নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

সব কিছুর মধ্যেই সুন্দর খুঁজে পেতে চেষ্টা করি............

জুল ভার্ন

সামু, আমার প্রিয় সামু-প্রত্যাশা পুরণে ব্যার্থতার ভারে নূহ্য! বর্তমান সামু কোনো দিন প্রত্যাশিত ছিলনা-তাই আপাতত সামু চর্চা বন্ধ। আপাতত সামু নষ্টদের দখলেই থাকুক। যদি মডারেটর চান-তাহলেই সামু আবার ফিরে আসবে স্বমহিমায়, ফিরে আসবো আমিও অনেকের মতই। ভালো থেকো প্রিয় বন্ধুরা। সকলের জন্য শুভ শুভ কামনা। * প্রানবন্ত কল্পনাশক্তির প্রয়োগে স্বচ্ছ ভাবনা আর বাস্তবতার মিশেলে মানুষ ক্রমশই সংকীর্ণ আর ক্ষুদ্র গন্ডিতে আবদ্ধ হয়ে যাচ্ছে।সব কিছু ছোট হয়ে যাচ্ছে, ছোট হয়ে যাচ্ছে আমাদের চিন্তা শক্তি-ছোট হয়ে যাচ্ছে আমাদের মন। আসুন পারস্পরিক মূল্যবোধ বিনিময়ে নিজ নিজ ভুল্গুলো শুধরে নিয়ে নিজেকে বিকশিত করি।

জুল ভার্ন › বিস্তারিত পোস্টঃ

লতা মুংগেস্কর আর রুণা লায়লা

২৩ শে নভেম্বর, ২০২১ সকাল ৯:৫৮

লতা মুংগেস্কর আর রুণা লায়লা

রুনা লায়লা ১৯৫২ সালে আজকের তারিখে জন্মগ্রহণ করেন-সিলেটে৷বাবা মোহাম্মদ এমদাদ আলী, মা অনিতা সেন,যাঁর বাড়ি ছিল কলকাতায়৷মা বিদ্যাসাগর স্ট্রিটের গায়িকা ছিলেন। মাত্র আড়াই বছর বয়সে বাবা রাজশাহী থেকে বদলি হয়ে তৎকালীন পশ্চিম পাকিস্তানের মুলতানে চলে গিয়েছিলেন। সেই সূত্রেই রুনার শৈশব কাটে পাকিস্তানের লাহোরে।মামা সুবীর সেন৷ বালিকা বয়স থেকেই রুনা ছিলেন গানের পাখি!

বাংলা, হিন্দি, উর্দু ছাড়াও গুজরাটি, পাঞ্জাবী, সিন্ধি, পশতু, বেলুচি, আরবি, পারসিয়ান, মালয়, নেপালি, জাপানী, ইতালীয়, স্প্যানিশ, ফরাসী ও ইংরেজিসহ ১৭টি ভাষায় অগণিত গান গেয়েছেন-গাইছেন!যার কয়েকটি "বন্ধু তিনদিন তোর বাড়িতে গেলাম দেখা পাইলাম না...
আল্লাহ মেঘ দে ....
ইস্টিশনে রেলগাড়িটা....
সাধের লাউ....
খাঁচার ভিতর অচিন পাখি” ......এসবের পাশে "প্রতিদিন তোমায় দেখি সূর্য রাগে"র মতন অসংখ্য দেশাত্মবোধক সঙ্গীত আচ্ছন্ন করে রেখেছে সুরবিলাসী-গান মুগ্ধ শ্রোতাদের"!অনেকের মতে তিনি"দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে জনপ্রিয় সংগীত শিল্পী।"
কল্যাণজি-আনন্দজির সুরে হিন্দি ছবি 'এক সে বারকার এক'- এর টাইটেল সং প্লেব্যাক ছিল তার প্রথম হিন্দি গান। অন্যান্য বিখ্যাত হিন্দি গানের মধ্যে আছে "দে দে পেয়ার দে",
"আও সুনলো",
"মেরা বাবু ছেল ছাবিলা" ইত্যাদি।রুনা প্রতিদিন ১০টি করে তিনদিনে নিসার বাজমির মোট ৩০টি গান রেকর্ড করেছিলেন-যা পৃথিবীর একদিনে রেকর্ডে ইতিহাস৷ গিনিস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে নাম উঠেছে।

