নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

নূর মোহাম্মদ নূরু (পেশাঃ সংবাদ কর্মী), জন্ম ২৯ সেপ্টেম্বর প্রাচ্যের ভেনিস খ্যাত বরিশালের (বরিশাল স্টীমারঘাটের সৌন্দর্য্য দেখে বিমোহিত হয়েছিলেন বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলাম। বলেছিলেন, বরিশাল হচ্ছে প্রাচ্যের ভেনিস) উজিরপুর ধানাধীন সাতলা গ্রামে। পিতা প্রাইম

নূর মোহাম্মদ নূরু

দেখি শুনি স্মৃতিতে জমা রাখি আগামী প্রজন্মের জন্য, বিশ্বাস রাখি শুকনো ডালের ঘর্ষণে আগুন জ্বলবেই। ভবিষ্যৎকে জানার জন্য আমাদের অতীত জানা উচিতঃ জন ল্যাক হনঃ ইতিহাস আজীবন কথা বলে। ইতিহাস মানুষকে ভাবায়, তাড়িত করে। প্রতিদিনের উল্লেখযোগ্য ঘটনা কালক্রমে রূপ নেয় ইতিহাসে। সেসব ঘটনাই ইতিহাসে স্থান পায়, যা কিছু ভাল, যা কিছু প্রথম, যা কিছু মানবসভ্যতার অভিশাপ-আশীর্বাদ। তাই ইতিহাসের দিনপঞ্জি মানুষের কাছে সবসময় গুরুত্ব বহন করে। এই গুরুত্বের কথা মাথায় রেখে সামুর পাঠকদের জন্য আমার নিয়মিত আয়োজন ‘ইতিহাসের এই দিনে’। জন্ম-মৃত্যু, বিশেষ দিন, সাথে বিশ্ব সেরা গুণীজন, এ্ই নিয়ে আমার ক্ষুদ্র আয়োজন

নূর মোহাম্মদ নূরু › বিস্তারিত পোস্টঃ

গানের বুলবুল জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ৪৩তম মৃত্যুবার্ষিকীতে শ্রদ্ধাঞ্জলি

২৭ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৮:২২


আজ ১২ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, সোমবার দ্রোহ ও মানবতার কবি কাজী নজরুল ইসলামের ৪৩তম প্রয়াণবার্ষিকী। ১৩৮৩ বঙ্গাব্দের এই দিনে চির অভিমানী বিদ্রোহী কবির মহাকাব্যিক জীবনের অবসান ঘটে। দীর্ঘদিন চেতনাহীন নির্বাক থাকার পর ৭৭ বছর বয়সে ঢাকায় থেমে যায় বাংলাদেশের জাতীয় কবির প্রাণের স্পন্দন। তবে প্রাণের স্পন্দন থেমে গেলেও সৃষ্টির আলোয় আজো অমর হয়ে আছেন এই কবি। ক্ষুরধার লেখনির আঁচড়ে স্থান করে নিয়েছেন বাংলা সাহিত্য তথা পুরো বিশ্বসাহিত্যে। গল্প, কবিতা, উপন্যাস কিংবা সঙ্গীত-সাহিত্য ও শিল্পের সব শাখায় তাঁর আগমন ছিল ধূমকেতুর মতো। নজরুল তার অন্যান্য সৃষ্টিকর্মের মধ্য থেকে সঙ্গীত নিয়ে বেশি আশাবাদী ছিলেন। তাই গান নিয়ে আত্মবিশ্বাসী নজরুল অকপটে বলে গেছেন, 'আমি চিরতরে দূরে চলে যাবো, তবু আমারে দেবো না ভুলিতে' কিংবা 'আমায় নহে গো ভালোবাসো, শুধু ভালোবাসো মোর গান'। কতখানি আত্মবিশ্বাসী হলে এমন কথা বলা সম্ভব। নজরুল তার জাদুস্পর্শী ছোঁয়ায় বাংলা সঙ্গীতের ভাণ্ডারকে কানায় কানায় পূর্ণ করে গেছেন। বাংলা গান এবং সুরকে পর্বতসম উচ্চতা দিয়ে বিশ্বের দরবারেও পরিচয় করিয়ে গেছেন। আপন সৃষ্টির আলোয় নতুন দিনের আগমনী বার্তা দিয়ে এঁকে দিয়েছিলেন নবদিগন্তের উজ্জ্বল রেখা। শিল্প-সাহিত্যের নানা শাখায় আজো তিনি ‘উন্নত মম শীর’। দ্রোহে ও প্রেমে, কোমলে-কঠোরে বাংলা কাব্য ও সংগীতে এক নতুন মাত্রা সংযোজন করেছিলেন তিনি তাঁর অনন্য প্রতিভায়। নিপীড়িতের শোষণ-বঞ্চনা থেকে মুক্তি কিংবা প্রেম ও মানবতার বাণীতে আজো তিনি সমুজ্জ্বল। প্রেম, দ্রোহ ও মানবতার কবির প্রয়াণ দিবসে আমাদের শ্রদ্ধাঞ্জলি।

