নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

নূর মোহাম্মদ নূরু (পেশাঃ সংবাদ কর্মী), জন্ম ২৯ সেপ্টেম্বর প্রাচ্যের ভেনিস খ্যাত বরিশালের (বরিশাল স্টীমারঘাটের সৌন্দর্য্য দেখে বিমোহিত হয়েছিলেন বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলাম। বলেছিলেন, বরিশাল হচ্ছে প্রাচ্যের ভেনিস) উজিরপুর ধানাধীন সাতলা গ্রামে। পিতা প্রাইম

নূর মোহাম্মদ নূরু

দেখি শুনি স্মৃতিতে জমা রাখি আগামী প্রজন্মের জন্য, বিশ্বাস রাখি শুকনো ডালের ঘর্ষণে আগুন জ্বলবেই। ভবিষ্যৎকে জানার জন্য আমাদের অতীত জানা উচিতঃ জন ল্যাক হনঃ ইতিহাস আজীবন কথা বলে। ইতিহাস মানুষকে ভাবায়, তাড়িত করে। প্রতিদিনের উল্লেখযোগ্য ঘটনা কালক্রমে রূপ নেয় ইতিহাসে। সেসব ঘটনাই ইতিহাসে স্থান পায়, যা কিছু ভাল, যা কিছু প্রথম, যা কিছু মানবসভ্যতার অভিশাপ-আশীর্বাদ। তাই ইতিহাসের দিনপঞ্জি মানুষের কাছে সবসময় গুরুত্ব বহন করে। এই গুরুত্বের কথা মাথায় রেখে সামুর পাঠকদের জন্য আমার নিয়মিত আয়োজন ‘ইতিহাসের এই দিনে’। জন্ম-মৃত্যু, বিশেষ দিন, সাথে বিশ্ব সেরা গুণীজন, এ্ই নিয়ে আমার ক্ষুদ্র আয়োজন

