নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

শব্দকবিতা : শব্দেই দৃশ্য, শব্দেই অনুভূতি \n\[email protected]

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই

দুঃখের কবিতাই শ্রেষ্ঠ কবিতা। ভালোবাসা হলো দুঃখ, এক ঘরে কবিতা ও নারী।

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই › বিস্তারিত পোস্টঃ

আমিনুদ্দিন একটা গান গাইতে চেয়েছিল

০৬ ই মার্চ, ২০২০ বিকাল ৫:৩১

ছোটোবেলায় মায়ের মুখে আমিনুদ্দিন এ গানটা শুনেছিল
শুনতে শুনতে সুর-লয়সহ টানা মুখস্থ হয়ে যায় গানটা
গুনগুন করে এ গানটা গাইত সে; শুয়ে শুয়ে গাইত,
দল্লুই গাছে দোলনা বেঁধে ঝুলতে ঝুলতে গাইত,
গোসলের পথে, স্কুলে, বাজারে যেতে যেতে,
ফিরতে ফিরতে, আমিনুদ্দিন গানটা গাইত।
গানটায় কী জাদু আছে সে জানে না; শুধু সে জানে তার
বুকের ভেতরে এ গানটা জীবন্ত মুক্তোর মতো গেঁথে আছে

নিজের গান পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ সুরেলা গান। আমিনুদ্দিন আপন প্রতিভায়
মুগ্ধ বিমোহিত তন্ময় হতো। কখনো বিষণ্ণ দুপুরে
একলা গাছটার গোড়ায় বসে বাতাসে গলা ছেড়ে দিত আমিনুদ্দিন
হয়ত সে সুর বহুদূর ভেসে ভেসে
কোনো এক প্রেমাকাঙ্ক্ষী বালিকার বুকে আলতো ধাক্কা খেয়ে
নিজের কাছেই আসতো ফিরে। আমিনুদ্দিন কত কী ভেবে শিহরিত হতো।

একদিন নৌকো বাইতে বাইতে আমিনুদ্দিন খুব মন দিয়ে
গানটা গাইছিল। খালপাড়ের এক গাছে হেলান দিয়ে দাঁড়িয়েছিল রাহিমা।
‘আল্লা রে, তোমার গলা কত্ত সুন্দর’ বলে যখন রাহিমা কলকলিয়ে
উঠেছিল, আমিনুদ্দিন লজ্জায় রাঙা হয়ে গান থামিয়ে মাথা নীচু করেছিল।

কখনো গলা ছেড়ে, কখনো গুনগুনিয়ে, আড়ালে আবডালে
গাইতেই তার ভালো লাগে। কেউ শুনে ফেললে
তার খুব লজ্জা হয়। তার চোখের দিকে
তাকাতে পারে না, ইচ্ছে করে নিজেকে কোথাও লুকিয়ে ফেলতে।

যেদিন বহুদিন পর প্রাণপ্রিয় পুরোনো বন্ধুরা মিলিত হলো,
দিনভর তুমুল আড্ডা আর মাতামাতি শেষে বিকেলে
জমজমাট গানের আসর বসলো, হঠাৎ কী ভাবলো আমিনুদ্দিন-
আজ সে গাইবে মায়ের কাছে শোনা পরমাত্মিক গানটা

গান শুরু হলো। মজনু, শাকিলা, শাহজাহান গাইল। একে একে
ডাকা হলো রেহানা, সুজাতা আর নূরুলের নাম। ওরা গাইল, নাচলো।
মীর পলাশ কবিতা পড়লো। ডাকা হলো বাচ্চু ও বাবুলের নাম।
আমিনুদ্দিন ভাবে- এই বুঝি ওর নামও ডাকা হবে। ডাকা হলো
জাভেদ, করিম, আকলিমাকে। সবাই সুর করে ডাকছে
একে অপরের নাম। এখনই কেউ একজন বলবে-
ওরে, আমাদের আমিনুদ্দিন কই রে? আজ কোনো ছাড়াছাড়ি নাই,
কিছু একটা করতেই হবে তোকে।
এরপর ডাক পড়লো রোশানের। রোশানের পর সোহানা।
সমস্বরে উচ্চারিত হচ্ছে প্রিয়সব নামগুলো – সুলতানা! সায়ন্তনী!
কাউকে না কাউকে তো হতেই হবে ‘শেষনাম’। বেজায় উত্তেজিত
আমিনুদ্দিন ছটফট করছে, এই তো শেষ ব্যক্তি হিসাবে তার নাম
ডাকা হবে এখনই। আর তখনই উপস্থাপক সমাপ্তি ঘোষণা করলো
অনুষ্ঠানের।