বিংশ শতাব্দীর অন্যতম জনপ্রিয় সঙ্গীতজ্ঞ, সংগীতস্রষ্টা, দার্শনিক, দ্রোহ ও প্রেমের বাঙালি কবি কাজী নজরুল ইসলাম ১৩০৬ বঙ্গাব্দের ১১ই জ্যৈষ্ঠ (১৮৯৯ খ্রিস্টাব্দের ২৪মে ) ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান জেলার আসানসোল মহকুমার চুরুলিয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। চুরুলিয়া গ্রামটি আসানসোল মহকুমার জামুরিয়া ব্লকে অবস্থিত। পিতামহ কাজী আমিন উল্লাহর পুত্র কাজী ফকির আহমদের দ্বিতীয়া পত্নী জাহেদা খাতুনের ষষ্ঠ সন্তান তিনি। তার বাবা ছিলেন স্থানীয় এক মসজিদের ইমাম। তারা ছিলেন তিন ভাই এবং বোন। কাজী নজরুল ইসলামের ডাক নাম ছিল "দুখু মিয়া"। দাুখু মিয়া ছাড়াও তার অনেক নাম ছিলো যেমনঃ নজর আলি, নাজির আলি। নামগুলো আসলে নামহীন-গোত্রহীন এক জীবনের তুচ্ছতার কথা বলে। পরে তিনি নেন ‘নাজিরুল ইসলাম’ ও ‘কাজী নজরুল ইসলাম’ নাম। কি মুসলমান কি হিন্দু, শিক্ষিত মধ্যবিত্ত মহল এমন কেতাবি নাম ছাড়া কাউকে সম্মান করতো না। নামের বিবর্তন থেকে বোঝা যায়, দিনে দিনে তিনি অনামা থেকে ‘নাম-করা’ সারিতে উঠে আসছেন। কিন্তু দুঃখের দহনে পোড়া ‘দুখু মিয়া’র জীবন আগের মতোই দুঃখেরই থেকে গেছে। রুটির দোকানের কর্মী, দারোগার বাড়ির ফরমাশ-খাটা বালক থেকে হাবিলদার হয়েছেন সেনাবাহিনীর। হয়েছেন লেটোর গানের দলের স্যাঙাত, দূরদেশের রণাঙ্গনের সৈনিক, হয়েছেন সাংবাদিক, সম্পাদক, রাজনীতিবিদ এবং কারাভোগী বিপ্লবী। নজরুলের জীবন তাঁর সাহিত্যের মতোই চমক লাগানো। এত পরিচয় সত্ত্বেও বাঙালির মনে দুখু মিয়া অতি চেনা কবিয়ালের রূপে স্থায়ী হয়েছেন। তিনি স্থানীয় মক্তবে কুরআন, ইসলাম ধর্ম, দর্শন এবং ইসলামী ধর্মতত্ত্ব অধ্যয়ন শুরু করেন। ১৯০৮ খ্রিস্টাব্দে যখন তাঁর পিতার মৃত্যু হয়, তখন তার বয়স মাত্র নয় বছর। পারিবারিক অভাব-অনটনের কারণে তাঁর শিক্ষাজীবন বাঁধাগ্রস্থ হয় এবং মাত্র দশ বছর বয়সে তাকে নেমে যেতে হয় জীবিকা অর্জ্জনে।এসময় নজরুল মক্তব থেকে নিম্ন মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে উক্ত মক্তবেই শিক্ষকতা শুরু করেন। একই সাথে হাজী পালোয়ানের কবরের সেবক এবং মসজিদের মুয়াজ্জিন হিসেবে কাজ শুরু করেন। এইসব কাজের মাধ্যমে তিনি অল্প বয়সেই ইসলাম ধর্মের মৌলিক আচার-অনুষ্ঠানের সাথে ঘনিষ্ঠভাবে পরিচিত হবার সুযোগ পান যা পরবর্তীকালে তাঁর সাহিত্যকর্মকে বিপুলভাবে প্রভাবিত করেছে।