নূর মোহাম্মদ নূরু › বিস্তারিত পোস্টঃ

পবিত্র মাহে রামাদানে সদকাতুল ফিতর একটি গুরুত্বপূর্ণ ইবাদত

০২ রা জুন, ২০১৯ রাত ১১:২৯


পবিত্র মাহে রামাদানে সদকাতুল ফিতর একটি গুরুত্বপূর্ণ ইবাদত। এই সদকার কেন্দ্র পবিত্র ঈদুল ফিতর। সহজ কথায় পবিত্র ঈদুল ফিতরের সাথে সম্পৃক্ত বলেই এটাকে ‘সদকাতুল ফিতর’ বলা হয়। সুরা আ‘লার ১৩ নং আয়াতে বলা হয়েছে ‘সেই-ই সফলতা লাভ করেছে, যে নিজেকে পরিশুদ্ধ করেছে।’ হজরত কাতাদাহ (রহ.) এই আয়াতের ‘তাঝাক্কা’ তথা ‘পরিশুদ্ধ হওয়া’ শব্দ দ্বারা ‘সদকায়ে ফিতর’কে উদ্দেশ্য করা হয়েছে বলে মত ব্যক্ত করেছেন। কেননা হাদিস শরিফে ইরশাদ হয়েছে, ‘রাসুলুলাহ সালালাহু আলাইহি ওয়াসালাম সদকাতুল ফিতরকে ওয়াজিব করেছেন। যাতে করে রোজাদারদের রোজার যাবতীয় ভুলত্রুটি পরিশুদ্ধ করা যায় এবং গরিব লোকেরা আহারাদি পায়’ (মিশকাত ১৬০ পৃষ্ঠা)। ফিতরা বা সদকাতুল ফিতর হলো সেই নির্ধারিত সদকা, যা ঈদের নামাজের আগে প্রদান করতে হয়। একে জাকাতুল ফিতরও বলা হয়।আমাদের এ অঞ্চলে তা ‘ফিতরা’ নামে পরিচিত। সদকায়ে ফিতর এমন এক সদকা যা রমজানুল মোবারকের রোজা শেষ হবার পর ওয়াজিব হয়ে যায়। সদকাতুল ফিতর সর্ম্পকে হাদীসে এসেছে, আল্লাহর রাসুল (সাঃ) বলেছেন, তোমরা দুইজন ব্যক্তির মাঝে এক সা’ গম কিংবা এক সা’ খেজুর অথবা এক সা’ যব আদায় করে দাও। এই বিধানটি প্রত্যেকটি গোলাম, স্বাধীন, ছোট ও বড় ব্যক্তির ওপর ফরয।’ (মুসনাদে আহমদ, হাদীস নং : ২৩৬৬৩) হজরত রাসূলে কারিম (সাঃ) তা আদায়ের প্রতি গুরুত্বারোপ করেছেন এবং এর নিয়ম-নীতি শিক্ষা দিয়েছেন। এ কারণেই হজরত রাসূলুল্লাহ (সাঃ)-এর পবিত্র যুগ থেকে আজ পর্যন্ত মুসলিম উম্মাহ ইসলামের অন্যান্য মৌলিক আমল ও ইবাদতের ন্যায় সদকাতুল ফিতরও নিয়মিত আদায় করে আসছে। ঈদের দিন সকালবেলায় যিনি নিসাব পরিমাণ সম্পদের (সাড়ে সাত ভরি সোনা বা সাড়ে বাহান্ন ভরি রুপা বা সমমূল্যের ব্যবসাপণ্যের) মালিক থাকবেন, তাঁর নিজের ও পরিবারের ছোট–বড় সবার পক্ষ থেকে ফিতরা আদায় করা তাঁর প্রতি ওয়াজিব। রুপার হিসাবে বর্তমান বাজারমূল্যে এটি ৫০ হাজার টাকা প্রায়। এ বছর ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশে ফিতরার হার জনপ্রতি সর্বনিম্ন ৭০ টাকা ও সর্বোচ্চ ২ হাজার ৩১০ টাকা নির্ধারণ করেছে। গত বছর ফিতরার এ হার ছিল সর্বনিম্ন ৬৫ টাকা ও সর্বোচ্চ এক হাজার ৯৮০ টাকা। নিম্নে সদকাতুল ফিতরের ১০ টি মাসয়ালা উল্লেখ করা হলোঃ

১। সদকায়ে ফিতরের নিসাব যাকাতের নিসাবের সমপরিমাণ। অর্থাৎ কারো কাছে সাড়ে সাত ভরি সোনা বা সাড়ে বায়ান্ন ভরি রুপা অথবা তার সমমূল্যের নগদ অর্থ কিংবা নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের অতিরিক্ত সম্পদ ঈদুল ফিতরের দিন সুবহে সাদিকের সময় বিদ্যমান থাকলে তার ওপর সদকাতুল ফিতর ওয়াজিব হবে।যাকাতের মতো বর্ষ অতিক্রম হওয়া শর্ত নয়। (ফাতহুল ক্বাদির ২/২৮১)

২। সদকায়ে ফিতর আদায় করার পদ্ধতি হলো, গম বা আটা দ্বারা আদায় করলে অর্ধেক সা’ অর্থাৎ পৌনে দুই সের দিতে হবে। আর খেজুর, যব কিংবা কিসমিস দ্বারা দিতে চাইলে পূর্ণ এক সা’ অর্থাৎ সাড়ে তিন সেরের চেয়ে কিছু বেশি দ্বারা আদায় করতে হবে অথবা এর মূল্য দিতে হবে। (রুদ্দুল মুহতার ৩/৩২২)

৩। দকায়ে ফিতর আদায় করার পর ঈদের দিন যদি মূল্যমান বেড়ে যায় তাহলে ঐ অতিরিক্ত মূল্যও আদায় করতে হবে। (ফাতাওয়া মাহমুদিয়া ১৪/৩৯২ )