কারো কারো নাম কখনো প্রিয়তালিকায় ওঠে না, অথবা চিরকাল
অজানাই থেকে যায়। এ কারণে, আমাদের জানা হলো না,
আমিনুদ্দিন ওর মায়ের কাছ থেকে কোন গানটা শিখেছিল।

০৬ মার্চ ২০২০

মন্তব্য ৩২ টি রেটিং +২/-০

মন্তব্য (৩২) মন্তব্য লিখুন

১| ০৬ ই মার্চ, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:২৪

প্রেক্ষা বলেছেন: আমিনুদ্দিন এর মতো সুরেলা গলা আমার নেই তবে একা থাকলেই আমি "আতা গাছে তোতা পাখি"কবিতাটা গানের মতো করে গাই,কি যে শান্তি লাগে তা বলার মতো না।

ওহ!!!আমি কিন্তু আজকেও প্রথম :)

০৬ ই মার্চ, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৪৪

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: আজকেও প্রথম হওয়ার জন্য একটা 'ওয়াও অভিনন্দন'।

আমিনুদ্দিনের গলা সুরেলা কিনা, এ কথাটা অবশ্য উহ্য রয়েছে। তবে, আমার মতে, সবার কাছেই নিজের গলাটা সুরেলা মনে হয়। এজন্যই, সব মানুষই কোনো না কোনো সময়ে আপন মনে গান গেয়ে ওঠে, এমনকি কবিতাও বলে ওঠে।

আচ্ছা, আপনার আতা গাছে তোতা পাখি একদিন আমাদের শোনাবার জন্য অনুরোধ থাকলো।

কমেন্টের জন্য ধন্যবাদ।

২| ০৬ ই মার্চ, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৫৯

প্রেক্ষা বলেছেন: আপনার আতা গাছে তোতা পাখি একদিন আমাদের শোনাবার জন্য অনুরোধ থাকলো।

তবে শুনুন...

আতা—— গাছেএএএ তোতাআআ পাখিইইইই
ডালিম গাছেএএএ মৌ,
এত্তোওও ডাকি তবু কথাআআ
কওওও নাআআ কেন বউউউউ???

০৬ ই মার্চ, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:০৭

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: আবারো ওয়াও!!!! খুব দারুণ গেয়েছেন। আমি বিমোহিত।

৩| ০৬ ই মার্চ, ২০২০ রাত ৮:০২

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: বেজায় উত্তেজিত
আমিনুদ্দিন ছটফট করছে, এই তো শেষ ব্যক্তি হিসাবে তার নাম
ডাকা হবে এখনই। আর তখনই উপস্থাপক সমাপ্তি ঘোষণা করলো
অনুষ্ঠানের।

আহারে বড়ই হতভাগা আমাদের এই আমিনুদ্দিন। তাঁদের স্বপ্ন,আশা,সাধ গুলি এভাবেই অধরা থেকে যায়।

০৬ ই মার্চ, ২০২০ রাত ১১:৫০

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: এমন কত হতভাগা প্রতিভারা আড়ালেই থেকে যাচ্ছে, তারপর হারিয়ে যাচ্ছে। এদের নাম কোনো ফেভারিট লিস্টে ওঠে না।

সুন্দর কমেন্টের জন্য ধন্যবাদ লিটন ভাই। শুভেচ্ছা।

৪| ০৬ ই মার্চ, ২০২০ রাত ৮:০৮

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: অসাধারণ একটি পোস্ট।

০৬ ই মার্চ, ২০২০ রাত ১১:৫০

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ প্রিয় সাজ্জাদ ভাই।

৫| ০৬ ই মার্চ, ২০২০ রাত ৮:০৯

নেওয়াজ আলি বলেছেন: অনন্যসাধারণ লেখা।

০৬ ই মার্চ, ২০২০ রাত ১১:৫১

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: অনেক লম্বা একটা শব্দ বললেন তো! অনেক ধন্যবাদ নেওয়াজ আলি।

৬| ০৬ ই মার্চ, ২০২০ রাত ১০:০১

রাজীব নুর বলেছেন: আমি নাটক নির্মাতা হলে এই পোষ্ট দিয়েই একটা সুন্দর নাটক বানাতাম।