মক্তব, মসজিদ ও মাজারের কাজে নজরুল বেশি দিন ছিলেন না। বাল্য বয়সেই লোকশিল্পের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে বাংলার রাঢ় অঞ্চলের কবিতা, গান ও নৃত্যের মিশ্র আঙ্গিক চর্চার ভ্রাম্যমান নাট্যদল 'লেটো'দলে যোগ দেন। ১৯১০ সালে নজরুল লেটো দল ছেড়ে ছাত্র জীবনে ফিরে আসেন। ছাত্রজীবনে তার প্রথম স্কুল ছিল রানীগঞ্জের সিয়ারসোল রাজ স্কুল। এরপর তিনি ভর্তি হন মাথরুন উচ্চ ইংরেজি স্কুলে যা পরবর্তীতে নবীনচন্দ্র ইনস্টিটিউশন নামে পরিচিতি লাভ করে। তবে আর্থিক সমস্যা তাকে বেশী দিন পড়াশোনা করতে দেয়নি। ষষ্ঠ শ্রেণী পর্যন্ত পড়ার পর তাকে আবার কাজে ফিরে যেতে হয়। প্রথমে যোগ দেন বাসুদেবের কবিদলে। এর পর একজন খ্রিস্টান রেলওয়ে গার্ডের খানসামা এবং সবশেষে আসানসোলের চা-রুটির দোকানে রুটি বানানোর কাজ নেন। এই দোকানে কাজ করার সময় আসানসোলের দারোগা রফিজউল্লাহ'র' সাথে তার পরিচয় হয়। দোকানে একা একা বসে নজরুল যেসব কবিতা ও ছড়া রচনা করতেন তা দেখে রফিজউল্লাহ তার প্রতিভার পরিচয় পান। তিনিই নজরুলকে ১৯১৪ খ্রিস্টাব্দে ময়মনসিংহ জেলার ত্রিশালের দরিরামপুর স্কুলে সপ্তম শ্রেণীতে ভর্তি করে দেন। ১৯১৫ খ্রিস্টাব্দে তিনি আবার রানীগঞ্জের সিয়ারসোল রাজ স্কুলে ফিরে যান এবং সেখানে অষ্টম শ্রেণী থেকে পড়াশোনা শুরু করেন। ১৯১৭ সাল পর্যন্ত এখানেই পড়াশোনা করেন।

১৯১৭ খ্রিস্টাব্দের শেষদিকে মাধ্যমিকের প্রিটেস্ট পরীক্ষার না দিয়ে ১৯১৭ খ্রিস্টাব্দের শেষদিকে তিনি সেনাবাহিনীতে সৈনিক হিসেবে যোগ দেন। তিনি সেনাবাহিনীতে ছিলেন ১৯১৭ খ্রিস্টাব্দের শেষভাগ থেকে ১৯২০ খ্রিস্টাব্দের মার্চ-এপ্রিল পর্যন্ত, অর্থাৎ প্রায় আড়াই বছর। এই সময়ের মধ্যে তিনি ৪৯ বেঙ্গল রেজিমেন্টের সাধারণ সৈনিক কর্পোরাল থেকে কোয়ার্টার মাস্টার হাবিলদার পর্যন্ত পদোন্নতি পেয়েছিলেন। সৈনিক থাকা অবস্থায় তিনি প্রথম বিশ্বযুদ্ধে অংশ নেন। ১৯২০ খ্রিস্টাব্দে যুদ্ধ শেষ হলে ৪৯ বেঙ্গল রেজিমেন্ট ভেঙে দেয়া হয়। এর পর তিনি সৈনিক জীবন ত্যাগ করে কলকাতায় ফিরে আসেন। কলকাতায় এসে নজরুল ৩২ নং কলেজ স্ট্রিটে বঙ্গীয় মুসলিম সাহিত্য সমিতির অফিসে বসবাস শুরু করেন। এখান থেকেই তার সাহিত্য-সাংবাদিকতা জীবনের মূল কাজগুলো শুরু হয়। প্রথম দিকেই মোসলেম ভারত, বঙ্গীয় মুসলমান সাহিত্য পত্রিকা, উপাসনা প্রভৃতি পত্রিকায় তার কিছু লেখা প্রকাশিত হয়। এর মধ্যে রয়েছে উপন্যাস বাঁধন হারা এবং কবিতা বোধন, শাত-ইল-আরব, বাদল প্রাতের শরাব, আগমনী, খেয়া-পারের তরণী, কোরবানি, মোহরর্‌ম, ফাতেহা-ই-দোয়াজ্‌দম্‌। এই লেখাগুলো সাহিত্য ক্ষেত্রে বিশেষভাবে প্রশংসিত হয়।এ ছাড়াও নজরুলের কবিতা, ছোটগল্প, উপন্যাস, প্রবন্ধ ও বাংলা সাহিত্যকে দিয়েছে বিপুল সমৃদ্ধি। বৈচিত্র্যময় বাংলা গানের বিপুল বিশাল ভাণ্ডারটি তিনি গড়ে দিয়ে গেছেন। বাঙালীর চিন্তা-মনন ও অনুভূতির জগতকে নাড়া দিয়েছেন ভীষণভাবে।

