নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

বর্ষার ফুল চাঁদ ভালোবেসে হয়ে গেছে একাকার চাঁদের আলো জড়িয়ে সে যে গড়েছে অলংকার ।

কথার ফুলঝুরি!

ও আমার চাঁদের আলো, আজ ফাগুনের সন্ধ্যাকালে ধরা দিয়েছ যে আমার পাতায় পাতায় ডালে ডালে॥

কথার ফুলঝুরি! › বিস্তারিত পোস্টঃ

ঘটনা দুর্ঘটনা ইস্যু এই নিয়ে কিছু

০২ রা নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১১:২২



ছোটবেলায় পড়েছি বাংলাদেশ একটি নদীমাতৃক দেশ । সুজলা সুফলা শস্য শ্যামলা আমাদের বাংলাদেশ । আর এখন মনে হয় আমাদের দেশ একটি ইস্যুময় দেশ । দুইদিন পর পরই একটি একটি নতুন ইস্যু । কোনটা রাজনৈতিক কোনটা সামাজিক কিংবা কোনটা বিনোদন জগতের এমন আরও অনেক ধরনের দুইদিন পর পর নিত্য নতুন ইস্যু নিয়েই আমাদের বসবাস ।
আমরা হুজুগে মাতি বেশী । ফ্রি থাকতে মনে হয় ভালো লাগেনা আমাদের । ভালো লাগেনা পুরনো কিছু । নিত্য নতুন বিষয় নিয়ে মেতে থাকতে ভালোবাসি আমরা । কয়দিন এটা নিয়ে খুব মাতামাতি হই হুল্লোড়। তারপর যখন আবার নতুন কিছু আসবে তখন আগেরটার সমাধান হোক বা না হোক ওমনি নতুনটা নিয়ে মাততে হবে আর আগেরটা যাবো ভুলে ।
আর ফেসবুক হওয়াতে তো আরও সুবিধা । ওখানে শেয়ার নামে একটা অপশন আছে যে । হয়তো পারিবারিক কোন ঝগড়ায় এক মহিলা আরেক মহিলার চুল ধরে টান দিলো কিংবা দুজন পুরুষ মারামারি করতে গিয়ে একজনের লুঙ্গি খুলে গেল কিংবা রিকশাওয়ালা ও যাত্রীর মধ্যে তর্কাতর্কি হল, এমন বা এমন না যে কোন ঘটনা হোক হাতে যে একটি স্মার্ট ফোন আছে সেটি দিয়ে সুযোগ পেলেই কেউ একজন তা ভিডিও করে ফেসবুকে আপলোড দিবে আর আমরা দিব শেয়ার সাথে সাথে তা ভাইরাল লাইক কমেন্টের বন্যা । আর হা হা রিয়াক্ট দেওয়াতো আরও সহজ ।
এমনকি একজন মানুষ অফিসে কাজ করতে করতে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে মৃত্যুবরণ করলো আমরা সেই ভিডিওও সিসি ক্যামেরা থেকে নিয়ে কিংবা নিজে ভিডিও করে আপলোড দিবো কিংবা দিবো শেয়ার । আরেহ একজন সুস্থ মানুষ হুট করে এভাবে মারা গেলো তাতে কি এমন আছে যে তা ফেসবুকে ভাইরাল করতে হবে ? শেয়ার অপশনে ক্লিক করার আগে একবারও কি ভাবি ফেসবুকের মাধ্যমে এই ভিডিও যখন ঐ মানুষটার পরিবারের কেউ দেখে এবং তা একবার না বারবার তখন তাদের মানসিক অবস্থা কেমন হয় ।
দুইদিন আগে ধানমন্ডি ৩২ নং দিয়ে যাচ্ছিলাম । দেখতে পেলাম একদল তরুন তরুণী তাঁদের মধ্যে একজন ছেলে একজন শাড়ি পরা মেয়েকে কোলে করে নিয়ে কিছুদুর যাচ্ছে এবং তাঁদের বন্ধুদের মধ্যে একজন তা ভিডিও করছে দূর থেকে আবার দেখতে পেলাম অন্য আরেক ছেলে তাঁদের সবাইকে ভিডিও করছে । এখন আমি অপেক্ষায় আছি লাইভ দেখা সেই কাহিনী আমি কবে যেন ফেসবুকে পেয়ে যাই ।
কিংবা কখনো কেউ বিপদে পরেছে আমরা তাকে বিপদ থেকে উদ্ধার না করে তাঁর ভিডিও করতে ব্যস্ত । সেই ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল করতে হবে যে । মেতে থাকতে হবে তা নিয়ে কয়দিন । এ যেন আমাদের মনের একটা ক্ষুধার মত ।