০৬ ই মার্চ, ২০২০ রাত ১১:৫২

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: তাহলে ধরে নিলাম নাটকটা হয়েই গেছে। আপনি শুধু নায়করাজই না, নাট্যকারও।

৭| ০৭ ই মার্চ, ২০২০ সকাল ১১:০২

সোহানী বলেছেন: এর কোন মানে হয়.... সােহানাকে ডাকলো আর আমিনুদ্দিনকে ডাকলো না ;) । এ গভীর ষড়যন্ত্র.... উপস্খাপিকার কাগজে আমিনুদ্দিন এর নাম ছিল তারপরও হেড়ে গলার সোহানাকে ডাকলো কিন্তু আমিনুদ্দিনকে ডাকলো না এ কিছুতেই হতে পারে না। ঈদের পর এর একটা বিহিত হবেই হবে B:-/

০৭ ই মার্চ, ২০২০ সকাল ১১:১০

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: আজিকে প্রভাতে রবির করে আপনার কমেন্টটা হৃদয়ে পশিল :)

নামটা আসলে সোহানীই হবে, প্রিন্টিং মিশটেকে সোহানা হইয়া গেছে। শেষমেষ ইহাই প্রমাণিত হইয়াছে যে, উহা জনাবা সোহানীর একটা গভীর ষড়যন্ত্র ছিল, যার ফলে অভাগা আমিনুদ্দিনের নাম অন্ধকারে ঢাকা পইড়া যায়। আগামী ইদের পর আমরা মাঠে নামবো।

৮| ০৭ ই মার্চ, ২০২০ সকাল ১১:১৩

সোহানী বলেছেন: হাহাহাহাহাহা........এইতো বুঝবার পারছেন আসল কাহিনী :D :D

০৭ ই মার্চ, ২০২০ সকাল ১১:৩৫

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: কাহিনিটা সত্যিই হৃদয় বিদারক :(

৯| ০৭ ই মার্চ, ২০২০ সকাল ১১:১৬

জাহিদ হাসান বলেছেন: আর সুবোধ পালাতে চাইছিল... দেশ ছেড়ে।
এখন অনার্স থার্ড ইয়ারে সেশনজটে আটকে আছে। ;)

০৭ ই মার্চ, ২০২০ সকাল ১১:৩৬

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: সুবোধের জন্য অনেক অনেক শুভকামনা থাকলো, যাতে তাকে দেশ ছেড়ে পালাতে না হয়

১০| ০৭ ই মার্চ, ২০২০ বিকাল ৪:৫৩

রাজীব নুর বলেছেন: লেখক বলেছেন: তাহলে ধরে নিলাম নাটকটা হয়েই গেছে। আপনি শুধু নায়করাজই না, নাট্যকারও
ভবিষ্যতে আমি অবশ্যই নাটক পরিচালনা করবো।

০৭ ই মার্চ, ২০২০ বিকাল ৫:৪১

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: আপনার জন্য অনেক অনেক শুভ কামনা থাকলো জনাব নাট্যকার সাহেব

১১| ০৭ ই মার্চ, ২০২০ বিকাল ৫:০১

মিরোরডডল বলেছেন: আহারে !! সত্যিই কষ্টদায়ক ।

অপ্রাসঙ্গিক হলেও অনেক পুরনো দিনের একটা বাংলা নাটকের কথা মনে পড়লো ।
সেখানে হুমায়ূন ফরিদি যে বাড়ীতে আশ্রিত থাকে একদিন তাদের সাথে রাতে একটি দাওয়াতে যাবার কথা । খুবই এক্সাইটেড হয়ে সে রেডি হয় । নতুন পাঞ্জাবী পরে, চোখে একটু সুরমাও দেয় । মহাখুশি ।
কিন্তু যখনই সময় হোল যাবার, তাঁরা চলে গেলো তাকে না নিয়ে । He was heartbroken and me too. I remember I cried watching this.