(কুমারী প্রমীলা সেনগুপ্ত দেবী)
১৯২০ খ্রিস্টাব্দের জুলাই ১২ তারিখে নবযুগ নামক একটি সান্ধ্য দৈনিক পত্রিকা প্রকাশিত হওয়া শুরু করে। এই পত্রিকার সম্পাদক ছিলেন শেরে-বাংলা এ.কে. ফজলুল হক। এই পত্রিকার মাধ্যমেই নজরুল নিয়মিত সাংবাদিকতা শুরু করেন। সাংবাদিকতার মাধ্যমে তিনি তৎকালীন রাজনৈতিক ও সামাজিক অবস্থা প্রত্যক্ষ করার সুযোগ পান। ১৯২১ সালের এপ্রিল-জুন মাসের দিকে নজরুল কুমিল্লার বিরজাসুন্দরী দেবীর বাড়িতে আসেন। আর এখানেই পরিচিত হন কুমারী প্রমীলা সেনগুপ্ত দেবীর সাথে যার সাথে কবির বিয়ে হয়েছিল। প্রমিলার ডাকনাম ছিল দুলি। তাদের এই বিয়ে প্রেমের বিয়ে নয় বরং পারিবারিক সন্মতিতেই হয়েছিল। তবে কুমিল্লায় থাকাকালে নজরুল প্রমিলার প্রতি অনুরক্ত ছিল। তার এ প্রেমের কথা কবি তার “বিজয়িনী” কবিতায় প্রকাশ করেন। তাদের বিয়ে হয়েছিল ১৯২৪ সালের এপ্রিল মাসে। এতে বাধা হিসেবে ছিল একটাই বিষয় তা হল ধর্ম। পরে যে যার ধর্ম পরিচয় বহাল থাকার শর্তে বিয়ে করেছিলেন। তখন প্রমিলা দেবীর বয়স ছিল ১৪ আর নজরুলের বয়স ছিল ২৩।

কবির জীবনে রয়েছে আরও অনেক নারীর ছোয়া। “রানু সোম” তিনি বুদ্বদেব বসুকে বিয়ে করে প্রতিভা বসু নামে খ্যাত হন। সংগীতঞ্জ দীলিপ কুমার রায় রানুকে নজরুলের গান শেখাতেন। তার কছেই তিনি রানুর নাম শোনেন। পরে তিনি তার কাছ থেকে রানুর ঠিকানা নিয়ে নিজেই তার বাড়ি খুজে বের করেন। শুরু করেন গান শিখানো। কিন্তু পারার যুবকদের সহ্য হয়নি তাদের এ গুরু শির্ষ্য সম্পর্ক। রানুর বাড়ি থেকে একদিন নজরুল বের হওয়ার পর যুবকরা আক্রমন করে তাকে। সেও তো আর কম না উল্টো আক্রমন করল ওদের। ব্যাপারটা তখন পুলিশ পর্যন্ত গড়ায়। শিল্পী কানন দেবিকেও গান শিখাতেন তিনি। রটানো হয়েছিল যে কবিকে কোথাও পাওয়া না গেলে তাকে পাওয়া যাবে কানন দেবির বাড়িতে। গান শেখানোর সময় রাত হলে থেকে যাওয়ার ব্যাপারটা অনেকেই ভাল চোখে দেখত না।