৪। ঈদুল ফিতরের দিন সকালে ঈদের নামাজ পড়তে যাওয়ার আগে সদকায়ে ফিতর বা ফেতরা আদায় করা উত্তম। তবে সেই সময়ের আগেও অর্থাৎ রমজানেও আদায় করা যেতে পারে। ঈদুল ফিতরের দিন ঈদগাহের উদ্দেশ্যে বের হওয়ার আগে ফিতরা আদায় করা মুস্তাহাব। তবে পরে আদায় করলেও তা আদায় ‎হবে। (ফাতাওয়া মাহমুদিয়া: ১৪/৩৮৩ )

৫। সদকায়ে ফিতর আদায় করার সময় স্থানের ভিন্নতার কারণে মূল্য পার্থক্য ধর্তব্য গ্রহণযোগ্য নয়।বরঞ্চ যেই জায়গায় সদকায়ে ফিতর আদায় করবে সেখানকার মূল্য ধর্তব্য হবে। (ফাতাওয়া মাহমুদিয়া: ১৪/৩৭৪)

৬। সদকায়ে ফিতর নিজের পক্ষ থেকে আদায় করা এবং পিতা হলে তার নিজ নাবালক সন্তানের পক্ষ থেকে আদায় করে দেওয়া ওয়াজিব।সাবালক সন্তান, স্ত্রী, চাকর-চাকরাণী, মাতা-পিতার পক্ষ থেকে দেওয়া ওয়াজিব নয়। হ্যাঁ, সাবালক সন্তান পাগল হলে তার পক্ষ থেকে আদায় করা ওয়াজিব। (ফাতাওয়া মাহমুদিয়া ১৪/৩৯৭)

৭। নিছফে সা’ এর পরিমাণ : সদকায়ে ফিতর যদি গম দ্বারা আদায় করা হয় তাহলে জন প্রতি ‘নিছফে সা’ গম দিতে হয়। আর নিছফে সা’ এর পরিমাণ- এক সের ৬০ তোলা, যা ইংরেজি মাপ অনুযায়ী ১ কেজি ৬৬৩ গ্রাম। অর্থাৎ প্রায় পৌনে দুই কেজি। (ফাতাওয়া দারুল উলূম দেওবন্দ ৬/৩০৪)

৮। বিবাহিতা ছোট মেয়ে নিজে সম্পদশালী হলে সদকায়ে ফিতর তার সম্পদ থেকে আদায় করবে। আর যদি সম্পদশালী না হয় তাহলে ছেলে পক্ষ উঠিয়ে না নিলে নিজ পিতার ওপর ওয়াজিব হবে। আর উঠিয়ে নিলে কারও ওপর ওয়াজিব হবে না। (ফাতাওয়া আলমগিরি, ১/১৮২)

৯। রমজানের শেষ দিনেও যে নবজাতক দুনিয়ায় এসেছে কিংবা কোনো ব্যক্তি ইসলাম গ্রহণ করেছে, তার পক্ষ থেকেও সদকাতুল ফিতর আদায় করতে হবে। (ফাতাওয়া আলমগিরি, ১/১৯২)

১০। কেউ ফেতরা আদায় না করে মৃত্যুবরণ করলে তার পক্ষ থেকে তার উত্তরাধিকারী ফেতরা দিলেও আদায় হয়ে যাবে। (রুদ্দুল মুহতার , ২/১০৬)