মানুষ যখন কোনকিছুর জন্য প্রত্যাশা নিয়ে অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করে আর লাস্ট মিনিট এ হৃদয়ভঙ্গ হয় সত্যিই মর্মান্তিক ।

০৭ ই মার্চ, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:০০

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: মানুষ যখন কোনকিছুর জন্য প্রত্যাশা নিয়ে অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করে আর লাস্ট মিনিট এ হৃদয়ভঙ্গ হয় সত্যিই মর্মান্তিক। চমৎকার বলেছেন।

আমার নিজেরও এমন কাছাকাছি থিমের উপর একটা ছোটোগল্প আছে

আবেগী মানুষের অনুভূতিগুলো খুব সূক্ষ্ম হয়। এরা খুব ইন্ট্রোভার্টও হয়। ফলে, তারা নিজ থেকে কখনো সামনে এগোয় না। নইলে, এ কাহিনির আমিনুদ্দিনকে গান গাওয়া থেকে বাদ পড়তে হতো না। একদিকে, তার গান শুনে পাছে লোকে কিছু বলে এরকম একটা লজ্জা, অন্যদিকে, কেউ না কেউ তাকে তো ডাকবে, তাকে ডাকছে না কেন, এই অভিমান থেকে সে নিজের পারফরমেন্স করা থেকে বঞ্চিত থাকে। আর নিজের মধ্যে ক্ষয় হতে থাকে। এই যে তার সূক্ষ্ম অনুভূতিগুলো খুব সক্রিয়, এটা আমার কাছে খুব মূল্যবান একটা বস্তু। এটার মূল্য অনেক বেশি। সে নিজে এগিয়ে যাবে, এমনও হতে পারে কেউ তাকে থামিয়ে দিল, এটা সে চায় নি।

নাটকের কাহিনিটাও খুব মর্মস্পর্শী মনে হলো।

ধন্যবাদ ডুলু সুন্দর কমেন্টের জন্য।

১২| ০৭ ই মার্চ, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৫৬

মলাসইলমুইনা বলেছেন: সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই,
ঠিক কথা । চিরন্তন কথাইতো আছে "ম্যান প্রোপোজেস গড ডিস্পজেস"।
আমাদের দেশ, ব্যক্তি, জাতি সবারই মনে হয় আমিনুদ্দিনের মতো নিজের গাইতে চাওয়া গানটা আর গাওয়া হয়ে উঠে না (প্রয়োজনীয় বলার কথাগুলো আর বলা হয়ে উঠেনা [দেশ ও জাতির ক্ষেত্রে]।)।

১১ ই মার্চ, ২০২০ রাত ১০:২৬

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: কবিতা থেকে আরেকটা চমৎকার দিক তুলে এনেছেন নাইমুল ভাই। ভালো লাগলো বিষয়টা।

শুভেচ্ছা রইল আপনার জন্য।

১৩| ০৭ ই মার্চ, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:১৯

মিরোরডডল বলেছেন: আবারও ডুলু ???

১১ ই মার্চ, ২০২০ রাত ১০:২৮

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন:

১৪| ১০ ই মার্চ, ২০২০ বিকাল ৫:২০

দেশ প্রেমিক বাঙালী বলেছেন: আমিনুদ্দিনের অব্যক্ত কথা গুলো অজানাই থেকে গেল!! :(

১১ ই মার্চ, ২০২০ রাত ১০:২৯

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: ঠিক, আমাদের অনেকের কথাই অব্যক্ত থেকে যায় :(

ধন্যবাদ দেশপ্রেমিক বাঙালী।

১৫| ১৪ ই মার্চ, ২০২০ রাত ১১:২৩

মোহাম্মাদ আব্দুলহাক বলেছেন: অপেক্ষায় দিন কেটে যায়।

১৫ ই মার্চ, ২০২০ সকাল ৯:২৭

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: ধন্যবাদ পলাশ ভাই।

১৬| ১৫ ই মার্চ, ২০২০ সকাল ১০:৩৩

নীল আকাশ বলেছেন: প্রেক্ষা বলেছেন: আমিনুদ্দিন এর মতো সুরেলা গলা আমার নেই তবে একা থাকলেই আমি "আতা গাছে তোতা পাখি"কবিতাটা গানের মতো করে গাই,কি যে শান্তি লাগে তা বলার মতো না।
এটা পড়ার পর কী মন্তব্য করবো ভুলে গেলাম!
প্রেক্ষা কে অনুরোধ এটা ভালো না লাগলে হাট্টিমাটিম টিম টেরাই করতে পারেন। ধন্যন্তরী কাজ দেবে।
ধন্যবাদ।

১৫ ই মার্চ, ২০২০ সকাল ১০:৩৬

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: হাহাহাহা। আপনার নিজের কোনো প্রিয় সঙ্গীত আছে কিনা, তা তো বললেন না?

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.