এতো গেলো ছোটখাটো তুচ্ছ ঘটনার ইস্যু । সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের এসকল ছোট ও তুচ্ছ বিষয় ছাড়াওতো সারা বছর জুড়ে জুড়ে থাকে আরও কত ঘটনা আর এসকল বিভিন্ন ধরনের ঘটনা কিংবা ইস্যুতে আমাদের মাঝে দেখা যায় কয়েক ধরনের মানুষ । যেমন -

১। লেখক/লেখিকা - যাদের মুল কাজই হচ্ছে লেখা । পত্র পত্রিকা, ফেসবুক, ব্লগ যে কোন মাধ্যমে লেখা । এদের মাধ্যমেই সাধারণত আমরা আসল ঘটনা সম্পর্কিত সকল খবরাখবর জানতে পারি । তাঁরা না লিখলে কত ঘটনাই থেকে যেতো অন্তরালে ।

২। নিরীহ লেখক/ লেখিকা- এরা পত্রপত্রিকার লেখক লেখিকার মত সিরিয়াস কেউ নন হয়তো ফেসবুকে কিংবা টুইটার কিংবা ব্লগে সাম্প্রতিক ইস্যু নিয়ে তাঁর মতামত প্রকাশ করলো এমন । লেখালিখির মাধ্যমে কিছু মত বিনিময় কিংবা দু চারটি লাইক কমেন্ট পেলেই এরা খুশী ।

৩। নীরব দর্শক - এরা নীরব দর্শক হয়ে বিভিন্ন জায়গায় প্রকাশ হওয়া লেখা পড়বে, ছবি ও ভিডিও দেখবে সব জানবে তবে কোথাও কোন মন্তব্য করবেন না । এরা একদিক দিয়ে অনেক ভালো । কোন সাতপাঁচে নেই এরা কোন ঝুট ঝামেলায় নেই এরা । শান্তিতে নাকে তেল দিয়ে বাকী জীবনটা পার করে দিতে পারলেই শান্তি । কোথায় কি হলো না হলো তা নিয়ে এদের কোন মাথা ঘামানো নেই ।

৪। গোল টেবিল বৈঠকের শ্রেণী - এরা হচ্ছেন এমন মানুষ যারা সাম্প্রতিক বিষয়ে যেখানেই যান দু তিনজন মিলিয়ে গোল টেবিলের বৈঠক সাজিয়ে অনেক আলোচনা সমালোচনা করবেন অবশেষে আলোচনা শেষে যে যার ঘরে । এরা ইস্যু নিয়ে অনেক কথা বললেও নিতান্তই গোবেচারা টাইপ মানুষ । এদের দৌড় ঐ বৈঠক করা পর্যন্তই আলোচনা সমালোচনা করা পর্যন্তই ।

৫। ট্রোল বানায় যারা - এরা হচ্ছে বাংলাদেশের হিডেন ট্যালেন্ট । যে কোন বিষয়ে এরা মজাদার ট্রোল বানাতে ওস্তাদ । আমরা খুব মজা নিয়ে সেসব ট্রোল দেখি, শেয়ার করি টাইম লাইনে কিংবা ইনবক্সে কিন্তু বেশীরভাগ সময়ে যে কিনা এই ট্রোলটা বানিয়েছে তার পরিচয় জানিনা । এরা ফ্রি একদম বিনা পয়সায় আমদের বিনোদন দিয়ে যায় আর কখনও কখনও কাউকে খোঁচা ।