ইসলামের প্রতিটি বিধানের পেছনে মহান উদ্দেশ্য রয়েছে। তেমনিভাবে সদকাতুল ফিতর আদায়ের মধ্যেও ইহজাগতিক ও পারলৌকিক উভয় কল্যাণ নিহিত। এটি অনেকটা আধুনিক যুগের রিফাইনিং মেশিনের মত। যেটির মাধ্যমে পণ্যকে পরিশুদ্ধ করা হয়। অলিদের সর্দার হিসেবে খ্যাত হজরত আবদুল কাদের জিলানি রহ. রচিত বিশ্ববিখ্যাত কিতাব ‘গুনিয়াতুত ত্বালেবিন’র মধ্যে উলেখ রয়েছে, ‘রমজানের রোজার জন্য সদকাতুল ফিতর হচ্ছে নামাজের সাহু সিজদার ন্যায়। সাহু সিজদার মাধ্যমে যেমন নামাজের ত্রুটি সংশোধন করা হয় তেমনি রোজার যাবতীয় ত্রুটিকে সংশোধন করার মাধ্যম হচ্ছে সদকাতুল ফিতর’।

শুধু তাই নয়, সদকাতুল ফিতরের মাধ্যমে হতদরিদ্রের মাঝে হাসির রেখা ফুটে ওঠে। সম্বলহীনরা পায় একটু সহানুভুতি। কিছুটা হলেও কেটে উঠে অভাবগ্রস্তদের অভাব। খুশির ঈদে ধনী-গরিব সবার মাঝে খুশি ছড়িয়ে পড়ে। নবীজির হাদিসেও সদকাতুল ফিতরের উদ্দেশ্য হিসেবে ইরশাদ হয়েছে, ‘গরিব লোকেরা যেন আহারাদি পায়’ (মিশকাত)। আল্লাহ বলেন, ‘যদি তোমরা (নিয়ামতের) কৃতজ্ঞতা স্বীকার করো, তোমাদেরকে আরো বৃদ্ধি করে দেয়া হবে৷ আর যদি অস্বীকার করো, নিশ্চয় আমার আজাব অত্যন্ত কঠিন’ (সুরা ইবরাহীম, আয়াত-৭)। ইসলাম চিরসুন্দর। ইসলামের এ সৌন্দর্য চির আধুনিক। সদকাতুল ফিতর এ সৌন্দর্যের একটি অংশ। যেটি একাধারে ঘটে যাওয়া ভুলের সংশোধন ও অভাবগ্রস্ত হতদরিদ্রের মাঝে মানবতার দৃষ্টান্ত স্থাপন করে। চলুন, যথাযথভাবে ইসলামী অনুশাসন মেনে সদকাতুল ফিতর আদায় করি। তা আদায়ে কোনো প্রকার কার্পণ্য যেন আমাদের স্পর্শ না-করে। আল্লাহই উত্তম প্রতিদানদাতা।

নূর মোহাম্মদ নূরু
গণমাধ্যমকর্মী
[email protected]

মন্তব্য ৬ টি রেটিং +২/-০

মন্তব্য (৬) মন্তব্য লিখুন

১| ০৩ রা জুন, ২০১৯ বিকাল ৩:২৩

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: দানের এত গুরুত্ব ইসলামে বলা হয়েছে, কিন্তু প্রতিপালনে যেন ততটাই অবহেলা!

সুগন্ধি সুন্নাতে যত আগ্রহ, দাড়ি, টুপি মিসওয়াকে যত প্রচারনা, দানের বেলা সব কেমন চুপসে যায়!
অথচ এটাইতেই মুক্তি! কোরআন হাদীস স্বাক্ষ্য দিচ্ছে বারবার, তাগিদ দিচ্ছে..

সদকাতুল ফিতর নিয়ে লেখায় ধন্যবাদ।
ঈদ মোবারক :)

০৩ রা জুন, ২০১৯ রাত ১১:২১

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:
আপনাকেও অসংখ্য ধন্যবাদ
লেখাটি গুরুত্বসহকারে পাঠ করার
জন্য।

২| ০৩ রা জুন, ২০১৯ বিকাল ৩:২৬

রাজীব নুর বলেছেন: মন দিয়েই পড়লাম।
রোজা তো আর ২/১ আছে। এরপর কি নিয়ে লিখবেন ঠিক করেছেন??
ঈত্তেকাফ নিয়ে কি লিখবেন। এই বিষয়টা সম্পর্কে জানার ইচ্ছা ছিল।