আর একজন শ্রেষ্ঠ সঙ্গীত সাধিকা লতা মঙ্গেশকর! রুনা লায়লা আর তিনি বেশ কয়েকবার মুখোমুখি হয়েছেন৷ মুম্বাইয়ে দাদাসাহেব ফালকে অ্যাওয়ার্ডের বিচারক হিসেবে এক সংবাদ সম্মেলনে যোগ দিয়েছিলেন রুনা৷ ভারতে এসেছেন শুনেই তাঁকে নিজের বাড়িতে নৈশভোজের আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন লতা মঙ্গেশকর। মুম্বইয়ে লতার বাড়ি ‘প্রভুকুঞ্জ’-এ গিয়েছিলেন রুনা লায়লা।সে দিন ‘প্রভুকুঞ্জ’-এ উপস্থিত ছিলেন লতা মঙ্গেশকরের বোন ঊষা মঙ্গেশকর এবং ভাইপো বৈজনাথ মঙ্গেশকর। আড্ডা শেষে টুইটারে আড্ডার ছবি দিয়ে লতা লিখেছিলেন- “রুনা লায়লা আমাদের বাড়িতে এসেছিলেন। বহু দিন পর দেখা হল তাঁর সঙ্গে। অনেক কথা হল। খুব ভাল লাগলো।”
একটি সংবাদ মাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাত্কারে রুনা লায়লাও নিজের ভাললাগার কথা জানান। সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, “জীবন্ত কিংবদন্তি লতাজি ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে আলাপ হলো। তিনি আমার মেয়ে তানির কথাও জানতে চেয়েছেন। একসঙ্গে রাতের খাবার খেয়েছি। এই সন্ধ্যাটা সত্যিই ভোলার নয়।”

রুনা লায়লা ফিচারিং লেজেন্ডস ফরএভার অ্যালবামের জন্য শুভকামনা জানিয়েছিলেন কিংবদন্তি সংগীতশিল্পী লতা মঙ্গেশকর। এক অডিওবার্তায় তিনি পরিষ্কার বাংলায় বলেন—
‘নমস্কার রুনা। কেমন আছ তুমি। ভালো?’
এরপর হিন্দিতে বলেন, ‘রুনা, আমি তোমার গান শুনেছি, খুব ভালো লেগেছে। খুব ভালো গেয়েছ তুমি। ভালো তো গাওই তুমি। তবে এবার তুমি মিউজিক ডিরেক্টরও হয়ে গেলে।....
তোমার জন্য অনেক অনেক শুভকামনা রইল। তুমি অনেক বড় মিউজিক ডিরেক্টর হও। আমি সব বাংলাদেশি মানুষের প্রণাম জানাই এবং রুনা, তোমাকে অনেক অনেক ভালোবাসা ও নমস্কার।’
একটা ইংরাজি দৈনিকে রুনার সাক্ষাৎকার..
The diva recently met 'Bharat Ratna' Lata Mangeshkar at the latter's residence in Mumbai.
"I met Lataji on October 3. “I met Lataji for the first time in 1974 -- at my concert in Bombay (now Mumbai). That was my first show in India. Lataji was the chief guest at the concert, organised by ICCR. In 1975, I did playback for a film, 'Ek Se Badhkar Ek' (music direction by Kalyanji Anandji); Lataji attended the mahurat (launch) of that,” recalled Laila.

রবীন্দ্রনাথকে যেমন নজরুলের শত্রু,"বাংলাদেশের বিরোধী" হিসাবে তুলে ধরা হয়েছিল-তা অনেকটা সফল৷অনুরূপ লতাকে রুনা লায়লার প্রতিদ্বন্দ্বী তৈরি করে তাঁকে রুনা বিরোধী বানানোর অপচেষ্টা আছে৷নজরুল তাঁর রচনায় রবীন্দ্রনাথের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে ভুল করেননি৷রুনা লায়লার সাথে লতা মুঙ্গেস্করের সম্পর্ক ভালোবাসার-সন্মান -শ্রদ্ধার!

এমন সম্পর্ক অটুট থাকুক সাধারণ আমাদের মধ্যেও৷
দু'জনেই অনেক দিন সুস্থ থেকে আমাদের আরো গান উপহার দিন-ভালোবেসে গান-ভালো লাগার গান!