(রানু সোমের সাথে কবি)
১৯২২ খ্রিস্টাব্দের ১২ই আগস্ট নজরুল ধূমকেতু পত্রিকা প্রকাশ করে।পত্রিকার ২৬ সেপ্টেম্বর, ১৯২২ সংখ্যায় নজরুলের কবিতা 'আনন্দময়ীর আগমনে' প্রকাশিত হয়। এই রাজনৈতিক কবিতা প্রকাশিত হওয়ায় ৮ নভেম্বর পত্রিকার উক্ত সংখ্যাটি নিষিদ্ধ ঘোষিত হয়। একই বছরের ২৩ নভেম্বর তার যুগবাণী প্রবন্ধগ্রন্থ বাজেয়াপ্ত করা হয় এবং একই দিনে তাকে কুমিল্লা থেকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারের পর কবিকে কুমিল্লা থেকে কলকাতায় নিয়ে আসা হয়। ১৯২৩ খ্রিস্টাব্দের ৭ জানুয়ারি নজরুল বিচারাধীন বন্দী হিসেবে আত্মপক্ষ সমর্থন করে চিফ প্রেসিডেন্সি ম্যাজিস্ট্রেট সুইনহোর আদালতে এক জবানবন্দী প্রদান করেন। তার এই জবানবন্দী বাংলা সাহিত্যে রাজবন্দীর জবানবন্দী নামে বিশেষ সাহিত্যিক মর্যাদা লাভ করেছে। এই জবানবন্দীতে নজরুল বলেছেনঃ
"আমার উপর অভিযোগ, আমি রাজবিদ্রোহী। তাই আমি আজ রাজকারাগারে বন্দি এবং রাজদ্বারে অভিযুক্ত।... আমি কবি,আমি অপ্রকাশ সত্যকে প্রকাশ করার জন্য, অমূর্ত সৃষ্টিকে মূর্তিদানের জন্য ভগবান কর্তৃক প্রেরিত। কবির কণ্ঠে ভগবান সাড়া দেন, আমার বাণী সত্যের প্রকাশিকা ভগবানের বাণী। সেবাণী রাজবিচারে রাজদ্রোহী হতে পারে, কিন্তু ন্যায়বিচারে সে বাণী ন্যায়দ্রোহী নয়, সত্যাদ্রোহী নয়। সত্যের প্রকাশ নিরুদ্ধ হবে না। আমার হাতের ধূমকেতু এবার ভগবানের হাতের অগ্নি-মশাল হয়ে অন্যায় অত্যাচার দগ্ধ করবে...। ”
৬ জানুয়ারি বিচারের পর নজরুলকে এক বছরের সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডিত করা হয়।নজরুলকে আলিপুর কেন্দ্রীয় কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়। এখানে যখন বন্দী জীবন কাটাচ্ছিলেন তখন (১৯২৩ খ্রিস্টাব্দের জানুয়ারি ২২) বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ তার বসন্ত গীতিনাট্য গ্রন্থটি নজরুলকে উৎসর্গ করেন। এতে নজরুল বিশেষ উল্লসিত হন। এই আনন্দে জেলে বসে আজ সৃষ্টি সুখের উল্লাসে কবিতাটি রচনা করেন।

১৯৪২ খ্রিস্টাব্দে অসুস্থ হয়ে পড়েন কবি। এতে তিনি বাকশক্তি হারিয়ে ফেলেন। তার অসুস্থতা সম্বন্ধে সুষ্পষ্টরুপে জানা যায় ১৯৪২ খ্রিস্টাব্দের জুলাই মাসে। ১৯৪২ সালের শেষের দিকে তিনি মানসিক ভারসাম্যও হারিয়ে ফেলেন। এরপর নজরুল পরিবার ভারতে নিভৃত সময় কাটাতে থাকে। ১৯৫২ সাল পর্যন্ত তারা নিভৃতে ছিলেন। ১৯৫২ খ্রিস্টাব্দে কবি ও কবিপত্নীকে রাঁচির এক মানসিক হাসপাতালে পাঠানো হয়। এরপর ১৯৫৩ খ্রিস্টাব্দের মে মাসে নজরুল ও প্রমীলা দেবীকে চিকিৎসার জন্য লন্ডন পাঠানো হয়। সেখানের চিকিৎসকরা জানায় কবি পিক্‌স ডিজিজ নামক একটি নিউরন ঘটিত সমস্যায় ভুগছেন। এই রোগে আক্রান্তদের মস্তিষের ফ্রন্টাল ও পার্শ্বীয় লোব সংকুচিত হয়ে যায় যা থেকে কবিকে আরোগ্য করে তোলা অসম্ভব। এই প্রেক্ষিতে কবি নজরুল ইউরোপ থেকে দেশে ফিরে আসেন। কবির সাথে যারা ইউরোপ গিয়েছিলেন তারা সবাই ১৯৫৩ সালের ১৪ ডিসেম্বর রোম থেকে দেশের উদ্দেশ্যে যাত্রা করেন।