০৫ ই জুন, ২০১৯ সকাল ১০:২২

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:
রাজীব ভাই ইতেকাফ নিয়ে আগেই লিখেছি
মনে হয় আপনার নজর এড়িয়ে গেছে
এই লিংকে দেখুনঃ মাহে রমজানে ইতেকাফের তাৎপর্য, উদ্দেশ্য, ফজিলত ও বিধান

আজ লিখবো ইসলামের পঞ্চম স্তম্ভ যাকাত নিয়ে।
আশা করি পড়বেন।

৩| ০৪ ঠা জুন, ২০১৯ রাত ১:৪৮

মা.হাসান বলেছেন: বর্তমান সময়ে আটা দিয়ে ফিতরা দেওয়ার অর্থ গরিবের হক নষ্ট করা। নবীজি খেজুর দিয়ে ফিতরা আদায় করেছেন। জব , কিসমিস বা ঘরে তৈরি পনির দিয়ে ফিতরা দেওয়া বৈধ করেছেন। চার খলিফাও এই নীতি অনুসরণ করেছেন। যার সামর্থ্য বেশি ছিল সে বেশি দামি খেজুর দিয়ে ফিতরা আদায় করেছে যার সামর্থ্য কম ছিল সে জব দিয়ে ফিতরা আদায় করেছে। উমাইয়া রাজতন্ত্র প্রতিষ্ঠার পর প্রথম গম দিয়ে ফিতরা দেওয়ার প্রচলন শুরু হয়। এর আগে আরব দেশে গম এর প্রচলন ছিল না। বিভিন্ন দিকে রাজ্য বিজয়ের পর ওই সময় আরব দেশে গম প্রবেশ করে। ওই সময়ের সাহাবী বা তাবেঈন বা তাবে-তাবেঈনরা গরিবের হক নষ্ট করার জন্য গম দিয়ে ফিতরা দিতেন না বরং দান করার ক্ষেত্রে উত্তম বস্তু দ্বারা দান করা উচিত এই হাদীসের উপর আমল করতেন (উত্তম বস্তু দ্বারা দানের বিষয়ে হাদিসে এর কাছাকাছি কিছুই বলা আছে)। গমকে তারা উত্তম খাদ্য হিসেবে বিবেচনা করতেন। গমের দাম খেজুরের দ্বিগুণ ছিল। অর্থাৎ খেজুরের দাম কে বেজ প্রাইস প্রাইস হিসেবে ধরেই তারা ফিতরা হিসাব করতেন। পরিমাপের জন্য সাহাবারা কাঠের বা অনুরূপ পাত্র ব্যবহার করতেন। এক পাত্র খাদ্যের ওজন বর্তমান হিসাবে সাড়ে তিন কেজি থেকে স্থানভেদে চার কেজির কাছাকাছি হত। যেসব এলাকায় খাদ্য সংকট রয়েছে ( যেমন সিরিয়া) সেখানে ফিতরা হিসেবে সরাসরি খাদ্যদ্রব্য দান করা উচিত। যেখানে খাদ্যের সংকট নেই সেখানে ফিতরা হিসেবে খাদ্য বা সমমানের অর্থ যে কোনটাই দেওয়া যেতে পারে। আমাদের উচিত খেজুর, জব, কিসমিস বা ঘরে তৈরি পনির যেকোনো টাকে বেজ প্রাইস হিসেবে ধরে সাড়ে তিন থেকে চার কেজি খাদ্যদ্রব্যের দাম প্রতি জনের ফিতরা হিসেবে আদায় করা। আল্লাহ আমাদের গরিবের হক নষ্ট করা থেকে রক্ষা করুন।

০৫ ই জুন, ২০১৯ সকাল ১০:২৩

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:
ধন্যবাদ মা.হাসান ভাই
ঈেদের শুভেচ্ছা জানবেন।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.