্ঠান থাকুক। স্বল্প পরিসরে আনন্দোৎসব হোক।

১৮ ই আগস্ট, ২০২২ রাত ৮:৫৪

মোহাম্মদ গোফরান বলেছেন: । সেটাই, এই অপচয়ের টাকা দিয়ে ২ জন বেকারকে যদি এস্টাবলিশমেন্টের ব্যবস্থা করা হতো কতই না ভালো হতো।

২| ১৮ ই আগস্ট, ২০২২ রাত ৮:৩৯

কামাল৮০ বলেছেন: মানুষ সচ্ছল হওয়াতে আয়োজন এতো বেশি।আগে এতো আয়োজন ছিল না।এটা এই উপমহাদেশের একটা ঐতিহ্য।

১৮ ই আগস্ট, ২০২২ রাত ৮:৫৬

মোহাম্মদ গোফরান বলেছেন: যে দেশে দুও ৩য় অংশ মানুষ বেঁচে থাকার জন্য স্টাগল করছে সেখানে তাদের সাহায্য না অপ্রয়োজনীয় অপচয় বিলাসিতা ও লজ্জার।

৩| ১৮ ই আগস্ট, ২০২২ রাত ৮:৪২

পোড়া বেগুন বলেছেন:
ইসলাম ধর্মে বিয়েতে
গায়ে হলুদ প্রথাকে বর্জন
করতে বলেছে।

১৮ ই আগস্ট, ২০২২ রাত ৮:৫৮

মোহাম্মদ গোফরান বলেছেন: ইসলামের সমস্ত বিধান ও দিক নির্দেশনা সুন্দর। আমাদের কিছু লোক এই পবিত্র ধর্মকে কলংকিত করসে।

৪| ১৮ ই আগস্ট, ২০২২ রাত ৯:৩৬

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:
গোফরান ভাই,
কয়েকদিন ব্লগে
আসবোনা। ভালো
থাকবেন।

১৮ ই আগস্ট, ২০২২ রাত ৯:৫৯

মোহাম্মদ গোফরান বলেছেন: কেন আবার কি হল? এখন তো কেউ গালি ও ব্যক্তি আক্রমণ করসে না.।

৫| ১৮ ই আগস্ট, ২০২২ রাত ১০:২৪

ইফতেখার ভূইয়া বলেছেন: আমার বিয়েতে আমার কোন গায়ে হলুদ হয় নি বলতে পারেন আমি ইচ্ছে করেই করিনি। তাছাড়া ভুল না জেনে থাকলে গায়ে হলুদ মূলত সনাতন ধর্মীয় রীতির একটি প্রথা। লিখার জন্য ধন্যবাদ।

১৮ ই আগস্ট, ২০২২ রাত ১০:৩৮

মোহাম্মদ গোফরান বলেছেন: হ্যাঁ সনাতন ধর্ম থেকে। যেখান থেকেই আসুক। আমার মনে হয় এই গায়ে গলুদের নামে অহেতুক এতো এলাহি আয়োজন পরিহার করা উচিৎ। আপনি বুদ্ধি মানের কাজ করেছন। রাসুল সঃ বলেছেন -' যে বিয়েতে যত সিম্পল সে বিয়ে ততো বরকত ময় '

ভালো থাকুন ভাই।

৬| ১৮ ই আগস্ট, ২০২২ রাত ১০:৩০

সাড়ে চুয়াত্তর বলেছেন: চিন্তাধারা আধুনিক করতে পাড়ছি না বলেই আমাদের সমাজ পিছিয়ে পড়ছে। উন্নত সমাজগুলির ভালো দিক আমরা নিতে শিখিনি।

১৮ ই আগস্ট, ২০২২ রাত ১০:৪০

মোহাম্মদ গোফরান বলেছেন: সিম্পলিসিটি ইজ দ্যা ক্লাসিনেস। এটাই বুঝি না।

৭| ১৮ ই আগস্ট, ২০২২ রাত ১১:৪১

ইফতেখার ভূইয়া বলেছেন: লেখক বলেছেন: আমার মনে হয় এই গায়ে গলুদের নামে অহেতুক এতো এলাহি আয়োজন পরিহার করা উচিৎ। আপনি বুদ্ধি মানের কাজ করেছন। রাসুল সঃ বলেছেন -' যে বিয়েতে যত সিম্পল সে বিয়ে ততো বরকত ময় '

সহমত পোষণ করছি। ধন্যবাদ।

১৯ শে আগস্ট, ২০২২ রাত ১:০৮

মোহাম্মদ গোফরান বলেছেন: ধন্যবাদ ব্রাদার আবার মন্তব্যের জন্য।

৮| ১৮ ই আগস্ট, ২০২২ রাত ১১:৫৭

সত্যপথিক শাইয়্যান বলেছেন:


যাদের টাকা আছে, তারা করুক না! অসুবিধা কি!

আমি আমার গায়ে হলুদের বাজেট করেছিলাম ৩ লক্ষ টাকা।

পরে, ঘটা করে তা না করে সেই টাকা দিয়ে গরীব-দুখীদের খাইয়ে দিয়েছি।

১৯ শে আগস্ট, ২০২২ রাত ১:১২

মোহাম্মদ গোফরান বলেছেন: যাদের টাকা আছে তারা করুক আমার সমস্যা নেই কিন্তু যেখানে দেশের নিম্নমধ্যবিত্ত না খেয়ে আছে, কোটি কোটি শিক্ষিত ছেলে মেয়ে বেকার, সেখানে তাদের হেল্প না করে অহেতুক গায়ে হলুদে এতোগুলা টাকা খরচ করলে দেশের অক্ষম মানুষের উপর জুলুম হয়ে যায়। আল্লাহও অসুন্তষ্ট হোন।

আপনি তো আপনি। মানবিকতা ভদ্রতা শিক্ষা সত্যবাদিতা সততা সব আছে। এই জন্যই আল্লাহ আপনাকে সম্মানিত করেছেন।

৯| ১৯ শে আগস্ট, ২০২২ বিকাল ৩:২২

মেহবুবা বলেছেন: বাজে খরচ; এটা পাশের দেশের এবং আকাশ সংস্কৃতির ধাক্কা।
মনে হয় মানুষ ঠিক বুঝে উঠতে পারছে না যে এহেন অপচয় না করেও বিয়ের অনুষ্ঠান সুন্দর হতে পারে।

আমার সন্তানদের বিয়েতে কোন গায়ে হলুদ অনুষ্ঠান হবে না, যত খুশী হলুদ মাখুক সবাই! দরকার হলে কয়েক মন হলুদ এনে দেব।

সত্যপথিক শাইয়ানের সিদ্ধান্ত পরিবর্তনের বিষয়টি প্রশংসনীয়।

১৯ শে আগস্ট, ২০২২ বিকাল ৩:৩৫

মোহাম্মদ গোফরান বলেছেন: আপু ধন্যবাদ মন্তব্য করার জন্য।
পাশের দেশের দোষ দিয়ে লাভ নেই। তারা তাদের আচার পালন করবেন। আমরাও আমাদের আচার গুলো পালন করব। দুই বাংলা তো এক ছিল। তাই কালচার গুলো মিলে যাবে স্বাভাবিক।

দোষ হল আমাদের আমরা অপচয় করব কেন যেখানে দেশে কোটি কোটি বেকার। ঠিক মত খেতে পারসেনা।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.