৬। বেশি সিরিয়াস লোক - এরা অতিমাত্রায় সিরিয়াস । দেখা গেলো কোন ইস্যু সম্পর্কিত কথাবার্তায় কারও সাথে তাদের মতের মিল হলোনা তখন এক কথা দুই কথায় ওমনি হাতাহাতি থেকে মারামারি পর্যন্ত লেগে যেতে পারে । এসব লোক থেকে সাবধান ।

৭। বিপরীত পন্থী - এরা মনে হয় সোজা পথে হাটতে পারেননা । যে কোন ঘটনায় এরা ভিক্টিম যিনি তার দোষ খুজে বের করবেন সবার আগে । ধরুন একটি ধর্ষণের ঘটনা ঘটলো তখন এই টাইপ লোকজন সবার আগে বলবে সেই মেয়ের পোশাক তার ধর্ষণের জন্য দায়ী, কিংবা সে যে যায়গা দিয়ে বাড়ী ফিরছিল সেখান দিয়ে কেন গিয়েছিলো কিংবা কোন সড়ক দুর্ঘটনায় কোন পথচারী মারা গেল তারা বলবে নিশ্চয় সেই লোক ফুটপাত দিয়ে না হেটে রাস্তার মাঝখান দিয়ে হাটছিলো নিশ্চয় ।

৮। বিশ্লেষণধর্মী - এরা খুবই জ্ঞানী মানুষ । এদের জ্ঞান আমার আপনার চাইতে কয়েকগুন বেশী । যে কোন ঘটনা ঘটুক তাঁরা সেটিকে এমনভাবে বিশ্লেষণ করবেন যার সাথে ঘটনা ঘটেছে তিনি নিজেও হয়তো বিষয়গুলো জানেন না । ওটা আসলে অমন না, বিষয়টি তেমন হয়তো কিংবা যে যাই বলুক আসল বিষয়টি হচ্ছে------------------।

৯। আন্দোলনকারী- এরা সাংঘাতিক তবে সমাজ কিংবা দেশের জন্য খুবই গুরত্বপূর্ণ মানুষ । যে কোন সিরিয়াস ইস্যু হলে পোস্টার, প্ল্যাকার্ড আরও কত কি নিয়ে আন্দোলনে নেমে যাবেন । কখনো হয়তো সে আন্দোলন সফল হয় নিয়ে আসে ভালো কিছু কিংবা কখনো না ।

১০। মজা লুটে নেওয়া শ্রেণী - কিছু মানুষ আছে যারা প্রত্যক্ষ কিংবা পরোক্ষ ভাবে ঘটনার সাথে সম্পৃক্ত নন । ঘটনার প্রতি আগ্রহীও নন । সমস্যা সমাধানে পারদর্শী নন তবে যখন ঘটনা ঘটে হই হুল্লোড় কিংবা মারামারি হাতাহাতি করে তিল কে তাল বানিয়ে তারপর উধাও । ঘটনার প্রেক্ষিতে মারামারি একটু দাঙ্গা হাঙ্গামা করে মজা লুটে নেওয়াতেই তাঁদের মজা ।

উপরের দশটি শ্রেণী নিতান্তই আমার খামখেয়ালী মনে চিন্তা ভাবনা করে বের করা । আর কিছু খুজে পাচ্ছিনা আপাতত । কেউ আরও কিছু পেলে অবশ্যই জানাবেন । আর কে কোন শ্রেণীতে পরেছেন সেটাও জানাতে পারেন B-)


শান্তি! শান্তির মা নাকি মরে গিয়েছে । তবে আমার মনে হয় আমাদের দেশে শান্তির মা এর জন্মই হয় নাই । আজ এই ঘটনা তো কাল সেই দুর্ঘটনা । আতঙ্কিত লাগে এখন শুধুই কখন কি শুনি বা দেখি । আল্লাহতাআলা আমাদের সবাইকে ভালো রাখুন ।