১৯৭১ খ্রিস্টাব্দে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে বাঙালিদের বিজয় লাভের মাধ্যমে বাংলাদেশ নামে একটি স্বাধীন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা লাভ করলে বাংলাদেশের তৎকালীন রাষ্ট্রপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বিশেষ উদ্যোগ ১৯৭২ খ্রিস্টাব্দের ২৪ মে তারিখে ভারত সরকারের অনুমতিক্রমে কবি কবি কাজী নজরুলকে সপরিবারে বাংলাদেশে নিয়ে আসেন। মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় তাঁর গান, কবিতা সাহস ও প্রেরণা জুগিয়েছে দেশের মুক্তিকামী মানুষকে। কবির বাকি জীবন বাংলাদেশেই কাটে। বাংলা সাহিত্য এবং সংস্কৃতিতে তার বিশেষ অবদানের স্বীকৃতিস্বরুপ ১৯৭৪ খ্রিস্টাব্দের ৯ ডিসেম্বর তারিখে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় তাকে সম্মানসূচক ডি.লিট উপাধিতে ভূষিত করা হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের এক সমাবর্তনে তাকে এই উপাধি প্রদান করা হয়। ১৯৭৬ খ্রিস্টাব্দের জানুয়ারি মাসে বাংলাদেশ সরকার কবিকে বাংলাদেশের নাগরিকত্ব প্রদান করে। একই বছরের ২১ ফেব্রুয়ারিতে তাকে বাংলাদেশের সবচেয়ে সম্মানসূচক পদক একুশে পদকে ভূষিত করা হয়।

এরপর যথেষ্ট চিকিৎসা সত্ত্বেও নজরুলের স্বাস্থ্যের বিশেষ কোন উন্নতি হয়নি। ১৯৭৪ খ্রিস্টাব্দে কবির সবচেয়ে ছোট ছেলে এবং বিখ্যাত গিটার বাদক কাজী অনিরুদ্ধ মৃত্যুবরণ করে। ১৯৭৬ সালে নজরুলের স্বাস্থ্যেরও অবনতি হতে শুরু করে। জীবনের শেষ দিনগুলো কাটে ঢাকার পিজি হাসপাতালে। ১৩৮৩ বঙ্গাব্দের ১২ই ভাদ্র (১৯৭৬ খ্রিস্টাব্দের ২৯ আগস্ট) তারিখে ঢাকার তদানীন্তন পিজি হাসপাতালে (বর্তমানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়) চিরনিদ্রায় ঘুমিয়ে পড়েন কবি।
মানবতার মুক্তির পাশাপাশি সাম্প্রদায়িকতা, ধর্মান্ধতা, কুসংস্কার, কূপমণ্ডূকতার বিরুদ্ধে সোচ্চার সাম্যের কবি, গানের বুলবুল জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ৪৩তম মৃত্যুবার্ষিকীতে আমাদের শ্রদ্ধাঞ্জলি

নূর মোহাম্মাদ নূরু
গণমাধ্যমকর্মী
[email protected]

মন্তব্য ২৫ টি রেটিং +৬/-০

মন্তব্য (২৫) মন্তব্য লিখুন

১| ২৭ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৮:৩৫

রাজীব নুর বলেছেন: এত দিন কোথায় ছিলেন গুরু??

২৭ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৮:৫০

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:
''মোর নাম এই' বলে খ্যাত হোক,
আমি তোমাদেরই লোক,
আর কিছু নয়,
এই হোক শেষ পরিচয়।''

২| ২৭ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৮:৪৩

ইসিয়াক বলেছেন: অনেক ভালো। চমৎকার ।

২৭ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৮:৫০

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:
ধন্যবাদ আপনাকে

৩| ২৭ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৮:৪৫

চাঁদগাজী বলেছেন:



ব্লগে ফেরার জন্য অভিনন্দন জানাতে হবে?