তথ্যও ছবিঃ ইন্টারনেট
উইকিপিডিয়া
দ্য ডেইলি স্টার৷

মন্তব্য ২৪ টি রেটিং +৬/-০

মন্তব্য (২৪) মন্তব্য লিখুন

১| ২৩ শে নভেম্বর, ২০২১ সকাল ১০:১০

জ্যাকেল বলেছেন: অনেক কিছু জানা ছিল তবে পোস্টের তথ্যগুলো অনেকে জানে না, খুব ভাল ব্লগিং করেন আপনি।

২৩ শে নভেম্বর, ২০২১ সকাল ১০:১৮

জুল ভার্ন বলেছেন: ধন্যবাদ ভাই।
সোস্যাল মিডিয়ায় যতই যে ভালো লিখবেন-ব্যক্তিগত সম্পর্কের বাইরে কদাচিত সহব্লগার কেউ প্রসংশা করে মন্তব্য করবেন না।

২| ২৩ শে নভেম্বর, ২০২১ সকাল ১০:১৬

মহাজাগতিক চিন্তা বলেছেন: ভাল পোষ্ট

২৩ শে নভেম্বর, ২০২১ সকাল ১০:১৯

জুল ভার্ন বলেছেন: ধন্যবাদ ভাইয়া।

৩| ২৩ শে নভেম্বর, ২০২১ সকাল ১০:১৯

আলমগীর সরকার লিটন বলেছেন: অনেক কিছুই জানালেন ভাল লাগল অনেক শুভেচ্ছা রইল

২৩ শে নভেম্বর, ২০২১ সকাল ১০:২২

জুল ভার্ন বলেছেন: ধন্যবাদ সরকার সাহেব :)

৪| ২৩ শে নভেম্বর, ২০২১ দুপুর ১:০৫

রাজীব নুর বলেছেন: লতা বিয়ে করেন নি। রুনা বিয়ে করেছেন।
লতা বুড়ি হয়ে গেছেন কিন্তু তার গলা আজও ভাঙ্গে নি।

২৪ শে নভেম্বর, ২০২১ সকাল ১১:৩৭

জুল ভার্ন বলেছেন: শৈশবকালে কুন্দনলাল সেহগলের চলচ্চিত্র ‘চণ্ডীদাস’ দেখে তিনি বলেছিলেন, বড় হয়ে সেহগলকেই বিয়ে করবেন তিনি। কিন্তু তারা বিয়ে করেননি। তিনি জানান, পরিবারের সকল সদস্যের দায়িত্ব তার ওপর ছিল। এমন পরিস্থিতিতে বিয়ের চিন্তা এলেও সেটাকে গুরুত্ব দেয়ার কথা ভাবতেই পারেননি তিনি। সঙ্গীতকেই জীবনের একমাত্র অবলম্বন বেছে নেন লতা মঙ্গেশকর।

৫| ২৩ শে নভেম্বর, ২০২১ দুপুর ১:২৮

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: বিষয়টি সম্পূর্ণ অজানা। বেশ ভালো লাগলো।++

২৪ শে নভেম্বর, ২০২১ সকাল ১১:৩৮

জুল ভার্ন বলেছেন: লতা মুংগেস্কর সম্পর্কে বাংলাদেশের মানুষ যতটা জানেন সেই তুলনায় রুনা লায়লা বাংলাদেশে ততটাই পাদপ্রদীপের নিচে!

৬| ২৩ শে নভেম্বর, ২০২১ বিকাল ৪:৩৩

মিরোরডডল বলেছেন:




দুজনেই বরেণ্য শিল্পী । চমৎকার গানের গলা এবং গায়কী ।
রুনা লায়লার গানের গলা যেমন ইউনিক, ব্যক্তি রুনা লায়লাকেও আমার অনেক পছন্দ ।
থ্যাংকস জুল ভার্ন জন্মদিনে তাকে নিয়ে লেখার জন্য ।
প্রিয় শিল্পীর প্রিয় গান ।




২৪ শে নভেম্বর, ২০২১ সকাল ১১:৩৬

জুল ভার্ন বলেছেন: রুনা লায়লা যত বড়ো শিল্পী তার চাইতেও বড়ো একজন মানবিক রুনা লায়লা। ওনার বাড়ি ড্রীম ডেভেলপার দিয়ে বহুতল আবাসিক ভবন করার বিষয় আলোচনা করতে একবার ওনার বাড়িতে গিয়েছিলাম, ওনার বেশভূষা দেখে অবাক হয়েছি। চিরায়ত বাংগালী মা বোনদের মতো অতি সাধারণ বেশভূষা! নিজেই অতিথি আপ্যায়ন করলেন। কথাবার্তায় একদম ঘোরপ্যাঁচ নাই- খুব সহজ সরল। একটা ছবি তোলার আবদার করতেই সহাস্যে পাশে এসে দাঁড়িয়ে গেলেন।