তবে এতো অশান্তির মাঝেও এটা অনেক বড় শান্তি এখন আর অপেরা মিনি দিয়ে চোরের মত সিঁধ কেটে ব্লগে লগ ইন করতে হয়না । আসলেই কেমন যেন চোর চোর লাগতো নিজেকে । যেন কেউ দরজা আটকে দিয়েছে তারপর চোরের মত এটা করে ওটা করে তাঁর ঘরে প্রবেশ । কত কসরত করে তারপর ব্লগে লগ ইন । উফ :| কখনো মাত্র ৬ জন ৭ জন অনলাইনে দেখেছি মনে হয়েছে আমাদের প্রিয় ব্লগ অসহায়ের মত পরে আছে :(
অবশেষে আমাদের ব্লগ দুর্ঘটনার সমাপ্তি ঘটেছে । এখন আমরা মুক্ত 8-| এখন আমরা মন চাইলেই ব্লগে আসতে পারি এবং তাও চোরের মত সিঁধ কেটে নয় বরং বুক ফুলিয়ে মহানন্দে । আর আমাদের ব্লগপারাও আগের মত সরগরম।
ব্লগের আলোকিত দিনে সবাইকে অভিনন্দন কথার ফুলঝুরির পক্ষ থেকে ।

মন্তব্য ১৫ টি রেটিং +৫/-০

মন্তব্য (১৫) মন্তব্য লিখুন

১| ০২ রা নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১১:৫৫

ইসিয়াক বলেছেন: নেট শেষ পরে মন্তব্যে আসছি

০৩ রা নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১২:০০

কথার ফুলঝুরি! বলেছেন: হা হা ! ওকে, অপেক্ষায় রইলাম ।

২| ০৩ রা নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১২:১২

কাওসার চৌধুরী বলেছেন:



ব্লগের নতুন করে ফিরে আসায় চমৎকার পোস্ট। অনেকদিন পর আপনার লেখা পড়লাম। ব্লগ ছেড়ে চলে যাবেন না। মাঝে মাঝে লিখুন, এতে ব্লগের পাঠক-লেখক বাড়বে নতুনরা লিখতে উৎসাহ পাবেন। বাংলাদেশ একটি ইস্যু প্রিয় দেশ। এখানে কেউ সুযোগে আর কেউ দুর্যোগে ইস্যুর আইটেম হয়। কোন দেশে বাক স্বাধীনতা, ন্যায় বিচার আর দুর্নীতিমুক্ত প্রশাসন না হলে জবাবদিহি নিশ্চিত হয় না। আমরা আছি এই চক্রে আটকে।

শুভ রাত্রি।

০৮ ই নভেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৫:৫৫

কথার ফুলঝুরি! বলেছেন: আমিও অনেকদিন পর প্রিয় ভাইয়াকে পেলাম মন্তব্যে :D

অবশ্যই কখনো যাবোনা ব্লগ ছেড়ে । হয়তো ব্যস্ততার জন্য মাঝে কম লেখা হয় কম পড়া হয় কিন্তু ছেড়ে যাইনা একেবারে । ভালোবাসি যে সামুকে ।।
আর আপনি আমার সেই সিনিয়র যিনি একদম প্রথম থেকে এখন পর্যন্ত সবসময় উৎসাহ ও পরামর্শ দিয়ে আসছেন আমাকে । আপনার জন্য অনেক শুভকামনা রইলো ভাইয়া । আর হ্যাঁ, অপেক্ষায় আছি কিন্তু নতুন গল্পের B-)

৩| ০৩ রা নভেম্বর, ২০১৯ সকাল ৯:৩১

রাজীব নুর বলেছেন: আমি এই জগতের অতি দুঃখী মানুষদের একজন। আবার অতি সুখী মানুষদেরও একজন।

০৮ ই নভেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৫:৫৭

কথার ফুলঝুরি! বলেছেন: সুখ দুঃখ মিলিয়েইতো আমাদের জীবন । এমন মানুষ কি আছে কেউ, যার কিনা কোন দুঃখ নেই কিংবা যার কোন সুখই নেই । আল্লাহতাআলা সবাইকে সবকিছু মিলিয়ে দিয়েছেন । তবে আমরা চাইলে তা ভাগ বাটোয়ারা করতে পারি কিন্তু করিনা ।