২৭ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৮:৫১

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:
জানালে মন্দ হতোনা।

৪| ২৭ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৮:৪৭

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: প্রিয় নুরু ভাই,

দেখতে দেখতে 12 বছর অতিক্রান্ত হল। অবশেষে আপনার দেখা পাওয়াতে স্বস্তি পেলাম। পোস্ট নাইবা পড়লাম।ধৃষ্টতা মাফ করবেন,আগে বলুন এতদিন কোথায় ছিলেন?
কবির 43 তম মৃত্যুবার্ষিকীতে জানাই শ্রদ্ধাঞ্জলি।

শুভকামনা প্রিয় নুরু ভাইকে।

২৭ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৮:৫৪

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:
আবার আসিব ফিরে

আবার আসিব ফিরে ধানসিঁড়িটির তীরে-এই বাংলায়
হয়তো মানুষ নয় হয়তো বা শঙ্খচিল শালিকের বেশে
হয়তো ভোরের কাক হয়ে এই কার্তিকের নবান্নের দেশে
কুয়াশার বুকে ভেসে একদিন আসিব এ কাঁঠাল-ছায়ায়;
হয়তো বা হাঁস হব- কিশোরীর-ঘুঙুর রহিবে লাল পায়,
সারা দিন কেটে যাবে কলমির গন্ধ ভরা জলে ভেসে ভেসে;
আবার আসিব আমি বাংলার নদী মাঠ ক্ষেত ভালবেসে
জলাঙ্গীর ঢেউয়ে ভেজা বাংরার এ সবুজ করুণ ডাঙায়;

হয়তো দেখিবে চেয়ে সুদর্শন উড়িতেছে সন্ধ্যার বাতাসে।
হয়তো শুনিবে এক লক্ষ্মীপেঁচা ডাকিতেছে শিমূলের ডালে।
হয়তো খইয়ের ধান ছড়াতেছে শিশু এক উঠানের ঘাসে।
রূপসার ঘোলা জলে হয়তো কিশোর এক সাদা ছেঁড়া পালে
ডিঙ্গা বায়; রাঙ্গা মেঘ সাঁতরায়ে অন্ধকারে আসিতেছে নীড়ে
দেখিবে ধবল বক; আমারেই পাবে তুমি ইহাদের ভীড়ে।

৫| ২৭ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৮:৪৯

চাঁদগাজী বলেছেন:


বাংগালী জাতির সাহিত্য ভান্ডারে অনেক মুল্যবান ভাবনা রেখে গেছেন কবি, উনার জন্য শ্রদ্ধা রলো

২৭ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৮:৫৮

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:
আপনার জন্য শুভেচ্ছা।
কুশলে ছিলেনতো?
সিংহ শূন্য বনে
মুষিক সম?

মজা করলাম,
রাগবেন না।
এ্ই বয়সে রাগ মানায়না।
শরীর খারাপ করবে।

৬| ২৭ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৯:০৭

রাজীব নুর বলেছেন: আপনাকে দেখে সবচেয়ে খুশি হবেন চাঁদগাজী।

২৭ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৯:২৯

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:
আমিও খুশি হয়েছি

৭| ২৭ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৯:১৭

চাঁদগাজী বলেছেন:



রাজীব নুর বলেছেন, " আপনাকে দেখে সবচেয়ে খুশি হবেন চাঁদগাজী। "

-আসলেই, আমি খুশী হয়েছি! উনি না থাকলে ব্লগ চুপ হয়ে যায়।

২৭ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৯:৩৪

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:
শরীর খুব একটা ভালো যাচ্ছেনা।
তা ছাড়া ব্লগে আসতে অনেক ঝামলো
পোহাতে হয়। তাই কমিয়ে দিয়োছি।
আপনারা সবাই ভালো থাকবেন।
আমার জন্য দোয়া করবেন।
ভুলত্রুটি নিজ গুণে ক্ষমা করে দিবেন।

৮| ২৭ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৯:২৪

পাঠকের প্রতিক্রিয়া ! বলেছেন: মাথায় কয়েকটা ভাবনা আসলো..


কবিকে ৭২সালে দেশে আনা হল কিন্তু নাগরিকত্ব পেলেন ৭৬রে! এ কেমন কথা!

কবির মৃত্যু ২৯ আগস্ট, কিন্তু আমরা পালন করি ২৭শে অাগস্ট। কেন?

২০১৯সালে কবি বেঁচে থাকলে, কি টাইপ কবিতা লিখতেন?