৭| ২৩ শে নভেম্বর, ২০২১ রাত ৮:২৩

প্রত্যাবর্তন@ বলেছেন: অনেক ইনফরমেটিভ পোস্ট।

২৪ শে নভেম্বর, ২০২১ সকাল ১১:৩৯

জুল ভার্ন বলেছেন: ধন্যবাদ।

৮| ২৩ শে নভেম্বর, ২০২১ রাত ১০:২২

বিজন রয় বলেছেন: দুই কিংবদন্তী!!
শ্রদ্ধা ও ভালবাসা।

আপনার ব্লগে আসলে ব্লগার ইমন জুবায়ের এর কথা মনে পড়ে।

২৪ শে নভেম্বর, ২০২১ সকাল ১১:৪১

জুল ভার্ন বলেছেন: বিজন রয় বলেছেন: দুই কিংবদন্তী!!
শ্রদ্ধা ও ভালবাসা।

আপনার ব্লগে আসলে ব্লগার ইমন জুবায়ের এর কথা মনে পড়ে।[/sb

প্রিয় ভাই আমার, আমার কথা আপনি এখনো মনে রেখেছেন সেজন্য নিজেকে সম্মানীত মনে করছি। অনেক ধন্যবাদ।

৯| ২৩ শে নভেম্বর, ২০২১ রাত ১০:৫৬

রাজীব নুর বলেছেন: ধন্যবাদ আমার মন্তব্যের উত্তর দেওয়ার জন্য।

২৪ শে নভেম্বর, ২০২১ সকাল ১১:৪৪

জুল ভার্ন বলেছেন: রাজীব নুর বলেছেন: ধন্যবাদ আমার মন্তব্যের উত্তর দেওয়ার জন্য।

আমার লেখা কষ্ট করে পড়ে মন্তব্য করেছেন-তাই আপনাকে সম্মান জানাতে আপনার মন্তব্যের জবাব দেওয়া আমার নৈতিক সৌজন্যতা। আমার মন্তব্যের জবাব কেউ নাদিলে আমি পরবর্তীতে সেই ব্লগারের কোনো পোস্টে সচারচর মন্তব্য করিনা।

১০| ২৪ শে নভেম্বর, ২০২১ সকাল ১০:০০

মোঃ মাইদুল সরকার বলেছেন: দুই দেশের দুই চিরসবুজ গানের পাখি।

২৪ শে নভেম্বর, ২০২১ সকাল ১১:৪৫

জুল ভার্ন বলেছেন: একদম সঠিক বলেছেন। আরও সত্য হলো-এদের বয়স যতই বাড়ছে-কণ্ঠমাধুর্য্য ততই বৃদ্ধি পাচ্ছে।

১১| ২৪ শে নভেম্বর, ২০২১ বিকাল ৪:৪১

হাসান রাজু বলেছেন: দুর্ভাগ্য, রুনা লায়লাকে দিয়ে গান গাওয়ানোর মত মিউজিক ডিরেক্টর এদেশে কখনো ছিল না। ভারত বা পাকিস্থানে এই শূন্যতা টা থাকতো না । এদেশে সেটা হল না।

২৪ শে নভেম্বর, ২০২১ সন্ধ্যা ৬:৫১

জুল ভার্ন বলেছেন: আপনার বক্তব্য সমর্থন যোগ্য নয়। সমর দাস, আলী হোসেন, আলাউদ্দিন আলী, আলম খান, দেবু ভট্টাচার্য ছাড়াও এই দেশেরই অনেক জন গুণী সংগীত পরিচালকের কাছে রুনা লায়লা অনেক কালজয়ী গান করেছেন।

১২| ২৫ শে নভেম্বর, ২০২১ বিকাল ৪:০৭

হাসান রাজু বলেছেন: ভাই, আপনি যাদের নাম নিয়েছেন তাদের মূল্যায়ন করার যোগ্যতা বা সামর্থ্য কোণটাই আমার নাই। আমি যে জিনিষটা বুঝাতে চেয়েছি সেটা হল, রুনা লায়লার প্রতিভার ১০০ ভাগ ব্যাবহারের জান্য উনারা যথেষ্ট ছিলেন না।

"পান খাইয়া ঠোঁট লাল করিলাম" আর "বৃষ্টি ভেজা রাতে চলে যেও না" যদি কালজয়ী গান হয় তবে আমি গানের "গ" ও বুঝিনা।

২৬ শে নভেম্বর, ২০২১ দুপুর ১২:৪৭

জুল ভার্ন বলেছেন: বিষয়টা দৃষ্টিভংগীর। আপনি যে দুটি গানের কথা উল্লেখ করেছেন তার প্রথমটা চটুল গান আর দ্বিতীয়তা চিরন্তন প্রেমের বিষাদের গান। তবে তার অজস্র গানের মধ্যে এভাবে দু একটা গান ব্যতিক্রম হতেই পারে
ধন্যবাদ।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.