৪| ০৩ রা নভেম্বর, ২০১৯ সকাল ৯:৩৭

ইসিয়াক বলেছেন: কথার ফুলঝুরি আপনাকেও অভিনন্দন ।
আসলেই ভি পি এন দিয়ে চুরি করে ব্লগে যখন ঢুকতাম । মনেমনে বেশ খারাপ লাগতো ।
আরো খারাপ লাগতো যখন খারাপ বা এ জাতীয় কিছু না লিখেও পর্ণগ্রাফি লেখকের তকমা পেয়ে।
যাক সব খারাপের অবসান হয়েছে সেটাই ভালো ব্লগের পক্ষে।
আমরা সবাই উৎসবের আমেজে লিখছি বেশ ভালো লাগছে।
পোষ্ট খুব ভালো হয়েছে ।
শুভসকাল

০৮ ই নভেম্বর, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:০৩

কথার ফুলঝুরি! বলেছেন: কেমন আছেন ইসিয়াক ভাইয়া ? দেরীতে ফিরে আসার জন্য দুঃখিত ।

ছদ্মনাম নিয়ে আমার একটা লেখা আছে । আপনার নামের কাহিনী টা কি বলা যাবে ? আসলে কি এটি ছদ্মনাম নাকি আসল নাম ?

পোস্ট ভালো লাগায় অনুপ্রানিত ।
আসলেই উৎসব উৎসব আমেজ । তবে আমি এখনও তাতে তেমন করে অংশগ্রহণ করতে পারছিনা । সময় নামের মহাশয় বড় নিষ্ঠুর যে :(

৫| ০৪ ঠা নভেম্বর, ২০১৯ রাত ২:৩০

স্বপ্নের শঙ্খচিল বলেছেন: ব্লগের আলোকিত দিনে সবাইকে অভিনন্দন কথার ফুলঝুরির পক্ষ থেকে ।
.....................................................................................................
আপনাকে ও অনেক দিন পর দেখলাম,
এখন চাই গল্প , কবিতার ডিসকভারি

০৮ ই নভেম্বর, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:০৭

কথার ফুলঝুরি! বলেছেন: অনেকদিন পর অনেককেই দেখতে পাচ্ছি । বিষয়টি খুবই আনন্দের :#)


@এখন চাই গল্প , কবিতার ডিসকভারি -- গল্প লেখা বিশাল কঠিন কাজ :(( আর কবিতা বিশ্রামে আছে =p~

৬| ০৪ ঠা নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১১:৪৮

ওমেরা বলেছেন: ব্লগের আলোকিত দিনে সুন্দর সুন্দর লিখা নিয়ে ঝলমল করে তুলুন ব্লগবাড়ি এই কামনা রইলো।

০৮ ই নভেম্বর, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:০৯

কথার ফুলঝুরি! বলেছেন: আপনার শুভকামনার জন্য অনেক ধন্যবাদ !:#P চেষ্টা থাকবে অবশ্যই ।

৭| ০৮ ই নভেম্বর, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:১৬

ইসিয়াক বলেছেন: হা হা হা .....।আমার আসল নাম মোঃ রফিকুল ইসলাম । বাবা মায়ের দেয়া । নিজে নিজে একটা নাম পছন্দ করে রেখেছিলাম অনেক আগে ।তৌকির আহমেদের নাটকের চরিত্রের নাম ছিল ইস্তিয়াক । যা হোক সেই নামে ব্লগে রেজিষ্ট্রনের সময় দেখি নাম হয়ে গেছে ইসিয়াক । তাই আমি ইসিয়াক।

২১ শে নভেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৫:৫২

কথার ফুলঝুরি! বলেছেন: রফিকুল ইসলাম ভাই এর সম্পর্কে জেনে ভালো লাগলো ইসিয়াক ভাইয়া 8-|

৮| ২১ শে নভেম্বর, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:০১

ইসিয়াক বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ আপু । নিশ্চয় ভালো আছেন ?

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.