৯| ২৭ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৯:৫৪

জুনায়েদ বি রাহমান বলেছেন: কবিকে শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করছি।
(আপনি ছাড়া ব্লগে গুণী মানুষদের জন্ম তারিখ, মৃত্যু তারিখ... জীবনী নিয়ে কেউ লিখেন না। ব্লগে আপনার নিয়মিত সময় দেওয়ার দরকার আছে।)

ভালো থাকবেন।

১০| ২৭ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ১০:২১

রাকু হাসান বলেছেন:

ধন্যবাদ প্রিয় কবিকে নিয়ে লেখার জন্য। ফিরে আসায় স্বাগতম ।

১১| ২৮ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ১২:৩৮

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: আপনাকে খুব প্রয়োজন ব্লগে, তা অনুভব করেছেন ব্লগের প্রতিটি ব্লগার। কেমন আছেন?

১২| ২৮ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ১:০২

চাঁদগাজী বলেছেন:


কবিকে বুঝতে হলে, উনার জীবনের যেসব তথ্য দরকার, সেগুলো যোগ করেছেন; তবে, লেখা দীর্ঘ হয়ে গেছে।

১৩| ২৮ শে আগস্ট, ২০১৯ ভোর ৬:৪৮

নাসির ইয়ামান বলেছেন: আসলেই আপনি ভালো লেখেছেন!

আপনি কবির প্রতি শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পন করেছেন তাও ভালো,কিন্ত তাঁর জন্য প্রার্থনা করুন।অন্যায়ের বিরুদ্ধে তাঁর বিদ্রোহের আওয়াজ আজকের ভীরু (কপট) জাতির সামনে তুলে ধরুন! ভালো। তবে মৃত্যুদিন উপলক্ষ্যে তাকে বিষেশভাবে স্মরণ,জাতির নিকট তার আলোচনা/সেমিনার_এগুলো কেন? বছরের আর দিনগুলি কী দোষ করল।আমি বলতে চাচ্ছি মৃত্যুদিবস,জন্মদিবস সেলিব্রেট:এগুলো ইসলামের সাথে যায়না! তা অমুসলিমদের পালণীয় রীতি!

১৪| ২৮ শে আগস্ট, ২০১৯ সকাল ৯:৪২

নূর আলম হিরণ বলেছেন: ফিরে এসেছেন দেখে ভালো লাগলো। কবি এবং আপনার জন্য ভালোবাসা।

১৫| ২৮ শে আগস্ট, ২০১৯ সকাল ৯:৫৩

নতুন নকিব বলেছেন:



আপনি ব্লগে না থাকলে চাঁদগাজী ভাই নি:সঙ্গতা অনুভব করতে পারেন। তার কথা ভেবে হলেও আপনার মাঝে সাঝে ব্লগে ঢু মেরে যাওয়া উচিত। কি মধুর সম্পর্ক আপনাদের দু'জনের মধ্যে! উপভোগ্য বটে!

জাতীয় কবির জন্ম মৃত্যুর দিনে বা মাসে তাকে স্মরণ নয়; চাই তার আদর্শকে সামনে নিয়ে আসা। ঘুমন্ত জাতির জাগরণে কবির আজীবনের স্বপ্ন সাধনাকে মন ও মননে ধারণ করা। নাসির ইয়ামান এর ১৩ নং মন্তব্যটিতে লাইক। তিনি সত্যকে তুলে ধরেছেন। অভিনন্দন তাকে। শুভকামনা আপনার জন্যও।

১৬| ২৮ শে আগস্ট, ২০১৯ সকাল ১০:২২

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: বিদ্রোহী কবিকে অন্তরের অন্তস্থল থেকে শ্রদ্ধাঞ্জলি। তিনি সমগ্র ভারত উপমহাদেশের মানুষের মধ্যে ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে ভ্রাতৃত্বের বন্ধনে আবদ্ধ রাখার যে প্রয়াস চালিয়েছিলেন তাকে শ্রদ্ধা জানাতেই হয়। তিনি বাঙালিদের গর্ব।

১৭| ২৮ শে আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৫:১২

মোঃ মাইদুল সরকার বলেছেন:
আমি চিরতরে দূরে চলে যাব
তবু দিব না আমায় ভুলিতে।

হ্যা তার এই গানের মতই তিনি তাকে ভুলতে দেননি আমরা তাকে স্মরণ করি শ্রদ্ধাভরে।

১৮| ২৮ শে আগস্ট, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:২৮

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: অবশেষে আপনি ফিরে এসেছেন এতেই আমি মহা খুশি।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.